Logo
আজঃ শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪
শিরোনাম

ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় সকলের নজর কাটছে এক কোটি টাকার খাট

প্রকাশিত:সোমবার ০৯ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৮১০জন দেখেছেন

Image

স্টাফ রিপোর্টারঃ মোঃআবু কাওছার মিঠু 

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার ২৭তম আসর বসেছে পূর্বাচলের ৪নং সেক্টরের বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ-চায়না ফ্রেন্ডশিপ এক্সিবিশন সেন্টারে এবারের মেলায় দৃষ্টি কাড়ছে কোটি টাকার পরী পালং খাট।  খাটের চার কোণে পায়া থাকার কথা সেখানে শোভা পাচ্ছে ডানা মেলে দাঁড়ানো অবস্থায় চারটি কাঠের তৈরি পরী। সেই পরীদের ডান হতে রয়েছে আবার প্রজাপতি। ওই চারটি পরীর মাথার ওপর থেকে পরষ্পরের সঙ্গে সংযুক্ত কাঠের ফ্রেম। খাটের চারপাশজুড়ে ছোট ছোট পরী এবং দৃষ্টিনন্দন নকশা।


যদি কোনো রাজা মহারাজা থাকতেন তবে দৃষ্টিনন্দন ওই খাটের দিকে তাদের নজর আটকে যেতো। রাজার শোয়ার ঘরেই শোভা পেতো খাটটি। তা যত দামই হোক না কেন।


সেগুন গাছ দিয়ে সম্পূর্ণ হাতে খোদাই করে বানানো রাজকীয় ওই খাট। যা নজর কাড়ছে খাগড়াছড়িবাসীর। খাগড়াছড়ির গুইমারা ইউনিয়নের মুসলিমপাড়া এলাকার বাসিন্দা কাঠমিস্ত্রি মো. আবু বক্কর (৩৫) খাটটি তৈরি করেছেন। সম্প্রতি পরী পালং খাটটির ছবি সামাজিক যোগোযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যায় খাটটি। সেটির কথা আন্তর্জাতিক বানিজ্য মেলায় ছড়িয়ে পড়লে তা দেখার জন্য ভিড় করছেন।

এ খাটটি বানিয়েছেন জেলা গুইমারা উপজেলা মো. নুরন্নবী। মূলত শখের বসে কাঠমিস্ত্রি আবু বক্করকে দিয়ে কাঠটি বানিয়েছেন তিনি।


তার দাবি, কাঠের খাটটি বানাতে তার খরচ হয়েছে ৪০ লাখ টাকা। পারিশ্রমিক বাবদ দেওয়া হয়েছে ৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা। আর খাটটি তৈরিতে সময় লেগেছে ৩ বছরেরও বেশি। জানা যায়, ২০১৭ সালে নুরন্নবী নিজের শখের কথা স্থানীয় কাঠমিস্ত্রি আবু বক্করকে জানান। তারপর শুরু হয় কর্মযজ্ঞ। সম্পূর্ণ নিজের ডিজাইনে হাতে খোদাই করে সেগুন গাছের রাজকীয় খাটটি তৈরি করে। কাঠ তৈরিতে বিভিন্ন সময় অন্য শ্রমিকদের সহযোগিতা নেয় আবু বক্কর। প্রায় ৩ বছর ৩ মাস ধরে চলে এই কাজ।


কাঠ তৈরিতে প্রয়োজন হয়েছে প্রায় ১শ ফুট সেগুন গাছ। পুরো খাটজুড়ে রয়েছে খোদায় করা নকশা। বড় চারটি পরী ছাড়াও খাটটির পায়ের পাখা, জলম এবং বক্সের অংশে রয়েছে ছোট বড় আরও ১২টি পরী সদৃশ্য। সর্বশেষ গত ১৬ মার্চ খাটটি তৈরি শেষে নুরন্নবীকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়। আবু বক্করও কিশোর বয়সে কাঠের শ্রমিক হিসেবে কাজ শুরু করে। তারপর দেশের বিভিন্ন জায়গায় কাজ করার অভিজ্ঞতা নিয়ে এখন গুইমারাতে কাঠমিস্ত্রি হয়ে কাজ করছেন তিনি।


