Logo
আজঃ সোমবার ২৪ জুন 20২৪
শিরোনাম
মতিউর ও তার স্ত্রী-সন্তানদের বিদেশ যেতে নিষেধাজ্ঞা তরুণরাই বদলে যাওয়া বাংলাদেশকে এগিয়ে নেবে: প্রধানমন্ত্রী নতুন সেনাপ্রধানের বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন ভূয়া সৈনিক পরিচয়ে বিয়ে করে শশুড় বাড়ী শিকলবন্দী জামাই! খাগড়াছড়িতে পুনাক কমপ্লেক্স এর উদ্বোধন করলেন: পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী কুজেন্দ্র লাল এিপুরা হিজবুল্লাহর সঙ্গে যুদ্ধ বাধলে ইসরায়েলকে সমর্থন দেবে যুক্তরাষ্ট্র হজ চলাকালীন ১৩০১ জন হজযাত্রীর মৃত্যু: সৌদি আরব সেতু ভেঙ্গে নয়জন নিহতের ঘটনায় দুইটি তদন্ত কমিটি গঠন, মাইক্রোবাস উদ্ধার বর ও কনের বাড়ীতে শোকের মাতম রাশিয়ায় বন্দুকধারীদের ভয়াবহ হামলায় ১৫ পুলিশ সদস্য নিহত

ঋণের কিস্তি অর্ধেক দিলেই খেলাপি হিসেবে চিহ্নিত হবে না

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ডিসেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ২৮৯জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক; ঋণ পরিশোধে ব্যবসায়ীদের আবারও বিশেষ সুবিধা দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। চলতি বছরের শেষ প্রা‌ন্তিকের (অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর) ঋণের কিস্তির অর্ধেক টাকা (৫০ শতাংশ) ডিসেম্বরের মধ্যে পরিশোধ করলেই গ্রহীতা খেলাপি হিসেবে চিহ্নিত হবে না।

আজ রোববার বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ ‘ঋণ শ্রেণীকরণ’ সংক্রান্ত নির্দেশনা দিয়ে একটি সার্কুলার জারি করেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ২০২২ সালের অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর সময়কাল পর্যন্ত প্রদেয় কিস্তিগুলোর ন্যূনতম ৭৫ শতাংশের বদলে ৫০ শতাংশ চলতি ডিসেম্বরের শেষ কর্মদিবসের মধ্যে পরিশোধ করা হলে, ওই ঋণগুলো বিরূপমানে শ্রেণিকরণ করা যাবে না।

সার্কুলারে বলা হয়, অশ্রেণিকৃত মেয়াদি ঋণের বিপরীতে ২০২২ সালের অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রদেয় কিস্তির ন্যূনতম ৭৫ শতাংশ ত্রৈমাসিকের শেষ কর্মদিবসের মধ্যে পরিশোধ করা হলে ওই ঋণ বিরূপমাণে শ্রেণিকরণ করা যাবে না।

সার্কুলারের মাধ্যমে সুবিধাপ্রাপ্ত মেয়াদি ঋণগুলো ২০২২ সালের এপ্রিল হতে ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রদেয় কিস্তি বা কিস্তিগুলোর অপরিশোধিত অংশ বিদ্যমান ঋণের পূর্বনির্ধারিত মেয়াদ শেষ হওয়ার পরবর্তী ১ বছরের মধ্যে সমকিস্তিতে (মাসিক ও ত্রৈমাসিক) প্রদেয় হবে। তবে ব্যাংকার-গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে অবশিষ্ট মেয়াদকালের সঙ্গে বর্ধিত ১ বছর সময়কে বিবেচনায় নিয়ে কিস্তি পুনর্নির্ধারণপূর্বক নতুন সূচি অনুযায়ী আদায় করা যাবে। এছাড়া আগে সার্কুলারের অন্যান্য নির্দেশনা অপরিবর্তিত থাকবে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্য বলছে, ২০২২ সালের সেপ্টেম্বর মাস শেষে ব্যাংকিং খাতের মোট ঋণ স্থিতি দাঁড়িয়েছে ১৪ লাখ ৩৬ হাজার ১৯৯ কোটি ৮২ লাখ টাকা। এর মধ্যে খেলাপিতে পরিণত হয়েছে এক লাখ ৩৪ হাজার ৩৯৬ কোটি টাকা, যা মোট ঋণের ৯ দশমিক ৩৬ শতাংশ।


আরও খবর



দেশের উন্নয়নে সেবাইত-পুরোহিতদের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ: ধর্মমন্ত্রী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১২০জন দেখেছেন

