Logo
আজঃ সোমবার ২৪ জুন 20২৪
শিরোনাম

এইচএসসির ফল কাল, জানা যাবে যেভাবে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৩২৮জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক; উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হবে আগামীকাল বুধবার। এদিন সকালে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি সব শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানদের সঙ্গে নিয়ে এ পরীক্ষার ফলের সারসংক্ষেপ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে তুলে দেবেন।

এরপর সেগুনবাগিচায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে সংবাদ সম্মেলন করে ফলাফলের বিস্তারিত তুলে ধরবেন শিক্ষামন্ত্রী। বেলা সাড়ে ১১টায় নিজ নিজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও অনলাইনে একযোগে এই ফল প্রকাশ করা হবে।

করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ায় গত ৬ নভেম্বর সারাদেশে শুরু হয় এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। ৯টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ড, মাদ্রাসা ও কারিগরি বোর্ড মিলিয়ে ১১টি শিক্ষা বোর্ডের অধীন মোট পরীক্ষার্থী ছিল ১২ লাখের কিছু বেশি।

এ পরীক্ষার ফল প্রকাশে ৭-৯ ফেব্রুয়ারি সম্ভাব্য সময় উল্লেখ করে শিক্ষা বোর্ড থেকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়। মন্ত্রণালয় থেকে সে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছিল প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে। সেটি প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠালে তিনি ৮ ফেব্রুয়ারি ফলাফল প্রকাশের জন্য সময় নির্ধারণ করেন।

প্রধানমন্ত্রী সময় নির্ধারণ করার পর শিক্ষা বোর্ড থেকে এ বিষয়টি জানানো হয়।

যেভাবে জানা যাবে ফলাফল

মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে ফল জানতে HSC লিখে স্পেস দিয়ে শিক্ষা বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে ২০২২ লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে। ফিরতি এসএমএসেই ফল পাওয়া যাবে। যেমন HSC Dha 123456 2022 send to 16222. অন্য শিক্ষা বোর্ডগুলোর ফলাফলও একইভাবে জানা যাবে। শুধু বোর্ডের নাম পরিবর্তন করতে হবে।

আলিমের ফল পেতে ALIM লিখে স্পেস দিয়ে Mad লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে ২০২২ লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে। কারিগরি বোর্ডের ক্ষেত্রে HSC লিখে স্পেস দিয়ে Tec লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে ২০২২ লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠালে ফিরতি এসএমএসে ফল জানানো হবে।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ড জানিয়েছে, তাদের অধীন প্রতিষ্ঠানভিত্তিক ফলাফল বোর্ডের ওয়েবসাইটে (www.dhakaeducationboard.gov.bd) রেজাল্ট কর্নারে ক্লিক করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ইআইআইএন দিয়ে প্রতিষ্ঠানভিত্তিক রেজাল্ট শিট ডাউনলোড করা যাবে। আর www.educationboardresults.gov.bd ওয়েবসাইটে ক্লিক করে ডাউনলোড করা যাবে রোল ও রেজিস্ট্রেশন নম্বর দিয়ে রেজাল্ট শিট।


আরও খবর



কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়ায় মুসল্লিদের নামে মসজিদ কমিটির সভাপতির অপপ্রচার

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ২২৩জন দেখেছেন

Image

কুমিল্লা প্রতিনিধি :

কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়ার চান্দলা হুড়ারপার পশ্চিম জামে মসজিদের মুসল্লিদের নামে অপপ্রচার চালানোর অভিযোগ উঠেছে মসজিদ কমিটির সভাপতির বিরোেদ্ধে । ঐ মসজিদের মুসল্লিরা জানায় মসজিদ কমিটির সভাপতি মো. হারুনর রশীদ ও তার চাচাতো ভাইরা মিলে মসজিদকে ব্যাক্তিগত‘করণের পায়তারা চালাচ্ছে । 

এ বিষয়ে স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে  জানাযায় , ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার চান্দলা ইউনিয়নের  হুড়ারপাড় এলাকার ‘হুড়ারপাড় পশ্চিম জামে মসজিদ । এটি হাজীবাড়ি সংলগ্নে হওয়ায় অনেকে হাজী বাড়ি মসজিদ নামে চিনতো , তবে মসজিদটির কাগজপত্রে হুড়ারপার পশ্চিম জামে মসজিদ নামে উল্লেখ করা রয়েছে । মসজিদটি প্রতিষ্ঠার পর থেকেই হুড়ারপার এলাকাবাসীর অর্থায়ন ও  সহযোগীতায় পরিচালনা হয়ে আসলেও মসজিদ কমিটির সভাপতি মো. হারুনর রশীদ ও তার চাচাতো ভাইরা তাদের পারবিারিক মসজিদ হিসেবে এটির প্রচারনা চালায় ।  এ নিয়ে বরাবরই মুসল্লি ও এলাবাসিরা অভিযোগ করে আসছিলো । 

 ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার চান্দলা ইউনিয়নের হুড়ারপাড় এলাকার ‘হুড়ারপাড় পশ্চিম জামে মসজিদ’ পুরনো একটি মসজিদ। তবে মসজিদে পর্যাপ্ত লোক জায়গা হয় না বলে মসজিদটি প্রশস্ত করার লক্ষ্যে মসজিদ কমিটির সভাপতি মো. হারুনর রশীদ ও তার চাচাতো ভাই মিলে ‘হুড়ারপাড় পশ্চিম জামে মসজিদের নামে ৯ শতক জায়গা দান করেন। এর পর এলাকাবাসী মিলে মসজিদটির পূনরনির্মান করেন । এরপরই ফুটে উঠে আসল চিত্র, এলাকাবসীর অর্থায়নে মসজিদ নির্মান হলেও মসজিদ কমিটির সভাপতি মো. হারুনর রশীদ ও তার চাচাতো ভাইরা এটিকে পারিবারকি মসজিদ দাবীকরে এরই অংশ হিসেবে মসজিদে  ‘ হাজী বাড়ি জামে মসজিদ’ নামে  একটি নেমপ্লেট বসায় এবং মসজিদে তাদের আধিপত্য দেখাতে থাকে । 

এ নিয়ে  মুসল্লি ও  এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভের স্মৃষ্টির হলে বিষয়টি মিমাংসার জন্য এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিরা দায়িত্ব নিয়ে মিমাংসা করতে না পারায়, কয়েকজন মুসল্লি নেমপ্লেট মুছে দিতে গেলে মসজিদ কমিটির সঙ্গে বাক বিতন্ডতা হয় স্মষ্টি হয় এর পর  মসজিদ কমিটির সভাপতি কয়েকজন মুসল্লির নামে মসজিদের নেমপ্লেট ভাঙ্গার অভিযোগ এনে ব্রাহ্মণপাড়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন ।



আরও খবর



শ্বাসরুদ্ধ ম্যাচে ২ উইকেটে জয় পেল বাংলাদেশ

প্রকাশিত:শনিবার ০৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১২৪জন দেখেছেন

Image

স্পোর্টস ডেস্ক:বাংলাদেশ অবশেষে জয়ের দেখা পেল। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে এর আগে দুইবার শ্রীলঙ্কার মুখোমুখি হয়ে টাইগাররা জয়ের দেখা পায়নি। আজও লঙ্কানদের বিপক্ষে ম্যাচটা কঠিন করে তুলেছিল টপ অর্ডাররা। শেষ মুহূর্তে মাহমুদউল্লাহর ব্যাটে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বাংলাদেশ। ২ উইকেটে জয় পেল বাংলাদেশ।

মুস্তাফিজুর রহমান ও রিশাদ হোসেন ডালাসের গ্র্যান্ড প্রেইরি স্টেডিয়ামে আগে ব্যাট করা শ্রীলঙ্কাকে দারুণ আক্রমণের মুখে ফেলে দেন। নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের পাশাপাশি দুজনই তিনটি করে উইকেট নিয়েছেন। ফলে সর্বসাকুল্যে ৯ উইকেটে মাত্র ১২৪ রানের পুঁজি দাঁড় করায় ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গার দল। সেই রানের চাপও শুরুতে নিতে পারেননি টপ অর্ডারে নামা সৌম্য সরকার, তানজিদ হাসান তামিম ও অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত।

তিন উইকেট ৩০ রানে হারানো বাংলাদেশ পথ খুঁজে পায় তাওহীদ হৃদয়ের কল্যাণে। তিনি যখন ফিরছেন তখন জয় পেতে আর ৫০ বলে ৩৪ রান দরকার টাইগারদের। সেই ম্যাচটাই কিনা কঠিন বানিয়ে ফেলেন সাকিব আল হাসান ও রিশাদ হোসেনরা। মাহমাহমুদউল্লাহ মাঠে নেমে খেলাকে জেতার লড়াইকে সহজ করে তোলেন। প্রথম বলকে ছক্কা হাঁকিয়ে ম্যাচকে নিজেদের দিকে টেনে নেন মিস্টার সাইলেন্ট কিলার। পরের বলে এক রান নিয়ে সাকিবকে স্ট্রাইক দেন। এক বল ডট দিয়ে পরের বলে এক রান নিয়ে মাহমুদউল্লাহকে স্টাইক দেন। পঞ্চম বল থেকে ডট আদায় করে নেন দাশুন শানাকা। ষষ্ঠ বলে মাহমুদউল্লাহকে আউটের জন্য রিভিউ নেয় শ্রীলঙ্কা। উল্টো রিভিউ থেকে সেই বলকে ওয়াইড ঘোষণা করেন থার্ড আম্পায়ার। যার ফলে ৭ বলে বাংলাদেশের প্রয়োজন পড়ে ২ রান। ১৯তম ওভারের শেষ বলে ২ রান নিয়ে এক ওভার হাতে থাকতেই বাংলাদেশের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন মাহমুদউল্লাহ ও তানজিম সাকিব।


