Logo
আজঃ সোমবার ২৪ জুন 20২৪
শিরোনাম

তানোরে হ্যাকার আতংকে বিকাশ ব্যবসায়ী গ্রাহকরা

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৪ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ২৪১জন দেখেছেন

Image
তানোর প্রতিনিধি: রাজশাহীর তানোরে হ্যাকার আতংকে বিকাশ ব্যবসায়ী ও গ্রাহকরা। বৃহস্পতিবার থানা মোড়ের দীর্ঘ দিনের মোবাইল ব্যবসায়ী দেলোয়ার হোসেনের বিকাশ থেকে হ্যাক করে প্রায় ১০ হাজার টাকা  নেয়। এর আগে একে সরকার সরকারী কলেজের প্রভাষক পাপুল সরকারের বিকাশ নম্বর থেকে ৬০ হাজার টাকা হ্যাক করে নেয়। এঘটনায় মোবাইল ব্যবসায়ী দেলোয়ার বৃহস্পতিবার বিকেলে থানায় জিডি করেন। এতে করে গ্রাহক ব্যবসায়ীরা হ্যাকার আতংকে পড়েছেন। শুধু বিকাশ ব্যবহার কারীরা না নগদ রকেটেও অহরহ হ্যাকিং করে মোটা টাকা আদায় করা হচ্ছে। 

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার দুপুর ২ টা ৪৬ মিনিটের দিকে ০১৭৮৮১০৮১১৩ নম্বর হতে ০১৭১২৩৬২৮৫৯ নম্বরে বিকাশ প্রেরনের সময় ভুলবসত একটি ডিজিট পরিবর্তন হয়ে / নম্বর তোলার সময় ভুলবশত ০১৭৪২৪৩০৩১৪ মোবাইল নম্বরে ৯ হাজার ৮০০ টাকা চলে যায়।

দেলোয়ার জানান, আমাকে ওই নম্বর থেকে ফোন করে বলে আপনার মোবাইলে ১৫ হাজার টাকা ভুল করে চলে গেছে, ফেরত দিলে উপকার হত। এমন কথা শোনার পর আমিও মোবাইলে দেখি টাকা এসেছে। আমি পুনরায় ৯ হাজার ৮০০ টসকা  দেওয়ার পর থেকে মোবাইল নম্বর বন্ধ পাওয়া যায় এবং  বাকি টাকা নাই হয়ে যায়।  যার জিডি নম্বর ১০১৬ তারিখ ২৩/০৩/২০২৩ ইং।
একই কায়দায় একে সরকার সরকারী কলেজের প্রভাষক রকিবুল সরকার পাপুলের বিকাশ থেকে চলতি মাসের প্রথম দিকে ৬৯ হাজার টাকা নিয়ে নেয়। স্থানীয়রা জানান, দেলোয়ার উপজেলার মধ্যে সর্ব প্রথম মোবাইল ব্যবসায়ী। তার মোবাইলে হ্যাক করে টাকা নিয়ে নিলে সাধারন গ্রাহক বা ব্যবসায়ীর টাকা নিতে আরো সহজ হবে। আবার ব্যাংকের লকার থেকে হ্যাক হয়। তাহলে গ্রাহকের মোবাইল হ্যাক করে টাকা নেয়া কোন ব্যাপারই না। এভাবে অনেকের টাকা খোয়া গেছে। কেউ প্রকাশ করেছে আর কেউ করেনি। তবে আইন শৃংখলা বাহিনীর উচিৎ এসব চক্রকে খুজে বের করা দরকার। তানাহলে হ্যাকাকেরা ভয়ংকার হয়ে উঠবে। যত প্রযুক্তি ততই যেন কারচুপি।
পাপুল সরকার জানান, টাকা হ্যাক হওয়ার পর থানায় জিডি করেছি, এতদিন হলো কোন কিনারা পাচ্ছেনা প্রশাসন। এসব চক্রকে না ধরলে সাধারন মানুষ আরো বেকায়দায় পড়বেন।

