Logo
আজঃ সোমবার ২৪ জুন 20২৪
শিরোনাম

উত্তাল তরঙ্গ ফ্যাসিবাদী সরকারকে ভাসিয়ে নিয়ে যাবে: মির্জা ফখরুল

প্রকাশিত:সোমবার ০৬ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৩৫৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘আজকে জনসমুদ্রের মধ্যে যে উত্তাল তরঙ্গের সৃষ্টি হয়েছে তা এই ফ্যাসিবাদী সরকারকে ভাসিয়ে নিয়ে যাবে। আসুন, আজকে আমরা তারেক রহমানের কারাবন্দি দিবসে সবাই শপথ নেই, তারেক রহমান দেশে ফিরে আসবেন। যেদিন আসবেন সেদিন সমস্ত বাংলাদেশের মানুষ উত্তাল তরঙ্গের মতো সুনামিতে এই সরকারকে ভাসিয়ে নিয়ে যাবে। দেশের জনগণ সেই অবস্থা তৈরি করবে যে অবস্থার মধ্য দিয়ে তিনি দেশে ফিরে আসবেন।’

আজ সোমবার এক আলোচনা সভায় বিএনপি মহাসচিব এসব কথা বলেন। ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি কার্যালয়ে উত্তরাঞ্চল ছাত্র ফোরাম ও বাংলাদেশ ছাত্র ফোরামের যৌথ উদ্যোগে তারেক রহমানের ১৭তম কারাবন্দি দিবস উপলক্ষে এই আলোচনা সভা হয়।

১/১১-এর সেনা সমর্থিত ফখরুদ্দিন আহমেদ সরকারের সময়ে ২০০৭ সালের ৭ মার্চ তারেক রহমান হন ১৮ মাস কারাগানে থাকার পর ২০০৮ সালের ৩ সেপ্টেম্বর সর্বোচ্চ আদালতের জামিনে মুক্ত হয়ে চিকিৎসার জন্য স্বপরিবারে লন্ডন যান। সেই থেকে লন্ডনেই আছেন তিনি।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘পরিস্কার করে বলতে চাই- কোনো নির্বাচন এদেশে হবে না তত্ত্বাধায়ক সরকার ছাড়া। এই সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে, সংসদ বিলুপ্ত করতে হবে এবং নতুন একটি নির্বাচন কমিশনের গঠনের মধ্য দিয়ে নির্বাচন হবে যে নির্বাচনে জনগন ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবে। সেই সময়ে তারেক রহমান দেশে এসে আমাদের নেতৃত্ব গ্রহণ করবে এবং বাংলাদেশকে নতুন করে স্বপ্ন দেখাবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘তারেক রহমান একজন অসাধারণ মেধাবী একজন নেতা। তিনি আজ থেকে নয়, যখন রাজনীতিতে প্রবেশ করেছেন সেই সময়ে প্রমাণ করেছেন তার অসাধারণ দক্ষতা. অসাধারণ দূরদৃষ্টি এবং জনগনকে সংগঠিত করবার তার একটা অসাধারণ যোগ্যতা।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের মনে রাখতে হবে, আজকে যারা ক্ষমতায় আছেন তারা সেই (১/১১) ষড়যন্ত্র থেকে বিচ্ছিন্ন নয়। বরঞ্চ তারা সেই ষড়যন্ত্রের বড় অংশীদার। আওয়ামী লীগ সব সময়ই গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে, আওয়ামী লীগ সব সময়ই বাংলাদেশের স্বাধিকারের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে, আওয়ামী লীগ সব সময়ই জনগণের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আমাদের মনে রাখতে হবে, ১৯৭৫ সালে যখন আওয়ামী লীগ মাত্র ১১ মিনিটের মধ্যে সংসদে গণতন্ত্রকে ধবংস করে একদলীয় বাকশাল প্রতিষ্ঠা করেছিল। সেদিন থেকেই বাংলাদেশকে ধ্বংস করবার, তার জাতীয়তাবাদীকে বিনষ্ট করবার সেই ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। ১৯৮১ সালে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানকে হত্যা করা হয় সেটা ছিল একই ষড়যন্ত্রের ফসল। একইভাবে ১/১১-তে সামরিক বাহিনীর সমর্থনে একটি অবৈধ সরকার ক্ষমতা দখল করল সেই সময়ের ফখরুদ্দিন (ফখরুদ্দিন আহমেদ) শপথ গ্রহণের অনুষ্ঠান হচ্ছিল সেখানে যোগ দিয়ে আজকে আওয়ামী লীগ তাদের সমর্থন দিয়েছিল।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘সেদিন তারেক রহমানের গ্রেপ্তার বিচ্ছিন্ন কোনো ঘটনা নয়। এই গ্রেপ্তার ছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে গ্রেপ্তার করা, বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বকে গ্রেপ্তার করা, বাংলাদেশের মানুষের বিকশিত হওয়ার, তাদের যে নিজেদের তৈরি করবার, অর্থনৈতিক-সমৃদ্ধি সৃষ্টি করবার যে ভিশন ছিল সেটাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।’