ফাতেমা এন্টার প্রাইজের সতাধিকারী মোঃ নূরন্নবী জানান,শখের বসে খাটটি বানিয়েছি। সম্পূর্ণ হাতে খোদায় করে পরী পালং খাটটি বানানো। বানিজ্য মেলায় এখন প্রতিদিন বিভিন্ন জায়গা থেকে উৎসুক লোকজন খাটটি দেখতে আসছেন। এমন খাট আর একটাও নেই বললে চলে। ইতোমধ্যে ঢাকার এক ব্যক্তি ৭০ লাখ টাকা বলেছেন। আমি এক কোটি হলে খাটটি বিক্রি করবো। ঢাকার আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলায় খাটটি বিক্রির জন্য এনেছি।


পরী পালং খাটটি যিনি নিবেন তার জন্য উপহার হিসেবে থাকবে এফজেট নতুন ভার্সন হোন্ডা এবং এক ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার।

-খবর প্রতিদিন/ সি.বা


আরও খবর

আজ বইমেলা শুরু হচ্ছে

বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




সৎকর্মের মধ্য দিয়ে আমরা মৃত্যুর পরও মানুষের মধ্যে বেঁচে থাকবো: হুইপ ইকবালুর রহিম

প্রকাশিত:শনিবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ১০৯জন দেখেছেন

Image

দিনাজপুর প্রতিনিধি:জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি বলেন, শ্রী শ্রী অনুকুল ঠাকুর ১৩৬ বছরেও আমাদের মাঝে বেচে আছেন তার সৎ কর্মের জন্য, তার ভাল কথার জন্য, সৎ গুণের জন্য এবং মানুষকে জ্ঞানের আলোয়, সততার আলোয় আলোকিত করেছেন বলেই। আমরা শ্রী শ্রী অনুকুল ঠাকুরের জন্মবার্ষিতে শপথ নেই আমরা সৎভাবে জীবনযাপন করবো। সৎসঙ্গ লাভের মধ্য দিয়ে সৎপথে পরিচালিত হওয়ার চেষ্টা করবো। আমাদের মধ্যে প্রেম জাগ্রত করে আমাদের পৃথিবীতে হানাহানি বন্ধ করে প্রেমময় বিশ্ব গড়ে তুলবো।সমাজে যে হিংসা বিদ্বেস দুর করবো। সৎ কর্মের মধ্যে আমরা মৃত্যুর পরও মানুষের মধ্যে বেঁচে থাকবো। তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের অসম্প্রদায়িক চেতনার আলোকে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে একটি অসম্প্রদায়িক সুখী সমৃদ্ধ উন্নত আধুনিক স্মার্ট গড়ে তুলবো।

শুক্রবার যুগ পুরুষোত্তম পরমপ্রেমময় শ্রী শ্রী ঠাকুর অনুকূল চন্দ্রের ১৩৬তম জন্মবার্ষিকীর মহোৎসব উপলক্ষে দিনাজপুর সদরের গোপালগঞ্জস্থ সৎসঙ্গ বিহার শ্রীমন্দির প্রাঙ্গনে মন্দির পরিচালনা কমিটি, উৎসব উদযাপন কমিটি, পাঞ্জাধারী ও স্থানীয় সকল ভক্তবৃন্দের সার্বিক সহযোগিতায় সাধারণ ধর্মসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এসব কথা বলেন।

