Logo
আজঃ সোমবার ২৪ জুন 20২৪
শিরোনাম

সিদ্দিকবাজারে বিস্ফোরণ: দগ্ধ আরও একজনের মৃত্যু, প্রাণহানি বেড়ে ২৩

প্রকাশিত:শনিবার ১১ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ২০১জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: গুলিস্তানের সিদ্দিকবাজারে সাততলা ভবনে বিস্ফোরণের ঘটনায় দগ্ধ মির্জা আজম (৩৬) নামের একজন মারা গেছেন। আজ শনিবার সকাল ১০টায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এ নিয়ে ভয়াবহ এ বিস্ফোরণে প্রাণহানির সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ২৩ জনে।

ইনিস্টিউটের সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, নিহতের শরীরের শতকরা ৮০ ভাগ দগ্ধ হয়েছিল।

মির্জা আজমের বাড়ি পটুয়াখালী জেলার বাউফল থানা এলাকায়। বর্তমানে তিনি হাতিরঝিল থানার মধুবাগ এলাকায় থাকতেন। বাংলাদেশ স্যানিটারি এন্টারপ্রাইজের কর্মচারী ছিলেন তিনি।

এর আগে গত মঙ্গলবার সিদ্দিকবাজারের একটি ভবনে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে দগ্ধ ১১ জনকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। পরে একজনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

বুধবার দিবাগত রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় একজনের মৃত্যু হয়। এরপর বৃহস্পতিবার রাতে ইয়াসিন নামে একজন মারা যান। আজ আরও একজন মারা গেলেন। বাকি সাত জন চিকিৎসাধীন। তাদের মধ্যে একজন আইসিইউতে।


আরও খবর



তদন্ত শেষ হলে সে অনুযায়ী বেনজীরের বিচার হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১২৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:যদি কেউ অন্যায় করে তাহলে তার শাস্তি বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী হবে,সাবেক আইজিপি বেনজীর আহমেদের দুর্নীতি নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন। তার বিষয়ে তদন্ত চলছে। তিনি অন্যায় করেছেন না কি নির্দোষ, তিনি কি কর ফাঁকি দিয়েছেন না কি অন্যভাবে অর্থ সম্পদ গড়েছেন, সেটা তদন্ত শেষ হলে সে অনুযায়ী তার বিচার করা হবে।

শনিবার (১ জুন) দুপুর দেড়টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র-শিক্ষক মিলনায়তনে (টিএসসি) এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য জানান।

তদন্ত চলমান অবস্থায় একজন আইজিপি বিদেশ চলে যেতে পারেন কি না জানতে চাইলে তিনি আরও বলেন, সে এখনো দেশে আছে নাকি বিদেশ চলে গেছে এটা আমি জানি না।

আইজিপির এমন কর্মকাণ্ডে পুলিশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয়েছে কি না জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, না, এটা ব্যক্তিগত বিষয়। আমাদের পুলিশ বাহিনী অনেক কষ্ট করে। জঙ্গি-সন্ত্রাস দমন, কোভিডসহ যেকোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় তারা জীবন বাজি রেখে কাজ করেছে। কোনো ব্যক্তি অপরাধ করলে তার দায় প্রতিষ্ঠান নেয় না।

এমপি আনার হত্যার মূল মামলা ভারতে হয়েছে এবং মূল তদন্তও ভারতে হবে। তবে তদন্তে বাংলাদেশ সরকার সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে বলে জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

এসময় মন্ত্রী বলেন, মূল হত্যাকাণ্ড যেহেতু ভারতে হয়েছে সেহেতু মূল মামলাও ভারতে হয়েছে৷ ভারতের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের বন্দী বিনিময় চুক্তি আছে। তাই ভারতই এ হত্যাকাণ্ডের মূল তদন্ত করবে। আমাদের দেশে এই হত্যাকাণ্ড সংগঠিত হলে আমাদের পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করতো। তারা যদি আমাদের সম্পৃক্ত করে তাহলে আমরা তাদের সহযোগিতা করবো।

হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত একজন নেপালে পালিয়ে গেছেন এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, একজন সংসদ সদস্যকে হত্যা করা হয়েছে আর আমরা বসে থাকবো এমন হতে পারে না। হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত এবং সহযোগিতাকারী সবাইকে শাস্তির আওতায় নিয়ে আসা হবে। নেপালে একজন পালিয়ে গেছে। তবে সে কোথায় আছে সেটা সুনির্দিষ্টভাবে বলা যাচ্ছে না। তদন্ত হচ্ছে, তাকে ফিরিয়ে আনতে সব ধরনের প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।


