Logo
আজঃ সোমবার ২৪ জুন 20২৪
শিরোনাম

শৃংখলা ফিরছে সড়কে পাল্টে গেছে যাত্রাবাড়ীর চিত্র

প্রকাশিত:সোমবার ২৭ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৪১২জন দেখেছেন

Image

শফিক আহমেদ চৌধুরীঃরাজধানীর যাত্রাবাড়ী চৌরাস্তার যানজটের চিত্র পাল্টে দিয়েছেন ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগ। গত দুই মাসের ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগের সার্বিক প্রচেষ্টায় সড়কে ফিরে এসেছে শৃংখলা৷ ফুটপাথ উচ্ছেদ,রাস্তা দখল করে বাজার, শহীদ ফারুক সড়কের দুইপাশে হকার, মোড়ে ফলপট্টি এখন আর কোন কিছুই নাই৷ এর ফলে যাত্রাবাড়ীর চিরচেনা যানজট যেখানে ঘন্টার পর ঘন্টা জ্যামে বসে থাকতে সেখানে অনায়াসেই রাজধানীতে ঢুকছে প্রায় ৪৮ জেলার বাস।

গত মে মাসের প্রথম দিকে ডিএমপি পুলিশ কমিশনার হাবিবুর রহমান যাত্রা্বাড়ীর সড়ক ফুটপাথ পরিদর্শন করে তিনি বলেছিলেন, ফুটপাথ থাকবে উন্মূক্ত, রাস্তায় কোন বাজার হাট বসবে না৷ পুলিশ কমিশনারের এমন নির্দেশানর পর যাত্রাবাড়ী, জুরাইন,ষ্টাফ কোয়ার্টার দয়াগঞ্জ মোড় সহ ওয়ারী বিভাগের সড়কে শৃংখলা ফিরিয়ে আনতে ট্রাফিক ডিসি আশরাফ ইমাম, এসি যাত্রাবাড়ী, এসি ডেমরা সহ সকল ট্রাফিক ইন্সপেক্টর গন মাঠে কাজ শুরু করেন।

এই বিষয়ে ওয়ারী বিভাগের ট্রাফিক ডিসি বলেন, আমি গত দুই মাসে আমার ষ্টাফদের নিয়ে মাঠে কাজ করে সড়কে শৃখলা ফিরিয়ে এনেছি এবং এটা ধরে রাখতে যা যা করনীয় সকল পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।তিনি আরো বলেন, ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগ সব সময় জনগনের সেবায় পাশে থাকবে।তীব্র তাপদাহে খাবার স্যালাইন ও খাবার পানি বিতরন। বিশ্ব মা দিবসে দু:স্থ মাদের মধ্যে খাবার বিতরন করা হয়৷

     -খবর প্রতিদিন/ সি.ব

আরও খবর



শাহবাগ থানা সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১০৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:শাহবাগ থানা স্থানান্তর করা হবে ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বাধীনতা স্তম্ভ নির্মাণ প্রকল্প এলাকার অভ্যন্তর থেকে। স্থানান্তর করে এটি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উত্তর পাশে নেওয়া হবে।

সোমবার (৩ জুন) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এ বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সভাপতিত্ব করেন।

বৈঠক শেষে সচিবালয়ে ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন সাংবাদিকদের জানান, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বাধীনতা স্তম্ভ নির্মাণ (তৃতীয় পর্যায়) (প্রথম সংশোধিত) প্রকল্প এলাকার অভ্যন্তর থেকে শাহবাগ থানা স্থানান্তরের বিষয়টি মন্ত্রিসভার নির্দেশনার জন্য বৈঠকে উপস্থাপন করা হলে মন্ত্রিসভা এ সিদ্ধান্ত দেয়।


আরও খবর



কালিয়াকৈরে যুবতীকে ধর্ষণ চেষ্টায় এক যুবককে গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১১৯জন দেখেছেন

Image

সাগর আহম্মেদ,কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি:গাজীপুরের কালিয়াকৈরে কোচ সম্প্রদায়ের (উপজাতি) এক যুবতীকে ধর্ষণ চেষ্টায় এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার গ্রেপ্তারকৃত যুবককে গাজীপুর জেলহাজতে পাঠানো হয়।

গ্রেপ্তারকৃত হলেন, কালিয়াকৈর উপজেলার ধুলিগড়া এলাকার ফজল মিয়ার ছেলে ফারুক মিয়া (৩৬)। 

