Logo
আজঃ Wednesday ১০ August ২০২২
শিরোনাম
নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ২৪৩৫ লিটার চোরাই জ্বালানি তেলসহ আটক-২ নাসিরনগরে বঙ্গ মাতার জন্ম বার্ষিকি পালিত রূপগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কাউন্সিলর সামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু ৬৫ নং ওয়ার্ডে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসুচীতে অংশগ্রহন করেন চান্দিনা থানায় আট কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নাসিরনগরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ নাসিরনগর বাজারে থানা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ মার্কেটে দুই কাপড় দোকানে দুর্ধষ চুরি। ই প্রেস ক্লাব চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটির মতবিনিময় সম্পন্ন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬ কেজি গাঁজাসহ হাইওয়ে পুলিশের হাতে আটক এক। সোনারগাঁয়ে পুলিশ সোর্স নাম করে ডাকাত শাহ আলমের কান্ড

স্কটল্যান্ডকে হারিয়ে বিশ্বকাপের দ্বারপ্রান্তে ইউক্রেন

প্রকাশিত:Thursday ০২ June 2০২2 | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ৫৪জন দেখেছেন
Image

একে একে মাঠে প্রবেশ করছেন ইউক্রেনের ফুটবলাররা। প্রত্যেকের গায়ে জড়ানো দেশের নীল-হলুদ জাতীয় পতাকা। তাদের দেখে গ্লাসগো হ্যাম্পডেন পার্ক স্টেডিয়ামের গ্যালারিতে উঠে দাঁড়ালেন স্কটল্যান্ডের সমর্থকেরা। হাততালি দিয়ে স্বাগত জানালেন।

ম্যাচটা বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের প্রি-প্লে অফের। বলা হচ্ছে প্লে-অফ সেমিফাইনালের। কাতার বিশ্বকাপে জায়গা পেতে প্রথমে এই ম্যাচটি জিততে হবে। ইউক্রেনের ফুটবলাররা মাঠে নেমেছিলেন অনেক বড় এক আবেগকে সঙ্গে করে। দেশের মানুষ যখন রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধে ব্যস্ত, তখন তারা হৃদয় জিততে নেমেছেন মাঠে।

ইউক্রেনীয় আবেগের কাছে পরাজিত হলো স্কটল্যান্ড। ৩-১ গোলে স্কটিশদের হারিয়ে বিশ্বকাপের দোরগোড়ায় পৌঁছে গেলো ইউক্রেন। শেষ বাধা হিসেবে তাদের সামনে রয়েছে ওয়েলস। আগামী রোববার কার্ডিফে ওই ম্যাচটি জিততে পারলেই কাতার বিশ্বকাপে নাম লিখে ফেলবে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ ইউক্রেন। যারা বিশ্বকাপে খেলবে গ্রুপ ‘বি’তে ইংল্যান্ড, যুক্তরাষ্ট্র এবং ইরানের সঙ্গে।

Ukrain

একই সঙ্গে ইউক্রেনের কাছে হেরে স্বপ্নভঙ্গ হলো স্কটল্যান্ডের। ২৪ বছর ধরে বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করতে পারেনি তারা। যে কারণে হতাশ স্বাগতিক সমর্থকরা। তবুও আবেগে হৃদয় জেতা ইউক্রেন ফুটবলাররা যখন মাঠ ছেড়ে যাচ্ছিল, তখন তাদের উদ্দেশ্যে উঠে দাঁড়িয়ে হাততালি দিলেন তারা।

গত ফেব্রুয়ারিতে রাশিয়ার হামলার পর থেকে এই প্রথম কোনো অফিসিয়াল ম্যাচ খেলতে নেমেছিল ইউক্রেন। গ্লাসগোর হ্যাম্পডেন পার্ক মাঠের ৫১ হাজার দর্শকের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মাত্র তিন হাজার ইউক্রেনীয়। গ্যালারির এক কোনে জায়গা নিয়েছিল তারা। জাতীয় সঙ্গীতের সময় বুকে হাত, চোখে পানি। জাতীয় সঙ্গীত শেষ হওয়ার পরে হাততালি দিল বাকি ৪৮ হাজার দর্শকও। খেলা শেষেও সেই ছবি। তিন হাজার দর্শক যখন মাঠ ছেড়ে বেরোচ্ছেন তখন প্রায় ১০ হাজার তাদের হাততালি দিয়ে শুভেচ্ছা জানাচ্ছিলেন।

