Logo
আজঃ বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম
নিলয় কোটা আন্দোলনকারীদের পক্ষ নিয়ে কী বললেন স্থগিত ১৮ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা তিতাসের অভিযানে নারায়ণগঞ্জের ২ শিল্প কারখানার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন হিলি দিয়ে কাঁচা মরিচ আমদানি বাড়ায় বন্দরের পাইকারী বাজারে কেজিতে দাম কমেছে ৩০ টাকা জয়পুরহাটে ডাকাতির পর প্রতুল হত্যা মামলায় ৬ জনের যাবজ্জীবন রিয়েলমি সার্ভিস ডে: ফোন রিপেয়ারে খরচ বাঁচান ৬০% পর্যন্ত, উপভোগ করুন ফ্রি সার্ভিস সুনামগঞ্জে ইয়াবাসহ ২জন গ্রেফতার: কোটিপতি সোর্স ও গডফাদার অধরা কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ৩ দিনে ৩ খুন, আইনশৃংখলার অবনতি জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

তদারকির অভাবে, নবীনগর শিবপুর-রাধিকা সড়কে অতিরিক্ত ভাড়া

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৭১১জন দেখেছেন

Image

মোহাম্মাদ হেদায়েতুল্লাহ্ নবীনগর ব্রাহ্মণবাড়ীয়া প্রতিনিধি:ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে নবীনগর উপজেলায় যাতায়াতে কাইতলা,বিটঘর, শিবপুর, কুড়িঘর, গোকনঘাট, নারুই রাধিকা সড়কের সিএনজি ভাড়া বেশি গুনতে হচ্ছে যাত্রীসাধারণের। আগে সিএনজি যোগে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে তিললাখপীর রোডে বিটঘর যাওয়া আসার সময় লাগত দুই ঘন্টা, তখন সিএনজি ভাড়া ছিল জনপ্রতি ১২০টাকা থেকে ১৩০ টাকা পর্যন্ত। অনেক সময় ঝড়বৃষ্টি অথবা যাত্রীদের সময়-সুযোগ বুঝে বেশি ভাড়া আদায় করে নেওয়ার অভিযোগও উঠে।যেসকল যাত্রীগণ রাধিকা হয়ে ব্রাহ্মণহাতা, শিবপুর, বিটঘর,পর্যন্ত সিএনজি যোগে যাতায়াত করে বর্তমানে ১৩০টাকা দিতে হচ্ছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া হতে রাধিকার রাস্তা ভাল হওয়ায় সময় লাগে আগের অর্ধেকর চেয়েও কম সময়।বিটঘর ইউনিয়নের গুড়িগ্রামের মোশারফ হোসেন বলেন,-" আমি বিটঘর পুকুরপাড় সিএনজি স্টেশন থেকে ৪৫মিনিট বা ৫০ মিনিট সময় লাগছে, এই নতুন  রাধিকা সড়কে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পর্যন্ত আসতে কিন্তু ভাড়া দিতে হয়েছে সেই চারগাছ-তিললাখপীর সড়ক হয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দুই ঘন্টা সময় লাগার ১৩০ টাকা ভাড়া, ৪৫/৫০ মিনিটে আসা ভাড়া কিভাবে ১৩০ টাকা নিল, তা আমার বোধগম্য নয়, আমি মেনে নিতে পারছি না, তবুও ১৩০টাকা ভাড়া দিলাম। আপনারা সাংবাদিকতা করেন, জনসাধারণের কষ্টের কথা তুলে ধরা আপনাদের দায়িত্বের মধ্যে পড়ে, এই নিয়ে কিছু একটা করেন!!। 

