Logo
আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দু‘গ্রুপে সংঘর্ষে আহত-১০

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০২ ফেব্রুয়ারী 2০২3 | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ২৪২জন দেখেছেন

Image

রৌমারী (কুড়িগাম) প্রতিনিধি : রৌমারী উপজেলায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুইগ্রুপে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের নারী পুরুষসহ ১০জন আহত হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এসময় স্বজনরা আহতদের উদ্ধার করে রৌমারী হাসপাতালে ভর্তি করেন। আহতদের মধ্যে ২জন   গুরুত্বর অবস্থায় ১ জনকে জামালপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। বুধবার সন্ধা ৬টার দিকে উপজেলার যাদুরচর ইউনিয়নের উত্তর লালকুড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।


স্থানীয় ও পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, কাশিয়াবাড়ী গ্রামের আব্দুল মজিদের ছেলে লাল বাবু(৩৫) উত্তর লালকুড়া গ্রামের জিঞ্জিরাম নদীর খেয়া ঘাট পাড়াপারের সময় ওই গ্রামের জয়নুদ্দিনের ছেলে নয়নকে অনুরোধ করেন। এ সময় ৮ বছরের একটি শিশু বাচ্চা জুয়েল নামে ঝাল মুড়ি খাওয়ার বায়না ধরে। এসময় জুয়েলের বাবা সামিজ উদ্দিন বাচ্চার চাওয়াপাওয়া ঝাল মুড়ি কিনে দেওয়ার জন্য নদী পাড় হতে একটু সময় অপেক্ষা করতে বললে লাল বাবু নামে ঝাল মুড়ি পরে আমাকে আগে পার করে দে নইলে খবর খারাপ হবে। অথচ ঝাল মুড়ির দোকানটা নৌকা ঘাটের সাথেই লাগুয়া মাত্র ৫ মিনিট এর ব্যাপার এটুকু সময় লাল বাবুর সজ্জ করার সময় ছিলোনা। পরে জুয়েল এর বাবার সঙ্গে তর্কে জরিয়ে পরে। বা”চার ঝাল মুড়ি খাওয়ার অপরাধে নৌকার প্যাসেঞ্জার লাল বাবু ওই ঝাল মুড়ি খেতে চাওয়া বাচ্চাটাকে এরোপাতারি চর থাপ্পর মারতে থাখে। এসময় বাচ্চারটি বাবা সামিজ উদ্দিন আমার ছেলেকে মারছেন কেন। একথা বলার সাথে লাল বাবু বাচ্চার বাবাকেও এলোপাতারি কিলঘুষী মারতে থাকে। ঘাটের আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে তাদের সাথেও একই শক্তি প্রয়োগ করলে ওইটাকে কেন্দ্র করে সংর্ঘষের ঘটনা ঘটে। পরে লাল বাবু তার আত্ময়ী সুজনদের খবর দেয়। তার আত্মীয় স্বজনদের দেশীয় অস্ত্র সস্ত্র নিয়ে ঘাটের উপরে সুলতান মাহমুদ নামের বাড়িতে গিয়ে ঘরে ঢুকে এলোপাতারিভাবে কুপিয়ে কয়েকজনকে আহত করে। সুলতানের চিৎকারে গ্রামবাসীরা এগিয়ে আসলে লাল বাবু বাহিনীর লোকজন পালিয়ে গেলেও লাল বাবু জনতার হাতে আটক হয়। লাল বাবুর মারামারির খবর ছড়িয়ে পড়লে লালবাবু দুইগ্রুপের জেলালের ছেলে নজরুল, শহরের ছেলে নাজির, নয়ন ও নাজমুলসহ ১০/১২জনের ডাঙ্গা বাহিনীর একটি টিম এসে তারা বাড়িতে হামলাদেয় এবং এলোপাতারি মারপিট করে। এতে গ্রামবাসির মধ্য আতংঙ্ক সৃষ্টি হয়। করে ঘরে থাকা ৭ লাখ টাকা এবং ৪ ভরি  স্বর্ণে গহনা বাক্সের তালা ভেঙ্গে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। আহতরা হলেন ঝাল মুড়ি খাওয়া জুয়েল বাচ্চা দুইগ্রুপের,হাফিজের ছেলে সুলতান, গফুর ও আনারুল,মোছাঃ বিউটি-রুবিনা,লাইলি,রুকসানাসহ আরো অনেকেই,আহতবস্থায়  রৌমারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছে। একজনকে ময়মনসিংহে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠিয়েছে। পরে খবর পেয়ে রৌমারী থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

