Logo
আজঃ Wednesday ১০ August ২০২২
শিরোনাম
নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ২৪৩৫ লিটার চোরাই জ্বালানি তেলসহ আটক-২ নাসিরনগরে বঙ্গ মাতার জন্ম বার্ষিকি পালিত রূপগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কাউন্সিলর সামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু ৬৫ নং ওয়ার্ডে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসুচীতে অংশগ্রহন করেন চান্দিনা থানায় আট কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নাসিরনগরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ নাসিরনগর বাজারে থানা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ মার্কেটে দুই কাপড় দোকানে দুর্ধষ চুরি। ই প্রেস ক্লাব চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটির মতবিনিময় সম্পন্ন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬ কেজি গাঁজাসহ হাইওয়ে পুলিশের হাতে আটক এক। সোনারগাঁয়ে পুলিশ সোর্স নাম করে ডাকাত শাহ আলমের কান্ড

পাকস্থলিতে করে ইয়াবা পাচার, নারীসহ দুই মাদক কারবারি আটক

প্রকাশিত:Tuesday ২৮ June ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ৭১জন দেখেছেন
Image

পাকস্থলিতে করে ইয়াবা পাচারকালে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকা থেকে ইয়াবাসহ দুই মাদক কারবারিকে আটক করেছে র্যাব।

গ্রেফতাররা হলেন- আব্দুল মালেক (৩০) ও সুমি আক্তার (২৫)। এসময় তাদের কাছ থেকে দুটি মোবাইলফোন ও মাদক বিক্রির নগদ ২ হাজার ৪০০ টাকা জব্দ করা হয়।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) সকালে র্যাব-১০ এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) এনায়েত কবির সোয়েব জাগো নিউজকে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, র্যাব-১০ এর একটি দল যাত্রাবাড়ী থানাধীন ধলপুর এলাকায় একটি অভিযান পরিচালনা করে অভিনব কায়দায় পেটের ভেতরে করে ইয়াবা পাচারকালে এক হাজার ৮০০ পিস ইয়াবাসহ মালেক ও সুমি আক্তারকে আটক করে।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটকরা জানায়, তারা পেশাদার মাদক কারবারি। বেশ কিছুদিন ধরে দেশের বিভিন্ন সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে ইয়াবাসহ অন্যান্য মাদকদ্রব্য পেটের ভেতর অভিনব কায়দায় লুকিয়ে সরবরাহ করে আসছিল।

গ্রেফতারদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মাদক আইনে মামলা কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন বলে জানান র্যাবের এ কর্মকর্তা।


আরও খবর



গণঅধিকার পরিষদের সঙ্গে আলোচনায় সন্তুষ্ট ফখরুল

প্রকাশিত:Wednesday ০৩ August ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ১৫জন দেখেছেন
Image

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সরকারকে সরাতে বিএনপির সঙ্গে যুগপৎ আন্দোলন করবে গণঅধিকার পরিষদ। এ বিষয়ে গণঅধিকার পরিষদ ঐক্যমত্য হয়েছে।

তিনি বলেন, আমরা গণঅধিকার পরিষদের সঙ্গে আলোচনায় সন্তুষ্ট হয়েছি। গণঅধিকার পরিষদের নেতারা আমাদের সঙ্গে প্রায় সববিষয়েই একমত পোষণ করেছেন। বিশেষ করে এ সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচন নয়। আমরা এ বিষয় একমত হয়েছি যে, এ সরকারকে আর ক্ষমতায় থাকতে দেওয়া যায় না।

