Logo
আজঃ Tuesday ২৪ May ২০২২
শিরোনাম

নীতি দুর্নীতি--এ দায়ভার কার,নেতা- নেত্রীর না জনতার?

প্রকাশিত:Tuesday ১৮ January ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ৩৪৪জন দেখেছেন
Image


মোঃ আব্দুল হান্নানঃ

নির্বাচন আসে,নির্বাচন চলে যায়।সাধারণ জনগণ তাদের মুল্যবান ভোটও সুচিন্তিত মতামত দিয়ে তাদের পছন্দের নেতানেত্রী বা জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করে। তেমনি সারা দেশের ন্যায় ২০২১ সালের ১১ অক্টোবর ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে অনুষ্টিত হয় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন।নির্বাচনে চেয়ারম্যান,মেম্ভার ও সংরক্ষিত মহিলা মেম্ভার পদে অনেকেই প্রতিদ্বন্ধিতা করে, কেউ বিজয়ী আবার কেউ পরাজিত হয়েছে।নির্বাচনে জনগণ তাদের অনেক মুল্যবান ভোট ও সুচিন্তিত মতামত দিয়ে বিভিন্ন ইউনিয়নে  ভাল মানুষকে আবার কোন কোন ইউনিয়নে  বির্তকিত মাদক ব্যবসায়ী আর অযোগ্য লোককেও  মনোনীত করেছেন। আবার কোন কোন ইউনিয়নে ভাল মানুষকে ও রায় না দিয়ে বাড়িতে পাটিয়ে দিয়েছেন।সবই জনগণের ইচ্ছা। 


তারই বাস্তব উদাহরণ স্বরুপ যেমন বিগত নির্বাচনে ফান্দাউক ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ইউপি সদস্য পদে নির্বাচনে অংশ গ্রহন করেন ফান্দাউক গ্রামের কুখ্যাত মাদক ও ইয়াবা ব্যবসায়ী মৃত আরব আলীর ছেলে মোঃ জাকারিয়া জাকির।যার ভয়াল মাদক ব্যবসার ছোবলে ধ্বংস হচ্ছে এলাকার যুব সমাজ।যার ভয়ে মুখ খোলে কেউ কথা বলার সাহস পায়না।২০১৮ সালের ২২ মার্চে যার বাড়িতে জধন এর লোকজন অভিযান চালিয়ে প্রচুর পরিমান ইয়াবা,ফেনসিডিল,ল্যাপটপ,সিসি ক্যামেরা,বিদেশী টর্চলাইট,কয়েকটি পাসর্পোট সহ আরো বিভিন্ন দ্রব্য ও মাদক ব্যবসার প্রায় নগদ ৩ লক্ষ টাকা উদ্বার করে।এসময় জধন এর উপস্থিতি বুঝতে পেরে জাকির সুকৌশলে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।পরে জধন -৯ ইসলামপুর সিলেটের এস আই আল ইমরান বাদি হয়ে জাকারিয়া জাকিরকে আসামী করে নাসিরনগর থানায় মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে  থানার মামলা নং ২৫ তারিখ ২২/৩/২০১৮ রুজু করে।মামলার পর থেকে পালিয়ে যায় জাকির।অনেক দিন পালিয়ে থাকার পর আদালতে হাজিরা দিতে গেলে আদালত জাকিরের জামিন না মঞ্জুর করে জেলহাজতে প্রেরনের নির্দেশ দেন।বেশ কিছু দিন জেলবাস শেষে জামিনে মুক্তি নিয়ে এলাকায় এসে ব্যবসা য়ীক ধরন পাল্টিয়ে সম্পুর্ন নতুন নিয়মে আবারো শুরু করে দেন। বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ইউপি সদস্য পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করলে ফান্দাউক ইউনিয়নের বুদ্বিবান  সচেতন সাধারণ জনগণ  জাকিরকে তাদের মুল্যবান ভোট ও সুচিন্তিত রায় দিয়ে ইউপি সদস্য নির্বাচিত করে তাদের পক্ষে কথা বলতে ও কাজ করতে ইউনিয়ন পরিষদে পাটিয়ে দেয়।

অপরদিকে জনগনের অনুরোধে বুড়িশ্বর ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত ১,২,৩ মহিলা আসন থেকে নির্বাচনে অংশ গ্রহন করেন আশুরাইর গ্রামের সিনিয়র সাংবাদিক পত্নী শিক্ষিত, নম্র, ভদ্র সেলিনা বেগম।
সেলিনা দীর্ঘদিন যাবৎ তার নিজ এলাকার নিরক্ষর বয়স্ক ও শিশুদের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়ি যাচ্ছেন।

