Logo
আজঃ Tuesday ২৪ May ২০২২
শিরোনাম

স্বদেশের বিরুদ্ধে মানুষ কীভাবে কাজ করে, আইজিপি

প্রকাশিত:Tuesday ২৫ January ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ২৩৫জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ বলেছেন, একজন মানুষ যে দেশে জন্মগ্রহণ করেন, সে দেশেরই বিরুদ্ধে কীভাবে কাজ করে তা তার বোধগম্য নয়। তিনি বলেন, বাংলাদেশ দেশি ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করছে। এটাকে সবাই মিলে ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিহত করতে হবে।

পুলিশ সপ্তাহ-২০২২ এর দ্বিতীয় দিন গতকাল সোমবার রাতের অধিবেশনে সভাপতির বক্তব্যে আইজিপি এসব কথা বলেন। অধিবেশনে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মাসুদ বিন মোমেন মতবিনিময় সভায় অংশ নেন। রাজারবাগে পুলিশ মিলনায়তনে এ সভা হয়। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন অ্যান্টি টেরোরিজম ইউনিটের অতিরিক্ত আইজি মো. কামরুল আহসান।

অবৈধ অভিবাসীর প্রসঙ্গ উল্লেখ করে আইজিপি বলেন, বাংলাদেশের মানুষের এখন আর নৌকায় করে অভিবাসী হিসেবে বিদেশে যাওয়ার মতো অবস্থা নেই। তিনি এ ক্ষেত্রে জনসচেতনতা বাড়ানোর আহ্বান জানান। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং পুলিশের মধ্যে কাজের ক্ষেত্রে এ মতবিনিময় সভা এক নতুন দিগন্ত উন্মোচন করবে বলে উল্লেখ করেন ড. বেনজীর।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন বলেন, দেশীয় ও আন্তর্জাতিক একটি স্বার্থান্বেষী মহল আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে। এটা আপনাদের জন্য যেমন কষ্টকর, তেমনি বাংলাদেশের ভাবমূর্তির সঙ্গেও যায় না। এ ক্ষেত্রে কাজ করার জন্য তিনি পুলিশ কর্মকর্তাদের প্রতি আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, জাতিসংঘের পিসকিপিংয়ের মাধ্যমে আমাদের যে সুনাম এসেছে তা ধরে রাখতে ধৈর্য্যের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে হবে।


আরও খবর



সিলেটে বন্যা কবলিত মানুষের খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সংকট

সিলেটের বন্যা কবলিত এলাকা গুলোতে বিশুদ্ধ খাবার পানির সংকট

প্রকাশিত:Friday ২০ May ২০22 | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ৭৮জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

 বন্যায় সিলেট নগরীর অর্ধেকাংশ নিমজ্জিত পানিবন্দি হয়ে আছেন লাখ লাখ মানুষ। এতে কোথাও খাদ্য সংকট, কোথাও সুপেয় পানি ও খাবারের সংকট দেখা দিয়েছে।

বেশিরভাগ বন্যা কবলিত মানুষ মানবেতর দিন পার করছেন।

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড ডিভিশন-২’র অধীস্থ নগরের উপশহরের বিভিন্ন ব্লক, তেররতন, সুবহানীঘাট, যতরপুর, মেন্দিবাগ, চালিবন্দর, মাছিমপুর, ছড়ারপাড় এলাকা তলিয়ে আছে। উপশহরে অবস্থিত বিদ্যুতের সাব স্টেশনও গত ৫ দিন ধরে পানির নিচে তলিয়ে গেছে তাই অন্ধকারে নিমজ্জিত এখানকার লোকজন।

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড ডিভিশন-৩’র অধীনস্থ দক্ষিণ সুরমা এলাকাও বন্যা কবলিত।

পানিতে তলিয়ে থাকায় এলাকাগুলোয় বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যাহত। তাই স্থানীয় লোকজন সুপেয় পানির সঙ্কটে পড়েছেন।

নগরের মেন্দিবাগ এলাকায় অবস্থিত সিটি করপোরেশনের পানি বিশুদ্ধকরণ (ওয়াটার ট্রিটমেন্ট) প্লান্টও তলিয়ে গেছে। পাশাপাশি আরও চারটি পাম্পও তলিয়ে যাওয়ায় পানি সরবরাহ করা যাচ্ছে না। ফলে এসব এলাকার জনগণও সুপেয় পানি পাচ্ছেন না।

সিলেটের অন্তত ১০টি উপজেলার শতাধিক গ্রাম বন্ধ্যা কবলিত। সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পড়েছেন এসব এলাকার প্রান্তিক পর্যায়ের লোকজন।

নিত্যদিনের উপার্জনের সংসার চালানো লোকগুলো বন্যায় আটকে পড়ায় তাদের আয়-রোজগারে প্রভাব পড়েছে। তাছাড়া আশ্রয় কেন্দ্রে রান্নার ব্যবস্থা নেই। শুকনো খাবারের পাশাপাশি তাদের রান্না করা খাবারও বেশি প্রয়োজন।

