Logo
আজঃ Wednesday ২৬ January ২০২২
শিরোনাম
অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে সহ-শিল্পীদের নগ্ন ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। বিদেশের মাটিতে কৃষিপণ্য সরবরাহ বাড়াণোর লক্ষ্যে : ইরান রাজনৈতিক কঠিন চাপে রয়েছেন মেয়র আরিফুল স্বপ্নের মেট্রোরেল রওনা হলো আগারগাঁওয়ের উদ্দেশে ওমিক্রনের সংক্রমণে ভারতে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত নিয়মিত আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ মুরাদ হাসান এমিরেটসের ফ্লাইটে কানাডা গেলেন সাময়িক বরখাস্ত হয়েছেন রাজশাহীর কাটাখালী পৌরসভার মেয়র আব্বাস আলী মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ আগামী বিশ্বকাপে ব্যাটসম্যানদের উন্নতি দেখতে চান করোনাভাইরাসে আরও ছয়জনের মৃত্যু বিশ্বের ৪৩তম ক্ষমতাধর নারী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

নাসিরনগরে স্কুল ছাত্রীকে ইভটিজিংযের অভিযোগ তুলে নিতে বাদিকে প্রাণনাশের হুমকি

প্রকাশিত:Wednesday ২২ December ২০২১ | হালনাগাদ:Wednesday ২৬ January ২০২২ | ১৬৯জন দেখেছেন
Image


মোঃ আব্দুল হান্নানঃ

ব্রাক্ষণবাড়িযা জেলার নাসিরসগরে এক স্কুল ছাত্রীর সাথে ইভটিজিংয়ের ঘটনা ঘটেছে।ওই ঘটনায় ছাত্রীর ভাই রফিকুল ইসলাম বাদি হয়ে ইভটিজারের বিরোদ্বে নাসিরনগর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে প্রভাবশালী ইভটিজারের লোকজন অভিযোগ উঠিয়ে নিতে বাদি ও তার লোকজনকে হুমকি ও চাপ প্রয়োগ করছে বলে বাদি রফিকুল ইসলাম এ প্রতিনিধিকে জানিয়েছে।


ঘটনাটি ঘটেছে ১০ ডিসেম্ভর ২০২১ দুপুর অনুমান ১ ঘটিকার সময় জেলার নাসিরনগর উপজেলার কুন্ডা ইউনিয়নের তুল্লাপাড়া গ্রামে বাদির বাড়ির দক্ষিনে একটু দুরে।বাদির লিখিত অভিযোগে জানা যায় বাদির বোন নবম শ্রেণী পড়ুয়া একজন ছাত্রী।


ঘটনার সময়ে ওই ছাত্রী তার বান্ধবীর বাড়ি থেকে গাইড বই আনতে যায়। ওই ছাত্রীকে তার প্রতিবেশী জেনু পাঠানের বখাটে যুবক তোফাজ্জল পাঠান( ১৮) রাস্তা ঘাটে চলার পথে প্রায়ই উত্যক্ত করে প্রেম নিবেদন করতো।ওই ছাত্রী তাতে সাড়া না দিলে তার কাছে মোবাইল নাম্ভার চাইতো।


ওই ছাত্রী তার কোন মোবাইল নাম্ভার নেই ও সে মোবাইল ব্যবহার করেনা জানালে ঘটনার সময়ে পূর্ব থেকে উৎপেতে থাকা বখাটে তোফাজ্জল তার ভাই মোয়াজ্জিম পাঠানকে নিয়ে ওই ছাত্রীর গতিরোধ করে লাঠি দিযে ছাত্রীর শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে টেনে হ্যাচড়ে কাপড় চোপড় ছিঁড়ে শ্রীলতাহানি করে।পরে ওই ছাত্রীকে নাসিরনগর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে এনে চিকিৎসা শেষ চিকিৎসা সনদ সংগ্রহ করে তার ভাই বাদি হয়ে নাসিরনগর থানা লিখিত অভিযোগ দায়ের করে।


এ বিষয়ে জানতে চাইলে নাসিরনগর থানার এস আই শ্রীবাস দাস জানা ইভটিিংয়ের তেমন কোন আলামত পাওয়া যায়নি।বিষয়টি উভয় পক্ষকে নিয়ে সমঝোতার চেষ্টা করা হচ্ছে।


