Logo
আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

নাইকো মামলায় খালেদার অভিযোগ গঠনের শুনানি ১৪ ফেব্রুয়ারি

প্রকাশিত:সোমবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ২৭০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক; বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নাইকো দুর্নীতি মামলায় পরবর্তী চার্জ শুনানির তারিখ আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি ধার্য করেছেন আদালত। আজ সোমবার ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৯ এর বিচারক শেখ হাফিজুর রহমানের আদালত এই তারিখ ধার্য করেন।

এদিন মামলাটিতে খালেদা জিয়ার পক্ষে চার্জশুনানি জন্য ধার্য ছিল। কিন্তু এদিন খালেদা জিয়ার আইনজীবী সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী অসুস্থ থাকায় আদালতে হাজির হতে পারেননি। এ জন্য তার পক্ষে অ্যাডভোকেট সৈয়দ জয়নুল আবেদীন মেজবাহ শুনানি পেছানোর আবেদন করেন। আদালত সময় আবেদন মঞ্জুর করে চার্জশুনানির পরবর্তী এ তারিখ ধার্য করেন।

কানাডার কোম্পানি নাইকোর সঙ্গে অস্বচ্ছ চুক্তির মাধ্যমে রাষ্ট্রের আর্থিক ক্ষতি ও দুর্নীতির অভিযোগে খালেদা জিয়াসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে ২০০৭ সালে তেজগাঁও থানায় মামলাটি দায়ের করে দুদক। পরের বছরের ৫ মে ওই মামলায় খালেদা জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন দুদকের সহকারী পরিচালক এসএম সাহেদুর রহমান। অভিযোগপত্রে প্রায় ১৩ হাজার ৭৭৭ কোটি টাকার রাষ্ট্রীয় ক্ষতির অভিযোগ আনা হয়।

২০১৭ সালের ২০ নভেম্বর দুর্নীতি দমন কমিশনের স্পেশাল পাবলিক প্রসিকিউটর মোশাররফ হোসেন কাজল আদালতে খালেদা জিয়াসহ মামলার ১১ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের আবেদন জানান।


আরও খবর



যেখানেই দুর্নীতি, সেখানেই প্রতিরোধ জনপ্রশাসন মন্ত্রী ফরহাদ হোসেন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৩২জন দেখেছেন

Image

মজনুর রহমান আকাশ,মেহেরপুর প্রতিনিধি:জনপ্রশাসন মন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেছেন, যেখানেই  দুর্নীতি সেখানেই প্রতিরোধ। যাদের বিরুদ্ধে  দুর্নীতির অভিযোগ উঠবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ডিজিটালাইজেশনের মাধ্যমে প্রতিটি দপ্তরকে  দুর্নীতিমুক্ত করা হবে। নির্বাচনী ইশতেহারে দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী। বৃহম্পতিবার (১ ফেব্রুয়ারী) বিকেলে মেহেরপুর সার্কিট হাউজে গার্ড অনার নেয়ার পর সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে কথাগুলো বলেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর সোনার ও স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে হলে দূর্নীতিকে কখনই প্রশ্রয় দেওয়া যাবে না। ২০০৯ সালে থেকে এ যাত্রা শুরু হছে। মানুষের জীবন মান উন্নয়নের জন্য যে বাধাগুলো আসবে সেগুলোকে এ ৫ বছরে মোকাবেলা করা হবে। আর এ যাত্রার মূল বাধা অনিয়ম দূর্ণীতি। সেগুলোকে কঠোর হস্তে দমন করার প্রত্যয় ব্যাক্ত করেন মন্ত্রী। সেবার মান বৃদ্ধি ও দ্রুত সেবা প্রদান করতে পারলে দেশকে দুর্ণীতি মুক্ত করা সম্ভব বলেও মনে করেনন তিনি।  
বিকেলে মন্ত্রী মেহেরপুরে সার্কিট হাউজে পৌঁছালে পুলিশের একটি চৌকশ দল তাঁকে গার্ড অব অনার প্রদান করেন। এ সময় সেখানে উপস্থি ছিলেন, জেলা প্রশাসক শামীম হাসান, পুলিশ সুপার এস. এম, নাজমুল হক, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমএ খালেক।
পরে মন্ত্রী শহরের ডঃ সামসুজ্জোহা পার্কে এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগদান করেন।

