Logo
আজঃ রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম
মুক্তিযোদ্ধার নাতি-নাতনিরা পাবে না তো রাজাকারের নাতিরা পাবে? কর্মীদের দক্ষ করে বিদেশে পাঠাতে হবে : প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশকে কত বিলিয়ন অনুদান-ঋণ দেবে চীন, জানালেন প্রধানমন্ত্রী নাসিরনগরে খুনের মামলার বাদীর এখন দিন কাটছে আতংকে মধুপুরে ক্লিনিং স্যাটারডে কার্যক্রম অনুষ্ঠিত এবার কোটা আন্দোলনের পক্ষে কথা বললেন আয়মান সাদিক ভারতে পাচার হওয়া ৫ বাংলাদেশি সাজাভোগ শেষে দেশে ফিরেছে শিক্ষার্থীরাই হবে আগামী বাংলাদেশের কর্ণধার: ধর্মমন্ত্রী দেশের অর্থনীতি এখন যথেষ্ট শক্তিশালী: প্রধানমন্ত্রী বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডাঃ সামন্ত লাল সেন

রিজার্ভ আবারও ৩০ বিলিয়ন ডলার ছাড়াল

প্রকাশিত:বুধবার ১০ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | ২৪৯জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাজেট সহায়তা হিসেবে বিশ্বব্যাংকের ঋণের ৫০৭ মিলিয়ন ডলার পেল বাংলাদেশ। এতে করে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ আবারও ৩০ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে।

আজ বুধবার দিনের শুরুতে রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ৩০ দশমিক ৩৬ বিলিয়ন ডলার। এর আগে, আকুতে ১ দশমিক ১৮ বিলিয়ন ডলার পরিশোধের পর গতকাল সোমবার রিজার্ভ ২৯ দশমিক ৮০ বিলিয়ন ডলারে নেমে যায়, যা ছিল গত ৭ বছরের মধ্যে সর্বনিন্ম।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মেজবাউল হক বলেন, ‘আগামী জুনের মধ্যে গ্রস রিজার্ভ আবারও ৩২ বিলিয়ন ডলারের ওপরে উঠবে বলে আশা করা হচ্ছে।

দেশের ইতিহাসে রিজার্ভ সর্বোচ্চ ৪৮ বিলিয়ন ডলারের ঘর অতিক্রম করে ২০২১ সালের আগস্টে। করোনা পর বৈশ্বিক চাহিদা বৃদ্ধি এবং রাশিয়া–ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে যে পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা দেশে আসছে, খরচ হচ্ছে সে তুলনায় বেশি। বাড়তি চাহিদা মেটাতে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে প্রতিনিয়ত ডলার বিক্রি করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এতে রিজার্ভ ধারাবাহিকভাবে কমছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, গত বছরের ৩০ এপ্রিল দেশের রিজার্ভ ছিল ৪৪ দশমিক শূন্য ২ বিলিয়ন ডলার। সেখান থেকে কমে গত বছর ডিসেম্বর শেষে ৩৩ দশমিক ৭৫ বিলিয়ন ডলারে নামে।


আরও খবর



চারঘাটে দুর্ঘটনায় স্কুল শিক্ষক নিহত; চালক আটক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ জুলাই 2০২4 | হালনাগাদ:শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ | ৭৮জন দেখেছেন

Image
পুঠিয়া  (রাজশাহী) প্রতিনিধিঃরাজশাহী শহর থেকে চিকিৎসা শেষে নিজ বাড়ী চারঘাটে ফেরার পথেই সড়ক দুর্ঘটনায় প্রান গেলো স্কুল শিক্ষক হাবিবুর রহমানের। আহত হয়ে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন নিহতের স্ত্রী শিরিন সুলতানা। সোমবার দিনগত রাত আড়াইটার দিকে চারঘাট-বানেশ্বর মহাসড়কের মোক্তারপুর ট্রাফিক মোড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যান শিক্ষক হাবিবুর রহমান। তিনি চারঘাট উপজেলার নিমপাড়া ইউনিয়নের কামীনিগঙ্গারামপুর এলাকার কাসেম প্রামানিকের ছেলে। এ ঘটনায় ট্রাক চালককে আসামী করে চারঘাট মডেল থানায় একটি মামলা করা হয়েছে। 