তেমনি আরেকজন মহিলা যাত্রী নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক, তিনি বলেন-"আগে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে তিললাখপীর রোডে বিটঘর দুই ঘন্টার যাতায়াতের ভাড়া যদি ১৩০টাকা আদায় করে, তাহলে বর্তমানে রাধিকারোডে ব্রাহ্মণহাতা,শিবপুর হয়ে বিটঘর পর্যন্ত সময় অনুযায়ী ৬০টাকা ভাড়াই অনেক বেশি। নতুন রোডে সঠিক তদারকির অভাব। তাই নতুন এই রোডে ব্রাহ্মণবাড়িয়া হতে ব্রাহ্মণহাতা, শিবপুর এবং বিটঘরের সিএনজি ভাড়ার বিষয়ে কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেন।যেখানে সিএনজি ডাইভাররা মনগড়া ইচ্ছে মতো ভাড়া নিয়ে যাচ্ছে। আবার কখনো কখনো অতিরিক্ত টাকাও দিতে হচ্ছে। এই লাগামহীন ভাড়া আদায়ের,যেন দেখার কেউ নাই।

এখন রাস্তা ভালো করা হয়ছে, আগের সময় নতুন এই রাধিকা সড়কে এখন লাগে না, রাধিকা হয়ে নতুন রোডে বিটঘর যেতে বেশি হলে সময় লাগে ৪৫/৫০ মিনিট। এখানে ভাড়া অনেক বেশি নেওয়া হচ্ছে"। ব্রাহ্মণবাড়িয়া হতে ভাড়ার টাকা নতুন রোডে সঠিক তদারকির মাধ্যমে নির্ধারণ করে দেওয়ার জন্য জোরালো দাবী জানাচ্ছি কর্তৃপক্ষের নিকট"।সরেজমিনে গিয়ে খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, এই নতুন সড়কে অতিরিক্ত ভাড়া দিতে অনিচ্ছুক যাত্রীসাধারন। ভাড়া নিয়ে ড্রাইভার আর যাত্রীদের মধ্যে তর্কবিতর্ক যেন নিত্যদিনের সঙ্গী। ড্রাইভার আর যাত্রীদের মধ্যে তর্ক বিতর্কই থেমে যায় না, হাতাহাতি- মারামারির ঘটনাও অনেক সময় হয়ে থাকে এই ভাড়া অতিরিক্ত দিতে হচ্ছে মনে করে।

তাই অতিবিলম্ব এই রাধিকা সড়কে ব্রাহ্মণবাড়িয়া হতে যাতায়াতের জন্য ব্রাহ্মণহাতা, শিবপুর,বিটঘর ও কাইতলা পর্যন্ত প্রতি স্টেশনের নতুন ভাড়া নির্ধারণ করিয়া দিতে জরুরি ভিত্তিতে পদক্ষেপ গ্রহণ করিতে কর্তৃপক্ষের নিকট জোরালো দাবী জানাচ্ছেন এলাকাবাসী।বিটঘর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মেহেদী জাফর দস্তগীর এবিষয়ে বলেন,- এই রোড পরিচালনায় দায়িত্বরত সকলকে নিয়ে শিবপুর ফাঁড়ির ইনচার্জ কামাল হোসেন ভাইকে সাথে নিয়ে বসব, সকলের পরামর্শক্রমে অচিরেই নতুন করে ভাড়া নির্ধারণের ব্যবস্হা গ্রহন করবো, এই অতিরিক্ত ভাড়া কিছুতেই গ্রহনযোগ্য নয়, এখানের মত এত বেশি ভাড়া বাংলাদেশে কোথাও নাই আমার জানা মতে, আমি এর ব্যবস্হা নিব, সকলের মতামত নিয়ে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



রাজধানীর কদমতলীতে এক ব্যাক্তিকে কুপিয়ে হত্যা

প্রকাশিত:শুক্রবার ১২ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ৮৯জন দেখেছেন

Image

শফিক আহমেদ:রাজধানীর কদমতলী থানার পাটেরবাগ জমিদার বাড়ির গলির সামনে অজ্ঞাত দুষ্কৃতিকারীরা দেশীয় অস্ত্র দিয়ে মোঃ মাহবুব আলম(৫২) নামে এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

