Logo
আজঃ Wednesday ১০ August ২০২২
শিরোনাম
নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ২৪৩৫ লিটার চোরাই জ্বালানি তেলসহ আটক-২ নাসিরনগরে বঙ্গ মাতার জন্ম বার্ষিকি পালিত রূপগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কাউন্সিলর সামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু ৬৫ নং ওয়ার্ডে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসুচীতে অংশগ্রহন করেন চান্দিনা থানায় আট কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নাসিরনগরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ নাসিরনগর বাজারে থানা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ মার্কেটে দুই কাপড় দোকানে দুর্ধষ চুরি। ই প্রেস ক্লাব চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটির মতবিনিময় সম্পন্ন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬ কেজি গাঁজাসহ হাইওয়ে পুলিশের হাতে আটক এক। সোনারগাঁয়ে পুলিশ সোর্স নাম করে ডাকাত শাহ আলমের কান্ড

পদ্মা সেতু নিয়ে ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজতে কমিটি গঠনের নির্দেশ

প্রকাশিত:Tuesday ২৮ June ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ৫২জন দেখেছেন
Image

পদ্মা সেতু নির্মাণ চুক্তি নিয়ে দুর্নীতির মিথ্যা গল্প সৃষ্টির নেপথ্যের ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজে বের করতে ইনকোয়ারি অ্যাক্ট ১৯৬৫ (৩ ধারা) অনুসারে একটি তদন্ত কমিশন গঠন করার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

এক মাসের মধ্যে তদন্ত কমিটি গঠন করে দুই মাসের মধ্যে সংশ্লিষ্টদের এ বিষয়ে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্যও বলেছেন আদালত।

কেবিনেট সচিব, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব, আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, দুদকের চেয়ারম্যান ও পুলিশের মহাপরিদর্শককে (আইজিপি) এই আদেশ বাস্তবায়ন করতে বলেছেন আদালত।

পদ্মা সেতু নির্মাণ চুক্তি নিয়ে দুর্নীতির মিথ্যা গল্প সৃষ্টির নেপথ্যের ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজে বের করতে কমিশন গঠন প্রশ্নে জারি করা রুলের ওপর শুনানি শেষে মঙ্গলবার (২৮ জুন) বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে এদিন রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক ও সহকারী অযাটর্নি জেনারেল আন্না খানম কলী। আর দুদকের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান। এছাড়ও সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুন নুর দুলাল শুনানি করেন।

এর আগে সোমবার (২৭ জুন) পদ্মা সেতু নির্মাণ চুক্তি নিয়ে দুর্নীতির মিথ্যা গল্প সৃষ্টির নেপথ্যের ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজে বের করতে কমিশন গঠন প্রশ্নে জারি করা রুলের ওপর হাইকোর্টে শুনানি হয়। আজ এই রুলের ওপর আরও শুনানি করে আদালত এই আদেশ দেন।


আরও খবর



৯ ঘণ্টা পর সাতক্ষীরা থেকে ছাড়া হলো দূরপাল্লার বাস

প্রকাশিত:Wednesday ১০ August ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ১০জন দেখেছেন
Image

দুই জেলার মালিক সমিতির দ্বন্দ্বে ৯ ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর সাতক্ষীরা থেকে দূরপাল্লার বাস চলাচল শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার (৯ আগস্ট) বিকেল তিনটা থেকে বাস চলাচল স্বাভাবিক হয়।

বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেছেন সাতক্ষীরা বাস মিনিবাস মালিক সমিতির আহ্বায়ক সাইফুল করিম সাবু।

