Logo
আজঃ বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম
নিলয় কোটা আন্দোলনকারীদের পক্ষ নিয়ে কী বললেন স্থগিত ১৮ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা তিতাসের অভিযানে নারায়ণগঞ্জের ২ শিল্প কারখানার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন হিলি দিয়ে কাঁচা মরিচ আমদানি বাড়ায় বন্দরের পাইকারী বাজারে কেজিতে দাম কমেছে ৩০ টাকা জয়পুরহাটে ডাকাতির পর প্রতুল হত্যা মামলায় ৬ জনের যাবজ্জীবন রিয়েলমি সার্ভিস ডে: ফোন রিপেয়ারে খরচ বাঁচান ৬০% পর্যন্ত, উপভোগ করুন ফ্রি সার্ভিস সুনামগঞ্জে ইয়াবাসহ ২জন গ্রেফতার: কোটিপতি সোর্স ও গডফাদার অধরা কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ৩ দিনে ৩ খুন, আইনশৃংখলার অবনতি জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

পোরশায় চোরাই গরুসহ এলাকাবাসীর হাতে ৩ চোর আটক

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ জুন ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৩৫৮জন দেখেছেন

Image
পোরশা (নওগাঁ) প্রতিনিধি:নওগাঁর পোরশায় ২টি চোরাই গরুসহ ৩চোরকে আটক করেছে এলাকাবাসী। আটকৃতরা হলো নওগাঁ জেলার সাপাহার উপজেলার নিশ্চিন্তপুর গ্রামের মৃত আলাউদ্দিনের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম, জেলার নিয়ামতপুর উপজেলার মোহাম্মদপুর গ্রামের কাইয়ুম আলীর ছেলে বুলবুল হোসেন ও পোরশা উপজেলার সহড়ন্দ গ্রামের হামিদ মোল্লার ছেলে হাফিজুর মোল্লা।জানা গেছে, পোরশা উপজেলার দয়াহার শেখপাড়া গ্রামের হাসিম মন্ডলের ছেলে শামসুল আলমের বাড়িতে গত বুধবার দিবাগত গভীর রাতে কৌশলে বাড়ির মেইন গেটের তালা ভেঙে বাড়িতে প্রবেশ করে গোয়ালে থাকা দুটি গরু চুরি করে নিয়ে যায় চোর। ভোররাতে ভটভটিতে করে চুরি করা গরু নিয়ে পার্শ্ববর্তী নিয়ামতপুর উপজেলার শালবাড়ি এলাকার রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিল চোরেরা। স্থানীয়রা দেখতে পেয়ে সন্দেহ হলে গাড়ি ও গরুসহ তাদেরকে আটক করে। গরুর মালিক শামসুল আলম খোঁজাখুজির এক পর্যায়ে সেখানে পৌঁছালে তার গরু সনাক্ত করে। পরে সেখান থেকে গরু ও ভটভটিসহ হাতেনাতে তিন চোরকে আটক করে পোরশা থানায় সোপর্দ করায় গরুর মালিক ও এলাকাবাসীরা।

এ ঘটনায় গরুর মালিক শামসুল আলম বাদী হয়ে পোরশা থানায় ৭জনকে আসামি করে একটি মামলা করেছেন।এ ব্যাপারে পোরশা থানার অফিসার ইনচার্জ জহুরুল ইসলাম জানান, মামলা হওয়ার পর শুক্রবার সকালে আটক ৩চোরকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। এবং অপর ৪আসামীকে গ্রেফতারের জোর চেষ্টা চলছে।

আরও খবর



সোনাইমুড়ী প্রেসক্লাবে সদস্যদের সাথে ঢাকার বার্তার চেয়ারম্যানের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:শুক্রবার ১২ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৬৬জন দেখেছেন

Image
মারুফ সরকার, স্টাফ রিপোর্টার:নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভা করেন জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল ঢাকার বার্তার চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম।

বুধবার (১১ জুলাই) রাত ৮টায় প্রেসক্লাব অডিটোরিয়ামে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন আব্দুর রহিম। 

অনুষ্ঠানে ৫০ হাজার টাকা অনুদানের মাধ্যমে আব্দুর রহিমকে সোনাইমুড়ী প্রেসক্লাবের আজীবন সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। 