এমনই বেশ কিছু টুকরো টুকরো ছবি। এই টুকরো টুকরো ছবিতেই বুধবার রাতে এক অন্য ফুটবল দেখল বিশ্ব। যেখানে একদিকে যুদ্ববিধ্বস্ত ইউক্রেন, তারা খেলেছে, জয় করেছে, সেখানে অন্যদিকে জয়ীকে বরণ করে নেওয়া রয়েছে। গ্লাসগো থেকে বার্তা ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে, মানবতার, বন্ধুত্বের, সহমর্মিতার।

Ukrain

ম্যাচের ৩৩তম মিনিটে আন্দ্রে ইয়ারমোলেঙ্কোর বাম পায়ের গোলে প্রথমে এগিয়ে যায় ইউক্রেন। ১-০ গোলে এগিয়ে থেকে প্রথমার্ধ শেষ করে ইউক্রেন। দ্বিতীয়ার্ধ শুরু হওয়ার পরপরই দ্বিতীয় গোল করে ইউক্রেন। ৪৯তম মিনিটে গোলটি আসে রোমান ইয়ারেমচুকের হেড থেকে। ওলেক্সান্ডার কারাভায়েভের ক্রস থেকে ভেসে আসে বলটি।

৭৯ মিনিটে স্কটল্যান্ডের হয়ে একটি গোল শোধ করেন কলাম ম্যাকগ্রেগার। বাম পায়ের দুর্দান্ত এক শটে গোলটি করেন তিনি। ম্যাচ শেষ হওয়ার খানিক আগে, ইনজুরি সময়ে বাম পায়ের শটে গোল করে স্কটল্যান্ডের পরাজয়ের কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে দেন আর্তেম ডভোবায়েক।


আরও খবর



নেক আমলকারীদের পুরস্কার কী?

প্রকাশিত:Wednesday ০৩ August ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ৩৩জন দেখেছেন
Image

আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘যা কিছু আকাশসমূহে রয়েছে এবং যা কিছু জমিনে আছে, সব আল্লাহরই। যদি তোমরা মনের কথা প্রকাশ কর কিংবা গোপন কর, আল্লাহ তোমাদের কাছ থেকে তার হিসাব নেবেন। অতপর যাকে ইচ্ছা তিনি ক্ষমা করবেন এবং যাকে ইচ্ছা তিনি শাস্তি দেবেন। আল্লাহ সর্ব শক্তিমান।’ (সুরা বাকারা : আয়াত ২৮৪)

নেক আমলের কল্যাণ

আয়াত থেকে সুস্পষ্ট যে, প্রত্যেককেই তার কাজেরই হিসাব দিতে হবে। তা গোপন হোক কিংবা প্রকাশ্য। নেক কাজের জন্য পুরস্কার ও অন্যায় কৃতকর্মের জন্য ভোগ করতে হবে শাস্তি। তবে ক্ষমা বা মুক্তি থাকবে আল্লাহর ইচ্ছাধীন। কোরআনের বর্ণনায় আরও এসেছে-

 ‘যে ভালো কাজ করে, সে নিজের উপকারের জন্যেই করে, আর যে অসৎ কাজ করে, তার প্রতিফলও সে-ই ভোগ করবে। আপনার পালনকর্তা বান্দাদের প্রতি মোটেই জুলুম করেন না।’ (সুরা হা-মিম সাজদা : আয়াত ৪৬)

পরকালে বিচারের সময় এসব ভালো ও মন্দ কাজের ফয়সালা করা হবে। দুনিয়াতে যারা নেক আমল করবে, তাদের জন্য থাকবে জান্নাত। আর যারা অন্যায়, অপরাধ, দুর্নীতি ও অসৎকর্মে নিজকে নিয়োজিত রাখবে এবং পাপাচারে লিপ্ত থাকবে, প্রতিফলস্বরূপ তিনি তাদের কঠিন শাস্তি দেবেন।

