Logo
আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

প্রবাসী বাংলাদেশিদের অপরাধের দায় সরকার নেবে না: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৩২০জন দেখেছেন

Image

বাসস: প্রবাসী বাংলাদেশিদের তারা যেসব দেশে কাজ করেন সেসব দেশের আইন কঠোরভাবে মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আইন ভঙ্গ করে কেউ কোনো অপরাধে যুক্ত হলে বাংলাদেশ তাদের বাঁচাতে ন্যূনতম প্রচেষ্টা চালাবে না বলেও সতর্কবার্তা উচ্চারণ করেন তিনি।

গতকাল মঙ্গলবার বাংলাদেশ এমএইচ স্কুলে প্রবাসী বাংলাদেশিদের আয়োজিত এক নাগরিক সংবর্ধনায় প্রধান অতিথির ভাষণে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘কোনো ব্যক্তির অপরাধে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হবে এটা আর বরদাস্ত করা হবে না।’ তিনি বলেন, ‘যে দেশে থাকবেন সে দেশের আইন মেনে চলতে হবে। যেমন- আপনি কাতারে আছেন, এদেশের যেটা প্রচলিত আইন সেটা আপনাদের অবশ্যই মেনে চলতে হবে।

সরকারপ্রধান বলেন, ‘কেউ যদি এই আইন ভঙ্গ করেন বা আইন ভঙ্গ করে কোনো অপরাধে জড়িয়ে পড়েন সেই দায় দায়িত্ব কিন্ত আমরা (সরকার) নেব না, কেউ নেবে না। যে দেশে অবস্থান করেন সেই দেশের আইন যদি না মানেন তাহলে সে দেশের প্রচলিত আইনে তার বিচার হবে এবং এটা সবাইকে মাথায় রাখতে হবে। কোন অপরাধির দায়িত্ব সরকার নেবে না।

‘কেউ যদি কোনো আপরাধে জড়িয়ে পড়েন তাহলে সেটা থেকে কিন্তু আমরা উদ্ধার করার কোনো চেষ্টা করব না, কোনো ব্যবস্থাও নেব না, সেটা স্পষ্ট বলে দিচ্ছি,’ যোগ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘এতে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়, একজনের জন্য অন্য মানুষগুলো কষ্ট পায়। তাদের বিপদ হয়। সেজন্য আমরা প্রশিক্ষণ দিয়েই লোক পাঠাতে চাই। যে প্রশিক্ষণটাও অনেকে ঠিকভাবে নেন না।

ট্রেনিংয়ের সময়কার টাকাটা নিয়ে অনেকে ঘুষ দিয়ে সার্টিফিকেট সংগ্রহ করেন মর্মে তথ্য রয়েছে বলেও জানান শেখ হাসিনা। তিনি আরও বলেন, ‘সবাইকে এই বার্তাটা পৌঁছে দেবেন, এখানে কেউ যদি কোনো অপরাধ করেন সেই অপরাধের দায় দায়িত্ব বাংলাদেশ নেবে না। এটা স্পষ্ট জানিয়ে দিতে চাই। কারণ, আমাদের এসব কথা শুনতে হয়। বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হয় এবং প্রবাসে লোক পাঠাবার যে সুযোগটা আমরা পাই সে সুযোগটাও হারিয়ে যায়। আরও ১০টি মানুষের কাজের যে সুযোগটা থাকে সেটা তারা পায় না। একটি মানুষের অপরাধের জন্য অন্য মানুষ শাস্তি পায়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আজকে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পাওয়ায় আপনারাও বুক ফুলিয়ে বলতে পারেন আমার দেশ বাংলাদেশ। সেখানে কারও কোনো অপরাধের কারণে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হবে এটা কিন্তু মেনে নেওয়া যায় না। এটা সহ্য করা যায় না।

তিনি বলেন, ‘আজকে অন্তত এটুকু বলতে পারি দেশের মানুষের জন্য দুবেলা দুই মুঠো খাবার ব্যবস্থাটা করতে পেরেছি। তাদের জীবনমান উন্নত করার পদক্ষেপ নিয়েছি। গৃহহীনকে ঘরবাড়ি করে দিচ্ছি, ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ দিয়েছি, শিক্ষা ও চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছি, রাস্তা-ঘাট যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন করেছি।

