Logo
আজঃ বুধবার ১৯ জুন ২০২৪
শিরোনাম

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় হলুদ তরমুজ চাষে সফল কৃষক সেলিম

প্রকাশিত:সোমবার ২১ আগস্ট ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ৩৯৬জন দেখেছেন

Image

কলারোয়া(সাতক্ষীরা)প্রতিনিধি:কলারোয়ায় অফসিজন হলুদ তরমুজ চাষ করে সফল হওয়া বেকার কৃষক সেলিম হোসেন এলাকাবাসীকে চমক দেখালেন। তার ক্ষেত দেখলে চোখাজুড়িয়ে যায় আর খেতেও রসালো ও সুস্বাদু এই হলুদ তরমুজ। বিক্রি করে লাভের স্বপ্ন দেখছেন ওই যুবক। সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার জালালাবাদ ইউনিয়নের ওফাপুর মাঠে সেলিম হোসেনের খেতে গিয়ে দেখা যায়, সবুজ কচি লতাপাতার মাঝে ঝুলছে হলুদ রঙের তরমুজ। ছোট-বড় তরমুজে নুয়ে পড়েছে মাচা। দেখতে যেন হলুদের সমারহ। কলারোয়া উপজেলায় এই প্রথম মালচিং পদ্ধতিতে ইয়োলো কিং তরমুজ চাষ করা হয়েছে। তাই এ তরমুজ চাষ দেখতে ভিড়ও করছেন এলাকাবাসীরা। তিনি গত বছর ৪ বছর ধরে বেকার জীবণ ঘোচাতে টমেটো ও ধান চাষ করে হয়েছেন সফল কৃষক। তাই এবার উপজেলা কৃষি অফিসের সর্বিক সহযোগিতায় করেছেন হলুদ তরমুজের চাষ। চায়না জাতের এ তরমুজ চাষেও সফল হবেন বলে আশাবাদী কৃষক  সেলিম হোসেন। চাষি সেলিম হোসেন জানান, এ বছর তিনি ২৬ কাটা জমিতে হলুদ তরমুজ চাষ করেছেন। তিনি ৩৮ হাজার টাকা খরচ করে গত জুন মাসের ১০ তারিখে হলুদ তরমুজ চাষ শুরু করেন। এতিমধ্যে ১লাখ ৩০ হাজার টাকার তরমুজ বিক্রয় করেছেন। সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে আরো দেড় লাখ টাকার তরমুজ বিক্রয় করবেন বলে তিনি জানান। এই তরমুজ ক্ষেত থেকে সরাসরি ঢাকায় নিয়ে যাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। বর্তমানে সবমিলিয়ে প্রায় সাড়ে ৩ হাজার তরমুজ আছে তার জমিতে। আর পনের, বিশ দিনের মধ্যে বিক্রির উপযোগী হবে এই সব তরমুজ। তাই বর্তমানে গাছের পরিচর্যায় বস্ত সময় কাটছেন সেলিম হোসেন। বাজারে হলুদ জাতের তরমুজের প্রতি কেজির দাম প্রায় একশ টাকা।  তিনি আরও জানান, তরমুজ চাষ শুরু থেকেই তাকে পরামর্শ ও সহযোগিতা করে আসছেন উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা তুষার কান্তি। উপজেলার যুগিখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রবিউল হাসান বলেন-আমার গ্রামের ছেলে সেলিম হোসেন যে একজন পরিশ্রমি কৃষক তা আগে জানতাম না। তার হলুদ তরমুজ, টমেটো, ওল, ধান ও গরুর খামার করে সে এলাকার মানুষের তাক লগিয়ে দিয়েছে। সে কৃষিতে আরো এগিয়ে যাক এটাই কামনা করি। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শুভ্রাংশু শেখর দাস জানান, এ অঞ্চলের মাটি তরমুজ চাষের জন্য উপযোগী। চাষি সেলিম হোসেন এলাকায় প্রথম তরমুজ আবাদ শুরু করেন। তাকে বীজ ও প্রয়োজনীয় পরামর্শ, সহযোগীতা দেয়া হয়েছে। এবার সেলিম হোসেন হলুদ তরমুজ চাষের পাশাপাশি ২৮কাটা জমিতে ওল চাষ, ১০বিঘা জমিতে টমেটো চাষ, সাড়ে ৬বিঘা জমিতে ধান ও বাড়ীতে একটি গরুর খামার করেছেন। তাকে সরকারী বা বেসরকারী প্রতিষ্ঠান অর্থিক সহযোগিতা করলে আরো বড় করে হলুদ তরমুজ চাষ করতে পারবেন বলে তিনি  আশাবাদী।