নেক আমলকারীদের পুরস্কার জান্নাত

যারা নিজেকে ভালো কাজের মধ্যে সমর্পণ করবে এবং ইসলামের বিধি-বিধান অনুযায়ী ইহকালীন জীবন অতিবাহিত করবে, আল্লাহ তাদের সুখ-শান্তিময় বেহেশত প্রদান করবেন। শুধু তাই নয়, সেসব নেক আমলকারীকে সম্মানজনক পুরস্কার প্রদান করবেন। এসব নেক আমল ও পুরস্কার সম্পর্কে কোরআনুল কারিমে একাধিক আয়াতে আল্লাহ তাআলা তা সুস্পষ্ট করেছেন। তাহলো-

১. اَلۡیَوۡمَ تُجۡزٰی کُلُّ نَفۡسٍۭ بِمَا کَسَبَتۡ ؕ لَا ظُلۡمَ الۡیَوۡمَ ؕ اِنَّ اللّٰهَ سَرِیۡعُ الۡحِسَابِ  

‘আজ প্রত্যেককে তার কৃতকর্মের প্রতিফল দেওয়া হবে, আজ কারও প্রতি জুলুম করা হবে না। আল্লাহ হিসাব গ্রহণে তৎপর।’ (সুরা আল-মুমিন : আয়াত ১৭)

২. وَ لِکُلٍّ دَرَجٰتٌ مِّمَّا عَمِلُوۡا ۚ وَ لِیُوَفِّیَهُمۡ اَعۡمَالَهُمۡ وَ هُمۡ لَا یُظۡلَمُوۡنَ

প্রত্যেকের মর্যাদা তার কর্মানুযায়ী, এটা জন্য যে আল্লাহ প্রত্যেকের কৃতকর্মের পূর্ণ প্রতিফল দেবেন এবং তাদের প্রতি অবিচার করা হবে না।’ (সুরা আল আহ্কাফ : আয়াত ১৯)

৩. فَمَنۡ یَّعۡمَلۡ مِثۡقَالَ ذَرَّۃٍ خَیۡرًا یَّرَهٗ -  وَ مَنۡ یَّعۡمَلۡ مِثۡقَالَ ذَرَّۃٍ شَرًّا یَّرَهٗ

‘কেউ অণু পরিমাণ সৎকর্ম করলে তা দেখবে এবং কেউ অণু পরিমাণ অসৎকর্ম করলে তাও দেখতে পাবে।’ (সুরা আজ-জিলজাল : আয়াত ৭-৮)

দুনিয়ায় নেক আমলকারীদের পুরস্কার হলো জান্নাত। এ প্রসঙ্গে কোরআনুল কারিমে মহান আল্লাহ তাআলা এভাবে সুসংবাদ ঘোষণা করেছেন-

৪.  اِنَّ الَّذِیۡنَ اٰمَنُوۡا وَ عَمِلُوا الصّٰلِحٰتِ لَهُمۡ جَنّٰتُ النَّعِیۡمِ - خٰلِدِیۡنَ فِیۡهَا ؕ وَعۡدَ اللّٰهِ حَقًّا ؕ وَ هُوَ الۡعَزِیۡزُ الۡحَکِیۡمُ

 ‘যারা ঈমান আনে নেক কাজ করে, তাদের জন্য আছে নেয়ামতে ভরা জান্নাত, সেখানে তারা চিরস্থায়ী হবেআল্লাহর প্রতিশ্রুতি সত্যতিনি পরাক্রমশালী, প্রজ্ঞাময়।’ (সুরা লোকমান : আয়াত ৮-৯)

এ জন্য দিয়েছেন নবিজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মানবজাতিকে সব অপকর্ম ও অন্যায় থেকে বিরত থাকার পাশাপাশি অন্যায় ও অত্যাচার প্রতিরোধের শিক্ষা দিয়েছেন এভাবে-

