Logo
আজঃ শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪
শিরোনাম

আইবিএম ও এবার হাঁটল একই পথে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ২৯৬জন দেখেছেন

Image

প্রযুক্তি ডেস্ক : সাম্প্রতিক সময়ে গুগল, মেটা, মাইক্রোসফট, অ্যামাজনসহ মার্কিন বড় প্রতিষ্ঠানগুলো বিপুল কর্মী ছাঁটাই করেছে। এবার যুক্তরাষ্ট্রের বহুজাতিক টেক জায়ান্ট ইন্টারন্যাশনাল বিজনেজ মেশিনস কর্পোরেশনও (আইবিএম) এই পথে হাঁটল। ৩ হাজার ৯০০ কর্মীকে ছাঁটাই করেছে প্রতিষ্ঠানটি। গত বুধবার আইবিএম এর পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়।

মার্কিন প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানটির কিছু বিনিয়োগ বার্ষিক নগদ লক্ষ্যমাত্রা অর্জনেও ব্যর্থ হয়েছে, বছরের শেষ তিনমাসে যে লাভ হবে আশা করা হয়েছিল সেটি হয়নি।

আইবিএমের প্রধান অর্থনৈতিক কর্মকর্তা জেমস কাভানগ বার্তাসংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, গ্রাহকদের সঙ্গে কাজ করবে এমন কর্মী নিয়োগ অব্যাহত রাখবেন তারা।

উল্লেখ্য, গত বছরের শেষ তিন মাসে আইবিএমের সফটওয়্যার এবং কনসালটেন্সি ব্যবসার ধীর থেকে আরও ধীর হয়েছে। কিন্তু পুরো কোম্পানির খরচ ছিল চোখে পড়ার মতো। বিভিন্ন সেবা নিশ্চিতে অ্যামাজন ও মাইক্রোসফটের সঙ্গে চুক্তি করতে হয়েছে তাদের।


আরও খবর



নওগাঁয় ইরি-বোরো রোপণে ব্যস্ত সময় পার করছেন চাষিরা

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ১২৮জন দেখেছেন

Image
নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি:উত্তরের জনপদ নওগাঁয় চলতি মৌসুমে ইরি-বোরো ধান রোপণ শুরু হয়েছে। শীতের তীব্রতা উপেক্ষা করেই ইরি-বোরো রোপণ ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকেরা। তবে কনকনে ঠান্ডা ও কুয়াশায় কিছুটা বিপাকে পড়তে হচ্ছে চাষিদের। এরই সঙ্গে বেড়েছে উৎপাদন খরচও। তবে আবহাওয়া ঠিক থাকলে ফলন ভালো হবে বলে আশা করছেন কৃষক। দেশে সার, কীটনাশক, জ্বালানি তেল ও শ্রমিকের দাম বেড়ে যাওয়ায় ফসল উৎপাদন খরচ বেড়েছে। 

এই বিষয়ে কথা হলে কৃষক তরিকুল ইসলাম বলেন, গত বোরো মৌসুম থেকেই ধানের বাজার ঊর্ধ্বমুখী। ধানের আবাদে প্রচুর পরিশ্রম ও খরচ হয়। সে তুলনায় লাভবান হওয়া যায় না। যেহেতু ফসল উৎপাদন খরচ বেড়েছে। সেহেতু ধানের দাম ১২০০ টাকার ওপর থাকলে কৃষকদের জন্য সুবিধা হয়। 

 নওগাঁ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর এর সুত্রে জানাজায়, জেলায় এবার এক লক্ষ ৯১ হাজার ৪শত ২৫ হেক্টর জমিতে ইরি-বোরো আবাদের লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে। ইতিমধ্যে জেলায় প্রায় ৫০ শতাংশ জমিতে ধান রোপণ কাজ শেষ হয়েছে।