নিহত মাহবুব কদমতলির ১৪৫৪ নং দক্ষিণ ধনিয়ার মৃত আবুল হাসেম সোলায়মানের ছেলে।সে ঘটনাস্থল এলাকায় কোমল পানিও সরবরাহ করতো বলে জানিয়েছেন স্বজনরা।

বৃহস্পতিবার(১২ জুলাই) রাত সোয়া দশটার দিকে এই ঘটনা ঘটে।পরে রাত সাড়ে ১১ টার দিকে মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে জরুরি বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের ছোট ভাই রফিকুল আলম জানান ,আমার ভাই বিভিন্ন দোকানে কোমল পানীয় সরবরাহ করত। রাতে পায়ে হেঁটে পাটেরবাগ আহালে হাদিস মসজিদের পাশে জমিদার বাড়ির গলির সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় অজ্ঞাত দুষ্কৃতিকারীরা আমার ভাইকে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়।পরে খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে মুমূর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে গেলে চিকিৎসক জানান, আমার ভাই আর বেঁচে নেই।সে আরো জানায়, কে বা কাহারা আমার ভাইকে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে হত্যা করেছে সে বিষয়টি বলতে পারছি না।

বিষয়টি নিশ্চিত করে কদমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী আবুল কালাম আজাদ বলেন, প্রাথমিকভাবে আমরা জানতে পেরেছি ওই ব্যক্তির সাথে পূর্ব শত্রুতার জেরে এই ঘটনাটি ঘটেছে।

আমরা আরও জানতে পেরেছি নিহত ব্যক্তিকে ফোন দিয়ে ডেকে নিয়ে এই হত্যাকান্ড সংঘটিত হয়। এই হত্যাকান্ডের সাথে যারা জড়িত তাদেরকে গ্রেফতারের অভিযান চলছে। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গে রাখা হয়েছে।এ বিষয়ে আইনি প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে বলেও জানান ওসি আবুল কালাম জানান।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



বিএডিসির ফরিদপুর প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক পংকজ কর্মকার হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ৯৩জন দেখেছেন

Image
মারুফ সরকার, স্টাফ রিপোর্টার:বাংলাদেশ  কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি) বৃহত্তর ফরিদপুর ক্ষুদ্রসেচ উন্নয়ন প্রকল্পের পরিচালক পংকজ কর্মকারের দূর্নীতির কারণে মুখ থুবরে পড়েছে প্রকল্পের কাজ। প্রকল্প পরিচালকের দূর্নীতির ধরন দেখলে যে কেউ হতভাগ হয়ে পড়বেন। একাধিক সূত্রে জানা যায়, একজন প্রকল্প পরিচালককে সরিয়ে তিনি প্রকল্প পরিচালক হন এবং পরবর্তীতে তার সেচ্ছাচারিতার কারনে বিভিন্নভাবে সাবেক প্রকল্প পরিচালককে দিষ্টাব করার কারনে আগের প্রকল্প পরিচালক ষ্টোক করে মারা যায়। উপরের দিকের কর্মকর্তা তার নিজ এলাকার হওয়ায় তার যোগাযোগ ভাল হওয়ায় তিনি আর কাওকে পাত্তা দেন না। প্রকল্প দলিল অনুযায়ী ফরিদপুরে থাকার কথা থাকলেও সে সবসময় ঢাকায় অবস্থান করে। 