মানুষের বিপদে আপদে সব সময় পাশে রয়েছেন।সেলিনার স্বামী একজন স্বনামধন্য সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মী।সে সারা জীবণ মানুষের বিপদে আপদে পাশে থেকে মানুষকে নানা ভাবে সহযোগিতা করে আসছেন।যেমন অন্ধকারাচ্ছন্ন রাস্তায় স্ট্রিট লাইটের মাধ্যমে বিদ্যুতায়িত করা,রাস্তাঘাট সংস্কার করা,মসজিদে অনুধান প্রদান, রোগীর চিকিৎসা সেবা এগিয়ে যাওয়া,বিভিন্ন দুর্যোগে খাবার নিয়ে সাধারণ মানুষের পাশে দাড়ানো,সমাজের অবহেলিত বঞ্চিত,দুস্থ দরিদ্র অসহায মানুষের মাঝে বিধবা ভাতা,বয়স্কভাতা,প্রতিবন্ধীভাতা গর্ভবতীভাতা, শীতে অসহায় মানুষের পাশে কম্বল নিয়ে হাজির হওয়া সহ আরো নানা ধরনের কাজে সহযোগিতা করা যার কাজ। সেই সাংবাদিক পত্নী সেলিনা বেগম নির্বচনে প্রতিদন্ধীতা করলে জনগণ সেলিনাকে তাদের মহামুল্যবান ভোট ও সুচিন্তিত মতামত  দিয়ে পরিষদে না পাটিয়ে একদম সোঁজা ফেল করিয়ে বাড়িতে পাটিয়ে দিয়েছে।

তেমনি ভাবে শুধু ফান্দাউক আর বুড়িশ্বর নয় অনেক ইউনিয়ন পরিষদেই জাকিরের মত লোকজনকে জনগণ ভোট দিয়ে জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করে পরিষদে পাঠিয়েছেন,আবার অনেক পরিষদেই লোকজন সেলিনার মত প্রার্থীকে তাদের মহামুল্যবান ভোট ও মতামত না দিয়ে বাড়িতে ফেল করিয়ে বাড়িতে পাটিয়ে দিয়েছেন।তাহলে এবাব আপনারাই বলেন,নেতা নেত্রী বা জনপ্রতিনিধি নির্বাচনে এ দায়ভার কার? জনতার উপর দিলাম এ বিচারের ভার।


আরও খবর



রেলমন্ত্রীর আত্মীয়কে জরিমানা করায় বরখাস্ত টিটিই

প্রকাশিত:Saturday ০৭ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ৮৩জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

রেলমন্ত্রীর আত্মীয় পরিচয়দানকারী বিনা টিকিটের ৩ যাত্রীকে জরিমানা করায় বরখাস্ত রেলওয়ের টিটিই।



তবে রেলওয়ে জানিয়েছে, যাত্রীদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করায় তাকে বরখাস্ত করা হয়।


বরখাস্ত টিটিই মো. শফিকুল ইসলাম রেলওয়ে পাকশী বিভাগের ঈশ্বরদী সদর দপ্তরে কর্মরত ছিলেন। বরখাস্ত হওয়ায় গতকাল শুক্রবার তিনি কাজে যোগ না দিলে ঘটনাটি জানাজানি হয়।


ঘটনার বিষয়ে শফিকুল ইসলাম জানান, গত বৃহস্পতিবার খুলনা থেকে ঢাকাগামী সুন্দরবন এক্সপ্রেসে ঈশ্বরদী থেকে ৩ জন যাত্রী বিনা টিকিটে এসি কেবিনে উঠে বসেন।


তারা নিজেদের রেলমন্ত্রীর আত্মীয় পরিচয় দেন। শফিকুল ওই ৩ যাত্রীকে নন-এসি টিকিটের ভাড়া হিসেবে ৩৫০ টাকা করে এক হাজার ৫০ টাকা নিয়ে নন-এসির টিকিট দেন।


শফিকুল ইসলাম বলেন, 'তাদের কাছ থেকে মোট ১ হাজার ৫০ টাকা ভাড়া আদায় করেছি এবং তার রিসিটও দিয়েছি। 


এ সময় তাদের সঙ্গে আমি কোনো খারাপ আচরণ করিনি এবং তারাও কিছু বলেননি। খারাপ আচরণ করার তো প্রশ্নই ওঠে না।'


এ সময় রেলের অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন জানিয়ে শফিকুল বলেন, 'তারা এসি কামরাতে বসেই ঢাকা এসেছেন।