আরও খবর

ভোলায় "রাসেল ভাইপার" আতঙ্ক

বুধবার ১৯ জুন ২০২৪




যুবলীগ নেতার শিশু বলাৎকারের ভিডিও ভাইরাল

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ৮০জন দেখেছেন

Image
আব্দুস সবুর তানোর থেকে:রাজশাহীর তানোরে রুস্তম আলী নামের এক ওয়ার্ড যুবলীগ নেতার শিশু বলাৎকারের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে ব্যাপক ভাইরাল হয়ে পড়েছে। রুস্তমের বাড়ি উপজেলার কামারগাঁ ইউনিয়ন ইউপির হরিপুর গ্রামে। সে ৮ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক। তার পিতা মৃত আরকেতুল্লা। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে বলাৎকারের ভিডিও টি। ফলে এমন নেক্কার জঘন্য ঘটনার জন্য যুবলীগ নেতার চরম শাস্তি দাবি করেছেন। সেই সাথে দলের পদ পদবি থেকেই বহিষ্কার সহ ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবি উঠেছে।

জানা গেছে, উপজেলার কামারগাঁ ইউনিয়ন ইউপির হরিপুর গ্রামের বাসিন্দা ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রুস্তম আলী একই গ্রামের জৈনিক ব্যক্তির ১০ বছরের ছেলেকে মোবাইল ফোন দেওয়ার কথা বলে নির্জন এলাকায় নিয়ে যান। সেখানে গাছের নিচে শিশুকে বলাৎকার করেন। এমন একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগের জনপ্রিয় মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। বলাৎকার করার সময় শিশুটিকে চিৎকার দিতে শুনা যায়। বলাৎকারের দৃশ্য টি মোবাইলে ধারন করে বলাৎকার কারি লম্পট রুস্তম আলী। ভিডিও ছড়ানোর পর মানুষের মুখে মুখে চলে আলোচনা সমালোচনা ও শাস্তির দাবি। প্রায় এক সপ্তাহ অতিবাহিত হলেও শিশুটির পরিবার ভয়ে কোন ব্যবস্থা নিতে পারেন নি। আবার ঘটনা ধামাচাপা দিতে প্রভাব শালীরা মরিয়া হয়ে পড়েছেন বলেও একাধিক সুত্র নিশ্চিত করেন। ফেসবুকে ভিডিও ছড়ানোর পর থেকে লম্পট রুস্তম আলী আত্মগোপনে আছে। তার বড় ভাই মোস্তাফার সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এটি সাজানো ভিডিও, আমার ভাই একাজ করতে পারে না। এখন মোবাইলে সব কিছুই করা যায় বলে দাম্ভিকতা দেখান তিনি।৮ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার মতিউর রহমান বলেন,  আমি গত পাঁচ দিন ধরে বাহিরে ছিলাম। বাড়িতে আসার পর ঘটনা শুনেছি। শিশুটির পরিবার আমাকে কোন কিছুই বলেনি। বললে থানা পুলিশের মাধ্যমে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হত।

থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি আব্দুর রহিম বলেন, এঘটনায় কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আরও খবর



দুই উপজেলার ডিজিটাল প্রতারক নুর হোসেন বরখাস্ত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ৫৪জন দেখেছেন

Image

মাজহারুল ইসলাম,রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি:বহুল আলোচিত, বিতর্কিত, প্রতারক দলিল লেখক নুর হোসেনকে আবারো বরখাস্তসহ তিনভাইকে আটক করেন রৌমারী সাব-রেজিস্টার মোহাম্মদ শাহিন। আটকের ৫ ঘন্টা পর তিন ভাইকে রহস্যজনক ভাবে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে সাব-রেজিস্টারের বিরুদ্ধে। গত ১১ জুন মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে কুড়িগ্রাম জেলার রৌমারী উপজেলার সাব-রেজিস্টার কার্যালয় এ ঘটনাটি ঘটেছে। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, কড়াইকান্দি গ্রামের বাসিন্দা রহিম বাদশা, সাইদুর রহমানসহ তিন সহোদর ভাই। তাদের আরেক বোনকে বাদ দিয়ে গোপনে অন্যের কাছে ২৬ শতক জমি বিক্রয় করেন। পরে নামজারি ছাড়াই গোপনে প্রতারণা মুলক জাল দলিল লেখা সম্পন্ন করেন। বিকাল ৩ টার দিকে ওই জাল দলিলসহ অন্যান্য কাগজপত্রাদি সাব-রেজিস্টার মোহাম্মদ শাহিন এর কাছে জমা দেন। কাগজপত্রাদি দেখে সাব-রেজিস্টারের সন্দেহ হলে রহিম বাদশাসহ তিনভাইকে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায় তাদেরকে আটক করা হয়। পাশাপাশি দলিল লেখক নুর হোসেনকেও জিজ্ঞাবাদ করা হয়। 

