Logo
আজঃ Wednesday ১০ August ২০২২
শিরোনাম
নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ২৪৩৫ লিটার চোরাই জ্বালানি তেলসহ আটক-২ নাসিরনগরে বঙ্গ মাতার জন্ম বার্ষিকি পালিত রূপগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কাউন্সিলর সামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু ৬৫ নং ওয়ার্ডে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসুচীতে অংশগ্রহন করেন চান্দিনা থানায় আট কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নাসিরনগরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ নাসিরনগর বাজারে থানা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ মার্কেটে দুই কাপড় দোকানে দুর্ধষ চুরি। ই প্রেস ক্লাব চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটির মতবিনিময় সম্পন্ন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬ কেজি গাঁজাসহ হাইওয়ে পুলিশের হাতে আটক এক। সোনারগাঁয়ে পুলিশ সোর্স নাম করে ডাকাত শাহ আলমের কান্ড

পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানায় প্রথম গ্রেফতার আবুবকর

প্রকাশিত:Friday ২৪ June ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ৫৭জন দেখেছেন
Image

পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানায় প্রথম এক আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার (২২ জুন) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার মিনাকান্দি চৌরাস্তা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার আসামির নাম আবুবকর সিদ্দিক (৩৭)। তিনি সাতক্ষীরার শ্যামনগর থানার চণ্ডীপুর এলাকার কেছের আলীর ছেলে। হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত কয়েদি হয়ে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২-এ ছিলেন।

থানা সূত্র জানায়, একটি হত্যা মামলার আসামি হন আবুবকর। সেই মামলায় তাকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছিল। পরে আপিল করলে সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন দেন আদালত। ২০১২ সাল থেকে আবুবকর গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২-এ ছিলেন।

২০২০ সালের ৬ আগস্ট কারাগার থেকে মই বেয়ে পালিয়ে যান তিনি। ওই ঘটনায় কারাগারের দুই কর্মকর্তা ও চার কারারক্ষীর বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয় কর্তৃপক্ষ। পালানোর ঘটনায় তখন আবুবকরের বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা করা হয়।

পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান জানান, পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানার মিনাকান্দি চৌরাস্তা এলাকায় বুধবার ঘোরাফেরা করছিলেন আবুবকর। ওই এলাকায় পদ্মা সেতু উদ্বোধন অনুষ্ঠানের নিরাপত্তা রক্ষায় পুলিশ দায়িত্বপালন করছিল। বকরের চলাফেরা সন্দেহজনক হলে তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে কাশিমপুর কারাগার থেকে পালিয়ে যাওয়ার কথা স্বীকার করেন আবুবকর। তখন তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

ওসি আরও জানান, আবুবকর পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানার প্রথম গ্রেফতার আসামি। তাকে শরীয়তপুরের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। আদালতের আদেশ অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তবে আবুবকর ওই এলাকায় কেন আসেন তা এখনো জানা যায়নি বলে জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।


আরও খবর



শ্রীলঙ্কার পাশে থাকার বার্তা ভারতের

প্রকাশিত:Thursday ২১ July ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ০৯ August ২০২২ | ৪০জন দেখেছেন
Image

শ্রীলঙ্কার পাশে থাকার বার্তা দিয়েছে ভারত। কলম্বোয় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার গোপাল বাগলে সহযোগিতার পাশাপাশি শ্রীলঙ্কার সংকটের সমাধানের ব্যাখ্যা দিয়েছেন। তিনি বলেন, শ্রীলঙ্কা ও ভারতের সম্পর্ক আত্মিক। তারা যমজ সন্তানের মতো। ভারতের প্রতিবেশী নীতির কেন্দ্রে রয়েছে শ্রীলঙ্কা। আমরা বরাবরই এখানকার মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি বলেও জানানা তিনি।

