Logo
আজঃ শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪
শিরোনাম

অনলাইনে মনোনয়নপত্র জমা নেওয়ার পরিকল্পনা ইসির

প্রকাশিত:সোমবার ০৯ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৩২৮জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক; নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) মো. আহসান হাবিব খান বলেছেন, অনলাইনে নির্বাচনের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার বিধান রাখার পরিকল্পনা করা হচ্ছে। আগামী কমিশন সভায় অনলাইন মনোনয়ন সাবমিশন বাস্তবায়ন করা নিয়ে আলোচনা করবো। কমিশনে সিদ্ধান্ত হলে এটিকে বাস্তবায়ন করবো।

আজ সোমবার নির্বাচন ভবনে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

আহসান হাবিব বলেন, ‘আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ হিসেবে সারাবিশ্বে পরিচিত। এখন আমরা স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে যাচ্ছি। এখন স্কুল-কলেজ থেকে শুরু করে সবকিছুর আবেদনই অনলাইনে সাবমিশন হচ্ছে। অনলাইনে সাবমিশন দিলে সুবিধা আছে। জনপ্রতিনিধিরা শো-ডাউন দিয়ে মনোনয়ন জমা দেন। অভিযোগ আছে, যারা সাবমিশন করতে চায় তাদের অনেকে বাধাগ্রস্ত হয়। মনোনয়ন জমায় যেন অসুবিধা না হয়-সেটি বিবেচনা করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘আগামী কমিশন সভায় অনলাইন মনোনয়ন সাবমিশন বাস্তবায়ন করা যায় কিনা তা নিয়ে আলোচনা করবো। কমিশনে সিদ্ধান্ত হলে এটিকে বাস্তবায়ন করবো। প্রথমে এটির পাইলট প্রজেক্ট নেব। চ্যালেঞ্জ কি ধরণের তা দেখব। আমরা চিন্তা করি, সুন্দর জিনিস সবাই একসেপ্ট করবে।

এক প্রশ্নের জবাবে ইসি বলেন, প্রথমে ইউনিয়ন পরিষদ, তারপর উপজেলা, সিটি করপোরেশন নির্বাচনেও ব্যবহার করা হবে। এগুলোয় সফল হলে জাতীয় নির্বাচনেও অনলাইনে মনোনয়ন জমা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে।


আরও খবর



আ. লীগের সংরক্ষিত নারী আসনে মনোনয়ন ঘোষণা

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮৯জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আওয়ামী লীগ থেকে দ্বাদশ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনে দলীয় মনোনয়ন প্রাপ্তদের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। বুধবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে দলের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এসব নাম ঘোষণা করেন।

