Logo
আজঃ বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম
নিলয় কোটা আন্দোলনকারীদের পক্ষ নিয়ে কী বললেন স্থগিত ১৮ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা তিতাসের অভিযানে নারায়ণগঞ্জের ২ শিল্প কারখানার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন হিলি দিয়ে কাঁচা মরিচ আমদানি বাড়ায় বন্দরের পাইকারী বাজারে কেজিতে দাম কমেছে ৩০ টাকা জয়পুরহাটে ডাকাতির পর প্রতুল হত্যা মামলায় ৬ জনের যাবজ্জীবন রিয়েলমি সার্ভিস ডে: ফোন রিপেয়ারে খরচ বাঁচান ৬০% পর্যন্ত, উপভোগ করুন ফ্রি সার্ভিস সুনামগঞ্জে ইয়াবাসহ ২জন গ্রেফতার: কোটিপতি সোর্স ও গডফাদার অধরা কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ৩ দিনে ৩ খুন, আইনশৃংখলার অবনতি জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

শ্রীলঙ্কার মতো ভুল যাতে না হয়, সতর্ক থাকতে হবে: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:রবিবার ০৭ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১২৬জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:মন্ত্রী, সচিব ও কর্মকর্তারা সৎ থাকলে দুর্নীতি হওয়ার কোনো সুযোগ থাকবে না। দুর্নীতি এখন বেপরোয়া গতিতে বিস্তার লাভ করছে। কিন্তু ধরা পড়ে অনেক পরে, বলেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ।

রোববার (৭ জুলাই) সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শুদ্ধাচার পুরস্কার অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সেতুমন্ত্রী বলেন, দুর্নীতির জন্য যে মূল্য দিতে হয়, সেটা আমাদের জন্য সত্যিই দুঃখজনক ও দুর্ভাগ্যজনক। দেশের অর্থনৈতিক সম্পদ মাথায় রেখে সমস্ত প্রকল্প বাস্তবায়নের পরিকল্পনা নিতে হবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, কোনো অবস্থাতেই শ্রীলংকার দৃষ্টান্তের পুনরাবৃত্তি কিংবা শ্রীলংকার ভুলের পুনরাবৃত্তি যাতে না হয় সেদিকে সতর্ক থাকতে হবে। ভালো কাজের যেমন পুরস্কার, সেভাবে খারাপ কাজের জন্য নিন্দা ও শাস্তির ব্যবস্থা থাকা দরকার।

কোটা নিয়ে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন আর পেনশন স্কিম নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের আন্দোলন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমরা গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছি। সময়মতো সমাধান হয়ে যাবে বলে আমি বিশ্বাস করি। শিক্ষার্থীরা যে ইস্যুতে আন্দোলন করছে এটাতো সরকারের সিদ্ধান্ত না, আদালত রায় দিয়েছে। এটা আদালতের এখতিয়ার।

সরকারি কর্মচারীদের সম্পদের হিসাব ইস্যুতে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, সম্পদের হিসাব দিতে পারে, এটা দেওয়া উচিত। এখানে আপত্তি কোথায়? আমি যদি সৎভাবে কাজ করি দিতে আপত্তি কী।


আরও খবর



বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডাঃ সামন্ত লাল সেন

প্রকাশিত:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ৬৮জন দেখেছেন

Image

নাজমুল ইসলাম (মিলন)দিনাজপুর প্রতিনিধি:গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী অধ্যাপক ডা. সামন্ত লাল সেন দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার ৫০ শষ্যা বিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করেছেন।

মন্ত্রী ১৩ জুলাই শনিবার দুপুরে বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ উপস্থিত হয়ে দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ-কাহারোল) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব জাকারিয়া জাকা, বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ফজলে এলাহী, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মো: মহসিন আলী হাসপাতালের বিভিন্ন ইউনিট ঘুরে রোগী, চিকিৎসক-নার্স, কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ সার্বিক খোঁজ-খবর নেন। তিনি প্রায় ৪০ মিনিট যাবত হাসপাতলে অবস্থান নেন।

এসময় তার সফর সঙ্গী হিসেবে স্বাস্থ্য সচিব মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম, রংপুর বিভাগ (স্বাস্থ্য) পরিচালক ডাঃ এ.বি.এম আবু হানিফ, দিনাজপুর সিভিল সার্জন ডাঃ এ.এইচ.এম বোরহন-উল-ইসলাম সিদ্দিকী সঙ্গে ছিলেন।