আরও খবর



তানোরে গাছের ডালে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৭৮জন দেখেছেন

Image
আব্দুস সবুর তানোর থেকে:রাজশাহীর তানোরে গাছের ডালের সাথে  গলায় ফাঁস দিয়ে আপেল নামের (১৫) এক কিশোরের  ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। তার বাড়ি উপজেলার কলমা ইউনিয়ন ইউপির গঙ্গারামপুর গ্রামে। সে আতাউর রহমানের ছেলে। রবিবার বিকেলের দিকে মুন্ডুমালা পৌর এলাকার প্রকাশনগর খালের পার্শের গাছের ডালে গলায় ফাঁস দিয়ে ঘটে  আত্মহত্যার ঘটনা । 
 
এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে,নিহত কিশোর  আপেল দীর্ঘদিন ধরে মানুষিক ভারসাম্যহীন। রোববার দুপুরের পরে মুন্ডুমালা পৌরসভার প্রকাশনগর গ্রামের পানি নিষ্কাসনের খাড়ির ধারে লাগানো গাছের সাথে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্নহত্যা করেন। স্থানীয়রা আপেল কে গাছের ডালের সাথে  ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান। এসময় স্থানীয়রা থানা পুলিশ কে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করেন। 

এবিষয়ে  থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি আব্দুর রহিম জানান,  খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আরও খবর



হিলিতে আদার দাম বেড়েছে কেজিতে ১২০ টাকা, আর কাঁচা মরিচ ২০০ টাকা ছুঁই ছুঁই

প্রকাশিত:রবিবার ১৬ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১০৮জন দেখেছেন

Image

মাসুদুল হক রুবেল,হিলি (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:আমদানি-রপ্তানি বন্ধের অজুহাতে মাত্র রাতের ব্যবধানে দিনাজপুরের হিলিতে আদার দাম মানভেদে বেড়েছে কেজিতে ১০০ থেকে ১২০ টাকা। আর দুই দিনের ব্যবধানে কাঁচা মরিচ কেজিতে বেড়েছে ৪০ টাকা। পণ্য দুটির দাম বাড়ায় বিপাকে পড়েছেন নিন্মআয়ের মানুষেরা। ক্রেতারা বলছে,কোরবানি ঈদের আগে মসলা পণ্যর দাম কিছুটা বাড়ে। কিন্ত এক রাতের ব্যবধানে এতো টাকা বাড়বে তা অবিশ্বাস। 

আজ শনিবার (১৫ জুন) বিকেল ৩ টায় হিলি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, গেলো শুক্রবার (১৪ জুন) প্রতিকেজি আদা ২০০ থেকে ২২০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। আজ শনিবার (১৫ জুন) সেই আদা প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে মানভেদে ৩০০ থেকে ৩২০ টাকা দরে। এতে করে কেজিতে ১০০ থেকে ১২০ টাকা বেড়েছে। আর দুই দিন আগে কাঁচা মরিচ মানভেদে ১৩০ থেকে ১৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। আজ সেই কাঁচা মরিচ ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।    

হিলি বাজারে আদা ও কাঁচা মরিচ কিনতে আসা মফিজুল ইসলাম বলেন,কোরবারি ঈদের সময় সব পণ্যের দাম একটু বাড়ে। কিন্তু কেজিতে ১২০ টাকা? এটা আশ্চর্যজনক বিষয়। কাঁচা মরিচের দামও বৃদ্ধি পেয়েছে। আমি দুই দিন আগে ১৪০ টাকা কেজি দরে কাঁচা মরিচ কিনেছি। আজ সেই কাঁচা মরিচ ১৮০ টাকা কেজি দরে নিলাম। 

অপর এক ক্রেতা মাহেদুল ইসলাম বলেন,ঈদ পরব লাগলেই পেঁয়াজ, রসুন,আদাসহ সবধরনের মসলার দাম বাড়ে। কিন্তু কোনো পণ্যের দাম একদিনের ব্যবধানে কেজিতে ১০০ টাকা বাড়েনি। আমার জীবনের এটাই প্রথম দেখলাম যে এক রাতের ব্যবধানে আদার দাম কেজিতে বেড়েছে ১২০ টাকা। 