আরও খবর



বাংলাদেশের সঙ্গে কাজ করা নিয়ে যে বার্তা দিল যুক্তরাষ্ট্র

প্রকাশিত:শুক্রবার ০২ ফেব্রুয়ারী 2০২4 | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ১৩৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে কাজ করার দায়িত্ব যুক্তরাষ্ট্রের আছে বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র ম্যাথু মিলার। গতকাল বৃহস্পতিবার (০১ ফেব্রুয়ারি) দেশটির পররাষ্ট্র দপ্তরের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এক সাংবাদিকের করা প্রশ্নের জবাবে এসক কথা বলেন তিনি।

এক সাংবাদিক মিলারকে প্রশ্ন করেন, বাংলাদেশ প্রসঙ্গে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্রের সর্বশেষ প্রেসনোটে যেমনটা তিনি দেখেছেন যে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের সঙ্গে বিভিন্ন নিরাপত্তা ক্ষেত্রে কাজ করতে আগ্রহী। এই ক্ষেত্রগুলোর মধ্যে আছে সন্ত্রাস দমন, সীমান্ত নিরাপত্তা, সাইবার নিরাপত্তা, সামুদ্রিক নিরাপত্তা ও আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা। প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত না জানিয়ে বাংলাদেশের নতুন সরকারের সঙ্গে বৃহত্তর প্রেক্ষাপটে যুক্তরাষ্ট্রের কাজ করাটা কীভাবে সম্ভব?

জবাবে মিলার জানান, সারা বিশ্বেই যুক্তরাষ্ট্রের এ ধরনের সম্পর্ক রয়েছে। বাংলাদেশের নির্বাচন নিয়ে তারা উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন, তারা বাংলাদেশে দমন–পীড়ন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন; তার অর্থ এই নয় যে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে কাজ করার দায়িত্ব যুক্তরাষ্ট্রের নেই।

তিনি বলেন, যেসব ক্ষেত্র নিয়ে উদ্বেগ আছে, সেগুলোতে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে কাজ করার দায়িত্ব যুক্তরাষ্ট্রের আছে। আবার যুক্তরাষ্ট্র যেসব ক্ষেত্রে সহযোগিতা করতে পারে বলে মনে করে, অভিন্ন স্বার্থ আছে বলে মনে করে, সে ক্ষেত্রগুলোতেও কাজ করার দায়িত্ব আছে।

ব্রিফিংয়ে আরেক প্রশ্নে বলা হয়, মুখপাত্র জানেন, মিয়ানমার এখন একটি যুদ্ধক্ষেত্র। সেখানে জান্তার সঙ্গে অন্য পক্ষের যুদ্ধ চলছে। এ কারণে মিয়ানমার থেকে আরও রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করতে চলেছে। হেলিকপ্টারসহ মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর সদস্যেরাও অনুপ্রবেশ করছেন। সেখানকার পরিস্থিতি নিয়ে মুখপাত্রের কোনো মন্তব্য আছে কি, তবে মিলার জানান, এ প্রশ্নের বিষয়ে বিস্তারিত পরে বলবেন তিনি।