এর আগে, দুপুর ১২টায় গণভবনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মনোনয়ন প্রাপ্তদের মধ্যে রয়েছেন- ১. ঠাকুরগাঁও থেকে দ্রৌপদী দেবী আগরওয়ালা, ২. নীলফামারী থেকে আশিকা সুলতানা, ৩. পঞ্চগড় থেকে রেজিয়া ইসলাম, ৪. জয়পুরহাট থেকে রোকেয়া সুলতানা, ৫. নাটোর থেকে কোহেলী কুদ্দুস, ৬. চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে জারা জাবীন মাহাবুব, ৭. খুলনা থেকে রুনু রেজা, ৮. বাগেরহাট থেকে ফরিদা আক্তার বানু, ৯. বরগুনা থেকে মোসা. ফারজানা সুমি, ১০. ভোলা থেকে খালেদা বাহার বিউটি, ১১. পটুয়াখালী থেকে নাজনীন নাহার রশীদ, ১২. নরসংদী থেকে ফরিদা ইয়ানমিন, ১৩. ময়মনসিংহ থেকে উম্মি ফারজানা ছাত্তার, ১৪. নেত্রকোনা থেকে নাদিয়া বিনতে আমিন, ১৫. জয়পুরহাট থেকে মাহফুজা সুলতানা, ১৬. ঝিনাইদহ থেকে পারভীন জামান, ১৭. কুমিল্লা থেকে অ্যারোমা দত্ত, ১৮. সাতক্ষীরা থেকে লায়লা পারভীন, ১৯. খুলনা থেকে বেগম মন্নুজান সুফিয়ান, ২০. গোপালগঞ্জ থেকে বেদৌরা আহমেদ সালাম, ২১. ঢাকা থেকে শবনম জামান, ২২. পারুল আক্তার, ২৩. সাবেরা বেগম, ২৪. নাহিদ ইজাহার খান, ২৫. শহিদা তারেখ দীপ্তি, ২৬. অনিমা মুক্তি গমেজ, ২৭. শেখ আনার কলি পুতুল, ২৮. হাছিনা বারী চৌধুরী, ২৯. সানজিদা খানম, ৩০. বরিশাল থেকে শাম্মী আহমেদ, ৩১. ফরিদপুর থেকে ঝর্না হাসান, ৩২. মুন্সিগঞ্জ থেকে ফজিলাতুন নেসা, ৩৩. নরসিংদী থেকে মাসুদা সিদ্দীক রোজী, ৩৪. টাঙ্গাইল থেকে তারানা হালিম ৩৫. বেগম শামসুর নাহার, ৩৬. গাজীপুর থেকে মেহের আফরোজ, ৩৭. টাঙ্গাইল থেকে অপরাজিতা হক, ৩৮. গোপালগঞ্জ থেকে নাজমা আক্তার, ৩৯. সিলেট থেকে রুমা চক্রবর্তী, ৪০. লক্ষ্মীপুর থেকে ফরিদুন্নাহার লাইলী ৪১. আশ্রাফুন নেছা, ৪২. নোয়াখালী থেকে কানন আরা বেগম ৪৩. ফরিদা খানম, ৪৪. চট্টগ্রাম থেকে শামীমা হারুন, ৪৫. দিলোয়ারা ইউসুফ, ৪৬. ওয়াসিকা আয়শা খান, ৪৭. রাঙামাটি থেকে জ্বরতী তঞ্চঙ্গ্যাঁ ও ৪৮. রংপুর থেকে মোছা. নাছিমা জামান (ববি)।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদের নির্ধারিত ৫০টি সংরক্ষিত আসনের মধ্যে ৪৮টি (দলীয় স্বতন্ত্রদের ১০টিসহ) পাচ্ছে আওয়ামী লীগ। যার বিপরীতে ১ হাজার ৫৪৯ জন নারী দলের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করে জমা দেন।



আরও খবর



ময়মনসিংহে পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্সের বীমাদাবীর চেক হস্তান্তর

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৬৯জন দেখেছেন

Image
এস এম শফিকুল ইসলাম, জয়পুরহাটঃপপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের ময়মনসিংহে  অঞ্চলের মেয়াদ উত্তীর্ণ গ্রাহকদের  মাদাবীর চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠান  অনুষ্ঠিত হয়েছে।
শুক্রবার (১৬ফেব্রুয়ারী) সকালে ময়মনসিংহ আসপাডা প্রশিক্ষণ একাডেমী মিলনায়তনে এ বীমাদাবীর চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক বি এম শওকত আলীর সভাপতিত্বে মেয়াদ উত্তীর্ণ বীমাদাবীর চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও, বাংলাদেশ ইনস্যুরেন্স ফোরামের প্রেসিডেন্ট ও বাংলাদেশ ইনস্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশনের কার্যনির্বাহী সদস্য  বি এম ইউসুফ আলী। 

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন  পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের একক বীমা প্রকল্পের  উর্দ্ধতন  উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক (ব্রাঞ্চ কন্ট্রোল) সৈয়দ মোতাহার হোসেন, আল আমিন বীমা প্রকল্পের উর্দ্ধতন  উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবু তাহের, জনপ্রিয় বীমা প্রকল্পের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক কামাল হোসেন মহসিন,  ইসলামী ডিপিএস প্রকল্পের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক খলিলুর রহমান সিকদার। 

এ সময়ে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, আল বারাকাহ ইসলামী ডিপিএস প্রকল্পের উর্দ্ধতন নির্বাহী পরিচালক ও প্রকল্প  পরিচালক সেলিম মিয়া, পপুলার ডিপিএস  প্রকল্পের নির্বাহী পরিচালক ও প্রকল্প পরিচালক আবু মঈদ শাহীন, আল আমিন বীমা প্রকল্পের নির্বাহী পরিচালক ও প্রকল্প পরিচালক মোখলেছুর রহমান, আল বারাকা ইসলামী একক বীমা প্রকল্পের নির্বাহী পরিচালক ও প্রকল্প পরিচালক মাহাবুবুর রহমান। 

