Logo
আজঃ মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪
শিরোনাম

সুনামগঞ্জ সীমান্তে ২৭জনের বিরুদ্ধে মামলা: মদসহ গ্রেফতার ২

প্রকাশিত:সোমবার ২৭ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪ | ২৮৫জন দেখেছেন

Image

মোজাম্মেল আলম সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের বিভিন্ন সীমান্তে ঈদকে সামনে রেখে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে চোরাকারবারীরা। একাধিক মামলার আসামীরা সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে প্রতিদিন ভারত থেকে কয়লা, পাথর, পান-সুপারী, বিড়ি, চিনি, কাঠ, মদ-গাঁজা, ছাগল, গরু, মহিষ ও ইয়াবাসহ অস্ত্র পাচাঁর করছে। আর এসব অবৈধ মালামাল আটক করতে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছে বিজিবি সদস্যরা। রক্ষা পা”েছনা সাংবাদিক ও সচেতন জনগণ। 

পুলিশ, বিজিবি ও মামলা সূত্রে জানা গেছে- গত শনিবার (২৫ মার্চ) রাত ৮টায় জেলার দোয়ারাবাজার উপজেলার নরশিংপুর ইউনিয়নের চাটুরপাড় গ্রামে পুলিশ অভিযান চালিয়ে মাদক ব্যবসায়ী বিল্লাল হোসেন (২৮) ও ইয়াছিন (২৭)কে ৬০বোতল ভারতীয় মদসহ গ্রেফতার করেছে। অন্যদিকে এউপজেলার মৌলারপাড় সীমান্ত এলাকা দিয়ে চোরাকারবারীরা ভারত থেকে বিভিন্ন প্রকার মাদকদ্রব্যসহ মহিষ পাচাঁর করার সময় বাংলাবাজার ক্যাম্পের বিজিবি সদস্যরা অভিযান চালিয়ে ২টি মহিষ আটক করে। পরে সেই মহিষ ক্যাম্পে নিয়ে যাওয়ার সময় চোরাকারবারীরা দেশীয় অস্ত্র সস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। ওই সময় আত্মরক্ষার্থে বিজিবি ৩রাউন্ড ফাঁকা গুলি করলে চোরাকারবারীরা পালিয়ে যায়। এঘটনার প্রেক্ষিতে গতকাল রবিবার (২৬ মার্চ) রাতে বাংলাবাজার বিজিবি ক্যাম্পের হাবিলদার মনোয়ার পারভেজ বাদী হয়ে ১২জনের নাম উল্লেখ্যসহ আরো ২৫জনকে অজ্ঞাত আসামী দিয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। অপরদিকে গত শনিবার (১৮ মার্চ) ভোরে জেলার তাহিরপুর উপজেলার বালিয়াঘাট বিজিবি ক্যাম্পের সামনে অব¯ি’ত দুধের আউটা গ্রামের সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সামনে পাটলাই নদীতে চোরাকারবারী ও সোর্সদের গডফাদার হাবিব সারোয়ার আজাদের (তোতলা আজাদ) নেতৃত্বে ১টি ইঞ্জিনের নৌকায় প্রায় ১শত মেঃটন চোরাই কয়লা বোঝাই করছিল সোর্স জিয়াউর রহমান জিয়াগং। এখবর পেয়ে টেকেরঘাট ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার ইয়াহিয়া খান অভিযান চালিয়ে অবৈধ কয়লার নৌকা আটক করার পর গডফাদার তোতলা আজাদ ও তার বাহিনীর তোপের মুখে পড়ে। এরপর সকাল ৮টায় আটককৃত সেই অবৈধ কয়লা বোঝাই নৌকা ছেড়ে দেওয়া হয় বৈধ কয়লা বলে। আর এই এঘটনাটি তাৎক্ষনিক ভাবে জানাজানি হলে পুরো সীমান্ত এলাকা জুড়ে সমালোচনার ঝড় উঠে। এরপর থেকে কোন প্রকার বাঁধা ছাড়াই ওপেন চোরাই কয়লা পাচাঁর হ”েছ। শুধু তাই নয়, এর আগে উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের ঘাগটিয়া আদর্শ গ্রাম সংলগ্ন সীমান্তের যাদুকাটা নদীর তীর কেটে অবৈধ ভাবে বালি বিক্রি ও মৃত্যুপুরী নামক কোয়ারী তৈরি করে পাথর উত্তোলনের সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে, উপজেলা প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি ও দৈনিক সংবাদ এর তাহিরপুর প্রতিনিধি কামাল হোসেন রাফিকে গাছের সাথে বেঁধে নির্যাতন করে গডফাদার তোতলা আজাদ ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী। এঘটনায় দায়েরকৃত মামলা এখনও আদালতে চলমান রয়েছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে- জেলার তাহিরপুর উপজেলার কামড়াবন্দ গ্রামের মৃত বদ মিয়ার ছেলে তোতলা আজাদ সীমান্ত চোরাচালান ও চাঁদাবাজি করে ইতিমধ্যে হয়েগেছে কোটিপতি। তার নিজ গ্রামে নির্মাণ করেছে বিলাস বহুলবাড়ি। আর সেই বাড়ির অন্দর মহলে বসে সোর্স নিয়োগ করে নিয়ন্ত্রণ করছে সীমান্ত চোরাচালান ও চাঁদাবাজি। সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক থেকে শুরু করে নেত্রকোনা জেলার কলমাকান্দা পর্যন্ত বিস্তৃত তার নের্টওয়াক। এজন্য ক্রয় করেছে অর্ধশতাধিক মোটর সাইকেল। এসব গাড়ি দিয়ে বিভিন্ন জায়গায় পরিবহন করা হয় মাদকদ্রব্য। তবে সুনামগঞ্জে পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান ও তাহিরপুর থানায় ওসি নন্দন ও আব্দুল লতিফ তরফদার কর্মরত থাকাকালীন সময়ে সীমান্ত এলাকাসহ বিভিন্ন ¯’ানে পৃথক অভিযান চালিয়ে তোতলা আজাদ ও তার সোর্সেদের চোরাই কয়লা ও মাদক বোঝাই নৌকাসহ অনেককে আটক করেছে পুলিশ। এছাড়াও টেকেরঘাট মসজিদের তালা ভেঙ্গে মোটর সাইকেল নিয়ে ভারতে পালানোর সময় আজাদের ছেলে কিশোর গ্যাংলিডার শিহাব সারোয়ার শিপুকে সীমান্তের বীরেন্দ্রনগর ক্যাম্পের বিজিবি সদস্যরা হাতেনাতে আটক করে এবং ইয়াবাসহ গডফাদার আজাদকে এলাকাবাসী গনধৌলাই দিয়ে থানায় সোপর্দ করেছিল। তাছাড়া এলাকার ভোক্তভোগীরা থানা ও আদালতে ওই গডফাদারের বিরুদ্ধে দায়ের করেছে একাধিক চাঁদাবাজি মামলা। 