আরও খবর



পল্লবী থানা এলাকা মাদকের স্বর্গরাজ্য : পাপ্পুর নিয়ন্ত্রনে চলছে অবাধ বানিজ্য

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১২৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিনিধী:রাজধানীর পল্লবী থানাধীন বিভিন্ন এলাকায় ব্যাপক হারে মাদক ব্যবসা বেড়ে গেছে। এই মাদক ব্যবসাকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন প্রশাসনে কর্মকর্তা , দলীয় নেতাকর্মীরা ও স্থানীয় সন্ত্রাসীরা কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এই মাদক ব্যবসাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, মারামারি ও খুনের ঘটনাও ঘটে।মিল্লাত ক্যাম্প এলাকায় পুলিশের সহযোগিতায় পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক পাপ্পু ওরফে কুত্তা পাপ্পু তার নিয়ন্ত্রণে এক ডজন মাদক ব্যবসায়ী ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। তাদের কাছ থেকে মাসোহারা হিসাবে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে পাপ্পু। পাপ্পুকে সহযোগিতা করছে পল্লবী থানার বিট ইনচার্জ উপ পরিদর্শক (এসআই) আতিকুল ইসলাম। তার বিনিময়ে পাপ্পুর কাছ থেকে মাসে এক লাখ টাকা করে নেয় বলে স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগে জানা গেছে ।

পাপ্পুর পরিবারে  সদস্য বোন বুল্লি, ভাগ্নে বিকি ও আত্মীয় আব্দুল করিম এরা সবাই ওই এলাকায় মাদক ব্যবসা করছে। ইতিমধ্যে পাপ্পুর বোন বুল্লি হেরোইন সহ পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে । বর্তমানে কারাগারে আছে । মিল্লাত ক্যাম্প এলাকায় পাপ্পুর নিয়ন্ত্রণে মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে সনি আক্তার, বিজলী ও তার স্বামী কাল্লু, আফসার, নাদিম , সামীর ও মুরাদ সহ আরো অনেকেই।

তাদের সবার বিরুদ্ধে পল্লবী থানা সহ রাজধানী বিভিন্ন থানায় মাদক মামলা সহ অন্যান্য মামলা রয়েছে। এইসব মাদক ব্যবসায়ীরা ছোট ছোট শিশুদেরকে ব্যবহার করে তাদের মাদক ব্যবসা জমজমাট ভাবে চালিয়ে যাচ্ছে। ওইসব মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে মাসোহারা লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে পাপ্পু ওরফে কুত্তা পাপ্পু।

স্থানীয় ব্যবসায়ী আমজাদ হোসেন জানান, তার কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নেই কি করে এত টাকার মালিক হলেন, সবার কাছে জানতে পারি মাদক ব্যবসার সাথে জড়িয়ে রাতারাতি অর্ধশতাধিক কোটি টাকার মালিক হয়েছে। তাই এখন এলাকার কাউকে পাত্তা দেয় না সব সময় পুলিশের সহযোগিতায় মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে । এদিকে একই এলাকার পৃথিবী আক্তার নামে এক অভিযোগ করে বলেন, গত ৩১ মে শুক্রবার বিকেলের দিকে পাপ্পু তাকে ডেকে নিয়ে যায়।

পৃথিবী কে বলে তুমি মাদক ব্যবসা কর এবং প্রতি সপ্তাহে আমাকে ২০ হাজার টাকা করে দিবি। এবং আমার সঙ্গে মাঝে মাঝে আবাসিক হোটেলে থাকবি। পাপ্পুর এইসব প্রস্তাবে রাজি না হয়ে পৃথিবী বাসায় চলে আসে। তারপরও পাপ্পুর লোকজন দিয়ে একের পর এক ওইসব প্রস্তাব দিতে থাকে। তখন পৃথিবী পাপ্পুকে বলে আমি তোর বিরুদ্ধে আইনের আশ্রয় নিতে বাধ্য হব। ভুক্তভোগী পৃথিবী আরো বলেন, গত সাতই জুন রাতে পল্লবী থানার ৫ নাম্বার বিট ইনচার্জ এস আই আতিকুল ইসলামের সহযোগিতায় মাদক ব্যবসায়ী পাপ্পুর নেতৃত্বে ২০-২৫ জন কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের নিয়ে বাসায় হামলা করে।