Image

লিয়াকত হোসাইন লায়ন,ঢাকা থেকে:ধর্মমন্ত্রী মোঃ ফরিদুল হক খান বলেছেন, দেশ ও জাতির উন্নয়নে সেবাইত-পুরোহিতদের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তারাই পারে হিন্দু ধর্মের মানুষের মধ্যে সঠিক ধর্মীয় জ্ঞানের প্রসার ঘটিয়ে আদর্শ ও নিষ্ঠাবান মানুষ গড়ে তুলতে। 

বুধবার(২৯ মে) রাজধানীর বাসাবো ধর্মরাজিক বৌদ্ধবিহার কমপ্লেক্স অডিটোরিয়ামে ঢাকা বিভাগীয় পুরোহিত ও সেবাইত সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। 

ধর্মমন্ত্রী বলেন, আমাদের সমাজে সকল ধর্মের মানুষের কাছেই তাদের ধর্মীয় নেতাদের একটি বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে। সমাজের অধিকাংশ মানুষ তাদেরকে শ্রদ্ধার চোখে দেখে, সম্মান করে। বিভিন্ন পরামর্শের জন্য তাদের শরণাপন্ন হয়ে থাকে। তাদের আদেশ-নির্দেশ মেনে চলে। এই শ্রেণির মানুষগুলোকে আমরা যদি আর্থিকভাবে স্বচ্ছলতা দিতে পারি এবং পেশাগত দায়িত্ব পালনে যদি আমরা তাদেরকে শানিত বা দক্ষ করে তুলতে পারি তাহলে দেশ ও জাতির কল্যাণে তারা অনেক বেশি অবদান রাখতে পারবে। এ কারণেই অন্যান্য ধর্মের ন্যায় হিন্দু ধর্মের প্রকল্প তৈরি করে আমরা পুরোহিত-সেবাইতদেরকে প্রশিক্ষণের আওতায় এনেছি। 

ধর্মমন্ত্রী আরো বলেন, আবহমানকাল থেকেই বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতির পীঠস্থান। বিভিন্ন ধর্ম-গোত্রের মানুষ এখানে মিলেমিশে বসবাস করে। উৎসব-পার্বনে সকল ধর্ম ও সম্প্রদায়ের মানুষ আনন্দ ভাগাভাগি করে নেয়। এই সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি আমাদের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অনুষঙ্গ। এটি আমাদের ঐক্য এবং শক্তির প্রতিক। এই সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিকে সুসংহত করতে পুরোহিত-সেবাইতরা বিশেষ ভূমিকা পালন করতে পারেন।

হিন্দু সম্প্রদায়ের কল্যাণে গৃহীত প্রদক্ষেপ তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, দেশের উন্নয়নে আমাদের সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা রয়েছে- রুপকল্প ২০৪১। এছাড়া, জাতিসংঘের সদস্য রাষ্ট্র হিসেবে আমরা এসডিজির লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে দায়বদ্ধতা রয়েছে। আমরা সবাইকে সমান তালে এগিয়ে নিতে চাই। সকল ধর্মের মানুষকে সমান গুরুত্ব দিয়ে তাদের নাগরিক অধিকার নিশ্চিত করতে চাই। আগামীদিনে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের কল্যাণে আরো বেশি কাজ করার পরিকল্পনা আমাদের রয়েছে।

ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার মোঃ সাবিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন মাগুরা-২ আসনের সংসদ সদস্য ড. বীরেন শিকদার, কুমিল্লা-৭ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত, ধর্ম সচিব মুঃ আঃ হামিদ জমাদ্দার, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত পাল ও এস.আর.এস.সি.পি. প্রকল্পের পরিচালক প্রফেসর শিখা চক্রবর্তী প্রমুখ।

উল্লেখ্য, ধর্মীয় ও আর্থ-সামাজিক প্রেক্ষাপটে পুরোহিত ও সেবাইতদের দক্ষতা বৃদ্ধিকরণ প্রকল্পের আওতায় এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।  এ প্রকল্পের অধীনে পুরোহিত ও সেবাইতদের নেতৃত্বদানের সক্ষমতা বৃদ্ধি, তাদের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন ও আন্তঃধর্মীয় সম্প্রীতি সংহত করতে উদ্বুদ্ধ করার লক্ষ্যে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়ে থাকে। এছাড়া, আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল ১ হাজার ৬০০ জন পুরোহিত ও সেবাইতকে ভাতা প্রদান করা হয়ে থাকে।


