Logo
আজঃ Tuesday ২৮ June ২০২২
শিরোনাম
নাসিরনগরে বন্যার্তদের মাঝে ইসলামী ফ্রন্টের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ রাজধানীর মাতুয়াইলে পদ্মাসেতু উদ্ধোধন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল রূপগঞ্জে ভূমি অফিসে চোর রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী নাসিরনগরে পুকুরের মালিকানা নিয়ে দু পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত ৪ পদ্মা সেতু উদ্ভোধন উপলক্ষে শশী আক্তার শাহীনার নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল করোনা শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২ জনের র‍্যাব-১১ অভিমান চালিয়ে ৯৬ কেজি গাঁজা,১৩৪৬০ পিস ইয়াবাসহ ৬ মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করেছে বন্যাকবলিত ভাটি অঞ্চল পরিদর্শন করেন এমপি সংগ্রাম পদ্মা সেতু উদ্বোধনে রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব সভা ॥ শোভাযাত্রা
জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ-২০২২ এর প্রতিযোগিতায়

শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত হয়েছে সামসুল হক খান স্কুল অ্যান্ড কলেজ

প্রকাশিত:Monday ২৩ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ২৯৭জন দেখেছেন
Image

নাজমুল হাসানঃ

জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ-২০২২ এর প্রতিযোগিতায় বৃহত্তর ডেমরা শিক্ষা থানা (ডেমরা, যাত্রাবাড়ী, সবুজবাগ, মুগদা)-র শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত হয়েছে - সামসুল হক খান স্কুল অ্যান্ড কলেজ। 

শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান প্রধান নির্বাচিত হয়েছেন সামসুল হক খান স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রিন্সিপাল ডঃ মো. মাহবুবুর রহমান মোল্লা। শ্রেষ্ঠ শ্রেণি শিক্ষক (কলেজ); শ্রেষ্ঠ স্কাউট গ্রুপ, শ্রেষ্ঠ স্কাউট শিক্ষকও নির্বাচিত হয়েছে এই প্রতিষ্ঠান থেকে।


এছাড়া আরো ১৯টি ক্যাটাগরিতে প্রথম স্থান অধিকার করে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করে শিক্ষার্থীরা। জাতীয় শিশু পুরস্কার প্রতিযোগিতা-২০২২ এর ঢাকা জেলা পর্যায় প্রতিযোগিতায় সামসুল হক খান স্কুল অ্যান্ড কলেজের ৩ জন শিক্ষার্থী ১ম স্থান অর্জন করে।


সোমবার ২৩ মে সামসুল হক খান স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রিন্সিপাল ডঃ মো. মাহবুবুর রহমান মোল্লার নিজ কার্যালয়ে বিজয়ী শিক্ষার্থীদের অভিনন্দন জানানো হয়।

ডঃ মো. মাহবুবুর রহমান মোল্লা শিক্ষার্থীদের উদ্দ্যশ্যে বলেন,"বিভাগীয় পর্যায়ে তোমাদের সাফল্য কামনা করছি"।


গত (১১ মে) বুধবার  থেকে শুরু হয়েছে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ প্রতিযোগিতা। এদিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পর্যায়ের প্রতিযোগিতা শুরু হয়। আর ৬ জুন জাতীয় পর্যায়ের প্রতিযোগিতার মধ্যে দিয়ে এ প্রতিযোগিতা শেষ হবে। ইতোমধ্যে এ প্রতিযোগিতার সূচি ও নীতিমালা প্রকাশ করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।


আরও খবর



মদনে ভাইস চেয়ারম্যান হলেন মুফতি আনোয়ার

প্রকাশিত:Wednesday ১৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ২৯জন দেখেছেন
Image

নেত্রকোনার মদনে উপ-নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে মুফতি আনোয়ার হোসেন বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

