Logo
আজঃ সোমবার ২৪ জুন 20২৪
শিরোনাম

মোবাইলে ইন্টারনেট প্যাকেজ নিয়ে বিটিআরসির নতুন সিদ্ধান্ত

প্রকাশিত:বুধবার ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৩৫৫জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহারে নতুন করে সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে  বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। প্রতিষ্ঠানটি ডেটাভিত্তিক প্যাকেজের সংখ্যা কমিয়ে সর্বোচ্চ ৪০টি করতে যাচ্ছে। এখন চার মেয়াদেপ্যাকেজ আছে। তবে নতুন করে দুই মেয়াদের প্যাকেজ করা হচ্ছে। পাশাপাশি সীমাহীন মেয়াদের (আনলিমিটেড) প্যাকেজটি থাকছে।

তবে  বিটিআরসির এই নতুন সিদ্ধান্তে প্যাকেজের দামও বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন অপারেটররা।

বিটিআরসির নতুন নির্দেশিকায় প্যাকেজ সংখ্যা সর্বোচ্চ ৪০ এবং মেয়াদ ৭, ৩০ দিন এবং আনলিমিটেড করা হচ্ছে। 

প্রতিষ্ঠানটি গ্রাহকপর্যায়ে অনলাইনে জরিপ করে জানিয়েছিল, বেশিসংখ্যক গ্রাহক ইন্টারনেট প্যাকেজের সংখ্যা ৪০ থেকে ৫০টির মধ্যে রাখার মধ্যে। বেশির ভাগ গ্রাহক চান, ইন্টারনেট প্যাকেজের মেয়াদ হওয়া উচিত তিনটি—৭ দিন, ৩০ দিন ও নির্দিষ্ট মেয়াদহীন (আনলিমিটেড)।

বিটিআরসি এই সিদ্ধান্ত আগামী ১৫ অক্টোবর থেকে কার্যকর হবে। এর আগে আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর বিটিআরসি আনুষ্ঠানিকভাবে নির্দেশিকা সম্পর্কে সবাইকে জানাবে।


আরও খবর



জলাবদ্ধতা নাগরিক ভোগান্তি নিরাসনে কাজ করছেন ৬৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১৩৮জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হাসানঃ 

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৬৪ নং ওয়ার্ডের  জলাবদ্ধতা ও নাগরিক ভোগান্তি নিরসনে কাজ করে যাচ্ছেন বর্তমান কাউন্সিলর আলহাজ্ব মাসুদুর রহমান মোল্লা বাবুল। গত কয়েকদিনে প্রাকৃতিক দুর্যোগ ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে ভারী বৃষ্টিপাতে এলাকার রাস্তাঘাট পানিতে ডুবে যাওয়ার পর নিজ ওয়ার্ডে এই কর্মকাণ্ড পরিচালনা করেন তিনি। রাস্তাঘাট ও ড্রেনের জমে থাকা পানি নিষ্কাশনে দ্রুত উদ্যোগ গ্রহণ করেন। তার দ্রুত হস্তক্ষেপের কারণে ভোগান্তির হাত থেকে রেহাই পেয়েছেন সাধারণ মানুষ। এলাকায় অত্যন্ত জনপ্রিয় ব্যক্তি আলহাজ্ব মাসুদুর রহমান মোল্লা বাবুল। বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে তাদের পরিবারের বিশাল ভূমিকা রয়েছে। তার আপন ভাই প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হাবিবুর রহমান মোল্লা এবং আরেক ভাই শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধা হাফিজুর রহমান অলি।ঢাকা-৫ আসনের বর্তমান সাংসদ আলহাজ্ব মশিউর রহমান মোল্লা সজল তার বড় ভাইয়ের ছেলে। আলহাজ মাসুদুর রহমান মোল্লা বাবুল এই এলাকায় রাস্তাঘাটের উন্নয়ন, জলাবদ্ধতা নিরসন, মশক নিবারণ, সামাজিক ন্যায়বিচার নিশ্চিত সহ নানা ধরনের সংস্কার মূলক কর্মকাণ্ড করে প্রশংসায় ভাসছেন।ডিএসসিসি ৬৪ নম্বর ওয়ার্ড যাত্রাবাড়ী ও ডেমরা থানায় অবস্থিত। সাবেক মাতুয়াইল ইউপির ৪নং ওয়ার্ডের কোনাপাড়া, পুরাতন পাড়াডগাইর, ৫নং ওয়ার্ডের আইআর টিউবস ফ্যাক্টরি, ধার্মিকপাড়া, সিটি মিলস, মল্লিকপাড়া, ৬নং ওয়ার্ডের পাড়াডগাইর নতুনপাড়া এলাকা নিয়ে গঠিত হয়েছে।ওয়ার্ডে ভোটার সংখ্যা ২৪ হাজার ৫৪১ জন হলেও প্রায় লক্ষাধিক লোকের বসবাস। এই বিশাল একটি জনগোষ্ঠীর জনপ্রতিনিধি হিসেবে আলহাজ্ব মাসুদুর রহমান মোল্লা বাবুল নিবেদিত প্রাণ একজন সমাজ সেবক ও জনপ্রতিনিধি।