বুধবার (৩ আগস্ট) দুপুরে গণঅধিকার পরিষদে দলটির নেতাদের সঙ্গে সংলাপ শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন বিএনপির মহাসচিব।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আওয়ামী লীগের অধীনে কোনো নির্বাচনে অংশ নেওয়া হবে না। সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের উদ্যোগ নেওয়া হবে। জয়ী হলে রাষ্ট্র মেরামতের জন্য সবাইকে নিয়ে জাতীয় সরকার গঠন করা হবে।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, এ সরকার অত্যন্ত সচেতনতার সঙ্গে আমাদের যে অর্জনগুলো ছিল— এর মধ্যে গণতন্ত্র ও বাকস্বাধীনতা ধ্বংস করেছে। এ কারণে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে একটা আন্দোলনের একমত হয়েছি।

তিনি বলেন, আমাদের কথা বলার স্বাধীনতা, বাক স্বাধীনতা, সংবাদ ও সাংবাদিকতা ও ন্যায়-বিচারের স্বাধীনতা ধ্বংস করেছে। এ কারণে জনগণকে সঙ্গে নিয়েই সংসদ ভেঙে দিয়ে একটা নিরপেক্ষ সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করে একটা শক্তিশালী নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করা হবে। যেখানে সবার মতামতের ভিত্তিতে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠান করা যোগ্য পার্লামেন্ট গঠন করা ও সরকার গঠন করা হবে। সরকার গঠনের পরেই সবাইকে নিয়ে একটা জাতীয় সরকার গঠন করবো। আমরা মনেকরি, এ বিষয়ে একটা পরিবর্তন হওয়া দরকার।

এসময় বিএনপি মহাসচিবকে ধন্যবাদ জানিয়ে গণঅধিকার পরিষদের সদস্য সচিব নুরুল হক নুর বলেন, বিএনপির সঙ্গে আমাদের খুব একটা পার্থক্য নেই। আমরা বিভিন্ন বিষয় আলোচনা করেছি। প্রায় ১০টা বিষয় ওঠে এসেছে। ভোটাধিকার ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় জোর জবরদস্তি করে ক্ষমতায় থাকা বর্তমান ফ্যাসিবাদ সরকারকে যুগপৎ আন্দোলনে ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য করা হবে। এ বিষয়ে গণঅধিকার পরিষদ অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে একমত।

আপনারা জানেন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে লাখ লাখ মামলা দেওয়া হয়েছে। ঐকমত্যের ভিত্তিতে বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে যারা রাজপথে আন্দোলন সংগ্রাম করছে তাদের ঐক্যমতের ভিত্তিতে সুষ্ঠু নির্বাচন পরিচালনার জন্য একটা নিরপেক্ষ ব্যক্তিদের সমন্বয়ে অন্তবর্তীকালিন সরকার।

গণঅধিকার পরিষদের সঙ্গে আলোচনায় সন্তুষ্ট ফখরুল

বিএনপির সঙ্গে গণঅধিকার পরিষদের যে ১০টি বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। তা হলো:
১. ভোটাধিকার ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় জোর-জবরদস্তি করে ক্ষমতায় থাকা বর্তমান ফ্যাসিবাদী সরকার হঠাতে যুগপৎ বা ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন সংগ্রাম।

২. অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে বর্তমান সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করে, রাজনৈতিক দলগুলোর ঐক্যমতের ভিত্তিতে একটি অর্ন্তবর্তীকালীন সরকার ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা। নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য ব্যক্তিদের সমন্বয়ে নির্বাচন কমিশন পুর্নগঠন, ইভিএম বাতিল করে স্বচ্ছ ব্যালট বাক্সে ভোটগ্রহণ।

৩. রাষ্ট্রের গণতান্ত্রিক রূপান্তর ও কার্যকর সংসদ প্রতিষ্ঠায় প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতির ক্ষমতার ভারসাম্য আনায়নসহ সংবিধানের প্রয়োজনীয় সংস্কার।

৪. বিচার বিভাগকে নির্বাহী বিভাগ থেকে সম্পূর্ণরূপে আলাদা করে প্রধান বিচারপতিসহ বিচারক নিয়োগে একটি স্বাধীন কমিশন গঠন করা।

