Logo
আজঃ Wednesday ০৮ December ২০২১
শিরোনাম
নৌকা পরাজিত স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান হলো তৃতীয় লিঙ্গের ঋতু! তৃতীয় ধাপে ইউনিয়ন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ, চলছে গণনা কুমিল্লায় নৌকা পেয়েও সরে দাড়ালেন বাহালুল, প্রাথমিক সদস্য না হয়েও মনোনীত নূরুল! মাতুয়াইলে সড়ক উন্নয়ন কাজের উদ্ধোধন করলেন সংসদ সদস্য কাজী মনু পলো উৎসবে মাছ ধরায় মেতেছে মানুষ, চির চেনা বাংলা গাজীপুরে ৩০ সেকেন্ডেই মা-মেয়ের জীবন শেষ করল দুই খুনি হয়নি হাফ পাসের সিদ্ধান্ত,টাস্কফোর্স গঠনের প্রস্তাব আলেম-ওলামাদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা-ভক্তি রয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রংপুরের তারাগঞ্জে ট্রাকচাপায় তিন নারী শ্রমিক নিহত কুমিল্লার তিতাস ও মেঘনা উপজেলায় ইউপি নির্বাচনে বিজয়ী যারা !
বিয়ের পর দিন ধর্ষণ মামলায় বর গ্রেপ্তার

পরোকিয়া প্রেমিকের ধর্ষণ মামলায় বিয়ের পর দিন বর গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:Monday ০১ November ২০২১ | হালনাগাদ:Wednesday ০৮ December ২০২১ | ৩৩৫জন দেখেছেন
Image



আমিরুল হক, নীলফামারী :

 

নীলফামারীর সৈয়দপুরে বিয়ের পরের দিনেই ধর্ষণ মামলায় বরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সোমবার (১ নভেম্বর) দুপুরে নিজ বাসা থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার বর শাহীন বাবু (৪০) শহরের গোলাহাট এলাকার মৃত আসগার আলীর ছেলে। মামলার বাদী দিনাজপুরের খানসামার খলিপা পাড়ার কাশেম আলীর মেয়ে গার্মেন্টস কর্মী মিনু আক্তার (৩৫)।

পুলিশ জানায়, মিনু আক্তারের সাথে শাহীন বাবুরর দীর্ঘদিনের পরকীয়া সম্পর্ক ছিল। বিয়ের প্রলোভনে তাঁকে একাধিবার ধর্ষণ করে বাবু। গত রবিবার রাতে মিনু থানায় এসে তাঁর বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেন। পরের দিন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তারেক মাহমুদ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে তাঁকে গ্রেপ্তার করে।

মামলার বাদী মিনু আক্তার বলেন, শাহীন বাবুর সাথে আমার দশ বছর ধরে সম্পর্ক চলে আসছে। বিয়ের প্রতিশ্রুতি দেয়ায় আমি স্বামী সংসার ছেড়েছি। স্বামী- স্ত্রী পরিচয় দিয়ে ঢাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে দীর্ঘদিন একসাথে থেকেছি। কিন্তু সে আমার সাথে প্রতারণা করে অন্য একজনকে বিয়ে করেছে।

সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসনাত খান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মামলার পরিপ্রেক্ষিতে আসামীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আদালতের মাধ্যমে তাঁকে ওইদিনেই জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

 

খবর প্রতিদিন /সি.বা 


আরও খবর



দলীয় মনোনয়ন পেয়েও সরে দাড়ালেন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান বাহালুল

কুমিল্লায় নৌকা পেয়েও সরে দাড়ালেন বাহালুল, প্রাথমিক সদস্য না হয়েও মনোনীত নূরুল!

প্রকাশিত:Sunday ২৮ November ২০২১ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ December ২০২১ | ১৬৬জন দেখেছেন
Image


মাহফুজ বাবু :

 

কুমিল্লায় চতুর্থ ধাপের ইউপি নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেয়েও সরে দাড়ালেন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান বাহালুল, অপর দিকে স্থানীয় আওয়ামী লীগের সাধারণ সদস্য পদ না থাকলেও দলীয় ভাবে মনোনীত হয়েছেন সিআইপি নূরুল ইসলাম।

 

আদর্শ সদর উপজেলার পাঁচথুবি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতিকের প্রার্থী ইকবাল হোসেন বাহালুল নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েন। আসন্ন নির্বাচনে তিনি অংশ নেবেন না বলেও ঘোষণা দিয়েছেন।

