Logo
আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

ডেঙ্গুর সংক্রমণ বাড়ছে, সর্তক হওয়ার পরামর্শ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

প্রকাশিত:রবিবার ০৭ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ২৫১জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশে আবারও ডেঙ্গুর সংক্রমণ বাড়ছে, প্রতিরোধে সবাইকে সর্তক থাকতে পরামর্শ দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

আজ রোববার দুপুরে রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে বিশ্ব টিকাদান সপ্তাহের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ পরামর্শ দেন তিনি।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ডেঙ্গু থেকে বাঁচতে মশার কামড় থেকে মুক্ত থাকতে হবে। আশপাশের পরিবেশ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। বাসা-বাড়ির ছাদ, আঙিনায় যেন পানি জমে না থাকে সেই ব্যাপারে খেয়াল রাখতে হবে।

টিকাদান কার্যক্রম প্রসঙ্গে জাহিদ মালেক বলেন, ‘আমরা প্রতি বছর সাড়ে দুই কোটি শিশুকে টিকা দিয়ে থাকি, সবমিলিয়ে প্রায় ১০টিরও বেশি অসুখের টিকা দেওয়া হয়ে থাকে। এই প্রোগ্রামের জন্য ১ লাখ ২০ হাজার সেন্টার করে থাকি। এছাড়াও আমরা ১৫ থেকে ৪৯ বছরের নারীদের টিকা দিয়ে থাকি। তাদেরও ১০ রকমের রোগের টিকা দেওয়া হয়।

তিনি বলেন, ‘দেশের মানুষ টিকার প্রতি আগ্রহী, তারা খুবই আনন্দের সঙ্গে টিকা নেয়। আমাদের মায়েরা শিশুদের টিকা দিতে আগ্রহী। তারাই আমাদের টিকাদানে সফলতার পেছনের বড় কারণ হিসেবে কাজ করে। এক্ষেত্রে সরকারের সদিচ্ছাও বড় কারণ। এই কার্যক্রমে বিরাট একটা লজিস্টিক সাপোর্ট লাগে, যা সরকার দেয়। টিকাদানের সময় অন্যান্য কাজকর্মও আমরা করে যাচ্ছি।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘করোনায় বিশ্বে ৭০ লাখ মানুষ মারা গেছে, ৭০ কোটি লোক আক্রান্ত হয়েছে। আমরা ৩৬ কোটি টিকা দিতে সক্ষম হয়েছি। টিকা দেওয়ার কারণেই আমাদের দেশে মৃত্যুহার কম ছিল।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, বর্তমানে দেশে প্রায় ৭০০টি স্থায়ী ও এক লাখ ২০ হাজার অস্থায়ী টিকাকেন্দ্রের মাধ্যমে শিশু ও নারীদের সরকারিভাবে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে ১০টি মারাত্মক সংক্রামক রোগের বিরুদ্ধে জীবন রক্ষাকারী টিকা দেওয়া হয়ে থাকে। এছাড়া আরও কয়েকটি টিকা অচিরেই নিয়মিত টিকাদান কর্মসূচিতে যুক্ত হতে চলেছে। যার মধ্যে এইচপিডি টিকা অন্যতম। যার সফল বাস্তবায়নের মাধ্যমে আমরা আমাদের নারীদের জরায়ুমুখের ক্যান্সারের মতো দুরারোগ্য ব্যাধি থেকে সুরক্ষা দিতে পারব।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম। এতে আরও উপস্থিত ছিলেন পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতরের মহাপরিচালক সাহান আরা বানু, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টেটিভ ডা. বরদান জুং রানাসহ অন্যান্যরা।


আরও খবর



প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী নিয়োগ পেলেন ৩ জন

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১১০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:প্রধানমন্ত্রীর ৩ বিশেষ সহকারী নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তারা হলেন- ফেরদৌস আহমেদ খান, ড. শহীদ হোসাইন এবং কৃষিবিদ মশিউর রহমান (হুমায়ুন)।

রোববার (২৮ জানুয়ারি) জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত তিনটি আলাদা প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

এক প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়, ফেরদৌস আহমেদ খানকে অন্যান্য প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের সঙ্গে কর্ম-সম্পর্ক পরিত্যাগের শর্তে যোগদানের তারিখ থেকে সরকারের সচিব পদমর্যাদা ও বেতনে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী পদে প্রধানমন্ত্রীর মেয়াদকাল অথবা তার সন্তুষ্টি সাপেক্ষে (যেটি আগে ঘটে) চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দেওয়া হলো।

আরেক প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ড. শহীদ হোসাইনকে অন্যান্য প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের সঙ্গে কর্ম-সম্পর্ক পরিত্যাগের শর্তে যোগদানের তারিখ থেকে সরকারের সচিব পদমর্যাদায় ও বেতনে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী পদে প্রধানমন্ত্রীর মেয়াদকাল অথবা তার সন্তুষ্টি সাপেক্ষে (যেটি আগে ঘটে) চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দেওয়া হলো।