খোজ নিয়ে জানা যায়, পংকজ কর্মকার প্রকল্প পরিচালক হিসেবে যোগদান করে সংস্থার নিয়ম কানন কোন তোয়াক্কা না করে নিজের ইচ্ছামত কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন দেদারচ্ছে, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী পংকজ কর্মকার, ঘাপটি মেরে থাকা একজন দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা। নিজেকে সে সরকার দলীয় সমর্থক হিসেবে পরিচয় দেয়ার চেষ্টা করলেও প্রকৃতপক্ষে সে পারিবারিকভাবে এবং ছাত্রজীবন থেকে শুরু করে সর্বদায় মনেপ্রাণে একজন কট্টরপন্থী বিএনপিকর্মী ছিল। যা ছাত্র জিবনের কর্মকান্ড খুজলেই জানা যাবে। সে হিন্দু ধর্মালম্বী হওয়ায় বর্তমানে বীর মুক্তিযোদ্ধের স্বপক্ষের সরকার ক্ষমতায় থাকায় সে তার আসল চেহারা আড়াল করে সরকার দলীয় সমর্থকের নাটক করছে মাত্র।তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী পংকজ কর্মকার চাকরীর পাশাপাশি শশুরবাড়ীর লোকজনের পরিচয় গোপন করে ঠিকাদার সাজিয়ে প্রকল্পের বিভিন্ন টেন্ডার হাতিয়ে নিয়ে যেনতেনভাবে প্রকল্পের কাজ সম্পাদন করে সরকারি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এ কারনে ফরিদপুরের ঠিকাদারদের ভয়ে একাধিকবার ফরিদপুর থেকে ঢাকায় পালিয়ে থাকতো। সে এই প্রকল্পে কর্মরত থেকে কমপক্ষে ৩০-৪০ কোটি টাকা অবৈধভাবে উপার্জন করেছে। এখানেও সে মোটা অংকের ঘুষের বিনিময়ে দরপত্র আহবান করার পূর্বেই সে তার পছন্দের ঠিকাদারের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী ঘুস গ্রহন করে সে ঠিকাদারকে কাজপাইয়ে দিয়েছে। টাকার বিনিময়ে প্রকল্পের প্রতিটি কারিগরী কাজের মান সঠিক না হলেও তা সঠিক আছে মর্মে গ্রহন করছে। 

অপরদিকে সে তার পছন্দের ঠিকাদারদের অবৈধভাবে কাজ দিয়ে কাজ না করে টাকা ভাগাভাগি করছে। সে শুধু কিছুকাজ উর্ধবতন কর্মকর্তাদের দেখানোর জন্য সুন্দরভাবে রেডি করে পরিদর্শন কমিটির নিকট উপস্থাপন করে। অন্য কাজের অবস্থা খুবই খারপ যা সরজমিনে তদন্ত করলেই বেরিয়ে আসবে তার এই অনিয়মের কিছু চিত্র বানিজ্যিক অডিট টিমের নিকট ধরা পড়েছে এবং অডিট আপত্তি হয়েছে।

তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী, পংকজ কর্মকার তার অবৈধভাবে উপার্জিত অর্থ দিয়ে ঢাকার বনশ্রীতে ২১৫০ বর্গফুটের একটি ফ্ল্যাট ১.৮৫ কোটি টাকা দিয়ে ক্রয় করেছে। এ ছাড়া ঢাকার পূর্বাচল আমেরিকান সিটিতে এবং বসুন্ধারায় তার একটি করে প্লট রয়েছে। সে ঢাকা-মাওয়া রোডে একাধকি স্থানে ২০-২৫ বিঘা জমি ক্রয় করছে। সে শশুরবাড়ীর গ্রামে প্রচুর জমি ক্রয় করা ছাড়াও সে টাঙ্গাইল শহরের এলেঙ্গায় নিজ বাড়ীর আশেপাশে প্রায় ২০ বিঘা জমি ক্রয় করে সেখানে রিসোর্ট তৈরীর পরিকল্পনা গ্রহন করছে প্রকল্প শেষে সে উক্ত কাজে হাত দিবেন। ব্যক্তিগত ব্যবহারের জন্য তার রয়েছে প্রাইভেট কার যা সে শশুরবাড়ী রখেছে। এসব সম্পদের বেশির ভাগ তার নিজের নামে করেনি। তবে প্রকৃত মালিককে তার খবর নিলেই আসল রহস্য বের হয়ে আসবে। তার এত অঢেল অর্থ রয়েছে যে, শোনা যায় সে ভারতে একটি বিলাশবহুল বাড়ী ও ২টি ফ্লাট ক্রয় করেছে এবং প্রচুর টাকা প্রাচার করছে।