জমির এক শরীককে বাদ দিয়ে ও নামজারি ছাড়াই ২৬ শতক জায়গা অন্যের নামে জাল দলিল তৈরি করে জমি রেজিস্ট্রি করার চেষ্টা অপরাধে রৌমারী উপজেলায় প্রতারক নুর হোসেন সহ তিনভাইকে আটক করেন সাব-রেজিস্টার মোহাম্মদ শাহিন। জিজ্ঞাসাবাদে জাল দলিলের বিষয়ে আনিত অভিযোগের সত্যতা পান উপজেলা সাব-রেজিস্টারা মোহাম্মদ শাহিন। পরে জেলা সাব-রেজিস্টারের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে দলিল লেখক নুর হোসেনকে দুই মাসের জন্য বরখাস্ত করা হয়। অপর অভিযুক্ত তিনভাইকে রহস্যজনক কারনে রাতের অন্ধকারে ছেড়ে দিয়েছে বলে জানা গেছে।

আটককৃত তিনসহোদর হলেন রহিম বাদশা, সাইদুর রহমান ও অঞ্জাত আরেকজন। তারা উভয়ে উপজেলার রৌমারী সদর ইউনিয়নের কড়াইকান্দি গ্রামের আব্দুল হামিদের ছেলে বলে জানা যায়। 

এব্যাপারে উপজেলা সাব-রেজিস্টার মোহাম্দ শাহিন জানান, কর্তৃপক্ষের নির্দেশে দলিল লেখককে দুই মাসের জন্য বরখাস্ত করা হয়েছে এবং জমির মালিক তিনভাইকে মানবিক চিন্তা করে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।  

উল্লেখ্য যে, ঘটনাক্রমে জানা যায়, প্রতারক নুর হোসেন উপজেলার রৌমারী সদর ইউনিয়নের কোনাচীপাড়া গ্রামের ৯ নং ওয়ার্ডের একজন স্থায়ী বাসিন্দা। তিনি রাজিবপুরে শশুর বাড়ির সুত্রে প্রশাসনকে ফাঁকি দিয়ে দুই উপজেলায় দীর্ঘদিন ধরে দলিল লেখক হিসেবে কাজ করে আসছিলেন। ইতিপূবে রাজিবপুর উপজেলায় প্রতারণা করে ভুয়া দলিল করার কারনে এলাকাবাসিসহ তার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল ও অফিস ঘেরাও করেছিল। পরে স্থানীয় পুলিশ তাকে থানায় নিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। পরে ওই অভিযুক্ত নুর হোসেনকে ৬ মাসের জন্য সাময়িক ভাবে বরখাস্ত করা হয়েছিল। একইভাবে আবারো রৌমারীতে জাল দলিল করার ঘটনা ঘটিয়েছেন তিনি। 


আরও খবর

ভোলায় "রাসেল ভাইপার" আতঙ্ক

বুধবার ১৯ জুন ২০২৪




এসএসসির পুনঃনিরীক্ষণের ফল প্রকাশ ১১ জুন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ১৩৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:বৃহস্পতিবার (৩০ মে) আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটির সভাপতি এবং ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক তপন কুমার সরকার গণমাধ্যমকে জানান চলতি বছরের এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার পুনঃনিরীক্ষণের ফল আগামী ১১ জুন প্রকাশ করা হবে।।

তিনি বলেন, যারা ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন করেছেন, তাদের একাদশে আবেদন করতে হবে। সেদিকে নজর রেখে এবং নিয়মানুযায়ী নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ফল প্রকাশের পরিকল্পনা করেছি আমরা। সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী আগামী ১১ জুন সব শিক্ষা বোর্ড একযোগে পুনঃনিরীক্ষণের ফল প্রকাশ করবে।

গত ১২ মে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়। এতে গড় পাসের হার ৮৩ দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লাখ ৮২ হাজার ১২৯ জন।

প্রকাশিত ফলাফলে কারও কাঙ্ক্ষিত ফল না এলে তাকে পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন বা উত্তরপত্র চ্যালেঞ্জ করার সুযোগ দেয় শিক্ষা বোর্ডগুলো। ফল প্রকাশের পরদিন অর্থাৎ ১৩ মে থেকে পুনঃনিরীক্ষণ আবেদন শুরু হয়, যা চলে ১৯ মে পর্যন্ত।


আরও খবর



মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে ৬ মাস অপেক্ষা করতে হবে: অর্থমন্ত্রী

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৭ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | ৮৮জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী জানিয়েছেন মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আরও ৬ মাস অপেক্ষা করতে হবে।

শুক্রবার (৭ জুন) রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে অর্থ মন্ত্রণালয় আয়োজিত বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