মন্ত্রীর আগমনকে ঘিরে সমগ্র বীরগঞ্জে গত ৩ দিন ধরে চলছিল সাজ সাজ রব, ব্যপক উৎসাহ উদ্দিপনা, পুলিশ এবং উপজেলা প্রশাসন ছিল সজাগ, গ্রহন করেছিল কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা ছিল দৃষ্টান্ত।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে কার্ডিয়াক সেন্টার, ইমার্জেন্সি ওয়ার্ড, অ্যাডমিশন ওয়ার্ড, মাইক্রো বায়োলজি ল্যাব, বায়োকেমিস্ট্রি ল্যাব, প্যাথলজি ল্যাব ও নিরপদ ডেলিভারি ইউনিট পরিদর্শন করেন। সেখানে জরুরি বিভাগ, আইসিইউ, এইচডিইউ, সিসিইউ পরিদর্শন করেন, রোগী, রোগীর স্বজন এবং চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলেন। কাগজপত্র দেখেন, পরিদর্শন বহিতে স্বাক্ষর করেন, সব সময় পর্যাপ্ত বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের ডিউটিতে রাখার নির্দেশনা দেন।

এ সময় উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ মো: মহসিন আলী হাসপাতালটি ৫০ শয্যা থেকে ১০০ শয্যা উন্নীতকরণ, গাইনী সার্জন সহ হাসপাতালের ১০ টি প্রয়োজনীয় চাহিদার আবেদন করেন।

এর পুর্ব তিনি খানসামা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরিদর্শন করে বীরগঞ্জ উপজেলার ঝাড়বাড়িতে তার এক আত্মীয়ের বাড়িতে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন।

বীরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শনের সময় আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ আফরোজা সুলতানা লুনা, বীরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মজিবুর রহমান, ইউপি চেয়ারম্যান রাজিউর রহমান রাজু, মোঃ আতাহারুল ইসলাম চৌধুরী হেলাল, শাহিনুর রহমান চৌধুরী, জেলা পরিষদ সদস্য রোকনুজ্জামান বিপ্লব, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ নুরিয়াস সাঈদ সরকার, যুব লীগের সাধারণ সম্পাদক মোসাদ্দেক হোসেন সহ কর্মরত সকল ডাক্তার কর্মচারী ছাড়াও স্বাস্থ্য বিভাগের বিভাগীয়, জেলা এবং উপজেলার প্রসাশনিক অফিসারগন এবং স্থানীয় সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর



অন্যায়ভাবে জমি দখল, মিথ্যা মামলা ও হয়রানি করার প্রতিবাদে বোদায় মানববন্ধন

প্রকাশিত:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ | ৯৭জন দেখেছেন

Image

কুয়েল ইসলাম সিহাত,বোদা (পঞ্চগড়) প্রতিনিধিঃপঞ্চগড়ের বোদায় অন্যায়ভাবে জমি দখল, মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি প্রতিবাদে এবং ভূমিদস্যু তোয়ায়েল আহম্মেদ ও বোদা থানার ওসি মোজাম্মেল হকের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়েছে। শনিবার (২২ জুন) দুপুরে উপজেলার ময়দানদিঘী বাজারে ভূক্তভোগী পরিবার ও স্থানীয়দের ব্যানারে পঞ্চগড়-ঢাকা মহাসড়কের একপাশে দাড়িয়ে ঘন্টাব্যাপী এই মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়। মানববন্ধনে ভূক্তভোগী পরিবারের সদস্য আনসারুল ইসলাম, পারুল বেগম, শাপলা আক্তার, আর্ণিকা বেগম, শাহজাহান আলী প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। মানববন্ধনে বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, উপজেলার ময়দানদিঘী ইউনিয়নের জমকুড়াপাড়া এলাকার আনসারুল ইসলাম ও তার পরিবার দীর্ঘ ৭৫ বছর ধরে ক্রয়সূত্রে ২৪ বিঘা জমির মালিকানা লাভ করেন। তবে ওই জমি গত কয়েক বছর আগে স্থানীয় আনিসুর সহ তার পরিবারের সদস্যরা গাজীপুর জেলার তোফায়েল আহম্মেদ নামে এক ব্যক্তির কাছে বিক্রি করেন। পরে এনিয়ে আদালতে মামলা গড়ায়। সম্প্রতি সেই জমি দখলে নিতে বোদা থানার অফিসার ইনচার্জ মোজাম্মেল হককে ঘুষ দিয়ে তার উপস্থিতিতে কাটা তারের বেড়া দিয়ে জমি দখলে নেয় ভূমিদস্যু তোফায়েল। তবে রাতের আধাঁরে জমির কে বা কারা জমিতে দেয়া বেড়া ক্ষতিগ্রস্থ করেছে তার দায় চাপিয়ে দেয়া হয়েছে ভূক্তভোগী পরিবারের উপর। পরে এনিয়ে তোফায়েল বোদা থানায় সীমানা বেড়া ক্ষতিগ্রস্থ ও মালামার চুরির একটি মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ মামলার আসামী ধরতে রাতের আধারে ভূক্তভোগীদের হয়রানী করছে। অবিলম্বে এই মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, হয়রানী বন্ধ সহ ভূমিদস্যু তোফায়েল ও বোদা থানার ওসি মোজাম্মেল হকের বিচার দাবী করেন বক্তারা। মানববন্ধনে ভূক্তভোগী পরিবারের সদস্য আনসারুল ইসলাম বলেন, আমাদের জমি অন্যায়ভাবে দখলে নিয়ে আমাদের উপরই মালামাল চুরির একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। পুলিশ রাতে আমাদের ধাওয়া করছে। আমাদের পরিবারের কয়েকজন ছাত্রছাত্রীকেও আসামী করা হয়েছে তাদের কারো এইচএসসি কারো অর্নাস পরীক্ষা চলছে। তারাও বাসায় থাকতে পারছেনা। আমরা আমাদের জমি ফিরিয়ে চাই। সেই সাথে অবৈধ মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, ভূমিদস্যু তোফায়েল ও বোদা থানার ওসি মোজাম্মেল হকের বিচার চাই। পরে মানববন্ধন শেষে একই দাবীতে ময়দানদিঘী বাজারে ভূক্তভোগী পরিবার ও স্থানীয়রা পঞ্চগড়-ঢাকা মহাসড়ক ঘন্টাব্যাপী অবরোধ করেন। এসময় মহাসড়কের দুই পাশে অর্ধশতাধিক যানবাহন আটকে পড়ে। পরে উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) এস এম ফুয়াদ ও বোদা হাইওয়ে থানার ওসি শরিফুল ইসলাম ঘটনাস্থলে পৌঁছে ভূক্তভোগীদের সাথে কথা বলে মামলার বিষয়ে তদন্ত ও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের আশ্বাস দিলে সড়ক অবরোধ প্রত্যাহার করেন ভূক্তভোগী পরিবারের সদস্য ও স্থানীয়রা। সব অভিযোগ অস্বীকার করে তোফায়েল আহম্মেদ বলেন, আমার কাছে কোর্টের আদেশ আছে। আমি সেই আদেশের বলে জমিতে গেছি। কোর্ট আমাকে জমি দখল করে দিয়েছে। আপনারা চাইলে সব কাগজপত্র দেখতে পারেন। আর আমি কোন মিথ্যা মামলা করিনি। কাউকে হয়রানীও করা হচ্ছে না। আমার মালামাল চুরি হয়েছে আমি মামলা করবো না। এখানে কোন মিথ্যার আশ্রয় নেয়া হয়নি। এ ব্যাপারে বোদা থানার অফিসার ইনচার্জ মোজাম্মেল হক সব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ওই ঘটনায় সকল কর্মকান্ড আইন অনুযায়ী করা হয়েছে। 


