Logo
আজঃ Friday ১৯ August ২০২২
শিরোনাম
রূপগঞ্জে আবাসিকের অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন ডেমরায় প্যাকেজিং কারখানায় ভয়বহ অগ্নিকান্ড রূপগঞ্জে পুলিশের ভুয়া সাব-ইন্সপেক্টর গ্রেফতার রূপগঞ্জে সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ ॥ সভা সরাইলে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ৭৭তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত। নারায়ণগঞ্জে পারিবারিক কলহে স্ত্রীকে পুতা দিয়ে আঘাত করে হত্যা,,স্বামী গ্রেপ্তার রূপগঞ্জ ইউএনও’র বিদায় সংবর্ধনা নাসিরনগরে স্বামীর পরকিয়ার,বলি ননদ ভাবীর বুলেটপানে আত্মহত্যা নাসিরনগরে জাতীয় শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭ তম শাহাদত বার্ষিকী পালিত ডেমরায় জাতীয় শোক দিবসের কর্মসুচি পালিত

সকলের অবগতির জন্য,বিশেষ সর্তকিকরণ বিজ্ঞপ্তি

প্রকাশিত:Friday ৩১ December ২০২১ | হালনাগাদ:Friday ১৯ August ২০২২ | ৭৩৮জন দেখেছেন
Image


সকলের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে আমার Abdul Hannan নামের ফেসবুক আইডি -টি  গত ২২ অক্টোবর ২০২১ থেকে কে বা কাহারা হ্যাক বা ব্লক করে রেখেছে।দীর্ঘদিন অনেক চেষ্টা করেও আইডিটি উদ্ধার করতে না পেরে অবশেষে আজ নাসিরনগর থানায় সাধারণ ডায়েরী নং ১৮৭৩ দায়ের করিতে বাধ্য হলাম।


আইডির সাথে দুটি পেজ ও ছিল,সেগুলোও উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।কেউ যদি উক্ত আইডি থেকে কাউকে কোন ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাটায়,অথবা কোনরুপ টাকা পয়সা দাবী করে কেউ তাদের কথায় কান দিবেন না অথবা শুনবেন না।যদি কেউ করেন তাহলে নিজ দায়িত্বে  করবেন।

এখন থেকে এই আইডির সাথে আমার কোন সংশ্লিষ্টতা নেই।প্রয়োজনে আমার সাথে এই নাম্ভারে যোগাযোগ করুন,,,০১৭১৭৩৫০৮৭৬। পোষ্টটিকে বেশী করে শেয়ার ও কপি করে পোষ্ট করার জন্য অনুরোধ করছি।


আরও খবর



নামাজের সময়সূচি : ১৭ আগস্ট ২০২২

প্রকাশিত:Wednesday ১৭ August ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ১৯ August ২০২২ | ২২জন দেখেছেন
Image

আজ বুধবার ১৭ আগস্ট ২০২২ ইংরেজি, ০২ ভাদ্র ১৪২৯ বাংলা, ১৮ মহররম ১৪৪৪ হিজরি। ঢাকা ও তার পার্শ্ববর্তী এলাকার নামাজের সময়সূচি তুলে ধরা হলো-

> জোহর- ১২:০৬ মিনিট।
> আসর- ৪:৩৭ মিনিট।
> মাগরিব- ৬:৩৪ মিনিট।
> এশা- ৭:৫১ মিনিট।
> ফজর (১৮ আগস্ট)- ৪:১৭ মিনিট।

> আজ সুর্যাস্ত- ৬:৩০ মিনিট।
> আগামীকালের (১৮ আগস্ট) সূর্যোদয়- ৫:৩৪ মিনিট।

বিভাগীয় শহরের জন্য উল্লেখিত সময়ের সঙ্গে যেসব বিভাগে সময় যোগ-বিয়োগ করতে হবে, তাহলো-

