Logo
আজঃ Wednesday ১০ August ২০২২
শিরোনাম
নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ২৪৩৫ লিটার চোরাই জ্বালানি তেলসহ আটক-২ নাসিরনগরে বঙ্গ মাতার জন্ম বার্ষিকি পালিত রূপগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কাউন্সিলর সামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু ৬৫ নং ওয়ার্ডে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসুচীতে অংশগ্রহন করেন চান্দিনা থানায় আট কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নাসিরনগরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ নাসিরনগর বাজারে থানা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ মার্কেটে দুই কাপড় দোকানে দুর্ধষ চুরি। ই প্রেস ক্লাব চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটির মতবিনিময় সম্পন্ন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬ কেজি গাঁজাসহ হাইওয়ে পুলিশের হাতে আটক এক। সোনারগাঁয়ে পুলিশ সোর্স নাম করে ডাকাত শাহ আলমের কান্ড

ঊর্ধ্বমুখী করোনা সংক্রমণ, আরও ১৬২ জনের শনাক্ত

প্রকাশিত:Tuesday ১৪ June ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ৫১জন দেখেছেন
Image

দেশে বাড়তে শুরু করেছে করোনা সংক্রমণ। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ১৬২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর আগে সোমবার ১২৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল।

সংক্রমণ বাড়লেও এসময় করোনায় কারও মৃত্যু হয়নি। ফলে দেশে মৃতের সংখ্যা ২৯ হাজার ১৩১ জনই রয়েছে। আর করোনা শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ ৫৪ হাজার ৪০৫ জনে। শনাক্তের হার ৩ দশমিক ৫৬ শতাংশ।

মঙ্গলবার (১৪ জুন) স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।


আরও খবর



সৌদি প্রিন্স সালমানকে পুতিনের ফোন

প্রকাশিত:Friday ২২ July 20২২ | হালনাগাদ:Tuesday ০৯ August ২০২২ | ৩৮জন দেখেছেন
Image

সৌদি আরবের প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানকে ফোন করেছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। বৃহস্পতিবার (২১ জুলাই) সৌদি প্রেস এজেন্সি ক্রাউন প্রিন্সকে ফোন করার বিষয়টি নিশ্চিত করে।

আরব নিউজের এক প্রতিবেদন বলা হয়েছে, ফোনে মোহাম্মদ বিন সালমান ও ভ্লাদিমির পুতিন দুই দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কসহ বিভিন্ন ইস্যুতে আলাপ করেছেন। এ সময় তারা নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা অর্জনসহ আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক নানা উন্নয়নমূলক বিষয় নিয়েও আলোচনা করেন।

এদিকে, ক্রেমলিন জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার দুই নেতার মধ্যে এ ফোনালাপ হয়। তারা তেলের বাজার নিয়ে কথা বলেছেন।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন সম্প্রতি সৌদি সফর করেন। অল্প সময়ের ব্যবধানে মোহাম্মদ বিন সালমানের সঙ্গে ফোনে কথা বললেন পুতিন। চলতি সপ্তাহের শুরুতে রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিন তেহরান সফর করেন।

সূত্র: এএফপি, আরব নিউজ


আরও খবর



বগুড়ায় ৩১৪ পাখি অবমুক্ত, ব্যবসায়ীর কারাদণ্ড

প্রকাশিত:Tuesday ০২ August 2০২2 | হালনাগাদ:Tuesday ০৯ August ২০২২ | ২৩জন দেখেছেন
Image

বগুড়ায় অবৈধভাবে বন্যপাখি সংরক্ষণের অভিযোগে এক ব্যক্তিকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। দণ্ডিত আতোয়ার আলী (৫২) দুপচাঁচিয়া উপজেলার গুনাহার ইউনিয়নের ডাঙাপাড়া এলাকার বাসিন্দা।

এসময় তার কাছ থেকে ৩১৪টি উদ্ধার হওয়া চার প্রজাতির পাখি ডাক বাংলোতে অবমুক্ত করা হয়।

মঙ্গলবার (২ আগস্ট) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে দুপচাঁচিয়া থানা চত্বরে আয়োজিত এক প্রেস কনফারেন্সে এ তথ্য জানান পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্ত্তী।