‘তোমাদের মধ্যে কেউ যদি কাউকে অন্যায় কাজ করতে দেখে, তাহলে সে যেন তার হাত (শক্তি) দ্বারা তা প্রতিহত করে; যদি সে এতে অক্ষম হয়, তবে যেন মুখ দ্বারা নিষেধ করে, যদি সে এতেও অপারগ হয়, তবে সে যেন অন্তর দ্বারা ঘৃণা পোষণ করে অথ্যাৎ (নিরবে অন্যায় বন্ধের প্রচেষ্টা চালিয়ে যায়)।’ (মুসলিম)

সুতরাং এমনভাবে জীবন অতিবাহিত করতে হবে যেন কারো দ্বারা কোনোরূপ অন্যায় কাজ না হয়। হাত ও মুখ দ্বারা কারও ক্ষতি হোক এমন কোনো কাজ যেন না করা হয়। সেই সঙ্গে যে কারও সম্পর্কে যে কোনো ধরণের মিথ্যা অভিযোগ ছড়িয়ে সমাজে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করা থেকেও নিজেদের বাঁচিয়ে রাখতে হবে। কেননা প্রতিটি মানুষকেই তার কর্মের জন্য আল্লাহর কাছে জবাবদিহি করতে হবে।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহর সবাইকে বেশি বেশি নেক আমল করার তাওফিক দান করুন। অন্যায় কাজ থেকে বিরত থাকার তাওফিক দান করুন। নেক আমলের পুরস্কার সুনিশ্চিত জান্নাত পাওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।


আরও খবর



সিল্কসিটি এক্সপ্রেসের ইঞ্জিন বিকল, ২ ঘণ্টা পর রেলযোগাযোগ সচল

প্রকাশিত:Saturday ৩০ July ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ৩১জন দেখেছেন
Image

বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পাড়ে ইঞ্জিন বিকল হওয়ার দুই ঘণ্টা পর রাজশাহীর উদ্দেশ্যে ছেড়ে গেছে সিল্কসিটি এক্সপ্রেস ট্রেন। এতে ভোগান্তিতে পড়েন যাত্রীরা।

শনিবার (৩০ জুলাই) রাত ৮টা ২৬ মিনিটের দিকে ছেড়ে যায় ট্রেননি। এর আগে ৬টা ১৮ মিনিটের দিকে ওই ট্রেনের ইঞ্জিন বিকল হয়।

বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব রেল স্টেশন মাস্টার (বুকিং) রেজাউল করিম জানান, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা সিল্কসিটি এক্সপ্রেস ট্রেনটি বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্ব পাড়ে পৌঁছালে ইঞ্জিন বিকল হয়ে যায়। পরে মেরামত শেষে ট্রেনটি পুনরায় রাজশাহীর উদ্দেশ্যে ছেড়ে গেছে।


আরও খবর



অ্যাপে ভোটগ্রহণের দাবি জাকের পার্টির

প্রকাশিত:Wednesday ২৭ July ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ০৯ August ২০২২ | ৫৭জন দেখেছেন
Image

নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সংলাপে অংশ নিয়ে অ্যাপে ভোটগ্রহণের দাবি জানিয়েছে জাকির পার্টি। দলটি জানায়, বলার অপেক্ষা রাখে না, অ্যাপে যদি টাকা লেনদেন করা যায় তবে ই-ভোটিংয়ের মাধ্যমে নিরাপদ ভোট দেওয়ার ব্যবস্থা ও ভোটারদের নিরাপত্তা বিধান করা যাবে না কেন?