৫. বাক, ব্যক্তি ও সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা, সভা-সমাবেশ করার অধিকারসহ নাগরিকদের সংবিধান স্বীকৃত সব অধিকার প্রতিষ্ঠা করা।

৬. খালেদা জিয়াসহ সব রাজবন্দি ও ধর্মীয় নেতাদের নিঃশর্ত মুক্তি ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার। ভিন্নমতের ওপর রাষ্ট্রীয় দমন, পীড়ন, গুম, খুন, নির্যাতন-নিপীড়ন, হামলা মামলা বন্ধে পদক্ষেপ।

৭. ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, বিশেষ ক্ষমতা আইনসহ সব গণবিরোধী ও নিপীড়নমূলক আইন বাতিল করা।

৮. বর্তমান সরকারের গত ১৩ বছরের দুর্নীতি ও অর্থপাচারের শ্বেতপত্র প্রকাশ করে দুর্নীতি ও অর্থপাচার রোধে জিরো টলারেন্স নীতি বাস্তবায়ন করা।

৯. মেগা প্রকল্প ও কুইক রেন্টালের নামে হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাটের সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করে বিচার আওতায় আনা এবং দীর্ঘমেয়াদি জ্বালানি নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে আইন করে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম এক্সপ্লোরেশন অ্যান্ড প্রোডাকশন কোম্পানি লিমিটেডকে (বাপেক্স) শক্তিশালী স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তোলা।

১০/রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন,বিদেশি রাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের চুক্তি, প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা, দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বসহ জাতীয় স্বার্থে জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠা করা।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুলসহ তিন সদস্যের প্রতিনিধিদলের সংলাপে অংশ গ্রহণ নেন। অন্য দুজন হলেন- স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী এবং মিডিয়া সেলের আহ্বায়ক জহির উদ্দিন স্বপন।


আরও খবর



প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে বিএসইসির ৫ কোটি টাকা অনুদান

প্রকাশিত:Wednesday ২০ July ২০22 | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ৪০জন দেখেছেন
Image

দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বন্যাদুর্গতদের সহায়তায় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে ৫ কোটি টাকা অনুদান দিয়েছে পুঁজিবাজারের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) ।

বুধবার (২০ জুলাই) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর হাতে অনুদানের চেক তুলে দেন বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বিএসইসি কমিশনার ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ ও কমিশনার আব্দুল হালিম। বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের সামাজিক দায়বদ্ধতা (সিএসআর) তহবিল থেকে এ অনুদান দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে বিএসইসি থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে এসময় বিএসইসির শীর্ষ পর্যায়ের পুঁজিবাজার নিয়ে ইতিবাচক আলোচনা হয়েছে। বিএসইসির চেয়ারম্যান প্রধানমন্ত্রীকে পুঁজিবাজারের সার্বিক অবস্থা সম্পর্কে অবহিত করেন। পাশাপাশি বাজারের উন্নয়নে বিএসইসির নেওয়া নানা পরিকল্পনা বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রীর দিকনির্দেশনা চান। প্রধানমন্ত্রী আগ্রহ সহকারে কমিশনের মতামত শোনেন এবং পুঁজিবাজারের উন্নয়নে সর্বাত্মক সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন।


আরও খবর



বিদ্যুৎ ও জ্বালানি নিয়ে সংকট চলছে বলে অপপ্রচার হচ্ছে: কাদের

প্রকাশিত:Monday ০১ August ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ০৯ August ২০২২ | ২১জন দেখেছেন
Image

দেশে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সংকট চলছে বলে একটি চিহ্নিত মহল উদ্দেশ্যমূলকভাবে অপপ্রচার করছে এবং বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

সোমবার (১ আগস্ট) সকালে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের অফিস কক্ষে গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ মন্তব্য করেন।