বগুড়ায় ৩১৪ পাখি অবমুক্ত, ব্যবসায়ীর কারাদণ্ড

পুলিশ সুপার জানান, বগুড়া ডিবির অভিযানে সোমবার রাত পৌনে ৯টার দিকে ডাঙাপাড়া এলাকায় নিজ বাড়ি থেকে ৩১৪টি বন্যপাখিসহ আতোয়ার আলীকে আটক করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে আতোয়ার স্বীকার করেছেন, তিনি গত ১০ বছর ধরে অনেক প্রজাতির বন্যপ্রাণী আটক করে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় চড়া দামে বিক্রি করে আসছিলেন। পরে বন্যপাখি কেনাবেচা ও সংরক্ষণের দায়ে তাকে ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন দুপচাঁচিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুমন জিহাদী।

এসময় রাজশাহী বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আহমেদ নিয়ামুর রহমান, আদমদীঘি সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার নাজরান রউফ, বগুড়া ডিবির ওসি সাইহান ওলিউল্লাহ এবং দুপচাঁচিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



পদ্মায় তীব্র মাছ সংকট, দিশেহারা জেলেরা

প্রকাশিত:Tuesday ২৬ July ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ২৯জন দেখেছেন
Image

আষাঢ়-শ্রাবণ এলেই যৌবনা হয়ে ওঠে পদ্মা। পদ্মার উতাল-পাতাল ঢেউ দুকূলে আছড়ে পড়ে। রাতের জ্যোৎস্নায় থই থই করে নদীর চারপাশ। কিন্তু এবার ভরা বর্ষা মৌসুমেও পদ্মায় পানি নেই। তাই মাছ ধরার ব্যস্ততাও নেই জেলেদের। নৌকা-জাল নিয়ে জেলেরা নদীতে গেলেও মাছের দেখা মিলছে না।

পাকশীর হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্ট, সাঁড়া ঘাট ও লক্ষ্মীকুন্ডায় জেলেরা দিনরাত নদী চষে বেড়ালেও খুব একটা মাছ জালে তুলতে পারছেন না। মাছ না পেয়ে তারা দুর্বিষহ জীবনযাপন করছেন। পাকশী গুড়িপাড়া, সাঁড়া ব্লকপাড়া, ৫ নম্বর ঘাট ও লক্ষ্মীকুন্ডার জেলেরা এখন অনেকটাই অলস সময় পার করছেন।

সরেজমিন সোমবার (২৫ জুলাই) ভোর সাড়ে ৫টায় পদ্মার সাঁড়া ঘাটে গিয়ে দেখা যায়, রাতভর জেলেরা মাছ ধরে একে একে নৌকা নিয়ে ঘাটে ফিরছেন। রাতের ধরা মাছ তারা সাঁড়া ঘাটে বিক্রির জন্য নিয়ে আসছেন। সারারাত জাল টেনে ধরা মাছ দেখে জেলেরাই হতাশ। কারণ এ মাছ বিক্রি করে তাদের হাজিরা উঠছে না।

সাঁড়া ঘাট এলাকার জেলে রাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘এখন শ্রাবণ মাস। নদীতে ভরপুর পানি থাকার কথা। এ সময় ভরা নদীতে মনের আনন্দে জেলেরা মাছ ধরেন। কিন্তু এবার তো পানিও নেই, মাছও নেই। দিনরাত নদীতে মাছ ধরে ২০০-৩০০ টাকার বেশি হাজিরা হয় না। মনের দুঃখে অনেকেই নদীতে মাছ ধরতে যাচ্ছেন না। বেকার ও অলস সময় কাটাচ্ছেন।’

খোকন আলী মণ্ডল নামের আরেকজন বলেন, ‘১০ বছর বয়স থেকে মাছ ধরি। এখন বয়স ৫০ পেরিয়ে গেছে। আমরা জাত জেলে। বাপ-দাদারা সবাই পদ্মায় মাছ ধরে জীবন কাটিয়েছে। কখনো এমন মাছের সংকট দেখিনি।’

