Logo
আজঃ Wednesday ১০ August ২০২২
শিরোনাম
নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ২৪৩৫ লিটার চোরাই জ্বালানি তেলসহ আটক-২ নাসিরনগরে বঙ্গ মাতার জন্ম বার্ষিকি পালিত রূপগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কাউন্সিলর সামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু ৬৫ নং ওয়ার্ডে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসুচীতে অংশগ্রহন করেন চান্দিনা থানায় আট কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নাসিরনগরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ নাসিরনগর বাজারে থানা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ মার্কেটে দুই কাপড় দোকানে দুর্ধষ চুরি। ই প্রেস ক্লাব চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটির মতবিনিময় সম্পন্ন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬ কেজি গাঁজাসহ হাইওয়ে পুলিশের হাতে আটক এক। সোনারগাঁয়ে পুলিশ সোর্স নাম করে ডাকাত শাহ আলমের কান্ড

মহাসাগরের গভীরে লুকিয়ে আছে যত রহস্য

প্রকাশিত:Wednesday ০৮ June ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ১১০জন দেখেছেন
Image

আজ বিশ্ব মহাসাগর দিবস। ২০০৮ সালের ৮ জুন থেকে জাতিসংঘ কর্তৃক পালিত হয়ে আসছে বিশ্ব মহাসাগর দিবস। পৃথিবীপৃষ্ঠের প্রায় ৭০ শতাংশ জুড়ে থাকা বিশাল জলরাশির গুরুত্ব ও রক্ষণাবেক্ষণের লক্ষ্যে জনসচেতনতা বাড়াতেই এই দিবস উদযাপন করা হয়।

এই দিবসের মূল লক্ষ্য হলো বিশ্বের ৫ মহাসাগর- প্রশান্ত মহাসাগর, আটলান্টিক, ভারতীয়, আর্কটিক ও দক্ষিণ (অ্যান্টার্কটিক) মহাসাগর ও এর জলজ প্রাণীদেরকে রক্ষা করা।

মহাসাগর সম্পর্কে আমরা অনেক কিছুই জানি, আবর এমন অনেক তথ্য অজানাও আছে। যেমন- সাগরের পানি আদৌ নীল নয় কিংবা মহাসাগরের তলেও আছে ঝরনা, হৃদ, নদী, আগ্নেগিরি, গভীর খাদ, সোনাসহ আরও অনেক কিছু। চলুন তবে জেনে নেওয়া যাক মহাসাগরের গভীরে লুকিয়ে থাকা কিছু রহস্য সম্পর্কে-

>> সাগরের নীলাভ রং দেখে সবাই মোহগ্রস্ত হয়ে পড়েন। তবে জানলে অবাক হবেন, সাগরের নিজস্ব কোনো রং নেই। সূর্যের কারণেই সমুদ্রে একটি নীল আভা তৈরি হয়।

সূর্যের লাল ও কমলা রং সাগরের অনেক গভীর পর্যন্ত প্রবেশ করতে পারে। ফলে আপনি যত নীচে যাবেন সমুদ্র আরও নীল দেখাবে। সাগরের পানিতে আলো শোষণ করার জন্য পর্যাপ্ত অণু থাকে বলেই তা রং ধারণ করতে পারে।

>> সমুদ্রের গভীরতম অংশটি সত্যিই, সত্যিই গভীর। এ বিষয়েও অনেকেরই ধারণা নেই। মারিয়ানা ট্রেঞ্চকে বিশ্বের মহাসাগরের গভীরতম অংশ পৃথিবীর গভীরতম বিন্দু হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

ট্রেঞ্চের অভ্যন্তরে চ্যালেঞ্জার ডিপ নামে পরিচিত একটি উপত্যকা আছে, যা পৃষ্ঠের নীচে প্রায় ৭ মাইল (৩৬ হাজার ফুট) বিস্তৃত।

জানলে অবাক হবেন, মাউন্ট এভারেস্টও নাকি ঢুকে যেতে পারে এই খাদে। ২০১৯ সালে ভিক্টর ভেসকোভো সমুদ্রের গভীরতম অংশে পৌঁছানো প্রথম ব্যক্তি হয়ে ইতিহাস তৈরি করেছিলেন।