সভা শেষে গ্রাহকদের হাতে মেয়াদ উত্তীর্ণ  বীমাদাবীর চেক তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বি এম ইউসুফ আলী।

আরও খবর



সিরাজগঞ্জে জাল সনদ মামলায় শিক্ষিকা কারাগারে

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৮২জন দেখেছেন

Image
রাকিব সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি :সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় কম্পিউটার শিক্ষার সনদ জালিয়াতির মামলায় রাবেয়া খাতুন রুবি (৫৬) নামের এক সহকারী শিক্ষিকাকে গ্রেপ্তার করেছে উল্লাপাড়া মডেল থানা পুলিশ। দুদকের মামলায় রবিবার রাতে রুবিকে গ্রেপ্তার করে সোমবার সকালে আদালতে পাঠানো হয়েছে। রুবি উপজেলার উধুনিয়া ইউনিয়নের চয়ড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক সহকারি শিক্ষিকা ও দিঘলগ্রামের বাসিন্দা বুলবুল আহমেদ এর স্ত্রী।

সিরাজগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সহকারী আল-আমিন বলেন, রাবেয়া খাতুন ১৯৯৫ সাল থেকে উল্লাপাড়া  উপজেলার চয়ড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে কম্পিউটার বিষয়ের সহকারী শিক্ষিকার দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। জাল সনদ দিয়ে চাকুরী করার অপরাধে দূর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) তার বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের মামলা দায়ের করে। আদালতের ওয়ারেন্টের ভিত্তিতে পুলিশ  তাকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠিয়েছে।

বিদ্যালয় সূত্র জানা গেছে, ২০১৮ সালের ১৭ মার্চ ওই বিদ্যালয়ে শিক্ষা মন্ত্রনালয় থেকে নিরীক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করে। তাতে রাবেয়া খাতুনের শিক্ষা ও কম্পিউটার সনদ ভুয়া বলে সন্দেহ করে অডিট কর্তৃপক্ষ। পরে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরের এক পত্রের আলোকে বগুড়া জাতীয় কম্পিউটার প্রশিক্ষণ ও গবেষণা একাডেমি নেকটারের পরিচালকের কার্যালয়ে রাবেয়া খাতুন রুবির কম্পিউটার বিষয়ের সনদটি যাচাই-বাছাইয়ের জন্য পাঠায় শিক্ষা অধিদপ্তর। এর পর ২০১৯ সালের ১২ সেপ্টেম্বর এক পত্রের মাধ্যমে নেকটার রাবেয়া খাতুনের কম্পিউটার ডিপ্লোমা কোর্সের সনদটি যাচাই-বাছাই শেষে জাল ও ভুয়া সনদ বলে চিহ্নিত করে।

এ জাল সনদের বিষয়টি শিক্ষা মন্ত্রণালয় নিশ্চিত হওয়ার পর তার এমপিও ভুক্তির তারিখ ২০০৯ সালে ১ মে থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ পর্যন্ত রাবেয়ার গৃহীত সরকার প্রদত্ত ১৪ লাখ ৯ হাজার ৬৫০ টাকা সরকারি কোষাগারে ফেরত প্রদানের নির্দেশ দেন। পরে টাকা ফেরত প্রদান না করায় ২০২২ সালের ১৯ জুন তারিখে দুদক তার বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করে।

উল্লাপাড়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসিফ মোহাম্মদ সিদ্দিকুল ইসলাম এ ব্যাপারে বলেন, দুদকের মামলায় ওই শিক্ষিকার বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট হয়েছিল। রোববার রাতে গ্রেফতার করে সোমবার সকালে তাকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

আরও খবর



জনগনের ভোগান্তি চরমে: গাংনীতে সেতু নির্মাণ হলেও হয়নি সংযোগ সড়ক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯৭জন দেখেছেন