তালা প্রতীকে তিনি পেয়েছেন ৮৩৬৮ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী এম এ সোহাগ মাইক প্রতীকে পেয়েছেন ৭৬৩৬ ভোট।

রির্টানিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. আব্দুল লতিফ শেখ বুধবার (১৫ জুন) রাতে এ ফল ঘোষণা করেন।

এবার উপজেলার ৪৫ কেন্দ্রে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত শান্তিপূর্ণ ভাবে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা কার্যালয় সূত্র জানায়, ২০১৯ সালের ১০ মার্চ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা তাঁতী লীগের সভাপতি তোফায়েল আহমেদ জয়ী হন। কিন্তু গত ইউপি নির্বাচনে তিনি চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করার জন্য ২০২১ সালের ৭ ডিসেম্বর পদত্যাগ করেন। এতে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদটি শূন্য হয়।


আরও খবর



যেভাবে ১৫৫ কেজি ওজন কমিয়েছেন আদনান সামি

প্রকাশিত:Sunday ২৬ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৩৭জন দেখেছেন
Image

পাকিস্তানের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী আদনান সামি ২০০০ সালে ‘মুজকো ভি তু লিফ্ট কারা দে’ গানটির মাধ্যমে জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। তার খ্যাতি বিশ্বজুড়েই। আদনান সামির ভক্তরা সবাই জানেন যে, তিনি এক সময় অতিরিক্ত ওজনে ভুগছিলেন।

মানসিক ও শারীরিক বিভিন্ন সমস্যার মধ্য দিয়ে যাচ্ছিলেন তিনি। অবশেষে ওজন কমানোর জন্য মনস্থির করেন। আর এখন তিনি এতোটাই ফিট যে অন্যরা তাকে দেখলে অনুপ্রাণীত হন।

নিজেকে আমূল পরিবর্তন করেছেন এই শিল্পী। ২২০ কেজিতে পৌঁছে গিয়েছিল তার ওজন। সঠিক ডায়েট ও শরীরচর্চার মাধ্যমে ১৫৫ কেজি ওজন ঝরিয়েছেন আদনান সামি।

jagonews24

২০০৫ সালে লিম্ফিডেমার জন্য অস্ত্রোপচার করা হয় তার। এজন্য ৩ মাস বিছানাসহ্যা ছিলেন তিনি। অতিরিক্ত বিশ্রামের কারণে তার ওজন আরও বেড়ে যায়। এক সময় শ্বাসকষ্ট শুরিু হয় তার।

চিকিৎসক জানান, তার শরীরের অতিরিক্ত চর্বি ফুসফুসে ধাক্কা দেওয়ায় শ্বাস নিতে অসুবিধা হয়। চিকিৎসকরা তাকে সতর্ক করেছিলেন যে তিনি যদি তার ওজন কম না করেন তবে তিনি ৬ মাস বাঁচবেন না।

এরপর পরিবার ও শুভাকাঙ্খীদের সমর্থন ও হিউস্টনের একজন পুষ্টিবিদের নির্দেশনায় ওজন কমানোর যাত্রা শুরু করেন আদনান।

jagonews24

এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘ওজন কমানোর কাজটি ছিল ৮০ ভাগ মনস্তাত্ত্বিক ও মাত্র ২০ ভাগ শারীরিক।’ দৃঢ় সংকল্প ও আত্মত্যাগের মাধ্যমে আদনান সামি মাত্র ১৬ মাসে প্রায় ১৫৫ কেজি ওজন কমাতে সক্ষম হন।