আরও খবর



সরকার পরিবর্তনের ফয়সালা রাজপথেই : ফখরুল

প্রকাশিত:Friday ৩১ December ২০২১ | হালনাগাদ:Wednesday ২৬ January ২০২২ | ১১৬জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: সরকার পরিবর্তনের ফয়সালা রাজপথেই হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ শুক্রবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি কার্যালয়ে নসরুল হামিদ মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগ সব সময় বলছে অনেক উন্নয়ন করে ফেলেছি। কিন্তু মূল জিনিসটা আমরা হারিয়ে ফেলেছি। সেটা হচ্ছে আমাদের রাজনৈতিক স্বাধীনতা। এই স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনতে হলে এবং স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকে সুসংহত করতে হলে খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং আন্দোলনের কোনো বিকল্প নেই। রাজপথেই এর ফয়সালা হবে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর যে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে রাজনীতি বিতাড়িত করার চেষ্টা করছে তার বিরুদ্ধে আমরা লড়ে যাচ্ছি। এই লড়াই এখন বেগবান হচ্ছে জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে। এই লড়াই অল্প সময়ের মধ্যে একটা দুর্বার গণআন্দোলনে পরিণত হবে।

সভায় বিএনপি চেয়ারপারসনের মুক্তির দাবি করে ফখরুল ইসলাম বলেন, খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই কারণ তিনি একমাত্র নেত্রী যিনি গণতন্ত্রকে প্রতিষ্ঠা করার জন্য নয় বছর আপসহীন সংগ্রাম করেছেন। উড়ে এসে জুড়ে বসে প্রধানমন্ত্রী হননি, মানুষকে সঙ্গে নিয়ে হয়েছেন।

বিএনপির এই নেতা বলেন, এখন যে পার্লামেন্ট আছে, সেই পার্লামেন্টে বিরোধীদল বলতে কিছু নেই। রাজনৈতিক নেতা ও আওয়ামী লীগের নেতারা বলেন, তাদের কোনো মূল্যই নেই। একজন ওসি সরাসরি বলে আপনারা কে? আপনাদের তো আমরাই বানিয়েছি। অর্থাৎ রাজনীতিটা পুরোপুরি সরিয়ে একটা আমলাতান্ত্রিক বা সামরিক আমলাতান্ত্রিক ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে।

মির্জা ফখরুলের সভাপতিত্বে ও সহ-দপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপুর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, সেলিমা রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান শাহজাহান ওমর, নিতাই রায় চৌধুরী প্রমুখ বক্তব্য দেন।


আরও খবর



নীতি দুর্নীতি--এ দায়ভার কার,নেতা- নেত্রীর না জনতার?

প্রকাশিত:Tuesday ১৮ January ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৬ January ২০২২ | ১০৬জন দেখেছেন
Image


মোঃ আব্দুল হান্নানঃ

নির্বাচন আসে,নির্বাচন চলে যায়।সাধারণ জনগণ তাদের মুল্যবান ভোটও সুচিন্তিত মতামত দিয়ে তাদের পছন্দের নেতানেত্রী বা জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করে। তেমনি সারা দেশের ন্যায় ২০২১ সালের ১১ অক্টোবর ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে অনুষ্টিত হয় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন।নির্বাচনে চেয়ারম্যান,মেম্ভার ও সংরক্ষিত মহিলা মেম্ভার পদে অনেকেই প্রতিদ্বন্ধিতা করে, কেউ বিজয়ী আবার কেউ পরাজিত হয়েছে।নির্বাচনে জনগণ তাদের অনেক মুল্যবান ভোট ও সুচিন্তিত মতামত দিয়ে বিভিন্ন ইউনিয়নে  ভাল মানুষকে আবার কোন কোন ইউনিয়নে  বির্তকিত মাদক ব্যবসায়ী আর অযোগ্য লোককেও  মনোনীত করেছেন। আবার কোন কোন ইউনিয়নে ভাল মানুষকে ও রায় না দিয়ে বাড়িতে পাটিয়ে দিয়েছেন।সবই জনগণের ইচ্ছা। 