 

মনোনীত হওয়ার পর এ নিয়ে চেয়ারম্যান বাহালুল তার ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডিতে ২৪ নভেম্বর একটি স্টাটাস দেন এতে তিনি লেখেন আল্লাহ মেহেরবানিতে আমি দলীয় মনোনায়ন পেয়েছি তবে সংগঠন ও এম পি মহোদয় সিদ্ধান্তের বাহিরে কিছু করব না । আমি সবার কাছে ক্ষমা প্রার্থী

পরদিন ২৫ নভেম্বর আরেকটি পোস্ট করেন তার ফেসবুক আইডিতে তাতে লেখা নৌকা পেয়েছি, নৌকা উৎসর্গ করেছি, নেতার জন্য। এইটা তেমন বেশি কি নেতা ডেকে এনে চেযারম্যান করেছিল, না হলে হয়ত হতে পারতাম না।সকলে মেনে নাও নৌকার বিজয় হয়েছে,আমাদের হাতে। জয় বাংলা।

 

গত ২৫ নভেম্বর বৃহস্পতিবার মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ দিন হলেও তিনি তার মনোনয়ন পত্র জমা দেননি। এতে ঐ ইউনিয়নে একক প্রার্থী হিসেবে বিনা ভােটে নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন হাসান রফি রাজু। তিনি পাঁচথুবি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। জানা যায়, সদর উপজেলার ছয়টি ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) দলীয় কাউন্সিলের মাধ্যমে মনােনীত প্রার্থীদের তালিকা কেন্দ্রে পাঠায় উপজেলা আওয়ামী লীগ। কিন্তু সে তালিকায় ছিলেন না বর্তমান চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন বাহালুল। তার বদলে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাসান রফি রাজুর নাম কেন্দ্রে পাঠানো হয়। তবে তাকে মনোনয়ন না দিয়ে ইকবাল হোসেন বাহালুলকে মনোনয়ন দেওয়া হয়।

 

 এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের মনােনয়ন পাওয়া ইকবাল হোসেন বাহালুল বলেন, দল আমাকে মনোনয়ন দিয়েছে, আমি নৌকা প্রতীক পেয়েছি। তারপরও নির্বাচন করব না। দলীয় শৃঙ্খলা বজায় রাখা সহ আমার নেতা ও কর্মীরদের স্বার্থে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

 মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়া হাসান রফি রাজু বলেন, তৃণমূল আওয়ামী লীগ সম্মেলনের মাধ্যমে আমাকে নির্বাচিত করেছে তৃণমূল আওয়ামী লীগ যেহেতু আমাকে নির্বাচিত করেছে। তাই আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করব। শুনেছি, নৌকা প্রতীকের প্রার্থী নির্বাচন করবেন না। তাই আমি ছাড়া এই ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে আর কোনো প্রার্থী নেই।

 

এদিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে কেন্দ্রে পাঠানো ছয়জনের মধ্যে দলের মনােনয়ন পাননি তিন বারের নির্বাচিত ১নং কালিরবাজার ইউপি'র চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সেকান্দর আলী। এখানে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছে নুরুল ইসলাম। স্থানীয় আওয়ামী লীগের সদস্য পদ না থাকলেও গত বছর আওয়ামী লীগে যোগদানকারী প্রবাসী ব্যবসায়ী ও সিআইপি তিনি।

 

এবিষয়ে ১নং কালির বাজার ইউনিয়নের তিন বারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আলহাজ্ব সেকান্দর আলী বলেন, কিছুদিন আগে ইউনিয়ন কাউন্সিলিংয়ে নেতৃবৃন্দের ভোটে আমি ৭০ভোট পাই, বিপরিতে নূরুল ইসলাম পান ১৬ ভোট। স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ এবং এলাকাবাসীর সেবায় দীর্ঘ ১৫ বছর নিজেকে উৎসর্গ করেছি। উন্নয়ন করেছি প্রতিটি গ্রামে। তবে কি কারনে এমনটা হয়েছে জানা নেই। দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় নেতাকর্মীরা কিছুটা অবাক হয়েছেন অনেকে। তবে ইউনিয়নবাসী ও স্থানীয় নেতাকর্মীদের অনুরোধ রক্ষায় আমি অবশ্যই নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করবো। এবং আশাকরি সুষ্ঠ ভোটের মাধ্যমে বিশাল ব্যবধানের জয়লাভ করবো।