সৎসঙ্গ বিহার মন্দির পরিচালনা কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শ্রী ধরনী কুমার রায়ের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন বিশেষ অতিথি দিনাজপুর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ মমিনুল করীম, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ ইমদাদ সরকার, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফয়সাল রায়হান, দিনাজপুর হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি সুনীল চক্রবর্তী, সাধারন সম্পাদক রতন সিং, সহ-প্রতিঋত্বিক শ্রী ভবদীশ ব্যানাজী, সহ-প্রতিঋত্বিক শ্রী ক্ষিতিশ চন্দ্র শীল প্রমুখ।আলোচক ছিলেন সহ-প্রতিঋত্বিক খুলনার শ্রী অজয় সরকার, সহ-প্রতিঋত্বিক গাইবান্ধার শ্রী নিমাই চন্দ্র বর্মন। আলোচ্য বিষয় ছিল-পরম প্রেমময় শ্রী শ্রী ঠাকুর অনুকূল চন্দ্রের দিব্য জীবন ও বাণী।এ ছাড়াও বক্তব্য রাখেন মন্দির পরিচালনা কমিটি, উৎসব উদযাপন কমিটি, পাঞ্জাধারী ও স্থানীয় সকল ভক্তবৃন্দের নেতৃবৃন্দ।


আরও খবর

মির্জা আব্বাস কারামুক্ত হলেন

সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




মাগুরায় বিএনপির কালো পতাকা মিছিলে পুলিশের বাঁধা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৭৬জন দেখেছেন

Image

স্টাফ রিপোর্টার মাগুরা থেকে:কেন্দ্রীয় কর্মসুচির আওতায় মাগুরা জেলা বিএনপির কালো পতাকা মিছিল বের করার চেষ্টা করলে পুলিশ বাঁধা দেয় এবং অফিস ঘিরে রাখে।   মঙ্গলবার সকালে জেলা বিএনপির ইসলামপুর পাড়া কার্যালয় প্রাঙ্গনে এ সময়  তারা কালো পতাকা নিয়ে বর্তমান আওয়ামী লীগের ডামী সরকারের পদত্যাগ নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতে নির্বাচন দাবি করে শ্লােগান দেয়। কর্মসুচিতে সভাপতিত্ব করেন, জেলা বিএনপির সদস্য সচিব আখতার হোসেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক আলমগীর হোসেন, পৌর বিএনপির আহবায়ক মাসুদ আহম্মেদ কিজিল, জেলা জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক এড, শাহেদ হাসান টগর, মিহির কান্তি বিশ্বাস, এড, মিজানুর রহমান, সদর থানা বিএনপির সাবেক সভাপতি সদ্য কারামুক্ত সৈয়দ রফিকুল ইসলাম তুষার, জেলা যুবদলের সভাপতি এড, ওয়াসিকুর রহমান কল্লোল সহ সভাপতি আমিরুল ইসলাম,, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি সদ্য কারামুক্ত আব্দুর রহিম, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক গোলাম জাহিদ, জেলা জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক স্মৃতি, জেলা মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মের সদস্য সচিব ছবির হোসেন, যুগ্ম আহবায়ক রকিবুল ইসলাম রিপুসহ নেতা কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



ডোমারে লেপ তোষকের কারখানায় আগুন, ৫ লক্ষাধীক টাকার মালামাল ক্ষতি

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৬৪জন দেখেছেন

Image

ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধি:নীলফামারীর ডোমারে লেপ তোষকের কারখানায় অগ্নি সংগোগের ঘটনায়, প্রায় ৫লক্ষাধীক টাকার মালামাল আগুনে পুড়ে ছাই হয়েছে। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এর কর্মীরা দীর্ঘ এক ঘন্টা সময় ধরে অভিযান চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে।

ঘটনাটি ঘটেছে ডোমার পৌর এলাকার ডোমার দেবীগঞ্জ সড়কের মাদ্রাসা পাড়া গ্রামে। জানাযায়, উক্ত এলাকায় আব্দুর রাজ্জাকের দোকান ঘড় ও গোডাউন ভাড়া নিয়ে সাতক্ষীরা এলাকা থেকে আসা আক্তার হোসেন ও নুর আমিন লেপ, তোষক, জাজিম তৈরী করে দীর্ঘদিন যাবত পাইকারী ও খুচরা ব্যবসা করে আসছে।

