Logo
আজঃ শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪
শিরোনাম

‘যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা আরোপের যৌক্তিক কারণ নেই’

প্রকাশিত:শনিবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ১৫৬জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা আরোপের যৌক্তিক কারণ নেই। যারা নির্বাচনের বিরুদ্ধে নাশকতা করছে, তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা উচিত।

শনিবার (৯ ডিসেম্বর) দুপুরে আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক ব্রিফিংয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, যারা মানবাধিকার নিয়ে কথা বলে, তারা ১৫ ও ২১ আগস্টের হত্যাকাণ্ড এবং জোট সরকারের নিপীড়নের কথা বলেন না। বিএনপির নির্বাচনকেন্দ্রিক আন্দোলন ব্যর্থ। এখন তারা আগুন দিচ্ছে।

তিনি বলেন, দেশি-বিদেশি চাপ থাকলেও আওয়ামী লীগ উদ্বিগ্ন নয়। যত ষড়যন্ত্রই হোক, সুষ্ঠুভাবে নির্বাচনে অটল থাকবে আওয়ামী লীগ।

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, মানবাধিকার দিবসের কর্মসূচির নামে নাশকতার ছক কষছে বিএনপি। কর্মসূচির নামে যাতে তারা নাশকতা করতে না পারে, সে ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।

এসময় আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কামরুল ইসলাম, জাহাঙ্গীর কবির নানক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, মির্জা আজম, সুজিত রায় নন্দী, দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক শামসুন্নাহার চাপা, কার্যনির্বাহী সদস্য সাহাবুদ্দিন ফরাজী, আনোয়ার হোসেন, মেরিনা জাহান কবিতা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



"কেউ গুজব ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে"

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:প্রশ্নফাঁসের গুজবের সঙ্গে রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতা থাকতে পারে, বলেছেন শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। প্রশ্নফাঁসের গুজব ঠেকাতে গোয়েন্দারা নজরদারি করছেন। কেউ গুজব ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বৃহস্পতিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়েছে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। এ সংক্রান্ত বিষয়ে রাজধানীর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে ব্রিফ করেন শিক্ষামন্ত্রী।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এ বছর মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় অনেক অভিভাবক আমাকে মোবাইলে মেসেজ পাঠিয়েছেন। তাদের ছেলে-মেয়েদের রোল নম্বরও পাঠিয়ে কিছু করা যাবে কিনা অনুরোধ করেছেন।

তিনি বলেন, আমাদের নৈতিকতা কোথায় গিয়ে ঠেকেছে। এটা অবশ্যই আমাদের জন্য লজ্জার বিষয়। এই ধরনের নৈতিক অধঃপতন যদি অভিভাবক পর্যায়ে হয় তাহলে আমরা ছেলে-মেয়েদের কী শিক্ষা দেব।

অভিভাবকদের অনুরোধ করে তিনি বলেন, অভিভাবকরা যেন তাদের নৈতিক অবস্থানে আপস না করেন। নতুন কারিকুলামে অভিভাবকরা যেন শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন সহজেই বুঝতে পারেন সে বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে।


আরও খবর



সৈয়দপুরে নামাজে সিজদারত অবস্থায় মুসল্লীর মৃত্যু

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৫২জন দেখেছেন

Image
সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি:নামাজ পড়ার সময় মসজিদে সিজদারত অবস্থায় এক মুসল্লীর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার (১৪ ফেব্রুয়ারী) শহরের ১৩ নং ওয়ার্ডের আল ফারুক একাডেমি সংলগ্ন বাঁশবাড়ী জামে রিজভীয়া মসজিদে ফজরের নামাজের সময় এই ঘটনা ঘটেছে। 