আরেক ক্রেতা বলেন,গতকাল শুক্রবার (১৪ জুন) প্রতিবেশী প্রতিকেজি আদা ২০০ টাকা দরে কিনেছে। আর আজ আমি বাজারে এসে দেখি ৩০০ থেকে ৩২০ টাকা কেজি দরে আদা বিক্রি হচ্ছে। তাই বাধ্য হয়ে ৫০০ গ্রামের জায়গায় ৮০ টাকা দিয়ে ২৫০ গ্রামে আদা কিনলাম।

হিলি বাজারের কাঁচা মরিচ বিক্রেতা শেখ বিপ্লব জানান,গতকাল শুক্রবার থেকে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ হয়েছে। আর একদিন পর কোরবানী ঈদ তাই কৃষকেরা ক্ষেত থেকে কাঁচা মরিচ তুলছে না। একারণে বাজারে সরবরাহ কমে যাওয়ায় দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে। আমি আজ সকালে পাঁচবিবি হাট থেকে প্রতিকেজি কাঁচা মরিচ কিনেছি ১৭০ টাকা কেজি দরে। আর বিক্রি করছি ১৮০ টাকা কেজি দরে। এতে করে পরিবহন খরচ বাদ দিয়ে দুই থেকে তিন টাকা লাভ থাকে। এরপর আবার প্রতি মনে দুই এক কেজি নষ্ট হয়ে যায় কাঁচা মরিচ। 

হিলি বাজারের আদা বিক্রেতা আবু তাহের বলেন, গতকাল শুক্রবার (১৪ জুন) থেকে হিলি বন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ হয়েছে। তাই হয়তো যেসব আমদানিকারকের কাছে আদা মজুদ আছে, তারা বেশি দামে বিক্রি করছেন। বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) পাইকারি মানভেদে ১৮০ থেকে ১৯০ টাকা কেজি দরে কিনে ২০০ টাকায় বিক্রি করি। আর গতকাল (১৪ জুন) প্রতিকেজি আদা কিনতেই হয়েছে মানভেদে ২৯০ থেকে ৩০০ টাকা দরে। তাই আজ শনিবার বিক্রি করছি ৩২০ টাকা কেজি দরে। আমদানিকারকদের কাছ থেকে পাইকারি কিনে খুচরা বিক্রি করি। যে দামে কিনি তার চেয়ে  কেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা লাভ রেখে বিক্রি করে থাকি।


আরও খবর



পুঠিয়ার বেলপুকুরে ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে মতবিনিময় সভা

প্রকাশিত:বুধবার ১২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২২ জুন ২০২৪ | ৬৬জন দেখেছেন

Image
সাজেদুর রহমান,পুঠিয়া(রাজশাহী)প্রতিনিধি:শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ‘স্কুল ভিজিটিং প্রোগ্রাম’ কর্মসূচির অংশ হিসেবে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল ১১টায় পুঠিয়া উপজেলার বেলপুকুর থানার উদ্যেগে ধাদাস উচ্চ বিদ্যালয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ মতবিনিময় সভায় আরএমপি’র বেলপুকুর থানার ওসি মোঃ মামুনুর রশিদ, এস আই, রিমন হোসাইন, ধাদাস উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক একরামুল হক উপস্থিত থেকে মাদক, ইভটিজিং, সাইবার ইস্যু ট্রাফিক রুলস এবং সামাজিক অপরাধ যেমন বাল্যবিবাহ, যৌতুক, কিশোর গ্যাং ও মানবপাচার প্রতিরোধে করণীয় বিষয়ে আলোচনা করেন। স্বতঃস্ফুর্ত এ মুক্ত আলোচনা সভায় শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা কর্মকর্তাদের কাছে বিভিন্ন সমস্যার কথা উপস্থাপন করেন।

মতবিনিময় সভায় মাদকের ভয়াবহতা তুলে ধরেন। মাদক থেকে দূরে থাকতে উপস্থিত ছাত্র-ছাত্রীদের অনুরোধ করেন। এছাড়াও সতর্ক থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারে পরামর্শ প্রদান করেন। কেউ সাইবার অপরাধের শিকার হলে কীভাবে প্রতিকার পাওয়া যাবে সে বিষয়ে আলোচনা করেন। তাছাড়া ছাত্র-ছাত্রীদের ট্রাফিক আইন জেনে ও মেনে নিরাপদে পথ চলা, নিয়ম মেনে রাস্তা পারাপারসহ প্রয়োজনে ট্রাফিক পুলিশের সহযোগিতা গ্রহণ করতে বলেন। রাস্তায় বিপদে পড়লে বা কেউ ইভটিজিংয়ের শিকার হলে পুলিশের সহযোগিতা নেওয়া বা জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এ কল করতে বলাসহ বাল্যবিবাহ, যৌতুক, কিশোর গ্যাং ও মানবপাচার সংক্রান্ত সচেতনতামূলক পরামর্শ দেন।

আরও খবর