থানা ও পারিবারিক সুত্রে জানা যায়, নিহত স্কুল শিক্ষক হাবিবুর রহমান পাশর্^বর্তী বাঘা উপজেলার মীরগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি ও তার স্ত্রী দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন। সোমবার বিকেলে নিজ বাড়ী থেকে তারা স্বামী স্ত্রী দুজন রাজশাহীতে চিকিৎসা করাতে গিয়েছিলেন। গভীর রাতে চিকিৎসা শেষে তাদের বহনকারী সিএনজিতে করে রাজশাহী শহর থেকে নিজ বাড়ী ফেরার পথে চারঘাট-বানেশ^র মহাসড়কের মোক্তারপুর ট্রাফিক মোড়ে পৌছলে বিপরীত দিক থেকে আসা ধান বোঝায় একটি ট্রাক (যার নম্বর কুষ্টিয়া ট- ১১-১২৮৮)

 সিএনজিকে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যান স্কুল শিক্ষক হাবিবুর রহমান। আহত হোন তার স্ত্রী শিরিন সুলতানা। পরে স্থানীয় ফায়ার সার্ভিসের সদসরা তাদের উদ্ধার করে চারঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক হাবিবুর রহমান মৃত ঘোষনা করেন। আহত তার স্ত্রীর অবস্থা আশঙ্কা জনক হওয়ায় তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। বর্তমানে আহত শিরিন সুলতানা আশঙ্কা জনক অবস্থায় রয়েছেন বলেন জানান নিহতের সন্তান কাইনাথ হাবিব লামিম।

চারঘাট মডেল থানার পরিদর্শক আফজাল হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ বিষয়ে নিহত হাবিবুর রহমানের সন্তান কাইনাথ হাবিব লামিম বাদী হয়ে আটক ট্রাক চালক শাজাহান আলীকে এক মাত্র আসামী করে থানায় সড়ক পরিবহন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন। ঘাতক ট্রাক ও চালককে আটক করা হয়েছে। 

আরও খবর



নবীনগর ব্রাহ্মণহাতা গ্রামে মৌখিক অভিযোগের তদন্তে এসে পুলিশের হয়রানি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | ৩৭৯জন দেখেছেন

Image

মোহাম্মদ হেদায়েতুল্লাহ  নবীনগর(ব্রাহ্মণবাড়িয়া)প্রতিনিধিঃ-

ব্রাহ্মণবাড়িয়া নবীনগর উপজেলার কাইতলা উত্তর ইউনিয়ন নারুই (ব্রাহ্মণহাতা) গ্রামে মৌখিক অভিযোগের তদন্ত করতে মো. সাব্বির ও সজিব মিয়ার বাড়িতে এসে অকথ্য ভাষায় গালাগালিসহ অর্থ লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে নবীনগর থানার ওসি তদন্ত সজল কান্তি দাসসহ পাঁচ পুলিশের বিরুদ্ধে।সরেজমিনে গিয়ে জানাযায়, নারুই ব্রাহ্মণহাতা গ্রামের মো. অলি মুন্সী মিথ্যা মৌখিক অভিযোগ করেন শিল্পপতি রিপন মুন্সীসহ সাব্বির ও সজিব এর বিরুদ্ধে।


