Logo
আজঃ Tuesday ২৮ June ২০২২
শিরোনাম
নাসিরনগরে বন্যার্তদের মাঝে ইসলামী ফ্রন্টের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ রাজধানীর মাতুয়াইলে পদ্মাসেতু উদ্ধোধন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল রূপগঞ্জে ভূমি অফিসে চোর রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী নাসিরনগরে পুকুরের মালিকানা নিয়ে দু পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত ৪ পদ্মা সেতু উদ্ভোধন উপলক্ষে শশী আক্তার শাহীনার নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল করোনা শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২ জনের র‍্যাব-১১ অভিমান চালিয়ে ৯৬ কেজি গাঁজা,১৩৪৬০ পিস ইয়াবাসহ ৬ মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করেছে বন্যাকবলিত ভাটি অঞ্চল পরিদর্শন করেন এমপি সংগ্রাম পদ্মা সেতু উদ্বোধনে রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব সভা ॥ শোভাযাত্রা

নাসিরনগরে জোরপূর্বক প্রতিবেশীর জায়গা দখলের অভিযোগে আদালতে মামলা

প্রকাশিত:Saturday ২১ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ১৬৭জন দেখেছেন
Image

মোঃ আব্দুল হান্নানঃ 

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার চাতলপাড় ইউনিয়নের ফেদিয়ারকান্দি গ্রামে জোরপূর্বক প্রতিবেশীর জায়গা দখলের অভিযোগে ৬ জনের বিরোদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের  করা হয়েছে।


 ১৯ মে ২০২২ তারিখে ফেদিয়ার কান্দি গ্রামের মৃত মোজাম্মেল হকের ছেলে মোঃ মাহির ভূঞা বাদী হয়ে প্রতিবেশী আব্দুল কাদিরের ছেলে সৈয়দ মিয়া,সিরাজ মিয়া,রেহমান মিয়া, রেহমানের দুই ছেলে  বিল্লাল মিয়া,খায়ের মিয়া ও ফজলুল হকের ছেলে সফর উদ্দিন এই ৬ জনের বিরোদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পি - ৪৪৩ মামলা দায়ের করে।


মামলা সুত্রে জানা গেছে সকল বিবাদীরা জোটবদ্ধ হয়ে ১৭ মে ২০২২ তারিখ  বিকেল ৪ ঘটিকার সময় দেশীয় প্রাণঘাতি অস্ত্র নিয়ে বাদীর দখলীয় জয়নগর মৌজার ১ দাগের ৪ শতাংশ জায়গা অনধিকার প্রবেশ করে জোরপূর্বক দখলের চেষ্টা চালায়।এ সময় স্বাক্ষীদের সহায়তা বাদী তাদের হাত থেকে নিভৃত পায়।পরে বিবাদীরা জায়গা দখলে ব্যর্থ হয়ে বাদী ও তার পরিবারের লোকজনকে প্রাণনাশের হুমকি প্রদান করে।


আদালত মামলাটি ফৌজদারী কার্য বিধির ১৪৫ ধারায় আমলে নিয়ে দ্বীতিয় পক্ষকে কারন দর্শানোর ও ওসি নাসিরনগরকে উভয় পক্ষের মাঝে শান্তি শৃংখলা বাজায় রেখে আগামী ১৮ জুলাই ২০২২ তারিখের  মধ্যে সরেজমিন পরিদর্শন পূর্বক দখল বিষয়ে আদালতে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।


আরও খবর



কিমকে জবাব দিতে যুক্তরাষ্ট্র-দ. কোরিয়ার ৮ ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ

প্রকাশিত:Monday ০৬ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৭১জন দেখেছেন
Image

উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উনকে জবাব দিতে যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়া আটটি ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে। মূলত পিয়ংইয়ংয়ের যে কোনো উসকানি মোকাবিলায় দেশ দুইটি প্রস্তুত রয়েছে এমন বার্তাই দেওয়া হয়েছে। এর আগের দিন উত্তর কোরিয়াও আটটি ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে। সোমবার (৬ জুন) কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

এক বিবৃতিতে দক্ষিণ কোরিয়ার জয়েন্ট চিফস অব স্টাফ (জেসিএস) জানায়, মিত্ররা স্থানীয় সময় সকালে প্রায় ১০ মিনিট ধরে পূর্ব সাগরে আটটি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে।

জেসিএস জানায়, এ পদক্ষেপের মাধ্যমে যে কোনো ধরনের উসকানি ও হুমকি মোকাবিলার সক্ষমতা ও প্রস্তুতি প্রদর্শন করা হয়েছে। এসময় উত্তর কোরিয়া ধারাবাহিকভাবে যে ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করছে তার নিন্দা করা হয়।