জেলা কৃষি কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ জানান, মাঠ পর্যায়ের কৃষি কর্মীরা শুরু থেকে নজরদারী করছে। আশা করি আবাদ লক্ষ্যমাত্রা ছড়িয়ে যাবে।

আরও খবর

গাংনীতে বালাইনাশক ব্যবহারে উদাসিন কৃষকরা

শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




বাংলা ভাষাকে জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা করতে হবে: পরিবেশমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৪৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরী মন্তব্য করেছেন, বাংলা ভাষাকে জাতিসংঘের অন্যতম দাপ্তরিক ভাষা করতে হবে বলে। তিনি বলেন, ভাষাভাষী জনসংখ্যার দিক দিয়ে বাংলা বিশ্বের সপ্তম বৃহত্তম ভাষা। বিশ্বব্যাপী ভাষা অধিকার আন্দোলনে বাংলা ভাষা সংগ্রামীরাই অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন। ভাষা শহিদদের ত্যাগ ও বিসর্জন বিশ্বের কাছে অমূল্য।

বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের পক্ষে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে ভাষা শহিদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে পরিবেশমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

পরিবেশমন্ত্রী বলেন, ভাষা শহিদেরা বাংলা ভাষাকে কেবল অন্যতম রাষ্ট্রভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠাই করেননি বরং আমাদের জাতীয়তাবোধ এবং মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় অতুলনীয় অবদান রেখেছেন। তারা বাঙালি জাতির ঐক্য ও সংহতি দৃঢ় করেছেন এবং মাতৃভাষার প্রতি ভালোবাসা ও সম্মানের বীজ বপন করেছেন। তাদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করতে বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতির প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে হবে। সর্বস্তরে মাতৃভাষার প্রসার ঘটাতে হবে।

এ সময় অন্যদের মধ্যে মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. ফারহিনা আহমেদ, অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) ইকবাল আব্দুল্লাহ হারুন, অতিরিক্ত সচিব (পরিবেশ) ড. ফাহমিদা খানম, বনশিল্প উন্নয়ন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান মো. নাসির উদ্দিন আহমেদ, বন অধিদপ্তরের প্রধান বন সংরক্ষক মো. আমীর হোসাইন চৌধুরী এবং পরিবেশ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক কাজী আবু তাহের উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



নবীনগরে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ২৬৬জন দেখেছেন

Image

মোহাম্মদ হেদায়েতুল্লাহ  নবীনগর(ব্রাহ্মণবাড়িয়া)প্রতিনিধিঃব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার কাইতলা উত্তর ইউনিয়ন বার আউলিয়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রারাসার বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে ।

 বুধবার সকাল ১১ থেকে দিনব্যাপ অত্র  মাদ্রারাসার মাঠে অত্র এলাকার মান্যবর ব্যাক্তিবর্গগণের উপস্থিতিতে পবিত্র কুরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে এই বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা , আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান এক মনোরম পরিবেশ  অনুষ্ঠিত হয়েছে ।

এসময়, অত্র মাদ্রারাসার গভর্নিং বডির সভাপতি ফকির মোঃ কামাল উদ্দিন এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, স্পাইডার গ্রুপের এম ডি বিশিষ্ট শিল্পপতি ও সমাজ সেবক মোঃ রিপন মুন্সি। সাগত বক্তব্য রাখেন অত্র মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মোহাম্মদ সফিকুল ইসলাম।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি মোঃ জাহেদুল ইসলাম লিটন, ইউপি সদস্য মোঃ মমিন মুন্সি, ইউপি সদস্য মোঃ মুসা মিয়া, অত্র মাদ্রাসার গভর্নিং বডির সদস্য ও গ্রাম কমিটির সভাপতি মোঃ তাজুল ইসলাম, অভিভাবক সদস্য মোঃ আবু হানিফ,অভিভাক সদস্য সৈয়দ খালেদ হোসেন, অভিভাবক সদস্য মোঃ আব্দুস সাত্তার, ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক রাজিব মিয়া, ছাত্রলীগ নেতা সজিব মিয়া প্রমুখ। 