সাইফুল করিম সাবু বলেন, সোমবার যশোরে সাতক্ষীরার পরিবহন কাউন্টারে তালা লাগিয়ে দেন যশোর মালিক ও শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা। সে কারণে সাতক্ষীরা থেকে পরিবহন বন্ধ করে দিয়েছেন মালিকরা। গত ৫ আগস্ট শ্যামনগরে শ্রমিকদের সঙ্গে মারামারির ঘটনা ঘটে। তখন শ্যামনগরের উচ্ছৃঙ্খল শ্রমিকরা যশোরের গাড়ি শ্যামনগর যেতে নিষেধ করেন। নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করলে যশোরের গাড়ি কালিগঞ্জে আটকে দেন শ্রমিকরা। পরে ছেড়েও দেন।

তিনি বলেন, সেই ইস্যুকে কেন্দ্র করে যশোর মালিক সমিতি ও শ্রমিক নেতারা যশোরে থাকা সাতক্ষীরার পরিবহন কাউন্টারগুলোতে তালা লাগিয়ে দেন। সে কারণে পরিবহন মালিকরা গাড়ি চলাচল বন্ধ রাখেন। যশোরের মালিক সমিতির নেতার আমাদের ওপর জুলুম নির্যাতন করছেন। সাতক্ষীার মালিকদের গাড়ি চলাচলে বাধা দিচ্ছেন। আমরা প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা করে ৪৮ ঘণ্টার সময় দিয়েছি। দ্রুত আমাদের দাবি মেনে নিয়ে এই সমস্যার সমাধান না করা হলে আমরা আবারো ধর্মঘটে যাব।

মঙ্গলবার (৯আগস্ট) সকাল থেকে বন্ধ থাকে সাতক্ষীরা থেকে ঢাকাসহ দূরপাল্লার বাস। এতে চরম বিপাকে পড়েন দূরপাল্লার বাসযাত্রীরা। দুই জেলার মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়নের বিরোধকে কেন্দ্র করে সাতক্ষীরা থেকে সকল দূরপাল্লার গণপরিবহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ওইদিন সকাল ৬টা থেকে বিকেল তিনটা পর্যন্ত কোনো পরিবহন সাতক্ষীরা থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যায়নি।

সাতক্ষীরা দূরপাল্লার পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি তাহমিদ হোসেন চয়ন জাগো নিউজকে বলেন, যশোর ও সাতক্ষীরার বাস-মিনিবাস মালিক সমিতি ও শ্রমিকদের দ্বন্দ্বের কারণে আমাদের পরিবহন বন্ধ করে দেওয়া হয়। প্রশাসনের হস্তক্ষেপে আলোচনার মাধ্যেমে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা চলছে। আপাতত বিকেল থেকে বাস চলাচল করছে।


আরও খবর



লোডশেডিংয়ে শঙ্কার মুখে চা শিল্প

প্রকাশিত:Sunday ০৭ August ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ১৮জন দেখেছেন
Image

দেশব্যাপী বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সাশ্রয়ে লোডশেডিং চালু হওয়ার কারণে কঠিন পরিস্থিতিতে পড়েছে মৌলভীবাজারের চা শিল্প। সময় যতই এগিয়ে যাচ্ছে লোডশেডিং আরো বাড়ছে। লোডশেডিং এখন দিনে চার-পাঁচ ঘণ্টা স্থায়ী হচ্ছে। এতে উৎপাদন হ্রাসের শঙ্কায় রয়েছেন চা সংশ্লিষ্টরা।

বিশেষজ্ঞদের মতে চা পাতা উৎপাদন প্রক্রিয়া খুবই স্পর্শকাতর। এর প্রক্রিয়া কোথাও থেমে গেলে ওই পাতা নষ্ট হয়ে যায়। অথবা এর মান নষ্ট হয়ে যায়। এখন চায়ের ভরা মৌসুম। কিন্তু ঘন ঘন লোডশেডিংয়ের কারণে ব্যাহত হচ্ছে চায়ের উৎপাদন। শঙ্কা দেখা দিয়েছে চায়ের গুণগত মান রক্ষা নিয়েও।