প্রকৌশলী পংকজ কর্মকার একজন বিএনপির একনিষ্ঠ কর্মী। তিনি ছাত্র জীবন থেকেই ছাত্রদলের রাজনীতির সাথে জড়িত৷ প্রকৌশলী পংকজ কর্মকার সহ বিএনপি সরকারের আমলে নিয়োগপ্রাপ্ত সকল হিন্দু কর্মকর্তা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের রাজনীতি করতেন। ছাত্রদল করতেন বিধায় বিএনপি সরকারের আমলে যাচাই-বাছাই করে হাওয়া ভবন থেকে তালিকা অনুযায়ী মাধ্যমে চাকুরী হয়।

এছাড়া ডিপিপিতে বিভিন্ন ক্রয়/কাজের পদ্ধতি নির্দিষ্ট করা থাকলেও তিনি নিজের ইচ্ছামত ক্রয় পদ্ধতি অবলম্বন করে নিজে লাভবান হওয়াসহ নিজের পছন্দের লোককে কাজ প্রদান করে সরকারের অর্থের অপচয় করেছেন অবৈধ পন্থায়।

এ ব্যাপারে প্রকল্প পরিচালক পঙ্কজ কর্মকারকে কল দেয়া হলে তিনি মোবাইল নাম্বারটি রিসিভ করেননি। 

আরও খবর



পত্নীতলায় সাঁওতাল বিদ্রোহ দিবস পালিত

প্রকাশিত:সোমবার ০১ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১১১জন দেখেছেন

Image
দিলিপ চৌহান, পত্নীতলা (নওগাঁ) প্রতিনিধি:পত্নীতলায় জাতীয় আদিবাসী পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির আয়োজনে সাঁওতাল বিদ্রোহের মহানায়ক সিধু ও কানুর স্মরণে ১৬৯তম ঐতিহাসিক সাঁওতাল বিদ্রোহ দিবস পালন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে সোমবার দুপুরে নজিপুর পুরাতন বাজার পত্নীতলা প্রেসক্লাবের অস্থায়ী কার্যালয়ে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

জাতীয় আদিবাসী পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভানেত্রী বিচিত্রা তির্কীর সভাপতিত্বে ও জাতীয় আদিবাসী পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক নরেন চন্দ্র পাহান এর সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন পত্নীতলা প্রেসক্লাব ও উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি সভাপতি আলহাজ্ব বুলবুল চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক দিলীপ চৌহান, জাতীয় আদিবাসী পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির কোষাধক্ষ্য মার্টিন মুরমু।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় আদিবাসী পরিষদ নওগাঁ সদর উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক নিতাই চন্দ্র পাহান, জাতীয় আদিবাসী পরিষদ পত্নীতলা  উপজেলা শাখা সাধারণ সম্পাদক পরেশ টুডু, মান্দা উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক নিপেন মুন্ডা, মহাদেবপুর উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক চঞ্চল পাহান, জেলা আদিবাসী ছাত্র পরিষদ সভাপতি মিঠুন পাহান, দপ্তর সম্পাদক শাকিল পাহান, জাতীয় আদিবাসী ছাত্র পরিষদ পত্নীতলা উপজেলা শাখা সভাপতি পলাশ পাহান, সাধারণ সম্পাদক জয়ন্ত পাহান,  উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মমতা রানী মহন্ত, দিলীপ কুমার দাস প্রমুখ।