অনুষ্ঠিত বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের প্রথম পুরুষ্কার সমূহ স্পন্সর করেন, সোশ্যাল ইসলামি ব্যাংক ব্রাহ্মণহাতা নারুই চকবাজার এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেট এর স্বত্বাধিকারী মোঃ আবু হানিফ ভূঁইয়া ।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



গ্রাহকদের ২০ কোটি টাকা সঞ্চয় নিয়ে লাপাত্তা হওয়া এনজিও মালিকসহ আটক ৬

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৪১জন দেখেছেন

Image

নওগাঁ প্রতিনিধি:নওগাঁ সদর উপজেলায় ডলফিন নামের একটি এনজিও খুলে গ্রাহকদের ২০ কোটি টাকা সঞ্চয় নিয়ে লাপাত্তা হয়েছেন আব্দুর রাজ্জাক নামের এক প্রতারক। এঘমটনায় র‍্যাব-৫ ও র‍্যাব-১১ এর সদস্যরা রাজ্জাকসহ তার সহযোগী ৬ জনকে যৌথ অভিযানে আটক করেছে। রোববার রাজধানী ঢাকাসহ নওগাঁ জেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। রোববার দুপুরে সাংবাদিক সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‍্যাব। 


আটককৃতরা হলেন, সদর উপজেলার ফতেহপুর গ্রামের নছির উদ্দিন মন্ডলের ছেলে আব্দুর রাজ্জাক ও তার স্ত্রী সুমি বেগম (৩২), একই গ্রামের আব্দুল মজিদের ছেলে মোঃ রিপন (১৮), রজাকপুর গ্রামের মৃত গিয়াস উদ্দিনের ছেলে মোঃ পিয়ার আলী (৪০), ইকরতারা গ্রামের মৃত লায়েব উদ্দিনের ছেলে মোঃ আতোয়ার রহমান আতা (৬০), বজাকপুর গ্রামের পিয়ার আলীর স্ত্রী মোছাঃ শিল্পি বেগম (৩৫)।

র‍্যাব জানায়, নওগাঁ জেলার সদর থানার ফতেহপুর গ্রামের বাসিন্দা মোঃ আব্দুর রাজ্জাক ২০১৩ সালে ডলফিন সেভিংস এন্ড ক্রডিট কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড (রেজিঃ নং-১২৪৩) নামে একটি সংস্থা গড়ে তোলেন। গ্রামের সহজ সরল মানুষকে প্রতিমাসে তার এনজিও‘তে লাখে দুই থেকে আড়াই হাজার টাকা মুনাফা দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে প্রায় ২০ কোটি টাকা আমানত সংগ্রহ করে। এতে এলাকার অনেকেই সঞ্চয়পত্র খোলার নামে অল্প অল্প করে বড় অংকের টাকা আমানত হিসেবে জমা করে। এরপর গ্রাহকগণ জমানো টাকার মুনাফা প্রথম তিন মাস পেলেও পরবর্তীতে মুনাফা বন্ধ করে লাপাত্তা হয়ে যায় ডলফিন এনজিও।

র‍্যাব আরও জানায়, আব্দুর রাজ্জাকসহ তার বোন মোছাঃ শিল্পি বেগম, স্ত্রী মোছাঃ সুমি আক্তার, মোঃ রিপন এনজিও‘র সভাপতি পিয়ার আলী, ম্যানেজার মোঃ আতোয়ার রহমান আতা এবং ক্যাশিয়ার মোঃ রিপন হোসেন এলাকার মানুষের কাছ থেকে ১ লাখ টাকায় ২ হাজার টাকা লাভ দেয়ার কথা বলে ৩০০ জনের বেশি গ্রাহককে সঞ্চয় রাখার ব্যাপারে উৎসাহিত করেন। পরবর্তীতে  গ্রাহকগণ সঞ্চয়ের টাকা উত্তোলন করতে গেলে আজ আসো কাল আসো বলে গ্রাহকদের টাকা দিতে কালক্ষেপন করতে থাকে। শেষে এক পর্যায়ে তারা পালিয়ে যায়। 