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা নিশ্চিত করেছেন যে আটটি আর্মি ট্যাকটিক্যাল মিসাইল সিস্টেম (এটিএসিএমএস) নিক্ষেপ করা হয়েছে।

পরমাণু ও ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচির কারণে ২০০৬ সাল থেকে যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার মধ্যে রয়েছে উত্তর কোরিয়া। এসব কর্মসূচিতে অর্থায়ন বন্ধ করতে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদও ধারাবাহিকভাবে বিধিনিষেধ বাড়িয়েছে। কিন্তু সব নিষেধাজ্ঞাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে একের পর এক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়ে যাচ্ছে উত্তর কোরিয়া।


আরও খবর



সীতাকুণ্ডে বিস্ফোরণ: প্রাণে বাঁচলেন নাড়িভুঁড়ি বের হওয়া কবীর

প্রকাশিত:Thursday ০৯ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৫৭জন দেখেছেন
Image

সীতাকুণ্ডের বিএম কনটেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণের কিছু সময় পরেই নিজের নাড়িভুড়ি হাতে নিয়ে দুর্ঘটনাস্থলে দাঁড়িয়ে ছিলেন এক যুবক। মুহূর্তের মধ্যেই তার এমন ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়। অসহায় এ যুবকের নাম আহমদ কবীর। বাড়ি ভোলা জেলার চরফ্যাশনে।

পরে তাকে উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালে নেওয়া হয়। হাসপাতালে নেওয়ার পর কবীরের শরীরে রক্তশূন্যতা দেখা দেয়। কমে যায় রক্তচাপও। সেসময় চিকিৎসকদের কাছেও দুঃসাধ্য ছিল কবীরের শরীরে অস্ত্রোপচার করা।

তবে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের একদল চিকিৎসকের নিরলস প্রচেষ্টায় প্রাণ ফিরে পাচ্ছেন আহমদ কবীর। কবীর এখন শঙ্কামুক্ত বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

বৃহস্পতিবার (৯ জুন) দুপুরে সার্জারি ওয়ার্ডের চিকিৎসক ডা. আফতাব উদ্দিন জানান, বিএম ডিপোর ঘটনার দিন রাত পৌনে ১২টায় আহমদ কবীরকে হাসপাতালে পান তারা। রক্তচাপ না থাকায় অস্ত্রোপচার সম্ভব ছিল না। তাৎক্ষণিক রক্ত ম্যানেজ করে তার শরীরে দেওয়া হয়।

এরপর বের হওয়া নাড়িভুঁড়ি পেটের ভেতর ঢুকিয়ে প্রাথমিকভাবে সেলাই করে দেওয়া হয়। ফ্লুইড দিয়ে রক্তচাপ বাড়ানোর চেষ্টা করা হয়। পরদিন রক্তচাপ কিছুটা স্বাভাবিক হলে অস্ত্রোপাচার করা হয়। এসময় পেট কেটে ক্ষতিগ্রস্ত নাড়িভুঁড়ি জোড়া লাগানো হয়। এরপর ধীরে ধীরে তার অবস্থার উন্নতি হতে থাকে।

তবে এখনো ক্ষতস্থানে ইনফেকশনের (সংক্রমণ) ভয় আছে বলে জানান এই চিকিৎসক।

হাসপাতালে আহমদ কবীরের পাশে রয়েছেন তার বৃদ্ধ পিতা সাদেক সর্দার। তিনি জাগো নিউজকে বলেন, আমার ছেলে বিএম ডিপোতে লেবারের কাজ করতেন। হাসপাতালে চিকিৎসা পেলেও সরকারি কোনো সহায়তা পাইনি আমরা। জেলা প্রশাসকের সহায়তা কেন্দ্রে যোগাযোগ করেছি কিন্তু এখনো সহায়তা পাইনি। শ্রম মন্ত্রণালয়ের দেওয়া সহায়তাও পাইনি।

শনিবার (৪ জুন) রাত সাড়ে ৯টার দিকে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে আগুন লাগে। রাত ১০টার পর আগুনের খবর ছড়িয়ে পড়ে। রাত ১২টার পর থেকে মৃতের খবর আসতে থাকে। সময় যত গড়াতে থাকে, মৃতের সংখ্যাও তত বাড়তে থাকে।

সীতাকুণ্ডের বিএম কনটেইনার ডিপোতে ভয়াবহ বিস্ফোরণে নিহতের প্রকৃত সংখ্যা নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হয়। ঘটনার পর এ নিয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত তিন প্রতিষ্ঠান চার রকম তথ্য দেয়। রোববার (৫ জুন) রাতে দেওয়া তথ্য পরদিন সকালে সংশোধন করে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন।