Image

মজনুর রহমান আকাশ, মেহেরপুরঃমেহেরপুরের গাংনী উপজেলায় মাথাভাঙ্গা নদীর ওপর গার্ডার সেতু নির্মাণের তিন বছর পেরিয়ে গেলেও এক অংশের সংযোগ সড়ক নির্মান হয়নি। এখনো জমি অধিগ্রহণ না হওয়ায় আটকে আছে সড়কের কাজ। ফলে ৯ কিলোমিটার পথ ঘুরে যাতায়াত করতে হচ্ছে গাংনী ও কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার বাসিন্দাদের। তবে বিষয়টি সমাধানে জোর চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন স্খানীয় নির্বাহী প্রকৌশলী।

জানা গেছে, ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে বামন্দী এইচডি থেকে কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের প্রাগপুর জিসি ভায়া মধুগাড়ি ঘাট সড়কের মাথাভাঙা নদীর ওপর গার্ডার সেতু নির্মাণ প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। নির্মাণ কাজ শুরু হয় ২০২০সালের ২ ফেব্রুয়ারী । সেতুর ব্যয় ধরা হয় ৭ কোটি ২৯ লাখ ৩২ হাজার ৯৭৯ টাকা। সেতুটি নির্মাণের ফলে মেহেরপুর ও কুষ্টিয়ার বাসিন্দারা ব্যবসা বাণিজ্যের প্রসার ও শিক্ষাসহ নানা সুবিধা পাবে। ২০২৩ সালের মার্চ মাসে সেতুটির নির্মান কাজ সম্পন্ন হলেও আজো সংযোগ সড়ক নির্মান করা হয়নি। সেতুটি নির্মানের আগে স্থানীয়রা সংযোগ সড়কের জন্য জমি দিতে চেয়েছিলেন। কিন্তু সেতু নির্মাণের পরস্থানীয়রা বেঁকে বসেছেন। স্থানীয়দের দাবি, জমি সেতুর জন্য লাগলে দেবেন, তবে এর জন্য ন্যায্যমূল্য দিতে হবে। তবে এলজিইডি বলছে, বিষয়টি সমাধানের জন্য জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করা হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, মাথাভাঙ্গা নদীর ওপর দুই জেলার মানুষের জন্য তৈরি (মধুগাড়ি-বেতবাড়িয়া) সংযোগ সেতুর নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে। সেতুর দৌলতপুর উপজেলার পাশে সংযোগ সড়ক তৈরি হলেও গাংনী উপজেলার অংশে এখনো হয়নি। সেতু নির্মিত হলেও এখনো ভোগান্তি দূর হয়নি দুপাড়ের লক্ষাধিক মানুষের। ফলে চিকিৎসাসেবা কিংবা ফসলাদি নিয়ে এপারের মানুষকে ওপারে যেতে হলে ৯ কিলোমিটার ঘুরতে হচ্ছে।

মেহেরপুর গাংনী ভবানীপুর গ্রামের ইটভাটা ব্যবসায়ি ওয়াহিদুল হক লিটন জানান, তিনি নদী পার হয়ে মধুগাড়িতে যান ইটের ভাটায়। বছর দশেক ধরেই তিনি যাতায়াত করেন। সেসময় ঘাট ইজারা নিতেন স্থানীয়রা। তখন নৌকা ও ফরাস পাতা ছিল। প্রতদিন ১০ টাকার বিনিমযাতায়াত করতে পারতেন। সেতু নির্মানের পর ইজারদারী প্রথা আর নেই। এখন ৯ কিলোমিটার ঘুরে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে যেতে হয়। গাংনী এলাকার অংশে সংযোগ সড়কটি হলে সকলেরই উপকার হতো বলে তিনি জানান।

মধুগাড়ির কোম্পানীর বিক্রয় প্রতিনিধি মাইনুল হক জানান, বছর দশেক যাবত তিনি নদী পার হয়ে যাতায়াত করেন। নদীর উপর সেতু নির্মানের খবরে এলাকাবাসীর মধ্যে আনন্দের বন্যা বয়ে গেলেও সেতু নির্মানের পর আর সেটি নেই। সংযোগ সড়ক না থাকায় কোন সুবিধা পাচ্ছেন না তারা। একই কথা জানালেন, গরু ব্যবসায়ী মুল্লুক মালিথা। তিনি আরো জানান, ৩০ বছর ধরে গরু বেচা কেনা করেন তিনি। আগে নৌকা ছিল কিন্তু সেতু নির্মাণেন পর আর নৌকা চলে না। এখন গাংনী এলাকায় আসতে হলে ৮/৯ মাইল ঘুরে আসতে হয়।