আদনান সামির ডায়েট চার্ট

পুষ্টিবিদ জানান, আদনান একজন ইমোশনাল ইটার। এমন ব্যক্তিরা ভালো বা খারাপ যে কোনো অনুভূতিতেই খেতে পছন্দ করেন। এ কারণে প্রথমেই আদনানকে আবেগপূর্ণ খাওয়া থেকে বের করে আনেন তার পুষ্টিবিদ।
তাকে একটি কম-ক্যালোরিযুক্ত ডায়েট চার্ট দেওয়া হয়েছিল। যেখানে ছিল- সাদা ভাত, রুটি ও শাকসবজি। অস্বাস্থ্যকর জাঙ্ক ফুড একেবারেই খাওয়া বন্ধ করেন আদনান।

jagonews24

তাকে শুধু সালাদ, মাছ ও সেদ্ধ ডাল খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। তিনি দিন শুরু করতেন এক কাপ কম চিনি মেশানো চা দিয়ে। দুপুরের খাবারে তিনি শাকসবজি, সালাদ ও মাছ খেতেন।

রাতের খাবারে তিনি খেতেন ভাত বা রুটি ছাড়াই সাধারণ সেদ্ধ ডাল বা মুরগির মাংস। স্ন্যাকসের জন্য তাকে ঘরে তৈরি শুকনো পপকর্ন খেতে দেওয়া হত।

তার ব্যায়াম রুটিন

আদনান সামি স্থূল হওয়ায় প্রথম দিকে কোনো ধরনের শরীরচর্চাই তেমন করতে পারতেন না। খাবারের মাধ্যমেই প্রথম কয়েক মাসে তিনি ৪০ কেজি ওজন হারান। তারপর ট্রেডমিলে তিনি নিয়মিত হাঁটা ও হালকা ব্যায়াম করা শুরু করেন।

jagonews24

তার প্রশিক্ষক প্রশান্ত সাওয়ান্ত তাকে সপ্তাহে ৬ দিন শক্তি প্রশিক্ষণ ও কার্ডিও অনুশীলন করাতেন। গড়ে প্রতি মাসে আদনান প্রায় ১০ কেজি করে ওজন কমিয়েছেন। আর বর্তমানে তার ওজন ৬৫ কেজি।

তবে এখনো তিনি নিয়ম মেনেই জীবনযাপন করছেন। সামান্য ভুলেও যেন ওজন বেড়ে না যায় সেদিকে সতর্ক থাকেন আদনান সামি।

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া


আরও খবর



ইভিএম জনগণের আস্থার জায়গায় পৌঁছাতে পারেনি: জাফরুল্লাহ

প্রকাশিত:Sunday ০৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৪৭জন দেখেছেন
Image

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, পৃথিবীর খুব কম দেশেই ইভিএম (ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন) পদ্ধতিতে ভোট হয়। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ইভিএম পদ্ধতি জনগণের বিশ্বাস ও আস্থার জায়গায় পৌঁছাতে পারেনি। সাধারণ মানুষের ধারণা, তারা যে প্রতীকেই ভোট দেন না কেন তা নির্দিষ্ট একটি প্রতীকে গণনা হয়।

রোববার (৫ জুন) দুপুরে যশোর সদরের লেবুতলা ইউনিয়নের লেবুতলা গ্রামে গণস্বাস্থ্য লেবুতলা হাসপাতালের জন্য নির্ধারিত স্থান পরিদর্শনে গিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

আগামী নির্বাচন প্রসঙ্গে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, সাবেক সিইসি (কে এম নূরুল হুদা) যথার্থই বলেছেন, আগামী সংসদ নির্বাচন বিএনপিসহ সব দলের উপস্থিতি ছাড়া কার্যকর হবে না।

হাসপাতাল প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘স্বাস্থ্য নিয়ে ব্যবসা করি না বলেই আমরা কম পয়সায় স্বাস্থ্যসেবা দিতে পারছি। বাংলাদেশে স্বাস্থ্য নিয়ে ব্যবসা করা যাবে না, যেমন ধর্ম নিয়ে ব্যবসা করা যায় না।’