শ্রীলঙ্কার নতুন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন রনিল বিক্রমাসিংহে। সেই আবহেই বাগলের বার্তা, যে সরকারই আসুক না কেন, ভারত একই ভাবে কলম্বোর পাশে থাকছে। তিনি জোর দিয়ে বলেছেন, শ্রীলঙ্কায় সাংবিধানিক ও গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকেই সমর্থন করবে ভারত।

বাগলে বলেন, শ্রীলঙ্কায় অত্যন্ত দুঃসময় চলছে। অর্থনৈতিক সঙ্কট ছাড়াও গোটা বিষয়টির রাজনৈতিক মাত্রা রয়েছে। ভারতের হাইকমিশনার হিসাবে আমি ও আমার সতীর্থরা দিল্লির নির্দেশ অনুযায়ী শ্রীলঙ্কার মানুষের পাশে থাকার চেষ্টা করে চলেছি, যাতে তারা ঘুরে দাঁড়াতে পারেন। অর্থনৈতিক পরিস্থিতির পুনরুদ্ধার, সুস্থিতি গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে জোরালো ভাবে সমর্থন করছি।

ভারতের এই হাইকমিশনার বলেন, ভারত দু’রকমভাবে সহায়তা চালিয়ে যাচ্ছে। প্রথমটি হল অত্যাবশ্যক পণ্যের সরবরাহ ও দুই, সে দেশের বিদেশি মুদ্রার ভান্ডারকে মজবুত করা। এখনও পর্যন্ত দেড়শো কোটি ডলারের অত্যাবশ্যক পণ্য পাঠানো হয়েছে। তার মধ্যে শুধু জ্বালানির জন্যই দেওয়া হয়েছে ৫০ কোটি ডলার মূল্যের। দেওয়া হয়েছে কৃষি সারও।

ভারতীয় হাইকমিশনার আরও জানিয়েছেন, অর্থনৈতিক সঙ্কট থেকে বেরিয়ে আসার জন্য আইএমএফ-এর সঙ্গে আলোচনা চালাচ্ছে শ্রীলঙ্কা। তাদের স্বল্পমেয়াদি সাহায্য দেওয়ার পাশাপাশি, দীর্ঘমেয়াদি লাভের জন্য দক্ষতা নির্মাণের (ক্যাপাসিটি বিল্ডিং) কথাও ভাবছে ভারত।


আরও খবর



করোনা আক্রান্ত প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী

প্রকাশিত:Sunday ২৪ July ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ২৬জন দেখেছেন
Image

তৃতীয়বারের মতো করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ।

রোববার (২৪ জুলাই) মন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব (এপিএস) মোহাম্মদ রাশেদুজ্জামান গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, শনিবার রাতে প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রীর কোভিড-১৯ পরীক্ষার ফল পজিটিভ আসে। বর্তমানে তিনি বাসায় অবস্থান করছেন এবং বাসা থেকেই চিকিৎসা নিচ্ছেন।

মন্ত্রী দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন বলেও জানান তার একান্ত সচিব রাশেদুজ্জামান।

২০২০ সালের নভেম্বরে প্রথমবার সস্ত্রীক করোনায় আক্রান্ত হন প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী। গত বছর দ্বিতীয়বার করোনায় আক্রান্ত হন তিনি।


আরও খবর



পদবি-বেতন গ্রেড পরিবর্তনের দাবিতে মানববন্ধন

প্রকাশিত:Saturday ২৩ July ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ৪৬জন দেখেছেন
Image

সরকার ১৯৯৫ সালে প্রজ্ঞাপন জারি করে শুধু সচিবালয়ের বর্ণিত পদগুলো আপগ্রেড করে প্রশাসনিক কর্মকর্তা পদবি পরিবর্তনসহ ১০নং গ্রেডে উন্নীত করে। ফলে সরকারি দপ্তরগুলোর মধ্যে পদবি ও বেতন বৈষম্যের সৃষ্টি হয়, যা এখনো বিরাজমান। তাই বিদ্যমান পদবি ও বেতন গ্রেড পরিবর্তনের দাবি জানিয়েছেন সরকারি কর্মচারীরা।