বুধবার (২৭ জুলাই) রাজধানীর নির্বাচন কমিশন ভবনে এক বৈঠকে এ দাবি জানায় দলটি। এ সময় জাকের পার্টির নয়জন প্রতিনিধি অংশ নেন। অন্যদিকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল ছাড়াও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

জাকের পার্টির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব শামীম হায়দার স্বাক্ষরিত লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন প্রশ্নে জাকের পার্টির প্রস্তাবনা।

১. অনুকূল পরিবেশ নিশ্চিত করা:

অবাধ ও উৎসবমুখর নির্বাচনে গণতন্ত্রের গতিশীল ধারা ও অনুকূল পরিবেশের কোনো বিকল্প নেই। এক্ষেত্রে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কিছু সময় আগে গণতন্ত্র ও অনুকূল পরিবেশ বিষয়ে কথা বলা যুক্তিসঙ্গত হবে না। নির্বাচনের ৬ মাস আগে প্রতিদ্বন্দ্বী দলগুলোর নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা ও হয়রানিমূলক আচরণ যেন না হয়, তা নিশ্চিত করতে হবে।

২. অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্লক চেইন টেকনোলজি ও ই-ভোটিং:

নির্বাচনে ভোটদান প্রক্রিয়ায় ইভিএমের কথা বলা হচ্ছে। বলতেই হয়, ইভিএম প্রযুক্তির ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা প্রশংসনীয়। যারা ইভিএম প্রক্রিয়ার সঙ্গে কাজ করছেন তাদের সবাইকে ধন্যবাদ। কিন্তু ইভিএম পুরো নিশ্ছিদ্র বা নিরাপদ নয়। কারণ মনে রাখতে হবে, সবাই স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তি নয়। কাজেই যারা ইভিএম টেকনোলজি তৈরির সঙ্গে কাজ করছেন, স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তির কেউ যদি এর ভেতরে প্রবেশ করে সুক্ষ্ম পরিবর্তন ঘটিয়ে দেয়, তাহলে নৌকায় ভোট দিলে তা ধানের শীর্ষে বা অন্য প্রতীকে গিয়ে গণনা হবে। যা কোনোভাবেই কাম্য নয়। তাই ইভিএম পুরো নিরাপদ নয়। নির্বাচনের সময় যেভাবে ভোটকেন্দ্র দখলে হানাহানি, মারামারি, আহত কিংবা নিহত হওয়ার ঘটনা ঘটে, তা স্থায়ীভাবে বন্ধ হওয়া উচিৎ। ভোটগ্রহণে বা নির্বাচনে দেশবাসীর রক্ত ঝরবে, নিহত হবে- তা কোনোভাবেই সুখকর সংবাদ হতে পারে না।

এ ধারাবাহিকতা গণতন্ত্রের মসৃণ অগ্রযাত্রা ব্যাহত করে এবং এই ধারা নির্বাচনকে যেমন প্রশ্নবিদ্ধ করে তেমনিভাবে এর ব্যাপকতায় গণতন্ত্রের ভবিষ্যত অন্ধকারে নিমজ্জিত হতে পারে। এ ধরনের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ঘটনা কিন্তু বৃহৎ বিপর্যয়ের বীজ বপন করে। তাই নির্বাচনকে বিতর্কের ঊর্ধ্বে রাখতে ব্লকচেইন প্রযুক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে ই-ভোটিং প্রক্রিয়ায় ঘরে বসে ভোট দেওয়ার ব্যবস্থা এখনই গ্রহণ করা উচিৎ। তা না হলে, ভোটকে কেন্দ্র করে এ ধরনের হানাহানি, মারামারি ও দুঃখজনক হত্যাকান্ড ঘটতে থাকবে। এরই মধ্যে এসব কর্মকাণ্ডের কারণে ভোটারদের নিরাপদ ভোট প্রয়োগের পথ ধীরে ধীরে রূদ্ধ হয়েছে এবং এ ধারা অব্যাহত থাকলে ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোট প্রদানের আকাঙ্ক্ষা বিনষ্ট হবে যা এরই মধ্যে আমরা লক্ষ্য করছি।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক পৃথিবীর সর্ববৃহৎ স্টক এক্সচেঞ্জ। সম্প্রতি সেখানে এজিএম হয়েছে এবং নির্বাচন হয়েছে ব্লকচেইন প্রযুক্তির ভিত্তিতে ই-ভোটিং এর মাধ্যমে। ডিজিটাল বাংলাদেশে ডিজিটাইলেজশন সাফল্যের বর্তমান পর্যায়ে ই-ভোটিং পদ্ধতি অবশ্যই বাস্তবায়ন করা উচিৎ এবং তা ডিজিটাল বাংলাদেশের স্লোগানকে অর্থবহ করবে। আর তাই ডিজিটাল বাংলাদেশে ভোটগ্রহণ প্রক্রিয়া ডিজিটালাইজড হোক।