দেশের প্রায় দুই কোটি মানুষ খুবই অনটনের মধ্যে রয়েছে উল্লেখ করে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের এ ট্রাস্টি বলেন, নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্যবৃদ্ধিতে আগামী ঈদে তাদের কোনো আনন্দ থাকবে না।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র তার সীমিত সাধ্যের মধ্যে ২০ হাজার গরিব মানুষের মধ্যে চাল, ডাল, আটা, তেল, আলু সরবরাহ করবে জানিয়ে ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, প্রয়োজনের তুলনায় এটি খুবই সামান্য। সরকারের প্রতি আহ্বান, কম আয়ের দুই কোটি মানুষের জন্য রেশনিং ব্যবস্থা চালু করা হোক।

এ বছর দেশের ৫৭ হাজার ব্যক্তি হজ করবেন। তাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, তারা যেন ১০ হাজার করে টাকা দান করেন। এতে ঈদে প্রায় ছয় লাখ মানুষের মুখে হাসি ফুটবে।

আগামী বাজেটের বিষয়ে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের বড় দেশ, তাই বাজেটের আকারও বড় হবে এটাই স্বাভাবিক। শুধু অপচয়টি কমাতে হবে। বিদ্যুৎ আজ ঘরে ঘরে এটি সত্যি, সে কারণে প্রধানমন্ত্রী ধন্যবাদ পেতেই পারেন। কিন্তু কুইক রেন্টাল কেন পুষতে হবে? এটি অপচয়।’

ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণের প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘ঢাকায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা থাকেন, সাধারণ মানুষ তো দূরের কথা; গত ১৩ বছরে নিজ দলের নেতাকর্মীরাও তার কাছে পৌঁছাতে পারেননি। সে কারণে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণের আওয়াজ তুলতে হবে। প্রদেশ হলেও মানুষ তার মুখ্যমন্ত্রীর কাছে দুঃখ-কষ্টের কথা বলতে পারে।’

পরে বিকেলে বাঘারপাড়া উপজেলার কয়েলখালী গ্রামে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের আরেকটি হাসপাতালের নতুন জায়গা পরিদর্শনে যান ডা. জাফরুল্লাহ।

সেখানে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে উপস্থিত ছিলেন নারীপক্ষের সদস্য শিরিন হক, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রধান নির্বাহী ডা. মনজুর কাদের, লেবুতলা গ্রামের জমিদাতা মৃত শুভাংশু শেখর খাঁর স্ত্রী কল্পনা রানী খাঁ এবং মৃত অরুণ কুমার খাঁর স্ত্রী অরুণা রানী খাঁ, ওই গ্রামের বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসহাক, রফিকুল ইসলাম প্রমুখ।

শুভাংশু শেখর খাঁ ও তার ভাই অরুণ খাঁর পক্ষে তাদের স্ত্রীরা টিনশেড ঘরসহ ৫৫ শতক জমি হাসপাতালের অনুকূলে আজ রেজিস্ট্রি করে দেন। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের পক্ষে ট্রাস্টি ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী জমি গ্রহণ করেন।

আগামী জুলাই মাসে লেবুতলায় হাসপাতাল নির্মাণের কাজ শুরু এবং আগামী বছরের জুন মাস নাগাদ আনুষ্ঠানিকভাবে হাসপাতালের কার্যক্রম শুরু হবে বলে এ সময় জানানো হয়।


আরও খবর



কিউএস র‍্যাংকিং: সেরা ৮০০-তে নেই বাংলাদেশের কোনো বিশ্ববিদ্যালয়

প্রকাশিত:Saturday ১১ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৬৯জন দেখেছেন
Image

যুক্তরাজ্যভিত্তিক শিক্ষা ও গবেষণা সংস্থা কোয়াককোয়ারেলি সায়মন্ডসের (কিউএস) বিশ্বসেরা ৮০০ বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় ঠাঁই পায়নি বাংলাদেশের কোনো বিশ্ববিদ্যালয়। র‍্যাংকিংয়ে টানা পঞ্চমবারের মতো ৮০১ থেকে ১০০০তম অবস্থানে রয়েছে উচ্চশিক্ষায় দেশসেরা দুই প্রতিষ্ঠান- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ও বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট)।