মঙ্গলবার সকালে সেই মৌখিক অভিযোগের তদন্ত করতে আসেন নবীনগর থানার ওসি তদন্ত সজল কান্তি দাসসহ পাঁচ পুলিশ সদস্য। ঐই সময় সাব্বির মিয়ার বাড়িতে গিয়ে বাড়ির গেইট ভেঙ্গে প্রবেশ করে সাব্বির কে বাড়িতে না পেয়ে অকথ্য ভাষায় গালাগালিসহ ঘরের ভিতরে প্রবেশ করে অর্থ লুটপাট করেন এবং সজিব মিয়ার বাড়িতে গিয়েও অকথ্য ভাষায় গালাগালি করেন।সাব্বির মিয়ার ভাই মো. শাহিন মিয়া বলেন, আমি সকালে ঘুমিয়ে ছিলাম। এমন সময় ৬ জন পুলিশ বাড়ির গেইট ভেঙ্গে ঘরের ভিতরে প্রবেশ করে আমার ভাইকে খোঁজাখুঁজি করেন৷


তাকে না পেয়ে আমার ভাইকে নিয়ে অশ্লিল ভাষায় গালাগালি করেন এবং ঘরে থাকা ৪ লাখ ৬৩ হাজার টাকা লুট করে নিয়ে যায়।সজিবের আম্মা বলেন, সকালে নাস্তা করার সময় ২ জন পুলিশ ঘরে প্রবেশ করে আমার ছেলে সজিব কে খুঁজেন। তাকে না পেয়ে আমার ছেলেকে নিয়ে অশ্লিল ভাষায় গালাগালি করেন। আমার পরিবার পুলিশের এ কথা বলার পরও তারা আমাকে ও আমার মৃত স্বামীকে নিয়ে অশ্লিল ভাষায় গালাগালি করেন। আমরা কোন অপরাধ না করার পরও পুলিশ বাড়িতে এসে কেন হয়রানি করলো এর সঠিক বিচার চাই।


দোকানদারের ছেলে বাইজিদ বলেন, আমার বাবা দোকানে ছিল না, ঐ সময় ৬ জন পুলিশ আমাদের দোকানে ঢুকে ৬ প্যাকেট বেন্সন সিগারেট ও ৬ টি স্পিড কেন নিলে আমি টাকা চাওয়াতে তারা আমার বাবাকে হাত পা ভাঙ্গার হুমকি প্রধান করেন।গ্রাম পুলিশ একরামুল বলেন, সকালে নবীনগর থানা থেকে ৬ জন পুলিশ এসে আমাকে ফোন করলে আমি সাব্বির মিয়ার বাড়ির সামনে আসি। আমাকে নিয়ে সাব্বির ও সজিব মিয়ার বাড়িতে যায়। তাদের কে না পেয়ে পুলিশ সদস্যরা অশ্লিল ভাষায় গালাগালি করেছে, কেন করেছে তা আমি জানি না।


সাব্বির ও সজিব বলেন, আমাদের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়ছে তা মিথ্যে বানুয়াট। আমরা কেন তাদের কোরবানি দিতে বাধা দিব। এই মিথ্যা অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ আমাদের বাড়িতে এসে সকলকে গালাগালিসহ ও লুটপাট করেছে। আমরা এর সঠিক বিচার চাই।অভিযোগকারী অলি মুন্সী বলেন, আমার ভাগ্নে মোরশেদ আমার সাথে কোরবানি দিতে চাইলে তাকে বাঁধা প্রদান করেন সজিব ও সাব্বির।


তাই আমি থানায় মৌখিক অভিযোগ করেছি, তবে লিখিত কোন অভিযোগ করি নাই। তবে মঙ্গলবার সকাল ১০ টার দিকে কোরবানি দিয়েছি।নবীনগর থানার ওসি তদন্ত সজল কান্তি দাস বলেন, আমাদের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ গুলো আনা হয়ছে সেগুলো সম্পূর্ণ মিথ্যা বানুয়াট। যারা এ ধরনের মিথ্যা অভিযোগ করেছে উর্ধ্বতন কতৃপক্ষের সাথে কথা বলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