৩. সরকারি প্রচার মাধ্যমে সম অধিকার:

জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পূর্বে সরকারি প্রচার মাধ্যমে প্রতিদ্বন্দ্বী রাজনৈতিক দলগুলোর নিজ নিজ দলের কর্ম পরিকল্পনা ও বক্তব্য তুলে ধরার সমান সুযোগ দিতে হবে। যেন দেশবাসীর সামনে নিজেদের বক্তব্য তুলে ধরার ক্ষেত্রে সবদলের সম অধিকার নিশ্চিত হয়। এতে জাতীয় নির্বাচন প্রশ্নে আরও ইতিবাচক পরিবেশ তৈরি হবে।

৪. নিবন্ধিত দলগুলোর স্ব-ঘোষিত ভোটারদের ডাটাবেজ তৈরি এবং তা প্রকাশের জন্য নির্বাচন কমিশনে জমাদান:

নির্বাচনে অংশ নেওয়া দলগুলোর ভোটের আগে গভীর আশা আর ফলাফলের পরে তীব্র অসন্তুষ্টির অবসানে নির্বাচন কমিশন নিবন্ধিত সব রাজনৈতিক দলগুলোকে নিজ নিজ দলের সদস্য ও সমর্থক ভোটারদের ছবি ও স্বাক্ষর সংবলিত ডাটাবেজ তৈরি করার আহ্বান জানাবে। রাজনৈতিক দলগুলো নিজ নিজ দলের ডাটাবেজ তৈরি করবে এবং নির্বাচন কমিশনেও তা জমা দেবে। নির্বাচন কমিশন নির্বাচনের ৬ মাস আগে এই ডাটাবেজ অ্যাপের মাধ্যমে জনগণের কাছে প্রকাশ করবে। ফলে রাজনৈতিক দলগুলোর ভোট ব্যাংক সম্পর্কে আগে থেকেই জানা হয়ে যাবে।


আরও খবর



রনির টিকিট ইস্যুর বিষয়ে সহজ ডটকমের ‘ব্যাখ্যা’

প্রকাশিত:Monday ২৫ July ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ৪১জন দেখেছেন
Image

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শিক্ষার্থী মহিউদ্দিন রনির টিকিট ইস্যু সংক্রান্ত বিষয়ে সেবা প্রদানে ‘কোনো ধরনের অবহেলা ছিল না’ বলে দাবি করেছে বাংলাদেশ রেলওয়ের টিকিট বুকিং অপারেটর ‘সহজ ডটকম’।

সোমবার (২৫ জুলাই) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি নিয়ে ‘ব্যাখ্যা’ দেয় প্ল্যাটফর্মটি।

ট্রেনের টিকিট বিক্রিতে অনিয়মসহ রেলের অব্যবস্থাপনা নিয়ে দুই সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে আন্দোলন করছেন মহিউদ্দিন রনি। তার অভিযোগ, গত ১৩ জুন বাংলাদেশ রেলওয়ের ওয়েবসাইট থেকে ঢাকা-রাজশাহী রুটের ট্রেনের আসন নিবন্ধনের চেষ্টা করেন তিনি। কিন্তু মুঠোফোনে আর্থিক সেবাদাতা সংস্থা বিকাশ থেকে ভেরিফিকেশন কোড দিয়ে তার পিন কোড ছাড়াই অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা কেটে নেওয়া হয়। কিন্তু ট্রেনের কোনো আসন পাননি, এমনকি কেন টাকা নেওয়া হলো, তার কোনো রশিদও দেওয়া হয়নি।