রৌমারী থানার অফিসার ইনচার্জ রুপ কুমার সরকার জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থানে গিয়ে পরিস্থিতি  নিয়ন্ত্রণে আনে।


আরও খবর



মাগুরায় ৩৩ শ' পরিবারের মাঝে জেলা আওয়ামী লীগ নেতার ত্রাণ বিতরণ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৬১জন দেখেছেন

Image
স্টাফ রিপোর্টার মাগুরা থেকে:মাগুর সদর উপজেলার ১৩ টি ইউনিয়ন ও পৌরসভার ৯ টি ওয়ার্ডের ৩ হাজার ৩ শ' দুস্থ অসহায় পরিবারের মাঝে  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে ব্যাক্তিগত অর্থায়ানে ত্রাণ বিতরণ করেন  মাগুরা জেলা আওয়ামী লীগের উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক লায়ন জাহিদুর রেজা চন্দন। মূলত বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারির কারণের কর্মহীন হয়ে পড়া ও এলাকার সহায় সম্বলহীনদের দুর্দশা লাঘবের জন্য  প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে তিনি করোনাকালীন সময় থেকে এ ত্রাণ বিতরণ শুরু করেন, যা বর্তমানে অব্যাহত রেখেছেন। শীত মৌসুমে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর কম্বলসহ শীতবস্ত্র বিতরণ করেন। মানুষের মাঝে চাল আটা ডাল তৈল আলু ছাড়াও অতি প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রী বিতরণ করে মানুষের নজরে এসেছেন।তিনি প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে মসজিদের ইমামদের মধ্যে আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন। তার এ কর্মকান্ডের প্রেক্ষিতে তিনি কোন নির্বাচনে প্রার্থী হবেন কিনা জিঙ্গাসা করা হলে তিনি জানান, জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হলে জনগনের সেবা করার বেশী সুযোগ পাওয়া যায়। জনগন যদি তাকে জনপ্রতিনিধি হিসেবে সমর্থন দেয় তা হলে তিনি আগামী উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার ইচ্ছা পোষন করেন। 

মাগুরা জেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে তার ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত  ছিলেন মাগুরা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক  পঙ্কজ কুমার কুন্ডু, সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান শেখ মোঃ রেজাউল ইসলাম, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের  সভাপতি বাবুল ফকির সহ সংশ্লিষ্ট উপজেলার ইউনিযন সমুহের আওয়ামী লীগের সভাপতি,সাধারণ সম্পাদক এবং মাগুরা পৌরসভার নয়টি ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক বৃন্দ।

লায়ন জাহিদুর রেজা চন্দন আরো বলেন যতদিন তার সামর্থে কুলাবে ততদিন তিনি এ সাহায্য করে যাবেন এবং অসহায় মানুষের পাশে সব সময় থাকবেন। 

আরও খবর



রূপগঞ্জে শিক্ষার মান বৃদ্ধির লক্ষ্যে মত বিনিময় সভা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১১৫জন দেখেছেন

Image

আবু কাওছার মিঠু রুপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি:নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ উপজেলার শিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধি লক্ষ্যে উপজেলা প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি, অভিভাবক ও শিক্ষক মন্ডলীর সমন্বয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার সকালে রুপগঞ্জ উপজেলার মুড়াপাড়া সরকারি পাইলট মডেল হাই স্কুল মাঠে আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহসান মাহমুদ রাসেল।এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-১ আসন রূপগঞ্জের সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক।