 হামলা করে বাসার আসবাবপত্র ভাঙচুর ও সাত ভরি স্বর্ণালংকার নগদ ৩ লাখ টাকা সহ অন্যান্য মালামাল লুটপাট করে নিয়ে যায়। ভুক্তভোগী অভিযোগ করেন, আতিকুল ইসলাম সবকিছু দেখেও না দেখার ভান করে দাঁড়িয়ে থাকেন। আমরা যদি প্রশাসনের লোকজনের কাছে সহযোগিতা না পাই তাহলে কি মাদক ব্যবসায়ীরাই তাদের সহযোগিতা পাবে । পৃথিবী আরো অভিযোগ করে বলেন, এ হামলার ঘটনা পরিপ্রেক্ষিতে আমি পল্লবী থানার মামলা করতে গেলে আমার মামলা নেইনি পুলিশ। এবং কি এস আই আতিকুল ইসলাম আমাকে হুমকি দেয় তুই যদি মামলা করতে আবার আসোস তোকে হেরোইন দিয়ে চালান করে দেব কাশিমপুরে ।

কিছু অসাধু পুলিশ  কর্মকর্তাদের জন্য পুরোপুর পুলিশ বাহিনী দুর্নাম হচ্ছে। এ ব্যাপারে পল্লবী থানার ৫ নাম্বার বিটের ইনচার্জ এস আই আতিকুল ইসলামের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমি পাপ্পু কে চিনি কিন্তু পৃথিবী কে চিনি না। পৃথিবীর বাসায় ভাঙচুর হওয়ার ঘটনা আমি কিছু জানি না। আপনারা সরোজমিনে এসে তদন্ত করুন যা পাবেন তাই লিখবেন ।

পৃথিবী বলেন, যতদিন পাপ্পু প্রশাসনের মাধ্যমে গ্রেপ্তার না হবে ততদিন মিল্লাত ক্যাম্প এলাকায় মাদক মুক্ত হবে না। এলাকাবাসীর দাবি বিশিষ্ট মাদক ব্যবসায়ী ও নিয়ন্ত্রণকারী পাপ্পু ওরফ কুত্তা পাপ্পুকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে শাস্তি মূলক ব্যবস্থা করার জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আইজিপি মহোদয়ের কাছে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে আমার আকুল আবেদন ।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



যশোরে ভাঙ্গারির দোকানে আগুন

প্রকাশিত:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৬৭জন দেখেছেন

Image

ইয়ানূর রহমান শার্শা,যশোর প্রতিনিধি:যশোর শহরতলীর একটি প্লাস্টিক ভাঙ্গারির দোকানে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে।মঙ্গলবার (১৮জুন) সকাল ১১ টার দিকে এ অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত হয়। ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা পৌনে এক ঘন্টার প্রচেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। তবে আগুনে ওই দোকানের পুরাতন কাগজ ও প্লাস্টিক পুড়ে গেলেও হতাহতের কোন ঘটনা ঘটেনি।

স্থানীয়রা জানান, সদর উপজেলার পাগলাদাহ গ্রামের আব্দুস সালাম বাহাদুরপুর মেহগনিতলায় যশোর-মাগুরা মহাসড়কের পাশে ভাঙ্গারির দোকান পরিচালনা করেন।তার দোকানে পুরাতন কাগজ ও প্লাস্টিকসহ নানান ধরণের ভাঙ্গারি মালামাল মজুদ করা ছিল। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে হঠাৎ ওই দোকানের উপর ধোয়ার কুন্ডুলি দেখতে পান স্থানীয়রা। এরপর তারা ফায়ার সার্ভিসে খবর দেয়।বেলা ১১টার দিকে ফায়ার সার্ভিসের ৬টি ইউনিট এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে। প্রায় এক ঘন্টার প্রচেষ্টায় তারা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। একইসাথে পার্শ্ববর্তী বাসাবাড়ির লোকজন সরিয়ে নেয়। এ কারণে আগুনে ওই দোকানের পুরাতন কাগজ ও প্লাস্টিক পুড়ে গেলেও হতাহতের কোন ঘটনা ঘটেনি।