রোববার বিকেল ৫টায় চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. ইলিয়াস চৌধুরী জানান, মৃতের সংখ্যা ৪৯ জন। এরপর সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় জেলা প্রশাসক মমিনুর রহমান জানান, মৃতের সংখ্যা ৪৬ জন। এরও পরে, রাত ৯টায় জেলা প্রশাসনের নোটিশ বোর্ডেও জানানো হয় মৃতের সংখ্যা ৪৬।

কিন্তু সোমবার (৬ জুন) দুপুরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম আহসান জানান, মৃতের সংখ্যা ৪১ জন।

তবে এর আগেই সোমবার সকালে জেলা প্রশাসন নোটিশ বোর্ড সংশোধন করে মৃতের সংখ্যা ৪১ জন বলে জানায়।

এদিকে এ দুর্ঘটনায় মঙ্গলবার আরও দুইজনের মরদেহ উদ্ধার করা হলে মৃতের সংখ্যা দাঁড়ায় ৪৩ জনে। এছাড়া চমেকে আজ দগ্ধ আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৪৪ জনে।


আরও খবর



হজে যাবেন, তাই ভারতের বিপক্ষে খেলবেন না এই ইংলিশ স্পিনার

প্রকাশিত:Friday ২৪ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ২৪জন দেখেছেন
Image

পবিত্র হজ পালনের জন্য মক্কায় যাবেন, এ কারণে ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি সিরিজে পাওয়া যাবে না ইংলিশ স্পিনার রশিদ খানকে। হজ চলাকালীনই ভারতের বিপক্ষে সিরিজ ইংল্যান্ডের। হজ শেষ করে রশিদ দেশে ফিরবেন জুলাইয়ের মাঝামাঝি। ফলে ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি সিরিজে খেলা হবে না তার।

হজে যাওয়া কারণে কাউন্টি ক্রিকেট ক্লাব ইয়র্কশায়ারের হয়েও কিছু ম্যাচ খেলতে পারবেন না আদিল রশিদ। ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের পক্ষ থেকে রশিদকে হজে যাওয়ার জন্য ছুটি দেওয়া হয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে সিরিজের আগে ফিরবেন রশিদ।

হজে যাওয়া নিয়ে এই ইংলিশ স্পিনার বলেন, ‘বেশ কিছুদিন ধরেই ভাবছিলাম হজে যাব। কিছুতেই সময় পাচ্ছিলাম না। এ বছর মনে হল, আমাকে যেতেই হবে। বোর্ডের সঙ্গে কথা বলি, ক্লাবের সঙ্গেও কথা বলি। ওরাও রাজি আমাকে ছাড়তে। দু’সপ্তাহের জন্য আমি এবং আমার স্ত্রী হজে যাব।’

তার কাছে হজ করতে যাওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে জানিয়েছেন রশিদ। তিনি বলেন, ‘আমার কাছে এটা বিরাট মুহূর্ত। প্রতিটা ধর্মেই কিছু বিশ্বাস থাকে। ইসলাম ধর্মে মুসলিমদের জন্য হজ একটা বিরাট জিনিস। বয়স থাকতে থাকতে, শরীরে জোর থাকতে থাকতে হজ করে নেওয়া উচিত। আমি নিজের কাছে দায়বদ্ধ হজ করতে যাওয়ার বিষয়ে।’

ভারতের বিরুদ্ধে ইংল্যান্ডের ১ থেকে ৫ জুলাই অনুষ্ঠিত হবে টেস্ট ম্যাচ। টেস্ট ম্যাচের পর ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি সিরিজ চলবে ৭ থেকে ১৭ জুলাই পর্যন্ত।

যারা মনে করছেন, রশিদের এই সময় দলের সঙ্গে থাকা উচিৎ ছিল, তাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘আমার কখনও মনে হয়নি যে, ভারতের বিরুদ্ধে খেলা রয়েছে, এখন হজ করতে যাব না। আমার সব সময় মনে হয়েছে আমার যাওয়া উচিত। কোন দলের বিরুদ্ধে সিরিজ রয়েছে সেটা নিয়ে ভাবিনি। আমি ক্লাব এবং বোর্ডের সঙ্গে কথা বলেছি। ওরা খুব সহজেই বুঝেছে। দেশ এবং ক্লাবকে যখন পাশে পেয়েছি, তখন তো আর চিন্তা নেই।’

আগামী শনিবারই হজ করার জন্য মক্কায় রওয়ানা হবেন আদিল রশিদ।


আরও খবর



সপ্তাহের রসালাপ: গোপালের দাবা খেলা

প্রকাশিত:Friday ১০ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৪৯জন দেখেছেন
Image

