Logo
আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

বিএনপির ছেড়ে দেওয়া আসনগুলোতে তফসিল ঘোষণা করা হবে রোববার

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ডিসেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৩২৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক; জাতীয় সংসদ থেকে পদত্যাগ করা বিএনপির ছয় সংসদ সদস্যের (এমপি) আসন শূন্য ঘোষণা করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সংসদ সচিবালয়। আগামী রোববার শূন্য হওয়া এ আসনগুলোতে উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে।

আজ বৃহস্পতিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশন ভবনে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন নির্বাচন কমিশনার (ইসি) মো. আলমগীর।

ইসি মো. আলমগীর বলেন, ‘রোববার নির্বাচন কমিশনের সভা রয়েছে। এ সভায় শূন্য আসনে উপনির্বাচন নিয়ে আলোচনার বিষয়ে সিডিউল রয়েছে। সভা শেষে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে। নির্বাচনে ইভিএমে ভোটগ্রহণ এবং সিসিটিভি বসানোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতেও এ সভায় আলোচনা হবে।

এ আসনগুলোতে কবে নির্বাচন হতে পারে- এমন প্রশ্নের জবাবে মো. আলমগীর বলেন, ‘সরকারি ছুটি, পাবলিক পরীক্ষা এবং ধর্মীয় উৎসব আছে কি না, তা দেখেই নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করা হবে।

তিনি বলেন, ‘কমিশন সব রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সমান আচরণ করছে। এখন পর্যন্ত এ কমিশন যতগুলো নির্বাচন করেছে, তার সবগুলোই অবাধ ও সুষ্ঠু হয়েছে। আমরা সব রাজনৈতিক দলের আস্থা অর্জনের চেষ্টা করছি।

গত ১০ ডিসেম্বর রাজধানীর গোলাপবাগে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশে পদত্যাগের ঘোষণা দেন বিএনপির সাত এমপি। পদত্যাগের ঘোষণা দেওয়া সাত এমপি হলেন- ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের উকিল আবদুস সাত্তার, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের হারুন অর রশীদ, বগুড়া-৬ আসনের গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ, বগুড়া-৪ আসনের মোশাররফ হোসেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনের আমিনুল ইসলাম, ঠাকুরগাঁও-৩ আসনের জাহিদুর রহমান জাহিদ ও সংরক্ষিত মহিলা আসনের রুমিন ফারহানা।

ওই দিন ঘোষণার পাশাপাশি জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর কাছে ই-মেইলে পদত্যাগপত্র পাঠান বিএনপির সাত এমপি। পর দিন রোববার এমপি হারুন অর রশীদ ছাড়া বাকি সবাই সশরীরে স্পিকারের কাছে পদত্যাগপত্র জমা দেন। তিনি বিদেশে থাকায় পদত্যাগপত্র সশরীরে দিতে পারেননি বলে বিএনপির পক্ষ থেকে জানানো হয়।


আরও খবর



পত্নীতলায় বাল্য বিবাহ, মাদক ও মানব পাচার প্রতিরোধে উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮৩জন দেখেছেন

Image

পত্নীতলা (নওগাঁ) প্রতিনিধি:পত্নীতলায় উপজেলা মহিলা বিষয়ক কার্যালয়ের আয়োজনে বাল্য বিবাহ, মাদক, মানব পাচার প্রতিরোধে সোমবার জাতীয় মহিলা সংস্থা পত্নীতলার কার্যালয়ে এক উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মনোরঞ্জন পালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান খাদিজাতুল কোবরা মুক্তা। এসময় উপস্থিত ছিলেন পত্নীতলা প্রেসক্লাব ও উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব বুলবুল চৌধুরী, জাতীয় মহিলা সংস্থা পত্নীতলার দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তা আমিনুল হক, জাতীয় মহিলা সংস্থার ট্রেনার বিলকিস বেগম সহ সূধীজন প্রমূখ।

আরও খবর



এসএসসি পরীক্ষা শুরু আজ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯৬জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আজ (বৃহস্পতিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারি) চলতি বছরের এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা শুরু হচ্ছে।

সকাল ১০টা থেকে এ পরীক্ষা শুরু হয়ে চলবে দুপুর ১টা পর্যন্ত। প্রথম দিনে এসএসসির বাংলা প্রথমপত্র পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

পরীক্ষা শুরুর কমপক্ষে ৩০ মিনিট আগে শিক্ষার্থীদের নিজ নিজ কেন্দ্রে প্রবেশের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। অনিবার্য কারণে কোনো শিক্ষার্থীকে দেরিতে প্রবেশ করতে দিলে তার নাম, রোল নম্বর, প্রবেশের সময়, দেরির কারণ রেজিস্টারে লিখে তা ওই দিনই শিক্ষা বোর্ডে প্রতিবেদন আকারে পাঠাতে হবে।

আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটি সূত্র জানায়, দেশের ১১টি বোর্ডে চলতি বছর মোট পরীক্ষার্থী ২০ লাখ ২৪ হাজার ১৯২ জন। এরমধ্যে ছাত্র ৯ লাখ ৯২ হাজার ৮৭৮ জন ও ছাত্রী ১০ লাখ ৩১ হাজার ৩১৪ জন। মোট কেন্দ্র ৩ হাজার ৭০০টি। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২৯ হাজার ৭৩৫টি।

বোর্ডভিত্তিক হিসাবে সবচেয়ে বেশি ৪ লাখ ৪ হাজার ৬৩৭ পরীক্ষার্থী ঢাকা বোর্ডে। এছাড়া রাজশাহীতে ২ লাখ ২৪৫ জন, কুমিল্লায় ১ লাখ ৮০ হাজার ৫২৭, যশোরে ১ লাখ ৫৯ হাজার ৩৭১, চট্টগ্রামে ১ লাখ ৪৫ হাজার ৫৯০, বরিশালে ৮৮ হাজার ৫৮৬, সিলেটে ১ লাখ ৯ হাজার ৪১২, দিনাজপুরে ১ লাখ ৯৯ হাজার ৪৩৬ এবং ময়মনসিংহে ১ লাখ ১৯ হাজার ৭৫ জন।

মাদরাসা বোর্ডের অধীনে দাখিল পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে ২ লাখ ৯০ হাজার ৯৪০ জন। তাদের মধ্যে ছাত্র ৯৪ হাজর ৮৪১ জন এবং ছাত্রী ৩১ হাজার ৫৩২ জন। আর কারিগরি বোর্ডে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১ লাখ ২৬হাজার ৩৭৩ জন। এরমধ্যে ছাত্র ৯৪ হাজার ৮৪১ জন ও ছাত্রী ৩১ হাজার ৫৩২ জন।


আরও খবর



কদমতলীতে আওয়ামী লীগ নেতার উপর হামলা:আসামী র‍‍্যাবের হাতে আটক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৫০জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হাসানঃরাজধানীর কদমতলী থানাধীন ডিএসসিসি ৬৫ নং ওয়ার্ড অন্তর্গত তুষার ধারা ইউনিট আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল আমিন মোল্লার উপড় আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে হামলা চালনো প্রধান অভিযুক্ত নোমান বেপারী (২৭) কে হত্যা ও ডাকাতি মামলায় গ্রেফতার করেছে র‍‍্যাব-১১। রবিবার ২৮ জানুয়ারি গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ফতুল্লা থানার শান্তিধারা এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। নোমান বেপারী ওই এলাকার আব্দুর রব বেপারীর ছেলে।

তুষার ধারা ইউনিট আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল আমিন মোল্লা দৈনিক সকালের সময়কে বলেন, সন্ত্রাসী নোমান বেপারী তার সঙ্ঘবদ্ধ একটি গ্রুপ নিয়ে তুষার ধারা এলাকায় মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজি ভূমিদস্যুতা সহ নানা অপরাধের স্বর্গ রাজ্য গড়ে তোলেন, তার এসব অপকর্মে বাধা দেওয়ায় গত ২২ জানুয়ারি অভিযুক্ত ৬ জনসহ অন্য ৫/৬ জন অজ্ঞাত ব্যক্তি মিলে দুপুর  তিনটার দিকে গিরিধারা আবাসিক এলাকার শাপলা টাওয়ারের সামনে নোয়াখালী হোটেলের ভিতরে আমার উপর আগ্নেয়াস্ত্র (পিস্তলের বাট দিয়ে আঘাত করে) মারধর করেন। এই বিষয়ে আমি কদমতলী থানায় সাত জনের নামে ও ৫/৬ জনকে অজ্ঞাত দেখিয়ে একটি অভিযোগ করেছি। অভিযুক্তরা হল, নোমান বেপারী পিতা -আব্দুর রব বেপারী, আলামিন পিতা -বাবু, মাসুদ ওরফে ন্যারো মাসুদ, আল ইমরান, তামিম, ওমর ফারুকসহ অজ্ঞাত ৫-৬ জন। কদমতলী থানার এসআই জহিরুল ইসলাম অভিযোগ তদন্ত করেন।

তিনি আরো বলেন, গিরিধারা এলাকাটি নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানা এবং ডিএমপির কদমতলী থানার সীমান্তবর্তী এলাকা হওয়ায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ঢিলেঢালা তৎপরতার কারণে সহজে অপরাধ কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছিল।