যশোর ফায়ার সার্ভিসের উপ সহকারী পরিচালক দেওয়ান সোহেল রানা জানান, তার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণের কাজ শুরু করেন। ৬টি ইউনিট এক ঘন্টা কাজ করে আগুন নিয়ন্ত্রণে নেয়। এখন কাগজ ও প্লাস্টিকের নিচের আগুন নেভানের জন্য করছেন ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা। আগুনের সূত্রপাতও ক্ষতি সম্পর্কে কোন তথ্য দিতে পারেননি তিনি।


আরও খবর



১ কোটি পরিবার আজ থেকে টিসিবির পণ্য পাবে

প্রকাশিত:রবিবার ০২ জুন 2০২4 | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১৩৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আজ (২ জুন) থেকে দেশব্যাপী ১ কোটি ফ্যামিলি কার্ডধারী ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) সাশ্রয়ী মূল্যে পণ্য কিনতে পারবেন।

শনিবার (১ জুন) বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ প্রতিষ্ঠানটি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায়।

এতে বলা হয়, নিম্ন আয়ের এক কোটি উপকারভোগী কার্ডধারী পরিবারের মাঝে ভর্তুকি মূল্যে চালসহ টিসিবির পণ্য (ভোজ্য তেল ও ডাল) সাশ্রয়ী মূল্যে বিক্রির কার্যক্রম চলমান রয়েছে। চলতি বছরের জুন মাসের বিক্রির কার্যক্রম রোববার (২ জুন) থেকে সারাদেশে শুরু হবে।

এই কার্যক্রম দোকান অথবা নির্ধারিত স্থায়ী জায়গা থেকে সিটি করপোরেশন ও জেলা-উপজেলা প্রশাসনের সার্বিক সহযোগিতায় নির্ধারিত তারিখ ও সময় অনুযায়ী পরিচালনা করবে ডিলাররা।

এ দফায় সর্বোচ্চ দুই লিটার ভোজ্যতেল, দুই কেজি মসুর ডাল, এক কেজি চিনি ও পাঁচ কেজি চাল কিনতে পারবেন উপকারভোগীরা। প্রতি লিটার তেল ১০০ টাকা, প্রতি কেজি মসুর ডাল ৬০ টাকা, চিনি ৭০ টাকা ও চালের দাম পড়বে ৩০ টাকা।


আরও খবর



নবীনগরে নিজ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী ফারুক আহামেদকে লাঞ্ছিত

প্রকাশিত:রবিবার ০২ জুন 2০২4 | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১৬৮জন দেখেছেন

Image

মোহাম্মদ হেদায়েতুল্লাহ  নবীনগর(ব্রাহ্মণবাড়িয়া)প্রতিনিধি:- ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মোঃ ফারুক আহামেদ এর ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। রবিবার দুপুরে উপজেলার আহাম্মদপুর গ্রামের রনাইয়া পাড়াতে এঘটনা ঘটে। 


সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, নির্বাচনকে সামনে রেখে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মোঃ ফারুক আহামেদ তার কর্মীসমর্থকদের সাথে নিয়ে আহাম্মদপুর রনাইয়া পাড়ার মসজিদ সংলগ্ন একটি দোকানে গণসংযোগ করছিলেন। এমন সময় একই গ্রামের আব্দুস সামাদ সরকারের ছেলে মোঃ সালাউদ্দিন ঐ দোকানের একটি টেবিলে বসা থাকা অবস্থায় ফারুক আহামেদ এর এক সমর্থকের টেবিলে বসা নিয়ে দুপক্ষের মধ্যে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ের হাতাহাতির সৃষ্ঠি হয়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হাতাহাতির এক পর্যায়ে ফারুক আহামেদ এর গায়ে হাত সহ তাকে লাঞ্ছিত করা হয়।


এব্যাপারী লাউর ফতেহপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমি ঘটনাস্থলে ছিলাম না তবে শুনেছি প্রার্থী ফারুক ভাইয়ের উপর অতর্কিত হামলা করা হয়েছে। বিষয়টি খুবই দুঃখজনক ও নেক্কারজনক। 


এব্যাপারে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মোঃ ফারুক আহামেদ বলেন, বাদল ভাইয়ের চাচাতো ভাই আজাদ ভাইকে বসার ব্যবস্থা করতে গিয়েই ঘটনাটা ঘটেছে। এরপর বিস্তারিত পরে কল দিয়ে বলবেন বলে তিনি কলটি কেটে দেন।


এব্যাপারে জানতে নবীনগর থানার ওসি মাহাবুব আলমকে একাদিকবার কল দিলেও তিনি রিসিপ করেননি।

   -খবর প্রতিদিন/ সি.ব

আরও খবর