এর প্রভাব পড়বে চা রপ্তানি বাজারেও। চায়ের মান খারাপ হলে রপ্তানিও করা যাবে না। আবার রপ্তানি করা গেলে সেটি ফেরত আসার আশঙ্কাও থাকবে। এতে বিশ্ববাজারে বাংলাদেশি চায়ের মান নিয়ে প্রশ্ন দেখা দেবে।

বাগান কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তারা জেনারেটর চালিয়েও চায়ের কারখানাগুলো আর সচল রাখতে পারবে না। জ্বালানি সংকট ও ব্যয় বৃদ্ধির কারণে এটা সম্ভব হবে না।

Tea-(5)

আর মৌলভীবাজারের পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি জানিয়েছে, এ ধরনের বিপর্যস্ত পরিস্থিতি থেকে সহসা উত্তরণের কোনো পথ নেই।

চায়ের রাজধানী খ্যাত দেশের সিংহভাগ চা উৎপাদন হয় এই জেলায়। সারা দেশের মোট ১৬৩টি চা বাগানের মধ্যে শুধু মৌলভীবাজার জেলাতেই রয়েছে ৯২টি। দেশের অভ্যন্তরীণ চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি করা হয় এখানকার চা। তবে হঠাৎ করে লোডশেডিংয়ের কারণে সংকটে পড়েছে এই চা শিল্প।

চা শিল্প সংশ্লিষ্টরা বলছেন, হঠাৎ করে লোডশেডিং তীব্র হওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে উৎপাদন প্রক্রিয়া। জুলাই থেকে অক্টোবর পর্যন্ত চা উৎপাদনের ভরা মৌসুম। এই সময় প্রতিটি বাগানের ফ্যাক্টরিতে ক্ষেত্রভেদে পাঁচ থেকে ৭০ হাজার কেজি চা পাতা আসে প্রক্রিয়াজাতের জন্য। কিন্তু বিদ্যুৎ বিভ্রাটের ফলে এই কাঁচা পাতা প্রক্রিয়াজাত করতে সমস্যায় পড়ছে বাগান কর্তৃপক্ষ।

দিনে একাধিকবার লোডশেডিংয়ের কবলে পড়ার কারণে ব্যবহার করতে হচ্ছে জেনারেটর, আর তাতে বেড়ে যাচ্ছে উৎপাদন খরচ। এর মধ্যে সরকার জ্বালানি তেলের বাড়ানোয় খরচ আরও বেড়ে গেছে।

Tea-(5)

রাজনগর মাথিউরা চা বাগানের ব্যবস্থাপক মো. সিরাজুদ্দৌলা জাগো নিউজকে বলেন, লোডশেডিংয়ের কারণে আমরা মারাত্মক সমস্যায় পড়েছি। আমাদের খরচ বেড়ে গেছে। বিদ্যুৎতের বিকল্প হিসেবে আমাদের জেনারেটর চালাতে হয়। আর জেনারেটর চালানোর জন্য প্রয়োজন হয় ডিজেল। সেই ডিজেলের দাম বেড়ে গেছে। আবার পেট্রোল পাম্প সপ্তাহে একদিন বন্ধ। যে কারণে জেনারেটার চালিয়েও উৎপাদন ঠিক রাখা যাচ্ছে না।

চানভাগ চা বাগানের ব্যবস্থাপক মুজিবুর রহমান বলেন, এখন আমাদের চা উৎপাদনের ভরা মৌসুম। এই মুহূর্তে যে বাগানে চা পাতা একেবারেই কম তাদেরও ৯/১০ হাজার কেজি পাতা আসে ফ্যাক্টরিতে। এসব পাতা প্রক্রিয়াজাত করতে ১০-১২ ঘণ্টা সময় লাগে। এ কারণেই আমাদের ২৪ ঘণ্টা কারখানা চালু রাখতে হয়। আমরা পাতা সংরক্ষণ করে রাখতে পারি না, দিনেরটা দিনেই প্রোসেস করতে হয়। তাই লোডশেডিংয়ের জন্য সামগ্রিকভাবে আমাদের বেশ ক্ষতি হচ্ছে।