প্রত্যক্ষদর্শী ফয়সাল আহমেদ রাজু বলেন, ঘটনার দিন এলাকার সন্ত্রাসী নোমান বেপারী সাত আটটি মোটরসাইকেল যোগে এসে ১০-১২ জন ব্যক্তি মিলে নোয়াখালী হোটেলের ভেতরে আওয়ামী লীগ নেতা আল আমিন মোল্লার উপর অতর্কিত হামলা চালায়।

নোয়াখালী হোটেলের কর্মচারী শাহ আলম বলেন, অভিযুক্তরা আলামিন মোল্লাকে এলোপাথাড়ি মারধর করতে থাকেন, তাদের কাছে অস্ত্রশস্ত্র থাকায় আমরা ভয়ে তটস্থ হয়ে পড়ি।

কদমতলি থানার এসআই জহিরুল ইসলাম বলেন অভিযোগের পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি, আশেপাশের সিসিটিভির ফুটেজ গুলো সংগ্রহ করে পর্যবেক্ষণ করছি, অভিযুক্তদের ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই ঘটনায় এলাকায় থমথমে পরিবেশ বিরাজ করছে।সন্ত্রাসীরা আল আমিন মোল্লাকে প্রাণনাশের হুমকি-ধমকি দিচ্ছেন বলেও জানান তিনি। এ বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদয় হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তুষার ধারা ইউনিট আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল আমিন মোল্লা।


 


আরও খবর



গোদাগাড়ীতে নৌবন্দর উদ্বোধনে রাসিক মেয়রকে স্বাগত জানিয়ে আনন্দ মিছিল

প্রকাশিত:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮১জন দেখেছেন

Image

গোদাগাড়ী প্রতিনিধিঃরাজশাহীর গোদাগাড়ীতে নৌবন্দর উদ্বোধন উপলক্ষে আনন্দ মিছিল করেছে আওয়ামীলীগ।রোববার বিকাল ৪টায় উপজেলা সদর ডাইংপাড়া ফিরোজ চত্বরে বিশাল আনন্দ মিছিলের নেতৃত্ব দেন পৌ আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক। মিছিলের আগে ভাগে ছিলেন মাটিকাটা ইউপি সোহেল রানা,বাসুদেবপুর ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম,পৌরসভার ৫নং কাউন্সিলর শহিদুল ইসলাম,আওয়ামীলীগ নেতা জয়নাল আদেীন জনি প্রমূখ। আনন্দ মিছিলে স্লোগান দিয়ে নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটনকে স্বাগত জানানো হয়।


আরও খবর



প্রধানমন্ত্রী মঙ্গলবার একুশে পদক প্রদান করবেন

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৪৮জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:২১ বিশিষ্টজনকে ‘একুশে পদক ২০২৪’ দেওয়া হচ্ছে দেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অসামান্য অবদান রাখায়। আগামীকাল মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টায় রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে মনোনীতদের হাতে রাষ্ট্রের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক এ পুরস্কার তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) পৃথক বাণীতে একুশে পদকের জন্য মনোনীতদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রাষ্ট্রপতি তার বাণীতে বলেছেন, গুণিজনদের সম্মাননা প্রদান দেশের উন্নয়ন অগ্রগতি ও সংস্কৃতির বিকাশে তাদের পাশাপাশি ভবিষ্যৎ প্রজন্মকেও অনুপ্রাণিত করবে। এ কারণেই গুণীদের প্রণোদনা দিতে সরকার একুশে পদকসহ বিভিন্ন রাষ্ট্রীয় পদক দিয়ে থাকে।

তিনি বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন ভাষাভাষী মানুষের নিজস্ব ভাষা ও সংস্কৃতি রক্ষায় অমর একুশের চেতনা আজ অনুপ্রেরণার অবিরাম উৎস। তবে বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতির যথাযথ চর্চা ও সংরক্ষণে আমাদের আরো যতœবান হতে হবে। গুণিজন তৈরি করতে গুণের কদর করতে হয়। একুশে পদকে ভূষিত জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের সম্মানিত করার মধ্য দিয়ে দেশে মেধা ও মননচর্চার ক্ষেত্র আরও সম্প্রসারিত হবে।

শেখ হাসিনা একুশে পদকপ্রাপ্তদের অভিনন্দন জানিয়ে বলেছেন, এবারের একুশে পদকপ্রাপ্ত গুণিজনের পথ অনুসরণ করে তরুণ প্রজন্ম জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণে সক্রিয় ভূমিকা রাখবে। পাশাপাশি বাঙালির গৌরবময় ইতিহাস, ঐতিহ্য, শিল্প, সাহিত্য ও সংস্কৃতি চর্চার মাধ্যমে আমাদের ভাষা ও সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করবে।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, জাতীয় জীবনে বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ এ পর্যন্ত মোট ৫৬৫ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি ও স্বনামখ্যাত প্রতিষ্ঠানকে একুশে পদক দেওয়া হয়েছে। ২০২৪ সালে মোট ২১ জন বিশিষ্ট নাগরিককে এ পদকের জন্য মনোনীত করা হয়েছে। এবারে ভাষা আন্দোলনে ভূমিকা রাখার জন্য দু'জন, ভাষা ও সাহিত্যে চারজন, শিল্পকলায় বারজন, শিক্ষায় একজন বিশিষ্ট ব্যক্তি, সমাজসেবায় দু’জন বিশিষ্ট ব্যক্তিকে এ পদক দেওয়া হবে। যারা মরণোত্তর পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছেন, তাদের আত্মার শান্তি প্রার্থনা করে প্রধানমন্ত্রী পুরস্কারপ্রাপ্তদের আন্তরিক অভিনন্দন জানান।