ভোগান্তিতে পড়েছে নগরের শাহজালাল উপশহর, শেখঘাট, কলাপাড়া, সোনাপাড়া, মেন্দিবাগ, মাছিমপুর, ছড়ার পার, চালিবন্দর কানিশাইল, মণিপুরি রাজবাড়ী, তালতলা, জামতলাসহ বিভিন্ন এলাকার মানুষ।

সরেজমিন দেখা গেছে, সিলেটে বন্যা কবলিত উপজেলাগুলোর প্রান্তিক পর্যায়ের লোকজনের কাছে সেসব সেবা পৌঁছাচ্ছে না। ফলে খাদ্যের পাশাপাশি সুপেয় পানির সংকটে রয়েছেন বন্যা কবলিত গ্রামীণ জনপদের লোকজন।


আরও খবর



আদালতে আত্মসমর্পণ করেছেন সম্রাট

প্রকাশিত:Tuesday ২৪ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ২০জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

দুদকের করা মামলায় আত্মসমর্পণ করেছেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট।

আত্মসমর্পণ ঘিরে আদালতের মূল ফটকের পাশাপাশি এজলাসের বাইরে ভিড় করেছেন তার সমর্থক ও দলের শতাধিক নেতাকর্মী।


মঙ্গলবার (২৪ মে) দুপুর ১২ টা ৩৫ মিনিটে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৬ এর বিচারক আল আসাদ মো. আসিফুজ্জামানের আদালতে আত্মসমর্পণ করতে ঢোকেন সম্রাট।



সম্রাটের আত্মসমর্পণ করার কথা শুনে আদালত প্রাঙ্গণে ভিড় করেন তার সমর্থকরা। এজলাসের দরজায়ও ভিড় করেন অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী।



এজলাসের দরজায় অবস্থান করা ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের ৫৩ নম্বর ওয়ার্ডের নেতা মো. বিপ্লব জানান, সম্রাট ভাই যুবলীগের একজন প্রিয় নেতা। তার প্রতি ভালোবাসার টানে এখানে এসেছি।


রমনা থানার ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের যুবলীগের নেতা মোহাম্মদ আল-আমিন বলেন, ভাইকে দেখতে আসলাম আদালতে। তিনি অসুস্থ বেশ কয়েক দিন দেখা হয় না তাই আজকে আবার আসলাম দেখতে।



এসময় এজলাসের দরজায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।



আরও খবর



মাতুয়াইলে গ্যাসের বিস্ফোরণে মা-বাবার পর এবার চলে গেলো দুই বছরের মেয়ে ফাতেমা

প্রকাশিত:Tuesday ২৬ April ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ১২৭জন দেখেছেন
Image

নাজমুল হাসানঃ

রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থানার কোনাপাড়া আড়াবাড়ি এলাকার একটি বাসায় গ্যাস লাইনের লিকেজ দিয়ে জমা গ্যাসের বিস্ফোরণে মা-বাবার পর এবার চলে গেলো দুই বছরের মেয়ে ফাতেমা আক্তার।


মঙ্গলবার (২৬ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।


এর আগে বুধবার (২০ এপ্রিল) দিনগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে যাত্রাবাড়ী থানার কোনাপাড়া এলাকার একটি বাসায় গ্যাস লাইনের লিকেজ দিয়ে জমা গ্যাসের বিস্ফোরণে একই পরিবারের তিনজন দগ্ধ হয়েছে। দগ্ধ অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে ভোর পাঁচটার দিকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়।


 সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার (২৪ এপ্রিল) দিনগত রাত ৪টার দিকে স্ত্রী মোছা. খাদিজা আক্তার (২৫) ও ৬টার দিকে স্বামী আব্দুল করিম (৩০) মারা যান।নিহত আব্দুল করিম মাতুয়াইল কোনাপাড়া আড়াবাড়ি এলাকায় মুদি দোকান দিয়ে ব্যাবসা করতেন।


গত বুধবার রাত সাড়ে ৩টার দিকে হঠাৎ গ্যাস বিস্ফোরিত হয়ে ৩ জন দগ্ধ হন। তাৎক্ষণিকভাবে তাদের উদ্ধার করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়।


শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. এস এম আইয়ুব হোসেন জানান, যাত্রাবাড়ী কোনাপাড়া এলাকা থেকে বিস্ফোরণে দগ্ধ হয়ে বাবা-মায়ের পর শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ইনস্টিটিউটের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুই বছরের শিশু ফাতেমা আক্তারও মারা গেছে। 


ফাতেমার শরীরের ৩৫ শতাংশ দগ্ধ ছিল।মরদেহ ঢামেক মর্গে রাখা হয়েছে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট থানাকে অবগত করা হয়েছে।