শনিবার (২৩ জুলাই) জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বাংলাদেশ প্রশাসনিক কর্মকর্তা বাস্তবায়ন ঐক্য পরিষদ আয়োজিত এক মানববন্ধনে তারা এ দাবি করেন।

মানববন্ধনে সংগঠনের মহাসচিব আবু নাসির খান বলেন, বাংলাদেশ সচিবালয়ের ভিতরে ও বাইরে সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের প্রধান সহকারী, উচ্চমান সহকারী, সহকারী বিভিন্ন পদের পদবি ও বেতন স্কেল এক ও অভিন্ন হওয়া সত্ত্বেও তৎকালীন সরকার ১৯৯৫ সালে প্রজ্ঞাপন জারি করে শুধু সচিবালয়ের বর্ণিত পদগুলো আপগ্রেড করে। এর ফলে সরকারি দপ্তরগুলোর মধ্যে পদবি ও বেতন বৈষম্যের সৃষ্টি হয়েছে।

jagonews24

তিনি বলেন, এরই ধারাবাহিকতায় পাবলিক সার্ভিস কমিশন, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন, বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট, গণভবন ও বঙ্গভবনে বর্ণিত পদগুলোও আপগ্রেড করা হয়েছে। কিন্তু অন্যান্য দপ্তরের বর্ণিত পদগুলো অদ্যাবধি পূর্বের ন্যায় রয়ে গেছে। অনতিবিলম্বে আমরা এই পদবি বৈষম্যের অবসান চাই।

‘এরই মধ্যে সরকার উচ্চমান সহকারী, প্রধান সহকারীর সমস্কেল ও নিম্ন স্কেলের কর্মচারীদের মধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক, ব্লক সুপার ভাইজার, ডিপ্লোমা প্রকৌশলী, পুলিশের এস আই, নার্স, অডিটর ও খাদ্য পরিদর্শকসহ পদসমূহ ২য় শ্রেণির পদমর্যাদায় উন্নীত হয়েছে।’

‘কিন্তু অন্যান্য দপ্তর, অধিদপ্তর, পরিদপ্তর, স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা ও কর্পোরেশনের সমপদসমূহ উন্নীত না করায় দীর্ঘ ২৭ বছর যাবত তারা বঞ্চিত রয়েছে। অপেক্ষাকৃত কম শিক্ষাগত যোগ্যতাসম্পন্ন ব্যক্তিরা উচ্চপদে আসীন হওয়ায় পরবর্তী প্রজন্ম উচ্চশিক্ষা গ্রহণে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন।’

এ সময় তিনি দপ্তর ও অধিদপ্তরের পদবি ও বেতনবৈষম্য নিরসনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

মানববন্ধনে সংগঠনের সভাপতি কে এম বদিউজ্জামানসহ সরকারি বিভিন্ন দপ্তর, অধিদপ্তর, পরিদপ্তর, বিভাগ, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের প্রধান সহকারী, উচ্চমান সহকারী, সহকারী, সমপদ ও উক্ত পদের ফিডার পদের কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



বিদ্যুৎ বিভাগ ও ইউএসএইডের মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর

প্রকাশিত:Sunday ৩১ July ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ৫১জন দেখেছেন
Image

বিদ্যুৎ বিভাগ ও ইউএসএইডের মধ্যে বাংলাদেশ অ্যাডভাঞ্চিং ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড গ্রোথ থ্রট এনার্জি (বিএডিজিই) শীর্ষক প্রকল্প বাস্তবায়নে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে।

রোববার (৩১ জুলাই) রাজধানীর প্যানপ্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে এ চুক্তি স্বাক্ষর হয়।