আরও খবর



ফরিদপুরে প্রাইম ব‌্যাংক পিএলসি’র এজেন্ট ব‌্যাংকিং আউটলেট উদ্বোধন

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৮৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:ফরিদপুরে এজেন্ট ব‌্যাংকিং আউটলেট উদ্বোধন করেছে দেশের শীর্ষ স্থানীয় বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংক প্রাইম ব্যাংক পিএলসি। সম্প্রতি ফরিদপুর সদর উপজেলায় রাজবাড়ি রাস্তার মোড়ে অবস্থিত স্বর্ণকমল মার্কেটে এই এজেন্ট ব‌্যাংকিং আউটলেট উদ্বোধন করা হয়। আউটলেটটি প্রাইম ব‌্যাংক পিএলসি’র ফরিদপুর শাখার অধীনে স্থানীয় চাচা-ভাতিজা এন্টারপ্রাইজ পরিচালনা করবে।

প্রাইম ব্যাংক পিএলসি’র ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর মো. নাজিম এ চৌধুরী এবং জেলা যুব মহিলা লীগের আহ্বায়ক রুখশানা আহমেদ মেহেবী এজেন্ট ব‌্যাংকিং আউটলেটটির শুভ উদ্বোধন করেন। মূলত ব‌্যাংকের ডিস্ট্রিবিউশন চ‌্যানেলের সম্প্রসারণ এবং আরও বেশি কাস্টমারদের সেবা দেওয়ার লক্ষ‌্যে এই এজেন্ট ব‌্যাংকিং আউটলেট চালু করা হয়েছে।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- প্রাইম ব‌্যাংকের এজেন্ট ব‌্যাংকিং অ‌্যান্ড ফিন‌্যান্সিয়াল ইনক্লুশন বিভাগের প্রধান মোহাম্মদ আমিনুর রহমান সহ অন‌্যান‌্য কর্মকর্তারা। 


আরও খবর



ভূয়া সৈনিক পরিচয়ে বিয়ে করে শশুড় বাড়ী শিকলবন্দী জামাই!

প্রকাশিত:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৩৩জন দেখেছেন

Image
লিয়াকত হোসাইন লায়ন,ইসলামপুর(জামালপুর) প্রতিনিধি:ভূয়া সৈনিক পরিচয়ে একাধিক বিয়ে করে অবশেষে শশুড় বাড়ী লোকের হাতে আটক হয়ে শিপন নামে এক যুবক শিকলবন্দী হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে জামালপুর জেলার ইসলামপুর উপজেলার গোয়ালেরচর ইউনিয়নে সভুকুড়া গ্রামে।জানা যায়, ভূয়া সৈনিক শিপন জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার খড়মা গ্রামের মোন্নাফ আলীর ছেলে।

ভূয়া সৈনিক শিপন মিয়া জানায়, সে সোশ্যাল মিডিয়া "শিপন মিয়া'নামে আইডি খোলে ভূয়া সৈনিক পোশাক ও পরিচয় দিয়ে এক বছর আগে তিন লক্ষ টাকা যৌতুক নিয়ে গাইবান্ধা ইউনিয়নের নাপিতের চর বলিদা পাড়া গ্রামের জমির উদ্দিন পাখীর মেয়েকে বিয়ে করে।

একইভাবে তিন মাস পর গত ৮মাস আগে একই উপজেলার সভুকুড়া গ্রামে দেলোয়ারের মেয়েকে কোর্ট ম্যারিজ করে ২য় বিয়ে করে। পরবর্তীতে মেয়ের বাবা বিষয়টি মেনে নিলে ১০লক্ষ টাকা যৌতুক হাতিয়ে নেয় ভূয়া সৈনিক জামাই শিপন।

অবশেষে ভূয়া সৈনিক পরিচয়ে একাধিক বিয়ে খবরটি সভুকুড়া গ্রামের ২য় স্ত্রীর পরিবারের লোকজন জানতে পারে। পরে কৌশলে ভূয়া সৈনিক জামাইকে  শনিবার ডেকে নিয়ে এসে ভূয়া সৈনিক জামাইকে উচিত শিক্ষা দিতে শিকলবন্দী অবস্থায় আটক করে করে রাখা রয়েছে। অধ্যবধি পাহারায় রয়েছে গ্রাম্য পুলিশ। এই ঘটনায় এলাকায় বেশ চাঞ্চলের সৃষ্টি হয়েছে।গোয়ালের চর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আঃ রহিম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।


আরও খবর



হোমনায় ভূমিসেবা সপ্তাহের উদ্বোধন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৬৭জন দেখেছেন