আরও খবর



ফুলবাড়ীতে বিদ্যুৎ অফিসে চাকুরী স্থায়ী করণের দাবীতে কর্মবিরতি

প্রকাশিত:শনিবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৬৮জন দেখেছেন

Image

ফুলবাড়ী, দিনাজপুর প্রতিনিধি:দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে নেসকো বিদ্যুৎ অফিসে (পিচরেট) কর্মচারীদের চাকুরী স্থায়ী করণের দাবীতে অনির্দিষ্ট কালে জন্য কর্মবিরতি। গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় ফুলবাড়ী নেসকো বিদ্যুৎ অফিস চত্তরে (পিচরেট) কর্মচারীদের চাকুরী স্থায়ী করনের দাবীতে অনির্দিষ্ট কালের জন্য কর্মবিরতি পালন করেন। কর্মবিরতি পালন কালে (পিচরেট) কর্মচারী হারুন বলেন, আমরা দীর্ঘ ১০বছর ধরে ফুলবাড়ী নেসকো বিদ্যুৎ অফিসে কর্মরত থেকে সততা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করে আসছি। আমরা মাইলকে মাইল গ্রামে গিয়ে প্রতিটি বাড়ীতে গ্রাহকের লাগানো নেসকো কোম্পানির মিটার গুলি দেখে বিল করি। এভাবে ১০বছর কেটে গেল। আমাদের সনদ পত্রের বয়স ও শেষ হয়ে গেছে। মাননীয় এমডি মহোদয় কর্তৃক (পিচরেট) কর্মচারীদের চাকুরী স্থায়ী করণ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল।কিন্তু এখন পর্যন্ত তা বাস্তবায়ন করা হয় নি। তাই চাকুরী স্থায়ী করণের জন্য আমরা মাননীয় এমডি মহোদয়ের কথার পরিপেক্ষিতে কোন আন্দোলনে যাই নি। রুটি রুজির কারণে আজ আমরা আন্দোলনে যেতে বাধ্য হচ্ছি।

মাননীয় প্রধান মন্ত্রী ও বিদ্যুৎ ও জ্বালানী প্রতিমন্ত্রীর কাছে আমাদের অনুরোধ আমাদের রুটি রুজি যাতে হয় এ কারণে আমরা চাকুরী স্থায়ী করণের দাবী জানাচ্ছি। এদিকে চাকুরী স্থায়ী করণের অনির্দিষ্ট কালের জন্য কর্মবিরতি আয়োজনে পিচরেট কর্মচারী ঐক্য পরিষদ রাজশাহী ও রংপুর বিভাগ নেসকো পি.এল.সি বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ ফুলবাড়ী ঐক্য পরিষদ বিদ্যুৎ অফিসে মানব বন্ধন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, পিচরেট কর্মচারী মোঃ ফয়সাল, মোঃ শাহাদত, মোঃ পারভেজ, মোঃ রাকিব, মোঃ ফিরোজ, মোঃ রুবেল ও মোঃ সোহাগ। আয়োজনে ছিলেন পিচরেট কর্মচারী ঐক্য পরিষদ রাজশাহী-রংপুর বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ পি.এল.সি ফুলবাড়ী, দিনাজপু। এ সময় প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রিক মিডিয়ার সাংবাদিক বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



সগিরা মোর্শেদ হত্যা মামলার রায় আবারও পেছাল

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৬৯জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:সগিরা মোর্শেদকে ঢাকার সিদ্ধেশ্বরীতে পারিবারিক দ্বন্দ্বে গুলি করে হত্যা মামলার রায় আবারও পিছিয়েছে।

মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) ঢাকার বিশেষ দায়রা জজ মোহাম্মদ আলী হোসাইনের আদালতে এ মামলার রায় ঘোষণার দিন ধার্য ছিল। কিন্তু বিচারক ছুটিতে থাকায় আগামী ১৩ মার্চ রায়ের জন্য নতুন তারিখ রাখা হয়েছে।

আসামিপক্ষের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল সংবাদমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছেন।

এর আগে, দুই পক্ষের যুক্তি উপস্থাপন শেষে ২৫ জানুয়ারি রায় ঘোষণার জন্য ৮ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করেন আদালত। কিন্তু ওইদিন রায় প্রস্তুত না হওয়ায় বিচারক রায় ঘোষণা পিছিয়ে ২০ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করেন।