বৈধ পথে দেশে টাকা পাঠানোর জন্য প্রবাসীদের আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সামান্য একটু বেশি পাওয়ার লোভে অনেক সময় বিরাট ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়। সেটা আপনাদের বিবেচনায় থাকা উচিত।’ এ সময় ধোকায় পড়ে বিদেশে গিয়ে বিড়ম্বনার শিকার না হয়ে তার সরকারের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করে প্রশিক্ষণ নিয়ে বৈধ পথে বিদেশ যাওয়ার জন্যও সবাইকে পরামর্শ দেন শেখ হাসিনা।

সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের কথা তুলে ধরে সবার কাছে দোয়া কামনা করেন সরকারপ্রধান। সেইসঙ্গে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ তথা স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার দৃঢ় প্রত্যয় পুণর্ব্যক্ত করেন তিনি।


আরও খবর



হিলিতে দেশীয় পেঁয়াজের দাম কেজিতে বেড়েছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা

প্রকাশিত:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৭৬জন দেখেছেন

Image

মাসুদুল হক রুবেল,হিলি (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:সরবরাহ কমে যাওয়ায় দিনাজপুরের হিলিতে সেঞ্চুরি পার করলো দেশীয় পেঁয়াজের দাম। পাঁচ দিনের ব্যবধানে কেজিপ্রতি পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা। গত রোববার (৪ ফেব্রুয়ারী) প্রকারভেদে ৭০ থেকে ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। সেই পেঁয়াজ আজ ১১০ থেকে ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।নিম্মআয়ের মানুষেরা বলছেন,পেঁয়াজের যে দাম তাই আমাদের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে। পাইকারী ও খুচরা বিক্রেতারা বলছেন,কৃষকের কাছে পেঁয়াজ শেষ হয়ে আসছে,বাজারে সরবরাহ কমে যাওয়ায় পেঁয়াজের দাম বাড়ছে। এদিকে পাইকারী,খুচরা বিক্রেতা ও সাধারণ ক্রেতারা দাবি জানান,যে দেশ থেকেই হোক পেঁয়াজ আমদানি করা হোক। পেঁয়াজ আমদানি না করলে দাম আরও বাড়বে।

হিলি বাজারে পেঁয়াজ কিনতে আসা আকবর আলী বলেন, আমি গত রোববার (৪ ফেব্রুয়ারী) প্রতিকেজি পেঁয়াজ কিনেছে ৭০ থেকে ৮০ টাকা দরে। আজ শনিবার পেঁয়াজ কিনতে এসে দেখি ১১০ থেকে ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।দাম বেশি তাই ২৫০ গ্রাম পেঁয়াজ কিনলাম।

আরেক পেঁয়াজ ক্রেতা ফয়সাল বলেন,আমি দিনমজুরি কাজ করি,দিন দিন জিনিসপত্রে যে ভাবে দাম বাড়ছে তাতে আমাদের চলা খুব কষ্টর হয়ে পড়েছে।আমি সারাদিন কাজ করে ৫ শত টাকা পাই। এ টাকা দিয়ে চলে না।

পেঁয়াজ কিনতেই ১১০ থেকে ১২০ টাকা চলে যায়। ৩৮০ টাকা দিয়ে চাল কিনবো না অন্যান্য তরকারী কিনবো। আমার মতো নিম্মআয়ের মানুষেরা পড়ে যায় বিপাকে।হিলি বাজারের খুচরা পেঁয়াজ বিক্রেতা মোকারম হোসেন বলেন,আমরা পাইকারী ১০৭ থেকে ১০৯ টাকা কেজি পেঁয়াজ কিনে ১১০ থেকে ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করছি।পাইকারীরা বলছেন মোকামেই পেঁয়াজ পাওয়া যাচ্ছে না। দেশীয় পেঁয়াজের সরবরাহ কমে আসতেছে। তাই দাম বাড়ছে।