বিয়োগ করতে হবে-
> চট্টগ্রাম : -০৫ মিনিট
> সিলেট : -০৬ মিনিট

যোগ করতে হবে-
> খুলনা : +০৩ মিনিট
> রাজশাহী : +০৭ মিনিট
> রংপুর : +০৮ মিনিট
> বরিশাল : +০১ মিনিট

তথ্যসূত্র : ইসলামিক ফাউন্ডেশন


আরও খবর



গাড়ির জ্বালানি খরচ কমাবেন যেভাবে

প্রকাশিত:Friday ২২ July 20২২ | হালনাগাদ:Monday ১৫ August ২০২২ | ৪৪জন দেখেছেন
Image

দিন দিন বেড়েই যাচ্ছে জ্বালানি তেলের দাম। কিন্তু গাড়ি চালাতে হলে জ্বালানি লাগবেই। জ্বালানি বা ফুয়েল ছাড়া গাড়ি চালানো অসম্ভব। অনেকেই জ্বালানি খরচ নিয়ে চিন্তায় থাকেন। জ্বালানি খরচ কমাতে আবার অনেকেই গাড়িকে সিএনজি করে ফেলেন। তবে সেই সিএনজি হোক বা তেল জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি সেদিকেও প্রভাব ফেলছে।

এজন্য গাড়ির জ্বালানি খরচ কমানোর কিছু কৌশল জেনে নিন-

>> গাড়ি সব সময় স্বাভাবিক গতিতে চালান। খালি রাস্তা পেয়ে ইচ্ছে মতো স্পিড তুলে গাড়ি চালাবেন না। এতে সর্বনাশ হবে আপনার ইঞ্জিনের আর জ্বালানির। ইঞ্জিনের উপর চাপ বেশি পড়ায় জ্বালানি খরচ বেশি হবে। তাই এত তাড়াহুড়ো না করে একটা স্পিড লিমিট ঠিক করে গাড়ি চালান।

> জানেন কি শুধু ইঞ্জিনই নয়, গাড়ির টায়ার তেল খায়! গাড়ির টায়ারেরও তেল খাওয়ার ক্ষমতা আছে। আর এই ক্ষমতা গাড়ির টায়ার তখনি পায় যখন আপনার গাড়ির টায়ারের প্রেশার ঠিক থাকে না। ইনফ্ল্যাটেড টায়ার গাড়ির জ্বালানি খরচ বাড়ার একটি অন্যতম কারণ। ইনফ্ল্যাটেড টায়ার বা গাড়ির টায়ার প্রেশার কম থাকলে সেটি রাস্তায় স্মুথলি চলতে পারেনা, ফলে ইঞ্জিনের উপর চাপ পড়ে। আর ইঞ্জিনের উপর চাপ পড়লেই সে গাড়ির জ্বালানি বেশি খরচ করে ফেলে। ফলে ইনফ্ল্যাটেড টায়ারের কারণে খরচ হচ্ছে অতিরিক্ত জ্বালানি। গাড়ির টায়ারের প্রেশার সবসময় ঠিক রাখুন। মাস শেষে দেখবেন, কম ফুয়েলেই গাড়ি চলেছে আগের চাইতে বেশি পথ। অর্থাৎ মাইলেজ পাবেন বেশি।

>> গাড়ির এয়ার ফিল্টার পরিচ্ছন্ন রাখুন। এতে জ্বালানি খরচ অনেকাংশেই কমে। অপরিচ্ছন্ন এয়ার ফিল্টারের কারণে ইঞ্জিনে বাতাস চলাচলে বাধা পায়। ফলে ইঞ্জিনের কর্মক্ষমতা কমে যায়। আর এই কারণে ইঞ্জিন বেশি তেল বা জ্বালানি খরচ করে ফেলে। এয়ার ফিল্টার পরীক্ষা করা খুবই সহজ কাজ। গাড়ির ইউজার মেনুয়াল দেখে ফিল্টার খুলে সূর্যের নিচে ধরুন। তারপর এর মধ্যে দিয়ে সূর্যের দিকে তাকান। যদি ফিল্টারের মধ্যে দিয়ে সূর্যরশ্মি আপনার চোখে এসে পড়ে তাহলে বুঝবেন ফিল্টার পরিষ্কার আছে, আর যদি সূর্যরশ্মি আসতে বাধা পায় বা না আসে তাহলে বুঝবেন তা পরিষ্কার করতে হবে।