এ অভিযোগের পর সহজ ডটকমকে দুই লাখ টাকা জরিমানা করেছে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তর। এ জরিমানার ২৫ শতাংশ অর্থ পাবেন ভুক্তভোগী রনি।

সহজ ডটকম তাদের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেছে, টিকিট ইস্যুর সময় সহজ জেভি টাকা না পাওয়ায় টিকিট ইস্যু হয়নি। রনির মোবাইল ওয়ালেটে টাকা ‘ফ্রিজ’ হয়েছিল। যা পরের তিন কার্যদিবসের মধ্যে তিনি ফেরত পেয়েছেন।

ঘটনার বিস্তারিত তুলে ধরে সহজ ডটকমের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, রনি গত ১৩ জুন সকাল ৮টা ৩৬ মিনিটে বাংলাদেশ রেলওয়ের ই-টিকিট পোর্টালে ঢাকা-রাজশাহীর চারটি টিকিট কেনার প্রক্রিয়া শুরু করেন। ওই সময় তার এমএফএস অ্যাকাউন্টে পর্যাপ্ত অর্থ না থাকায় তিনি সকাল ৯টা ২৭ মিনিটে তার মোবাইল ওয়ালেটে তিন হাজার টাকা জমা করেন। এরপর ৯টা ৩৭ মিনিটে টিকিটের দুই হাজার ৬৮০ টাকা পরিশোধ করার চেষ্টা করেন। কিন্তু রেলওয়ের নিয়ম অনুযায়ী ১৫ মিনিটের মধ্যে ট্রানজেকশনটি সম্পন্ন করতে না পারায় তার উক্ত টিকিট বুকিংটি বাতিল হয়ে যায়। সহজের ডিজিটাল রেকর্ড অনুসারে উল্লিখিত তারিখে ওই গ্রাহকের নামে কোনো টিকিট ইস্যুই হয়নি।

এরপর রনির মোবাইল ওয়ালেটে টাকা ফ্রিজ হয়েছিল। সেবা প্রদানে কোনো ধরনের অবহেলা ছিল না শর্তে উল্লেখিত সময়ের আগেই টাকা ফেরত পেয়েছিলেন রনি। পরে তিন কার্যদিবসের মধ্যে তাকে টাকা ফেরত দেওয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে রনির টিকিটের কোনো টাকা তার মোবাইল ওয়ালেট থেকে সহজ জেভির অ্যাকাউন্টে জমাও হয়নি। বরং টাকাটি তার নিজস্ব মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্টে ফ্রিজ অবস্থায় ছিল। পরে স্বয়ংক্রিয় রিকনসিলিয়েশন পদ্ধতিতে তার টাকা আনফ্রিজ হয়েছে।

সহজ ডটকমের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়ে, রনির মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্টের গোপন পিন নম্বর ছাড়াই টাকা কাটা হয়েছে, এ অভিযোগটি সঠিক নয়। তার মোবাইল ব্যাংকিং সার্ভিস প্রোভাইডার এ বিষয়ে সব তথ্য-প্রমাণ এরইমধ্যে তার কাছে উপস্থাপন করেছে।

বিজ্ঞপ্তিতে সহজ লিমিটেডের প্রতিষ্ঠাতা ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মালিহা কাদির বলেন, টিকিট সংক্রান্ত যে কোনো ভোগান্তি খুবই অনাকাঙ্ক্ষিত। যদিও মহিউদ্দিন রনির ক্ষেত্রে বাংলাদেশ রেলওয়ের এবং ব্যাংকের পেমেন্ট রিকনসিলিয়েশন পলিসির সব ধরনের নিয়ম মেনেই যথাযথ সেবা প্রদান করা হয়েছে। সহজ লিমিটেড কোনোভাবেই তার প্রতি দায়িত্বের অবহেলা কিংবা অবজ্ঞা করেনি।


আরও খবর



আলু সংরক্ষণে ৭৬ উপজেলায় হবে ৪৫০ মডেল ঘর

প্রকাশিত:Wednesday ০৩ August ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ০৯ August ২০২২ | ২৩জন দেখেছেন
Image