বক্তারা বলেন এ বছর সাঁওতাল বিদ্রোহের ১৬৯ বছর পূর্ণ হচ্ছে। ইংরেজদের বিরুদ্ধে স্বাধিকার ফিরিয়ে আনার সংগ্রামের নাম সাঁওতাল বিদ্রোহ। এ বিদ্রোহই ছিল ইংরেজদের দেশ থেকে বহিষ্কার করার প্রথম আন্দোলন। আজ থেকে ১৬৯ বছর আগে ১৮৫৫ সালের এই সাঁওতাল সম্প্রদায়ের চার ভাই সিদু-কানহু-চানদ ও ভাইরোর নেতৃত্বে সাঁওতালরা ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক যুদ্ধ ঘোষণা করেছিল। এ যুদ্ধের উদ্দেশ্য ছিল ব্রিটিশ সৈন্য ও তাদের দোসর অসৎ ব্যবসায়ী, মুনাফাখোর ও মহাজনদের অত্যাচার, নিপীড়ন ও নির্যাতনের হাত থেকে নিজেদের রক্ষা করা। কিন্তু বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর পরেও সাঁওতালরা অধিকার থেকে বঞ্চিত।

আরও খবর



জামিন পেলেন পরীমণি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ১৬৬জন দেখেছেন

Image

আদালত প্রতিবেদক:আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন পেয়েছেন পরীমণি ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদের দায়ের করা হত্যাচেষ্টার মামলায়।

আজ ২৫ জুন মঙ্গলবার ঢাকার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এম সাইফুল ইসলামের আদালত শুনানি শেষে ১ হাজার টাকা মুচলেকায় তার জামিন মঞ্জুর করেন। এদিন সকাল ১০টা ১৫ মিনিটে আদালতে হাজির হন পরীমণি। এসময় তিনি আত্মসমর্পণ করে আইনজীবীর মাধ্যমে জামিন আবেদন করেন।

সম্প্রতি মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) ঢাকা জেলার পরিদর্শক মো. মনির হোসেন ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পরীমণি ও তার কস্টিউম ডিজাইনার জুনায়েদ বোগদাদী জিমির বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিল করেন। তাদের বিরুদ্ধে মারধর ও ভয়ভীতি দেখানোর অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। ১৮ এপ্রিল ঢাকার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এম সাইফুল ইসলামের আদালত দুই আসামিকে ২৫ জুন আদালতে হাজির হতে সমন জারি করেন।

২০২২ সালের ৬ জুলাই আদালতে মামলাটি করেন নাসির উদ্দিন। মামলার এজাহারে বলা হয়, পরীমনি ও তার সহযোগীরা অ্যালকোহলসেবী। সুযোগ বুঝে তারা বিভিন্ন নামিদামি ক্লাবে ঢুকে অ্যালকোহল পান করেন এবং পারসেল নিয়ে মূল্য পরিশোধ করেন না। পরীমণি তার পরিচিত পুলিশ কর্মকর্তাদের দিয়ে মিথ্যা মামলা করে হয়রানির ভয় দেখান।

২০২১ সালের ৯ জুন রাত ১২টার পর আসামিরা সাভারের বোট ক্লাবে ঢুকে দ্বিতীয়তলার ওয়াশরুম ব্যবহার করেন। পরে তারা ক্লাবের ভেতরে বসে অ্যালকোহল পান করেন। বাদী ও তার সহযোগী শাহ শহিদুল আলম রাত সোয়া ১টার দিকে যখন ক্লাব ত্যাগ করছিলেন, তখন পরীমণি উদ্দেশ্যমূলকভাবে বাদী নাসির উদ্দিনকে ডাক দেন এবং তাদের সঙ্গে কিছু সময় বসার অনুরোধ করেন।

একপর্যায়ে পরীমণি অশ্লীল অঙ্গভঙ্গির মাধ্যমে নাসির উদ্দিনকে আকৃষ্ট করার চেষ্টা করেন এবং একটি ব্লু লেবেল অ্যালকোহলের বোতল বিনামূল্যে পারসেল দেওয়ার জন্য বাদীকে চাপ দেন। বাদী এতে রাজি না হওয়ায় পরীমণি বাদীকে গালি দেন। বাদী এবং আসামিদের মধ্যে বাদানুবাদের একপর্যায়ে পরীমণি বাদীর দিকে একটি সারভিং গ্লাস ছুড়ে মারেন এবং হাতে থাকা মোবাইল ফোনটিও ছুড়ে মারেন। এতে নাসির উদ্দিন মাথায় এবং বুকে আঘাতপ্রাপ্ত হন। পরীমণি ও তার সহযোগীরা নাসির উদ্দিনকে মারধর ও হত্যার হুমকি দিয়েছেন ও ভাঙচুর করেছেন।