 

এদিকে দলীয় মনোনয়ন পেলেও এখনো ভোটের মাঠে ততটা সরব দেখা যায়নি আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী নূরুল ইসলামকে। মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করেও পাওয়া যয়নি তাকে। তবে তার নেতাকর্মীদের কয়েকজন জানান কৌশলে আগাচ্ছেন তিনি। নিরবে ভোটারদের মাঝে প্রচারণা চালাচ্ছেন তারা। আগামী ৫তারিখ প্রতিক বরাদ্দের পর আনুষ্ঠানিক ভাবে ভোটের মাঠে নামবেন তারা। 

 

আদর্শ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী আবুল বাশার এ বিষয়ে বলেন, আমরা দলীয় প্রার্থী নির্বাচনে ছয়টি ইউপিতে সম্মেলন করেছি। সেখান থেকে নির্বাচিত ছয় জনের তালিকা কেন্দ্রে পাঠিয়েছি। তাদের মধ্যে চারজন নৌকা প্রতীক পেয়েছেন। দলীয় শৃঙ্খলা বজায় রাখতে বাকি দুজনের বিষয়ে সমন্বয়ের চেষ্টা করছি।

 

গত ২৬ নভেম্বর বৃহস্পতিবার সদর উপজেলা নির্বাচন কার্যালয়ে মনােনয়নপত্র জমা দিয়েছেন মোট ১৫ জন। জগন্নাথপুর ইউপিতে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী মামুনুর রশিদ, জসিম উদ্দিন তালুকদার, আবু বক্কর সিদ্দিক। দুর্গাপুর উত্তর ইউপিতে আওয়ামী লীগের মনােনীত প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ, এয়াকুব আলী, দুর্গাপুর দক্ষিণ ইউপিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আমিনুল হক, হুমায়ূন কবির, আমড়াতলী ইউপিতে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী কাজী মোজাম্মেল হক, কাজী নজরুল ইসলাম, রুবেল আহমেদ, কালিরবাজার ইউপিতে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী নূরুল ইসলাম ও সেকান্দর আলী, আব্দুল হক, কামাল হোসেনএবং পাঁচথুবি ইউপিতে হাসান রফি রাজু। আগামী ২৬ ডিসেম্বর চতুর্থ ধাপে এসকল ইউপিতে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.বা 

নিউজ ট্যাগ: ইউপি নির্বাচন

আরও খবর



রাজধানীর কদমতলী রায়েরবাগে কাঠের ভুসি কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে ৪ কারখানা বশীভূত।

প্রকাশিত:Sunday ০৫ December ২০২১ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ December ২০২১ | ৩৩জন দেখেছেন
Image

 


নিজস্ব প্রতিনিধি।

ঢাকা মহাসড়কে রায়েরবাগ এলাকায় ৪ টি কয়েল তৈরীর কাঁচামাল কাঠের ভূসির কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। প্রায় দুই ঘন্টা প্রচেষ্টার ফলে ফায়ার সার্ভিসের ৮ টি ইউনিট আগুন নেভাতে সক্ষম হয়েছে। 

রবিবার (৫ ডিসেম্বর) রাত ১ঃ৩০ মিনিটে এ আগুনের লাগার ঘটনা ঘটে। 

এ ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে তাহের এন্টারপ্রাইজ আলমগীর এন্টারপ্রাইজ,মোফাজ্জেল হোসেন এন্টারপ্রাইজ ও  মোঃ শহিদ এন্টারপ্রাইজ নামে ৪ টি কারখানা পুড়ে ছাই হয়ে যায়।


তাহের এন্টারপ্রাইজের একজন মহিলা শ্রমিক বলেন রাত আনুমানিক ১ঃ৩০ আমরা ১২ জন শ্রমিক কাজ করছি এসময় হঠাৎ করে আগুন আগুন বলে চিৎকার করলে আমরা বেরিয়ে পড়ি। এসময় মুহুতর্র ভিতর দেখি চারিদেকে আগুন।