আরও খবর



ওয়েবপোর্টাল আপডেট রাখতেই হবে কুষ্টিয়ার ডিসি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৯২জন দেখেছেন

Image
কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধিঃ১০ জুন ২০২৪ তারিখ জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষ, কুষ্টিয়ায় আয়োজিত হয় জেলা পর্যায়ের দপ্তরসমূহের ওয়েবপোর্টাল হালনাগাদকরণ বিষয়ক সেমিনার। সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন জেলা পর্যায়ের ২০ টি দপ্তরের প্রতিনিধিগণ। সেমিনারের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মো: এহেতেশাম রেজা।

আরও খবর



চতুর্থ ধাপে ৬০ উপজেলায় ভোট আজ

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১৬৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদের চতুর্থ ধাপে ভোটগ্রহণ আজ বুধবার (৫ জুন)। সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত দেশের ৬০টি উপজেলায় ভোট অনুষ্ঠিত হবে। অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন আয়োজনের সব প্রস্তুতি এরইমধ্যেই শেষ করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। নির্বাচন উপলক্ষে মঙ্গলবার (৪ জুন) রাতেই দুর্গম এলাকার ১৯৭টি কেন্দ্রে ব্যালট পেপারসহ নির্বাচনি সরঞ্জাম পাঠিয়েছে কমিশন। ভোটের দিন ভোরে বাকি কেন্দ্রগুলোতে এসব সরঞ্জাম পাঠানো হচ্ছে।

চতুর্থ ধাপে ৬০টি উপজেলায় একজন চেয়ারম্যান, তিন জন ভাইস চেয়ারম্যান ও একজন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান এরইমধ্যেই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। এ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ২৫১ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২৬৫ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২০৫ জনসহ মোট ৭২১ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ৫৮টি পৌরসভা ও ৮৭৪টি ইউনিয়নের ২ কোটি ১৭ লাখ ৩৪ হাজার ২৫৫ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। নির্বাচনে ভোটকেন্দ্র রয়েছে ৭ হাজার ৮২৫টি।

নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মোট বিজিবি মোতায়েন থাকছে ১৬৬ প্লাটুন। ভোটকেন্দ্রে মোট পুলিশ সদস্য মোতায়েন থাকবে ১৯ হাজার ৪৭৮ জন, মোবাইল টিমে মোট পুলিশ সদস্য মোতায়েন থাকবে ৬ হাজার ৩ জন, স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মোট পুলিশ সদস্য মোতায়েন থাকবে ২ হাজার ৬৭৩ জন। সর্বমোট পুলিশ সদস্য মোতায়েন থাকবে ৪১ হাজার ৩৭৯ জন। মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মোট র‌্যাব মোতায়েন থাকবে ১৫৪টি টিম। ভোটকেন্দ্র এবং মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মোট আনসার সদস্য মোতায়ন থাকবে ৬৬ হাজার ৫৭৯ জন। নির্বাচনে স্বাভাবিক এলাকার ভোটকেন্দ্রে পুলিশ, আনসারসহ মোট ১৭ জন সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। আর গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ১৮-১৯ জন সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। বিশেষ এলাকার (পার্বত্য ও দুর্গম এলাকা) সাধারণ কেন্দ্রে ১৯ জন ও গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ২০-২১ জন সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন।