নেচার ফটো কনটেস্ট ২০২৪ শুরু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৯ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | ৯৮জন দেখেছেন

Image

খবর প্রতিদিন ২৪ডেস্ক:দেশের জনসংখ্যা বাড়ছে জ্যামিতিক হারে, তার সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে পরিবেশ বিপর্যয়। দেশকে এই বিপর্যয়ের হাত থেকে বাঁচাতে চাইলে দরকার প্রচুর পরিমানে বৃক্ষরোপন। এই লক্ষ্যে উদ্ভুদ্ধ হয়ে ‘মিশন গ্রিন বাংলাদেশ’ এবং ভ্রমণ ও পরিবেশ বিষয়ক জনপ্রিয় কন্টেন্ট ক্রিয়েটর ‘গো উইথ আশরাফুল আলম’ আয়োজন করেছে নেচার ফটো কনটেস্ট ২০২৪।

গাছ লাগানোর সময়ে একটি ফটো তুলে সেটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে #MissionGreenBangladesh এবং #GowithAshrafulAlam হ্যাশট্যাগ লিখে পোস্ট করলেই দশজন পাবেন শ্রীমঙ্গলে দিনব্যাপী নেচার ট্রিপ ও ৫০ জন পাবেন আকর্ষনীয় পোলো শার্ট। গাছ লাগানো এবং প্রতিযোগিতার বিষয়ে বিষয়ে জানতে চাইলে মিশন গ্রিন বাংলাদেশের আহ্বায়ক আহসান রনি জানান, গাছ ঘরে (ইন্ডোর), বারান্দা, ছাদ, বাড়ির বাহিরে কিংবা যেকোন যায়গায় গাছ লাগানো যাবে।

তিনি আরও বলেন প্রতিটি পোস্টে ১ টি ফটো দেয়া যাবে। তবে অনেকগুলো গাছ লাগানো হলে গাছপ্রতি আলাদা আলাদা পোস্ট দেয়া যাবে। কমেন্ট ও রিয়েক্টের ভিত্তিতে সেরা বিজয়ী নির্বাচন করা হবে।

ইচ্ছামত বন্ধুদের ট্যাগ/ম্যানশন করা যাবে এবং সেটাও কমেন্ট হিসেবে বিবেচিত হবে।গো উইথ আশরাফুল আলম প্ল্যাটফর্মের কনটেন্ট ক্রিয়েটর আশরাফুল আলম বলেন ‘বৃক্ষরোপনের অনেক উপকারিতা আছে এবং এইজন্যই বিপন্ন পরিবেশকে ঠিক করতেই আমরা এই ধরনের উদ্যোগ নিয়েছি। মূলত এই ধরনের ছোট ছোট কাজ আমাদের নিজেদেরই জন্যই করা উচিৎ কেননা আমরা প্রকৃতি থেকে যে বিপুল পরিমান অক্সিজেন নেই সেটা কিন্তু বিনামূলতে নিয়ে থাকি। বেঁচে থাকার দায় মেটানোর জন্য হলেও আমাদের নিজেদের অক্সিজেনের যোগান নিজেদেরই দেয়া উচিৎ’।

প্রসঙ্গত, একটি গাছ গড়ে পঞ্চাশ বছরে যে উপাদান ও সেবা দিয়ে থাকে তার আর্থিকমূল্য বিবেচনা করলে গিয়ে দাঁড়াবে প্রায় চল্লিশ লাখ টাকার অংকে। একটি গাছ এক বছরে দশটি এসি’র সমপরিমাণ শীতলতা দেয়, ৭৫০ গ্যালন বৃষ্টির পানি শোষণ করে, ৬০ পাউন্ড ক্ষতিকর গ্যাস বাতাস থেকে শুষে নেয়। এক হেক্টর সবুজ ভূমির উদ্ভিদ সালোকসংশ্লেষণ চলাকালে প্রতিদিন গড়ে প্রায় নয়শ কেজি কার্বন ডাই অক্সাইড গ্রহণ করে এবং ৬৫০ কেজি বিশুদ্ধ অক্সিজেন প্রকৃতিতে ছেড়ে দেয়। এছাড়াও বৃক্ষরাজি আবহাওয়ার তাপমাত্রা হ্রাস করে, বাতাসে আর্দ্রতা বাড়ায় ও ভূমিক্ষয় রোধ করে। তাই পরিবেশ রক্ষায় গাছ লাগানোর কোনো বিকল্প নেই।