তিনি বলেন, ‘সারারাত পাঁচজন নৌকায় মাছ ধরেছি। এ মাছ ভোরে ২৫০০ টাকায় বিক্রি করেছি। নৌকা ও জাল বাবদ মহাজনের ১০০০ টাকা রেখে বাকি ১৫০০ টাকা পাঁচজন ৩০০ টাকা করে ভাগ করে নিয়েছি। এরমধ্যে সারারাতে নিজেদের খাওয়া-দাওয়া বাবদ আরও ৫০ টাকা খরচ হয়েছে। ২৫০ টাকা হাজিরা দিয়েতো সংসার চলে না। কী করবো? এছাড়া তো আর কোনো উপায় নেই।’

লক্ষ্মীকুন্ডার জেলে আমজাদ হোসেন বলেন, ‘জেলেদের খুব খারাপ সময় যাচ্ছে। পানি না থাকায় মাছ নেই। এমন দুঃসময় আর কখনো আসেনি। ডিঙ্গি নৌকা নিয়ে সারাদিনে আধাকেজি কেজি মাছ ধরা যায় না। আধাকেজি মাছ ২০০ টাকার বেশি দামে বিক্রি হয় না।’

সাঁড়া মৎস্য সমবায় সমিতির সভাপতি আবুল কাশেম জানান, সমিতির সদস্য ১৩২ জন। সদস্য ছাড়াও এ ঘাটে জেলের সংখ্যা প্রায় ৫০০। এখানকার জেলেরা বাচা, চিংড়ি, গাঙগারি, বাঁশপাতা, পিয়ালি, কাচকিসহ হরেক রকম মাছ ধরে। ইলিশ এখানে খুব একটা ধরা পড়ে না। সারারাত পাঁচজন জেলে নৌকায় জাল টেনে পাঁচ কেজি মাছ এখন ধরতে পারেন না। অথচ অন্যান্য সময় সারারাতে ১৫-২০ কেজি মাছ ধরা পড়তো। জেলেদের এমন দুর্দিন আগে দেখা যায়নি।

সমিতির সাধারণ সম্পাদক মকসেদ আলী জানান, প্রতিদিন ভোরে সাঁড়া ঘাটে কমপক্ষে দেড় লাখ টাকার মাছ বেচাকেনা হতো। এখন ৩০ হাজার টাকার মাছও বেচাকেনা হয় না। মাছ পাওয়া যায় না বলে এখানকার জেলেরা অনেকেই নদীতে যান না। এখানে শতাধিক মাছ ধরার নৌকা রয়েছে। এরমধ্যে ২৫-৩০টি নৌকা নদীতে যায়।

সাঁড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এমদাদুল হক রানা সরদার বলেন, নদীতে মাছ পাওয়া যাচ্ছে না। জেলেদের খুব দুর্দিন যাচ্ছে। তাদের অনেকেই যোগাযোগ করেছেন। সরকারিভাবে কোনো বরাদ্দ না আসায় তাদের সহযোগিতা করা সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে ঈশ্বরদী উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত) শরিফুল ইসলাম জাগো নিউজকে জানান, প্রতিবছরই এ সময় পদ্মা নদী পানিতে ভরপুর থাকে। বর্ষা মৌসুমে মাছের প্রজনন হয়। এবার বর্ষা মৌসুমে নদীতে পানি না থাকায় মাছের প্রজনন হয়নি। আশা করছি খুব শিগগির নদীতে পানি বাড়বে। পানি বাড়লেই মাছও বাড়বে।

তিনি আরও বলেন, সরকার জেলেদের জীবনমান উন্নয়নে ভ্যান, সেলাই মেশিন ও ছাগল বিনামূল্যে বিতরণ করে। গতবছর জেলেদের মাঝে এগুলো বিতরণ করা হলেও এবার বিতরণের জন্য বরাদ্দ পাওয়া যায়নি। বরাদ্দ এলে জেলেদের মাঝে বিতরণ করা হবে।


আরও খবর



সাকিনাহ বা প্রশান্তি পাওয়ার উপায় ও দোয়া

প্রকাশিত:Friday ০৫ August ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ২২জন দেখেছেন
Image

বহু কাঙ্খিত একটি শব্দ সাকিনাহ বা প্রশান্তি। এটি কি? প্রথমেই জানা দরকার যে, ‘সাকিনাহ’ কি? এটি কার ওপর নাজিল হয়? আর সাকিনাহ পেতে মুমিনের কোনো করণীয় বা দোয়া আছে কি?

সাকিনাহ কি?