সবজি ব্যবসায়ি মধুগাড়ির রবিউল ইসলাম জানান, নদী পার হয়ে সবজি আনতে হয়। সংযোগ সড়ক সংযোগ না থাকায় সবজি বহনকারী ভ্যান রেখে মাথায় করে সবজি আনতে হয়। অতিদ্রুত সংযোগ সড়ক নির্মানের দাবী জানান তিনি।

স্থানীয় বাসিন্দা আমিরুল ইসলাম জানান, সেতুর নিচ দিয়ে তাদের প্রায় ৩৫ বিঘা জমি আছে। সেতু হলে মানুষের ভোগান্তি কমে যাওয়ার পাশাপাশি জায়গাগুলোর দামও বেড়ে যাবে। তাই ন্যায্যমূল্য পেলে সেতুর সড়কের জন্য জমি দিতে আপত্তি নেই তাদের।

গাংনী উপজেলা এলজিইডি প্রকৌশলী ফয়সাল আহমেদ বলেন, সেতু নির্মাণের আগে স্থানীয়দের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেই কার্যক্রম হাতে নেওয়া হয়। তবে বর্তমান সেতুর কাজ শেষ করে সংযোগ সড়ক নির্মাণ করতে গেলে যারা জমি দিতে চেয়েছিলেন তারা বর্তমানে আপত্তি জানাচ্ছেন। তারা বাজারমূল্যের চেয়ে দ্বিগুণ দাম চাচ্ছেন। তাই ভূমি অধিগ্রহণের জন্য জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করা হয়েছে। অতি স্বল্প সময়ের মধ্যে অধিগ্রহনের কার্যকলাপ শুরু হবে বলেও জানান এই কর্মকর্তা।


আরও খবর



জয়পুরহাটে আবু হোসন হত্যা মামলার ত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেফতার

প্রকাশিত:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ২৬জন দেখেছেন

Image
এস এম শফিকুল ইসলাম জয়পুরহাট প্রতিনিধি:জয়পুরহাটে আবু হােসেন হত্যা মামলার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি আমিনা বেগমকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব। বুধবার ২১ (ফেব্রুয়ারী)  দুপুরে জয়পুরহাট র‍্যাব ক্যাম্প থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এর আগে ভোররাতে সদর উপজেলার পুরানাপৈল এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত আমিনা বেগম জেলার পাঁচবিবি উপজেলার দরগাপাড়া গ্রামের আবু রায়হানের স্ত্রী।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০১০ সালের ২৫ মার্চ সকালে পাঁচবিবি উপজেলার দরগাপাড়া গ্রামের আবু হোসাইনের বাবা আবু তাহের নিজের খড়ের পালায় কাজ করছিলেন। সেসময় আসামিরা পূর্ব শত্রুতার জের ধরে সেখানে এসে আবু তাহেরকে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে মারপিট করেন। তখন তার ছেলে আবু হোসাইন বাবাকে বাঁচাতে এগিয়ে এলে তাকেও এলোপাতাড়ি মারপিট করে আসামিরা। এসময় মুমূর্ষ অবস্থায় আবু হোসাইনকে প্রথমে পাঁচবিবি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

সেখানে তার অবস্থার আরও অবনতি হলে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তারপর ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এ ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে পাঁচবিবি থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।জয়পুরহাট র‍্যাব ক্যাম্পের কোম্পানি অধিনায়ক মেজর মো. শেখ সাদিক জানান, এ মামলার দীর্ঘ শুনানি শেষে চলতি বছরের ১৯ ফেব্রুয়ারি জয়পুরহাটের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ-২ আদালতের বিচারক নুরুল ইসলাম ৫ জনের ফাঁসির রায় দেন।

একই সঙ্গে প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করেন। এ মামলার আসামি আমিনা বেগম পলাতক ছিলেন। এরপর সদর উপজেলার পুরানাপৈল এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়। পরবর্তীতে তাকে পাঁচবিবি থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

আরও খবর