তবে তিনি এই খাদের ৩৫ হাজার ফুট পর্যন্ত পৌঁছাতে পারেন। আজও এই খাদের সর্বশেষ অংশে কেউ পৌঁছাতে পারেননি।

>> মহাসাগরের তলদেশে একাধিক হ্রদ ও নদী আছে। সমুদ্রের কিছু পৃষ্ঠে এমন দর্শনীয় স্থান আছে যা দেখলে সবার চোখ কপালে উঠে যাবে।

এসব নদী-হ্রদের কয়েকটি মাইলের পর মাইল দীর্ঘ। সমুদ্রের তলদেশ থেকে পানি উঠে যায় ও লবণের স্তরগুলোকে দ্রবীভূত করার মাধ্যমেই এসব নদী-হৃদের সৃষ্টি হয়।

>> সমুদ্রেও নাকি সোনা আছে। তাও আবার মিলিয়ন টন। তবে তা অস্পৃশ্য। তাই চাইলেও সাগরের তলদেশ থেকে সোনা উদ্ধার করা সম্ভব নয়।

>> পৃথিবীর বৃহত্তম জলপ্রপাত আটলান্টিক মহাসাগরে। আটলান্টিক মহাসাগরের ডেনমার্ক প্রণালীতে সাগরের তলদেশে একটি জলপ্রপাত আছে। এটি বিশ্বের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ২০০০ জলপ্রপাতের সমতুল্য।

পূর্ব দিকের প্রণালীর ঠান্ডা পানি পশ্চিম থেকে আসা উষ্ণ তরলের চেয়ে বেশি ঘন। যখন দুটি পানি মিশে যায়, তখন ঠান্ডা সরবরাহ ডুবে যায় ও একটি জলপ্রপাত তৈরি করে।

>> আমরা সমুদ্রের বেশিরভাগ সামুদ্রিক জীবন সম্পর্কে খুব কমই জানি। সমুদ্রপৃষ্ঠের নীচে লুকিয়ে থাকা সম্ভাব্য সামুদ্রিক জীবনের মাত্র এক-তৃতীয়াংশ শানাক্ত করেছি আমরা। এর বেশিরভাগই ছোট জীব, তবে সম্ভবত কিছু তিমি ও অন্যান্য স্তন্যপায়ী প্রজাতি এখনও আবিষ্কৃত হয়নি। প্রতিবছর গড়ে ২০০০ নতুন প্রজাতি শনাক্ত করা হয় মহাসাগর থেকে।

>> প্রশান্ত মহাসাগরের নামকরণ করেন ফার্দিনান্দ ম্যাগেলান। ১৫১৯ সালে যখন ম্যাগেলান আটলান্টিক পাড়ি দিচ্ছিলেন, তখন তিনি অন্যদিকের পানির শান্তভাব দেখে প্রশান্ত মহাসাগর বা শান্তিপূর্ণ সমুদ্র বলে অভিহিত করেছিলেন। প্রশান্ত মহাসাগর ৫৯ মিলিয়ন বর্গ মাইলজুড়ে অবস্থিত। এটিই গ্রহের বৃহত্তম মহাসাগর হিসেবে বিবেচিত।

>> পৃথিবীর সবচেয়ে দূরবর্তী স্থানের অবস্থান হলো দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরে। যা পয়েন্ট নিমো নামে পরিচিত। ৩টি প্রতিবেশী দ্বীপের উপকূল থেকে প্রায় ১০০০ সমদূরত্ব মাইল দূরে এর অবস্থান। এটি প্রায় মহাকাশের সমমান দুরত্বের স্থান।

>> অনেকেই হয়তো জানেন না যে, বেশিরভাগ আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত সমুদ্রের পৃষ্ঠের নীচে ঘটে। আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতের ৮০ শতাংশ পর্যন্ত ভূমি-নিবাসীদের নজরে পড়ে না। কারণ পানির নিচে অগ্ন্যুৎপাত ঘটে।