তারই বাস্তব উদাহরণ স্বরুপ যেমন বিগত নির্বাচনে ফান্দাউক ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ইউপি সদস্য পদে নির্বাচনে অংশ গ্রহন করেন ফান্দাউক গ্রামের কুখ্যাত মাদক ও ইয়াবা ব্যবসায়ী মৃত আরব আলীর ছেলে মোঃ জাকারিয়া জাকির।যার ভয়াল মাদক ব্যবসার ছোবলে ধ্বংস হচ্ছে এলাকার যুব সমাজ।যার ভয়ে মুখ খোলে কেউ কথা বলার সাহস পায়না।২০১৮ সালের ২২ মার্চে যার বাড়িতে জধন এর লোকজন অভিযান চালিয়ে প্রচুর পরিমান ইয়াবা,ফেনসিডিল,ল্যাপটপ,সিসি ক্যামেরা,বিদেশী টর্চলাইট,কয়েকটি পাসর্পোট সহ আরো বিভিন্ন দ্রব্য ও মাদক ব্যবসার প্রায় নগদ ৩ লক্ষ টাকা উদ্বার করে।এসময় জধন এর উপস্থিতি বুঝতে পেরে জাকির সুকৌশলে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।পরে জধন -৯ ইসলামপুর সিলেটের এস আই আল ইমরান বাদি হয়ে জাকারিয়া জাকিরকে আসামী করে নাসিরনগর থানায় মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে  থানার মামলা নং ২৫ তারিখ ২২/৩/২০১৮ রুজু করে।মামলার পর থেকে পালিয়ে যায় জাকির।অনেক দিন পালিয়ে থাকার পর আদালতে হাজিরা দিতে গেলে আদালত জাকিরের জামিন না মঞ্জুর করে জেলহাজতে প্রেরনের নির্দেশ দেন।বেশ কিছু দিন জেলবাস শেষে জামিনে মুক্তি নিয়ে এলাকায় এসে ব্যবসা য়ীক ধরন পাল্টিয়ে সম্পুর্ন নতুন নিয়মে আবারো শুরু করে দেন। বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ইউপি সদস্য পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করলে ফান্দাউক ইউনিয়নের বুদ্বিবান  সচেতন সাধারণ জনগণ  জাকিরকে তাদের মুল্যবান ভোট ও সুচিন্তিত রায় দিয়ে ইউপি সদস্য নির্বাচিত করে তাদের পক্ষে কথা বলতে ও কাজ করতে ইউনিয়ন পরিষদে পাটিয়ে দেয়।

অপরদিকে জনগনের অনুরোধে বুড়িশ্বর ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত ১,২,৩ মহিলা আসন থেকে নির্বাচনে অংশ গ্রহন করেন আশুরাইর গ্রামের সিনিয়র সাংবাদিক পত্নী শিক্ষিত, নম্র, ভদ্র সেলিনা বেগম।
সেলিনা দীর্ঘদিন যাবৎ তার নিজ এলাকার নিরক্ষর বয়স্ক ও শিশুদের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়ি যাচ্ছেন।

মানুষের বিপদে আপদে সব সময় পাশে রয়েছেন।সেলিনার স্বামী একজন স্বনামধন্য সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মী।সে সারা জীবণ মানুষের বিপদে আপদে পাশে থেকে মানুষকে নানা ভাবে সহযোগিতা করে আসছেন।যেমন অন্ধকারাচ্ছন্ন রাস্তায় স্ট্রিট লাইটের মাধ্যমে বিদ্যুতায়িত করা,রাস্তাঘাট সংস্কার করা,মসজিদে অনুধান প্রদান, রোগীর চিকিৎসা সেবা এগিয়ে যাওয়া,বিভিন্ন দুর্যোগে খাবার নিয়ে সাধারণ মানুষের পাশে দাড়ানো,সমাজের অবহেলিত বঞ্চিত,দুস্থ দরিদ্র অসহায মানুষের মাঝে বিধবা ভাতা,বয়স্কভাতা,প্রতিবন্ধীভাতা গর্ভবতীভাতা, শীতে অসহায় মানুষের পাশে কম্বল নিয়ে হাজির হওয়া সহ আরো নানা ধরনের কাজে সহযোগিতা করা যার কাজ। সেই সাংবাদিক পত্নী সেলিনা বেগম নির্বচনে প্রতিদন্ধীতা করলে জনগণ সেলিনাকে তাদের মহামুল্যবান ভোট ও সুচিন্তিত মতামত  দিয়ে পরিষদে না পাটিয়ে একদম সোঁজা ফেল করিয়ে বাড়িতে পাটিয়ে দিয়েছে।