তিনি বলেন, ‘আজকে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে প্রচুর ক্যাম্পেইন হচ্ছে, তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। সেই অপপ্রচারের মূল্যটা কী? লক্ষ্যটা হচ্ছে তারেক রহমানকে খলনায়ক হিসেবে দেখানো, তার নেতৃত্বে যোগ্যতা নাই এক ধরনের একটা কথা প্রচার করতে চায়। এই প্রচারের সঙ্গে কারা যুক্ত হয়েছে যারা বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে, যারা বাংলাদেশের স্বার্থের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে তারাই এই প্রচারগুলোর সঙ্গে জড়িত হয়েছে।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘কুৎসা যতই রচনা করে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে, বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে, বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে- কোনোটাই লাভ হবে না। মামলা করেও লাভ হবে না। ৪০ লাখ মানুষের্ বিরুদ্ধে মামলা দিয়েছে তাতে কি বিএনপিকে ঠেকাতে পেরেছে? ৬০০ নেতাকর্মীকে গুম করেছে তাতে কি ঠেকাতে পেরেছে? কোনো কিছুই ঠেকাতে পারবে না।

উত্তরাঞ্চল ছাত্র ফোরামের উপদেষ্টা, ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ফজলুর রহমান খোকনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আহমেদ আজম খান, চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী অ্যাডভোকেট শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ, বিএনপির মিডিয়া সেলের আহ্বায়ক জহির উদ্দিন স্বপন, সমাজকল্যাণবিষয়ক সম্পাদক কামরুজ্জামান রতন, ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক রকিবুল ইসলাম বকুল, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল খালেক, সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের সদস্যসচিব কাদের গণি চৌধুরী, ছাত্রদলের বর্তমান সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ প্রমুখ বক্তব্য দেন।


আরও খবর



যশোরের শার্শায় যাত্রীবাহী বাস উল্টে আহত ১০

প্রকাশিত:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৫৫জন দেখেছেন

Image

ইয়ানূর রহমান শার্শা,যশোর প্রতিনিধি:যশোর-সাতক্ষীরা মহাসড়কের শার্শার বাগআঁচড়ার বেলতলায় যাত্রীবাহী বাস উল্টে শিশু সহ ১০ জন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে ৩ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে হাসপাতাল সুত্র জানান। বৃহস্পতিবার (২০ জুন) বিকালে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন, খুলনার ৬ জন, ঝিকরগাছা উপজেলার কুলবাড়িয়া গ্রামের ১ জন, দেউলি গ্রামের ২ জন, ও শার্শা উপজেলার বাগুড়ী গ্রামের ১ জন, মোট ১০ জন।