সোনাইমুড়ী প্রেসক্লাবের আয়োজনে ক্লাবের সভাপতি বেলাল হোছাইন ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ইয়াকুব আল মাহমুদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সোনাইমুড়ী প্রেসক্লাবে প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি অধ্যাপক সালা উদ্দিন পাটোয়ারী, সাবেক সভাপতি সামছুল আরেফিন জাফর, সাবেক সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এমএ মতিন।এ সময় উপস্থিত ছিলেন ক্লাবের সহ-সভাপতি মোঃ সেলিম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ উল্যাহ, দপ্তর সম্পাদক টিএ সেলিম, কার্যকরী সদস্য আবুল কাশেম, সাবেক কোষাধ্যক্ষ আবদুল মতিন, সাবেক সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক এবিএম সিদ্দিক, সোনালী কণ্ঠের মাল্টিমিডিয়া ইনচার্জ হোসাইন মাহমুদ, গণকণ্ঠের প্রতিনিধি মনির হোসেনসহ নেতৃবৃন্দ। 

এ সময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে আব্দুর রহিম বলেন, সাংবাদিকরা দেশ ও সমাজের বাতিঘর। সমাজের উন্নয়নে সাংবাদিকরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। আমি আপনাদের সাথে মিলিত হতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করছি।

তিনি আরো বলেন,আমি এ এলাকার সন্তান।মিডিয়ার সাথে বহুদিন থেকে সম্পৃক্ত রয়েছি। আশা করছি আপনারা আমাকে সহযোগিতা করবেন। আমি আগামী দিনে আপনাদের পাশে থাকার চেষ্টা করবো।

-খবর প্রতিদিন/ সি.

আরও খবর



কুড়িগ্রামের রৌমারী সাবেক প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন এর সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ৫৭জন দেখেছেন

Image

মাজহারুল ইসলাম,রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি:রৌমারী উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষে সংবাদ সম্মেলন করেছেন সাবেক প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন এমপি, বিপক্ষে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে উপজেলা আংশিক আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। গতকাল শনিবার সকাল ১১ টার দিকে রৌমারী উপজেলায় এ ঘটনাটি ঘটে। পুলিশ প্রশাসন পক্ষে বিপক্ষের আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় শতর্কতাবস্থায় অবস্থানে ছিলেন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে উপজেলা আওয়ামী লীগ অফিস কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে সাবেক এমপি জাকির হোসেন প্রতিমন্ত্রী প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয় লিখিত বক্তব্য পাঠ করে বলেন, আমার বিরুদ্ধে ব্যাক্তিগত স্বার্থ হাসিলের জন্য কতিপয় আইসিইউ, জনবিচ্ছিন্ননেতা যারা দলের সুবিধা নেয় এবং দলের কাজ করে না। সবসময় দলীয় লোকজনদের সাথে অসুভ আচরন, দুর্নীতি, লুটপাট, ঘর ও রিলিফের চাউল বিক্রি করা, যতরকামের সরকারি সুবিধার জন্য নেতাকর্মীদের টাকা মারা। দাপরেটর সাথে ঠিকাদারী করা, সবচেয়ে নিন্মমানের কাজ করা, মাদক ব্যবসা করা, ধাপ্পাবাজি করা, এমনকি পায়খানা দিয়েও টাকা হাতিয়ে নেওয়া, ভুমিদস্যু, কতিপয় জনবিচ্ছিন্ন সন্ত্রাসী নেতা। 

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সম্পর্কে প্রতিমন্ত্রী থাকা কালিন সময়ে দুর্নীতি, লুটপাট ভুমি দখল চর দখল, সরকারি জায়গা দখল, বহুতল ভবন নির্মান, মাজার দখল, বালু ব্যবসা প্রতিবেশির জমি দখল করাসহ নানা ধরনের মিথ্যা অসত্য ভিত্তিহীন ষড়যন্ত্রমূলকভাবে সংবাদ প্রচার করে দল ও সরকারের ভাবমুর্তি চরম ভাবে ক্ষুন্ন করেছে। আমরা উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এ সংবাদ সম্মেলন ও সংবাদ পত্রের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট দৃষ্টি আকর্ষন করছি। এমন মিথ্যা অসত্য তথ্য প্রচার করে দল ও সরকারের ভাবমুর্তি যারা ক্ষুন্ন করেছে তাদের দৃষ্টান্ত মূলক ও আইনানুগ ব্যবস্থারও কথা বক্তব্যে বলেছেন।

