Logo
আজঃ Tuesday ২৪ May ২০২২
শিরোনাম

স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা টিংকুর পিতা-মাতার কবরের পাশে কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতৃবৃন্দ।

প্রকাশিত:Wednesday ২৯ December ২০২১ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ২৬২জন দেখেছেন
Image


রুবেল মিয়াঃ-সরাইল 

বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় সংসদ প্রতিবন্ধী উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক আনোয়ার পারভেজ টিংকুর পিতা-মাতা’র কবর জিয়ারত করলেন বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ।


গত সোমবার সকালে (২৭ ডিসেম্বর ২০২১ খ্রিঃ) সরাইল উপজেলার সূর্যকান্দি গ্রামে স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা আনোয়ার পারভেজ টিংকুর পিতা-মাতা’র কবর এ বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ কেন্দ্রীয়  সংসদের সভাপতি বাবু নির্মল রঞ্জন গুহ  ও সাধারন সম্পাদক আফজালুর রহমান বাবুর নেতৃত্বে  ফুলেল শ্রদ্ধা জানান।পরে তার পিতা-মাতার জন্য বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। 

 

 এ সময় উপস্থিত  ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ কেন্দ্রীয়  সংসদ এর সহ-সভাপতি সালেহ মোহাম্মদ টুটুল, যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক একে এম আজিম, সাংগঠনিক সম্পাদক নাফিউল করিম নাফা,অর্থ সম্পাদক মোঃ আবুল হোসেন,ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শাখার সভাপতি এডভোকেট লোকমান হোসেন ও সাধারন সম্পাদক সাইদুজ্জামান আরিফ, সরাইল উপজেলা শাখার আহবায়ক আমিন খাঁন যুগ্ম আহবায়ক মোঃ বাবুল হোসেন যুগ্ম-আহবায়ক সাদ্দাম হোসেন যুগ্ম-আহবায়ক সিরাজ মিয়া কালীকচ্ছ ইউনিয়ন শাখার যুগ্ম আহবায়ক সামাউন রেজা মিটু সহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ।


সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ  কেন্দ্রীয় সংসদ প্রতিবন্ধী উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক আনোয়ার পারভেজ টিংকুর পিতা মোঃ আব্দুস সামাদ ছিলেন সরাইল থানা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও কালীকচ্ছ ইউনিয়ন শাখার আওয়ামী লীগের  সভাপতি ও থানা আওয়ামী লীগ নেতা।

-খবর প্রতিদিন/ সি.বা 


আরও খবর



নাসিরনগরে বিড়ির গোডাউনের তালা ভেঙ্গে দুধর্ষ চুরি

প্রকাশিত:Saturday ২১ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ৬৩জন দেখেছেন
Image

মোঃ আব্দুল হান্নানঃ

 ১৯ মে ২০২২ রোজ বৃহস্পতিবার গভীর রাতে-ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলা সদরে অবস্থিত খেলার মাঠের কোনায় দেওয়ান মঞ্জিলে মা বাবার দোয়া নামক আঁকিজ বিড়ির গোডাউনে ১৮ তালা ভেঙ্গে দুধর্ষ চুরি সংঘটিত হয়েছে বলে জানা গেছে।


আকিজের ডিলার মোঃ নেওয়াজ শরীফ জানায় চোরেরা রাতের অন্ধকারে গোডাউনের ১৮ টি তালা ভেঙ্গে ঘরের ভেতরে প্রবেশ করে ঘরে থাকা ৯০ কার্টন বা ৯ লক্ষ শলাকা আকিজ বিড়ি নিয়ে যায় যার বর্তমান বাজার মুল্য প্রায় ৬ লক্ষ ৪৬ হাজার টাকা।


তাছাড়াও একই রাতে অলি মেম্ভারের সুমন এন্টার প্রাইজ নামক একটি দোকানের,অগ্রণী ব্যাংকের তালা ভেঙ্গে পেলেছে, রহিম আফরোজ নামক একটি সোলার কোম্পানীর তালা ভেঙ্গে আই,পি,এসের একটি ব্যাটারী নিয়ে গেছে,তাছাড়াও সাইদুর রহমান খসরুর হক ট্রেডার্স নামক দোকানের দরজা ভেঙ্গে ফেলেছে।


 এ বিষয়ে মুঠোফোনে নাসিরনগর সদরের বিট অফিসার নাসিরনগর থানার এস আই সৈয়দ সারোয়ারের সাথে যোগাযোগ করে ঘটনা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন,"আমি ওসি স্যার সহ ঘটনাস্থলে আছি।আমরা বিষয়টির খোঁজ খবর নিচ্ছি"।