স্থানীয়রা জানায়, সাতক্ষীরা থেকে ছেড়ে আসা সাতক্ষীরা জ-০৪-০০-৭৪ নাং একটি যাত্রীবাহী বাস মিস্ত্রির মোড় নামক স্থানে আসলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সাথে ধাক্কা খেয়ে রাস্তার পাশে উল্টে যায়। পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে বাগআঁচড়ায় একটি বেসরকারি ক্লিনিক জনসভায় ভর্তি করেন। এসময় ৩ জনের অবস্থা আশঙ্কজনক হওয়ায় সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক ওই ৩ জনকে যশোরে রেফার্ড করেন।

কলারোয়া থানার উপ-পরিদর্শক আব্দুর রহমান জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে, এবং দুর্ঘটনার কবলিত বাসটি জব্দ করা হয়েছে। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও জানান তিনি।


আরও খবর



মাগুরায় বিট পুলিশিং অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১২২জন দেখেছেন

Image
স্টাফ রিপোর্টার মাগুরা থেকে:পুলিশ জনতা ঐক করি , স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তুলি এই প্রতিপাদ্য নিয়ে মাগুরায় বাংলাদেশ পুলিশ হেডকোয়ার্টারের কমিউনিটি এন্ড বিট পুলিশিং শাখার উদ্যোগে মাগুরা সদর থানার আয়োজনে  সেবা প্রদান প্রতিশ্রুতি বিষয়ে স্টেকহোল্ডারগণের সমন্বয়ে অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে শনিবার ১ জুন সকালে মাগুরা সদর থানার সম্মেলন কক্ষে সুশাসন প্রতিষ্ঠার নিমিত্তে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেণ মাগুরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মেহেদী রাসেল।

উক্ত মতবিনিময় সভায়  বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ পুলিশ হেডকোয়ার্টারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ রেজাউল ইসলাম, সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ ওয়ালিউল ইসলাম, মাগুরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ কলিমুল্লাহসহ অন্যান্য পুলিশ কর্মকর্তারা।বক্তারা মতবিনিময় সভায় মাদক, ইভটিজিং, জঙ্গীবাদ, গুজব প্রতিরোধ , ডিজিটাল ডিভাইস, মােবাইলের প্রতি আসক্তি, সাইবার ক্রাইম, বাল্য বিবাহ, কিশাের অপরাধ, পারিবারিক সহিংসতা, নারী ও শিশু নির্যাতন, ট্রাফিক ব্যবস্থাপনাসহ, সমসাময়িক বিভিন্ন সমস্যা, আইন-শৃঙ্খলা ও নিরাপত্তা ইস্যুতে সচেতনতামূলক বক্তব্য রাখেন।

এ সময় মাগুরা সদর থানার বিভিন্ন ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধি সহ বিভিন্ন পর্যায়ের শতাধিক ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

আরও খবর



জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে খালেদা জিয়া: মির্জা ফখরুল

প্রকাশিত:রবিবার ২৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৩৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে রয়েছেন,বলেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর । আজকে খালেদা জিয়া অত্যন্ত কষ্ট করছেন। তিনি জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে। সবাই তার জন্য প্রাণখুলে দোয়া করবেন। আল্লাহ যেন তাকে সুস্থ অবস্থায় আমাদের মধ্যে ফিরিয়ে দেন।

রোববার (২৩ জানুয়ারি) নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক দোয়া মাহফিলে এসব কথা বলেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, বর্তমান ফ্যাসিস্ট সরকারের রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় দেশনেত্রী খালেদা জিয়া দীর্ঘকাল ধরে বন্দি রয়েছেন। সম্পূর্ণ মিথ্যা মামলায় তাকে সাজা দিয়ে রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে দিতে কারাগারে আটক রাখা হয়েছিল। তাকে বাসায় থাকতে সুযোগ দেওয়া হলেও তিনি প্রকৃতপক্ষে পুরোপুরি অবরুদ্ধ হয়ে আছেন।