তেমনি ভাবে শুধু ফান্দাউক আর বুড়িশ্বর নয় অনেক ইউনিয়ন পরিষদেই জাকিরের মত লোকজনকে জনগণ ভোট দিয়ে জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করে পরিষদে পাঠিয়েছেন,আবার অনেক পরিষদেই লোকজন সেলিনার মত প্রার্থীকে তাদের মহামুল্যবান ভোট ও মতামত না দিয়ে বাড়িতে ফেল করিয়ে বাড়িতে পাটিয়ে দিয়েছেন।তাহলে এবাব আপনারাই বলেন,নেতা নেত্রী বা জনপ্রতিনিধি নির্বাচনে এ দায়ভার কার? জনতার উপর দিলাম এ বিচারের ভার।


আরও খবর



ডেমরায় ব্যবসায়ীর কাছে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেছে সন্ত্রাসীরা

ডেমরায় ব্যবসায়ীর কাছে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেছে সন্ত্রাসীরা

প্রকাশিত:Friday ১৪ January ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৬ January ২০২২ | ১১১জন দেখেছেন
Image


বজলুর রহমানঃ

রাজধানীর ডেমরা থানা এলাকার একটি সন্ত্রাসী চক্র ড্রেজার ব্যবসায়ী সাইদুর রহমান বাবুলের কাছে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।


চাঁদা দাবীর ঘটনায় সাইদুর রহমান বাবুল বাদী হয়ে ডেমরা থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।ডেমরা থানার মামলা নং-১৫ তারিখ ৯/১১/২০২২ ইং।বাদীর লিখিত এজাহারে বর্নিত বক্তব্যসুত্রে জানাগেছে,ওই ব্যবসায়ীর ম্যানেজার মো. হারুন দাবির চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে চাঁদাবাজরা ড্রেজারের পাইপ ও বিভিন্ন সরঞ্জাম ভাঙচুর করে। ব্যবসা বন্ধ করে দেওয়ার হুমকি দিয়ে চলে যায়। গত ৫ জানুয়ারি ডেমরা এলাকার দুর্গাপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।


ভুক্তভোগী ব্যবসায়ী রোববার রাত ১১টার দিকে অভিযুক্ত ছয়জনসহ অজ্ঞাত ৩-৪ জনের বিরুদ্ধে ডেমরা থানায় মামলা করেন। অভিযুক্তরা হলেন সবুজবাগ থানার বেগুনবাড়ী এলাকার মো. সামসুদ্দিনের ছেলে মো. নিজাম ও তার ছোট ভাই মুসলিম সরদার, একই থানার মানিকদিয়া চেয়ারম্যানবাড়ি এলাকার মো. নাসির, ছদর উদ্দিনের ছেলে ইমাম উদ্দিন, ভাইকদিয়া এলাকার আনিছ মিয়ার ছেলে আজিম মিয়া, একই এলাকার আলমাস আলীর ছেলে নজরুল ইসলাম।


ভাইকদিয়া এলাকার আনিছ মিয়ার ছেলে আজিম মিয়ার নামে বিভিন্ন অভিযোগে সবুজবাগ,রামপুরা,খিলগাঁও থানা সহ বিভিন্ন থানায় মামলা আছে বলে জানায় এলাকাবাসী ।তারা ভুমি জালিয়াত চক্রের সদস্য এবং ঐ এলাকার ভুমিদস্যু বলেও জানায় স্থানীয়রা।


ডেমরা থানার অফিসার ইনচার্জ খন্দকার নাসির উদ্দিন বলেন, ওই ব্যবসায়ী দীর্ঘদিন নদীতে ড্রেজার বসিয়ে এ এলাকার নিম্নাঞ্চলে বালু ভরাটের কাজ করে আসছেন। ওই কাজেই ড্রেজারের পাইপ দিয়ে বালু দুর্গাপুর হয়ে সবুজবাগ এলাকায় টানা হয়। আর এ পাইপে বালু টানাকে কেন্দ্র করে সবুজবাগ থানা এলাকার ওই সন্ত্রাসীরা চাঁদা দাবি করে।


আরও খবর



মাদ্রাসাছাত্রকে রুমে ডেকে নিয়ে বলাৎকার

প্রকাশিত:Friday ০৭ January ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৬ January ২০২২ | ১৩২জন দেখেছেন
Image