হিলি বাজারের পাইকারী পেঁয়াজ বিক্রেতা আবু তাহের বলেন, গত শুক্রবার )২ ফেব্রুয়ারী ও শনিবার ৩ ফেব্রুয়ারী) আমরা প্রকাভেদে ৬০ থেকে ৬৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি করেছি। গেলো রোববার (৪ ফেব্রুয়ারী) সেই পেঁয়াজ ৭০ থেকে ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করেছি।

হঠাৎ গতকাল শুক্রবার থেকে মোকামেই দাম বেড়ে যায়। মোকামেই ৪০০ হাজার টাকা মন দরে বিক্রি হচ্ছে। এরপর পরিবহন খরচ আছে।সবকিছু বাদ দিয়ে আমাদের ২ থেকে ৩ টাকা লাভ থাকে। মোকামেই কিনতেই পড়েছে ১০০ থেকে ১০৫ টাকা কেজি। আমরা পাইকারী বিক্রি করছি ১০৭ থেকে ১০৯ টাকা। আর খুচরা বাজারে ১১০ থেকে ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। তিনি আর বলেন,ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি না করলে পেঁয়াজের দাম কমার সম্ভবনা নেই।


আরও খবর



মাদারীপুরে পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্সের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮৫জন দেখেছেন

Image
এস এম শফিকুল ইসলাম জয়পুরহাট প্রতিনিধি ঃপপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের মাদারীপুর অঞ্চলের উন্নয়ন কর্মকর্তাদের নিয়ে বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রবিবার  (৪ ফেব্রুয়ারী) সকালে মাদারীপুর  জেলা শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে এ সম্মেলন  অনুষ্ঠিত হয়। 

পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক বি এম শওকত আলীর সভাপতিত্বে মাসিক  সমন্বয়  সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও, বাংলাদেশ ইনস্যুরেন্স ফোরামের প্রেসিডেন্ট ও বাংলাদেশ ইনস্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশনের কার্য নির্বাহী সদস্য  বি এম ইউসুফ আলী। 

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন , একক বীমা প্রকল্পের  উর্দ্ধতন  উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক (ব্রাঞ্চ কন্ট্রোল) সৈয়দ মোতাহার হোসেন, ইসলামী বীমা তাকাফুল প্রকল্পের  উর্দ্ধতন  উপ- ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাবিবুর রহমান, জনপ্রিয় বীমা প্রকল্পের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক কামাল হোসেন মহসিন, ইসলামী ডিপিএস প্রকল্পের উপ- ব্যবস্থাপনা পরিচালক খলিলুর রহমান সিকদার।

এ সময়ে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, আল বারাকাহ ইসলামী ডিপিএস প্রকল্পের উর্দ্ধতন নির্বাহী পরিচালক ও প্রকল্প  পরিচালক সেলিম মিয়া, জনপ্রিয় একক বীমা প্রকল্পের  উর্দ্ধতন নির্বাহী পরিচালক ও প্রকল্প  পরিচালক জাহাঙ্গীর হোসেন, পপুলার ডিপিএস প্রকল্পের নির্বাহী পরিচালক ও প্রকল্প পরিচালক আবু মুঈদ শাহীন, আল আমিন বীমা প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক সাইফুল ইসলাম রুবেল।


আরও খবর



ব্যবসায়ীদের নীতিবোধের উন্মেষ ঘটাতে হবে: ফেরদৌস

প্রকাশিত:শুক্রবার ০২ ফেব্রুয়ারী 2০২4 | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১২৪জন দেখেছেন

Image
মারুফ সরকার, স্টাফ রিপোর্টার : শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের উদ্যোগে ‘জাতীয় নিরাপদ খাদ্য দিবস-২০২৪’-এর র‌্যালি।  ‘