গত বুধবার (৮ জুন) প্রকাশিত ‘কিউএস ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‍্যাংকিংস ২০২৩: টপ গ্লোবাল ইউনিভার্সিটিস’ শীর্ষক ইনডেক্স থেকে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

সর্বশেষ এই র‍্যাংকিংয়ে গতবারের মতো এবারও ১০০১ থেকে ১২০০তম তালিকায় রয়েছে দেশের বেসরকারি দুই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান- ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় ও নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়।

বিশ্বব্যাপী বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর র‍্যাংকিং মূল্যায়নকারী প্রতিষ্ঠান কিউএস তাদের এই র‍্যাংকিংয়ে সেরা ৫০০ এর পরে থাকা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সুনির্দিষ্ট কোনো অবস্থান প্রকাশ করে না। এ কারণে র‍্যাংকিংয়ে ঢাবি ও বুয়েটের অবস্থান সুনির্দিষ্ট নয়। অর্থাৎ এই দুটি বিশ্ববিদ্যালয় র‍্যাংকিংয়ের সেরা ১০০০ এর শেষ ২০০তে অবস্থান করছে।

এর আগে, কিউএসের ২০১৯, ২০২০, ২০২১ ও ২০২২ সালের প্রকাশিত র‍্যাংকিংয়ে ঢাবি ও বুয়েটের অবস্থান ছিল ৮০১ থেকে ১০০০ এর মধ্যে। ২০১৮ সালে বাংলাদেশ থেকে শুধু ঢাবি (৭০১-৭৫০তম) এই র‍্যাংকিংয়ে স্থান পায়।

jagonews24

কিউএসের এবারের র‍্যাংকিংয়ে বিশ্বের ১ হাজার ৪০০ বিশ্ববিদ্যালয়কে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। র‍্যাংকিংয়ে গত ১০ বছরের মতো এবারও প্রথম স্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (এমআইটি), দ্বিতীয় অবস্থানে যুক্তরাজ্যের কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় এবং তৃতীয় যুক্তরাষ্ট্রের স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়। এছাড়া চতুর্থ ও পঞ্চম অবস্থানে আছে যথাক্রমে যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়।

র‍্যাংকিংয়ে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের ৪৪টি ও পাকিস্তানের ১৩টি বিশ্ববিদ্যালয় স্থান পেয়েছে। এর মধ্যে ভারতের নয়টি ও পাকিস্তানের তিনটি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে বিশ্বসেরা ৪০০ এর মধ্যে। এবার ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব সাইন্সের অবস্থান ১৫৫তম, গতবার যেটি ১৮৬তম ছিল।

কিউএস ২০০৪ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত যুক্তরাজ্যভিত্তিক শিক্ষা সাময়িকী টাইমস হায়ার এডুকেশনের সঙ্গে যৌথভাবে সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের র‍্যাংকিং প্রকাশ করে। এরপর ২০১০ সালে আলাদা হয়ে এককভাবেই র‍্যাংকিং প্রকাশ করে আসছে সংস্থাটি।

কিউএসের প্রকাশিত সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকা বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য র‍্যাংকিংগুলোর একটি। অ্যাকাডেমিক খ্যাতি, চাকরির বাজারে সুনাম, শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাত, শিক্ষকপ্রতি গবেষণ মানপত্র (Citation), আন্তর্জাতিক শিক্ষক ও শিক্ষার্থী অনুপাত, আন্তর্জাতিক গবেষণা নেটওয়ার্ক ও কর্মসংস্থান এই আটটি সূচকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামগ্রিক মান নিরূপণ করে কিউএস।