এব্যাপারে বালিয়াঘাট সীমান্তের লাকমা পশ্চিমপাড় গ্রামের চোরাই কয়লা ব্যবসায়ী মানিক মিয়া বলেন- আজাদ ভাই সবাইকে ম্যানেজ করে সোর্স দিয়ে সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করছে। আমরা তাকে চাঁদা না দিয়ে কিছু করতে পারিনা। নেত্রকোনা জেলার কলমাকান্দা থেকে সুনামগঞ্জ পর্যন্ত সব জায়গায় তার লোক আছে। তাকে সবাই বাঘের মতো ভয় পায়। চারাগাঁও সীমান্তের লালঘাট গ্রামের চোরাই কয়লা ব্যবসায়ী ও একাধিক চোরাচালান মামলার আসামী খোকন মিয়া বলেন- আমার বিরুদ্ধে কয়লা চোরাচালান মামলা হওয়ার পর নেত্রকোনা জেলার কলমাকান্দা থানার সামনে অব¯ি’ত মনতলা ডিপুতে গিয়ে ব্যবসা শুরু করি। সেখানে ক্ষতিগ্র¯’ হয়ে বর্তমানে আমি এলাকায় আছি এবং সবার সাথে চোরাই কয়লা সংগ্রহ করি। তবে আমি যা করি সোর্সদের মাধ্যমে আজাদ ভাইসহ সবাইকে চাঁদা দিয়েই করি। এই চোরাই কয়লার ব্যবসা আরো অনেকেই করছে কিš‘ তাদের বিরুদ্ধে কোন মামলা হয়না। চারাগাঁও ক্যাম্পের সামনে অব¯ি’ত এনামুল, বাবুল মিয়া, রাজ্জাক মিয়া, মঙ্গল মিয়া ও ফরিদ মিয়ার বসতবাড়িসহ জঙ্গলবাড়ি, এলসি পয়েন্ট, লালঘাট এলাকায় রফ মিয়া, রিপন মিয়া, লেংড়া জামাল, বালিয়াঘাট সীমান্তের দুধের আউটা, লাকমা  গ্রামে সোর্স জিয়াউর রহমান জিয়া, ইয়াবা কালাম মিয়া, রতন মহলদারগং শতশত মেঃটন চোরাই কয়লা, চিনি ও মাদকদ্রব্য পাচাঁর করে বাড়িঘরের ভিতরে মজুত রেখে ওপেন ব্যবসা করছে। 