আরও খবর



কোটার বিষয়ে আদালতের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:বুধবার ১০ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৩৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আমরা কোটামুক্ত সিদ্ধান্তই নিয়েছিলাম। এখন আমাদের অবস্থান আদালতের ওপর নির্ভরশীল। আদালতের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত হবে। আশা করি, আদালত বাস্তবসম্মত সিদ্ধান্ত নেবেন,বলেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বুধবার (১০ জুলাই) দুপুরে আপিল বিভাগের আদেশের পর এ কথা বলেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আদালত চূড়ান্ত রায়ের মাধ্যমে এ বিষয়ের নিষ্পত্তি করবেন। আদালত শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফিরে যেতে বলেছেন। শিক্ষার্থীদের অসন্তোষ বিবেচনা করে আদালত বাস্তবসম্মত রায় প্রকাশ করবেন বলে আশা করি। পুরো রায় না আসা পর্যন্ত ধৈর্য ধারণ করতে বলছি। মানুষের দুর্ভোগ যাতে না হয়, সেদিকে শিক্ষার্থীদের খেয়াল রাখতে হবে। ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, শিক্ষার্থীরা কি ভাবছে তা এখনই বলা সম্ভব না। এক ঘণ্টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের প্রতিক্রিয়া বলা যাবে না। আজ ও কাল দেখি। তারপর বুঝা যাবে, আপনারা ধৈর্য ধরুন।

তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের আন্দোলনের বিষয়ে আমাদের যোগাযোগ আছে। আমরা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি। অচিরেই সমস্যার সমাধান হবে।

এসময় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, এস এম কামাল হোসেন, আফজাল হোসেন, দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান, কার্যনির্বাহী সদস্য সাহাবুদ্দিন ফরাজী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর



ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে শিক্ষকদের বৈঠক স্থগিত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১২৯জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:কর্মবিরতি পালনকারী শিক্ষক নেতাদের সঙ্গে সেতুমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের বৈঠক স্থগিত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) সকালে বৈঠক হওয়ার কথা থাকলেও বৈঠক হয়নি বলে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের মহাসচিব ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. নিজামুল হক ভূঁইয়া।

তিনি বলেন, পদ্মাসেতু সংক্রান্ত একটি বিষয় নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর একটি জরুরি সাক্ষাৎ রয়েছে। তাই তিনি আমাদের সময় দিতে পারেননি। আগামীকাল মন্ত্রী বৈঠকের বিষয়ে আমাদের জানাবেন। এর আগে গতকাল (বুধবার) অধ্যাপক ড. নিজামুল হক ভূঁইয়া আজ বৈঠক হচ্ছে বলে জানিয়েছিলেন।

প্রসঙ্গত, সর্বজনীন পেনশন স্কিম সংক্রান্ত ‘বৈষম্যমূলক প্রজ্ঞাপন’ প্রত্যাহার এবং পূর্বের পেনশন স্কিম চালু রাখার দাবিতে গত ২০ মে সংবাদ সম্মেলন করে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন। তার ধারাবাহিকতায় ২৬মে বেলা সাড়ে ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ সারাদেশের ৩৬টি বিশ্ববিদ্যালয়ে একযোগে মানববন্ধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। এরপর ২৮ মে দুই ঘণ্টা এবং ২৫-২৭ জুন তিনদিন সারাদেশে অর্ধদিবস কর্মবিরতি পালন করা হয়। পরবর্তীতে ৩০ জুন পূর্ণকর্মবিরতি পালন করা হয় এবং ১ জুলাই থেকে সর্বাত্মক কর্মবিরতি শুরু হয়।


আরও খবর



দুই প্রার্থীর মনোনয়ন ফরম প্রত্যাহার! হেতু কামারগাঁ ইউপি উপনির্বাচনে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১১ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ৭৬জন দেখেছেন

Image
আব্দুস সবুর তানোর থেকে:রাজশাহীর তানোর উপজেলার কামারগাঁ ইউনিয়ন পরিষদ ইউপির উপনির্বাচনে দুই জন প্রার্থী মনোনয়ন ফরম প্রত্যাহার করেছেন বলে নিশ্চিত করেন উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা কামরুজ্জামান। বুধবার প্রত্যাহারের শেষ দিন ছিল, দুপুরের আগে নির্বাচন অফিসে দুই প্রার্থী উপস্থিত হয়ে প্রার্থী তা প্রত্যাহার  করেন। তিনজন প্রার্থীর মধ্যে দুজন প্রত্যাহার করায় একজন প্রার্থী অবশিষ্ট রইল। সে হিসেবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান হচ্ছেন সুফি কামাল মিন্টু। অবশ্য আনুষ্ঠানিক ভাবে ঘোষণা না হলেও মিন্টুকে অভিনন্দন জানিয়েছেন এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও চেয়ারম্যানসহ নেতারা মিন্টু কে মিষ্টি খাওয়ানো, মালা গলায় পড়ানো ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।তবে রিটার্নিং কর্মকর্তা কামরুজ্জামান বলেন, বুধবার প্রত্যাহারের শেষ দিনে মোসলেম আলী প্রামানিক ও মাসুদ করিম তাদের প্রার্থী তা প্রত্যাহার করেছেন। তিনজন প্রার্থীর মধ্যে দুজন প্রত্যাহার করে নেওয়ার কারনে কোন প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে না। বৃহস্পতিবার প্রতীক বরাদ্দের দিন ছিল। সুতরাং বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সুফি কামাল মিন্টু চেয়ারম্যান হবেন। এঘোষনা বৃহস্পতিবার দেয়া হবে।