তিনি আরো বলেন এসব কারখানায় সারা রাত কাজ চলে।

এখানে কাঠার ভূসি তেতুলের বিচি ও ক্যামিকেল দিয়ে কয়েল তৈরীর কাঁচামাল বানান হয়।


স্থানীয়রা জানান, এই কারখানা গুলোতে এ নিয়ে তিনবার আগুন লেগেছে।

তারা আরো অভিযোগ করেন আবাসিক এলাকায় কি করে এসব কারখানা চলে।

যাদের কোন ধরনের অনুমতি নাই অথচ বছরের পর বছর এ ভাবে কারখানা গুলে চলছে। এ কারখানা গুলোর  বিরুদ্ধে একাধিকবার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করলেও তারা কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। 



কদমতলী থানার অফিসার ইনচার্জ প্রলয় কুমার সাহা জানান, রাত আনুমানিক ১ঃ৩০ মিনিটে রায়ের বাগে তাহের এন্টারপ্রাইজ আগুন লাগার ঘটনা ঘটে।

এটি মুলত কয়েল তৈরীর কাঁচামাল কাঠের ভুসির ৪ টি কারখানা। তবে কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। 


ঢাকা ফায়ার সার্ভিসের এ ডি আব্দুল হালিম, জানান, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা যাচ্ছে বৈদ্যুৎ সর্ট সার্কিটের ফলে আগুনের সূত্রপাত ঘটতে পারে।

আগুন নেভাতে ফায়ার সার্ভিসের ৮ টি ইউনিটি কাজ করছে। ভয়াবহ আগুনের ঘটনায় ৪ টি কারখানা ভসিভুত হয়ে যায়।

তবে কারখানা গুলো টিনের তৈরী সেই সাথে কারখানাগুলোতে আগুন প্রতিরোধের কোন ব্যবস্থা না থাকায় আগুনের ভয়বহতা ব্যাপক হয়েছে।

তিনি আরো বলেন প্রায় ২ ঘন্টা চেষ্টার ফলে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনা হয়েছে ।

-খবর প্রতিদিন/ সি.বা 



আরও খবর



গাজীপুরে ৩০ সেকেন্ডেই মা-মেয়ের জীবন শেষ করল দুই খুনি

প্রকাশিত:Saturday ২৭ November ২০২১ | হালনাগাদ:Wednesday ০৮ December ২০২১ | ৩২৫জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image

 

 

 গাজীপুরে মা-মেয়েকে গলা কেটে হত্যার রহস্য ৩৬ ঘণ্টার মধ্যে উদঘাটন করেছে পুলিশ। একই সঙ্গে দুই খুনিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মাত্র ৩০-৪০ সেকেন্ডেই মা-মেয়েকে হত্যা করা হয় বলে জানিয়েছেন তারা।

 

জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার সালদিয়া গ্রাম থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতাররা হলেন- একই গ্রামের সাত্তার খানের ছেলে জাহিদুল ইসলাম ও মনির হোসেনের ছেলে মহিউদ্দিন ওরফে বাবু।

শনিবার দুপুরে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের সদর দফতরে প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান উপ-পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম) মো. জাকির হাসান।

তিনি জানান, ১২ বছর আগে রাজশাহী জেলার বাসিন্দা জয়নাল আবেদীনের সঙ্গে ফেরদৌসীর বিয়ে হয়। তাদের সংসারে ১১ বছরের মেয়ে হাফসা ও চার বছরের তাসমিয়া রয়েছে। কিন্তু বনিবনা না হওয়ায় স্বামীকে তালাক দিয়ে বাবার বাড়িতে চলে আসেন ফেরদৌসী। এরপর মোবাইল ফোনে পরিচয়ের মাধ্যমে তিন বছর আগে গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার রবিউল ইসলামের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। রবিউলেরও আরেক সংসার ছিল। কিন্তু দুই বছর আগে তার সঙ্গেও ফেরদৌসীর ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়।

 

এরপর দুই মেয়েকে নিয়ে হাড়িনাল এলাকায় ভাড়া বাসায় থেকে গার্ডিয়ান লাইফ ইনস্যুরেন্স লিমিটেডে চাকরি করেন। এছাড়া তিন মাস আগে স্ত্রীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হয় বাবুর। পরে ফেরদৌসীর সহায়তায় একই কোম্পানিতে চাকরি নেন বাবু। কিন্তু বিচ্ছেদের ঘটনায় ফেরদৌসীকেই দায়ী মনে করেন তিনি। আর এ প্রতিশোধ নিতেই হত্যার পরিকল্পনা।