আলু সংরক্ষণে মডেল ঘর নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর (ডিএএম)। চাষিদের বসতবাড়ির উঁচু, খোলা ও আংশিক ছায়াযুক্ত স্থানে বাঁশ, কাঠ, টিন, ইটের গাঁথুনি ও আরসিসি পিলারে নির্মিত হবে এ ঘর। এ লক্ষ্যে একটি প্রকল্পও অনুমোদন করেছে সরকার।

‘আলুর বহুমুখী ব্যবহার, সংরক্ষণ ও বিপণন উন্নয়ন’ শীর্ষক এ প্রকল্পে ব্যয় হবে ৪২ কোটি ৭৬ লাখ টাকা। প্রকল্প অনুযায়ী- দেশের সাত অঞ্চলের ১৭ জেলার ৭৬ উপজেলায় ৪৫০টি আলু সংরক্ষণ মডেল ঘর নির্মাণ করা হবে।

জানুয়ারি ২০২২ থেকে জুন ২০২৬ মেয়াদে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে। এ প্রকল্পের ব্যয় ৫০ কোটি টাকার কম হওয়ায় প্রকল্পটি পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান নিজ ক্ষমতাবলে অনুমোদন দিয়েছেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, ‘দেশীয় প্রযুক্তিতে বাঁশ, কাঠ, টিন, ইটের গাঁথুনি ও আরসিসি পিলার দিয়ে ৪৫০টি আলু সংরক্ষণের মডেল ঘর নির্মাণ করা হবে। প্রতিটি মডেল ঘরকেন্দ্রিক ৩০ জন (কৃষক বিপণন দল) কৃষক সুবিধাভোগী হবেন। এভাবে ৪৫০টি কৃষক বিপণন দল গঠন করা হবে। এর মাধ্যমে আলুচাষিদের বিপণন সক্ষমতা বাড়বে।’

jagonews24

তিনি বলেন, ‘১৮ হাজার ৯০০ কৃষক, কৃষি ব্যবসায়ী, কৃষি উদ্যোক্তা ও কৃষি প্রক্রিয়াজাতকারীকে আলুর বহুমুখী ব্যবহারবিষয়ক প্রশিক্ষণও দেওয়া হবে। রপ্তানিকারক ও প্রক্রিয়াজাতকারীদের সঙ্গে ৪৫০ কৃষক বিপণন দলের সংযোগ স্থাপনের ব্যবস্থাও থাকবে।’

কৃষি বিপণন অধিদপ্তর সূত্র জানিয়েছে, বাংলাদেশে এখন কৃষকপর্যায়ে কম-বেশি ৪০ জাতের আলুর চাষ হচ্ছে। বছরে আলুর উৎপাদন প্রায় ৯৭ লাখ মেট্রিকটন। কিন্তু সারাদেশে মোট উৎপাদনের বিপরীতে হিমাগারে সংরক্ষণ সুবিধার পরিমাণ ২৮ দশমিক ১০ লাখ মেট্রিকটনের।

উৎপাদন বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে খাদ্য বহুমুখীকরণ না হওয়ায় উৎপাদিত আলুর একটি অংশই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। ফলে কৃষকও ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। ক্রমবর্ধমান উৎপাদনের ধারা ও টেকসই কৃষি উন্নয়ন অব্যাহত রাখার স্বার্থে অর্থকরী ফসল হিসেবে বসতবাড়িতে আলুর যথাযথ সংরক্ষণ ব্যবস্থা গড়ে তোলা হবে।

পাশাপাশি রপ্তানি বাজার সম্প্রসারণের মাধ্যমে কৃষকদের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়নে আলু চাষের জন্য প্রসিদ্ধ জেলাসমূহ অন্তর্ভুক্ত করে প্রকল্পটি হাতে নেওয়া হয়। প্রকল্পটি ঢাকা, মুন্সিগঞ্জ, চট্টগ্রাম, কুমিল্লা, রংপুর, দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড়, রাজশাহী, নওগাঁ, বগুড়া ও জয়পুরহাটে বাস্তবায়ন করা হবে।


আরও খবর