এব্যাপারে তাহিরপুর সীমান্তের টেকেরঘাট কোম্পানীর বিজিবি কমান্ডার ইয়াহিয়া খান বলেন- বিএসএফের গুলিতে ১জনের মৃত্যু হওয়ার পর আমি টেকেরঘাট যোগদান করে চোরাচালান অনেক নিয়ন্ত্রণে রেখেছিলাম। কিš‘ আমি বনগাঁও সীমান্ত ক্যাম্পে বদলী হয়েগেছি। দোয়ারাবাজার থানার ওসি দেবদুলাল ধর সাংবাদিকদের বলেন- বিজিবির ওপর হামলার ঘটনায় দায়েরকৃত অভিযোগের অভিযুক্ত চোরাকারবারীদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান চলছে। সুনামগঞ্জ ২৮ ব্যাটালিয়নের বিজিবি অধিনায়ক মাহবুবুর রহমান বলেন- বিজিবির ওপর চোরাকারবারীদের হামলার ঘটনাটি জানতে পেরেছি, দোয়ারাবাজার উপজেলার বাংলাবাজার সীমান্ত সিলেট জোনের অংশ, তবে সীমান্ত চোরাচালান ও চাঁদাবাজি প্রতিরোধ করার জন্য আমরা নিয়মিত কাজ করছি।   

       




আরও খবর



শার্শা থানা পুলিশের পৃথক অভিযানে ৩৮ কেজি গাঁজা সহ আটক ১

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ এপ্রিল 2০২4 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪ | ১১২জন দেখেছেন

Image

ইয়ানূর রহমান শার্শা,যশোর প্রতিনিধি:শার্শা থানা পুলিশের পৃথক দুটি অভিযানে ৩৮ কেজি গাঁজা সহ আয়না মতি (৪০) নামে এক নারী মাদক চোরাকারবারী আটক হয়েছে। রোববার দিনগত (৩১ মার্চ) গভীর রাতে উপজেলার হরিনাপোতা গ্রামে এ অভিযান পরিচালনা করে তাকে আটক করা হয়। আটককৃত আয়না মতি মৃত আব্দুল আলীমের স্ত্রী।

পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলা লক্ষনপুর ইউনিয়ানে দুটি অভিযান পরিচালনা করে আয়না মতি নামে এক জনকে আটক করা হয়েছে। এ সময় তার বসত বাড়ীর পশ্চিম পাশে গোয়াল ঘরেথেকে বিশ কেজি গাঁজা উদ্ধার করা হয়।

অপর এক অভিযানে হরিনাপোতা গ্রামের পলাতক আসামী মুনসুর হোসেনের বাড়ীর পিছনে টয়লেটের সেপ্টি টেংকি তল্লাশী করে ১৮ কেজি গাঁজা উদ্ধার করা হয়। এসময় মুনসুর হোসেন সহ তার সহযোগীরা পালিয়ে যায়।

শার্শা থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ মনিরুজ্জামান (বি পি এম) বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে লক্ষনপুর ইউনিয়নে অভিযান চালিয়ে ৩৮ কেজি গাঁজা উদ্ধার করা হয়। এসময় এক নারী মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়েছে। এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।


আরও খবর



কালিয়াকৈরে হঠাৎ ঝড়-শিলাবৃষ্টি একরাতে তছনছ গ্রামের পর গ্রাম

প্রকাশিত:রবিবার ২৪ মার্চ 20২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ এপ্রিল ২০২৪ | ১৬৫জন দেখেছেন