মৃত ব্যক্তির নাম ভোলা কোরাইশী।  মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৫৩ বছর। তিনি বাঁশবাড়ী পুরাতন কিলখানা মহল্লার বাসিন্দা মৃত খয়রাতী কোরাইশীর তৃতীয় ছেলে। তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন ও শুভাকাঙ্ক্ষী রেখে গেছেন। তিনি পেশায় একজন গোশত ব্যবসায়ী (কসাই) ছিলেন। শহরের রেলওয়ে কারখানা গেট বাজারে তাঁর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। 
জানা যায়, প্রতিদিনের ন্যায় বুধবার ভোরে বাঁশবাড়ী জামে রিজভীয়া মসজিদে ফজরের নামাজ আদায় করতে যান তিনি । সেখানে সুন্নত নামাজ পড়ার সময় সিজদারত অবস্থায় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন। ফরজ নামাজ শুরুর সময় অন্যান্য মুসল্লীরা ডাকাডাকি করেও তার সাড়া না পাওয়ায় বুঝতে পারেন তিনি মারা গেছেন। পরে খবর পেয়ে পরিবারের লোকজন গিয়ে লাশ বাড়িতে নিয়ে আসেন। 

মরহুমের ছোট ভাই সৈয়দপুর গোশত ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি নাদিম কোরাইশী (ছটু) জানান, বড় ভাই ভোলা কোরাইশী অত্যন্ত সহজ সরল জীবন যাপন করতেন। নিয়মিত নামাজ আদায় করতেন। সারা বচ্ছরই সপ্তাহে ৩ দিন নফল রোজা পালন করতেন। সম্প্রতি তিনি নামাজের পর প্রতিদিন মুয়াজ্জিন সাহেবের কাছে সহীহ পদ্ধতিতে কোরআন শরিফ পড়া শিখতেন। 

সৈয়দপুর উপজেলা গোশত ব্যবসায়ী সমিতি গভীর শোক প্রকাশ করে মরহুমের সম্মানে দিনভর তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখেছেন। এছাড়া বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দসহ জন প্রতিনিধি, বিশিষ্টজন, ব্যবসায়ীগণ গভীর শোক এবং পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন।

আরও খবর



মান্দায় বেশি দামে বিক্রির উদ্দেশ্যে পণ্য মজুদের অভিযোগে গুদাম সিলগালা: আটক ১

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯১জন দেখেছেন

Image

এম এম হারুন আল রশীদ হীরা; নওগাঁ:নওগাঁর মান্দায় "মাসুদ এন্টারপ্রাইজ" নামে নাম সর্বস্ব ও  নিবন্ধনবিহীন (লাইসেন্স বিহীন) এক খাদ্য সামগ্রী গুদামে অবৈধভাবে বিপুল পরিমাণ খাদ্য পণ্য মজুদের অভিযোগ পাওয়া গেছে।  অভিযোগের ভিত্তিতে ভ্রাম্যমান আদালত দ্রুত সেখানে এক অভিযান চালিয়ে মাসুদ রানা নামে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে। অভিযুক্ত ও আটক মাসুদ রানা (৩৮) উপজেলার পরানপুর ইউনিয়নের সোনাপুর গ্রামের মুনছুর আলীর ছেলে। এসময় খাদ্য সামগ্রীসহ ও-ই গুদামটি সিলগালা করে বন্ধ করে দেওয়া  হয়।

বুধবার (২৪ জানুয়ারি) বিকেল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত উপজেলার পরানপুর ইউনিয়নের গোয়ালপাড়া গ্রামে অভিযান পরিচালনা করেন ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) লায়লা আঞ্জুমান বানু।

এসময় উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মোহাম্মদ আলী সহ পুলিশ সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। 

গুদামে মজুদকৃত ও জব্দকৃত মালামাল গুলোর মধ্যে ছিল সয়াবিন তেল ২০ হাজার ৭২ লিটার, গম ১২৮ টন, আটা/ময়দা ৮ হাজার কেজি, অ্যাংকর ডাল ২৭ হাজার ১৭৫ কেজি, চিনি ৪ হাজার ৫০ কেজি, ছোলা-বুট ৪ হাজার ৭০০ কেজি এবং লবন ১২শ কেজি। এদিকে হঠাৎই অভিযানে মাসুদ রানা আটক হবার পর পরই গুরুত্বর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে মান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চিকিৎসার জন্য নেওয়া হয়।

ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও মান্দা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লায়লা আঞ্জুমান বানু সাংবাদিকদের বলেন, মালামাল গুলো "মাসুদ এন্টারপ্রাইজ" নামে ক্রয় করা হয়। তবে এই নামে বা অন্য কোন নামে তার কোন ব্যবসায়ীক লাইসেন্স নেই। মজুদ করে বেশি দামে বিক্রি করাই তার প্রধান ও মূল ব্যবসা।