জেলার রাজনগর ইটা চা বাগানের সহকারী ব্যবস্থাপক মো. আদিল জাগো নিউজকে বলেন, চা উৎপাদনের খুব ক্ষতি হচ্ছে, আমরা একটানা ১২ ঘণ্টা ফ্যাক্টরি চালাতে পারছি না। জেনারেটর ব্যবহার করছি। সময়ে অসময়ে ৪-৫ ঘণ্টা বিদ্যুৎ বন্ধ থাকছে। এক ঘণ্টা বিদ্যুৎ থাকলে পরের দুই ঘণ্টা বিদ্যুৎ থাকছে না। একটানা যদি ফ্যাক্টরি না চলে তাহলে চায়ের গুণগত মান নষ্ট হয়। চা উৎপাদনে ৪ থেকে ৫টি ধাপে প্রক্রিয়াকরণ করতে হয়। বিদ্যুৎ না থাকার কারণে যদি ১টা ধাপে সমস্যা দেখা দেয় তাহলে চায়ের উৎপাদন ব্যাহত হয়।

Tea-(5)

তিনি আরও বলেন, বাগান থেকে পাতা উত্তোলনের পর থেকেই বিদ্যুতের প্রয়োজন। এই কাঁচা পাতা ফ্যান চালিয়ে একটানা ৬ থেকে ৭ ঘণ্টা টার্ফে রাখতে হয়। তারপর মেশিনে তুলতে হয় তখন যদি একঘণ্টা চলার পর মেশিন বন্ধ হয়ে যায় তাহলে পাতা মেশিনে আটকে নষ্ট হয়ে যায়।

বাংলাদেশ টি অ্যাসোসিয়েশন সিলেট শাখার চেয়ারম্যান জিএম শিবলী জাগো নিউজকে বলেন, এখন চা উৎপাদনের ভরা মৌসুমে বিদ্যুৎ সমস্যার কারণে আমাদের সবগুলো বাগানেই চা উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে। চা উৎপাদন প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত সকল যন্ত্রপাতি আবার অনেক সময় জেনারেটরে চালানো সম্ভব হয় না। চা উৎপাদন প্রক্রিয়াটা খুবই স্পর্শকাতর। কোথাও কোনো ব্যত্যয় ঘটলে হয় পাতার মান নষ্ট হবে না হলে পাতায় ভাপ ধরে নষ্ট হবে। তাছাড়া সবকিছুর দাম বাড়লেও চায়ের দাম কিন্তু সেভাবে বাড়েনি। এখন এই সমস্যার জন্য গুণগতমান যদি কমে যায় তাহলে চায়ের দামও কমে যাবে।

Tea-(5)

এদিকে বাংলাদেশ চা বোর্ডের বিশেষজ্ঞদের মতে, এবছর দেশে মোট চায়ের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১০০ বিলিয়ন কেজি। কিন্তু লোডশেডিং ও জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির কারণে এই লক্ষ্যমাত্রা অর্জন নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

কথা হলে মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার প্রকৌশলী সাখাওয়াত হোসেন জাগো নিউজকে বলেন,সহসাই এই সমস্যা থেকে উত্তরণের পথ খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। বিশ্ববাজারে যদি পরিস্থিতি স্থিতিশীল হয় তাহলে এটার একটা সুরাহা হবে। তাছাড়া শীতকাল এলে বিদ্যুতের চাহিদাও কমে যাবে। বর্তমানে বিদ্যুতের চাহিদা পিক আওয়ারে ৯০ মেগাওয়াট আর সরবরাহ ৬০ মেগাওয়াট। অফপিক আওয়ারে চাহিদা ৫৫ মেগাওয়াট এবং সরবরাহ ৪০ মেগাওয়াট।