১৯৮৯ সালের ২৫ জুলাই সগিরা মোর্শেদকে গুলি করে হত্যা করা হয়। ওই ঘটনায় রমনা থানায় মামলা করেন সগিরা মোর্শেদের স্বামী সালাম চৌধুরী।

মামলার আসামিরা হলেন- সগিরা মোর্শেদের ভাসুর ডা. হাসান আলী চৌধুরী ও তার স্ত্রী সায়েদাতুল মাহমুদা ওরফে শাহিন, শ্যালক আনাছ মাহমুদ রেজওয়ান, মারুফ রেজা ও মন্টু মণ্ডল ওরফে কুঞ্জ চন্দ্র মণ্ডল। আসামিদের মধ্যে আনাস মাহমুদ এবং মারুফ রেজা কারাগারে, অন্যরা জামিনে।

জানা গেছে, ১৯৮৯ সালের ২৫ জুলাই সগিরা মোর্শেদ ভিকারুননিসা নূন স্কুল থেকে মেয়েকে আনতে যাচ্ছিলেন। বিকেলে সিদ্ধেশ্বরী রোডে পৌঁছালে মোটরসাইকেলে আসা ব্যক্তিরা তার হাতের সোনার চুড়ি ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন। তখন তিনি দৌড় দিলে তাকে গুলি করা হয়। পরে হাসপাতালে নেওয়ার পথেই সগিরা মোর্শেদ মারা যান।

২০২০ সালের ১৬ জানুয়ারি মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এতে উল্লেখ করা হয়, সগিরা মোর্শেদের পরিবারের সঙ্গে আসামি শাহীনের বিভেদ তৈরি হয়েছিল। এছাড়া শাশুড়ি সগিরাকে অপছন্দ করতেন এবং শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে সগিরা-শাহীনের মধ্যে দ্বন্দ্ব ছিল। আসামিরা নিজেদের বাসায় বসে সগিরাকে হত্যার পরিকল্পনা করেন। পরিকল্পনা অনুযায়ী ডা. হাসান আলী তার চেম্বারে অন্য আসামি মারুফ রেজার সঙ্গে ২৫ হাজার টাকায় হত্যার চুক্তি করেন।

এরপর ২০২১ সালের ২ ডিসেম্বর ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশের আদালত সগিরা মোর্শেদের ভাসুরসহ চারজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। এর মধ্যদিয়ে দীর্ঘ ৩১ বছর পর এ মামলার আনুষ্ঠানিক বিচারকাজ শুরু হয়।

মামলাটিতে ৫৭ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৭ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করেন আদালত।


আরও খবর



মাগুরায় ১০২ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার মহিলা মাদক ব্যবসায়ী আটক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৬১জন দেখেছেন

Image

স্টাফ রিপোর্টার মাগুরা থেকে:মাগুরা গোয়েন্দা পুণিশ মাদক বিরোধী অভিযানে ১  জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ও ১০২ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করেছে।

মাদক নির্মূলে মাগুরা জেলা পুলিশ সুপারের জিরো টলারেন্স নীতি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে জেলা ডিবি পুলিশের  এসআই কাজী শামসুল আলম, এর নেতৃত্বে একটি টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার  বেলা অনুমান দুই ঘটিকার সময় মাগুরা সদর থানাধীন পৌরসভাস্থ মাগুরা বাস টার্মিনালের সামনে হতে অভিযান পরিচালনা করে ১০২  বোতল ফেন্সিডিল সহ মাদকব্যবসায়ী  বিপাশা খাতুন(২৪) পিতা- মোঃ নেছার দোল্লা সাং-আমুড়িয়া, থানা-মাগুরা,জেলা-মাগুরাকে গ্রেফতার করেন।

এ সংক্রান্তে সংশ্লিষ্ট থানায় মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮-এ মামলা করা হয়েছে।


আরও খবর