সবচেয়ে অবাক করা বিষয় হলো, মহাসাগরের তলদেশে ১ মিলিয়নেরও বেশি আগ্নেয়গিরি আছে। যারা কিছু বিলুপ্ত ও কিছু খুব সক্রিয় আছে। সক্রিয় আগ্নেয়গিরি সমুদ্রের পৃষ্ঠের নীচে অগ্ন্যুৎপাত ঘটিয়ে উত্তপ্ত লাভা ছড়ায়।

>> সমুদ্রের গভীরে বিলিয়ন ডলার মূল্যের ধন থাকতে পারে। সমুদ্রে কত হাজার হাজার জাহাজ ধ্বংস হয়েছে তার কোনো হিসাব নেই। এসব জাহাজে থাকা ধনসম্পদ নিশ্চয়ই ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে সাগরের তলদেশে।
ন্যাশনাল ওশেনিক অ্যান্ড অ্যাটমোস্ফিয়ারিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (এনওএএ) ধারণা, এক মিলিয়ন ডুবে যাওয়া জাহাজ অন্ধকারে লুকিয়ে আছে; অন্যরা উদ্ধার না হওয়া গুপ্তধনের মোট মূল্য দাঁড়ায় ৬০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

>> সাগরের মাছ প্রচুর প্লাস্টিক খাচ্ছে। প্রতিবছর সমুদ্রে ৭ মিলিয়ন টন প্লাস্টিক ফেলা হচ্ছে। সান দিয়েগোর ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের ধারণা, প্রতি বছর সাগরের মাছেরা ১২-২৪ হাজার টন প্লাস্টিক গ্রাস করে।

>> সুনামির তরঙ্গ ১০০ ফুট লম্বা হতে পারে। ১৯৫৮ সালে আলাস্কায় ভূমিকম্প ও ভূমিধসের ফলে ১০০ ফুট উঁচু সুনামি তৈরি হয়েছিল। এতে ১৭২০ ফুট পর্যন্ত সমস্ত গাছপালা ধ্বংস হয়েছিল, যা ইতিহাসে বৃহত্তম সুনামি বলে রেকর্ড করা হয়।

>> সমুদ্রের সবচেয়ে বড় ঢেউগুলো তলদেশে হয়। তরঙ্গগুলো বিভিন্ন ঘনত্বের জলের স্তরগুলোর অংশ ও ভেঙে পড়ার আগে ৮০০ ফুট উচ্চতায় পৌঁছাতে পারে।

সূত্র: মেন্টালফ্লস


আরও খবর



প্রধানমন্ত্রী সংলাপের কোনো দাওয়াত দেননি: কামরুল

প্রকাশিত:Monday ২৫ July ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ০৯ August ২০২২ | ৩৩জন দেখেছেন
Image

দাওয়াত না পেয়েও ‘প্রধানমন্ত্রী চায়ের দাওয়াত দিয়েছেন’ বিএনপি এমন কথা বলে বেড়াচ্ছেন বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম।

সোমবার (২৫ জুলাই) জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুনের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

কামরুল ইসলাম বলেন, প্রধানমন্ত্রী সংলাপের কোনো দাওয়াত দেননি। আওয়ামী লীগের কোনো দুর্বলতাও নেই। এটা নিয়ে বিএনপি অপব্যাখ্যা দিচ্ছে। তত্ত্বাবধায়ক সরকার নিয়ে আলোচনার কোনো সুযোগ নেই।

তিনি বলেন, দেশে এখন সাহারা খাতুনের মতো কর্মীবান্ধব নেতৃত্বের অভাব। সকল আন্দোলন সংগ্রামে তিনি নেতাকর্মীদের পাশে থাকতেন। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের দুঃসময় দেখলে তাদের সাহায্যে এগিয়ে এসেছেন। বিএনপির সময় মিথ্যা মামলার বিরুদ্ধে নেতাকর্মীদের পক্ষে আইনী লড়াই করেছেন তিনি।

আলোচনায় সভাপতিত্ব করেন বঙ্গবন্ধু একাডেমির চেয়ারম্যান সাব্বির আহমেদ রনি। এতে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য মোজাফফর হোসেন পল্টু, প্রেসিডিয়াম সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া (বীর বিক্রম) ও আওয়ামী লীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ প্রমুখ।