>> অনেকেই আছেন হুটহাট ব্রেক আর স্পিড আপ করেন। এ কাজটি ভুলেও করবেন না। এতে জাবালানি বেশি লাগে। দীর্ঘ ট্রাফিক জ্যামে পড়ে থাকলে খেয়াল করে দেখবেন, ট্রাকগুলো যত কম গতিতে হোক না কেন, চলমান থাকার চেষ্টা করে। জ্যাম ছুটলে হঠাৎ গতি বাড়ায় না, আবার জ্যাম লাগলে হুট করে ব্রেকও করে না। এতে করে ইঞ্জিনের উপর চাপ কম পড়ে এবং জ্বালানি খরচ কম হয়।

>> সবসময় গাড়ির মধ্যে এসি চালিয়ে না রেখে, মাঝে মাঝে গাড়ির জানালা খুলে দিন। অফ রোড বা লং রোডে ড্রাইভ করার সময় গাড়ির জানালা খুলে একটু প্রকৃতির স্বাদ নিন। এতে করে গাড়ির জ্বালানি ব্যয় কমে যাবে।

>> অনেকেই গাড়ি নতুন করতে বা হ্যান্ডেলিং ঠিক রাখতে গাড়ির চাকা বা টায়ার বদলাচ্ছেন। কিন্তু নতুন চাকার আয়তন কিন্তু পুরানো চাকা থেকে বেশি থাকে কিছুটা হলেও। যা চোখের আন্দাজে টের পাওয়া যায় না। আবার এই শক্ত নতুন চাকাকে সঠিকভাবে পরিচালনার জন্যও ইঞ্জিনকে অতিরিক্ত শক্তি প্রয়োগ করতে হয়। ফলে টায়ার বা চাকা বদলালে জ্বালানি খরচ বাড়ে। তাই পুরোনো চাকাটি স্টকে রাখুন। দীর্ঘ পথে বা প্রয়োজনে সেটি ব্যবহার করে গাড়ির জ্বালানি খরচ কিছুটা কমাতে পারেন।

>> গাড়ি পরিস্কার পরিছন্ন রাখলে গাড়ির জ্বালানি খরচ কমে যায় অনেকটাই। গাড়ি যত পরিষ্কার পরিছন্ন থাকবে, গাড়ির ওজনও থাকবে তত অপটিমাইজড। গাড়ির তেল খরচ বেশি হওয়ার একটা কারণ গাড়ির অতিরিক্ত ওজন। মাঝে মাঝে অনেকেই গাড়িতে অতিরিক্ত পার্টস ব্যবহার করেন বা অপরিষ্কার রাখেন। এতে গাড়ির ওজন বাড়ে, বাড়ে জ্বালানি ব্যয়।

>> গাড়ির জ্বালানি খরচ কমাতে ভেইকেল ট্র্যাকার ব্যবহার করতে পারেন। বর্তমানে গাড়ির তেলচুরি খুবই কমন একটা বিষয়। গাড়ির তেল নিয়ে এত দুশ্চিন্তায় থাকতে হয় যে, মাঝে মাঝে গাড়ির উপরই বিরক্তি চলে আসে, এইসব বিরক্তি থেকে মুক্তি দিতে এবং গাড়ির তেল চুরি ঠেকাতে গাড়িতে ব্যবহার করতে পারেন ভেইকেল ট্র্যাকিং সার্ভিস। এতে করে আপনি আপনার গাড়ির সব কিছু মনিটর করতে পারবেন মোবাইলেই। এমনকি আপনি যদি গাড়িতে নাও থাকেন তাও গাড়ি থাকবে আপনার নজরদারিতে।