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উপজাতি ওই যুবতী কণিকা রানী (২৪) দীর্ঘদিন ধরে কালিয়াকৈর চন্দ্রা এলাকায় একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করেন। প্রতিদিনের মতো গত ২২মে ডিউটি শেষে সন্ধ্যা রাতে অটোরিকশা যোগে বাড়িতে ফিরছিলেন। ফেরার পথে রাত ৮ টার দিকে উপজেলার কোটবাড়ি বকুলতলা এলাকায় নেমে কনিকা রানী। পরে তিনি বনের ভিতর রাস্তা দিয়ে বাড়ি যাওয়ার পথে ওই এলাকার বখাটে যুবক ফারুক মিয়া তার পিছু তাড়া করে। পাশের গন্ধেকচালা এলাকায় পৌঁছালে বখাটে ওই যুবক তার গতিরোধ করে। এসময় ধারালো অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে তাকে টেনে-হেচড়ে পাশের বনের ভিতর নিয়ে যায় ফারুক। সেখানে তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে তার মুখম-লসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে ওই বখাটে। এ ঘটনাটি পরিবারের সদদস্যদের জানালে তারা স্থানীয় মাতাব্বদের কাছে বিচার দাবী করেন। কিন্তু বিষয়টি এলাকায় মীমাংসার চেষ্টা করে ব্যর্থ হলে রোবরার কণিকা রানী বাদী কালিয়াকৈর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। থানায় মামলা দায়ের করার পর ওইদিন রাতে অভিযান চালিয়ে বখাটে ফারুককে গ্রেপ্তার পুলিশ। পরের দিন সোমবার তাকে গাজীপুর জেলহাজতে পাঠানো হয়।

কালিয়াকৈর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মোস্তাফা জামাল আরিফ জানান, অভিযান চালিয়ে বখাটে ফারুককে গ্রেপ্তারের পর তাকে গাজীপুর জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়।


আরও খবর



ঈদযাত্রা নিরাপদ করতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একগুচ্ছ সিদ্ধান্ত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৯০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:ঘরমুখো মানুষের আসন্ন ঈদুল আজহায় যাত্রা নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করতে মহাসড়ক যানজটমুক্ত রাখা, সড়ক-নৌ-রেলপথে দুর্ঘটনা হ্রাস, রেলে শিডিউল বিপর্যয় রোধ, সহজ টিকিট প্রাপ্তিসহ সব ধরনের ভোগান্তি ও হয়রানি বন্ধে একগুচ্ছ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বুধবার (জুন ১২) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় এসব সিদ্ধান্তের কথা জানায়। এর আগে মঙ্গলবার (১১ জুন) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ঈদুল আজহার প্রস্তুতিমূলক সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়ার সভাপতিত্বে সভায় সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ও সচিব, পুলিশ মহাপরিদর্শক, বিজিএমইএর প্রতিনিধি, বিভিন্ন দপ্তর/সংস্থার প্রধান ও প্রতিনিধিরা সভায় অংশ নেন।

ঈদযাত্রা নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করতে নেওয়া সিদ্ধান্তগুলো হলো:

১. সড়কপথে ঈদযাত্রা নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করতে সংশ্লিষ্ট দপ্তরসমূহ নিজেদের মধ্যে আন্তঃসমন্বয়ের মাধ্যমে সব কার্যক্রম গ্রহণ করবে।

২. পুলিশ মহাপরিদর্শক যানজটমুক্ত ঈদযাত্রা নিশ্চিত করতে হটস্পট চিহ্নিতকরণ, হটস্পটসমূহে পুলিশসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরসমূহের দায়িত্বশীল জনবলের উপস্থিতি ও প্রয়োজনীয় সমন্বয় নিশ্চিত করবে।

৩. মহাসড়কের পাশে কিংবা যত্রতত্র কোরবানির পশুর হাট স্থাপনের অনুমতি দেওয়ার ক্ষেত্রে আন্তঃদপ্তর সমন্বয়ে নিশ্চিত করতে হবে।

৪. এফবিসিসিআই ও বিজেএমইএ তাদের কর্মীদের একসঙ্গে ছুটি না দিয়ে করে ধাপে ধাপে ছুটি দেওয়ার বিষয়টি বিবেচনা করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।

৫. ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন ও যানজটমুক্ত রাখতে হটস্পট চিহ্নিতকরণ, হটস্পটসমূহে অতিরিক্ত জনবল নিয়োগ, দুর্ঘটনায় পতিত কিংবা বিকল যানবাহন তাৎক্ষণিকভাবে অপসারণে নিবিড় সমন্বয় ও কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করতে হবে।