সমঝোতা স্মারক চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন বিদ্যুৎ বিভাগের যুগ্মসচিব নিরোধ চন্দ্র মন্ডল ও ইউএসএইডের ভারপ্রাপ্ত ইকোনমিক গ্রোথ অফিস পরিচালক রেবেকা রবিনসন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিদ্যুৎ সচিব মো. হাবিবুর রহমান বলেন, বাংলাদেশের বিদ্যুৎ খাতকে পরিবেশবান্ধব করতে কার্বন নিঃসরণ আরও কমানোর জন্য সরকার আন্তরিকভাবে কাজ করছে। এই প্রকল্পের আওতায় আগামী পাঁচ বছরে ১৭ দশমিক ২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যয় হবে। যা বাংলাদেশের জ্বালানি নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সহযোগিতা করবে। বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে শিক্ষাবিদ ও বেসরকারি খাতের সহযোগিতার বৃদ্ধিতেও এই প্রকল্প কাজ করবে।

তিনি আরও বলেন, প্রযুক্তিগত সহায়তা ও সক্ষমতা বৃদ্ধি এই প্রকল্পের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য। বিএডিজিই প্রকল্পটি স্বচ্ছ ও দক্ষ জ্বালানি বাজার সৃষ্টির মাধ্যমে সাশ্রয়ী মূল্যের, নির্ভরযোগ্য ও টেকসই জ্বালানি ব্যবস্থায় সবার অংশগ্রহণ নিশ্চিত করে বাংলাদেশের জ্বালানি নিরাপত্তা উন্নতি ও সহনশীল করতে কাজ করবে। বিদ্যুৎ খাতের উন্নয়ন, ডি-কার্বনাইজড এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক রূপান্তরকে সহযোগিতা ও ত্বরান্বিত করবে।

পরিষ্কার জ্বালানির জন্য উন্নত পরিবেশ, উচ্চমানের নির্ভরযোগ্য বিদ্যুৎ ও আধুনিক জ্বালানি পরিসেবার প্রবেশাধিকার বৃদ্ধি, আধুনিক জ্বালানি প্রযুক্তির জন্য অর্থায়ন বৃদ্ধি, বিদ্যুৎ খাতের মানব সম্পদ ও প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন, কার্যকর ও বাজার চালিত ক্রয় ব্যবস্থার বাস্তবায়ন, বর্ধিত ক্রস বর্ডার এনার্জি ট্রেডের জন্য নীতি কাঠামোর উন্নতি, অভ্যন্তরীণ মডেলিং ক্ষমতা শক্তিশালীকরণ, বাংলাদেশি জ্বালানি পেশাদারিদের জন্য যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক প্রশিক্ষণ ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা, উদ্ভাবন ও সিস্টেমবান্ধব নিলাম নকশা উন্নয়ন, বৈদ্যুতিক যানবাহন ব্যবস্থা স্থাপনকে ত্বরান্বিত করা, চলমান নিলাম সিমুলেশন, ক্রস বর্ডার এনার্জি ট্রেডের প্রতিবন্ধকতা চিহ্নিত করে আঞ্চলিক সংযোগ বাড়াতে এই সমঝোতা চুক্তি সহযোগিতা করবে।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে অতিরিক্ত সচিব মু. মোহসিন চৌধুরী, পিডিবির চেয়ারম্যান মো. মাহবুবুর রহমান, পাওয়ার সেলের ডিজি মোহাম্মদ হোসাইন ও ইউএসএইড-বিএডিজিই প্রকল্প প্রধান রাফায়েল যাব্বা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



দাপুটে জয়ে ঘুরে দাঁড়ালো সোহানের বাংলাদেশ

প্রকাশিত:Sunday ৩১ July ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ০৭ August ২০২২ | ৫৪জন দেখেছেন
Image

বোলাররাই অর্ধেক কাজ করে রেখেছিলেন। বাকি দায়িত্বটা সহজেই সারলেন ব্যাটাররা। দাপুটে জয়ে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে সমতায় ফিরলো নুরুল হাসান সোহানের নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ দল। হারারেতে আজ দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে জিম্বাবুয়েকে ১৫ বল আর ৭ উইকেট হাতে রেখে হেসেখেলেই হারিয়েছে টাইগাররা।