‘সাকিনাহ’ হচ্ছে শান্তি, প্রশান্তি, স্বস্তি ও সান্ত্বনা। মহান আল্লাহ তাআলার পক্ষ থেকে মুমিনের জন্য প্রশান্তিই হচ্ছে সর্বশ্রেষ্ঠ সাকিনাহ। কুরআন সুন্নাহর একাধিক স্থানে সাকিনাহ শব্দের ব্যবহার ও প্রয়োগ দেখা যায়।

এ ‘সাকিনাহ’ হচ্ছে এক প্রকার মানসিক প্রশান্তি, স্বস্তি, সান্ত্বনা, স্থিরতা ও সহনশীলতা। যা আল্লাহ তাআলা বান্দার অন্তের ঢেলে দেন। ফলে যত ভয়-ভীতি ও বিপদাপদ আসুক না কেন সে হতাশ হবেন না, অস্থির হবেন না, ভেঙ্গে পড়বেন না বরং মানসিকভাবে শক্তি ও সাহস খুঁজে পাবেন।

এ সাকিনাহ নাজিল করার মাধ্যমেই মহান আল্লাহ তাআলা মুমিনের ঈমান আরও বাড়িয়ে দেন। সেই সঙ্গে আল্লাহর প্রতি বান্দার আস্থা ও নির্ভরতা আরও বেশি সুদৃঢ় হয়।

সাকিনাহ বা প্রশান্তি মহান আল্লাহর তাআলা বিশেষ অনুগ্রহ। তিনি মুমিন বান্দার প্রতি তা নাজিল করেন। এ সাকিনাহ বা প্রশান্তি অবতীর্ণ হওয়ার ফলে মুমিন বান্দার অন্তরে যেমন প্রশান্তি বেড়ে যায়, তেমনি ওইসব ঈমানদারদের সঙ্গে চলাফেরাকারী সঙ্গীদের ঈমানও বেড়ে যায়। আল্লাহ তাআলা বলেন-

هُوَ الَّذِي أَنزَلَ السَّكِينَةَ فِي قُلُوبِ الْمُؤْمِنِينَ لِيَزْدَادُوا إِيمَانًا مَّعَ إِيمَانِهِمْ

‘তিনি মুমিনদের অন্তরে সাকিনাহ (প্রশান্তি) অবতীর্ণ (দান) করেন; যাতে তাদের ঈমানের সঙ্গে আরও ঈমান বেড়ে যায়।’ (সুরা আল-ফাতহ : আয়াত ৪)

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘কুরআন তেলাওয়াতকারীর প্রতি এ সাকিনাহ নাজিল হয়।’ হাদিসের বর্ণনায় তা প্রমাণিত-

হজরত বারা ইবনে আজেব রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, ‘একবার এক ব্যক্তি সুরা কাহফ তেলাওয়াত করছিল। তার পাশেই দুটি রশি দিয়ে একটি ঘোড়া বাঁধা ছিল। ওই সময় এক খণ্ড মেঘ তাকে ঢেকে নিল। মেঘের খণ্ডটি যতই লোকটির কাছাকাছি হতে লাগলো; তা দেখে ঘোড়াটি চমকাতে আরম্ভ করল। অতপর যখন সকাল হল তখন লোকটি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের দরবারে উপস্থিত হলেন এবং ঘটনাটি বর্ণনা করলেন। ঘটনাটি (শুনে) রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, ‘সেটি ছিল ‘সাকিনাহ বা প্রশান্তি’; যা তোমার কুরআন তেলাওয়াতের কারণে নাজিল হচ্ছিল।’ (বুখারি ও মুসলিম)

সাকিনাহ লাভের উপায় ও দোয়া

আল্লাহর রহমত ছাড়া সাকিনাহ বা প্রশান্তি পাওয়ার কোনো উপায় নাই। সে কারণেই মহান আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করা, কুরআন তেলাওয়াত করা কিংবা আল্লাহর বিধানগুলো মেনে চলার কোনো বিকল্প নেই। তাই মুমিন মুসলমানের উচিত-

- বেশি বেশি জিকির ও দোয়া করা।–

اَللَّهُمَّ أَنْزِل عَلَى قَلْبِىْ السَّكِيْنَة

উচ্চারণ : ‘আল্লাহুম্মা আংযিল আলা ক্বালবি সাকিনাহ

অর্থ : ‘হে আল্লাহ! আপনি আমার অন্তরে সাকিনাহ বা প্রশান্তি দান করুন।’