উল্লেখ্য, প্রতিযোগিতাটি যৌথভাবে আয়োজন করেছে মিশন গ্রিন বাংলাদেশ ও কনটেন্ট ক্রিয়েটর গো উইথ আশরাফুল আলম অংশগ্রহনেরর শেষ সময় ৩১ জুলাই, ২০২৪ রাত ১১:৫৯ পর্যন্ত।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর



বাজারে চাহিদার তুলনায় গরু বেশী শেষ সময়ে পশুর দাম কম

প্রকাশিত:রবিবার ১৬ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | ১৭০জন দেখেছেন

Image

আব্দুল্লাহ আল নোমান,আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি:পবিত্র ঈদুল আজহার বাকী আর মাত্র ২ দিন। বাজারে চাহিদার তুলনায় গবাদি পশু বেশী ওঠায় দাম কম। এতে বাজারে গরু কম বিক্রি হচ্ছে। বিপাকে পরেছে গরু ব্যবসায়ীরা।

আমতলী প্রাণী সম্পদ অফিস সূত্রে জানাগেছে, উপজেলায় কোরবানীর জন্য ৮ হাজার ৬’শ ২৩ টি গবাদি পশুর চাহিদা রয়েছে। চাহিদার বিপরীতে এ উপজেলার ৮ হাজার ৯’শ ৫ টি পশু আছে। এর মধ্যে ৫ হাজার ৭’শ ৮৭ টি গরু, ৬ ’শ২১ টি মহিষ,২ হাজার ৪’শ ৯৭ টি ছাগল। চাহিদার তুলনায় ২’শ ৯২ টি পশু বেশী রয়েছে। শেষ সময়ে ভালো লাভের আশায় ব্যস্ত খামারীরা। খুব যতœ সহকারে গবাদি পশুর দেখভাল করছেন তারা। কিন্তু চাহিদার তুলনায় বেশী পশু উৎপাদন হওয়ায় বাজারে দাম কম। ফলে দিশেহারা খামারীরা।  খোঁজ খবর নিয়ে জানাগেছে, বাজারে চাহিদার তুলনায় বেশী গরু উঠেছে। ফলে কম দামে পশু বিক্রি হচ্ছে। আমতলী পৌর শহরের একে এম জিল্লুর রহমান বলেন, তুলনামুলক ভাবে বাজারে গরুর দাম অনেক কম।

হলদিয়া গ্রামের খামারী জালাল গাজী বলেন, ৭৫ হাজার টাকার একটি গরু ক্রয় করে দুই বছর লালন পালন করেছি। দুই বছরে গরুর পিছনে ৯০ হাজার টাকা খরচ করেছি। ওই গরু দুই লক্ষ ১০ হাজার টাকায় বিক্রি করেছি। বাজারে দাম কম থাকায় আসল ও খরচ মিলে তেমন লাভ হয়নি।  

আমতলী গাজীপুর বন্দরের গরু ব্যবসায়ী আলহাজ্ব মাহবুবুর রহমান হাওলাদার বলেন, বাজারে গরু দাম অনেক কম। গত বছরের তুলনায় এ বছর বড় ও মাঝারী ধরনের গরু ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা কম দামে বিক্রি হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, এখন পর্যন্ত কোরবানী উপযুক্ত ১১৫ টি গরু বিক্রি করেছি।  বাজারে দাম কম থাকায় কাঙ্খিত লাভ হয়নি।  