বিষয়টি নিয়ে ট্রেনের মধ্যে কোনো সমস্যা না হলেও পরবর্তীতে ঢাকা পৌঁছানোর পর ওই যাত্রীরা আমার বিরুদ্ধে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে অসদাচরণের অভিযোগ করেছেন বলে শুনেছি এবং এরপর আমাকে বরখাস্ত করা হয়।'


টিটিই শফিকুল ইসলামকে বরখাস্তের বিষয়টি জানানো হয় মোবাইল ফোনের মাধ্যমে।


অভিযোগের বিষয়ে জানতে যোগাযোগ করা হলে রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চলের বাণিজ্যিক কর্মকর্তা মো. নাসির উদ্দিন বলেন, 'যাত্রীদের সঙ্গে অসদাচরণের অভিযোগে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।'


তিনি জানান, এ ঘটনায় মো. ইমরুল কায়েস প্রান্ত একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন রেল কর্তৃপক্ষের কাছে।


অভিযোগে বলা হয়েছে, ৫ মে দিবাগত রাত সোয়া ২টায় ঈশ্বরদী স্টেশনে গিয়ে টিকিট পাননি অভিযোগকারী। তখন ট্রেন চলে আসায় তিনি ও তার সঙ্গে থাকা অপর ২ জন ট্রেনে উঠে পরেন।


অভিযোগে তিনি লিখেছেন, 'আমিসহ আমার ছোট ২ মামা তারাহুরা করে ট্রেনের যেখানে জায়গা পাব সেখানেই বসে পরব এমন অবস্থায় ট্রেন ছাড়ার অবস্থায় আমরা কোনোমতে সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনে দরজার সামনে উঠে পড়ি।


ট্রেন চলার মিনিট ৩০ এর মধ্যে টিটিই আমাদের সামনে টিকিট চাইলো। আমি বলি ট্রেনে উঠতে তারাহুরাতে টিকিট কাটতে পারি নাই।'


'বললো কয়জন আমি বলি ৩ জন তখন বলে ৫০০ করে ১৫০০ টাকা দেন আমি তাকে টাকা দেই এবং বলি সাধারণত ৩০০ টাকা ভাড়া আপনি ৫০০ করে নিলেন। এবার টিকিট দেন ১৫০০ টাকার। উনি বলে টিকিট চাইলে ৩৬০০ করে ৩ জন দেন তাহলে টিকিট দিচ্ছি।'


'আমি বললাম টেক্সটাইলে চাকুরী করি আমার পক্ষে এতো টাকা দেওয়া সম্ভব না। আপনি ১৫০০ টাকার টিকিট দেন, এ কথা বিনয়ী সাথে বলেছি। হঠাত করে উনি অনেক উচ্চ স্বরে বলে যে ট্রেন কি তোর বাপের লাথি দিয়ে দরজা দিয়ে বাহিরে ফেলে দিবো। তারপর বাবা, মা তুলে মুখে যা আসে তাই বলে আমাকে গালি দেই (দেয়)।'


এ ঘটনায় তিনি মর্মাহত উল্লেখ করে লিখেছেন, 'আমি বাংলাদেশ রেলওয়ের উর্দ্ধতম কর্মকর্তাদের জানাচ্ছি টিটিই শফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হক।'


আবেদনে মো. ইমরুল কায়েস প্রান্তর সই রয়েছে।


তবে, তার এবং তার সঙ্গে থাকা অপর ২ জনের সুনির্দিষ্ট পরিচয় জানা যায়নি।


রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চলের বাণিজ্যিক কর্মকর্তা মো. নাসির উদ্দিন বলেন, 'যাত্রীদের সঙ্গে অসদাচরণের জন্য গত ৩ মাস আগে টিটিই শফিককে পাকশী দপ্তরে বুক অফ করা হয়। তারপর তিনি যাত্রীদের সঙ্গে এমন আচরণ করবেন না বলে প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পর তাকে কর্মস্থলে ফেরত পাঠানো হয়।'


গতকালের ঘটনায় ব্যাখ্যার জন্য টিটিই শফিককে আগামী রোববার ডিসিও পাকশী দপ্তরে তলব করা হয়েছে জানিয়ে নাসির উদ্দিন বলেন, 'সরকারি পরিবহন কর্মকর্তা পাকশীকে আহ্বায়ক করে ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে এই ঘটনা তদন্তে।'


আরও খবর



মাগুরায় সড়ক দুর্ঘটনা

মাগুরায় সড়ক দুর্ঘটনায় সেনা সদস্যের মৃত্যু

প্রকাশিত:Sunday ১৫ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ৬৫জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