আবুল হাসান মাহমুদ আলী বলেন, আপনারা নিশ্চয়ই লক্ষ্য করেছেন বাজেটের আকার আমরা কমিয়ে রেখেছি। যাতে করে মূল্যস্ফীতির ওপর কোনো চাপ না পড়ে। এই বছরের শেষের দিকে মূল্যস্ফীতি কমতে শুরু করবে।

অর্থ সচিব ড. মো. খায়রুজ্জামান মজুমদারের সঞ্চালনায় সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত আছেন- অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম, শিল্প মন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, পরিকল্পনা মন্ত্রী মেজর জেনারেল (অব) আব্দুস সালাম, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী, প্রধানমন্ত্রীর অর্থ বিষয়ক উপদেষ্টা মসিউর রহমান, কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুস শহীদ, শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল প্রমুখ।

এর আগে বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে উত্থাপন করা ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের আকার ধরা হয় ৭ লাখ ৯৭ হাজার কোটি টাকা। বিশাল অংকের এ বাজেটের ঘাটতি ধরা হচ্ছে ২ লাখ ৫১ হাজার ৬০০ কোটি টাকা। আর অনুদান ছাড়া ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়াবে ২ লাখ ৫৬ হাজার কোটি টাকা। যা মোট জিডিপির ৪ দশমিক ৬ শতাংশ।


আরও খবর



রাণীশংকৈলে স্বর্ণের খনি ইটভাটায় ভূতত্ত্ব বিভাগ টিমের অনুসন্ধান ও মাটির নমুনা সংগ্রহ

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | ৭৮জন দেখেছেন

Image
মাহাবুব আলম,রাণীশংকৈল(ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধিঃঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলার ব্যাপক আলোচিত সেই সোনার খনি খ্যাত আরবিবি ইটভাটার মাটির স্তুপে সোনা পাওয়ার প্রচারিত সংবাদ ও হাইকোর্টে রিটের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ ভূতত্ত্ব অধিদপ্তরের দুই সদস্যর একটি টিম সরেজমিনে অনুসন্ধান করেছেন। মঙ্গলবার ও বুধবার ৪ ও ৫ জুন সহকারী পরিচালক (ভূতত্ত্ব) আনোয়ার সাদাৎ মুহাম্মদ সায়েম ও সহকারী পরিচালক (ভূতত্ত্ব) মোহাম্মদ আল রাজী, উপজেলা নির্বাহী অফিসার রকিবুল হাসান, বাচোর ইউপি চেয়ারম্যান জীতেন্দ্রনাথ বর্মণ স্থানীয় প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় সাংবাদিকদের নিয়ে আরবিবি ইটভাটায় রক্ষিত মাটির স্তুপ, এবং যে স্থান থেকে মাটি নিয়ে আসা হয়েছিল সেই শ্যামরাই মন্দিরের পাশের জমি ও পাশ্ববর্তী পীরগঞ্জ উপজেলার নানাহার পুকুরের মাটির নমূনা সংগ্রহ করেন। 

অনুসন্ধান শেষে টিমের সদস্যরা এদিন দুপুরে এ প্রতিবেদনকে জানান,আমরা এ এলাকার তিনটি স্থানের মাটির নমুনা সংগ্রহ করেছি এবং চোখে দেখে এ মাটি পরীক্ষা করেছি। এরপর এ মাটির নমুনা প্রতিবেদনসহ সংশ্লিষ্ট ল্যাবরেটরিতে  পরীক্ষার জন্য জমা দেবো। সংগৃহীত মাটি অনুযায়ী এসব স্থানে সোনা থাকার সম্ভাবনা আছে কিনা এ প্রশ্নের জবাবে তারা বলেন, আসলে এটি ভূতাত্ত্বিকভাবে প্রাকৃতিক সম্পদ অনুসন্ধানের বিষয়। সে হিসেবে এ মাটিতে সোনা থাকার সম্ভাবনা না থাকলেও প্রত্নতাত্ত্বিকভাবে গুপ্তধন আকারে দেশের যে কোনো স্থানে সোনা ইত্যাদি থাকতে পারে। বিষয়টি প্রতিবেদনের মাধ্যমে জানানো হবে। 

প্রসঙ্গত: গত একমাস ধরে কাতিহার এলাকায় আরবিবি ইটভাটার মাটির ঢিবিতে সোনা পাওয়ার আশায় হাজার হাজার মানুষ মাটি খোঁড়ার কাজে ছুটে এসেছিল। কেউ কেউ সোনার মোহরসহ বিভিন্ন স্বর্ণের জিনিষ পেয়েছিল বলে অনেক মাধ্যমে জানা গেছে। বর্তমানে 
ওই ইটভাটায় ১৪৪ ধারা জারি বলবৎ রয়েছে।

আরও খবর