৬. ঈদে রেলযাত্রা, রেলের টিকিটপ্রাপ্তি এবং শিডিউল রক্ষার বিষয়ে প্রয়োজনীয় পরিকল্পনা ও কার্যক্রম গ্রহণ করতে হবে। বিশেষ করে টিকিটপ্রাপ্তিতে যেকোনো ধরনের ভোগান্তি, হয়রানি, প্রতারণারোধে সর্বোচ্চ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

৭. অনলাইন প্ল্যাটফর্মে টিকিট বিক্রয়ের বিষয়টি নিবিড়ভাবে মনিটরিংসহ সাইবার নিরাপত্তার বিষয়টিও গুরুত্বের সঙ্গে নজরদারি করতে হবে।

৮. শিডিউল বিপর্যয় রোধে বিকল্প ট্রেন, রিলিফ ট্রেনের ব্যবস্থা এবং বিকল্প অতিরিক্ত বগি রাখার বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।

৯. ঈদে ঘরমুখী ও ফিরতি মানুষের নৌযাত্রা নির্বিঘ্ন করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

১০. নৌযানসমূহে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন রোধ করতে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ এবং নৌযানসমূহের ফিটনেস নিশ্চিত করতে হবে।

১১. লঞ্চ, ফেরি ও নৌঘাটসমূহের নিরাপত্তা, যাত্রীবান্ধব ঘাট ব্যবস্থাপনা এবং টিকিটপ্রাপ্তির সহজলভ্যতা নিশ্চিত করতে হবে।

১২. ঈদে বিমানযাত্রায় সরকারি-বেসরকারি বিমান পরিচালনাকারী সংস্থাসমূহ বিশেষ করে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স তাদের অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট চলাচল বৃদ্ধি করে যাত্রীসেবা সুনিশ্চিত করতে হবে।

১৩. ঢাকা থেকে সৈয়দপুর, রাজশাহী, চট্টগ্রাম এবং সিলেটে বিমানের ফ্লাইট সংখ্যা বৃদ্ধি করার পাশাপাশি বড় বিমানের ব্যবস্থা করার বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।

১৪. বিমানভাড়া যৌক্তিক পর্যায়ে রাখার জন্য বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।

এছাড়াও এ সভায় আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে কোরবানির পশুর সহজলভ্যতা, পরিবহন, হাট ব্যবস্থাপনা, অনলাইন মার্কেট মনিটরিং, ঈদযাত্রা, কোরবানির বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, চামড়া সংরক্ষণ ও ব্যবস্থাপনা, ঈদ ফিরতি যাত্রাসহ সার্বিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সংশ্লিষ্ট সব মন্ত্রণালয়ের প্রস্তুতি, কার্যক্রম ও আন্তঃদপ্তর নিবিড় সমন্বয়, ঈদপূর্ব সময়ে নিত্যপণ্যের সরবরাহ, মজুত ও মূল্য নিয়ন্ত্রণসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত হয়।


আরও খবর



সুনামগঞ্জে মহাবিপদে খামারী ও ব্যবসায়ীরা: প্রশাসন নিরব

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৫৫জন দেখেছেন

Image

মোজাম্মেল আলম ভূঁইয়া-সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:সুনামগঞ্জ জেলার বিভিন্ন উপজেলার সীমান্ত দিয়ে ভারত থেকে অবাধে গরু, ছাগল, মহিষ, ঘোড়া ও চুনাপাথর, কয়লা, চিনি, পেয়াজসহ বিভিন্ন প্রকার মাদকদ্রব্য পাচাঁর করা হচ্ছে বলে খবর পাওয়া গেছে। এর ফলে একদিকে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সরকার, অন্যদিকে রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে দীর্ঘদিন যাবত চোরাচালান বাণিজ্য করে সীমান্ত চোরাকারবারীদের গডফাদার ও সোর্স বাহিনীরা এখন কোটিপতি। আর তাদের কারণে মহাবিপদে পড়েছে খামারী ও বৈধ ব্যবসায়ীরা। তারপর প্রশাসনের পক্ষ থেকে সীমান্ত চোরাচালান বন্ধের জন্য জোড়ালো কোন পদক্ষেপ নেওয়া খবর পাওয়া যায়না। 