আমতলী গরু হাটের ইজারাদার মোঃ মোতাহার উদ্দিন মৃধা বলেন, বাজারে চাহিদার তুলনায় বেশী গরু আসে। ফলে গত বছরের তুলনায় এ বছর গরুর দাম কম।   

আমতলী থানার ওসি কাজী সাখাওয়াত হোসেন তপু বলেন, উপজেলার সকল বাজারে পযাপ্ত নিরাপত্তা রয়েছে। বাজারে আসা ক্রেতা-বিক্রেতারা পশু ক্রয়-বিক্রয় করে যাতে নির্বিঘেœ বাড়ী ফিরতে পারে সেই ব্যবস্থা নিয়েছি। 

আমতলী উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ নাজমুল হক বলেন, উপজেলায় চাহিদার তুলনায় বেশী গবাদি পশু বেশী রয়েছে।  বাজারে গরু বেশী উঠায় দাম কম। 


আরও খবর

আমতলীতে ৩দিন ব্যাপী কৃষি মেলা শুরু

বৃহস্পতিবার ১১ জুলাই ২০২৪




রাজপথে চেঁচামেচি করে কোটা বাতিল করা যাবে না: আইনমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৯ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | ৮৬জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:রাজপথে আন্দোলন বা চেঁচামেচি বা বকাবাদ্য করে এটা নিরসন হবে না বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

তিনি বলেন, কোটার বিষয়টি সরকারের সিদ্ধান্তের ওপর নেই, এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন আদালত। রাজপথে আন্দোলন বা চেঁচামেচি বা বকা-বাদ্য করে এটা নিরসন হবে না। এটা করলে একটা পর্যায়ে হয়তো আদালত অবমাননাও হয়ে যেতে পারে।

মঙ্গলবার (৯ জুলাই) সচিবালয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, কোটা নিয়ে বিচারাধীন মামলায় পক্ষভুক্ত হতে চাওয়ার শিক্ষার্থীরা সঠিক পথে হাঁটছেন। যেহেতু তারা আদালতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, আমি আশা করব, তারা আন্দোলন প্রত্যাহার করবেন।

আনিসুল হক আরও বলেন, আমি যতদূর জেনেছি, যখন হাইকোর্ট বিভাগে এই মামলা চলে, তখন আজকে যারা কোটাবিরোধী আন্দোলন করছেন তারা কিন্তু তাদের বক্তব্য আদালতের কাছে পেশ করার জন্য কোনো আইনজীবী নিয়োগ করেননি। তাদের বক্তব্য সেখানে দেননি। তার পরে মামলাটার রায় হয়ে গেছে, মামলাটি এখন আপিল বিভাগে।

তবে যারা কোটা বাতিলের দাবিতে যারা আন্দোলন করছেন আপিল বিভাগে তারা একজন আইনজীবী রেখে তাদের বক্তব্য উপস্থাপন করতে পারেন। আপিল বিভাগ তাদের বক্তব্য শুনে বিবেচনা করতে পারেন একটি গণমাধ্যমকে এমনটি জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী।

ঘটনা আদালতে ঘটেছে জানিয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, রাজপথে আন্দোলন করে বা চেঁচামেচি করে বা বকা-বাদ্য করে এটার নিরসন হবে না। এটা করলে একটা পর্যায়ে হয়তো আদালত অবমাননাও হয়ে যেতে পারে। সঠিক জায়গা হলো, তারা যদি পক্ষভুক্ত হয়ে তাদের বক্তব্য উপস্থাপন করেন। অবশ্যই আপিল বিভাগ সব পক্ষ শুনবেন এবং সব পক্ষ শুনে আপিল বিভাগ একটা ন্যায় বিচার করবেন। এটাই আমাদের আশা এবং আমার মনে হয় সেটাই হবে।


আরও খবর