অপরদিকে উপজেলা আওয়ামী লীগ কমিটির আংশিক নেতাকর্মীগণ সকাল  ১১ টায় রৌমারী ইসলামী ব্যাংকের সামন থেকে একটি মানববন্ধন শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল বেড় হয়ে উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন শেষে উপজেলা চত্তরে এসে শেষ হয়। 

এসময় বক্তারা সাবেক প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন এমপির নানা অনিয়ম দুর্নীতি ও অনিয়মিত আংশিক উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটি ভেঙ্গে নতুন করে কমিটি গঠনের জন্য বক্তব্যের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি রেজাউল ইসলাম মিনু, সহসভাপতি রফিকুল আলম শাহিদ, সাবেক সহসভাপতি এনআর জাহাঙ্গির রবু, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক আবিদ শাহ নেওয়াজ তুহিন, সাংগঠনিক সম্পাদক মাইদুল ইসলাম, শ্রমীক লীগের সভাপতি আলহাজ্ব জাহিদুল ইসলাম জাহিদ, উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, যুব ও ক্রিড়া বিষয়ক সম্পাদক আফজাল হোসেন বিপ্লবসহ উপজেলা ও ইউনিয়নের নেতাকর্মী প্রমুখ। 

এ বিষয়ে রৌমারী থানা অফিসার ইনচার্জ আব্দুুল্লা হিল জামান জানান, রৌমারীতে উপজেলা আওয়ামী লীগের পাল্টা পাল্টি সংবাদ সম্মেলন মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলকে টেকেল দিতে দুই উপজেলার পুলিশ নিয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় শতর্কতাঅবস্থানে রয়েছি। 

-খবর প্রতিদিন/ সি.

আরও খবর



যুবসমাজের স্বেচ্ছাশ্রমে ও চাঁদায় চলাচলের অযোগ্য সড়ক সংস্কার

প্রকাশিত:সোমবার ০৮ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ৯৬জন দেখেছেন

Image

সাগর আহম্মেদ,কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি:গাজীপুরের কালিয়াকৈরে গ্রামবাসীর দুর্ভোগ লাঘবে স্বেচ্ছাশ্রমে ও চাঁদায় চলাচলের অযোগ্য জরাজীর্ণ সড়ক সংস্কার করছেন যুবসমাজ। গত দুদিন ধরে তারা উপজেলার আষাড়িয়াবাড়ি-গর্জনখালী সড়কটি সংস্কার কাজ করছেন। এতে প্রশংসায় ভাসছেন উদ্যোগ গ্রহণকারী যুবসমাজ। তবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ অনেকের কাছে সড়কটি টেকসই সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন গ্রামবাসী।

এলাকাবাসী ও যুবসমাজ সূত্রে জানা গেছে, কালিয়াকৈর উপজেলার গর্জনখালী ও আষাড়িয়াবাড়ী এই দুই গ্রামের একমাত্র যোগাযোগের অবলম্বন হচ্ছে আষাড়িয়াবাড়ী-গর্জনখালী সড়ক। গত ৪/৫ বছর আগে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদেরমাধ্যমে প্রায় ৩/৪ কিলোমিটার সড়কের উন্নয়ন করা হয়। এই একমাত্র কাঁচা সড়কটি দিয়েই উপজেলা সদরসহ বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করে গর্জনখালী গ্রামের মানুষ। এটি দিয়ে কৃষকেরা তাদের মাঠ থেকে বাড়িতে ফসল তুলেন। এখান দিয়েই চলাচল করেন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরাও। কিন্তু ওই এলাকার একটি ইটভাটার অভারলোড বাহী ট্রাক ও স্থানীয় মাটি খেঁকোদের মাটিবাহী ট্রাক অতিরিক্ত চলাচল করায় বিভিন্ন স্থানে মাটি ধসে রাস্তা ভেঙ্গে সড়কটি জরাজীর্ণ হয়ে পড়ে। এটা যেন দেখার কেউ নাই। এছাড়াও দীর্ঘদিন সংস্কার না করায় ও এবারের ভারী ভর্ষণে সড়কের বিভিন্ন ছোট-বড় গর্ত ও খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। বৃষ্টি হলে সেখানে পানি জমে সড়কটি চলাচলের অযোগ্য ও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ে। চরম দুর্ভোগে পড়েন ওই সড়কে চলাচলরত মানুষ। সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগে পড়েন স্কুল- কলেজের শিক্ষার্থী ও রোগীরা। মাঠের ফসল ওই সড়ক দিয়ে ঘরে তুলতে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন কৃষকেরাও। এ অবস্থায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের দেনদরবার করেও সাড়া পাননি গ্রামবাসী। অবশেষে গ্রামবাসীর দুর্ভোগ লাঘবে সড়কটি সংস্কারের উদ্যোগ নেন বজলুর হক কলি, সুজন সিকদার, বিপ্লব হোসেন রেজাউলসহ কয়েকজন যুবক। তাদের সহযোগিতা করছেন গ্রামবাসী ও স্থানীয় কিছু ব্যবসায়ীরাও। দুদিন ধরে ওই যুবসমাজের উদ্যোগে চাঁদা তুলে স্বেচ্ছাশ্রমে সড়কটি সংস্কার করেছেন। গত শনিবার থেকে শুরু হয়ে রোববারও তাদের সংস্কার কাজ অব্যাহত রেখেছেন। এ সংস্কার কাজ করতে তাদের প্রায় ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা খরচ হবে। এ কাজ করে প্রশংসায় ভাসছেন উদ্যোগ গ্রহণকারী যুবসমাজ। তবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ অনেকের কাছে সড়কটি টেকসই সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন গ্রামবাসী।