থানার ওসি কামরুজ্জামান মিয়া জানান, যে নম্বরে টাকা দিয়েছে এসব নম্বর ট্যাগ করা হচ্ছে এবং ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ কে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে, আসা করছি এচক্র কোন না কোন সময় ধরা পড়বেই।

আরও খবর



আদর্শ-ন্যায়বিচারভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠায় নৈতিক শিক্ষার প্রভাব সূদূরপ্রসারী: ধর্মমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ১৩১জন দেখেছেন

Image
লিয়াকত হোসাইন লায়ন,জামালপুর প্রতিনিধি:ধর্মমন্ত্রী মোঃ ফরিদুল হক খান বলেছেন, ধর্মীয় ও নৈতিক শিক্ষা শিক্ষার্থীদেরকে ধর্মীয় জ্ঞানে আলোকিত করার পাশাপাশি তাদের আচরণগত উৎকর্ষ সাধন এবং নৈতিক মূল্যবোধ সৃষ্টিতে বিশেষ প্রভাব ফেলে। একটি আদর্শ ও ন্যায়বিচার ভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠায় নৈতিক শিক্ষার প্রভাব সূদূরপ্রসারী।

২৭ মে সোমবার বিকেলে রাজধানীর নিউ ইস্কাটনে বিয়াম অডিটোরিয়ামে 'টেকসই উন্নয়ন অভিষ্ট অর্জন এবং নৈতিক শিক্ষার প্রসারে মন্দিরভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা প্রকল্পের ভূমিকা' বিষয়ক জাতীয় কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তৃত্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

ধর্মমন্ত্রী বলেন, মসজিদ-মন্দিরের মতো পবিত্র স্থানে বসে সাধারণ শিক্ষার পাশাপাশি নৈতিক শিক্ষা লাভের সুযোগ বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ। সাধারণ শিক্ষার সাথে নৈতিক শিক্ষার মেলবন্ধনে শিক্ষার মাহাত্ম্য ও গুরুত্ব অনেকগুণে বৃদ্ধি পায়। সমাজের সমস্ত জরা-ব্যাধি প্রতিরোধ করে একটি সুখী-সমৃদ্ধ উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণে এরূপ শিক্ষা অত্যন্ত ফলপ্রসূ।

ধর্মমন্ত্রী আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার দেশের উন্নয়নে সুনির্দিষ্ট ও সময়াবদ্ধ কর্মপরিকল্পনার নিরিখে কাজ করে যাচ্ছে।  গত দেড় দশকে জাতির সামনে তিনি ৩টি উন্নয়ন পরিকল্পনা পেশ করেছেন।  রুপকল্প-২০২১ এর সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সরকার সফল হয়েছে। বাংলাদেশ স্বপ্লোন্নত দেশের দুষ্টচক্র অতিক্রম করে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উন্নীত হয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, কাউকে পিছিয়ে রেখে উন্নয়ন সম্ভব নয়। এসডিজি’র অন্যতম মূলনীতি হলো কাউকে পিছিয়ে রাখা যাবে না। আমাদের মূল ফোকাসটা এখানেই। আমরা সবাইকে সমান তালে এগিয়ে নিতে চাই। সকল ধর্মের মানুষকে সমান গরুত্ব দিয়ে তাদের নাগরিক অধিকার নিশ্চিত করতে চাই।  সরকার সে লক্ষ্যেই কাজ করে যাচ্ছে। সরকারের অন্যান্য মন্ত্রণালয় ও বিভাগের ন্যায় ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় এসডিজির লক্ষ্য অর্জনে কাজ করে যাচ্ছে।

মন্দিরভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম প্রকল্পের গুরুত্ব তুলে ধরে ধর্মমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সময়ে চারিদিকে নৈতিক ও সামাজিক মূল্যবোধের চরম অবক্ষয় লক্ষণীয়। দুর্নীতি-সন্ত্রাস, ঘুষ, কালোবাজারি, মজুতদারি, ভেজাল প্রভৃতি ব্যাধিগুলো সমাজে জেঁকে বসেছে। এই ব্যাধির করাল গ্রাস থেকে সমাজকে বাঁচাতে হলে নৈতিক শিক্ষার বিকল্প নেই। এক্ষেত্রে এই প্রকল্পটির উপযোগিতা এখনও শেষ হয়ে যায়নি। প্রকল্প বাস্তবায়নে কোন ত্রুটি-বিচ্যূতি থাকলে সেটা অবশ্যই আমলে নিতে হবে। প্রকল্প বাস্তবায়নে সৎ ও একনিষ্ঠ থাকতে হবে।

ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মুঃ আঃ হামিদ জমাদ্দারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি  মাগুরা-২ আসনের  সংসদ সদস্য এবং হিন্দুধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ড. বীরেন শিকদার, সংরক্ষিত মহিলা আসন ও হিন্দুধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা শ্রীমতি আরমা দত্ত, কুমিল্লা-৭ আসনের সংসদ সদস্য ও হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি  ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের সচিব ড. কৃষেন্দু কুমার পাল ও মন্দিরভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কাযক্রম (৬ষ্ঠ পযায়) প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ড. শ্রীকান্ত কুমার চন্দ বক্তব্য রাখেন।

উল্লেখ্য মন্দিরভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম  প্রকল্পের আওতায় অনুষ্ঠিত এ কর্মশালায় প্রকল্পের সহকারী পরিচালক, মাস্টার ট্রেইনার, হিন্দুধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি, শিক্ষকমন্ডলী ও সাংবাদিকেরা অংশগ্রহণ করেন।

আরও খবর



পবিত্র হজ পালন শেষে দেশে ফিরেছেন ৩৯২০ জন‌, মৃত্যু হয়েছে ৩৫ বাংলাদেশির

প্রকাশিত:শনিবার ২২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৪৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:হজ পালন শেষে দেশে ফিরছেন হাজিরা। গত ২০ জুন থেকে শুরু হয়েছে ফিরতি ফ্লাইট। শনিবার (২২ জুন) ১০টি ফ্লাইটে দেশে ফিরেছেন ৩৯২০ জন। এদিকে হজ পালন করতে গিয়ে সৌদি আরবের মোট ৩৫ জন বাংলাদেশি হাজীর মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার (২২ জুন) ধর্ম-মন্ত্রণালয়ের হজ সম্পর্কিত সর্বশেষ বুলেটিনে এসব তথ্য জানানো হয়েছ। বাংলাদেশ হজ অফিস ঢাকা এবং সৌদি আরব সূত্রের বরাতে এসব তথ্য জানিয়েছে হেল্পডেস্ক।

হেল্পডেস্কের তথ্যমতে, বাংলাদেশ বিমানের প্রথম ফিরতি ফ্লাইট ৪১৭ হাজী নিয়ে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। ফ্লাইটটি সৌদির কিং আবদুল আজিজ বিমানবন্দর ছেড়ে আসে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টায়। পরদিন তিনটি বিমান সংস্থার আরও ১০টি ফ্লাইট ৪০৩৭ জন হাজী নিয়ে দেশে ফিরেছে।‌ হাজী নিয়ে শেষ ফ্লাইটটি দেশে ফিরবে ২২ জুলাই।

এবার বাংলাদেশ থেকে সর্বমোট ৮৫ হাজার ২২৫ জন (ব্যবস্থাপনা সদস্যসহ) হজযাত্রী সৌদি আরবে গেছেন। গত ৯ মে থেকে ১২ জুন পর্যন্ত সৌদি আরব যাওয়ার ফ্লাইট পরিচালিত হয়েছে ২১৮টি। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স পরিচালিত ফ্লাইট সংখ্যা ১০৬টি, সৌদিয়া এয়ারলাইন্স পরিচালিত ফ্লাইট ৭৫টি ও ফ্লাইনাসের ফ্লাইট ৩৭টি।

ফিরতি ফ্লাইট শেষ হবে আগামী ২২ জুলাই। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স অর্ধেক হজযাত্রী পরিবহন করবে। বাকি অর্ধেক পরিবহন করবে সৌদিয়া এয়ারলাইন্স ও ফ্লাইনাস এয়ারলাইন্স।