এলাকাবাসী, ব্যবসায়ী ও খামার মালিকরা জানান- খাদ্য, চিকিৎসা ও বিদ্যুৎ বিলসহ শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধির কারণে পশুপালনে ব্যয় ভার দ্বিগুন বেড়েছে। এমতাবস্থায় জেলার দোয়ারাবাজার, ছাতক, সুনামগঞ্জ সদর, বিশ^ম্ভরপুর, তাহিরপুর ও মধ্যনগর উপজেলা সীমান্ত পথে প্রতিদিন শতশত গরু, মহিষ, ছাগল পাচাঁর হচ্ছে। পাচাঁরকৃত গরু হাট-বাজারে কম দামে বিক্রি হওয়ার কারণে জেলার খামারীরা পড়েছেন মহা বিপদে। এদিকে গত ৭দিনে তাহিরপুর উপজেলার বীরেন্দ্রনগর সীমান্তের লামাকাটা ও সুন্দরবন এলাকা দিয়ে গডফাদার তোতলা আজাদের নেতৃত্বে তার সোর্স একাধিক মামলার আসামী লেংড়া জামাল, গোলাম মস্তোফা প্রায় ২হাজার মেঃটন কয়লা, ৫শ মেঃটন চিনি ও ২৫০ মেঃটন পেয়াজ পাচাঁর করাসহ পাশের চারাগাঁও সীমান্তের জঙ্গলবাড়ী, কলাগাঁও, এলসি পয়েন্ট, বাঁশতলা ও লালঘাট এলাকা দিয়ে সোর্স রফ মিয়া, আইনাল মিয়া, রিপন মিয়া, সাইফুল মিয়া, দীপক মিয়া, সোহেল মিয়া, আনোয়ার হোসেন বাবলু ও বাবুল মিয়াগং প্রায় ১০হাজার মেঃটন কয়লা ও চুনাপাথরসহ বিভিন্ন প্রকার মাদকদ্রব্য পাচাঁর করে বিজিবি ক্যাম্পের আশেপাশে অবস্থিত ডিপু ও বসতবাড়িতে মজুত করে রেখেছে। অন্যদিকে বালিয়াঘাট সীমান্ত দিয়ে প্রায় ১হাজার মেঃটন কয়লা ও মাদকদ্রব্য পাচাঁর করে দুধেরআউটা, লাকমা, বিন্দারবন্দ গ্রামে মজুত করেছে সোর্স রতন মহলদার, কামরুল মিয়া, ইয়াবা কালাম, হোসেন আলী, জিয়াউর রহমান জিয়া ও মনির মিয়াগং। এদিকে টেকেরঘাট সীমান্তের চুনাপাথর খনি প্রকল্প, বড়ছড়া, বুরুঙ্গছড়া ও রজনী লাইন এলাকা দিয়ে সোর্স আক্কল আলী, রুবেল মিয়া, কামাল মিয়া, সাইদুল মিয়া ও মুহিবুর মিয়াগং প্রায় ১০হাজার মেঃটন কয়লা ও ১৫শ মেঃটন চুনাপাথর পাথর করে টেকেরঘাট বিজিবি ক্যাম্পের আশেপাশে ও বড়ছড়া শুল্কস্টেশনের বিভিন্ন ডিপু ও বসতবাড়িতে ওপেন মজুত করে রেখেছে। পাশের চাঁনপুর ও লাউড়গড় সীমান্তের নয়াছড়া, গারোঘাট, রাজাই, কড়ইগড়া, বারেকটিলা এলাকা দিয়ে সোর্স জামাল মিয়া, রসমত আলী, নজরুল মিয়া, বটকুন মিয়া, সাহিবুর মিয়াগং ওপেন গরু, মদ, ইয়াবা, চিনি, পেয়াজ, নাসির উদ্দিন বিড়ি ও ফুসকা পাচাঁর করছে। এছাড়া লাউড়গড় সীমান্তের যাদুকাটা নদী, পুরান লাউড়, সাহিদাবাদ এলাকা দিয়ে সোর্স বায়েজিদ মিয়া, জসিম মিয়া, রফিক মিয়া, নুরু মিয়া ও মোস্তাফা মিয়াগং অবাধে পিয়াজ, চিনি, গরু, কয়লা ও পাথর পাচাঁর করে বিজিবি ক্যাম্পের আশেপাশে মজুত করে ওপেন বিক্রি করলে নেওয়া হয়না আইনগত কোন পদক্ষেপ। এছাড়াও পাশের বিশ^ম্ভরপুর উপজেলার মাছিমপুর, চিনাকান্দি, ডলুরা ও সুনামগঞ্জ সদরের নারায়নতলাসহ একাধিক এলাকা দিয়ে অবাধে চিনি, পেয়াজ ও গরু পাচাঁরের খবর পাওয়া গেছে।