ঘটনার দিন বৃহস্পতিবার (৮ফেব্রুয়ারী) সকাল ১১টায় কারখানায় আগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘটে। মুহুত্ত্বেই আগুনের লেলিহান শিখা চারিদিকে ছড়িয়ে পড়লে মুহুত্ত্বেই সব পুড়ে ছাই হয়ে যায়। সংবাদ পেয়ে ডোমার ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এর স্টেশন অফিসার সায়েদ মোঃ ইমরানের নের্তৃত্বে উদ্ধার কর্মীরা কাজ শুরু করে। এ সময় সড়কে দ্বায়িত্বরত ডোমার থানার ট্রাফিক সার্জেন্ট শরিফুল ইসলাম, এটিএসআই পারভেজ মিয়া সড়ক সহ সার্বিক নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করে। পরে ডোমার থানার এসআই আক্তারুজ্জামান ও সঙ্গীয় ফোর্স ঘটনা স্থলে যান। ফায়ার সর্ভিসের কর্মীরা দীর্ঘ একঘন্টা অভিযান চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। ক্ষতিগ্রস্ত ভুক্তভুগি আবু আলম বলেন, কারখানায় থাকা তুলা, কাপড়, লেপ, তোষক, মেশিনসহ সব পুড়ে যায়। এতে করে প্রায় ৫লক্ষাধীক টাকার মালামাল ক্ষতিসাধন হয়েছে বলে ধারণা করা হয়েছে। ডোমার থানার পুলিশ জানান, কারখানায় শ্যালো মেশিন চালানোর সময় গ্যাসলাইট থেকে ডিজেলে তেলে আগুনের সুত্রপাত ঘটে। ঘটনা স্থল পরিদর্শন করেন ডোমার থানার অফিসার ইনচার্জ আবু সাঈদ চৌধুরী, সাদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাসুম আহমেদসহ অনেকে।


আরও খবর



মিলন সাইবার সিকিউরিটি আইনে মামলা করলেন বিপুলের বিরুদ্ধে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ২৩জন দেখেছেন

Image

ইয়ানূর রহমান শার্শা,যশোর প্রতিনিধি:জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন সাইবার সিকিউরিটি আইনে কোতোয়ালি থানায় মামলা করেছে যশোর সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বিপুলের বিরুদ্ধে ।  মামলাটি করেছেন বুধবার বিকেলে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কোতোয়ালি থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) সফিকুল আলম চৌধুরী।

তিনি জানিয়েছেন, বিপুলকে ধরতে পুলিশ অভিযানে নেমেছে। এর আগে গত মঙ্গলবার লাইভে এসে আনোয়ার হোসেন বিপুল জেলা আওয়ামীলীগী সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতাদের বিরুদ্ধে অশ্লীল বক্তব্য প্রদান করেন। তারই প্রেক্ষিতে মিলন এ মামলা করেছেন।

মামলায় শহিদুল ইসলাম মিলনের অভিযোগে উল্লেখ করেছেন, গত ১৫ ফেব্রুয়ারি সকালে আনোয়ার হোসেন বিপুল সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করবেন বলে মিলনের কাছে দুই লাখ টাকা চাঁদাদাবি করেন। টাকা দিতে অস্বীকার করায় নানা ধরনের ভয়ভীতি দেখান বিপুল। এছাড়া মিলনের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ এনে সাংবাদিক সম্মেলন করার হুমকি দেন। এছাড়াও ফেসবুকে বিভিন্ন মিথ্যা প্রচারণা চালিয়ে তার সভাপতির পদ থেকে সরিয়ে নেয়ার হুমকি দেন বিপুল। শেষমেষ চাঁদা না পেয়ে বিপুল হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যান। তার জেরে গত ২০ ফেব্রুয়ারি সন্ধা সাতটায় বিপুল তার নিজের ফেসবুক থেকে লাইভে এসে সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদারসহ বিভিন্ন পদধারী নেতা ও জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে কুরুচিপূর্ন বক্তব্য দেন। তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হয়ে তার বিরুদ্ধে এ ধরনের প্রচারণায় মান ক্ষুন্ন হয়েছে।