আরও খবর



জ্যাকেট স্ক্যান করে যেভাবে চিনবেন আসল-নকল ডিবি

প্রকাশিত:Monday ০১ August ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১৭ August ২০২২ | ৪৮জন দেখেছেন
Image

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের জ্যাকেটে যুক্ত হয়েছে অত্যাধুনিক প্রযুক্তিসম্পন্ন কুইক রেসপন্স কোড বা কিউআর কোড। এ জ্যাকেটের কিউআর কোডে কর্মকর্তাদের তথ্য আগে থেকেই জমা থাকবে ডিবির নিজস্ব সার্ভারে। মোবাইল অ্যাপ দিয়ে সদস্যের কিউআর কোড স্ক্যান করলেই তাদের পরিচয় দেখা যাবে। এক্ষেত্রে যদি কোনো ভুয়া ডিবির পোশাকের কোড স্ক্যান করা হয় তাহলে ‘ইনভ্যালিড কিউআর কোড’ নামে একটি বার্তা দেখা যাবে।

ডিবির জ্যাকেটের সামনে রয়েছে দুটি লোগো। বুকের বাম পাশে ঢাকা মহানগর (ডিএমপি) পুলিশের লোগো ও ডান পাশে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের লোগো। দুটি লোগোই রঙিন। এর নিচে কালো বর্ডারে সাদা হরফে ইংরেজিতে লেখা ‘DETECTIVE BRANCH’। এছাড়া ডান পাশে পকেটের নিচে রয়েছে সাদা রঙের কুইক রেসপন্স কোড বা কিউআর কোড। জ্যাকেটের পেছনে উপরের অংশে রয়েছে ডিবির লোগো আর নিচে কালো বর্ডারে সাদা হরফে লেখা ‘DETECTIVE BRANCH’।

যে কেউ মোবাইলে স্ক্যান করে আসল বা নকল ডিবির জ্যাকেট শনাক্ত করতে পারবেন। ডিবির জ্যাকেট পরা ব্যক্তিটি আদৌ ডিবি সদস্য কি না, নাকি ভুয়া সদস্য সেটিও স্ক্যানিংয়ের মাধ্যমে ভুক্তভোগীরা তাৎক্ষণিক জানতে পারবেন।

jagonews24

যেভাবে স্ক্যান করা যাবে-
> গুগল প্লে স্টোর থেকে QR কোড স্ক্যানার অ্যাপস ডাউনলোড করতে হবে। অথবা মোবাইলে বিল্ট ইন স্ক্যানার থেকেও কিউআর কোড স্ক্যান করা যাবে।

> দ্বিতীয় ধাপে স্ক্যানার অ্যাপস ওপেন করে সংশ্লিষ্ট ডিবি কর্মকর্তার জ্যাকেটে থাকা কিউআর কোডটি স্ক্যান করতে হবে।

> পরবর্তীতে স্ক্যানিংয়ের কিছু সময় পরে মোবাইলে আসল ডিবি পুলিশ হলে তার বিপি নম্বর, ইউনিট ও বিভাগ দেখা যাবে। এ থেকে যে কেউ নিশ্চিত হতে পারবেন ওই জ্যাকেট পরা ব্যক্তিটি আসল ডিবি।

> স্ক্যানিংয়ে যদি ‘ইনভ্যালিড কিউআর কোড’ মোবাইলে লেখা আসে তাহলে বুঝতে হবে ওই ব্যক্তি নকল ডিবি সদস্য।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ জাগো নিউজকে বলেন, ডিবি পুলিশের জ্যাকেট পরে ভুয়া ডিবি পরিচয়ে গুম, অপহরণ, ডাকাতি, মুক্তিপণ আদায় ও ছিনতাইয়ের মতো ঘটনার বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে। ভুয়া ডিবি সেজে এমন অসংখ্য অপরাধের সঙ্গে জড়িত ছিলেন অপরাধীরা। বিভিন্ন অভিযানে গ্রেফতারও হয়েছেন অনেকে। এখন থেকে ভুক্তভোগীরা মোবাইলে থাকা স্ক্যানার দিয়ে স্ক্যান করেই বুঝতে পারবেন আসল বা নকল ডিবির পরিচয়। স্ক্যানিংয়ের সময় কেউ দৌড়ে পালাতে চাইলে তাকে ধরে নিকটস্থ থানা কিংবা জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বরে ফোন করতে পারবেন ভুক্তভোগী।