Image

সাগর আহম্মেদ,কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি;গাজীপুরের কালিয়াকৈরে শনিবার রাতে হঠাৎ দুই দফায় ঝড়ো হাওয়া ও ভয়াবহ শিলাবৃষ্টিতে এক রাতে তছনছ হয়ে গেছে গ্রামের পর গ্রাম। বাড়িঘর ও গবাদি পশু রাখার ঘরের টিনের চাল ফুটো হওয়ায় বিপদগ্রস্থ ও দিশেহারা হয়ে পড়েছে মানুষ।

অপরদিকে আম ও লিচুর মকুল, কাঁঠাল, মাঠের বোরো ধান, কলাবাগানসহ মৌসুমী ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এতে গ্রামের পর গ্রামের কৃষকের মাথায় হাত। তবে কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

এলাকাবাসী ও ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার সূত্রে জানা গেছে, কালিয়াকৈর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় শনিবার রাতে হঠাৎ দুই দফায় ঝড়ো হওয়া ও ব্যাপক শিলাবৃৃষ্টি হয়েছে। গত শনিবার তারাবির নামাজ ও রাতের খাবার শেষে ঘুমিয়ে পড়েন গ্রামাঞ্চলের বেশিরভাগ মানুষ। রাত পৌনে ১০টার দিকে শুরু হয় ঝড়ো হওয়া ও ব্যাপক শিলাবৃষ্টি। আবারও রাত ১টার দিকে আঘাত হানে ঝড়ো হাওয়া ও ব্যাপক শিলাবৃষ্টি। বসত-ঘরের টিনের চালা ফুটো হয়ে ঘরের ভেতরে ঢুকে পড়ে ছোট-বড় শিলা। এর সঙ্গে ছিল বৃষ্টির পানিও। আতকে উঠেন ঘুমন্ত মানুষ। মুহুর্তের মধ্যে বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়ে বাড়িঘর, ছড়িয়ে পড়ে আতঙ্ক। কেউ কেউ ঘরের চৌকি, আবার কেউ কেউ টেবিলসহ বিভিন্ন আসবাবপত্রের নিচে আশ্রয় নেন। নষ্ট হয়ে গেছে বৈদ্যুতিক লাইন, ঘরের আসবাবপত্রসহ বিভিন্ন মালামাল। এ অবস্থায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির মুখে পড়ে দিশেহারা হয়ে পড়েন গ্রামের পর গ্রামের মানুষ। দুই দফায় ঝড় ও শিলাবৃষ্টির আঘাতের কবলে পড়ে উপজেলার বহেড়াতলী, গাছবাড়ী, সোনাতলা, কাথাচুড়া, চাবাগান, ঠেঙ্গারবান্দ, বোয়ালী, বর্মণপাড়া, ফুলবাড়িয়া, পাবুরিয়াচালা, বড়ইবাড়ী, কুটামনি, ডাকুরাইল, কোন্দাঘাটা, পিপড়াসিট, গোলুয়া, ঢোলসমুদ্রসহ বিভিন্ন গ্রাম। এই ঝড় ও ভয়াবহ শিলা বৃষ্টির কবলে পড়ে এসব গ্রামের গরু রাখার ঘর ও গবাদি পশুও। শুধু তাই নয়, ভয়াবহ শিলাবৃষ্টিতে আম ও লিচুর মকুল, কাঁঠাল, মৎস্য খামার, মাঠের বোরো ধান, কলাবাগানসহ মৌসুমী ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এতে গ্রামের পর গ্রামের কৃষকের মাথায় হাত বলেও জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

তাদের অভিযোগ, কৃষকের এমন অবস্থায়ও কোনো খোঁজ-খবর রাখেনি উপজেলা কৃষি কর্মকর্তারা। অপরদিকে এই ঝড় ও শিলাবৃষ্টির পর থেকে বৈদ্যুতিক লাইন ত্রুটি হয়ে বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছে এসব গ্রাম। ফলে বন্ধ রয়েছে রাইস মিল, মশলা গুড়ার মেশিন, ফ্রিজ, অনেকের মোবাইল ফোনসহ বৈদ্যুতিক ব্যবহার্য জিনিসপত্র।