পরবর্তীতে আটককৃতদের নওগাঁ সদর থানায় হস্তান্তর করা হলে থানা পুলিশ তাদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করেন।

আরও খবর



ভোলায় খাল দখল, অনুমতি ছাড়াই ইটের ভাটা নির্মাণ: প্রশাসন নির্বিকার

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৭১জন দেখেছেন

Image

শরীফ হোসাইন ভোলা (বিশেষ) প্রতিনিধি :সরকার যখন নীতিমালার মধ্য দিয়ে ইটভাটাগুলোকে নিয়ন্ত্রণের উদ্যোগ নিয়েছেন ঠিক তখন কিছু অসাধু ব্যক্তি জেলা প্রশাসনের অনুমতি ছাড়াই ইট তৈরী করে দে-ধারছে ব্যবসা করছেন। একদিকে যেমন নষ্ট হচ্ছে পরিবেশ, অন্যদিকে সরকার হারাচ্ছে রাজস্ব। খাল দখল এবং অনুমতি ছাড়াই ইটের ভাটা নির্মাণ করে ইট পোড়াচ্ছে সিকদার ব্রিকস। ভোলা সদর উপজেলার দক্ষিণ দিঘলদী ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে।

সূত্রে জানা যায়, ভোলা সদর উপজেলার দক্ষিণ দিঘলদী বাঘমারা ব্রীজের দক্ষিণ দিকে নুরু মেম্বারের বাড়ীর পিছনে তেঁতুলিয়ার শাখা নদী কালির দোন খাল ভরাট করে সিকদার ব্রিকস নামে একটি ইটভাটা করেন স্থানীয় মোঃ আলী আকবর। যার দাগ নং-৮৯৪/৮৯৫, মৌজা-লালপুর, দক্ষিণ বালিয়া, দক্ষিণ দিঘলদী ইউনিয়ন, ভোলা। গেল বছরের ডিসেম্বরে জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি দরখাস্ত জমা দিয়েই শুরু করে খাল দখল ও ইট তৈরী। অথচ জেলা প্রশাসন এখন পর্যন্ত ওই ইটভাটাকে কোন অনুমোদন দেয়নি।

এদিকে একই জায়গায় ২০১৭ সালে বাবা-মায়ের দোয়া নামে একটি ইটভাটা তৈরী করেন স্থানীয় মিঠু মাতাব্বর। কিন্তু বৈধ কাগজপত্র এবং খাল ভরাট করাতে তৎকালীন এডিএম আব্দুল হালিম জরিমানা করে ব্রিকস ফিল্ডটি বন্ধ করে দেন। তার ৬ বছর পর একই জায়গায় একই ভাবে মোঃ আলী আকবর সিকদার ব্রিকস নামে ইটভাটা করেন। এ যেন পুরনো বোতলে নতুন মোড়ক।
এলাকাবাসী জানান, তেঁতুলিয়ার শাখা নদী কালির দোন দিয়ে খেয়াঘাট হয়ে খোরশেদ খা ঘাট, খায়ের হাট, শান্তির হাট, নাছির হাওলাদার ঘাট, ভেলুমিয়া বাজার, ধুলিয়া, কালাইয়া, কবাই হয়ে কালিশ্বর যাতায়াত করা হতো। আমাদের স্থানীয়দের যেমন উপকার হতো, তেমনি হাজার হাজার মানুষেরও উপকার হতো। আমাদের ব্যবসা-বাণিজ্য, কৃষি, মাছ সম্পদসহ হাজার হাজার লোক এই নদী দিয়ে জীবন-যাত্রা নির্বাহ করতো। খালটি এক সময়ে ছিল ১৮০ফিট। কিন্তু বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ব্যক্তি খালটিকে ভরাট করে নিজেদের স্বার্থ হাসিল করেছে এবং বর্তমানেও করছে। যার কারণে খালটি এখন মৃত প্রায়। নদীটির শাখা খালটি ভরাট করে ইটভাটা করাতে আমাদের জীবনের চাকা বন্ধ হওয়ার উপক্রম। তেমনি পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে।