নির্বাচন উপলক্ষে মঙ্গলবার রাত ১২টা থেকে বুধবার রাত ১২টা পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট নির্বাচনি এলাকায় ট্যাক্সিক্যাব, মাইক্রোবাস, পিকআপ, ট্রাক, লঞ্চ, ইঞ্জিনচালিত বোট (নির্দিষ্ট রুটে চলাচলকারী ব্যতীত) অন্যান্য যানবাহন চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ইসি। তাছাড়া সংশ্লিষ্ট নির্বাচনি এলাকায় ভোটগ্রহণের দুদিন আগে থেকে ভোটগ্রহণের পরদিন মধ্যরাত পর্যন্ত মোটরসাইকেল চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে।


আরও খবর



অভিনেত্রী সীমানা মারা গেছেন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১২৭জন দেখেছেন

Image

বিনোদন ডেস্ক:অভিনেত্রী রিশতা লাবনী সীমানা আর নেই। মঙ্গলবার (৪ জুন) সকাল ৬টায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

গণমাধ্যমকে তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেন সীমানার ছোট ভাই এজাজ বিন আলী। মৃত্যুকালে সীমানা স্বামী, দুই ছেলে রেখে গেছেন।

জানা গেছে, গত মে মাসে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হলে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস হাসপাতালে ৮ দিন চিকিৎসাধীন ছিলেন সীমানা। অবস্থার অবনতি হলে ২৯ মে এই অভিনেত্রীকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে এই অভিনেত্রীকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে ভেন্টিলেশনে শেষ চেষ্টা হিসেবে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। কিন্তু আর ফেরা হলো না সীমানার।

উল্লেখ্য, ২০০৬ সালে লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রতিযোগিতার মাধ্যমে শোবিজে পা রাখেন সীমানা। এরপর থেকে তিনি নাটক, বিজ্ঞাপনে নিয়মিত কাজ করেন। তৌকীর আহমেদ পরিচালিত ‘দারুচিনি দ্বীপ’ তার প্রথম সিনেমা। ২০১৯ সালে দ্বিতীয় বিয়ের পর আবারও কাজে ফেরেন এই অভিনেত্রী। গত বছর ‘রোশনী’ নামের একটি সিনেমাতে অভিনয় করেছেন।


আরও খবর



বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে বিতরণ করা হবে ৫০ লাখ চারা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২২ জুন ২০২৪ | ১৩৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:বিশ্ব পরিবেশ দিবস দেশজুড়ে ৫০ লাখ চারা বিতরণ করবে দেশের বেসরকারি খাতের সবচেয়ে বড় বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি ‘বনায়ন’। গত ৪৪ বছর ধরে পরিবেশ রক্ষায় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে এ উদ্যোগ।

জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাবের মোকাবিলা করছে বাংলাদেশ। বাড়ছে ঘূর্ণিঝড়, বন্যা, তাপপ্রবাহ ও মরুকরণের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগ। গাছের সংখ্যা বৃদ্ধি জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব কমিয়ে আনতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে এবং পরিবেশ রক্ষা ও বিপর্যয় মোকাবিলায় বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির ভূমিকা অপরিসীম। এক্ষেত্রে, ‘বনায়ন’ কর্মসূচি গত চার দশকেরও বেশি সময় ধরে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে।

জাতিসংঘ পরিবেশ কর্মসূচির (ইউএনইপি) নেতৃত্বে পরিবেশ নিয়ে সবচেয়ে বড় আন্তর্জাতিক আয়োজন হিসেবে বিশ্ব পরিবেশ দিবস উদযাপিত হয়। বিশ্বজুড়ে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব রোধে সরকার ও অন্যান্য সকল অংশীদারদের অনুপ্রাণিত ও সচেতন করার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখে এ দিবস।