গোপাল ভাঁড় ছিলেন মধ্যযুগে নদিয়া অঞ্চলের একজন প্রখ্যাত রম্য গল্পকার, ভাঁড় ও মনোরঞ্জনকারী। তার আসল নাম গোপাল চন্দ্র প্রামাণিক। তিনি অষ্টাদশ শতাব্দীতে নদিয়া জেলার প্রখ্যাত রাজা কৃষ্ণচন্দ্রের রাজসভায় নিযুক্ত ছিলেন।তিনি ছিলেন সৎ ও বুদ্ধিমান। বুদ্ধি ও সৎসাহস থাকার কারণে রাজা কৃষ্ণচন্দ্র তাকে তার সভাসদদের মধ্যকার নবরত্নদের একজন হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন।

গোপাল মাঝে মাঝে কারো না কারোর সঙ্গে নিজের বাড়ির দাওয়ায় বসে দাবা খেলতো। গোপালের সঙ্গে দাবা খেলার জন্য প্রায়ই কেউ না কেউ দুই মাইল দূর থেকেও হেটে আসতেন।

অন্তত এক বাজি খেলতে না পারলে অথবা কারো সঙ্গে দাবায় হেরে গেলে গোপাল সে রাতে মোটেই ঘুমাতে পারতো না। সারারাত বিছানায় শুয়ে শুয়ে শুধু ছটফট করত।

দাবা খেলায় ভীষণ নেশা গোপালের বলতে গেলে, দাবা খেলার সময় গোপাল বাহ্যজ্ঞানই হারিয়ে ফেলত। একদিন গোপাল দাবা খেলছিল, আর এক চাল দিলেই কিস্তিমাত হয় আর কি?

এমন সময় বাড়ি থেকে একটা চাকর ছুটে এসে খবর দিলে, বাবু তাড়াতাড়ি বাড়ি চলুন। কর্তা মাকে সাপে কামড়েছে। কর্তামা ভীষণ কষ্ট পাচ্ছেন। ডাক্তার আনতে হবে।

গোপাল তখন দাবার নেশায় এমনই মত্ত যে চাল দিতে দিতে চাকরকে বললে, কাদের সাপ? কার হুকুমে কর্তা মাকে কামড়াল? সাপটার বিরুদ্ধে রাজার দরবারে নালিশ ঠুকে দিয়ে, এখনি ছুটে চলে যা একটু পরেই আমি যাচ্ছি।

চাকর বেচারা কর্তাবাবুর কথা শুনে হ্য করে দাড়িয়ে রইল।

লেখা: সংগৃহীত
ছবি: সংগৃহীত

প্রিয় পাঠক, আপনিও অংশ নিতে পারেন আমাদের এ আয়োজনে। আপনার মজার (রম্য) গল্পটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়। লেখা মনোনীত হলেই যে কোনো শুক্রবার প্রকাশিত হবে।


আরও খবর



অপরিবর্তিত থাকলো করমুক্ত আয়সীমা

প্রকাশিত:Thursday ০৯ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৪২জন দেখেছেন
Image

বিগত দুই অর্থবছরের মতো এবারের প্রস্তাবিত বাজেটেও করমুক্ত আয়ের সীমা ৩ লাখ টাকা ধরা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৯ জুন) জাতীয় সংসদ ভবনে ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার জাতীয় বাজেট প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। প্রস্তাবে তিনি এ কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল তার বাজেট বক্তৃতায় বলেন, আপনারা অবগত আছেন ব্যক্তি করদাতার জন্য করমুক্ত আয়সীমা ২০০৯-১০ অর্থবছরে ছিল ১ লাখ ৬৫ হাজার টাকা। এর পর তা নানান সময়ে বেড়ে ২০২০-২১ অর্থবছরে ৩ লাখ টাকা করা হয়। নতুন অর্থবছরেও এই সীমা অপরিবর্তিত থাকছে।

নারী, জ্যেষ্ঠ নাগরিক, শারীরিকভাবে অক্ষম, মুক্তিযোদ্ধা ও তৃতীয় লিঙ্গের ব্যক্তিদের জন্য এই সীমা আরও উচ্চ হবে বলেও জানান তিনি।

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন এলাকার করদাতাদের জন্য ন্যূনতম আয়কর আগের মতই ৫ হাজার টাকাই থাকবে। এছাড়া সিটি কর্পোরেশন এলাকার ব্যক্তি-পর্যায়ে কর আগের মতো ৪ হাজার টাকা থাকবে। অন্যান্য এলাকায় তা ৩ হাজারই থাকছে।

এটি দেশের ৫১তম এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের টানা তৃতীয় মেয়াদে চতুর্থ বাজেট। ২০২১-২২ অর্থবছরে বাজেট বরাদ্দ ছিল ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা। সেই তুলনায় ২০২২-২৩ নতুন বাজেটের আকার বাড়ছে ৭৪ হাজার ৩৮৩ কোটি টাকা।


আরও খবর