Image
হোমনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি:কুমিল্লার হোমনায় ভূমিসেবা সপ্তাহের উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল সোমবার উপজেলা ভূমি কার্যালয়ের উদ্যোগে আনুষ্ঠানিকভাবে এর উদ্বোধন করা হয়। এ উপলক্ষে কার্যালয় চত্বরে জনসচেতনতামূলক সভা এবং তাৎক্ষণিকভাবে উপস্থিত সেবা গ্ৰহিতাদের নামজারি জমা খারিজের সৃজিত খতিয়ান, দাখিলা ও খতিয়ানের ভুল সংশোধন সেবা দেওয়া হয়। 

এতে সহকারি কমিশনার (ভূমি) আহাম্মেদ মোফাচ্ছেরের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ক্ষেমালিকা চাকমা। অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা স্বপন চন্দ্র বর্মণ, উপজেলা ভূমি কার্যালয়ের কানুনগো আবদুল করিম ও নাজির মো. গোলাম মোস্তফা, খাদিজা মেমোরিয়াল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

আরও খবর



কম দামে ধান কিনতে জোটবদ্ধ ব্যবসায়ীরা,বিক্রি করতে এসেই ধরা চাষীরা

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৫৭জন দেখেছেন

Image
এস এম শফিকুল ইসলাম জয়পুরহাট প্রতিনিধিঃজয়পুরহাটে ব্যবসায়ীরা বেশী লাভের আশায় জোটবদ্ধ হয়ে ধান কিনছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। কম মূল্যে ধান ক্রয় করে মিল-চাতাল মালিকরা সেই ধান থেকে চাল তৈরী করে সরকার নিদ্ধারিত রেটে খাদ্যগুদামে সরবরাহ করে মোটা অংকের লাভ করবেন বলে শংঙ্খা কৃষকদের। আবার স্থানীয় ব্যবসায়ীরা বাহির থেকে আশা মহাজনদের হাটে প্রবেশ করতে দিচ্ছে না বলেও অভিযোগ রয়েছে। তবে ব্যবসায়ীরা বলছেন ভিন্ন কথা। ভেজা ধান বলে কম দামে ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে। রোদ ওঠলেই দাম বেড়ে যাবে। আর বাজার সবার জন্য উম্মোক্ত। যে কেউ বাজার থেকে ধান ক্রয় করতে পারেন। 

মিল-চাতাল মালিক, ফরিয়া ও মহাজনরা বাজারে বিভিন্ন গুজব ছড়িয়ে কৃষকদের উৎপাদিত ধান অনেক কম মূল্যে ক্রয় করছেন। মাড়াইয়ের পর চাষীরা বাজারে ধান নিয়ে এসে ব্যবসায়ীদের ফাঁদে পা দিয়ে ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করে অনেকেই বিক্রি করতে না পেড়ে ফেরত নিয়ে যাচ্ছেন। ধান বিক্রি করে চাষীরা লোকসান গুণলেও কৌশলে লাভোবান হচ্ছেন এলাকার মিল-চাতাল মালিক, ফরিয়া ও মহাজনরা। কম দামে ধান কিনে অল্প দিনেই বেশী লাভ করছেন তারা। 

গতকাল জেলার বৃহত ধানের বাজার পাঁচশিরা, পুনট ও ইটাখোলা হাটে কৃষকদের জিম্মি করে ব্যবসায়ীরা মোটা জাতের মামুন ও স্বর্ণা-৫ ধান ৭০০ থেকে ৭৫০ টাকা এবং চিকন কাটারি জাতের ১০৫০ থেকে ১১০০ টাকা (৪০ কেজির) মণ দরে ক্রয় করেছেন। এতে প্রতি কেজি মোটা ধান ১৭-১৮ টাকা এবং চিকন ধান ২৬-২৭ টাকা দরে বিক্রি করছেন কৃষকরা। অথচ প্রতি কেজি ধানের সরকার নিদ্ধারিত মূল্য ৩২ টাকা আর চালের মূল্য ৪৫ টাকা ঘোষনা করা হয়েছে। ৪০ কেজি ধান থেকে চাল হয় ৩০ কেজি। সে অনুপাতে ৩০ কেজি চালের সরকারি মূল্য আসে ১৩৫০ টাকা। চাতাল ব্যবসায়ীরা কৃষকদের নিকট থেকে ধান ক্রয়ের পর চাল বিক্রয় করে লাভ করবেন ৬৫০ টাকা। কৃষকদের অভিযোগ, মিল-চাতাল মালিকরা জোটবদ্ধ হয়ে বেশী লাভের আশায় কম দামে ধান কেনার জন্য বাজারে মাঝে-মধ্যে ধান কেনা বন্ধ রাখেন। যখন বাজারে ধানের আমদানী বেশী হয়, তখন ব্যবসায়ীরা ক্রয় করার চাহিদা কমে দেয়। কম দামে বেশী পরিমান ধান ক্রয়ের জন্য ব্যবসায়ীরা এসব নাটক করেন। শ্রমিক বিদায়সহ সেচের টাকা পরিশোধ করতে বাধ্য হয়ে কম দামেই বিক্রি করতে হচ্ছে ধান। ভ‚ক্তভোগী কৃষকরা উৎপাদিত ধানের ন্যায্য মূল্য না পেয়ে দিনের পর দিন লোকশান গুণলেও অল্প সময়ে মোটা অংকের লাভ গুণছেন মধ্যে সত্ত¡ভোগী ব্যবসায়ীরা।