- কুরআন তেলাওয়াত করা।

- বেশি বেশি তওবা-ইসতেগফার করা।

- নিজের কাজের আত্মসমালোচনা করে সংশোধন হওয়ার প্রচেষ্টা করা।

- ভালো-মন্দ সব বিষয়ে আল্লাহর ফয়সালার ওপর বিশ্বাস রাখা।

- কল্যাণ লাভে আল্লাহর প্রতি সুধারণা পোষণ করা।

- গোনাহের কাজ থেকে বিরত থাকা।

- আল্লাহর দেয়া ফরজ বিধান ঈমানি মজবুতির সঙ্গে আদায়, ফরজ নামাজে যত্নশীল হওয়ার পাশাপাশি বেশি বেশি নফল ইবাদত করা।

- সৎ লোকদের সংস্পর্শে থাকা।

- সব সময় অল্প প্রাপ্তিতেই সন্তুষ্ট থাকা এবং দুনিয়ার দিকে উচ্চভিলাষী দৃষ্টিতে তাকানো থেকে বিরত থাকা।

তবেই আল্লাহ তাআলা মুমিন বান্দার প্রতি নাজিল করবেন সাকিনাহ বা প্রশান্তি। দান করবেন ঈমানের মিষ্টতা, অনাবিল সুখ, শান্তি ও পরিতৃপ্তি। আল্লাহ তাআলা কবুল করুন। আমিন।

মনে রাখা জরুরি

সাকিনাহ যেহেতু বান্দার প্রতি মহান আল্লাহর বিশেষ রহমত বা অনুগ্রহ। তাই আল্লাহর অনুগ্রহ লাভে কুরআন-সুন্নাহ মোতাবেক জীবনযাপনের বিকল্প নেই।

যখনই বান্দা মহান আল্লাহর রঙে নিজের জীবন রাঙিয়ে তুলবে তখনই তার ওপর নাজিল হতে থাকবে সাকিনাহ বা প্রশান্তি। আর আল্লাহর পক্ষ থেকে আসবে বিজয় ও ক্ষমা এবং জীবন নেয়ামতে পরিপূর্ণ হবে। আল্লাহ তাআলা প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে উদ্দেশ্য করে বলেন-

‘(হে রাসুল!) নিশ্চয় আপনার জন্য রয়েছে সুস্পষ্ট বিজয় যাতে আল্লাহ তাআলা আপনার অতিত ও ভবিষ্যৎ ত্রুটিগুলো ক্ষমা করে দিয়েছেন এবং আপনার প্রতি তার নেয়ামত পূর্ন করে দিয়েছেন আর আপনাকে সঠিক পথে পরিচালিত করেছেন আর আপনাকে দান করেছেন বলিষ্ট সাহায্য তিনিই সেই মহান সত্তা; যিনি মুমিনের অন্তরে প্রশান্তি নাজিল করেন যাতে তাদের ঈমানের সঙ্গে আরও ঈমান বেড়ে যায় আসমান ও জমিনের সব বাহিনী মহান আল্লাহর জন্য আল্লাহ সর্বজ্ঞ, প্রজ্ঞাময়’ (সুরা ফাতহ : আয়াত ১-৪)

আল্লাহ তাআলা মুমিন মুসলমানকে দান করুন তার সবচেয়ে শ্রেষ্ঠ নেয়ামত সাকিনাহ। যে সাকিনাহ লাভে মুমিন হবে ধন্য। পাবে গোনাহমুক্ত নেয়ামতে পরিপূর্ণ জীবন। আমিন।


আরও খবর



১০ মাস পর বেনাপোল দিয়ে চাল আমদানি, তিন দিনে এলো ৭১২ টন

প্রকাশিত:Monday ১৮ July ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ০৯ August ২০২২ | ৫১জন দেখেছেন
Image

দেশে চালের বাজারে ঊর্ধ্বগতি রুখতে আমদানি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে দীর্ঘ ১০ মাস ১২ দিন পর বৃহস্পতিবার (১৪ জুলাই) থেকে বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারত থেকে পুনরায় চাল আমদানি শুরু হয়েছে।