প্রজ্ঞাপনে সর্বশেষ জানানো হয়, কৃষিবিদ মশিউর রহমানকে (হুমায়ুন) অন্যান্য প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের সঙ্গে কর্মসম্পর্ক পরিত্যাগের শর্তে উপসচিব পদমর্যাদায় যোগদানের তারিখ থেকে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী পদে প্রধানমন্ত্রীর মেয়াদকাল অথবা তার সন্তুষ্টি সাপেক্ষে (যেটি আগে ঘটে) পুনরায় চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দেওয়া হলো।


আরও খবর



ডিএমপির ৪৯ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মিরপুরে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পুলিশের উদ্যোগে চকলেট বিতরণ

প্রকাশিত:বুধবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৪৯জন দেখেছেন

Image
মারুফ সরকার, স্টাফ রিপোর্টার : ডিএমপির ৪৯ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকার ১৬৭৪ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রায় ১১ লাখ ৫০ হাজার শিক্ষার্থীর মধ্যে চকলেট এবং শুভেচ্ছা কার্ড (রেসপন্স কার্ড) বিতরণ করছে ডিএমপি।    ডিএমপির মিরপুর জোনের অতিরিক্ত উপ- পুলিশ কমিশনার মাসুক মিয়া পিপিএম পুরো ডিএমপির ন্যায় মিরপুর ইসলামি আর্দশ উচ্চ বিদ্যালয়ে বিতরণ করেন। 
এই সময়ে বিদ্যায়লটির প্রধান শিক্ষক মো: হাবিবুর রহমানসহ সকল শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা এবং পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ও পুলিশ সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। 

এই সময়ে এডিসি মাসুক মিয়া বলেন, বাংলাদেশ পুলিশ জনগনের বন্ধু। এই জন্য প্রতিটি শিশু যাতে করে নিরাপদে স্কুলে যেতে পারে। রাস্তা-ঘাটে কোন ধরনের ইভটিজিং বা যৌন হয়রানির শিকার হলে যাতে করে পুলিশে তথ্য দিয়ে সহায়তা করে এই জন্য মিরপুর জোনের পুলিশ সবসময়ই সচেষ্ট আছে।
শিক্ষার্থীদের সাথে পুলিশের দুরত্ব  কমাতে এবং সহায়তা বৃদ্ধি করাই এই কার্যক্রমের মূল উদ্দেশ্য। 

প্রধান শিক্ষক হাবিবুর রহমান মিরপুর বিভাগের  পুলিশকে ধন্যবাদ দিয়ে বলেন, পুলিশের এই কার্যক্রমে তিনি সন্তুষ্ট। এর মধ্যে দিয়ে শিক্ষার্থী এবং পুলিশের দুরত্ব কমে যাবে। পুলিশ কে উনার প্রতিষ্ঠান এবং শিক্ষার্থীরা সবসময়ই সহায়তা করবেন বলে জানান।

আরও খবর

বিনামূল্যে বই পেল ২৬৬ কলেজ শিক্ষার্থী

শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




টাঙ্গাইলের মধুপুরে মাদক সহ ১জন গ্রেফতার

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৪৯জন দেখেছেন

Image

বাবুল রানা বিশেষ প্রতিনিধি মধুপুর টাঙ্গাইলঃটাঙ্গাইলের মধুপুর পৌরশহরের ৪.৫.৬নং ওয়ার্ডের মহিলা কাউন্সিলর  এর আপন ভাই হেলালকে হেরোইন সহ গ্রেফতার করেছে টাংগাইল জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের একটি চৌকস আভিযানিক টিম।

পৌর শহরের টেকিপাড়া এলাকার নিজ বাড়ি হতে  হেলাল(৪০) কে হেরোইন সহ গ্রেফতার করা হয়।  বিভিন্ন সুত্রে জানা যায়, হেলাল দীর্ঘ দিন যাবৎ নিজে এবং তার বাহিনী দিয়ে মাদকদ্রব্য বিক্রি করে আসছে। এ বিষয়ে এলাকার লোকজন জানান, আমরা ভয়ে মুখ খুলতে পারিনা হেলাল এলাকায় নিজে এবং তার লোকজন দিয়ে স্কুল কলেজ পড়ুয়া ছাত্রদের কাছে মাদক বিক্রি করে এলাকার যুব সমাজকে ধংস করে আসছে।

জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের ইন্সপেক্টর সিরাজুল আলম জানান, এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