জেলা খাদ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, জয়পুরহাটের পাঁচটি উপজেলার খাদ্যগুদামগুলোতে এবার সরকার নিদ্ধারিত ৩২ টাকা কেজি দরে ৬ হাজার ৬৫৭ মে.টন ধান এবং সরকারের সাথে চুক্তিবদ্ধ মিল-চাতাল মালিকদের নিকট থেকে ২১ হাজার ৫৯৭ মে.টন চাল ক্রয় করবেন। স্থানীয় মিলারদের নামে ইতমধ্যে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে এবং ক্রয় শুরু হয়েছে। বরাদ্দ পেয়ে জেলার বিভিন্ন হাট-বাজার থেকে ব্যবসায়ীরা সুযোগ বুঝে যে যার মত করে কৌশলে ধান ক্রয় করছেন। আবওহাওয়ার কারনে তারা এমন কৌশল চাষীদের উপর প্রয়োগ করছেন।  

ক্ষেতলালের মুন্দাইল গ্রামের কৃষক শাহিন বলেন,‘ধান বিক্রি করতে এসে যে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে, লাভতো দুরের কথা, মোটা অংকের লোকশান গুণতে হচ্ছে আমাদের। যাও একটু দাম বাড়তো, আবওহাওয়ার সাথে ব্যবসায়ীদের কারণেই সেটা সম্ভব হচ্ছেনা। এবার বিগা প্রতি উৎপাদন খরচ হয়েছে ১৬ হাজার টাকা। ৮ বিঘা জমিতে ধান পেয়েছি গড়ে ২০ মণ করে ১৬০ মণ, হিসাব করে বিগা প্রতি ৪ হাজার করে মোট ৩২ হাজার টাকা লোকশান হয়েছে।’

জোটবদ্ধ হয়ে ধান ক্রয়ের বিষয় অস্বীকার করেছেন পাঁচশিরা বাজারের মা চাউল-কলের স্বত্তাধীকার মোস্তাফিজুর রহমান। তিনি বলেন,‘আবওহাওয়াজনিত কারনে ধান ভেজা হওয়ায় গত সপ্তাহের চেয়ে বর্তমানে মণে এক থেকে দেড়শ টাকা কমে গেছে। রোদ ওঠলেই ধানের দাম বেড়ে যাবে। ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা মিথ্যা, বাজার সবার জন্য উম্মোক্ত। যে কেউ এসে ধান ক্রয় করতে পারবে। কৃষকরা অনবরত ব্যবসায়ীদের দোষ দিয়ে থাকেন। এটা নতুন কিছু নয়।’  

জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কামাল হোসেন বলেন,‘এ জেলার কৃষকরা চিকন জাতের ধান চাষ করে। সরকারের নিদ্ধারিত মূল্যের চেয়ে বাজারে দাম বেশি হওয়ায় তারা গুদামে ধান দিতে চায় না। ফলে ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব হচ্ছে না। তবে আশা করছি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এবার শতভাগ চাল সংগ্রহ হবে।’

জেলা কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের কর্মকর্তা রতন কুমার রায় বলেন,‘ধানের দাম নিয়ে বিভিন্ন কথাই শুনতে পাচ্ছি। সরকার ধান-চালের যে দর বেঁধে দিয়েছেন, সে অনুপাতে বিক্রি করতে পারলে কৃষকরা লাভবান হবেন। ধানের বাজার এতো কম হওয়ার কথা নয়। ধানের বাজারমূল্য কম হওয়ার পেছনে কোন রহস্য আছে কিনা তা খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরও খবর