সড়ক সংস্কারে উদ্যোগী যুবসমাজের মধ্যে বজলুর হক কলি বলেন, এ সড়কটি খুবই লাজুক অবস্থার সৃষ্টি হয়। এখান দিয়ে চলাচলে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। তাই মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে আমরা কয়েকজন মিলে ওই সড়ক সংস্কারের উদ্যোগ নিয়েছি। এখানে গ্রামবাসীসহ বিভিন্ন ব্যবসায়ীরাও সহযোগীতা করেছেন। তবে সড়কটি চলাচলের উপযোগী করতে আমাদের সংস্কার খরচ বাবত প্রায় ৫০/৬০ হাজার টাকা খরচ হবে।

ওই ইটভাটার ম্যানেজার কামরুজ্জামান জানান, এখন তো আমাদের ইটভাটার গাড়ি চলে না। এছাড়াও বিভিন্ন সময় আমাদের ইটভাটার মালিকও ওই সড়ক সংস্কার করেন। স্থানীয় ইউপি সদস্য (মেম্বার) রফিকুল ইসলাম জানান, গত ৪/৫ বছর আগে ওই সড়কটি সংস্কার করা হয়েছিল। কিন্তু একটি ইটভাটার ওভারলোড করা ট্রাক চলাচলে

ওই সড়কের এতো ক্ষতি হয়েছে। তবে শুনেছি গ্রামবাসী ওই সড়কটি সংস্কার কাজ করছেন।

এব্যাপারে স্থানীয় চাপাইর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান সেতু জানান, যুবসমাজ ওই সড়কটি সংস্কার করছেন, এ বিষয়টি আমার জানা নেই। তারা সংস্কার করলে এটা একটি ভাল উদ্যোগ। ওই সড়কটি ইটভাটার ট্রাক চলাচলে নষ্ট করেছে। তবে বরাদ্দ পেলে ওই সড়ক সংস্কারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর



হামিদপুর ইউনিয়নে নব বঁধু কে যৌতুকের জন্য নির্যাতন পাষন্ড স্বামী কারাগারে

প্রকাশিত:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ১৩১জন দেখেছেন

Image

ফুলবাড়ী, দিনাজপুর প্রতিনিধি:দিনাজপুরের  পার্বতীপুর উপজেলার ৯নং হামিদপুর ইউনিয়নের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি এলাকার বাঁশ পুকুর গ্রামে বিয়ের মাত্র দশ মাস অতিবাহিত না হতেই যৌতুকের দাবিতে শাশুড়ীর প্ররোচনায় পাষন্ড স্বামীর নির্মম নির্যাতনের শিকার গৃহবধূর সংসারে ভাঙ্গনের সুর নিয়ে  হাসপাতালে ভর্তির পরের দিন স্বামী কৌশলে তালাক প্রদান করেছে। অতঃপর  থানায়  মামলা হলে  যৌতুক লোভী  আটক পাষন্ড স্বামী আজিজুল হাকিম রাজুুর জামিন না মঞ্জুর করে আদালত কারাগারে   পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন। 