সেতুমন্ত্রী বলেন, প্রকৃতপক্ষে বৈশ্বিক করোনা মহামারি পরবর্তী বিশ্বব্যাপী অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের সময় রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে পৃথিবীর জ্বালানি সাপ্লাই চেইন অস্থিতিশীল হয়ে পড়েছে। এতে আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি মূল্যের অস্বাভাবিক ঊর্ধ্বগতি দেখা দিয়েছে।

পৃথিবীর প্রায় ৯০ শতাংশের বেশি দেশ প্রাথমিক জ্বালানির জন্য আমদানির ওপর নির্ভরশীল জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, আমদানিকারক দেশ হিসেবে এ পরিস্থিতির নেতিবাচক প্রভাব বাংলাদেশেও পড়েছে। এই মুহূর্তে ইউরোপ-আমেরিকাসহ পৃথিবীর প্রায় সকল দেশেই চলছে জ্বালানির সংকট। পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য তারা ব্যাপকভাবে বিদ্যুৎ ও জ্বালানির ব্যবহার কমিয়েছে।

এদিকে, বিশ্বব্যাপী জ্বালানি সংকটের প্রেক্ষিতে বিদ্যুৎ উৎপাদনে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, অনেক উন্নত দেশেও বিদ্যুৎ উৎপাদন হ্রাস পেয়েছে। এর অনিবার্য প্রভাব পড়েছে দেশগুলোর অর্থনীতি ও উৎপাদন ব্যবস্থায়।

এ সময় ওবায়দুল কাদের সম্প্রতি যুক্তরাজ্যের ‘ইভিনিং স্ট্যান্ডার্ড’ পত্রিকায় প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনের উল্লেখ করেন। ‘গত সপ্তাহে বিদ্যুতের দাম বেড়ে যাওয়ায় লন্ডন কোনোক্রমে ব্ল্যাকআউট (বিদ্যুতের অনুপস্থিতিতে সৃষ্ট অন্ধকার) এড়িয়েছে’ শিরোনামের ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘দক্ষিণ-পূর্ব লন্ডনে বিদ্যুৎবিভ্রাট রোধ করতে যুক্তরাজ্যকে বিদ্যুতের সাধারণ মূল্যের চেয়ে ৫ হাজার শতাংশ বেশি দাম দিতে হয়েছে।’
এছাড়াও সেতুমন্ত্রী নিউইয়র্ক শহরের মেয়র এরিক এডামসের একটি বক্তব্য তুলে ধরেন। ওই বক্তব্যে মেয়র বলেন, ‘আমরা এমন এক আর্থিক সংকটে আছি, যেটা আপনি কল্পনাও করতে পারবেন না...... ওয়াল স্ট্রিট ভেঙে পড়ছে, আমরা অর্থনৈতিক মন্দার মধ্যে আছি।’

তিনি আরও বলেন, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ, অর্থনৈতিক অবরোধ, আন্তর্জাতিক বাজারে তেল, গ্যাস ও সারের মূল্য বৃদ্ধির নেতিবাচক প্রভাব মোকাবিলায় বাংলাদেশ সরকার নানামুখী সতর্কতামূলক পদক্ষেপ নিয়েছে। বিশ্বের নানান দেশ অসহনীয় ও আকাশচুম্বী মূল্যস্ফীতি মোকাবিলা করতে হিমশিম খাচ্ছে।

‘উন্নত বিশ্বের মূল্যস্ফীতির হারের দিকে তাকালে বিশ্ব অর্থনৈতিক সংকটের তীব্রতা টের পাওয়া যায়। যেখানে জুন মাসে যুক্তরাষ্ট্রে ৯ দশমিক ১ শতাংশ, যুক্তরাজ্যে ৯ দশমিক ৪ শতাংশ, জার্মানিতে ৮ দশমিক ৯ শতাংশ, রাশিয়ায় ১৫ দশমিক ৯ শতাংশ, তুরস্কে ৭৮ দশমিক ৬ শতাংশ, নেদারল্যান্ডসে ৯ দশমিক ৪ শতাংশ, শ্রীলঙ্কায় ৩৯ দশমিক ৯ শতাংশ ও পাকিস্তানে ২১ দশমিক ৩ শতাংশ মূল্যস্ফীতি হয়েছে, সেখানে বাংলাদেশে মূল্যস্ফীতি ছিলো ৭ দশমিক ৫৬ শতাংশ।’