চা শিল্পের বিদ্যুৎ সমস্যার ব্যাপারে তিনি বলেন, একটি বা দুটি চা পাতা তৈরির কারখানা হলে আমরা তাদের আলাদা গুরুত্ব দিতে পারতাম। কিন্তু এখানে একাধিক কারখানা রয়েছে। তাই আমাদের পক্ষে কিছু করা সম্ভব হচ্ছে না।


আরও খবর



এফবিআইয়ের অভিযানের পর ট্রাম্পের বাড়ির বাইরে সমর্থকদের ভিড়

প্রকাশিত:Tuesday ০৯ August ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ১৫জন দেখেছেন
Image

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ফ্লোরিডার বাড়িতে অভিযান চালিয়েছে মার্কিন কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা (এফবিআই)। ট্রাম্প নিজেই তার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ট্রুথ সোশ্যালে এ খবর প্রকাশ করেন। এরপরই সেখানে তার সমর্থকরা মার-এ-লাগো নামের বিলাসবহুল বাড়িটির সামনে জড়ো হতে থাকেন। খবর ফক্স নিউজের।

জেডি কেনন নামের একজন বলেন, খবরটি শোনার সঙ্গে সঙ্গে টাম্পা থেকে আমি এখানে চলে এসেছি। বিচার বিভাগ কি করার চেষ্টা করছে আমরা সেটা সবাই জানি। তারা চাচ্ছে ট্রাম্প যাতে পরবর্তী নির্বাচনে প্রার্থী হতে না পারেন।

অন্য ট্রাম্প সমর্থক মাইক বাফুমো বিচার বিভাগ সম্পর্কে অনুরূপ সন্দেহ প্রকাশ করে বলেন, তারা ট্রাম্পকে ভয় দেখাতে চায়। সাবেক প্রসিডেন্টের নীতিকে তারা ভয় পায় বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

সমর্থকরা বলেন, এমন এক সময় অভিযান পরিচালনা করা হয় যখন ট্রাম্প সেখানে উপস্থিত ছিলেন না। এসময় তিনি নিউইয়র্কে ছিলেন।

jagonews24

অ্যাশলে নামের একজন সমর্থক বলেন, তারা প্রেসিডেন্টের সঙ্গে যা করছে তা ভুল। তারা অন্য কিছু তদন্ত করে না, তবে যখন তার বাড়িতে অন্ধকার তখনই এ অভিযান চালানো হলো।

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বাড়িতে আকস্মিক অভিযান চালিয়েছে মার্কিন কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা (এফবিআই)। গত সোমবার (৮ আগস্ট) ফ্লোরিডায় তার বিলাসবহুল মার-এ-লাগো বাড়িতে এই অভিযান চালানো হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন এ রিপাবলিকান নেতা। যুক্তরাষ্ট্রে সাবেক কোনো প্রেসিডেন্টের বাড়িতে এভাবে এফবিআই হানা দেওয়ার ঘটনা অভূতপূর্ব বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

খবরে বলা হয়েছে, এফবিআইয়ের এই অভিযানের সঙ্গে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে সরকারি গোপন নথি সরানোর অভিযোগে মার্কিন বিচার বিভাগের তদন্তের যোগসূত্র থাকতে পারে। সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে বর্তমানে যেসব তদন্ত চলছে, তার মধ্যে এটি অন্যতম।

ট্রাম্পের অভিযোগ, বিপুল সংখ্যক এফবিআই এজেন্ট তার বাড়িতে অভিযান চালাতে গিয়েছিলেন। এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি মার্কিন বিচার বিভাগ।


আরও খবর



জাতীয় জ্বালানি নিরাপত্তা দিবস আজ

প্রকাশিত:Tuesday ০৯ August ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ১২জন দেখেছেন
Image

আজ ৯ আগস্ট, জাতীয় জ্বালানি নিরাপত্তা দিবস।

২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতা গ্রহণের পর জ্বালানির সাশ্রয়ী ব্যবহারের লক্ষ্যে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে ২০১০ সালের ১২ আগস্ট এক পরিপত্রে ৯ আগস্টকে জাতীয় জ্বালানি নিরাপত্তা দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