স্থানীয় হারুন অর রশিদ জানান, সিকদার ইটভাটার মালিক আলী হোসেন খুব ক্ষমতাবান। কথায় কাথায় তিনি প্রশাসনের ভয় দেখান। সে কতবড় ক্ষমতাবান খাল দখলও করলো, আবার ইটভাটাও করলো। সে আবার বটতলা বালিয়া খালের পাশে শত শত মন লাকড়ি স্টক করে সেখান থেকে রাতের আধারে অল্প অল্প করে লাকড়ি নিয়ে ইটভাটায় পোড়ান।বিনা অনুমতিতে কিভাবে ইটভাটা তৈরী ও ইট পোড়াচ্ছেন এমন প্রশ্ন করা হলে সিকদার ব্রিসক এর মালিক আলী আকবর বলেন, আমি সকল ঘাট ম্যানেজ করেই করছি। খাল ভরাট করে ইটভাটা নির্মাণের বিষয় জানতে চাইলে তিনি উত্তেজিত হয়ে বলেন, আপনি যা পারেন তা লিখেন। আপনাদের মত সাংবাদিক হিসাব করার মত আমার সময় নেই। আপনি চেয়ারম্যান-কে জিগান, আমি কি করছি।
সিকদার ব্রিসক এর ইটভাটার ব্যাপারে স্থানীয় চেয়ারম্যান ইফতারুল হাসান স্বপন ঢাকায় থাকায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। তবে স্থানীয় নুরু মেম্বারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এখানে ৪-৫ বছর আগে একটি ইটভাটা ছিল, তা সরকার বন্ধ করে দিয়েছে। এখন আবার খাল দখল করে পুনরায় ইটভাটা দিয়েছে। পরিষদে এটা নিয়ে আলাপ হয়েছে, চেয়ারম্যান সাহেব ঢাকা; তিনি দেশে আসলে সিকদার ব্রিকসের মালিককে ডেকে বিয়ষটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যাবে।

পরিবেশ অধিদপ্তর সহকারী পরিচালক তোতা মিয়া জানান, ৫-৬ বছরের আগের ইটভাটার পরিবেশের অনুমতি-টি-ই সে পুনরায় নবায়ন করেছে। বর্তমানে খাল ভরাট করে নতুন ভাবে ইটভাটা করলো এটা দেখেও আপনি কিভাবে নবায়ন করলেন এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি কোন সদুত্তোর দিতে পারেন নি।স্থানীয় প্রশাসন (চেয়ারম্যান) এবং জেলা প্রশাসনের অদক্ষতার কারণেই এসব ইটভাটা অবৈধভাবে ইট তৈরী করেন এবং নদী দখল করে পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট করে বলে মন্তব্য করেন ভোলা পরিবেশবাদী আন্দোলনের নেতা মোবাশ্বির উল্লাহ চৌধুরী।
বিষয়টি নিয়ে জেলা প্রশাসক মোঃ আরিফুজ্জামানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সূত্রে জানা যায়, ভোলা জেলায় ইটভাটা ১১৫টি। যার মধ্যে ৮০টি বৈধ, সিকদার ব্রিকস সহ ৩৫টি অবৈধ। সুপ্রিয় পাঠক অবৈধ ইটভাটা নিয়ে আমাদের অনুসন্ধান চলছে। জেলার প্রত্যেকটি অবৈধ ইটভাটার তথ্য আপনাদের কাছে তুলে ধরবো।


আরও খবর