পার্বতীপুর মডেল থানার মামলা নং ১৬ ও সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যানদের শালিশি বৈঠক নামা সুত্রে  জানা গেছে ১৮/০৮/২৩ইং তারিখে উপজেলার বাঁশ পুকুর গ্রামের মাহবুবুর রশিদ এর পুত্র আজিজুল হাকিম রাজুর সঙ্গে একই উপজেলার ১০ নং হরিরামপুর ইউনিয়নের মধ্যপাড়া খনিজ শিল্পাঞ্চল এলাকার গুড়গুড়ি গ্রামের সাইফুল ইসলামের কলেজ পড়ুয়া কন্যা আনিকা তাবাসসুম (১৯) এর  সহিত চারলক্ষ টাকা দেন মোহর নির্দ্ধারন পূর্বক মুসলিম শরিয়া মোতাবেক ১০ নং ইউনিয়ন কাজীর মাধ্যমে বিবাহ রেজিষ্ট্রি হয় যার বিবাহ নং১৯২ বালাম নং ০৩ পাতা নং৩৬  সাল ২০২৩।  বিবাহের কিছু দিন অতিবাহিত হওয়ার পর হতে পাষন্ড স্বামী শাশুড়ী পরধন লোভী শশুর ও বাড়ির অন্যান্য সদস্য গন  মোটা অংকের যৌতুকের জন্য  নব বঁধু আনিকা তাবাসসুম কে অমানবিক  শারীরিক ও মানষিক নির্যাতন করতে থাকে।  এক পর্যায়ে বিগত ১৯/০৩/২০২৪ সকাল ১০ ঘটিকায় শাশুড়ীর প্ররোচনায় পাষন্ড স্বামী নববধূ তাবাসসুম কে বাবার বাড়ি থেকে পাঁচ লক্ষ টাকা যৌতুক আনার জন্য চাপসৃষ্টি করে। দাবি কৃত যৌতুকের টাকা আনতে অপারগতা প্রকাশ করলে যৌতুক লোভী শশুরালয়ের সংঘবদ্ধ রা নির্মমভাবে মারপিট করে তাড়িয়ে দেয়। এ ঘটনায় ১৯/৩/২৪ পার্বতীপুর মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দাখিল হলে গত ৪/৪/২৪ উভয় পক্ষকে নিয়ে  ৯ নং হামিদপুর চেয়ারম্যান এবং ১০ নং হরিরামপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মোজাহিদুল ইসলাম সোহাগ শালিশি বৈঠকের আয়োজন করেন।  শালিশি বৈঠকে আজিজুল হাকিম ও তার পিতা মাতা তাদের ভুল বুঝতে পেরে সকলের নিকট ক্ষমা চেয়ে আর কখনো নির্যাতন করিবেনা এবং দাম্পত্য জীবন অটুট রাখার সার্থে আন্নিকা তাবাসসুম কে তাদের নিজ গৃহে নিয়ে যায়। গত ০৮/০৬/২৪ তারিখে আবারো একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটলে নির্যাতনের শিকার হয়ে গুরুতর আহত ও অসুস্থ অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হলদিবাড়ি পার্বতীপুরে ভর্তি হয়। পরের দিন ০৯/০৬০২৪  ধুরন্ধর  স্বামী বিষয় টি ভিন্ন দিকে প্রবাহের কৌশল হিসাবে স্ত্রী কে তালাক নামা প্রদান করেন।  চিকিৎসা  শেষে হাসপাতাল থেকে ফিরে ১২/৬/২৪  স্বামী শাশুড়ী শশুর সহ পাঁচ জনের বিরুদ্ধে পার্বতীপুর মডেল  থানায় ২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন সংশোধনী /০৩ এ মামলা রেকর্ড হয়।  গত ১২ জুন/২৪ থানা পুলিশ আজিজুল হাকিম কে আটক করে পরের দিন  আদালতে হাজির করলে আদালত তাকে  কারাগারে পাঠানোর  নির্দেশ দেন । এদিকে প্রতারনার শিকার গৃহবধূর বাবা সাইফুল ইসলাম জানান  বিবাহ রেজিস্ট্রি কালিন সময়ে ডাচ বাংলা ব্যাংকের চার লক্ষ টাকার একটি চেক যার হিসাব নং ৭০১৭৩৩৩৯৯২৫৮২ হিসাব ধারি মাহাবুব রশিদ পুত্র বধু আন্নিকা অনুকূলে প্রদেয় হয়। অথচ ডাচ বাংলা ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট শাখায় চেক সহ যোগাযোগ করা হলে জানা গেছে ওই চেকের টাকা আন্নিকার উত্তোলনের কোন সুযোগ নেই এ ধরনের চেক প্রদান জাস্ট প্রতারনা মুলক শান্তনা মাত্র। আমি চেক প্রতারনার প্রতিকার চেয়ে ব্যবস্থা নিব। উপজেলা আওয়ামী লীগ কমিটির অন্যতম সদস্য খলিলুর রহমান বলেন যৌতুক লোভী মা ও ছেলের কঠোর শাস্তি হওয়া উচিত বলে জানান। 