আরও খবর



তাহিরপুরে চোরাচালান ও চাঁদাবাজি বৃদ্ধি : নৌকাসহ ৫জন গ্রেফতার

প্রকাশিত:রবিবার ৩০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৫২জন দেখেছেন

Image

মোজাম্মেল আলম ভূঁইয়া-সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুরে দিনদিন বেড়েই চলেছে চোরাচালান ও চাঁদাবাজি বাণিজ্য। সরকারের কোটিকোটি টাকা রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে চোরাকারবারীরা প্রতিদিন ভারত থেকে অবৈধ ভাবে কয়লা ও চুনাপাথরসহ বল্ডার পাথর, গরু, ঘোড়া, মদ, গাঁজা, ইয়াবা, নাসির উদ্দিন বিড়ি, পেয়াজ ও চিনিসহ আরো বিভিন্ন প্রকার মালামাল ওপেন পাচাঁর করছে। পরে পাঁচারকৃত অবৈধ মালামাল থেকে পুলিশ, বিজিবি ও সাংবাদিকদের নাম ভাংগিয়ে সোর্স পরিচয়ধারী একাধিক মামলার আসামীরা উত্তোলন করছে লাখলাখ টাকা চাঁদা। সোর্সদের নেতৃত্বে চোরাচালান করতে গিয়ে বিএসএফের গুলিতে, নদীতে ডুবে ও গর্তে পড়ে এপর্যন্ত কয়েক হাজার শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু আজ পর্যন্ত সোর্সদের বিরুদ্ধে নেয়া হয়নি আইনগত কোন পদক্ষেপ। তবে নৌ-পুলিশ সীমান্তের পাটলাই নদীতে অভিযান চালিয়ে ইঞ্জিনের নৌকাসহ ৫জনকে গ্রেফতার করেছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে- প্রতিদিনের মতো আজ রবিবার (৩০ জুন) সকাল ৯টা থেকে দুপুর পর্যন্ত উপজেলার চারাগাঁও সীমান্তের এলসি পয়েন্টের পাহাড়ি ছড়া দিয়ে চোরাকারবারী কাঞ্চন মিয়া, সোহেল মিয়া, দীপক মিয়া, আনোয়ার হোসেন বাবলুগং প্রায় ১২০মেঃটন কয়লা পাচাঁর করে একাধিক ডিপু ও তাদের বসতবাড়িতে মজুত করে। তার আগে ভোর ৫টায় উপজেলার বীরেন্দ্রনগর ও চারাগাঁও সীমান্তের লামাকাটা, সুন্দরবন, জঙ্গলবাড়ি, কলাগাঁও, বাঁশতলা ও লালঘাট এলাকা দিয়ে গডফাদার তোতলা আজাদের সোর্স রফ মিয়া, আইনাল মিয়া, লেংড়া জামাল, সাইফুল মিয়া, রিপন মিয়া, বাবুল মিয়া, রুবেল মিয়া ও হারুন মিয়াগং প্রায় ৩৫০মেঃটন পাচাঁরকৃত অবৈধ কয়লা ১২টি স্টিলবডি ইঞ্জিনের নৌকা দিয়ে নিয়ে যায়। এছাড়াও কলাগাঁও নদী থেকে প্রতিদিন অবৈধ ভাবে বালি ও পাথর বিক্রি করছে একাধিক মামলার আসামী সোর্স রফ মিয়া ও আইনাল মিয়া। এদিকে গত শুক্রবার (২৮জুন) বিকেলে সীমান্তের পাটলাই নদীর সোলেমানপুর নামকস্থানে পাচাঁরকৃত অবৈধ মালামাল বোঝাই নৌকা থেকে চাঁদা উত্তোলনের সময় নৌ-পুলিশ অভিযান চালিয়ে সোর্স পরিচয়ধারী ফজলুল হক (৫২), হাবিবুর রহমান (৪৮), কহিনুর মিয়া (৩৮), কামরুল মিয়া (৩৫) ও এমরান মিয়া (৩২) কে হাতেনাতে গ্রেফতার করে। কিন্তু গত এক সপ্তাহে বালিয়াঘাট সীমান্তের লাকমা ও লালঘাট এলাকা দিয়ে গডফাদার তোতলা আজাদ ও তার সোর্স জিয়াউর রহমান জিয়া, মনির মিয়া, ইয়াবা কালাম, হোসেন আলী, রতন মহলদার, কামরুল মিয়াগং প্রায় ২শ মেঃটন কয়লা পাচাঁর করে সীমান্তের বসতবাড়ি, নিলাদ্রী লেকপাড় ও দুধেরআউটা গ্রামে নিয়ে মজুত করাসহ টেকেরঘাট সীমান্তের বুরুঙ্গাছড়া ও রজনীলাইন এলাকা দিয়ে সোর্স আক্কল আলী, রুবেল মিয়া ও কামাল মিয়াগং প্রায় ৩হাজার মেঃটন চুনাপাথর ও ১হাজার মেঃটন কয়লা পাচাঁর করে বিজিবি ক্যাম্পের আশেপাশে অবস্থিত বিভিন্ন ডিপুতে মজুত করলেও এব্যাপারে কোন পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। এছাড়াও পাশের চাঁনপুর সীমান্তের নয়াছড়া, রাজাই, কড়ইগড়া ও বারেকটিলা এলাকা দিয়ে সোর্স জামাল মিয়া, নজরুল মিয়া, রুসমত আলী, জম্মত আলী, সাহিবুর মিয়া, বুটকুন মিয়া ও লাউড়গড় সীমান্তের জাদুকাটা নদী, সাহিদাবাদ, দশঘর ও পুরান লাউড়গড় এলাকা দিয়ে সোর্স বায়েজিদ মিয়া, জসিম মিয়া, নুরু মিয়া, নবীকুল, জজ মিয়াগং প্রতিদিন ভারত থেকে ওপেন পাচাঁর করছে গরু, ঘোড়া, কয়লা, পাথর, নাসির উদ্দিন বিড়ি, মদ, গাঁজা, ইয়াবা, চিনি ও পেয়াজসহ বিভিন্ন মালামাল। কিন্তু তাদেরকে গ্রেফতারের জন্য নেওয়া হয়না কোন পদক্ষেপ।