অতিরিক্ত মালামাল থাকায় ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা না করে নিয়মিত  মামলা দায়ের করা হবে বলেও জানান তিনি।মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাম্মেল হক কাজী জানান, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মোহাম্মদ আলী বাদি হয়ে মামলা করবেন বলে জানানো হয়েছে। অভিযোগ পাওয়ার পরে তদন্ত সাপেক্ষে মামলা দায়ের করা হবে।


আরও খবর



কালিয়াকৈরে ইটভাটায় অভিযান, জরিমানায় ক্ষুব্দ মালিকরা

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৭৩জন দেখেছেন

Image

সাগর আহম্মেদ,কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি:গাজীপুরের কালিয়াকৈরে একই এলাকায় রোববার দুপুরে পাশাপাশি তিনটি অবৈধ ইটভাটায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে উপজেলা প্রশাসন। কিন্তু আংশিক সাইট ওয়াল ভাঙ্গলেও চিমনী না ভাঙ্গায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা। অপর দিকে একই অপরাধে বৈষম্যের জরিমানায় ক্ষুব্দ ইটভাটার মালিকরা। এলাকাবাসী, ইটভাটা কর্তৃপক্ষ ও ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর কালিয়াকৈর উপজেলায় ৪৩টি ইটভাটার মধ্যে চালু আছে ২৭টি। এসব ইটভাটা তিন ফসলি জমি, নদীর তীরসহ লোকালয়ে অবস্থিত। এর মধ্যে উপজেলার দরবাড়িয়া এলাকায় রোববার দুপুরে পাশাপাশি তিনটি অবৈধ ইটভাটায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে উপজেলা প্রশাসন।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী মাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হোসাইন মোহাম্মদ হাই জকীর নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) অনিন্দ্য গুহ, কালিয়াকৈর থানার এসআই আফজাল হোসেনসহ উপজেলা প্রশাসনের অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারী, পুলিশ ও আনসার সদস্যরা। অভিযান চালিয়ে ওই তিন অবৈধ ইটভাটার সাইট ওয়ালের আংশিক ভেঙ্গে ১০ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়। কিন্তু চিমনী না ভাঙ্গার কারণে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এলাকাবাসী। তারা বলছেন, কয়েক দিন পরই বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে এসব ইটভাটা আবার চালু হবে। ওই অবৈধ ইটভাটার মধ্যে জে.আর.বি ইটভাটাকে ৪ লক্ষ টাকা, এস.বি স্টারকে ৪ লক্ষ টাকা এবং ন্যাশনাল ব্রিকসকে ২ লক্ষ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। ইটভাটার মালিকদের অভিযোগ, পাশাপাশি ইটভাটা, অপরাধও একই ধরণের। অথচ অদৃশ্য কারণে এক ইটভাটাকে ২ লক্ষ টাকা কম জরিমানা করা হয়। একই অপরাধে বৈষম্যের জরিমানায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন ভুক্তভোগী অপর দুই ইটভাটার মালিক।

এস.বি স্টার ইটভাটার মালিক নাছির উদ্দিন বলেন, একই অপরাধে আমাকে ৪ লক্ষ টাকা জরিমানা করলেও অদৃশ্য কারণে পাশের ইটভাটা ন্যাশনাল ব্রিকসকে ২ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়।এটাকে কি সঠিক বিচার বলে?

অপর জে.আর.বি ইটভাটার মালিক সৈয়দ সোহেল রানা বলেন, আমার ইটভাটার ৪টি দেয়াল ভাঙ্গা হলেও একই অপরাধে ন্যাশনাল ব্রিকসের ২টি ছোট দেয়াল ভাঙ্গা হয়। অজ্ঞাত কারণে ওই ভাটাকে জরিমানাও করা হয়েছে। এটা কেমন বিচার? কম জরিমানা করার বিষয়ে জানতে চাইলে ন্যাশনাল ব্রিকসের মালিক নুরুল ইসলাম জানান, আমাকে প্রশাসন ডেকে ছিল। আমি মেয়াদ উত্তীর্ণের কাগজপত্র দেখানোর কারণে আমাকে কম জরিমানা করেছেন।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী মাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নিবাহী কর্মকর্তা হোসাইন মোহাম্মদ হাই জকী জানান, কাগজপত্র না থাকার কারণে তিনটি ইটভাটায় অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযান চালিয়ে ওই তিনটি ইটভাটা বন্ধ করে দিয়েছি। এছাড়া তিনটি ইটভাটাকে ১০ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