একুশের শহীদরা যেমন জাতির অন্যতম শ্রেষ্ঠ সন্তান, তেমনি দেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রের সব গুণিজন জাতির গর্ব ও অহংকার-এমনটি উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যদিও প্রকৃত গুণিজন পুরস্কার বা সম্মাননার আশায় কাজ করেন না, তবু পুরস্কার-সম্মাননা জীবনের পথ চলায় নিরন্তর প্রেরণা যোগায়।

একুশের চেতনাকে ধারণ করে দেশের শিল্প, সাহিত্য, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতির বিকাশ এবং আলোকিত সমাজ বিনির্মাণে যারা বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রাখছেন, তাদের সবার প্রতি সম্মান জানিয়ে গৌরবময় একুশে পদক দেওয়া হয়।

তিনি বলেন, এর আগেও প্রতি বছর বাংলাদেশের অল্প সংখ্যক বিশিষ্ট ব্যক্তিকে জাতীয় পর্যায়ে তাদের নিজ নিজ ক্ষেত্রে অনন্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ একুশে পদকে ভূষিত করা হতো। পদকপ্রাপ্তদের সম্মানী অর্থের পরিমাণও ছিল যতসামান্য। আওয়ামী লীগ সরকারের মেয়াদে পদকপ্রাপ্ত বরেণ্য ব্যক্তিদের পুরস্কার হিসেবে প্রদত্ত অর্থের পরিমাণ কয়েক দফা বাড়িয়ে ২০২০ সালে চার লাখ টাকায় উন্নীত করেছে।

প্রসঙ্গত, একুশে পদকপ্রাপ্তদের ১৮ ক্যারেট স্বর্ণের তৈরি ৩৫ গ্রাম ওজনের একটি করে পদক, চার লাখ টাকা ও একটি সম্মাননাপত্র দেওয়া হবে।

এর আগে, ১৩ ফেব্রুয়ারি ‘একুশে পদক-২০২৩’এর জন্য ২১ জন বিশিষ্ট নাগরিকের নাম ঘোষণা করে সরকার। এ বছর ভাষা আন্দোলন ক্যাটাগরিতে দু’জন, শিল্পকলায় ১২ জন, সমাজসেবায় দু’জন, ভাষা ও সাহিত্যে চার জন এবং শিক্ষায় একজন বিশিষ্ট নাগরিক এ পুরস্কার পাচ্ছেন। এই ২১ বিশিষ্ট নাগরিকের মধ্যে ছয় জন মরণোত্তর এই সম্মাননা পাচ্ছেন।

পদকের জন্য মনোনীত বিশিষ্টজনেরা হলেন- ভাষা আন্দোলনে মৌ. আশরাফুদ্দীন আহমদ (মরণোত্তর) ও বীর মুক্তিযোদ্ধা হাতেম আলী মিয়া (মরণোত্তর)। শিল্পকলার সংগীতে জালাল উদ্দীন খাঁ (মরণোত্তর), বীর মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণী ঘোষ, বিদিত লাল দাস (মরণোত্তর), এন্ড্রু কিশোর (মরণোত্তর) ও শুভ্র দেব। নৃত্যকলায় শিবলী মহম্মদ। অভিনয়ে ডলি জহুর ও এমএ আলমগীর। আবৃত্তিতে খান মো. মুস্তফা ওয়ালীদ (শিমুল মুস্তফা) ও রূপা চক্রবর্তী।

চিত্রকলায় শাহজাহান আহমেদ বিকাশ। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণ ও আর্কাইভিংয়ে কাওসার চৌধুরী। সমাজসেবায় মো. জিয়াউল হক ও আলহাজ রফিক আহামদ। ভাষা ও সাহিত্যে মুহাম্মদ সামাদ, লুৎফর রহমান রিটন, মিনার মনসুর ও রুদ্র মুহাম্মদ শহিদুল্লাহ (মরণোত্তর)। আর শিক্ষায় অধ্যাপক ড. জিনবোধি ভিক্ষু একুশে পদক পেতে যাচ্ছেন।


আরও খবর