অবরুদ্ধ অবস্থায় খালেদা জিয়া কারাগারে থেকে অসুস্থ হয়েছেন বলে উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, কারাগারে তার কোনও সুচিকিৎসা হয়নি। তখন তিনি বারবার অসুস্থতা নিয়ে কারা কর্তৃপক্ষকে জানালেও তৎকালীন সরকার তা শুনে নাই। তার চিকিৎসা করে নাই। পরবর্তীকালে তাকে যখন হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছে, সেখানেও তার সুচিকিৎসা হয়নি।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার এভার কেয়ার হাসপাতালের মেডিকেল বোর্ড বারবার বলেছেন ম্যাডামের যে অসুখ তার চিকিৎসা এখানে সম্ভব নয়। কারণ তার যে বহু রোগ আছে, সেটার চিকিৎসা করতে হলে উন্নত দেশের উন্নত মাল্টি সেন্টারের প্রয়োজন।

মির্জা ফখরুল আরও বলেন, দলের পক্ষ থেকে, সুশীল সমাজের পক্ষ থেকে, এমনকি বিদেশি মিশনগুলোর পক্ষ থেকে ম্যাডামকে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠাতে বলা হচ্ছে। কিন্তু তাকে চিকিৎসার সুযোগ দেওয়া থেকে বঞ্চিত করে রেখেছে। মুক্তি পেয়ে বাসায় আসার পর তাকে শর্ত দেওয়া হয়েছে তিনি চিকিৎসার জন্য বিদেশে যেতে পারবেন না।


আরও খবর



ভোলায় ফের দেখা মিলল রাসেল ভাইপার, জনমনে আতঙ্ক

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৪৯জন দেখেছেন

Image

শরীফ হোসাইন, ভোলা বিশেষ প্রতিনিধি:ভোলায় ফের দেখা মিলল রাসেল ভাইপারের। বৃহস্পতিবার (২০ জুন) সকালে ভোলা সদর এবং তজুমদ্দিন উপজেলায় দেখা মেলে রাসেল ভাইপারের। পরবর্তীতে স্থানীয় লোকজন লাঠি দিয়ে পিটিয়ে মেরে ফেলে রাসেল ভাইপার গুলো। প্রতিনিয়ত ভোলার বিভিন্ন এলাকায় বিষধর রাসেল ভাইপার দেখা মেলায় স্থানীয় লোকজনের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

জানা গেছে, ভোলা সদর উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের শান্তির হা নামক এলাকার চায়না ইপিজেড সংলগ্ন এলাকায় দেখা মেলে একটি রাসেল ভাইপার। পরবর্তীতে স্থানীয় লোকজন ওই সাপটিকে পিটিয়ে মেরে মাটিতে পুতে ফেলে।

স্থানীয় বাসিন্দা আরিফুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার সকালের দিকে শান্তির হাট এলাকার চায়না ইপিজেড সংলগ্ন নদীর তীরবর্তী এলাকায় রাসেল ভাইপারটিকে স্থানীয় লোকজন দেখতে পায়। ওই সময় স্থানীয় লোকজন সাপটিকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে মেরে মাটিতে পুঁতে ফেলে।

অন্যদিকে তজুমদ্দিন উপজেলায় দেখা গেছে ভয়ঙ্কর বিষধর রাসেল ভাইপার। বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার সোনাপুর ইউনিয়নের কাচারী বাড়ির দরজায় এলাকাবাসী দেখতে পায় রাসেল ভাইপারটি। এ সময় সাপটিকে পিটিয়ে মেরে মাটিচাপা দেন স্থানীয়রা। এতে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন এলাকাবাসী।

এর আগে, বুধবার (১৯ জুন) বিকেলে চাঁদপুর ইউনিয়নের চৌমুহনী ঘাট সংলগ্ন একটি ফসলি জমির খেলার মাঠে বল খেলতে দেখা মেলে সাপটির। স্থানীয় খেলোয়াড়দের সাপটি আক্রমণ করতে আসলে নিজেদের রক্ষা করতে সাপটিকে মেরে ফেলেন। পরে পলিথিন পেঁচিয়ে সাপটিকে মাটির নিচে পুঁতে রাখেন।