পরে ওই ঘটনায় আকিজের ডিস্ট্রিভিউটর মোঃ নেওয়াজ শরীফ বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা চোরদের বিরোদ্ধে নাসিরনগর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন।এখনো পুলিশ ওই চুরির ঘটনার  সাথে জড়িত সন্দেহে কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।


আরও খবর



দেশবাসী কে ঈদের শুভেচ্ছা জানান আওয়ামী লীগের ৭৩ নং ওয়ার্ড নেতা

প্রকাশিত:Sunday ০১ May ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৩ May ২০২২ | ৯২জন দেখেছেন
Image

বজলুর রহমানঃ

দেশের মানুষকে  ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর দক্ষিন আওয়ামী লীগের ৭৩ নং ওয়ার্ড নেতা,ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ব বিদ্যিলয় শাখার সাবেক নেতা, ডেমরা ইউনিয়নের সাবেক ছাত্রলীগের ক্রীড়া সম্পাদক মোঃ সাইদুর রহমান বাবুল।




রবিবার (১ মে) প্রচার পত্র ও পোষ্টারের মাধ্যমে ঢাকা মহানগর দক্ষিন আওয়ামী লীগের ৭৩ নং ওয়ার্ড নেতা সাইদুর রহমান বাবুল এ শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।




ঢাকা মহানগর দক্ষিন আওয়ামী লীগের ৭৩ নং ওয়ার্ড নেতা সাইদুর রহমান বাবুল বলেন, ‘এলাকার ও দেশের সবাইকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। একমাস সিয়াম সাধনার পর আবার এসেছে পবিত্র ঈদুল ফিতর। ঈদ মানেই আনন্দ। আসুন, ঈদের আনন্দ সবাই ভাগাভাগি করে নেই। যে যার অবস্থান থেকে ঈদুল ফিতরের মহিমায় উজ্জীবিত হয়ে দেশ ও দেশের মানুষের কল্যাণে আত্মনিয়োগ করি। সুস্থ থাকুন, নিরাপদ থাকুন। ঈদ মোবারক।’


আরও খবর



জাতীয় ইদগাহে প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৮ টায় অনুষ্ঠিত হবে

প্রকাশিত:Tuesday ০৩ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ১১১জন দেখেছেন
Image


নিউজ ডেস্ক 

ঢাকা: মঙ্গলবার (৩ মে) জাতীয় ইদগাহ ময়দানে সকাল সাড়ে ৮টায় ইদুল ফিতরের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে। এতে অংশ নেবেন মন্ত্রিপরিষদের সদস্যরা, কুটনীতিবিদ, প্রধান বিচারপতি ও বিচারপতিরা, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ অন্যান্য সরকারি কর্মকর্তারা।জতীয় জামাতে অংশ নেবেন দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার ফজলে নুর তাপস ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম।


রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ করোনার দুই বছরের মতো এবারও বঙ্গভবনে সকাল সাড়ে ৯টায় ইদের নামাজ আদায় করবেন। প্রতিবার তিনি জাতীয ইদগাহ ময়দানে ইদের নামাজ আদায় করতেন।


ইদের প্রধান জামাতকে কেন্দ্র করে ঢাকা মহানগর পুলিশ ও র্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র্যাব) সর্বাত্মক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে



-খবর প্রতিদিন/ সি.বা 



আরও খবর



বিষাক্ত সাপের কামড়ে কৃষকের মৃত্যু

প্রকাশিত:Saturday ২১ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ৬০জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় খড়ের গাদা থেকে গরুর জন্য খড় আনতে গিয়ে সাপের কামড়ে আজিজুর রহমান (৪৫) নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে।


শুক্রবার (২০ মে) রাত সাড়ে ৯টার দিকে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।



আজিজুর রহমান উপজেলার বড়বাড়ি ইউনিয়নের রনবাগ গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন।


বড়বাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আকরাম হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।


স্থানীয়দের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, শুক্রবার সন্ধ্যার আগে বাড়ির পাশে আজিজুর রহমান গরুর জন্য খড়ের গাদা খড় টেনে বের করার সময় একটি সাপ তাকে কামড় দেয়। পরে চিকিৎসার জন্য ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানকার চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।


ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. রাকিবুল আলম চয়ন বলেন, বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা থেকে সাপে কামড়ানো আজিজুর রহমান নামে এক ব্যক্তিকে হাসপাতালে নিয়ে আনা হয়েছিল। কিন্তু হাসপাতালে পৌঁছানোর আগেই তার মৃত্যু হয়।