বাংলাদেশের জয়ের লক্ষ্য ছিল মোটে ১৩৬ রানের। ব্যাটারদের ওপর তাই এবার তেমন চাপ ছিল না। তারপরও সুবিধা করতে পারলেন না মুনিম শাহরিয়ার। আরও একবার ব্যর্থ হয়ে ফিরলেন।

লিটন দাস ওপেনিংয়ে ঝড়ো সূচনা করেন। ফলে ২৭ বলে ৩৭ রানের জুটি এসেছে। কিন্তু মুনিম ৭ বলে ৭ রান করেই বোল্ড হয়েছেন রিচার্ড এনগারাভার বলে। আগের ম্যাচে মুনিম করেছিলেন ২ রান।

সঙ্গী হারালেও লিটন খেলেছেন নিজের মতো। বাংলাদেশ দলে অন্যতম ধারাবাহিকতার প্রতীক হয়ে ওঠা এই ব্যাটার ক্যারিয়ারের ষষ্ঠ টি-টোয়েন্টি ফিফটি তুলে নেন মাত্র ৩০ বলে। এগিয়ে যাচ্ছিলেন বেশ আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে।

কিন্তু শন উইলিয়ামসকে সুইপ করতে গিয়ে লিটন ভুল করে বসলেন, পড়লেন এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে। ৩৩ বলে ৬ চার আর ২ ছক্কায় গড়া লিটনের ইনিংসটি ছিল ৫৬ রানের।

এর তিন বল পর আরও একটি উইকেট হারিয়ে বসে বাংলাদেশ। এবার এনামুল হক বিজয় (১৫ বলে ১৬) হন সিকান্দার রাজার শিকার। ক্রস খেলতে গিয়ে টপ এজ হয়ে ডানহাতি এই ব্যাটার ধরা পড়েন ব্যাকওয়ার্ড স্কয়ারে। ৮১ রানে ৩ উইকেট হারায় বাংলাদেশ।

তবে এরপর আর দলকে কোনো বিপদে পড়তে দেননি নাজমুল হোসেন শান্ত আর আফিফ হোসেন। চতুর্থ উইকেটে ৪৮ বলে ৫৫ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়েন তারা। আফিফ ২৮ বলে ৩০ আর ২১ বলে ১৯ রানে অপরাজিত থাকেন।

এর আগে মোসাদ্দেক হোসেনের বিধ্বংসী বোলিংয়ের পরও জিম্বাবুয়েকে অলআউট করতে পারেনি বাংলাদেশ। সিকান্দার রাজার ৫৩ বলে ৬২ রানের ইনিংসে ভর করে ৮ উইকেটে ১৩৫ রানের সংগ্রহ দাঁড় করায় জিম্বাবুয়ে।

মোসাদ্দেক হোসেন টানা ৪ ওভার বোলিং করে ফেলেন। ২০ রান দিয়ে উইকেট নেন ৫টি। জিম্বাবুয়ের হয়ে একাই লড়াই করলেন সিকান্দার রাজা। ৫৩ বলে ৬২ রান করেন তিনি। আগের ম্যাচে ২৬ বলে করেছিলেন অপরাজিত ৬৫ রান।

প্রথম ম্যাচে ১৭ রানে হার। জিম্বাবুয়ের কাছে এই পরাজয়ের পর অনেক সমালোচনা শুনতে হয়েছে অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহান এবং টিম ম্যানেজমেন্টকে। সবচেয়ে বেশি আলোচনা হয়েছে, একাদশ বাছাই করা নিয়ে।

টানা দ্বিতীয় দিনে দ্বিতীয় ম্যাচ। এবার দুটি পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নেমেছে নুরুল হাসান সোহানের বাংলাদেশ। যথারীতি ৩ পেসার। তাসকিন আহমেদকে বাদ দিয়ে নামানো হয় হাসান মাহমুদকে। নাসুম আহমেদকে বাদ দিয়ে নেয়া হয়েছে স্পিনার শেখ মেহেদি হাসানকে।