এব্যাপারে তাহিরপুর উপজেলার বড়ছড়া কয়লা ও চুনাপাথর আমদানী কারক সমিতির আন্তর্জাতি বিষয়ক সম্পাদক আবুল খায়ের বলেন-সীমান্ত চোরাচালানের কারণে আমরা কয়েক হাজার বৈধ ব্যবসায়ীরা মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছি। কিন্তু স্থানীয় প্রশাসনকে বারবার অবগত করার পরও তারা কোন পদক্ষেপ নেয়না। স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা নবী হোসেন বলেন- গডফাদার তোতলা আজাদ ও তার সোর্স আক্কল আলী চোরাচালান ও চাঁদাবাজি করে কোটিকোটি টাকা মালিক হয়েছে। তারপরও প্রশাসন তাদের বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ নেয়না। উত্তর বড়দল ইউপি মেম্বার কফিল উদ্দিন বলেন- চাঁনপুর ক্যাম্পের বিজিবিকে ম্যানেজ করে চোরাকারবারীরা ওপেন গরু,মদ,গাঁজা, ইয়াবা পাচাঁর করছে। আমরা তাদেরকে বারবার জানানোর পরও তারা আইনগত পদক্ষেপ নেয়না।

দোয়ারাবাজার উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও খামারী রফিকুল ইসলাম বলেন- সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে ভারত থেকে অবৈধ ভাবে আসা গরু বাজার সয়লাব হওয়ার কারণে আমরা খামারীরা দুশ্চিন্তায় পড়েছি। এব্যাপারে প্রশাসনের সহযোগীতা জরুরী প্রয়োজন। সুনামগঞ্জের টেকেরঘাট বিজিবির কোম্পানীর কমান্ডার দীলিপ বলেন- সীমান্ত দিয়ে কিছু হতে তো দেখিনা, আপনারা চোরাচালানের খবর পেলে জানাবেন, ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও খবর



গ্রিনকার্ড দেওয়ার প্রতিশ্রুতি ট্রাম্পের

প্রকাশিত:শনিবার ২২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৪৬জন দেখেছেন

Image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ী হলে যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো থেকে স্নাতক ডিগ্রি সম্পন্ন করা বিদেশি শিক্ষার্থীদের গ্রিনকার্ড দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার (২১ জুন) এক পডকাস্টে এই প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি।

পডকাস্টে যুক্তরাষ্ট্রের ‍উচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে স্নাতক ডিগ্রি সম্পন্নের পর দেশটিতে বসবাসরত গ্রিনকার্ড প্রত্যাশী বিদেশিদের উদ্দেশে ট্রাম্প বলেন, ‘যা আমি করতে চাই এবং (নির্বাচিত হলে) যা আমি করব তা হলো, যেহেতু আপনারা এই দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে স্নাতক ডিগ্রি সম্পন্ন করেছেন, আপনাদের এই ডিগ্রির অংশ হিসেবেই গ্রিনকার্ড এবং যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব আপনাদের প্রাপ্য।

গত বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ঘোষণা দেন, প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ী হলে অন্তত ১০ বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করছেন এবং মার্কিন নাগরিককে বিয়ে করেছেন এমন ৫ লাখ অভিবাসনপ্রত্যাশীকে নাগরিকত্ব দেবেন তিনি। এছাড়া ২১ বছরের কম বয়সী শিক্ষার্থীদেরও নাগরিকত্ব প্রদানের ঘোষণা দিয়েছেন বাইডেন।তার এই ঘোষণার ২৪ ঘণ্টারও কম সময়ের মধ্যে অনলাইনে এই পডকাস্ট পোস্ট করে ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারণা শিবির।পডকাস্টে তাকে প্রশ্ন করা হয়, ‘আপনি কি সেরা এবং উজ্জলতম মেধাসম্পন্ন মানুষদের যুক্তরাষ্ট্রে জড়ো করার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন?

উত্তরে ট্রাম্প হ্যা-সূচক উত্তর দেন।যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ীভাবে বসবাস ও কাজ করার অনুমতির হলো গ্রিন কার্ড। এর মাধ্যমেই দেশটিতে নাগরিক হওয়ার পথ সুগম হয়। ট্রাম্পের এই প্রস্তাবের কারণে প্রতি বছর নতুন নাগরিকত্বের আবেদন উল্লেখযোগ্য হারে বাড়বে। অভিবাসন ইস্যুতে নিজের কঠোর অবস্থান থেকে সরে এলেন তিনি। ধারণা করা হচ্ছে, এতে রিপাবলিকান পার্টিতেও তার গুরুত্ব বাড়বে।

সূত্র : এএফপি।


আরও খবর