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রুপগঞ্জ উপজেলার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ফেরদৌসী আলম নীলা, মুড়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব তোফায়েল আহমেদ আলমাছসহ, অত্র মুড়াপাড়া সরকারি পাইলট মডেল হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক শাহ আলম এবং স্কুলের সকল শিক্ষক শিক্ষিকাসহ আরো অনেকে।পরে উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে রুপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহসান মাহমুদ রাসেল বলেন, স্কুল চলাকালীন বহিরাগত কোন লোক কাজ ছাড়া স্কুলের আশেপাশে এবং স্কুলের ভিতরে ঘুরাফেরা করতে পারবে না।

এবং কোন ছেলে যদি স্কুলের কোন মেয়েদের ইভটিজিং করে রাস্তায় বা স্কুলের ভিতরে তাহলে সে যেই হোক না কেনো অবশ্যই তাকে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক বলেন, এই সরকার শিক্ষা বান্ধব সরকার শিক্ষার মান উন্নয়নের জন্য শিক্ষার্থীদের গার্জিয়ান এবং শিক্ষকদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন খেলাধুলা করলে মানুষের মন ভালো থাকে তাই পড়াশোনার পাশাপাশি খেলাধুলায়ও মনোযোগী হতে হবে। এবং শিক্ষকদের এ বিষয়টি খেয়াল রাখতে হবে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



বইমেলাকে কেন্দ্র করে সুনির্দিষ্ট হুমকি নেই: ডিএমপি কমিশনার

প্রকাশিত:বুধবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ১১১জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:এবার বইমেলাকে কেন্দ্র করে সুনির্দিষ্ট হামলার কোনো হুমকি নেই বলেছেন,ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার হাবিবুর রহমান ।

বুধবার (৩১ জানুয়ারি) সকালে অমর একুশে বইমেলা প্রাঙ্গণ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ডিএমপির নেওয়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শনের সময় সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, বইমেলা অসাম্প্রদায়িক আয়োজন। এই আয়োজনকে বিভিন্ন সময় হুমকির মুখে পড়তে হয়েছে। এখানে নাশকতা ও জঙ্গি তৎপরতার অতীত ঘটনা রয়েছে। এই বিষয়টি স্পষ্টভাবে মাথায় রেখে নিরাপত্তা পরিকল্পনা সাজানো হয়েছে। তবে, সুনির্দিষ্ট কোনো হুমকি নেই।

তিনি বলেন, বিভিন্ন সময় বেশ কিছু বইয়ের বিষয়ে আপত্তি জানিয়েছে পুলিশ। এবার এ ধরনের কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে কী না? এসন প্রশ্নে তিনি বলেন, কোনো বইয়ের লেখার বিষয়টি বাংলা একাডেমি দেখাশোনা করে থাকে। তবে, এমন কোনো লেখা বা বিষয় যদি পাঠকের নজরে আসে বা গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয় এবং সেটি নিয়ে যদি কোনো সমালোচনা হয় তখন পুলিশের পক্ষ থেকে পর্যবেক্ষণ করা ও প্রয়োজন হলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার প্রয়োজন হয়, তাহলে সেই ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়ে থাকে।


আরও খবর



দেশে একদিনে আরও ৪৪ জনের করোনা শনাক্ত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯৫জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:বৃহস্পতিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) দেশে একদিনে আরও ৪৪ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে মোট আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২০ লাখ ৪৭ হাজার ৭৫৩ জনে।

বৃহস্পতিবার করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় ৪৪ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে, এই সময়ে করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ৪৭ জন। তবে এ সময়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্যু হয়নি।

এতে আরও বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় পরীক্ষা করা হয় ৪৭৭ নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৯ দশমিক ২২ শতাংশ। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ০৮ শতাংশ।

প্রসঙ্গত, ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম ৩ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ওই বছরের ১৮ মার্চ দেশে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। ২০২১ সালের ৫ ও ১০ আগস্ট দু’দিন করোনায় সর্বাধিক ২৬৪ জন করে মারা যান।