‘স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও সমৃদ্ধি চাই; নিরাপদ খাদ্যের বিকল্প নাই’ প্রতিপাদ্যে শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৯টায় বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের উদ্যোগে ‘জাতীয় নিরাপদ খাদ্য দিবস-২০২৪’-এর র‌্যালিপূর্ব সমাবেশে এ কথা বলেন তিনি। এর আগে শান্তির প্রতীক পায়রা উড়িয়ে দিবসের উদ্বোধন করেন তিনি।

পরে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন প্রাঙ্গণ থেকে র‌্যালি শুরু হয়ে শাহবাগ হয়ে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ কার্যালয়ে গিয়ে শেষ হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ফেরদৌস বলেন, ‘খাদ্য ব্যবসায়ীদের শাস্তি দিলেই সবকিছুর সমাধান হয়ে যাবে, এমন না। তাদের মধ্যে বোধের উন্মেষ ঘটাতে হবে।’
 
মানুষের সঙ্গে খাবার নিয়ে প্রতারণা না করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘একজন ব্যবসায়ী যে খাবারটা বিক্রি করেন, সেটা তার পরিবার ও ছেলে-মেয়েরাও খাচ্ছে, স্কুলে নিয়ে যাচ্ছে। তাই খাবার নিয়ে মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করা যাবে না।’

বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের এ শুভেচ্ছাদূত বলেন, ‘খাবার উৎপাদন থেকে ভোগ পর্যন্ত প্রতিটি জায়গায় আমাদের সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। নাহলে যে কোনো জায়গায় খাবার অনিরাপদ হয়ে যেতে পারে।’

বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মো. আব্দুল কাইউম সরকার সচেতনতার ওপর জোর দিয়ে বলেন, ‘ভোক্তার সচেতনতা, উৎপাদক সচেতনতা ও যারা প্রক্রিয়া করে তাদের সচেতনতার মাধ্যমে আমরা এক সময় খাবার নিরাপদ করতে পারব।’

‘বিডি টুরিস্ট সাইক্লিস্ট’ নামের একটি সংগঠন শতাধিক সাইক্লিস্টদের মাধ্যমে ঢাকা শহরের বিভিন্ন প্রান্তে নিরাপদ খাদ্যের বার্তা ছড়িয়ে দেয়। সংগঠনের সভাপতি মো. আমিনুল ইসলাম টুববুস বলেন, ‘নিরাপদ খাদ্য পাওয়া সবার অধিকার। সবার সচেতনতা ছাড়া নিরাপদ খাদ্যের পরিবেশ তৈরি হবে না। ভিন্নভাবে মানুষকে সচেতন করতেই মূলত সাইকেলের মাধ্যমে নিরাপদ খাদ্যের বিষয়ে মানুষকে জানানো হয়।’

কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তা-কর্মচারী, গণমাধ্যম, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, এনজিও, সামাজিক সংগঠনের কর্মীসহ পাঁচ শতাধিক মানুষ র‌্যালিতে অংশ নেন।

আরও খবর

তিন পদে লোক নিচ্ছে হুয়াওয়ে বাংলাদেশ

রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




গণমাধ্যমকর্মীদের চাকরি নিয়ে নতুন নির্দেশনা দেবে সরকার: তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১১০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:গণমাধ্যমকর্মীদের চাকরির নিরাপত্তা বিষয়ে সরকার সংশ্লিষ্ট স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে আলোচনা করে নতুন নির্দেশনা দেবে,বলেছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক মোহাম্মদ এ আরাফাত ।

বুধবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে ব্রডকাস্ট জার্নালিস্ট সেন্টারের নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে প্রতিমন্ত্রী এ কথা জানান।

তিনি বলেন, কোনো গণমাধ্যম, কর্মীদেরকে নোটিশ না দিয়ে কিংবা হঠাৎ করে চাকরিচ্যুত করতে পারবে না। একইভাবে গণমাধ্যমকর্মীরাও প্রতিষ্ঠানকে সময় না দিয়ে, যে কোনো মুহূর্তে চাকরি ছেড়ে দিতে পারবেন না।