আরও খবর



স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:Thursday ১৯ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ৬৭জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র সব থেকে পরিবেশবান্ধব বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  


গ্যাস ফুরিয়ে গেলে এই পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র আমাদের বিদ্যুৎ দেবে বলেও প্রধানমন্ত্রী জানান।


বুধবার (১৮ মে) আওয়ামী লীগ আয়োজিত শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।  


বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত ওই সভায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন থেকে তিনি ভার্চ্যুয়ালি যুক্ত হন।


সরকারের উন্নয়ন ও অর্জন তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজকে বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছে। আজ বাংলাদেশ পৃথিবীতে উন্নয়নের রোল মডেল।


এর ভেতরে আমাদের কিছু নতুন আঁতেল আবার জুটেছে। একজন অর্থনীতিবিদ বলেই দিলেন আমরা যে, রূপপুরে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র করেছি এটা না কি অর্থনৈতিকভাবে ভীষণ ক্ষতিকর।


আমরা প্রশ্ন হচ্ছে, পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র এটা হচ্ছে সব থেকে পরিবেশবান্ধব। গ্যাস তো চিরদিন থাকে না। এক একটা কূপের তার তো সময় নির্দিষ্ট থাকে। তেলভিত্তিক গ্যাসভিত্তিক বিদ্যুৎ আমরা করি, অনেক খরচেরও ব্যাপার। যদি কোন দিন এমন হয় যে, আমাদের গ্যাস ফুরিয়ে যাচ্ছে তখন আমাদের এই নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্টই বিদ্যুৎ দেবে। 


আর এটা পরিবেশবান্ধবও একটা বিদ্যুৎকেন্দ্র। এখানে বিনিয়োগটা বড় করে দেখা যায়। কিন্তু এর বিদ্যুৎ যখন উৎপাদন হবে আর এর বিদ্যুৎ যখন মানুষ ব্যবহার করবে আমাদের অর্থনীতিতে অনেক বেশি অবদান রাখবে। 


আজ আমরা বিদ্যুৎ উৎপাদন করেছি বলেই সারা বাংলাদেশে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দিতে পেরেছি। আমরা যখন রেন্টাল বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু করলাম তখন কত সমালোচনা। আমরা যখন ডিজিটার বাংলাদেশ ঘোষণা দিলাম তখন কত সমালোচনা। এখন ডিজিটাল পদ্ধতি ব্যবহার করেই আমাদের সমালোচনা করছে। তারা যে কথা বলার সুযোগ পাচ্ছেন এটা কিন্তু আমরা দিচ্ছি। 


খালেদা জিয়ার আমলে, জিয়ার আমাল বা এরশাদের আমলে তাদের কি কথা বলার কোনো সুযোগ ছিল। অধিকার ছিল, কতটুকু অধিকার ভোগ করতেন তারা। টক শো তারা করেই যাচ্ছেন, টক টক কথা বলেই যাচ্ছেন। তাদের তো গলাটিপে ধরি না, মুখ চিপেও ধরি না। বলেই যাচ্ছেন, সব কথা বলার শেষে বলে কথা বলতে দেওয়া হয় না। 


বিএনপির এক নেতা তো সারা দিন মাইক মুখে লাগিয়ে আছেন। সারাক্ষণ বলেই যাচ্ছেন। একবার কথা বলতে বলতে গলায় অসুখও হলো। চিকিৎসা করে তিনি আবার কথা বলছেন। কথা তো কেউ বন্ধ করছে না। তাদের আন্দোলনে যদি জনগণ সাড়া না দেয় সে দোষটা কাদের?


প্রধানমন্ত্রী বলেন, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে যে, অর্থনীতিবিদ তিনি হিসাব দেখালেন তাকে আমি বলবো, তিনি কী এটা প্রকৃতপক্ষে জেনেই বলছেন, না কি না জেনেই বলছেন। আমি তার জ্ঞান নিয়ে কোন প্রশ্ন তুলবো না কারণ তারা অনেক ভালো লেখাপড়া জানেন। 


কিন্তু একটি বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে বিদ্যুৎ পেয়ে একটি মানুষের বা একটা জাতি যে কতটুকু উন্নতি হতে পারে সে তো আজকের বাংলাদেশ। বাংলাদেশের উন্নয়নটা বাইরের লোকে দেখে কিন্তু তারা দেখে না চোখে।