এব্যাপারে টেকেরঘাট কোম্পানীর বিজিবির কমান্ডার দীলিপ বলেন- আমার এলাকা দিয়ে চোরাচালানের কোন খবর আমি পাইনা, পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। চারাগাঁও বিজিবি ক্যাম্পের কমান্ডার শফিকুল বলেন- আমাদের পক্ষ থেকে সীমান্ত এলাকা দিয়ে অবৈধ ভাবে কোন মালামাল পাচাঁরের অনুমতি নাই। তাহিরপুর থানার ওসি কাজী নাজিম উদিন বলেন- থানা পুলিশের কোন সোর্স নাই। সীমান্ত চোরাচালান বন্ধের দায়িত্ব বিজিবির। তবে নৌ-পুলিশ সদস্যরা অভিযান চালিয়ে ৫জনকে আটক করেছে জানতে পেরেছি। সুনামগঞ্জের টুকেরবাজার নৌ-পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ আতাউর রহমান বলেন- সীমান্তের জাদুকাটা ও পাটলাই নদীসহ বিভিন্ন স্থানে মালামাল পরিবহনকারী নৌকায় চাঁদাবাজি হয় জানতে পেরেছি। আমরা অভিযান চালিয়ে ইতিমধ্যে নৌকাসহ ৫জনকে গ্রেফতার করেছি। মামলা পক্রিয়াধীন রয়েছে। আমাদের এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।


আরও খবর