সোমবার (১৮ জুলাই) সন্ধ্যা পর্যন্ত তিন দিনে এ বন্দর দিয়ে ৭১২ টন চাল বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করেছে। যার আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান মেসার্স বেলাল হোসাইন, মেসার্স লিপু এন্টারপ্রাইজ ও মেসার্স দিন ইসলাম।

বেনাপোল আমদানি-রপ্তানি সমিতির সহ-সভাপতি আমিনুল হক জাগো নিউজকে বলেন, দেশে উৎপাদিত চালের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ সরকার গত বছরের ৩১ আগস্ট ভারতীয় চাল আমদানি বন্ধ করেছিল। বর্তমানে দেশে বিভিন্ন জায়গায় বন্যায় ফসলের ব্যাপক ক্ষতিতে বেড়ে গেছে চালের দাম। এছাড়াও খাদ্য ঘাটতির আশঙ্কাও বাড়ছিল। এতে সরবরাহ স্বাভাবিক ও বাজারের ঊর্ধ্বগতি রুখতে খাদ্য মন্ত্রণালয় শর্ত সাপেক্ষে ৩০ জুন দেশের ৯৫ জন আমদানিকারককে ভারত থেকে ৪ লাখ ৯ হাজার টন চাল আমদানির অনুমতি দেয়।

আমিনুল হক আরও বলেন, আমদানির চালের মধ্যে ৩ লাখ ৭৯ হাজার টন সেদ্ধ চাল ও ৩০ হাজার টন আতপ চাল রয়েছে। ২১ জুলাইয়ের মধ্যে চালের এলসি খোলা সম্পন্ন ও ১১ আগস্টের মধ্যে আমদানির চাল দেশে বাজারজাত শেষ করতে নির্দেশ দিয়েছে খাদ্য মন্ত্রণালয়।

be-(2)

চাল খালাসে নিয়োজিত বেনাপোলের সিঅ্যান্ডএফ ব্যবসায়ী সেজুতি এন্টারপ্রাইজের প্রতিনিধি তুফান জাগো নিউজকে বলেন, চালের ট্রাক বেনাপোল বন্দরে ঢোকার আগে ভারতের বনগাঁ কালিতলা পার্কিংয়ে ২০ থেকে ২৫ দিন সিরিয়ালে আটকা ছিল। এখনো অনেক চালবোঝাই ট্রাক কালিতলা পার্কিংয়ে আটকা পড়ে আছে। পচনশীল ও জরুরি খাদ্য পণ্য হিসেবে এসব ট্রাক আগে প্রবেশের নির্দেশ থাকলেও ভারতীয় পার্কিং কর্তৃপক্ষ সিরিয়াল ছাড়া এসব ট্রাক বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করতে দিচ্ছে না। যদি চালের ট্রাক বন্দরে দ্রুত প্রবেশের অনুমতি দেয় তবে দেশের বাজারে দাম অনেকটা কমে আসবে।

বেনাপোল চেকপোস্ট কাস্টমস কার্গো শাখার রাজস্ব কর্মকর্তা এনাম হোসেন জাগো নিউজকে বলেন, তিন দিনে ৭১২ টন চাল আমদানি হয়েছে। তবে দিন ইসলাম নামের একটি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান বৃহস্পতিবার (১৪ জুলাই) আনা ১০৫ টন চাল খালাসের জন্য আজ সোমবার বেনাপোল কাস্টমস হাউজে কাগজপত্র দাখিল করেছে। অন্য আমদানিকারকরা কাগজপত্র সংকটের কারণে এখনো চাল খালাস নিতে পারেনি। আমদানিকৃত চাল বন্দর থেকে যাতে দ্রুত খালাস দেওয়া যায় কাস্টমস তার সবরকম ব্যবস্থা নিয়েছে।

বেনাপোল বন্দরের উপ-পরিচালক (ট্রাফিক) মামুন কবীর তরফদার জাগো নিউজকে বলেন, ব্যবসায়ীরা যাতে দ্রুত বন্দর থেকে চাল ছাড় করাতে পারেন সে লক্ষ্যে অগ্রাধিকারভিত্তিতে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে খালাসের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে ভারত সীমান্তে যাতে বেশি দিন ট্রাক আটকে না থাকে তার জন্যও অনুরোধ জানানো হয়েছে।


আরও খবর