আরও খবর



সিরাজগঞ্জে বিশ্ব দুগ্ধ দিবস উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৮০জন দেখেছেন

Image
রাকিব সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি:'বৈশ্বিক পুষ্টিতে দুধ অপরিহার্য' এই  প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সিরাজগঞ্জে বর্ণাঢ্য র‌্যালি ও আলোচনা সভার মাধ্যমে বিশ্ব দুগ্ধ দিবস-২০২৪ পালিত হয়েছে।

শনিবার (১লা জুন)সকাল ১০ টায় জেলা প্রশাসক কার্যালয় চত্বর থেকে  সিরাজগঞ্জ জেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয় এবং প্রাণি সম্পদ ডেইরী উন্নয়ন প্রকল্প (এলডিডিপি) প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর মৎস্য প্রাণী সম্পদ এর আয়োজনে বর্ণাঢ্য র‌্যালি শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ জায়গা প্রদক্ষিণ করে জেলা প্রশাসক কার্যালয় এসে শেষ হয়।পরে শহিদ এ. কে.শামসুদ্দিন সম্মেলন কক্ষে আলোচনা সভা এবং ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে সম্মননা স্বারক ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা প্রশাসক মীর মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান এর সভাপতিত্বে বিশ্ব দুগ্ধ দিবস অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন,সিরাজগন্জ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এবং  সিরাজগঞ্জ সদর ও কামারখন্দ- ২ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য ড. জান্নাত আরা হেনরী । 

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন,মুখ্য আলোচক জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা:মোঃওমর ফারুক,অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক)গণপতি রায় প্রমুখ। 

জেলা প্রশাসক মীর মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান বলেন,প্রতিটি মানুষের সুস্থ থাকতে হলে দুধ খাওয়ার কনো বিকল্প নেই। সুস্থ থাকতে প্রতিটি 
নাগরিকের মানবদেহের জন্য  দুধ,ডিম,মাংস,শাক-সবজি,মাছ খাওয়ার  প্রয়োজন। একজন মেধাবী ছাত্র-ছাত্রী হতে গেলে পুষ্টিকর খাবার বেশি বেশি করে খেতে হবে। স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মান করতে তরুণ প্রজন্মেরায় আগামী দিনের মেধা শক্তি।  

অনুষ্ঠানে আরো অংশ গ্রহন করেন জেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগের বিভিন্ন কর্মকর্তা ও ডেইরী এবং পোল্ট্রি ফার্মাস এ্যাসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ,ডেইরী খামারীবৃন্দ সহ বিভিন্ন ভেটেরিনারি ঔষুদ কোম্পানি এবং ফিড কোম্পানির প্রতিনিধি গণ।


অনুষ্ঠানের শুরুতে কোরআন তেলাওয়াত করেন,এলএসপি কামারখন্দ এর  রহমত আলী। পরে দুগ্ধগুনাবলী নিয়ে প্রামাণ্যচিত্র ও পাওয়ার পয়েন্টের উপর আলোচনা করেন রায়গঞ্জের ভেটেরিনারি অফিসার ডাঃমোঃ আমিনুল ইসলাম।

আরও খবর



রাজধানীসহ সারাদেশে উদযাপিত হচ্ছে ঈদুল আজহা

প্রকাশিত:সোমবার ১৭ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জুন ২০২৪ | জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:মুসলিম জাহানের সবচেয়ে বড় উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা রাজধানীসহ সারাদেশে উদযাপিত হচ্ছে।এ দিনটিতে বড় বিষয় ত্যাগের শিক্ষা। আজ সামর্থ্যবান মুসলমানরা পরিশুদ্ধি এবং আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য পশু কোরবানির দিন। কোরবানির মাধ্যমে সৃষ্টিকর্তার কাছে নিজেকে সমর্পণই ঈদুল আজহার মূল মর্মবাণী।