খুব শিগগিরই এ বিষয়ে তথ্য মন্ত্রণালয় নির্দেশনা জারি করবে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী। এ সময় ফেসবুক-ইউটিউবসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সংবাদ ও বিভিন্ন তথ্য প্রচারিত হচ্ছে। এসব বিষয় জবাবদিহিতায় আনতে নীতিমালা গঠনের দাবি জানান সাংবাদিকরা। প্রতিমন্ত্রী এ দাবির সঙ্গে একমত হন। তিনি বলেন, অপতথ্য রোধ করতে গিয়ে মত প্রকাশের স্বাধীনতায় যেন ব্যাঘাত না ঘটে, সেদিকে সরকারের সতর্ক দৃষ্টি রয়েছে।


আরও খবর



ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ চিকিৎসার অভাবে ভ্যান চালকের মৃত্যু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১০১জন দেখেছেন

Image

ফুলবাড়ী, দিনাজপুর প্রতিনিধি:ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ চিকিৎসার অভাবে ভ্যান চালকের মৃত্যু। ফুলবাড়ী উপজেলা শিবনগর ইউপির ঘাটপাড়া গ্রামের মৃত্যু মোস্তাব এর পুত্র মোঃ দুলাল (৩৫) বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৬টায় অসুস্থ অবস্থায় ফুলবাড়ী হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি হয়। ভর্তি হওয়ার পর সে চিকিৎসার জন্য ছটপট করে। এ সময় কর্তব্যরত নার্স সাবিনা ইয়াসমিন কে অক্সিজেন দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেন দুলাল।

কিন্তু কর্তব্যরত নার্স তার কোন কথা কর্ণপাত না করে চলে যান। সকাল সাড়ে ১০টায় দুলাল চিকিৎসার অভাবে হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। কর্তব্যরত দায়িত্বে ছিলেন, আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা: আলমগীর, নার্স সাবিনা ইয়ামিন, মোছা: সুরাইয়া বেগম ও মিনারা বেগম। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এলাকাবাসী বিনা চিকিৎসায় দুলাল এর মৃত্যু হওয়ায় ন্যায় বিচারের দাবী জানান।

ঐ ঘটনায় প্রত্যক্ষদর্শী ও রোগীরা জানান, সে অক্সিজেন ও চিকিৎসা পাওয়ার জন্য কর্তব্যরত নার্সদেরকে বার বার অনুরোধ করছিলেন কিন্তু তার কোন কথা কেউ কর্ণপাত করেন নি।

এদিকে ফুলবাড়ী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ অপ্রিতিকর ঘটনা যাতে না ঘটে এ জন্য ফুলবাড়ী পৌর সভার মেয়র আলহাজ্ব মাহমুদ আলম লিটন স্থানীয় জনগণকে শান্ত হওয়ার জন্য অনুরোধ করেন। তিনি জানান, এই ঘটনার সাথে যারা জড়িত কমিটি করে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। যারা অপরাধী তারা অবশ্যই শাস্তি পাবে।

অপর দিকে ফুলবাড়ী পৌর সভার প্যানেল মেয়র মামুনুর রশিদ চৌধুরী মানুন জানান,ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নার্স এর দায়িত্বে যারা রয়েছেন তারা রোগীদের প্রতি কোন গুরুত্ব দেন না। গুরুত্ব না দেওয়ার কারণে এবং প্রশাসনের গুরুত্ব না থাকায় এই ধরনের ঘটনা দুঃখ জনক। যারা অপরাধী তাদের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নিতে হবে।

ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা ডা: মশিউর রহমান জানান, যে ঘটনা ঘটেছে তা অত্যন্ত দুঃখ জনক। তদন্ত কমিটি গঠন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আইন শৃঙ্খরা রক্ষার্থে ফুলবাড়ী থানা পুলিশ ঘটনা শোনার সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন। বিচারের অসস্থ হওয়ায় দুলাল এর আত্মীয় স্বজনেরা লাশ নিজ বাড়ীতে নিয়ে যায়। এ রিপোট লেখা পর্যন্ত ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ থমথমে অবস্থা বিরাজ করছিল।


আরও খবর