আরও খবর



গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা শুরু আজ

প্রকাশিত:Saturday ৩০ July ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ০৯ August ২০২২ | ২৭জন দেখেছেন
Image

গুচ্ছ পদ্ধতিতে দেশের ২০টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা শুরু হচ্ছে শনিবার (৩০ জুলাই) থেকে। এদিন দুপুর ১২টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত ‘এ’ ইউনিটে বিজ্ঞান বিভাগের ভর্তি পরীক্ষা হবে।

‘এ’ ইউনিটে গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষায় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে (খুবি) ৭ হাজার ৭৬৪ জন শিক্ষার্থীর আসনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। যার মধ্যে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে রোল নম্বর ১৭৪৩৩৫ থেকে ১৭৯৭৫৮ পর্যন্ত মোট ৫ হাজার ৪২৪ জন, রেভারেন্ড পলস্ হাই স্কুলে রোল নম্বর ১৭৯৭৫৯ থেকে ১৮১২৭০ পর্যন্ত ১ হাজার ৫১২ জন ও হোপ পলিটেকনিক উপকেন্দ্রে রোল নম্বর ১৮১২৭১ থেকে ১৮২০৯৮ পর্যন্ত ৮২৮ জন পরীক্ষার্থীর আসন রয়েছে।

ভর্তিচ্ছু পরীক্ষার্থীরা কেন্দ্রে মোবাইলফোনসহ কোনো ধরনের ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস নিয়ে প্রবেশ না করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে পরীক্ষার দিন সকাল ১০টা থেকে পরীক্ষা শেষ না হওয়া পর্যন্ত খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কের গল্লামারী-জিরোপয়েন্ট পর্যন্ত সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকারও নির্দেশনা দেওয়া হয়।

এছাড়াও আগামী ১৩ আগস্ট ‘বি’ ইউনিটে মানবিক এবং ২০ আগস্ট ‘সি’ ইউনিটে বাণিজ্য বিভাগের ভর্তি পরীক্ষা শুধুমাত্র খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।


আরও খবর



ডেল্টা ব্র্যাক হাউজিং ফিন্যান্সের নাম পরিবর্তন

প্রকাশিত:Sunday ৩১ July ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ০৭ August ২০২২ | ২১জন দেখেছেন
Image

দেশের ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান ‘ডেল্টা ব্র্যাক হাউজিং ফিন্যান্স করপোরেশন লিমিটেড’র নাম পরিবর্তন হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির নতুন নাম দেওয়া হয়েছে ‘ডিবিএইচ ফিন্যান্স পিএলসি’।

রোববার (৩১ জুলাই) কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বাজার বিভাগ এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন দিয়ে কার্যরত সব আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও তফসিলি ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী বরাবর পাঠিয়েছে।


আরও খবর



বিএনপি পুঁটিমাছের মতো লাফাচ্ছে, ব্যাঙের মতো ডাকছে: তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:Friday ০৫ August ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ০৯ August ২০২২ | ১৯জন দেখেছেন
Image

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপি এখন পুঁটিমাছের মতো লাফাচ্ছে আর ব্যাঙের মতো ডাকছে। তারা ষড়যন্ত্র করেছে এটি প্রতিহত করতে হবে। অতীতের মতো তারা জানমাল নিয়ে ছিনিমিনি খেলে, পেট্রলবোমা নিক্ষেপ করলে দাঁতভাঙ্গা জবাব দেওয়া হবে।

শুক্রবার (৫ আগস্ট) দুপুরে গোপালগঞ্জে শেখ কামালের ৭৩তম জন্মদিন উপলক্ষে কৃষকদের মাঝে বীজ বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, আগস্ট শোকের মাস। আমরা শোকের কর্মসূচি পালন করছি। কিন্তু সেপ্টেম্বরে আমরা মাঠে নামবো বিএনপি তখন পালোনোর পথ পাবে না।