রাজাপুরে বসতঘরে হামলা, ভাঙচুর-লুটের অভিযোগ, স্কুল ছাত্রীসহ আহত ৯

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৬৪জন দেখেছেন

Image

রেজা ঝালকাঠি প্রতিনিধি:ঝালকাঠির রাজাপুরের পশ্চিম বাদুরতলা গ্রামে শুক্রবার দুুপুরে বিরোধী জমিতে মাটি কাটা নিয়ে বিরোধে শহিদুল ইসলাম নামে এক দিন মজুরের বসতঘরে হামলা ভাঙচুর ও লুটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় এক স্কুল ছাত্রসহ উভয় পক্ষের ৯ জন আহত হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। আহতরা হল- দিনমজুর শহিদুল ইসলাম (৫৫), তার স্ত্রী কমলা বেগম (৪৫), ছেলে শফিকুল ইসলাম (২০) ও রাজাপুর মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী কনিকা আক্তার (১৪) এবং অপরপক্ষের হযরত আলীর ছেলে আসাদুল (৪০), শফিজ উদ্দিনের ছেলে সিদ্দিক (৪০), তার স্ত্রী আমেনা বেগম (৩৫) ও ফাতিমা (৩০)। আহত দিনমজুর শহিদুল ইসলাম জানান, স্থানীয় শাহজাহানের কাছ থেকে ১ শতাংশ জমি ক্রয় করে তা বুঝে নিয়ে মাটি কাটতে গেলে প্রতিপক্ষ আসাদুল বাধা দিলে বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে প্রতিপক্ষ আসাদুল, সিদ্দিক তার স্ত্রী আমেনা বেগম, ফাতিমা, শাহাদাৎ, জয়নাল, তার ছেলে রাসেল, নাসির ও স্ত্রী নাসিমাসহ ১০/১৫ জনে মিলে দিনমজুরের বসতঘরে হামলা ভাঙচুর করে লুটপাট চালিয়ে টাকা ও সোনার আংটিসহ মালপত্র লুটে নেয় এবং তাদের মারধর করে। অভিযোগ অস্বীকার করে আসাদুল ও সিদ্দিক দাবি করেন, এক সাথে তিনজন মিলে ৩ শতাংশ জমি ক্রয় করে কিন্তু তা তিনজনের মধ্যে বন্টন না করে শহিদুল মাটি কাটতে বারন করতে গেলে আসাদুলকে নালায় ফেলে মারধর করে। তাকে ছাড়াতে গেলে সিদ্দিক, আমেনা ও ফাতিমাকেও মারধর করে বলেন দাবি করা হয়। বসতঘরে হামলা, ভাঙচুর ও লুটের অভিযোগ অস্বীকার করেন তারা। রাজাপুর থানার ওসি মু. আতাউর রহমান জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।



আরও খবর



গলাচিপায় পরিচয়হীন মান্তা জেলেদের ভাগ্য বদলে দিলো সিডফ

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯৫জন দেখেছেন

Image
গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি:পটুয়াখালীর গলাচিপায় সোমবার সকাল ১১টায় স্থানীয় সিডফ  কার্যালয়ের সভা কক্ষে মান্তা নারী-পুরুষ জেলেদের নেতৃত্ব নির্মান ও ক্ষমতায়ন প্রকল্প এর কার্যক্রম সম্পর্কে এক সেমিনার আয়োজন করা হয়েছে। এতে সহযোগিতা করেন ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ও অক্সফাম ইন বাংলাদেশ । উক্ত সেমিনারে সভাপত্বিত করেন সিনিয়র সাংবাদিক শংকর লাল দাস । আলোচনায় উপস্থিত ছিলেন নির্বাহী পরিচালক মো: শাহীন মিয়া , সিডফ প্রোজেক্ট ম্যানেজার কবিরুল ইসলাম , সিডফ মনিটরিং অফিসার মনিরুজ্জামান মামুন , সাংবাদিক খালিদ হোসেন মিল্টন ,জাকির হোসাইন , রিয়াদ হোসাইন , হাসান এলাহি , সোহেল আরমান , কমল সরকার , শিশিরসহ গণ্যমান্য  ব্যক্তিবর্গ ও মান্তা জেলেরা উপস্থিত ছিলেন  । উল্লেখ্য যে, মান্তা সম্প্রদায়ের পেশা হলো নদীতে বর্শি ও জাল দ্বারা মাছ ধরা। এদের ছিলো না কোন পরিচয়, ছিল না কোন ধরনের সুযোগ সুবিধা। সিডফ উপজেলা ১২টি ইউনিয়নের মধ্যে ৫টি ইউনিয়নে কাজ করেন।ইউনিয়ন গুলো হলো- ডাকুয়া , গলাচিপা সদর ,রতনদি তালতলী ও গলাচিপা পৌরসভা ও চরমোন্তাজ , এতে ৫ শত মান্তা জেলেদের মধ্যে নাগরিক কার্ড , জন্ম নিবন্ধন  ও ছেলে  মেয়েদের মধ্যে লেখা –পড়াসহ বিভিন্ন ধরনের সুযোগ সৃষ্টি করে এক অনন্য দৃষ্টান্ত  স্থাপন করেন। উপকার ভোগী সোহেল ও সাহাভানু জানান, আমরা কিছুই জানতাম না , নৌকা ও জালই ছিল আমাদের জীবন । সিডফ আমাদের জন্ম নিবন্ধন , টিকা ও ছেলে মেয়েদের লেখা পড়ার সুযোগ করে দিয়েছে এবং ঝড় - বন্যা হলে আমাদেরকে মোবাইলে মাধ্যমে খাবার পৌঁছে দেন। 

আরও খবর