প্রতিটি সূচকে ১০০ নম্বর থাকে। সব সূচকের যোগফলের গড়ের ভিত্তিতে সামগ্রিক স্কোর নির্ধারিত হয়। তবে র‍্যাংকিংয়ে থাকা বাংলাদেশের চার বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনোটিরই সামগ্রিক স্কোর উল্লেখ করেনি কিউএস।


আরও খবর



‘পোশাক শ্রমিকদের অসন্তোষের ঘটনায় শ্রমিক সংগঠনের সম্পৃক্ততা নেই’

প্রকাশিত:Sunday ০৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৪৯জন দেখেছেন
Image

মিরপুরে বেতন বৃদ্ধির দাবিতে আন্দোলনরত শ্রমিকদের সঙ্গে কোনো সংগঠনের সম্পৃক্ততা নেই বলে দাবি করেছেন গার্মেন্টস মালিক ও শ্রমিক সংগঠনের প্রতিনিধিরা। শ্রমিকরা কার ইন্ধনে আন্দোলন করছেন তা সম্পর্কেও পরিস্কার ধারণা নেই বলেও জানিয়েছেন তারা।

রোববার (৫ জুন) রাজধানীর শ্রম ভবনে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অধীন কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের আয়োজনে শ্রম অসন্তোষ নিরসনের লক্ষ্যে ত্রিপক্ষীয় সভায় এসব কথা জানান উপস্থিত শ্রমিক ও মালিকপক্ষের প্রতিনিধিরা।

সভায় শ্রমিক নেতারা জানান, আন্দোলনরত শ্রমিকরা কোন সেক্টর বা প্রতিষ্ঠানের শ্রমিক কিংবা কোন শ্রমিক সংগঠনের ইন্ধনে তারা আন্দোলন করছেন এ বিষয়ে তারা অবগত নন।

তবে উপস্থিত শ্রমিক নেতারা এ সময় শ্রম আইনের বিধি মোতাবেক সুনির্দিষ্ট কৌশল অবলম্বনপূর্বক মজুরি বৃদ্ধির বিষয়টি বিবেচনায় নেওয়ার পক্ষে মতামত ব্যক্ত করেন।

সভায় মালিকপক্ষের প্রতিনিধিরা শ্রমিকদের চলমান আন্দোলনকে সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডসহ পোশাক শিল্পের অগ্রগতিকে ব্যাহত করার লক্ষ্যে একটি বৃহৎ ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে উল্লেখ করেন। তারা বলেন, শ্রমিকদের ন্যায়সঙ্গত দাবি-দাওয়া শ্রম আইন ও বিধি মোতাবেক প্রতিপালনে মালিকপক্ষ সর্বদাই সচেষ্ট।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে অংশ নেন সাবেক নৌপরিবহন মন্ত্রী ও শ্রমিকনেতা শাজাহান খান। তিনি বলেন, চলমান বিক্ষোভ শ্রমিকরা নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে অগ্রসর না হয়ে, হঠকারী আন্দোলন করছেন যা কোনো সফলতা বয়ে আনবে না।

এ সময় শ্রমিকদের কাজে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, শ্রমিকদের মজুরি সংক্রান্ত বিষয়টি পূর্ব নির্ধারিত সময়মতো সরকার ও মালিকপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সোমবার (৬ জুন) থেকে কারখানা যথারীতি খোলা থাকবে বলে শ্রমিক ও মালিকপক্ষের প্রতিনিধিরা সভায় জানান।

সভায় চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডের বিএম কন্টেইনার ডিপো লিমিটেড কারখানায় অগ্নিদুর্ঘটনায় আহত ও নিহত পরিবারের প্রতি শোক ও সমবেদনা জ্ঞাপন করা হয়।

এতে সভাপতিত্ব করেন কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক (যুগ্ম সচিব) মিনা মাসুদ উজ্জামান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর, বিজিএমইএ, বিকেএমইএ ও শ্রমিক সংগঠনের নেতাসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের স্টেকহোল্ডাররা।


আরও খবর