‘দেশের ভেতরে অনেকে শুধু মূল্যস্ফীতির কথা বলে মানুষকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টা করছে। কিন্তু শেখ হাসিনা সরকারের সতর্কতামূলক উদ্যোগ গ্রহণের ফলে বাংলাদেশের অবস্থান তুলনামূলকভাবে সহনীয় পর্যায়ে রয়েছে।’

এ সময় যারা দেশকে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ হিসেবে দেখতে চায়, উন্নয়নবিরোধী ও সাম্প্রদায়িক অপশক্তির প্রতিভূ, তাদের উদ্দেশ্যমূলক অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান মন্ত্রী কাদের।


আরও খবর



শেষ ম্যাচে অধিনায়ক মোসাদ্দেক, দলে ফিরলেন মাহমুদউল্লাহ

প্রকাশিত:Monday ০১ August ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ২১জন দেখেছেন
Image

ইনজুরিতে ছিটকে যাওয়া অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহানের পরিবর্তে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। এছাড়া সোহানের পরিবর্তে দলে নেয়া হয়েছে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে। আজ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে বিসিবি।

নুরুল হাসান সোহানের আঙ্গুলে ইনজুরি। যে কারণে তিন সপ্তাহের জন্য মাঠের বাইরে ছিটকে পড়েছেন তিনি। সোহানের ছিটকে পড়ার পর সবার মনে প্রথম যে প্রশ্নটি উদয় হলো, সেটা হচ্ছে- জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে অধিনায়ক হচ্ছেন কে?

গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল, নুরুল হাসান সোহানের পরিবর্তে অধিনায়ক হতে পারেন লিটন দাসই। যদিও সোহানের সহকারী হিসেবে আগেই কারো নাম ঘোষণা করা ছিল না। এ কারণে জ্বল্পনা-কল্পনার ঢাল-পালা গজাচ্ছিল বেশি। লিটনের নাম আসার কারণ, গত বছর নিউজিল্যান্ডে মাহমুদউল্লাহর পরিবর্তে তিনি এক ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন দলকে।

তবে, চলতি সিরিজের অন্যতম সেরা পারফরমার মোসাদ্দেক হোসেনকে অধিনায়ক হিসেবে বেছে নেয়ার ক্ষেত্রে ঘরোয়া ক্রিকেটে আবাহনীর মত দলকে নেতৃত্ব দেয়ার অভিজ্ঞতাকেই হয়তো গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।

বিস্তারিত আসছে...


আরও খবর



রনিকে দেখে মনে হয়েছে আজ একটা ভাই পেয়েছি: সুমন

প্রকাশিত:Friday ২২ July 20২২ | হালনাগাদ:Sunday ৩১ July ২০২২ | ২৫জন দেখেছেন
Image

পাপ আর দুর্নীতি এখন শেষ সীমায় চলে গেছে, এমন মন্তব্য করে রেলখাতে দুর্নীতির প্রতিবাদে কমলাপুর রেলস্টেশনে অবস্থান নেওয়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মহিউদ্দিন রনিকে লড়াই-সংগ্রামের পথে ‘ভাই’ বলে সম্বোধন করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।