তিনি বলেন, শেখ কামাল ছিলেন একজন দক্ষ সংগঠক, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সংগঠক। আজকে তিনি বেঁচে থাকলে এসব ক্ষেত্রে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে যেতো।

আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপ-কমিটির ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন, উপ-দপ্তর সম্পাদক অ্যাডভোকেট সায়েম খান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব আলী খান, টুঙ্গিপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. বাবুল শেখ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

এর আগে বেলা সাড়ে ১১টায় শেখ কামালের ৭৩তম জন্মদিন উপলক্ষে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। পরে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাত করেন তিনি।


আরও খবর



সুশাসন নিশ্চিত করলে ভোটের জন্য যেতে হবে না: তাজুল ইসলাম

প্রকাশিত:Thursday ২৮ July ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ০৯ August ২০২২ | ২৪জন দেখেছেন
Image

স্বচ্ছতা ও সুশাসন নিশ্চিত করতে পারলে ভোটের জন্য ভোটারদের কাছে যেতে হবে না বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

বৃহস্পতিবার (২৮ জুলাই) বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে স্থানীয় সরকার বিভাগের বাস্তবায়িত ‘কার্যকর ও জবাবদিহিমূলক স্থানীয় সরকার (ইএএলজি)’ প্রকল্প ও ইউএনডিপি আয়োজিত ‘স্টেকহোল্ডার কনফারেন্স অন লোকাল গভর্ন্যান্স: প্রগ্রেস, লার্নিং এবং ভবিষ্যৎ কর্মসূচী’ শীর্ষক সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ১৯৯৫ সালে আমাদের মাথাপিছু আয় ছিলো ৩২৫ ডলার। সে সময় সিরিয়াস ক্রাইসিস ছিলো। ১৯৯৬ সালে আমাদের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতায় আসেন। তখন থেকেই আমাদের পরিবর্তন আসে। আমাদের খাদ্য ঘাটতি পূরণ হয়, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ সব খাতে ভালো কাজ হয়েছে। আমাদের বলা হতো ভিক্ষুকের জাতি, সেটি থেকে আমরা উন্নত জাতি হচ্ছি। সংবিধানে বলা আছে জনপ্রতিনিধি, সরকারি কর্মকর্তা ও জনগণ একসঙ্গে কাজ করবে। পৃথিবীতে পানি, গাছ আর মাটি ছাড়া কিছু ছিলো না, সবই মানুষ সৃষ্টি করেছে। আমরা যেসব প্রযুক্তি ভোগ করি সেগুলো মানুষ সৃষ্টি করেছে। বাংলাদেশে সুশাসন নিশ্চিত করতে হবে, জনগণের অধিকার নিশ্চিত করতে হবে।

‘আমরা সবাই মিলে কাজ করে বাংলাদেশকে একটি পরিবর্তনের জায়গায় নিয়ে আসব। সম্পদ নিজেদেরই সৃষ্টি করতে হবে। আমরা জনপ্রতিনিধিরা মানুষকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছি। সেজন্য আমাদের একসঙ্গে কাজ করতে হবে। কোন একজন মানুষ দরিদ্র থাকলে সেটা সরকারের জন্য ব্যর্থতা। কারণ জনপ্রতিনিধিরাও সরকারের অংশ। এখন আমাদের কোথায় ব্যর্থতা আছে সেটি দেখতে হবে। আপনাদের ইনকাম জেনারেট করতে হবে। স্থানীয় সরকার কাজ করবে, নিজেরা ইনকাম জেনারেশন করে যে ধরনের চাহিদা আছে পূরণ করে উন্নয়নমূলক কাজ করবে। সারাবিশ্বে সিটি করপোরেশন নিজেদের অর্থে চালাচ্ছে। ইউনিয়ন পর্যায়েও ইনকাম জেনারেশন করতে হবে। তাহলে আপনারাও খরচ মিলাতে পারবেন।’