দ্বিতীয় ম্যাচেও টস হার এবং প্রথমে ফিল্ডিং। তবে অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহান এবার আর পেসার দিয়ে আক্রমণ শুরু করেননি না। নিয়ে আসলেন স্পিনার। তাও নিয়মিত স্পিনার শেখ মেহেদি নয়, মোসাদ্দেকের হাতে তুলে দিলেন বল।

বল হাতে নিয়েই জিম্বাবুইয়ানদের ওপর চড়াও হলেন মোসাদ্দেক। তার করা প্রথম ওভারেই দুই ব্যাটারকে হারায় জিম্বাবুয়ে। ইনিংসের প্রথম বলেই ওপেনার রেগিস চাকাভাকে নুরুল হাসান সোহানের হাতে ক্যাচ দিতে বাধ্য করেন মোসাদ্দেক।

ওভারের শেষ বলে কভার পয়েন্টে মেহেদির হাতে ক্যাচ দিতে বাধ্য করেন ওয়েসলি মাধভিরেকে। প্রথম ম্যাচে এই মাধভিরেই ৬৭ রান করে বাংলাদেশের পরাজয়ে বড় ভূমিকা রাখেন। ৫ রানের মাথায় পড়ে দ্বিতীয় উইকেট।

এরপরও মোসাদ্দেকের ঘূর্ণিজাল থেকে মুক্তি মেলেনি জিম্বাবুয়ের। দ্বিতীয় ওভারে বল করতে এসে আবারও আঘাত হানেন তিনি। ইনিংসের তৃতীয় ওভারের তৃতীয় বলে মোসাদ্দেকের বলে উইকেট হারান জিম্বাবুয়ের দ্বিতীয় ওপেনার এবং অধিনায়ক ক্রেইগ আরভিন। রিভার্স সুইপ খেলতে গিয়ে প্রথম স্লিপে লিটনের হাতে ক্যাচ দেন আরভিন। ৬ রানে বিদায় নেন তিনজন ব্যাটার।

ইনিংসের পঞ্চম ওভারে বল করতে এসে শন উইলিয়ামসকে রিটার্ন ক্যাচে সাজঘরে ফিরিয়ে দেন মোসাদ্দেক। ৭ বলে ৮ রান করে আউট হন উইলিয়ামস।

এরপর সপ্তম ওভারে বল করতে এসে আবারও উইকেট নেন টাইগার অফস্পিনার। এবার প্যাভিলিয়নের পথ ধরান মিল্টন সুম্বাকে। ওভারের ৫ম বলে সুইপ শট খেলতে গেলেন সুম্বা। কিন্তু ব্যাকওয়ার্ড স্কয়ার লেগে দুর্দান্ত ক্যাচ ধরলেন হাসান মাহমুদ। সে সঙ্গে ক্যারিয়ারে প্রথমবার ৫ উইকেট শিকারি হয়ে গেছেন মোসাদ্দেক।

প্রথম ম্যাচেও বিধ্বংসী ব্যাটিং করেছিলেন সিকান্দার রাজা। বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা তার বেশ পরিচিত। বিপিএল-ডিপিএল খেলে বাংলাদেশের ক্রিকেটার, বিশেষ করে বোলারদের প্রায় মুখস্ত করে ফেলেছেন তিনি। যে কারণে প্রথম ম্যাচের মত দ্বিতীয় ম্যাচেও ব্যাট হাতে লড়াই করেছেন তিনি।

প্রথম ম্যাচে ২৬ বলে করেছিলেন অপরাজিত ৬৫ রান। দ্বিতীয় ম্যাচে মোসাদ্দেক হোসেন যখন একদিকে ধ্বংসলীলা চালিয়েছেন, অন্যদিকে ব্যাট হাতে ঠায় দাঁড়িয়ে ছিলেন সিকান্দার রাজা। শুধু দাঁড়িয়েছিলেন বললে ভুল বলা হবে। একা হাতে লড়াই চালিয়েছেন তিনি।


আরও খবর