তিনি বলেছেন, বিভিন্ন সময়ে দুর্নীতির বিষয়ে কথা বলছি, কিন্তু এখানে (কমলাপুর রেলস্টেশনে) এসে রনিকে দেখে মনে হয়েছে আমার এ লড়াই-সংগ্রামের পথে আজ একটা ভাই পেয়েছি। যে ছেলেটির এখন বিশ্ববিদ্যালয়ে হলে থাকার কথা, লেখাপড়া করে বিসিএস ক্যাডার হয়ে দেশের কাজে আত্মনিয়োগ করার কথা, সেই ছেলেটি আজ এখানে বসে দায়িত্ব নিয়ে বলছে, ‘রেলে দুর্নীতিবাজদের আড্ডাখানা, সিন্ডিকেটের আড্ডাখানা’। রেলকে দুর্নীতিমুক্ত করতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছেন রনি। টানা অবস্থানে থেকে সে অসুস্থ হয়ে গেছে।

বৃহস্পতিবার (২১ জুলাই) সন্ধ্যায় কমলাপুর রেল স্টেশনে গিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মো. মহিউদ্দিন হাওলাদার ওরফে রনির সঙ্গে দেখা করে তাদের আন্দোলনে সংহতি জানিয়ে ফেসবুক লাইভে এসে তিনি এসব কথা বলেন।

রেলখাতে অনিয়মের সঙ্গে জড়িত রেলওয়ে কর্মকর্তাদের উদ্দেশে ব্যারিস্টার সুমন বলেন, আমরা সব মেনে নিই, তাই বলে দুর্নীতি করে আমাদের টাকা খাবেন সেটা মেনে নেবো না। এটা আমরা মানবোই না।

সুমন বলেন, আমরা রেল মন্ত্রণালয়কে বাঁচাতে কতো চেষ্টা করে যাচ্ছি। অথচ শোনা যায়, রেল মন্ত্রণালয় নাকি অর্ধেক চালান রেলের ভাবি (রেলমন্ত্রীর স্ত্রীর প্রতি ইঙ্গিত করে)। মন্ত্রী ও তার স্ত্রীর বিষয়ে তিনি বলেন, রেলমন্ত্রীর শ্বশুরবাড়ির লোকেরাও নাকি এ মন্ত্রণালয় চালান।

বাংলাদেশ রেলের অনলাইন টিকিট প্ল্যাটফর্ম সহজ ডটকমের যাত্রী হয়রানি বন্ধসহ ছয় দফা দাবিতে বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টা থেকে আবারও কমলাপুর রেলস্টেশনে অবস্থান নেন রনিসহ অন্য শিক্ষার্থীরা। এর আগে গত ৭ জুলাই থেকে ১৯ জুলাই পর্যন্ত কমলাপুর রেলস্টেশনে অবস্থান করেন তারা। গত ১৯ জুলাই দুপুর আড়াইটার দিকে লংমার্চ করে রেলওয়ে ভবনে গিয়ে রেলের মহাপরিচালক ধীরেন্দ্র নাথ মজুমদারকে স্মারকলিপি দেন। সে সময় ছয় দফা দাবি মেনে নিতে ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দেন এবং প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

বেঁধে দেওয়া সময়ে কোনো প্রতিকার না পেয়ে ২১ জুলাই বিকেল থেকে আবারও কমলাপুর রেলস্টেশনে অবস্থান নেন রনিসহ সাধারণ শিক্ষার্থীরা। দ্বিতীয় দফায় অবস্থান নিতে গিয়ে শুরুতেই রেলওয়ের নিরাপত্তা বাহিনীসহ আনসার সদস্যদের বাধার মুখে পড়েন রনি। এরপর তার সঙ্গে শতাধিক শিক্ষার্থী জড়ো হন। এসময় স্টেশনের মূল গেটে বসে পড়েন রনিসহ তার সহপাঠীরা। বিকেল পৌনে ৬টার দিকে তাদের আন্দোলনের সঙ্গে একাত্মতা জানাতে সেখানে যান ব্যারিস্টার সুমন। এসময় তিনি রেল মন্ত্রণালয় ও প্রবাসী মন্ত্রণায়কে দুর্নীতমুক্ত করতে প্রধানমন্ত্রীর সদয় হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