আরও খবর



ফুলবাড়ীতে ১০ শতক জমির শাক-সবজির গাছ কেটে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা

প্রকাশিত:শনিবার ০৬ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১২৭জন দেখেছেন

Image

ফুলবাড়ী, দিনাজপুর প্রতিনিধি:দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে রাতের অন্ধকারে ১০ শতাংশ জমিতে লাগানো পটল, ঢেড়স, করলা, বরবটি, পুুঁইশাকসহ বিভিন্ন প্রকার শাক সবজির গাছ কেটে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এতে পথে বসেছেন বর্গাচাষি দিনমজুর লাল বাবু রায়।

ঘটনাটি ঘটেছে, গত বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) দিবাগত রাতের কোনো এক সময়ে ফুলবাড়ী উপজেলার ৭নং শিবনগর ইউনিয়নের বহিলহারপুর গ্রামে। 

বর্গাচাষি দিনমজুর লাল বাবু রায় বলেন, খেতখামারে দিনমজুরির পাশাপাশি বাড়তি আয়ের আশায় গ্রামের মধ্যে থাকা ফুলবাড়ী পৌরশহরের শিবু দত্ত নামের এক ব্যক্তি ১০ শতাংশ জমি ১৬ হাজার টাকা বছর চুক্তিতে বর্গা নিয়েছেন। বর্গা নেওয়া ১০ শতাংশ জমিতে জমিতে লাগানো পটল, ঢেড়স, করলা, বরবটি, পুুঁইশাকসহ বিভিন্ন প্রকার শাক সবজি আবাদ করেছেন। ইতোমধ্যে গাছে পটল, বরবটি, করলা, পুঁইশাক ধরেছে। বাবু লাল রায় প্রতিদিন মজুরি দিতে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে যান। এ সময় বর্গা নেওয়া ওই জমির শাক-সবজির আবাদ দেখাশুনা করেন তার মা কল্যাণী রানী রায়। কিন্তু কারো সাথে কোনো প্রকার শত্রুতা না থাকলেও কে বা কারা গত বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) দিবাগত রাতের কোনো এক সময়ে শত্রুতা করে পুরো ১০ শতাংশ জমিতে আবাদ করা শাক-সবজির গাছ কেটে দিয়েছে। এতে বর্গার জন্য দেওয়া ১৬ হাজার টাকার সঙ্গে আবাদের খরচ প্রায় ২০ হাজার টাকা পুরোটাই লোকসানে পড়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। 

বাবু লাল রায়ের মা কল্যাণী রানী রায় বলেন, এতোদিন শরীরের পরিশ্রম ধারদেনা করে টাকা জোগান দিয়ে আবাদ করা হয়েছিল। আশা ছিল আবাদ করে কিছু লাভ হলে সেই লাভের টাকা দিয়ে চাল কিনে রাখবেন পরিবারের লোকের খাবার জন্য। কিন্তু শত্রুতা করে খেতের সব গাছে কেটে দেওয়ায় বড় ধরনের ঋণদেনায় পড়ে গেছে পুরো পরিবার।

প্রতিবেশি ভাদু চন্দ্র রায় (৭০) ও কলেজ ছাত্র তনু রানী রায় (২২) বলেন, বাবু লাল রায়ের কারো সাথে কোনো শত্রুতা নেই, তারপরও যারা তার আবাদ নষ্ট করে দিয়েছে তাদের কখনো ভালো হবে না। 

শিবনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ছামেদুল ইসলাম মাস্টার বলেন, বিষয়টি তার জানা নেই, তবে ওই গ্রামে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত বাবু লাল রায়ের পরিবারকে কিছু সহায়তা করার চেষ্টা করবেন। 

থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোস্তাফিজার রহমান বলেন, শাক-সবজি নষ্ট করার ঘটনার কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পাওয়া গেছে তদন্ত সাপেক্ষে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 


আরও খবর