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলায় কৌশলগত নানা লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে সরকার। এই লক্ষ্যকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে দেশের ১৯টি নার্সারি থেকে ৫০ লাখ চারাগাছ প্রস্তুত করেছে ‘বনায়ন’। একইসাথে, এই প্রচেষ্টা জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার (এসডিজি) ১৫ নং লক্ষ্য (স্থলজ জীবন) তথা দেশের ২৫ শতাংশ ভূমিকে গাছপালায় ঢাকা সবুজ অঞ্চল হিসেবে গড়ে তোলার উদ্দেশ্য বাস্তবায়নেও সহায়ক ভূমিকা পালন করছে।

‘বনায়ন’ কর্মসূচির মুখপাত্র আহমেদ রায়হান আহসানউল্লাহ বলেন, “বিশ্ব পরিবেশ দিবস জলবায়ুর ভারসাম্য রক্ষায় সমন্বিত ও সামগ্রিক কৌশল গ্রহণের প্রয়োজনীয়তার গুরুত্ব তুলে ধরে। সম্ভাবনাময় আগামী নিশ্চিতে আমাদের প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে ‘বনায়ন’ কর্মসূচির অধীনে এ বছর আবারও আমরা ৫০ লাখ চারা বিতরণ করব। বাস্তুসংস্থানের পুনরুদ্ধারে দেশজুড়ে বনায়নের প্রচেষ্টাকে আরও জোরদার করে তুলতে সরকারের পাশাপাশি কাজ করার সুযোগ পেয়ে আমরা গর্বিত। এক্ষেত্রে, সবাই একযোগে কাজ করতে পারলে শীঘ্রই ২৫ শতাংশ গাছপালায় ঢাকা ভূমির লক্ষ্য অর্জন করতে পারবো বলে আশাবাদী আমরা।”

পরিবেশের সুরক্ষা ও বৈচিত্র্য নিশ্চিত করা এবং জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবিলায় ১৯৮০ সালে ‘বনায়ন’ কর্মসূচির যাত্রা শুরু হয়। এই কর্মসূচির আওতায় এখন পর্যন্ত দেশজুড়ে বিনামূল্যে ১২ কোটি ৫০ লাখ ফলজ, বনজ ও ঔষধি গাছের চারা বিতরণ করা হয়েছে; গড়ে তোলা হয়েছে ১১৯টি ঔষধি গাছের বাগান।

বর্তমানে ঢাকা, ময়মনসিংহ, মানিকগঞ্জ, টাঙ্গাইল, রংপুর, রাজশাহী, লালমনিরহাট, নাটোর, কুষ্টিয়া, ঝিনাইদহ, মেহেরপুর, যশোর, চট্টগ্রাম, বান্দরবান, খাগড়াছড়ি, কক্সবাজার, রাঙ্গামাটি ও নোয়াখালি (সুবর্ণচর) সহ দেশের মোট ২৪টি জেলায় ‘বনায়ন’-এর কার্যক্রম চলমান রয়েছে। জলবায়ু বিপর্যয় মোকাবিলায় ধারাবাহিক প্রচেষ্টা এবং পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য রক্ষায় ইতিবাচক ভূমিকা রাখার স্বীকৃতি হিসেবে বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পুরস্কার অর্জন করেছে ‘বনায়ন’ কর্মসূচি। এর মধ্যে রয়েছে- প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কার (পাঁচবার), প্রধান উপদেষ্টার জাতীয় পুরস্কার, এসডিজি ব্র্যান্ড চ্যাম্পিয়নশিপ অ্যাওয়ার্ড ২০২৩, ‘এন্টারপ্রাইজ এশিয়া’ থেকে গ্রিন লিডারশিপের জন্য ‘এশিয়া রেসপনসিবল অন্ট্রাপ্রনারশিপ অ্যাওয়ার্ড’ এবং এসডিজি ইনক্লুশন ক্যাটাগরিতে ‘বাংলাদেশ ইনোভেশন অ্যাওয়ার্ড ২০২১।’

একটি সম্ভাবনাময় আগামী নিশ্চিত করতে ‘বনায়ন’ কর্মসূচির নিরলস প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব রোধে সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসহ সকল অংশীদারের সাথে একযোগে কাজ করবে এই বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি।


আরও খবর