jagonews24

গত সোমবার (১ আগস্ট) দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে ডিবিপ্রধান বলেন, ডিএমপির ডিবি পুলিশ যে জ্যাকেট পরে অভিযান চালাচ্ছে, তা বেশ পুরোনো। দীর্ঘদিন ধরে এ জ্যাকেট ব্যবহারের ফলে অনেক প্রতারক চক্র বাইরে থেকে এটি তৈরি করে অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে ব্যবহার করছে। অনেক সময় মানুষকে ফাঁদে ফেলারও অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। বিভিন্ন সময় জ্যাকেটটির হুবহু কপি ভুয়া ডিবি সদস্যদের কাছে পাওয়া গেছে।

তিনি বলেন, ভবিষ্যতে কাউকে যেন এভাবে প্রতারণার শিকার হতে না হয় সেজন্য ডিবিতে সংযোজন করা হয়েছে নতুন জ্যাকেট। কিউআর কোড ছাড়াও পোশাকে এমন কিছু নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা রয়েছে, এর ফলে জ্যাকেটটি জালিয়াতি করা অসম্ভব হবে না।

ডিবিপ্রধান হারুন আরও বলেন, ডিবির জ্যাকেটে রয়েছে আমাদের মেধা-মননের বিশেষ সমন্বয়। কিউআর কোডসহ বিভিন্ন দৃশ্যমান ও গোপন বৈশিষ্ট্য সংবলিত যে জ্যাকেটটি আমরা ব্যবহার করতে যাচ্ছি, তাতে আমাদের সদস্যদের মধ্যে কর্মতৎপরতা বাড়ানোর পাশাপাশি জনগণের কাছে ডিএমপির ডিবিকে নিরাপদ আশ্রয়স্থল হিসেবে তৈরি করতে পারবে বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস।

jagonews24

যেসব বৈশিষ্ট্যের কারণে জ্যাকেট নকল করা সম্ভব হবে না সেগুলো হলো-

১. ডিএমপি ডিবির নতুন জ্যাকেটে এই প্রথম গোপন নম্বর, গোয়েন্দা বিভাগ এবং ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের সমন্বয়ে কুইক রেসপন্স কোড বা কিউআর কোডের ব্যবস্থা থাকছে। সন্দেহ হলেই যে কেউ ডিবি পোশাকে থাকা ব্যক্তির কিউআর কোড স্ক্যান করে ওই ব্যক্তি ডিবির প্রকৃত সদস্য কি না তা শনাক্ত করতে পারবেন।

২. নতুন জ্যাকেটে ডিবি এবং ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের রঙিন লোগো ব্যবহার করা হচ্ছে, যা সহজেই দৃশ্যমান হবে।

৩. জ্যাকেটে রাত্রিকালীন আলোতে দূর থেকে ডিবি পুলিশের উপস্থিতি বোঝা যাবে।

৪. নতুন ডিবি জ্যাকেটে বিভিন্ন পকেটের সুবিধা থাকাতে অভিযানকালে ডিবি সদস্যরা প্রয়োজনীয় নোটবুক, কলম ও কাগজপত্র নিরাপদে রাখতে পারবেন।


আরও খবর



বরিশাল সিটির সাবেক মেয়র কামাল আর নেই

প্রকাশিত:Sunday ৩১ July ২০২২ | হালনাগাদ:Thursday ১৮ August ২০২২ | ৮৩জন দেখেছেন
Image

বরিশাল সিটি করপোরেশনের (বিসিসি) সাবেক মেয়র বিএনপি নেতা আহসান হাবিব কামাল (৬৭) আর নেই (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