 

পরিকল্পনা অনুযায়ী বুধবার সন্ধ্যায় ইনস্যুরেন্সের টাকা দেওয়ার কথা বলে মোবাইল ফোনে ফেরদৌসীকে ডাকেন বাবুর বন্ধু জাহিদুল। ফোন পেয়ে মেয়ে তাসমিয়াকে নিয়ে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের দেশীপাড়া এলাকায় যান ফেরদৌসী। সেখানে যেতেই তাকে ধারালো ছুরি দিয়ে গলা কাটেন জাহিদুল ও বাবু। মাকে রক্তাক্ত দেখে চিৎকার করলে মেয়েকেও গলা কেটে হত্যা করেন তারা। দুটি খুন করতে তারা সময় নেন মাত্র ৩০-৪০ সেকেন্ড। এরপর তারা মোটরসাইকেলে পালিয়ে যান।

বুধবার রাতে দেশীপাড়া এলাকায় সড়কের পাশে মা-মেয়ের লাশ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেন এক কেয়ারটেকার। পরে লাশ দুটি উদ্ধার করে পুলিশ।

 

নিহতরা হলেন- গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার জাঙ্গালীয়া ইউনিয়নের বড়াইয়া গ্রামের বাছির উদ্দিন বছুর মেয়ে ফেরদৌসী আক্তার ও তার চার বছর বয়সী মেয়ে তাসমিয়া আক্তার। ফেরদৌসী স্থানীয় চান্দনা চৌরাস্তার এলাকার গার্ডিয়ান লাইফ ইনস্যুরেন্স লিমিটেডের মাঠকর্মী হিসেবে কাজ করতেন।

-খবর প্রতিদিন/ সি.বা


আরও খবর



কুমিল্লার তিতাস ও মেঘনা উপজেলায় ইউপি নির্বাচনে বিজয়ী যারা !

প্রকাশিত:Thursday ১১ November ২০২১ | হালনাগাদ:Wednesday ০৮ December ২০২১ | ৩১১জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image



বৃহস্পতিবার রাতে বেসরকারিভাবে প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী দুই উপজেলার ১২ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে জয়ি হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা।দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে কুমিল্লার মেঘনার আটটি এবং তিতাসের নয়টি ইউনিয়নে হয়েছে ভোটগ্রহণ।

 

বৃহস্পতিবার রাতে বেসরকারিভাবে প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী দুই উপজেলার ১২ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে জয়ি হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা।অন্য ছয়টি ইউনিয়নে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী হিসেবে নির্বাচন করা স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন কুমিল্লা জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. দুলাল তালুকদার।

 

মেঘনা উপজেলার রাধানগর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মজিবুর রহমান, মানিকারচরে আওয়ামী লীগের জাকির হোসেন, চালিয়াভাঙ্গায় স্বতন্ত্র প্রার্থী হুমায়ুন কবির, ভাওরখোলায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সিরাজুল ইসলাম, লুটেরচরে নৌকা প্রতীকের সানাউল্লাহ সিকদার, গোবিন্দপুরে আওয়ামী লীগের মাইনুদ্দিন মুন্সি তপন ও বড়কান্দায় স্বতন্ত্র প্রার্থী ফারুক হোসেন রিপন জয়ী হয়েছেন।

 

এ উপজেলায় বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হয়েছেন চন্দনপুর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ প্রার্থী আহসান উল্লা।এদিকে তিতাসের সাতানী ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী সামছুল হক, জগৎপুরে নৌকার প্রার্থী মজিবুর রহমান, বলরামপুরে আওয়ামী লীগের প্রার্থী নুরুন্নবী, কলাকান্দিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী ইব্রাহিম সরকার, ভিটিকান্দিতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বাবুল আহমেদ, নারানদিয়ায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী আরিফুজ্জামান ভুইয়া খোকা, জিয়ারকান্দিতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আলী আশরাফ ও মজিদপুরে আওয়ামী লীগ প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম সরকার জয়ী হয়েছেন।এ উপজেলায় বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হয়েছেন সদর কড়িকান্দি ইউনিয়নের নৌকার প্রার্থী সাইফুল আলম মুরাদ।

 

-খবর প্রতিদিন/ সি.বা

নিউজ ট্যাগ: ইউপি নির্বাচন

আরও খবর



বাসে শিক্ষার্থীদের হাফ পাসের বিষয়ে পরিষ্কার কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি

হয়নি হাফ পাসের সিদ্ধান্ত,টাস্কফোর্স গঠনের প্রস্তাব

প্রকাশিত:Saturday ২৭ November ২০২১ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ December ২০২১ | ১০২জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image


 

বাসে শিক্ষার্থীদের হাফ পাসের বিষয়ে পরিষ্কার কোনো সিদ্ধান্ত না হলেও সড়ক-পরিবহন-মালিক-শ্রমিকসহ সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে সমন্বিত করে একটি টাস্কফোর্স গঠনের প্রস্তাব করা হয়েছে।

 

শনিবার রাজধানীর বনানীতে বিআরটিএ কার্যালয়ে বেলা পৌনে ১২টা থেকে দুপুর সোয়া ২টা পর্যন্ত চলা বাস মালিক সমিতি, শ্রমিক ফেডারেশনের সঙ্গে বিআরটিএসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বৈঠকে কয়েকটি প্রস্তাবের সঙ্গে এ প্রস্তাব আনা হয়।

 

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, বৈঠকে হাফ পাসের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে কী কী কারণে বা কী উপায় হাফ পাসের দাবি পূরণ করা যায়, সে বিষয়ে সবার মধ্যে বিস্তর আলোচনা হয়। হাফ পাসের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত ছাড়াই বৈঠক শেষ হয়েছে। পরিবহন নেতাদের পক্ষ থেকে টাস্কফোর্স গঠনসহ বেশ কয়েকটি প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। প্রস্তাবগুলো বিবেচনা নিয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। 

 

বৈঠক শেষে ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েত উল্লাহ বলেন, শিক্ষার্থীদের দাবি যৌক্তিকভাবে সমাধানে চেষ্টা চলছে। ঢাকার ৮০ শতাংশ বাস মালিক গরিব। হাফ ভাড়া নিলে মালিকদের যে ক্ষতি হবে, তা সরকার কীভাবে পূরণ করবে? সেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে। আমরা কিছু প্রস্তাব দিয়েছি। সবার সমন্বয়ে টাস্কফোর্স গঠনের প্রস্তাব দিয়েছি। 

 

ছাত্রদের অনুরোধ জানিয়ে এ পরিবহন নেতা বলেন, হাফ ভাড়ার দাবিতে বাস ভাঙচুর, শ্রমিকদের মারধর অব্যাহত রয়েছে। শিক্ষার্থীদের প্রতি অনুরোধ থাকবে, তারা যেন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ফিরে যায়। 

 

টাস্কফোর্স কবে গঠন করা হবে এ প্রশ্নে বিআরটিএ চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদার বলেন, এটা নতুন প্রস্তাব। টাস্কফোর্স গঠনের বিষয়ে পরে সিদ্ধান্ত হবে। টাস্কফোর্স গঠনের মাধ্যমে যে সিদ্ধান্ত আসবে তা সেভাবে বাস্তবায়ন হবে।

তিনি আরো বলেন, পরিবহন নেতাদের পক্ষ থেকে কনসেশন (সুবিধা) দেওয়ার প্রস্তাব এসেছে। কত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, কত ছাত্র, কতজন বাস ব্যবহার করে তার একটা পরিসংখ্যান চেয়েছেন নেতারা। শিক্ষা মন্ত্রণালয় সেই তথ্য দেবে। 

 

টাস্কফোর্স গঠনের বিষয়ে বিআরটিএ চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ বলেন, বাসে হাফ ভাড়া বাস্তবায়নে পরিবহন নেতারা আন্তরিক। কিন্তু তাদের যে ক্ষতি হবে তা কীভাবে পূরণ করা হবে, কত ভর্তুকি দেবে সেসব বিষয়ে সিদ্ধান্তের জন্য সরকার ও পরিবহনে সম্পৃক্তদের নিয়ে টাস্কফোর্স গঠনের প্রস্তাব এসেছে। সরকারকে টাস্কফোর্সের বিষয়ে জানাবে।

 

এদিকে বাসে হাফ পাসের সিদ্ধান্ত আসার আগ পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের সড়ক ছেড়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ফিরে যাওয়ার আহবান জানিয়েছেন বিআরটিএ চেয়ারম্যান এবং পরিবহন নেতারা।


-খবর প্রতিদিন/ সি.বা   


আরও খবর