আরও খবর



নির্বাচন কোথায় সুষ্ঠু হয়নি, দেখাতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:শনিবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯৫জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:কিছু দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায় থেকে বলা হচ্ছে যে, নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হয়নি। তাদের দেখাতে হবে, কোথায় সুষ্ঠু নির্বাচন হয়নি, বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ।

শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) সকালে গণভবনে আয়োজিত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

সদ্য সমাপ্ত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নির্বাচন যাতে প্রশ্নবিদ্ধ না হয়, তার জন্য নির্বাচন উন্মুক্ত করে দিয়েছিলাম। এই নির্বাচনকে কেউ প্রশ্নবিদ্ধ করতে পারেনি। কিন্তু কিছু দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায় থেকে বলা হচ্ছে যে, নির্বাচন হয়েছে ঠিক, কিন্তু অবাধ ও সুষ্ঠু হয়নি।

তিনি বলেন, তাদের দেখাতে হবে কোথায় সুষ্ঠু নির্বাচন হয়নি। আমরা তো এতটুকু বলতে পারি, নির্বাচন অত্যন্ত অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে হয়েছে।

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন, ৮১টা সংস্কার প্রস্তাব কার্যকর করে নির্বাচন কমিশনকে স্বাধীন করে দিয়েছি। নির্বাচন কমিশন যাতে নিরপেক্ষভাবে কাজ করতে পারে, সে ব্যবস্থা করেছি। এই সাহস আওয়ামী লীগেরই আছে। যার কারণে নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়েছে।

নির্বাচন যাতে না হয়, সেজন্য ‌বিরাট চক্রান্ত-ষড়যন্ত্র ছিল মন্তব্য করে শেখ হাসিনা বলেন, নির্বাচন যাতে না হয় অর্থাৎ নির্বাচন হলে বাংলাদেশের মানুষের যে আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন হচ্ছে, সেটি অনেকের সহ্য হয়নি, তাই এমন একটি চক্রান্ত ছিল।

তিনি বলেন, ‌বিএন‌পি নির্বাচনে না এসে নির্বাচন বানচাল করার জন্য জ্বালাও-পোড়াও, অগ্নিসংযোগ শুরু করল। কারণ তারা জানত, জনগণের জন্য কাজ করে আওয়ামী লীগ জনগণের আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করেছে।

আওয়ামী লীগ প্রধান বলেন, নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করবে। এজন্যই তারা নির্বাচন বানচাল করার ষড়যন্ত্র করেছে। এই কাজে উৎসাহ যুগিয়েছিল তাদের কিছু প্রভু।

শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা আন্দোলন করে জনগণের ভোট ও ভাতের অধিকার তাদের হাতে ফিরিয়ে দিয়েছে। আমরা জনগণের কল্যাণে কাজ করেছি। তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছি।

তিনি বলেন, আমাদের উন্নয়ন তৃণমূল পর্যায় পর্যন্ত। সমাজের প্রত্যেকটা স্তরের মানুষ কেউ যাতে অবহেলিত না থাকে, সে অনুযায়ী আমরা পরিকল্পনা নিয়েছি এবং বাস্তবায়ন করেছি। জনগণের আস্থা, বিশ্বাস অর্জন করতে সক্ষম হয়েছি।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, জনগণই আমাদের একমাত্র শক্তি। জনগণের সংগঠন যদি বাংলাদেশে একটি থাকে, সেটি আওয়ামী লীগ। তাই সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।

আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় নিজেদের মধ্যে কোনো সংঘাত যেন না হয় এবং একে অপরের দোষ না খুঁজতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান শেখ হাসিনা।

সভায় আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটি, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, জেলা, মহানগর ও উপজেলা, থানা, পৌর (জেলা সদরে অবস্থিত পৌরসভা) কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, জাতীয় সংসদের দলীয় ও স্বতন্ত্র সদস্য, জেলা পরিষদ ও উপজেলা পরিষদের দলীয় চেয়ারম্যান অংশ নেন।


আরও খবর