শনিবার (৩০ জুলাই) রাত ১১ টার দিকে রাজধানীর বনানীর বাসায় তিনি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। এরপর পরিবারের সদস্যরা রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তিনি কিডনিজনিত রোগে আক্রান্ত ছিলেন।

আহসান হাবিব কামাল বরিশাল নগরীর কালুশাহ সড়কের বাসিন্দা ছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি এক ছেলে, এক মেয়ে ও স্ত্রীসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।


আরও খবর



ড. ইউনূসের মামলা বাতিলের রুল শুনানি ১১ আগস্ট

প্রকাশিত:Monday ২৫ July ২০২২ | হালনাগাদ:Thursday ১৮ August ২০২২ | ৩১জন দেখেছেন
Image

শ্রম আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে করা মামলা বাতিলে জারি করা রুল দ্রুত নিষ্পত্তি করতে শুনানির জন্য ১১ আগস্ট দিন ধার্য করা হয়েছে।

সোমবার (২৫ জুলাই) হাইকোর্টের বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামান ও বিচারপতি কে এম জাহিদ সারওয়ার কাজলের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে আজ (সোমবার) কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের পক্ষে ছিলেন সিনিয়র আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান। আর ড. মুহাম্মদ ইউনূসের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার আব্দুল্লাহ আল মামুন।

এর আগে গত ২০ জুলাই কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের পক্ষে এ বিষয়ে পক্ষভূক্ত হওয়ার জন্য আদালতে আবেদন করা হয়। পাশপাশি দুই মাসের মধ্যে রুল নিষ্পত্তি করা সংক্রান্ত আপিল বিভাগের আদেশও উপস্থাপন করা হয়। তারই ধারাবাহিকতায় আজ সেটি শুনানির জন্যে উঠে।

গত বুধবার (২০ জুলাই) শ্রম আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে করা মামলার কার্যক্রম স্থগিত করে জারি করা রুল দ্রুত শুনানির জন্য হাইকোর্টে উপস্থাপন করেন দুদকের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান। বিষয়টি আদালতে উপস্থাপন করার আগে তিনি হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ বিষয়ে আবেদন করেন।

আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান বলেন, মুহাম্মদ ইউনূসের যে মামলাটি হাইকোর্ট স্থগিত করেছিলেন, সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে যাওয়ার পর সুপ্রিম কোর্ট সেটি হাইকোর্টকে দুমাসের মধ্যে নিষ্পত্তির নির্দেশ দিয়েছিলেন। কিন্তু এখানে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের পক্ষে যিনি মামলাটি করেছিলেন, সে রুল চলমান থাকা অবস্থায় তিনি মারা গেছেন। তিনি মারা যাওয়ার পর থেকে কলকারখানার পক্ষ থেকে মামলাটি পরিচালনার জন্য আমাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়।

সে কারণে আমি আদালতে একটি দরখাস্ত দাখিলের অনুমতি চেয়েছি। আর আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছি। যেহেতু আপিল বিভাগের নির্দেশনা রয়েছে দুই মাসের মধ্যে মামলাটি নিষ্পত্তি করার জন্য। সে আদেশের কপিটি আমরা আদালতের কাছে দাখিল করলাম। তখন আদালত বললো আপনাকে অনুমতি দেওয়া হলো । তারই ধারাবাহিকতায় সেটি শুনানি হয়।

আদালত হলফনামা করার জন্য অনুমতি দিয়েছেন। এখন মামলাটি উল্লেখিত আকারে কালকে তালিকায় রয়েছে দিন তারিখ ঠিক করার জন্য। বৃহস্পতিবার (২১ জুলাই) শ্রম আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে শান্তিতে নোবেল বিজয়ী গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে করা মামলা বাতিলে জারি করা রুল শুনানির জন্যে আজকের দিন ঠিক করেন।

গত বছরের ৯ সেপ্টেম্বর ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালতে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদপ্তরের শ্রম পরিদর্শক আরিফুজ্জামান বাদী হয়ে ড. ইউনূসসহ চারজনের বিরুদ্ধে এ মামলা করেন।