পবিত্র কোরআনে বর্ণিত আছে, আমি প্রত্যেক উম্মতের জন্য কোরবানির বিধান নির্ধারণ করে দিয়েছি, যাতে তারা ওই পশুদের জবাই করার সময় আল্লাহর নাম উচ্চারণ করে। আর তোমাদের প্রতিপালক তো এক আল্লাহই, তোমরা তারই অনুগত হও। (সুরা হজ : ৩৪)

সোমবার (১৭ জুন) ঈদগাহে নামাজ শুরু হয়েছে ।এরপর শুরু পশু কোরবানির পর্ব।

ঈদের দিন ছাড়াও ধর্মীয় বিধান আছে,পরের দু’দিনও পশু কোরবানি করার সুযোগ। সে হিসেবে বুধবার আসরের ওয়াক্ত পর্যন্ত কোরবানি করা যাবে। সামর্থ্যবানদের জন্য কোরবানি করা ফরজ। কোরবানির পশুর মাংসের তিন ভাগের এক ভাগ বিলিয়ে দিতে হয় গরিব-মিসকিনকে। আত্মীয়দের দিতে হবে এক ভাগ।

হাদিসে বর্ণিত আছে, ‘১০, ১১ ও ১২ জিলহজ এই তিন দিন কোরবানি করা যায়। তবে প্রথম দিন কোরবানি করা অধিক উত্তম। এরপর দ্বিতীয় দিন, তারপর তৃতীয় দিন।’ আরেকটি হাদিসে আছে, জিলহজ মাসের ১২ তারিখ সূর্যাস্তের পর কোরবানি করা শুদ্ধ নয়।

রাজধানীতে জাতীয় ঈদগাহ মাঠে ঈদের প্রথম জামাত হবে সকাল সাড়ে ৭টায়। এছাড়া মন্ত্রিসভার সদস্য, সুপ্রিমকোর্টের বিচারপতি, সংসদ সদস্য, সিনিয়র রাজনৈতিক নেতা, উচ্চপদস্থ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তাসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিরা এখানে ঈদের নামাজ আদায় করবেন। নামাজ শেষে রাষ্ট্রপতি সাহাবুদ্দিন ও তার সহধর্মিণী ড. রেবেকা সুলতানা সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত বঙ্গভবনে সর্বস্তরের মানুষের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন।

জাতীয় ঈদগাহ ময়দান, বায়তুল মোকাররম মসজিদসহ রাজধানীতে ১৮৪টি ঈদগাহ ও প্রায় দেড় হাজার মসজিদে ঈদের নামাজ পড়বেন মুসল্লিরা। দেশের সর্ববৃহৎ ঈদ জামাতের জন্য প্রস্তুত কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহ। এবার ১৯৭তম ঈদের জামাত হবে এ ঈদগাহে। অন্যদিকে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে দিনাজপুরের ঐতিহাসিক গোর-এ শহীদ ময়দানে। ঈদের জামাতের সব রকম প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

শুধু উৎসব না কোরবানির ঈদ, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক বন্ধনকে সুদৃঢ় করার একটি বন্ধন। ঈদুল আজহা সমাজে ধনী-দরিদ্রের বৈষম্যকে এক কাতারে নিয়ে আসে। আধুনিক সমাজ যে ব্যক্তিকেন্দ্রিক চিন্তায় মগ্ন হয়ে গেছে, তা থেকে মুক্তি হতে পারে পশু কোরবানি। সমাজ ও রাষ্ট্রে ভ্রাতৃত্ববোধ ও জাতীয় ঐক্য গড়ার শিক্ষা হতে পারে ঈদে পশু কোরবানি।

ঈদের আনন্দ সবার মাঝে ছড়িয়ে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী, বিরোধীদলীয় নেতা, বিএনপিসহ দেশের রাজনৈতিক দলগুলো। পৃথক বাণীতে দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ত্যাগের শিক্ষায় উজ্জীবিত হয়ে পারস্পরিক ভেদাভেদ ভুলে দেশ গড়ার আহ্বান জানিয়েছেন তারা।

ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা বিশ্বাস করেন, মুসলিম জাতির পিতা হজরত ইবরাহিম (আ.) ও তার পুত্র হজরত ইসমাইল (আ.) এর ঐতিহাসিক ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে কোরবানি ইবাদতের মর্যাদা লাভ করেছে। আল্লাহ যখন ইবরাহিম (আ.)-কে পরীক্ষা করার জন্য স্বীয় পুত্রকে কোরবানি করতে বললেন, তখন সঙ্গে সঙ্গে কোনো সংশয় তথা বিনা প্রশ্নে নিজ প্রিয় সন্তানকে কোরবানি করার জন্য প্রস্তুত হয়ে যান তিনি। কিন্তু আল্লাহর আদেশে দুম্বা কোরবানি হয়ে যায়। হজরত ইব্রাহিম (আ.)-এর অসামান্য এ ত্যাগের মহিমা জাগ্রত রাখতে সারা বিশ্বের মুসলিম সম্প্রদায় জিলহজ মাসের ১০ তারিখে পশু কুরবানি ক


আরও খবর



মিরসরাইয়ে জিপিএ-৫ প্রাপ্তদের সংবর্ধনা দিল সাইন্স পয়েন্ট

প্রকাশিত:সোমবার ২৭ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১৪৭জন দেখেছেন

Image

এম আনোয়ার হোসেন, মিরসরাই (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি:এবার মিরসরাই উপজেলার বিভিন্ন বিদ্যালয়সমূহ থেকে জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ৬০ শিক্ষার্থীকে সংবর্ধনা দিয়েছে সাইন্স পয়েন্ট। শনিবার বিকেলে উপজেলা অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত এই অনুষ্ঠান মিরসরাই সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ইমরান খানের সঞ্চালনায় এবং সাইন্স পয়েন্টের পরিচালক আসিফুল ইসলাম সৈকত ও সাহাদাত শাকিলের সার্বিক তত্বাবধানে অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও ইউসামের সাধারণ সম্পাদক শরীফুল হাসান তুহিন, মিরসরাই স্টুডেন্ট এসোসিয়েশন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাঈন বিল্লাহ, সাংগঠনিক সম্পাদক মিনহাজ সাকিল, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী আব্দুল ওয়াহেদ লিপু, বর্তমান শিক্ষার্থী মোহাম্মদ ইলিয়াস, আবু নাসিম প্রমুখ। এসময় শিক্ষার্থীদের বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির বিষয়ে বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়। এরপর জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের মাঝে সার্টিফিকেট ও ক্রেস্ট তুলে দেন অতিথিরা। এমন আয়োজনে খুশি সংবর্ধিত শিক্ষার্থীরা। পরে কেক কেটে সাইন্স পয়েন্টের নতুন শাখা হিসাবে বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি কোচিং ভার্সিটি পয়েন্ট’র আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করা হয়।

সাইন্স পয়েন্টের পরিচালক আসিফুল ইসলাম সৈকত জানান, ২০২০ সাল থেকে সাইন্স পয়েন্টের যাত্রা শুরু হয়। এসএসসি ও এইচএসসির শিক্ষার্থীদের পরিপূর্ণ বেসিক গঠনে এবং মিরসরাইয়ের শিক্ষার্থীদের একটি ভালো মানের শিক্ষা সেবা দিতে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী দ্বারা পরিচালিত কোচিং সেন্টারের কার্যক্রম চালিয়ে আসছি। পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের জন্য সাইন্স পয়েন্টের সহযোগী প্রতিষ্ঠান ভার্সিটি পয়েন্ট চালু করেছি। এ, বি, সি ও ডি ইউনিট নিয়ে যাত্রা ভার্সিটি পয়েন্টের এবং বিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষা, মানবিক শাখার শিক্ষার্থীদের পরিপূর্ণ ভার্সিটি প্রস্তুতি গড়ে দিতে এটির পথ চলা। বাংলাদেশের খ্যাতনামা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের দিয়ে পাঠদানসহ থাকছে নিয়মিত ক্লাস টেস্ট এবং বিষয়ভিত্তিক শিট প্রদান। আগামী ১ জুন থেকে এইচএসসি-২০২৬ ব্যাচের ভর্তি কার্যক্রম শুরু হবে।


আরও খবর