শুধু তাই নয়, ওই সব বক্তব্য বিভিন্ন গণমাধ্যমেই প্রকাশিত হয়েছে। এ কারণে মামলার বাদী শহিদুল ইসলাম মিলনের দুইকোটি টাকার মানহানী হয়েছে বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়।

এ বিষয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সফিকুল আলম চৌধুরী বলেন, মামলা গ্রহণের পর পুলিশ বিপুলকে ধরতে মাঠে নেমেছে।


আরও খবর



হিলিতে কমেছে রসুনের দাম,বেড়েছে পেঁয়াজের

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯০জন দেখেছেন

Image

মাসুদুল হক রুবেল,হিলি (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:সরবরাহ বৃদ্ধি পাওয়ায় সপ্তাহের ব্যবধানে দিনাজপুরের হিলিতে চায়না ও দেশীয় রসুন কেজিতে কমছে ২০ টাকা।আর সরবরাহ কমে যাওয়ায় দেশীয় পেঁয়াজ কেজিতে বেড়েছে ১০ টাকা।

আজ সোমবার হিলি বাজারে পাইকারী ও খুচরা বাজার ঘুরে দেখা গেছে,সব ধরনের রসুনের দাম কমেছে। চায়না রসুন ২৪০ টাকা কেজি দরে,আর দেশী রসুন ২৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। দুই দিন আগে চায়না রসুন ২৬০ টাকা কেজি দরে,আর দেশীয় ২৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। এতে করে কেজি প্রতি কমেছে ২০ টাকা। এদিকে দেশীয় পেঁয়াজ ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। দুই দিন আগে ৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। এতে কেজিতে ১০ টাকা বেড়েছে।

হিলি বাজারে রসুন কিনতে আসা আহম্মদ আলী বলেন,গত সপ্তাহে ২৬০ টাকা কেজি দরে চায়না রসুন কিনেছি।আজকে দাম কম হওয়ায় চায়না রসুন পাঁচ কেজি নিলাম ২৪০ টাকা দরে। কেজিপ্রতি ২০ টাকা কমেছে। পাঁচ কেজি রসুনে ১০০ টাকা কম পেয়েছি। এভাবে যদি প্রতিটি জিনিসের দাম কম তো তাহলে আমাদের জন্য খুব ভালো হয়।

হিলি বাজারে পেঁয়াজ কিনতে আসা জুয়েল হোসেন বলেন,আমি দুই দিন আগে ৭০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ কিনেছি। আজকে ১০ টাকা বেড়ে ৮০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ কিনলাম। অন্যান্য জিনিসের দামের মত যদি পেঁয়াজের দামটা ২৫ থেকে ৩০ টাকার মধ্য হলে আমাদের মত খেটে খাওয়া মানুষের জন্য খুব ভালো হতো।

হিলি বাজারের খুচরা রসুন ও পেঁয়াজ বিক্রেতা মোকারম হোসেন বলেন,আমরা পেঁয়াজ পাইকারী ৭৭ টাকা কেজি দরে কিনে ৮০ টাকায় বিক্রি করে থাকি। সরবরাহ কমে গেছে দেশীয় পেঁয়াজের। তাই আবার দাম বাড়ছে। তিনি আরও বলেন,ভারত থেকে আলু আমদানি না করে যদি পেঁয়াজ আমদানি হতো তাহলে পেঁয়াজের দামটা ২৫ থেকে ৩০ টাকার মধ্যেই থাকতো। এক সপ্তাহ আগে চায়না রসুন ২৬০ টাকা কেজি দরে ও দেশীয় রসুন ২৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করেছি। সপ্তাহের ব্যবধানে আজকে ২০ টাকা কমে ২৪০ থেকে ২৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করছি। এতে করে কেজিপ্রতি ২০ টাকা কমেছে।


আরও খবর