ঠেঙ্গারবান্দ এলাকার সাংবাদিক ইমারত হোসেন জানান, হঠাৎ করে রাতে দুই দফায় ঝড় ও ভয়াবহ শিলাবৃষ্টি হয়েছে। এতে আমার ৮০ হাত ঘরের টিনের চাল নষ্ট হয়ে গেছে। শুধু আমার নয় গ্রামের বিভিন্ন লোকের ঘরের চালা ফুটো হয়ে নষ্ট হয়ে গেছে।

সম্পূর্ণ টিনের চাল বদলাতে হবে। টিন না বদলালে কোনো লোক তাদের ঘরে বসবাস করতে পারবেন না। তবে এই শিলাবৃষ্টিতে জনগণের লক্ষ লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধন হয়েছে। স্থানীয় এক ইউপি সদস্য মহসিন মিয়া বলেন, ভয়াবহ শিলাবৃষ্টি হয়েছে। মাটিতে শিলার স্তুপ জমে গিয়েছিল। এরকম শিলা বৃষ্টি এর আগে কখনো দেখি নাই। অপর ইউপি সদস্য মফিজ উদ্দিন মোল্লা বলেন, অতিরিক্ত শিলাবৃষ্টিতে কিছু কিছু গ্রামে ঘরের টিনের চাল ঝাজড়া হয়ে গেছে। এছাড়াও গ্রামের পর গ্রামের মাঠের ফসল নষ্ট হয়ে কৃষকের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তবে মৎস্য খামারীরাও ক্ষয়ক্ষতির মুখে পড়বে।

এব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম জানান, আমাদের সুপাভাইজাররা জানিয়েছে ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে সব গ্রামের কৃষকের খুব ক্ষতি হয়নি। কিন্তু চাবাগান গ্রামে কিছু ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তবে ব্যাপক ক্ষতি হয়নি।


আরও খবর



ব্যাংক পরিদর্শনে বান্দরবান যাচ্ছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৫ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪ | ৬০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ব্যাংক ডাকাতির ঘটনার ৪ দিন পর বান্দরবান যাচ্ছেন । শনিবার (৬ এপ্রিল) বেলা ১১টায় রুমা উপজেলা কমপ্লেক্স এবং ব্যাংক পরিদর্শন করবেন তিনি।

এসময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে থাকবেন বান্দরবান ও রাঙ্গামাটির সংসদ সদস্য, বান্দরবান জেলা প্রশাসক এবং পুলিশ সুপার (এসপি)

ব্যাংক পরিদর্শন শেষে বেলা সাড়ে ১২টায় বান্দরবান সার্কিট হাউসে মতবিনিময় এবং সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলবেন তিনি।

প্রসঙ্গত, গত মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) বান্দরবানের রুমা উপজেলা কমপ্লেক্সের মসজিদ ঘেরাও করে ব্যাংক কর্মকর্তা নেজাম উদ্দিনকে তুলে নিয়ে যায় এবং ব্যাংকে তাণ্ডব চালায় বিচ্ছিন্নবাদী সংগঠন কুকি-চিন (কেএনএফ)। পরদিন বুধবার (৩ এপ্রিল) থানচি বাজার ঘেরাও করে সোনালী ও কৃষি ব্যাংকের দুটি শাখা তছনছ করে এবং ব্যাংকের কাউন্টার ও উপস্থিত ব্যক্তিদের কাছ থেকে ১৭ লাখ ৪৫ হাজার টাকা লুট করে নিয়ে যায়।

অপহৃত ম্যানেজার নেজাম উদ্দীনকে বৃহস্পতিবার (৪ এপ্রিল) সন্ধ্যায় বান্দরবানের পাহাড়ি এলাকা থেকে উদ্ধার করা হয়। এরপর আজ তাকে পরিবারের হাতে হস্তান্তর করে র‌্যাব।


আরও খবর



৫টি চোরাই মোটরসাইকেল সহ চোর চক্রের ৫ সদস্য গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:বুধবার ২৭ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪ | ১১৫জন দেখেছেন