মাগুরায় যাত্রীবাহী বাস ও ট্রাকের সংঘর্ষে মো. আবু হানিফ (৬০) নামে অবসরপ্রাপ্ত এক সেনাসদস্য নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন অন্তত ছয় জন।


রোববার (১৫ মে) সকালে মাগুরা-যশোর সড়কের শেখপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত আবু হানিফ যশোর জেলার পৌর এলাকার মোহাম্মদ আবদুল গনির ছেলে।


আহতদের উদ্ধার করে মাগুরা ২৫০ শয্যা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের বাড়ি যশোর ও সাতক্ষীরা জেলায়।


ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ভোর সাড়ে ৫টার দিকে ঢাকা থেকে যশোরগামী একটি যাত্রীবাহী পরিবহনের সঙ্গে মাগুরা মুখী একটি ট্রাকের সংঘর্ষ হয়। এ সময় ঘটনাস্থলেই ওই সেনা সদস্য নিহত হন।


এছাড়া ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয়দের সহায়তায় আহতদের উদ্ধার করে মাগুরা ২৫০ শয্যা সদর হাসপাতাল নেওয়া হয়।


মাগুরা হাইওয়ে পুলিশের এসআই সেলিম জানান, দুর্ঘটনার পর বাস ও ট্রাকের ড্রাইভার-হেলপারদের পাওয়া যায়নি। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।


আর নিহতের মানি ব্যাগে থাকা পরিচয়পত্রের মাধ্যমে তার পরিচয় শনাক্ত করা হয়েছে। মরদেহের আইনি প্রক্রিয়া শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলেও জানান তিনি।


আরও খবর



নাসিরনগরে বিড়ির গোডাউনের তালা ভেঙ্গে দুধর্ষ চুরি

প্রকাশিত:Saturday ২১ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ৬৩জন দেখেছেন
Image

মোঃ আব্দুল হান্নানঃ

 ১৯ মে ২০২২ রোজ বৃহস্পতিবার গভীর রাতে-ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলা সদরে অবস্থিত খেলার মাঠের কোনায় দেওয়ান মঞ্জিলে মা বাবার দোয়া নামক আঁকিজ বিড়ির গোডাউনে ১৮ তালা ভেঙ্গে দুধর্ষ চুরি সংঘটিত হয়েছে বলে জানা গেছে।


আকিজের ডিলার মোঃ নেওয়াজ শরীফ জানায় চোরেরা রাতের অন্ধকারে গোডাউনের ১৮ টি তালা ভেঙ্গে ঘরের ভেতরে প্রবেশ করে ঘরে থাকা ৯০ কার্টন বা ৯ লক্ষ শলাকা আকিজ বিড়ি নিয়ে যায় যার বর্তমান বাজার মুল্য প্রায় ৬ লক্ষ ৪৬ হাজার টাকা।


তাছাড়াও একই রাতে অলি মেম্ভারের সুমন এন্টার প্রাইজ নামক একটি দোকানের,অগ্রণী ব্যাংকের তালা ভেঙ্গে পেলেছে, রহিম আফরোজ নামক একটি সোলার কোম্পানীর তালা ভেঙ্গে আই,পি,এসের একটি ব্যাটারী নিয়ে গেছে,তাছাড়াও সাইদুর রহমান খসরুর হক ট্রেডার্স নামক দোকানের দরজা ভেঙ্গে ফেলেছে।


 এ বিষয়ে মুঠোফোনে নাসিরনগর সদরের বিট অফিসার নাসিরনগর থানার এস আই সৈয়দ সারোয়ারের সাথে যোগাযোগ করে ঘটনা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন,"আমি ওসি স্যার সহ ঘটনাস্থলে আছি।আমরা বিষয়টির খোঁজ খবর নিচ্ছি"।


পরে ওই ঘটনায় আকিজের ডিস্ট্রিভিউটর মোঃ নেওয়াজ শরীফ বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা চোরদের বিরোদ্ধে নাসিরনগর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন।এখনো পুলিশ ওই চুরির ঘটনার  সাথে জড়িত সন্দেহে কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।


আরও খবর



মা মারা যাওয়ায় এক বছর যেতে না যেতেই মেয়ে পানিতে ডুবে মারা গেলো

মা মরেছে আগুনেপুড়ে মেয়ে মরল পানিতে ডুবে

প্রকাশিত:Sunday ২২ May 20২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ৭১জন দেখেছেন
Image


নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

এক বছর আগে আগুন পোহাতে গিয়ে পুড়ে মারা গিয়েছিলেন মা।ওই নারীর দেড় বছর বয়সী শিশুটির মৃত্যু হয়েছে পানিতে ডুবে ।


বৃহস্পতিবার (১৯ মে) সকালে টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার দিঘলকান্দী ইউনিয়নের বাদেপারশী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।


শিশুটির নাম মারিয়া আক্তার। সে গোপালপুর উপজেলার দিঘলআটা গ্রামের মিল্টন মিয়ার মেয়ে। তার মায়ের নাম আছিয়া বেগম।


ঘাটাইল থানার ওসি (তদন্ত) আব্দুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।


পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, মারিয়া জন্মের পর বাবার বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে শীতে আগুন পোহানোর সময় আগুনে পুড়ে মারা যান আছিয়া বেগম। এরপর থেকে নানা-নানির কাছে বড় হচ্ছিল শিশু মারিয়া আক্তার।


বুধবার (১৮ মে) সকালে শিশুটি বাড়ির উঠানে খেলাধুলা করছিল। এক পর্যায়ে বাড়ির লোকজন তাকে খুঁজে পাচ্ছিলেন না। খুঁজে না পেয়ে শিশুটির নানা থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। বৃহস্পতিবার সকালে বাড়ির পাশের ডোবায় শিশুটির মরদেহ ভাসতে দেখেন প্রতিবেশীরা। পরে তারা ডোবা থেকে মরদেহ উদ্ধার করেন।


শিশু মারিয়া আক্তারের নানা লেবু মিয়া বলেন, ‘মারিয়ার বয়স যখন পাঁচ মাস তখন তার মা আমার বাড়িতে অবস্থানকালেই আগুন পোহাতে গিয়ে পুড়ে মারা যায়। মা মারা যাওয়ায় এক বছর যেতে না যেতেই মেয়েটা পানিতে ডুবে মারা গেলো। এই কষ্ট আমি কোথায় রাখবো?’


এ বিষয়ে ঘাটাইল থানার ওসি (তদন্ত) আব্দুল হক বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। তবে এ ঘটনায় পরিবার থেকে থানায় কোনো অভিযোগ করা হয়নি।


আরও খবর



কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচন ১৫ জুন

প্রকাশিত:Monday ২৫ April ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৪ May ২০২২ | ১৩৮জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচন ১৫ জুন অনুষ্ঠিত হবে। সোমবার (২৫ এপ্রিল) কমিশন বৈঠক শেষে নির্বাচন ভবনে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার।


তিনি বলেন, কুসিক নির্বাচনের মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ১৭ মে, মনোনয়নপত্র বাছাই ১৯ মে, প্রার্থিতা প্রত্যাহার ২৬ মে। আর ভোটগ্রহণ ১৫ জুন।মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ১৭ মে।



ইসি সচিব বলেন, একই তফসিলে ছয়টি পৌরসভা ও ১৩৫টি ইউনিয়ন পরিষদে ভোট হবে। আর সবগুলো নির্বাচনের ভোটগ্রহণ করা হবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে।


২০১৭ সালের ৩০ মার্চ সর্বশেষ কুসিক নির্বাচন হয়েছিল। নির্বাচিত করপোরেশনের প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল ওই বছর ১৭ মে। এক্ষেত্রে ভোটগ্রহণ করার শেষ সময়১৬ মে। তবে সময় মতো নির্বাচন করতে পারেনি ইসি।


কর্মকর্তারা বলছেন, আইন অনুযায়ী প্রথম সভা থেকে পরবর্তী পাঁচ বছর হয় নির্বাচিত করপোরেশনের মেয়াদ। এজন্য মেয়াদ শেষ হবে ২০২২ সালের ১৬ মে। আর ভোটগ্রহণ করতে হয়, মেয়াদ শেষ হওয়ার আগের ১৮০দিনের মধ্যে। এই হিসাবে ২০২১ সালের ১৬ নভেম্বর থেকে এ সিটি নির্বাচনের সময়গণনা শুরু হয়।


২০১৭ সালের নির্বাচনে বিএনপি নেতা মনিরুল হক সাক্কু দ্বিতীয়বারের মতো এ সিটিতে নির্বাচিত হয়েছিলেন। এই সিটিতে সে সময় ভোট হয়েছিল ১০৩টি কেন্দ্রে। মোট ভোটার ছিল ২ লাখ ৭ হাজার ৫৬৬ জন।২০১১ সালে দুটি পৌরসভাকে একীভূত করে গঠন করা হয় কুমিল্লা সিটি করপোরেশন।


আরও খবর