আরও খবর



আসামী ধরতে গিয়ে পুলিশ কনস্টেবল এর হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন

প্রকাশিত:Sunday ১৫ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ৫৭জন দেখেছেন
Image

নাজমুল হাসানঃ

চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় আসামি ধরতে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছেন পুলিশসহ তিন জন। রবিবার (১৫ মে) সকাল ১০টায় উপজেলার পদুয়া ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের আধারমানিক লালারখিল এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। 



 আহতরা হলেন, লোহাগাড়া থানার কনস্টেবল মো. জনি (২৮), কনস্টেবল শাহাদত হোসেন (২৭) ও স্থানীয় আবুল কাশেম (৪০)।


পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, একাধিক মামলার পরোয়ানাভুক্ত আসামি কবির আহমদকে গ্রেপ্তার করতে পুলিশ তার বাড়ি ঘেরাও করে। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে কবির আহমদ ও তার বাহিনী পুলিশের ওপর আক্রমণ করে।




ধারালো দায়ের কোপে কনস্টেবল জনির বাম হাতের কব্জি বিচ্ছিন হয়ে গেছে। স্থানীয় আবুল কাশেম ও কনস্টেবল জনিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এই ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।


এলাকাবাসী জানায়, কবির আহমদ ইতোপূর্বেও একাধিক অপরাধ সংঘটিত করেছেন। তিনি এলাকায় বেপরোয়া ও দুর্ধর্ষ অপরাধী 



খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন সাতকানিয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শিবলী নোমান। তিনি জানান, এই ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।




আরও খবর



মুগদা থানার ওসি ও সাভারের এক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিত:Monday ১৬ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ১০০জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

রাজধানীর মুগদা থানার পরিদর্শক (ওসি) জামাল উদ্দিন মীর ও সাভারের বনগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামসহ নয়জনের নামে ধর্ষণ ও মানবপাচারের অভিযোগে মামলা করেছেন এক নারী।  


সোমবার (১৬ মে) বিকেলে মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে ঘটনার বিস্তারিত বর্ণনা দিয়েছেন ভুক্তভোগী নারী।


গত মাসে ঢাকার মানবপাচার ট্রাইব্যুনালে মামলাটি করেছেন তিনি, যা সম্প্রতি জানাজানি হয়েছে।


ভুক্তভোগী নারীর অভিযোগ, ঢাকার মুগদা থানার ৪৬/বি-১ উত্তর মানিকনগরের বাসায় গত ২৯ মার্চ দুপুরে তাকে ধর্ষণ করা হয়।


পরে থানায় ঘুরে অভিযোগ নথিভূক্ত করতে ব্যর্থ হয়ে ১০ এপ্রিল আদালতে পিটিশন মামলা রুজু করেন।  


ভুক্তভোগী নারীর আইনজীবী জাকির হোসেন হাওলাদার  বলেন, মানবপাচার ও ধর্ষণের অভিযোগে মামলা রুজু করা হয়েছে।


সিআইডিকে তা তদন্ত করে প্রতিবেদন দিতে বলেছেন আদালত।


ভুক্তভোগী নারী  বলেন, বনগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম মুগদা এলাকায় একটি বাসায় মদের আসর বসান।


আঙ্গুরী নামের এক নারীর মাধ্যমে তাকে ওই বাসায় ডেকে নিয়ে জোরপূর্বক মদ্যপান করানো হয়। পরে তিনি অচেতন হয়ে পড়লে সাইফুল চেয়ারম্যানসহ কয়েকজন মিলে তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এ বিষয়ে সেই এলাকার থানায় ঘোরাঘুরি করলেও মামলা নেইনি পুলিশ।


তার অভিযোগ, বিবাদীরা মানব পাচারকারী চক্রের সঙ্গে জড়িত এবং কালো টাকা উপার্জনকারী, নারী লোভী ও পতিতা ব্যবসায়ী।


মামলার আসামিরা হলেন- বনগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম, জাভেদ হোসেন পাপন, মোখলেছ, আনিসুর রহমান রতন, জসিম, কবির হোসেন মিরাজ, আলাউদ্দিন, আনোয়ারা বেগম আঙ্গুরি ও মুগদা থানার পরিদর্শক (ওসি) জামাল উদ্দিন মীর। মামলায় ১৩ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে।


জানা গেছে, মামলা আমলে না নেওয়ায় থানার ওসিকে বিবাদি করা হয়েছে। সাক্ষী করা হয়েছে মুগদা জোনের এসি ও থানার এসআইকে। আদালতের নির্দেশ পেয়ে তদন্ত শুরু করেছে ক্রাইম ইনভেস্টিকেশন ডিপার্টমেন্ট (সিআইডি)। তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বাদির বক্তব্য নিয়েছেন। আসামিদের আটকের চেষ্টা চলছে।



আরও খবর