চিমনী কেন ভাঙ্গা হয়নি জানতে চাইলে তিনি বলেন, চিমনীটা ভেঙ্গে দিতে পারলাম না, সেটা বিষয় না। যেটা ভেঙ্গে দিয়েছি, সেটা ছাড়া ইটভাটা চালাতে পারবে না। এই চিমনী ভাঙ্গতে গেলে সময় সাপেক্ষ ব্যাপার। পরবর্তীতে এসব ইটভাটা পরিচালনা করলে আমরা আরো কঠোর আইগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। তবে আমাদের এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।


আরও খবর



কিশোর গ্যাংয়ের বিরুদ্ধে ‘অল-আউট অ্যাকশনে’ যাবে র‌্যাব

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৪৫জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:র‌্যাবের মহাপরিচালক এম খুরশীদ হোসেন কিশোর গ্যাং ও মাদকের বিরুদ্ধে ‘অল-আউট অ্যাকশনে’ যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে জাতীয় শহীদ মিনারে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের নিরাপত্তা সংক্রান্ত মতবিনিময় শেষে এ প্রসঙ্গে কথা বলেন তিনি।

এ সময় র‍্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈনের লেখা ‘মাদকের সাতসতেরো: বাংলাদেশের বাস্তবতা ও সমাধানসূত্র’ এবং ‘কিশোর গ্যাং: কীভাবে এলো, কীভাবে রুখব’ শীর্ষক দুটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করেন র‌্যাব ডিজি।

র‌্যাবের মহাপরিচালক বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশ হচ্ছে মাদকের একটি ট্রানজিট রোড। এর থেকে যদি বাঁচতে হয়, তবে আমাদের সম্মিলিতভাবে মাদকের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে হবে। এ ছাড়া মাদক-কিশোর গ্যাংয়ের বিরুদ্ধে ‘অল-আউট অ্যাকশনে’ যাবে র‌্যাব।

তিনি বলেন, আপনারা জানেন রাজধানীর মোহাম্মদপুর ও মিরপুরে এই কিশোর গ্যাংয়ের বিস্তার খুব বেড়ে গিয়েছিল, যেখানে র‌্যাব অভিযান পরিচালনা করে তা নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছে।

র‌্যাব ডিজি বলেন, এসব কিশোর গ্যাংকে কেউ না কেউ আশ্রয়-প্রশ্রয় দেয়। এরা সব সময় থাকে, অতীতেও ছিল এখনও আছে ভবিষ্যতেও থাকবে। আমরা চেষ্টা করছি কিশোর গ্যাং সমূলে কিভাবে বিনাশ করা যায়, পাশাপাশি যারা এদের পরিচালনা করছে আমরা তাদেরকেও আইনের আওতায় আনবো।

এম খুরশীদ হোসেন আরও বলেন, মাদকের বিষয়টি এমন হয়েছে যে শুধু পুলিশ-র‌্যাব ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর দিয়ে কোনোভাবেই নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নয়। বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলো মাদক নিয়ন্ত্রণে অনেক বেআইনি পদক্ষেপও নিয়েছে। কিন্তু আমরা সেই পথে যাচ্ছি না, আইনের মধ্যে থেকেই মাদক নিয়ন্ত্রণে কাজ করছি।

র‌্যাব প্রধান বলেন, দেশে যখন জঙ্গী উত্থান হয়েছিল, আমরা তখন দল মত নির্বিশেষে সামাজিকভাবে এর মোকাবিলা করলাম তখন কিন্তু জঙ্গি নির্মূল করা সম্ভব হয়েছে। সেভাবে মাদকও নিয়ন্ত্রণ সম্ভব।


আরও খবর