এসময় রেলের দুর্নীতির প্রতিবাদে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা স্লোগান তোলেন- ‘দুর্নীতির কালো হাত ভেঙে দাও গুঁড়িয়ে দাও’, ‘বঙ্গবন্ধুর বাংলায় দুর্নীতির ঠাঁই নেই’, ‘একাত্তরের হাতিয়ার গর্জে ওঠো আরেকবার’, ‘তোমার আমার ঠিকানা পদ্মা-মেঘনা-যমুনা, তুমি কে আমাকে বাঙালি-বাঙালি।’

এরপর ব্যারিস্টার সুমন ফেসবুক লাইভে এসে বলেন, আমি যে জায়গায় দাঁড়িয়ে কথা বলছি এটা হলো কমলাপুর রেলস্টেশন। এখানে আপনারা কেউ এলে দেখতে পারবেন কতটা দুর্নীতি চলছে। এখানে এসেছি রনিকে দেখতে, তার প্রতি সহমর্মিতা জানাতে।

তিনি বলেন, রনির অভিযোগের ভিত্তিতে রেলের অনলাইন টিকেটিং প্ল্যাটফর্ম সহজ ডটকমকে দুই লাখ টাকা জরিমানা করছে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর কর্তৃপক্ষ। এরপর আর কী প্রমাণ লাগে। আপনারা কী ভাবছেন, এই জরিমানা করায় রনি ঠান্ডা হয়ে যাবে। এটা মনে করার কোনো কারণ নেই। মনে রাখবেন, রনির জন্মই হয়েছে ওইসব লোকের বিরুদ্ধে….।

রেলের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের উদ্দেশে সুমন আরও বলেন, রেলের বারোটা বাজিয়েছেন। আপনারা লোডশেডিংয়ের কথা বলেন, মেনে নেই। জিনিসপত্রের দাম বাড়ানোর পর বিশ্ববাজারে দাম বাড়ার অজুহাত দেন, মেনে নেই। সব মেনে নেই বলে দুর্নীতি করে আমাদের টাকা খাবেন, সেটা কিন্তু মেনে নেবো না। এটা আমরা মানবোই না। এরকম রনির জন্ম সারাদেশে হবে।

ব্যারিস্টার সুমন বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী, আমাদের শেষ আশ্রয়স্থল শেখ হাসিনার কাছে অনুরোধ, এরকম দুঃসময়ে আমরা আপনার যে কোনো সিদ্ধান্ত মেনে নিতে রাজি। আমরা লোডশেডিং সহ্য করছি। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিও সহ্য করছি। কিন্তু আপনি যদি রেল মন্ত্রণালয় এবং প্রবাসী ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়কে কন্ট্রোল না করেন তাহলে মানুষের দীর্ঘশ্বাসে আপনার লোকজন ভালো থাকবে না। এ দুই মন্ত্রণালয়ের প্রতি মানুষের যে ঘৃণা তা একসময় বড় আওয়াজে রুপান্তরিত হবে।

প্রধানমন্ত্রীর প্রতি তিনি বলেন, আপনি তো আমাদের কথা বোঝেন, আপনার প্রতি অনুরোধ জানাই, এদের (দুর্নীতিবাজদের) ব্যাপারে ব্যবস্থা নিন। রনির সবগুলো অভিযোগ প্রমাণিত এবং এসব সমস্যা নিরসনে যত দ্রুত ব্যবস্থা নেবেন আমি বিশ্বাস করি তত দ্রুত মানুষের আত্মা শান্তি পাবে।

লাইভে সবশেশে তিনি বলেন, কমলাপুর থেকে বিদায় নেওয়ার আগে আবারও বলছি, আমাদেরকে ‘রেলভাবি’ এবং সব দুর্নীতিবাজদের থেকে মুক্ত করুন। আশা করি, সবাই ভালো থাকবেন।


আরও খবর