রায়হান নামে এক খেলোয়াড় বলেন, বিভিন্ন সময় ফেসবুকে রাসেল ভাইপার সাপ দেখেছি। এবার বাস্তবে ফসলি জমিতে ফুটবল খেলতে গিয়ে সাপটিকে নিজ চোখে দেখলাম। পরে সাপটির ছবি তুলে ইন্টারনেটের মাধ্যমে শনাক্ত করি যে সাপটি বিষাক্ত রাসেল ভাইপার। সাপটি দেখে আমি আতঙ্কিত হয়ে পড়ি।আরো জানা গেছে, বাংলাদেশে বর্তমানে যেসব সাপ দেখা যায় সেগুলোর মধ্যে রাসেল ভাইপার সবচেয়ে বিষাক্ত। এই সাপের কামড়ে শরীরের দংশিত অংশে বিষ ছড়িয়ে অঙ্গহানি, ক্রমাগত রক্তপাত, রক্ত জমাট বাঁধা, স্নায়ু বৈকল্য, চোখ নষ্ট হয়ে যাওয়া, পক্ষাঘাত ও কিডনির ক্ষতিসহ বিভিন্ন ধরনের শারীরিক উপসর্গ দেখা দেয়।

তজুমদ্দিন উপজেলার শশীগঞ্জ বনবিভাগের বিট অফিসার গাজী মোহাম্মদ আবুল বাশার বলেন, রাসেল ভাইপার সাপ লোকালয়ে সাধারণত খুব কমই দেখা যায়। বাচ্চা দেওয়ার কারণে হয়তো ওই সাপটি লোকালয়ে চলে এসেছে। তবে সবাইকে এ বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।


আরও খবর



শেষ ধাপে নওগাঁয় উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন যারা

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৭ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৮৫জন দেখেছেন

Image

এম এম হারুন আল রশীদ হীরা; নওগাঁ:শেষ ধাপে নওগাঁর তিনটি উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভোট গণনা শেষে বুধবার রাতে ভোটের ফলাফল ঘোষণা করা হয়। প্রাপ্ত ফলাফলের ভিত্তিতে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন নওগাঁ সদর উপজেলায় উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মাহবুবুল হক কমল,  মান্দা উপজেলায় আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক  তোফাজ্জল হোসেন তোফা এবং  মহাদেবপুর উপজেলা ছাত্র ও যুবলীগের সাবেক নেতা মাসুদুর রহমান মাসুদ, বেসরকারিভাবে তাদের বিজয়ী ফলাফল ঘোষণা করেন স্ব স্ব উপজেলা সহকারী রিটার্নিং ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাগণ।

নওগাঁ সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি  মাহবুবুল হক কমল আনারস প্রতিকে ৪১হাজার ১৮৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রফিক ঘোড়া প্রতিকে পেয়েছেন ২৯ হাজার ৩৭ভোট, মান্দা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক  তোফাজ্জল হোসেন তোফা হেলিকপ্টার প্রতিকে ২৪ হাজার ৮৪৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ডা: মাহফুজুর রহমান নয়ন আনারস প্রতিকে পেয়েছেন ২৪ হাজার ২২১ ভোট। মাত্র ৬শত ২৮ ভোটের ব্যবধানে এ উপজেলায় বিজয়ী হয়েছেন তোফা। এবং মহাদেবপুর উপজেলা ছাত্র ও যুবলীগের সাবেক নেতা মাসুদুর রহমান মাসুদ আনারস প্রতিকে ৪১হাজার ৮৫৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মরহুম আহসান হাবিব ভোদনের সহধর্মিণী আয়েশা বেগম দোয়াত কলম প্রতিকে পেয়েছেন ২৭হাজার ৩৫ ভোট।

গতরাতে জেলা প্রশাসকের মিডিয়া সেলে এক বার্তার মাধ্যমে জেলা প্রশাসক গোলাম মওলা জানান, নওগাঁ সদরে ভোট পড়েছে ২০ দশমিক ৭৯ শতাংশ, মান্দায় ২৭ দশমিক ১৯ শতাংশ এবং  মহাদেবপুরে ৩৭ দশমিক ১০ শতাংশ।


আরও খবর