১৯৭৫ সালের এই দিনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শেল অয়েল কোম্পানির কাছ থেকে ৪৫ লাখ পাউন্ড স্টার্লিংয়ে (তখনকার ১৭ কোটি ৮৬ লাখ টাকা) পাঁচটি গ্যাসক্ষেত্র রাষ্ট্রীয় মালিকানায় কিনে নেন।

ক্ষেত্রগুলো হচ্ছে- তিতাস, বাখরাবাদ, রশিদপুর, হবিগঞ্জ ও কৈলাসটিলা। এই গ্যাসক্ষেত্রগুলো দেশের জ্বালানি নিরাপত্তার বড় নির্ভরতা হয়ে ওঠে। এখন দেশে মোট গ্যাস উৎপাদনের মধ্যে আন্তর্জাতিক তেল গ্যাস কোম্পানি (আইওসি) ৫৯ শতাংশ এবং দেশীয় কোম্পানিগুলো ৪১ শতাংশ গ্যাস উৎপাদন করছে।

দিবসটি উপলক্ষে আজ একটি ওয়েবিনারের আয়োজন করেছে জ্বালানি বিভাগ।


আরও খবর



চিরিরবন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ফের চুরি

প্রকাশিত:Thursday ২৮ July ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ১৮জন দেখেছেন
Image

দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ফের চুরির ঘটনা ঘটেছে। বুধবার (২৭ জুলাই) দিবাগত রাতে প্রশাসনিক ভবনের চারটি রুমের তালা ভেঙে কাগজপত্র তছনছ করে। তবে কী চুরি হয়েছে সেটি নিশ্চিত করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ।

চোরেরা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার রুম, কেশিয়ারের রুম, পরিসংখ্যান রুম ও অফিস সহকারীর রুমের তালা ভেঙে কাগজপত্র তছনছ করে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শনে যান দিনাজপুর জেলা সিভিল সার্জন ডা. এ এইচ এম বোরহান-উল-ইসলাম সিদ্দিকী ও চিরিরবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বজলুর রশিদ।

চিরিরবন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. তানভীর হাসনাত জানান, রাতে অফিস সহকারীর রুমের পিছনে জানালার গ্রিল ভেঙে চোর প্রবেশ করে। পরে একে একে পরিসংখ্যান রুম, ক্যাশিয়ার রুম ও উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার রুমের তালা ভেঙে ভিতরে প্রবেশ করে। তবে চোরেরা কী নিয়ে গেছে এখন পর্যন্ত নিরূপণ করতে পারি নাই।

তিনি আরও জানান, ২৪ দিন আগে হাসপাতালে টাকা চুরির ঘটনা ঘটেছিল। সে ঘটনায় একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। দায়িত্বপ্রাপ্ত তিন কর্মকর্তাকে কারণ দর্শানো নোটিশ দেওয়া হয়। তারা নোটিশের উত্তর দিয়েছেন। এখন পর্যন্ত তদন্ত কমিটির রিপোর্ট হাতে পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে সিভিল সার্জন ডা. এ এইচ এম বোরহান-উল-ইসলাম সিদ্দিকী জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। তবে কী চুরি হয়েছে তা এ মুহূর্তে বলা সম্ভব নয়।

এর আগে ৩ জুলাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রশাসনিক এলাকায় কেশিয়ারের রুমের জানালার গ্রিল ভেঙে স্টিলের আলমারি ও টেবিলের ড্রয়ারে রক্ষিত ১৪ লাখ টাকা চুরি হয়। সে সময় সিভিল সার্জন ১৪ লাখ টাকা চুরির বিষয়টি নিশ্চিত করলেও কমপ্লেক্সের করা মামলায় নয় লাখ ৭০ হাজার টাকা চুরি হয় বলে উল্লেখ করা হয়।


আরও খবর