মামলায় শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশনে নির্দিষ্ট লভ্যাংশ জমা না দেওয়া, শ্রমিকদের চাকরি স্থায়ী না করা, গণছুটি নগদায়ন না করায় শ্রম আইনের ৪ এর ৭, ৮, ১১৭ ও ২৩৪ ধারায় অভিযোগ আনা হয়। পরে ওই মামলার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে আবেদন করা হয়। গত বছরের ১২ ডিসেম্বর হাইকোর্ট মামলার কার্যক্রম স্থগিত করে রুল দিয়েছিলেন। এরপর রাষ্ট্রপক্ষ আপিল বিভাগে আবেদন করে।

ওই আবেদনের শুনানি নিয়ে মামলা বাতিলে জারি করা রুল গত ১৩ জুন দুই মাসের মধ্যে নিষ্পত্তির নির্দেশ দেওয়া হয়। এসময় পর্যন্ত মামলার কার্যক্রম স্থগিত থাকবে। আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মো. নুরুজ্জামানের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ এ আদেশ দেন।

ওইদিন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন জানান, আইন অনুসারে শ্রমিক কর্মচারীদের বোনাস না দেওয়ায় এ মামলা করা হয়। পরে তিনি ফৌজদারি কার্যবিধির ৫৬১এ ধারায় (মামলা বাতিলের আবেদন) হাইকোর্টে আবেদন করেন। হাইকোর্ট বিভাগ রুল জারি করে মামলার কার্যক্রম স্থগিত করেন। এর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ আপিল বিভাগে আবেদন করে। সে আবেদনের শুনানি নিয়ে দুই মাসের মধ্যে হাইকোর্টে রুল নিষ্পত্তি করতে বলেছেন। আর এসময় পর্যন্ত মামলার কার্যক্রম স্থগিত থাকবে।

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, ২০২১ সালের ৯ সেপ্টেম্বর শ্রম আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূসসহ চার জনের বিরুদ্ধে মামলা করে ঢাকার কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদপ্তর। ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালতে এ মামলা করেন কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদপ্তরের শ্রম পরিদর্শক আরিফুজ্জামান। পরে মামলার বিবাদীদের হাজির হওয়ার জন্য সমন জারি করেন আদালত।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন-গ্রামীণ টেলিকমের এমডি আশরাফুল হাসান, পরিচালক নুর জাহান বেগম ও শাহজাহান। এ তিন আসামিও পৃথকভাবে মামলার আবেদন করেন।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা ড. ইউনূসের গ্রামীণ টেলিকম পরিদর্শনে যান। সেখানে গিয়ে তারা শ্রম আইনের কিছু লঙ্ঘন দেখতে পান। এর মধ্যে ১০১ জন শ্রমিক-কর্মচারীকে স্থায়ী করার কথা থাকলেও তাদের স্থায়ী করা হয়নি। শ্রমিকদের অংশগ্রহণের তহবিল ও কল্যাণ তহবিল গঠন করা হয়নি। এছাড়া কোম্পানির লভ্যাংশের ৫ শতাংশ শ্রমিকদের দেওয়ার কথা থাকলেও তা তাদের দেওয়া হয়নি। এসব অভিযোগের ভিত্তিতে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি আইনে এ মামলা করা হয়।

এ মামলা বাতিল চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেন ড. ইউনূস। ওই আবেদনের শুনানি নিয়ে গত ১২ ডিসেম্বর মামলার কার্যক্রম স্থগিত করেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে মামলাটি কেন বাতিল ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন। হাইকোর্টের এ আদেশ স্থগিত চেয়ে আপিল করে রাষ্ট্রপক্ষ। আপিল বিভাগ সে আবেদনের শুনানি নিয়ে দুই মাসের মধ্যে রুল নিষ্পত্তি করতে হাইকোর্টকে আদেশ দেন। সেটিই শুনানি করতে আজকে আবেদন করেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান।


আরও খবর