Image

ইয়ানূর রহমান শার্শা,যশোর প্রতিনিধি:যশোর জেলা ডিবি পুলিশের অভিযানে আন্তজেলা মোটরসাইকেল চোর চক্রের ৫ সদস্যকে ৫টি চোরাই মোটরসাইকেলসহ আটক করা হয়েছে। (২৫শে মার্চ) রোববার দিবাগত গভীর রাতে, জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশের একটি টিম গোপন সংবাদ ও তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে, মাগুরা জেলার মোহাম্মদপুর নেপালের মোড় এলাকায়, সেলিম মোল্যা (২৮) এর বাড়ীতে অভিযান চালিয়ে ৩টি মোটরসাইকেলসহ তাকে গ্রেফতার করেন। সে ওই এলাকার মাইজপাড়া গ্রামের মৃত হাবিল মোল্লার ছেলে। পরে তার স্বীকারোক্তিতে আরো চারজনকে দু’টি মোটরসাইকেল সহ আটক করেন।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, মাগুরা যশপুর গ্রামের আজিজার রহমান সর্দারের ছেলের আঃ রহমান সরদার(২৫), মাগুরা মোহাম্মদপুর উপজেলার আউনাড়া মধ্যপাড়া গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে আল -আমিন(২৩), মাগুরা শ্রীপুর উপজেলার মৃত চাঁদ আলী মোল্লার ছেলে শিবলু মোল্যা (৪২), কুষ্টিয়া জেলার মিরপুর উপজেলার গড়দাহ খালপাড়া এলাকা অভিযান চালিয়ে মৃত মইনুদ্দিন ফকিরের ছেলে হাসান ফকির(৪২) কে গ্রেপ্তার করেন।

যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশের অফিসার ইনচার্জ রুপণ কুমার বলেন, গ্রেফতারকৃতরা আন্তজেলা মোটরসাইকেল চোর চক্রের সদস্য। তারা দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন জেলায় মোটরসাইকেল চুরি করে আসছিলো। তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় গত দুই দিনে মাগুরা জেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের আদালতে হস্তান্তর করা হয়েছে।


আরও খবর



শাকিব খান এবার হাজির আমেরিকান মডেল নিয়ে

প্রকাশিত:রবিবার ০৭ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪ | ৮৬জন দেখেছেন

Image

বিনোদন প্রতিনিধি;ঈদুল ফিতরে মুক্তি পেতে যাচ্ছে শাকিব খান অভিনীত ‘রাজকুমার’ ছবিটি। এতে তার নায়িকা একজন মার্কিন নারী। যার নাম কোর্টনি কফি। এবার আরেক স্বনামধন্য মার্কিন মডেল ও অভিনেত্রীর সঙ্গে শাকিব খানের একটি ছবি ঘুরছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

জানা যায়, মার্কিন মডেল কেলসি নটেজের সঙ্গে জুটি বেঁধে নতুন একটি বিজ্ঞাপনচিত্রে অংশ নিয়েছেন চিত্রনায়ক শাকিব খান। শুটিং করেছেন বাহামা দ্বীপপুঞ্জের নাসাউতে। এটি শাকিবের নিজের কোম্পানি রিমার্ক-হারল্যানের ব্র্যান্ড লিলির বিজ্ঞাপন।

বিজ্ঞাপন প্রসঙ্গে রিমার্ক এইচবির অপারেটিভ ডিরেকটর হাসান ফারুক বলেন, ‘কেভস বিচ, কোরাল হারবার, ওশেন ক্লাব ও রক পয়েন্টের মতো দৃষ্টিনন্দন ও বৈচিত্র্যময় স্পটে শাকিব খান, কেলসি ও অন্যান্য আমেরিকান কলাকুশলীদের নিয়ে চিত্রায়িত করা হয়েছে বিজ্ঞাপনটি। লিলির সৌন্দর্যবর্ধনকারী পণ্য সমূহের গুণাবলি তুলে ধরার পাশাপাশি এই বিজ্ঞাপনটির মাধ্যমে দেশীয় শিল্পীদের সঙ্গে আমেরিকান আর্টিস্টদের এক অভূতপূর্ব পারফরম্যান্সের সমন্বয় ঘটানো হয়েছে।’

উল্লেখ্য, রিমার্কের সঙ্গে এর আগে অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান, চিত্রনায়িকা পরীমনি, অপু বিশ্বাস, বিদ্যা সিনহা মিম, নুসরাত ফারিয়া ও চিত্রনায়ক মামনুন হাসান ইমন।


আরও খবর