পদ্মাসেতুর প্রসঙ্গ তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, আরেকটি হচ্ছে পদ্মাসেতু, এই পদ্মাসেতুর অর্থ বন্ধ করালো ড. ইউনুস। কেন, গ্রামীণ ব্যাংকের একটা এমডির পদে তাকে থাকতে হবে। তাকে আমরা প্রস্তাব দিয়েছিলাম গ্রামীণ ব্যাংকে উপদেষ্টা হতে। এমিরেটাস উপদ্ষ্টো হিসেবে থাকার জন্যে, আরও উচ্চ মানের। সেটায় সে থাকবে না, তার এমডিই থাকতে হবে। কিন্তু তার বয়সে কুলায় না। 


ড. ইউনুস কিন্তু আমাদের সরকারের বিরুদ্ধে মামলাও করেছিলেন। কিন্তু কোর্ট আর যাই পারুক তার বয়স তো কমিয়ে দিতে পারবেন না ১০ বছর। গ্রামীণ ব্যাংকের আইনে আছে ৬০ বছর পর্যন্ত থাকতে পারে। তখন তার বয়স ৭১ বছর। এই বয়সটা কমাবে কীভাবে, তিনি মামলায় যে হেরে যায়। কিন্তু প্রতিহিংসা নেয় ড. ইউনুস এবং যেটা আমরা শুনেছি মাফুজ আনাম তারা আমেরিকায় চলে যায়, স্টেট ডিপার্টেটমেন্টে, হেলারির কাছে ই-মেইল পাঠায়। হিলারি লাস্ট একেবারে ওয়ার্ল্ড ব্যাংকে যিনি প্রেসিডেন্ট ছিলেন, তার শেষ কর্মদিবসে পদ্মাসেতুর টাকা বন্ধ করে দেয়। 


যাক একদিকে সাপে বর হয়েছে। বাংলাদেশের নিজের অর্থায়নে পদ্মাসেতু করতে পারে সেটা আজকে আমরা প্রমাণ দিয়েছি। কিন্তু আমাদের এখানে একজন জ্ঞানী লোক বলে ফেললেন পদ্মাসেতু দিয়ে যে রেললাইন হচ্ছে ৪০ হাজার কোটি টাকা খরচ হচ্ছে, এ টাকা তো ঋণ নিয়ে করা হচ্ছে এই ঋণ শোধ হবে কী করে কারণ দক্ষিণবঙ্গের কোনো মানুষ তো রেলে চড়বে না। তারা তো লঞ্চে যাতায়াত করে। তারা রেলে চড়তে যাবে কেন, এই রেল ভায়াবল হবে না। সেতুর কাজ হয়ে গেছে এখন সেতু নিয়ে আর কথা বলে পারছে না। রেলে কাজ চলছে, রেলের কাজ নিয়ে তারা প্রশ্ন তুলেছে। আমার মনে হয় আমাদের সবার উনাকে চিনে রাখা উচিত। রেলগাড়ি যখন চালু হবে উনাকে রেলে নিয়ে চড়ানো উচিত।


পদ্মাসেতু নিয়ে খালেদা জিয়ার বক্তব্যের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আর খালেদা জিয়া বলেছিলেন জোড়াতালি দিয়ে পদ্মাসেতু করা হচ্ছে। কারণ স্প্যান‌গুলো যে বসাচ্ছে ওটা ছিল তার কাছে জোড়াতালি দেওয়া। বলেছিলেন জোড়াতালি দিয়ে পদ্মাসেতু বানাচ্ছে ওখানে চড়া যাবে না, চড়লে ভেঙে পড়বে। তার সঙ্গে তার কিছু দোসসরাও। তাদেরকে কী করা উচিত, পদ্মাসেতুতে নিয়ে যেয়ে ওখান থেকে টুস করে ফেলে দেওয়া উচিত। আর যিনি একটা এমডি পদের জন্য পদ্মাসেতুর মতো সেতুর টাকা বন্ধ করে দেয় তাকেও পদ্মানদীতে নিয়ে দুটা চুবনি দিয়ে উঠিয়ে নেওয়া উচিত। মরে যাতে না যায়, একটু চুবনি দিয়ে সেতুতে তুলে দেওয়া উচিত, তাহলে যদি এদের শিক্ষা হয়। 