জানা গেছে, কামারগাঁ ইউনিয়ন পরিষদ ইউপির চেয়ারম্যান ফজলে রাব্বি ফরহাদ মিয়া চলতি বছরের ৩০ এপ্রিল মারা যান। তিনি মারা যাওয়ার কারনে জুন মাসের শেষের দিকে কামারগাঁ ইউনিয়ন পরিষদ ইউপির উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। তফসিল অনুযায়ী গত ৪ জুলাই মনোনয়ন ফরম জমা দেয়ার দিনধার্য ছিল। ওই দিন তিনজন প্রার্থী মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছিলেন। গত ৫ জুলাই মনোনয়ন ফরম যাচাই বাছাই হয়। যাচাই বাছাইয়ে তিনজন প্রার্থী উপস্থিত ছিলেন এবং  সবাইকে বৈধ বলে ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। ১০ জুলাই বুধবার মনোনয়ন ফরম প্রত্যাহারের শেষ দিন ছিল।

এদিকে গত ৮ জুলাই কামারগাঁ ইউনিয়ন পরিষদ ইউপির উপনির্বাচন কে সামনে রেখে বর্ধিত সভার আয়োজন করে ইউপি আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠন। সে সভায় মোসলেম আলী প্রামানিক প্রার্থী তা প্রত্যাহার করে সুফি কামাল মিন্টু কে দলীয় ভাবে সমর্থন দেয়া হয়। অবশ্য সে সভায় উপস্থিত ছিলেন না তরুন উদীয়মান প্রার্থী মাসুদ করিম। তিনি তফসিল ঘোষণার আগে দোয়া ও সমর্থন প্রত্যাসী হিসেবে পোষ্টার লাগান ইউপি এলাকা জুড়ে। পোষ্টারে নেতাদের ছবি ব্যবহার করায় বর্ধিত সভায় তাকে প্রতারক হিসেবে আখ্যা দেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সহ নেতারা।

সুত্র জানায়, মিন্টু কে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় উপনির্বাচনে চেয়ারম্যান করতে মরিয়া হয়ে পড়েন উপজেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা। নানা ভাবে হুমকি ধামকি দেয়া শুরু করেন মাসুদ করিম কে। কারন মোসলেম আলী প্রামানিক প্রত্যাহার করেছে, আর মাসুদ করিম দলের কেউ না, সে কিসের বলে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে এমন নানা প্রশ্ন তুলেন নেতারা। বুধবার সকালের দিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মাইনুল ইসলাম স্বপন তার মোটরসাইকেলে করে মাসুদ করিম কে নির্বাচন অফিসে নিয়ে যায়। এভাবে প্রার্থী তা প্রত্যাহার হওয়ায় ইউপি বাসীর মধ্যে নানা প্রশ্ন বিরাজমান, উঠেছে সমালোচনাও, কেউ বলছেন আওয়ামী লীগ কি কামারগাঁ ইউপি তে দেওলিয়া হয়ে পড়েছে।
 
অবশ্য মাসুদ করিম কে উপজেলা দেখে প্রত্যাহারের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, এসব নিয়ে পরে কথা বলব।মোসলেম আলী প্রামানিক বলেন, আমি দলের বাহিরে গিয়ে কোনকিছু করতে পারব না। দলীয় ভাবে যাকে সমর্থন দিবে আমি তার হয়ে ভোট করব। দলীয় ভাবে সুফি কামাল মিন্টু কে সমর্থন দিয়েছে একারনে আমি প্রত্যাহার করে নিয়ে দলের সাথে ঐক্যমত পোষণ করেছি।

-খবর প্রতিদিন/ সি.

আরও খবর