ফেনীর দাগনভূঞায় এক মাদ্রাসাছাত্রকে রুমে ডেকে নিয়ে বলাৎকার করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় তিন শিক্ষককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গত বৃহস্পতিবার মাদ্রাসা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। এর আগে ভুক্তভোগী ওই ছাত্রের মা বাদী হয়ে মাদ্রাসার প্রিন্সিপালসহ চার শিক্ষককে আসামি করে দাগনভূঞা থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ভুক্তভোগী মাদ্রাসার হেফজ বিভাগের ছাত্র। সে মাদ্রাসার আবাসিকে থেকে পড়ালেখা করত। গত ৩০ ডিসেম্বর বিকেলে হেফজ বিভাগের শিক্ষক মো. কাউসার ওই ছাত্রকে মসজিদে যাওয়ার আগে রুমে যেতে বলে। ছাত্রটি যখন তার কক্ষে আসে তখন তাকে মাদ্রাসার টয়লেটে নিয়ে বলাৎকার করে।

পরবর্তীতে ছাত্র বিষয়টি তার পরিবারকে জানালে ছাত্রের অভিভাবকেরা মাদ্রাসার প্রিন্সিপালকে জানায়। কিন্তু তারা কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় বৃহস্পতিবার ওই ভুক্তভোগী ছাত্রের মা বাদী হয়ে দাগনভূঞা থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন।

এ ঘটনায় মামলার প্রধান আসামি মো. কাউসার ছাড়া অপর তিন আসামিকে মাদ্রাসা থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আসামিরা হলেন- মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল আব্দুস সত্তার (৪০), শিক্ষক জাকিরুল ইসলাম (৩৯) ও শিক্ষক আফতাব উদ্দিন (৪০)।

দাগনভূঞা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) পার্থ প্রতিম দেব গ্রেপ্তারের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘গ্রেপ্তার আসামিদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।’


আরও খবর



নাসিরনগরের প্রতারক লিটনের বিরোদ্ধে সেলিম চৌধুরীর ১০ লক্ষ টাকা আত্মসাতের মামলা

প্রকাশিত:Sunday ২৩ January ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৬ January ২০২২ | ৮৪জন দেখেছেন
Image


পর্ব-৪

মোঃ আব্দুল হান্নানঃ 

ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলা সদরের আব্দুল গাফ্ফারের ছেলে জধন এর হাতে গ্রেপ্তার হওয়া প্রতারক মোঃ লিটন মিয়া(৩৫) এর বিরোদ্ধে ১০ লক্ষ টাকা আত্মসাতের বিষয়ে আশুরাইল বেণীপাড়া গ্রামের আজব আলী চৌধুরীর ছেলে মোঃ সেলিম চৌধুরী বাদি হয়ে ব্রাক্ষণবাড়িয়ার বিজ্ঞ আদালতে এন,আই  এ্যাক্টের ১৩৮ বিধান মতে আরো একটি চেক জালিয়াতির মামলা করার খবর পাওয়া গেছে।


জানা গেছে বাদী সেলিম চৌধুরী একজন ইট,বালু,পাথর সালপ্লাইয়ার ও আসামী লিটন মিয়া একজন ঠিকাদার।ঠিকাদারী কাজের কথা বলে আসামী লিটন মিয়া বাদী সেলিম চৌধুরীর নিকট থেকে গত ২০১৯ সালের ৯ অক্টোবর নাসিরনগর সোনালী ব্যাংকের ১২১৩০ নম্ভর সঞ্চয়ী হিসাবের ৪২০৪৭৯৭ নম্ভরের একটি চেক প্রদান করে ১০ লক্ষ টাকা গ্রহন করে।ওই তারিখে বাদী সেলিম চৌধুরী নাসিরসগর সোনালী ব্যাংকে গিয়ে চেকটি নগদায়নের চেষ্টা করে।


কিন্তু লিটনের হিসাব নাম্ভারে কোন টাকা না থাকায় চেকটি ডিজনার হয়ে আসে।পরবর্তীতে বাদী সেলিম চৌধুরী আসামী প্রতারক লিটনের কাছ থেকে তার পাওনা টাকা আদায় করতে না পেরে ব্রাক্ষণবাড়িয়ার বিজ্ঞ আদালতে মামলা দায়ের করে।বর্তমানে মামলাটি আদালতে বিচারাধীন রয়েছে বলে বাদী সেলিম চৌধুরী জানিয়েছে।


-খবর প্রতিদিন/ সি.বা 


আরও খবর