বড় অর্থনীতিবিদ জ্ঞানীগুণী তারা এই ধরনের অর্বাচীনের মতো কথা বলে কিভাবে, সেটাই আমার প্রশ্ন। মেগা প্রজেক্টগুলো করে না কী খুব ভুল করছি। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাই উৎক্ষেপণ করেছি, এতো টাকা দিয়ে স্যাটেলাইট করে কি হবে এ প্রশ্নও কিন্তু তুলেছে তারা। অর্থাৎ বাংলাাদেশের জন্য ভালো কিছু করলেই তাদের গায়ে লাগে। কেন তারা কী এখনও সেই পাকিস্তানি জান্তাদের পদলেহনকারি খোসামোদি-তোসামোদি দল। 


গালিটালি দেই না, দেওয়ার রুচিও নাই তবু একটু না বলে পারি না পাকিস্তানি হানাদারবাহিনী যেভাবে মেয়েদের ওপর নির্যাতন করেছে, গণহত্যা চালিয়েছে, অগ্নিসংযোগ চালিয়েছে, পেড়ামাটি নীতি নিয়ে বাংলাদেশকে ধ্বংস করতে চেয়েছিল সেই পাকিস্তানিদের পদলেহনকারি সারমেয়র দল এখনও বাংলাদেশে জীবিত। এখনও এরা বাংণাদেশে ভালো কিছু হলে এরা ভালো দেখে না। বাংলাদেশ এগিয়ে গেলে তাদের ভালো লাগে না। 


তাদেরকে জিজ্ঞাসা করবো ভ্যাকসিনটা বিনা পয়সা দিয়েছি আমি, হাজার হাজার কোটি টাকা খরচ করেছি। সে ভ্যাকসিন তো এরা নিয়েছেন, এটা তো বাদ দেয়নি। আমরা বিনা পয়সায় ভ্যাকসিন দিয়েছি। বুস্টার ডোজও আমরা শুরু করেছি। তারা তো নিশ্চয় দুটো ডোজ নিয়েছে, বুস্টার ডোজও নিয়েছেন।


 বিনা পয়সায় ভ্যাকসিন নিতে পারলো আর আমাদের উন্নয়নটা চোখে পড়ে না। এখন কি ভ্যাকসিন চোখেও দিতে হবে না কি সেটাই মনে হচ্ছে, তাহলে যদি দেখে, তাছাড়া দেখবে না। ম্যাগা প্রজেক্ট জনগণের স্বার্থে, জনগণের কল্যাণে।


 আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আছে বলেই বাংলাদেশের এই উন্নতি হচ্ছে। এর আগে, যারা ক্ষমতায় ছিল তারা কি একটা দৃষ্টান্ত দেখাতে পারবে যে তারা বাংলাদেশের জনগণের কল্যাণে কাজ করে বা দেশের কোনো উন্নয়ন করেছে বা বিদেশে ভাবমুর্তি উজ্জ্বল করেছে, করতে পারে নাই। বাংলাদেশকে ভিক্ষুকের জাতি বানিয়েছিলেন, আজকে আমরা মর্যাদাশীল জাতি। আমরা আমাদের নিজস্ব অর্থায়নে আমাদের প্রায় ৯০ শতাংশ নিজস্ব অর্থায়নে উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নে সক্ষমতা অর্জন করেছি।


বিএনপি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বেশি কথা বলে যাচ্ছে বিএনপি, এদের নেতৃত্ব কোথায়, নেতৃত্ব নাই। সব তো সাজাপ্রাপ্ত আসামি। এই সাজাপ্রাপ্ত আসামি দিয়ে নির্বাচনে জেতা যায় না। আর নির্বাচনে পরাজয় হবে জেনে তারা নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চায়, কলুষিত করতে চায়। যারা একটু আমাদের জ্ঞানী-গুণী আঁতেলরাও উল্টোপাল্টা কথা বলেন তাদেরকেও বলবো দেশ চালাবার যদি ইচ্ছা থাকে তো মাঠে আসেন, ভোটে নামেন, কেউ ভোট কেড়ে নেবে না। আমরা বলতে পারি, আমরা ভোট কেড়ে নিতে যাই না। আমরা জনগণের ভোট পাই এবং আমরা পাবো কারণ আমরা জনগণের জন্য কাজ করেছি। সেজন্যই জনগণ আমাদের ভোট দেবে।


সবশেষে তিনি সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, অনেক দিন পর মন খুলে কথা বললাম। এ সময় তিনি বলেন, আসলে এই করোনা ভাইরাস বন্দি করে রেখে দিয়েছে আমাকে। ২০০৭ সালে ছিলাম তত্ত্বাবধায়ক সরকারের হাতে বন্দি। এখন আমি নিজের হাতে নিজেই বন্দি।


আরও খবর