তিনি বলেন, যদি সরকারের উপর চাপ বাড়াই তাহলে তো সেটি ঠিক হবে না। ইউনিয়ন পরিষদকে ইনকাম জেনারেট করতে হবে। স্বচ্ছতা ও সুশাসন নিশ্চিত করতে পারলে আপনাদের (জনপ্রতিনিধি) সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি হয়ে যাবে। তারা আপনাদের কার্যক্রমে সুবিধা পেলে একসময় ভোটের জন্য তাদের কাছে যেতে হবে না। দুঃশাসন কায়েম করে, অত্যাচার অবিচার থেকে মুক্তি দিতে না পারলে আপনাকে বার বার মানুষের কাছে প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হবে। আমি ১৯৯৬ সাল থেকে প্রতিবার ভোটে অংশ নিয়েছি, ভোটে পাস করলে আমাকে বিভিন্ন কথা শুনতে হয়েছে। আমি সঠিকভাবে কাজ করলে মানুষ ভোট দিবে।

তাজুল ইসলাম বলেন, আমি ভোটের জন্য কাজ করব না, মানুষের জন্য কাজ করব। মানুষের জন্য কাজ করলে ভোট নিয়ে ভাবতে হবে না। আমি যে এলাকা থেকে ভোট করি সেখানে সিরিয়াস অ্যান্টি আওয়ামী লীগ। কিন্তু এখন মানুষই আমার ভোটের জন্য টাকা খরচ করে। তাই বড় কাজ হলো সুশাসন নিশ্চিত করে নিজেদের ইনকাম জেনারেট করতে হবে। জনপ্রতিনিধিদের মর্যাদার জায়গায় যেতে হবে। যেতে না পারলে জোর করে টাইটেল লাগিয়ে শুধু পদবীর মর্যাদাই পাবেন। আমি যদি কাজ না করি তাহলে শুধু আউটলুক হবে। সম্মান আদায় করতে মানুষের জন্য কাজ করতে হবে। মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর মতো আনন্দের কিছু নেই।

এ সম্মেলনে ইউএনডিপির প্রোগ্রাম অ্যানালিস্ট মো. মোজাম্মেল হক কার্যকর ও জবাবদিহিমূলক স্থানীয় সরকার (ইএএলজি) প্রকল্প পরিচিতি এবং অগ্রগতি, শিখন ও করণীয় বিষয়ের উপর একটি উপস্থাপনা করেন।

উপস্থাপনায় তিনি উল্লেখ করেন, সুইজারল্যান্ড দূতাবাস, ডেনমার্ক দূতাবাস এবং ইউএনডিপির সহায়তায় স্থানীয় সরকার বিভাগের (এলজিডি) ‘কার্যকর ও জবাবদিহিমূলক স্থানীয় সরকার (ইএএলজি)’ প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। প্রকল্পটি আটটি বিভাগের নয়টি জেলার, পিছিয়ে পড়া ১৮টি উপজেলা পরিষদ ও ২৫১টি ইউনিয়ন পরিষদের সক্ষমতা উন্নয়ন করার লক্ষ্যে কাজ করছে।

তিনি প্রকল্পের মূল অর্জনগুলো তুলে ধরে বলেন, ইএএলজি প্রকল্পের কার্যক্রমের ফলে ৯৪ শতাংশ (১৭টি) প্রকল্পভুক্ত উপজেলাপরিষদ ইউজিডিপি প্রকল্প থেকে দক্ষতা ভিত্তিক বরাদ্দ পেয়েছে। প্রকল্পভুক্ত শতভাগ উপজেলা (১৮টি উপজেলা) বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে, যা উপজেলা পরিষদের প্রতিবেদন প্রস্তুতিতে দক্ষতা বৃদ্ধি, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বৃদ্ধির প্রমাণ করে। একইভাবে প্রকল্পভুক্ত শতভাগ উপজেলা (১৮ টি উপজেলা) পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা প্রণয়ন করেছে, যা উপজেলা পরিষদের পরিকল্পনা প্রণয়নের সক্ষমতা, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার প্রমাণ করে।

তিনি আরও বলেন, ইএএলজি প্রকল্পের কার্যক্রমের ফলে প্রকল্পভুক্ত ১৩৬টি (৫৪ শতাংশ) ইউনিয়ন পরিষদ এলজিএসপি-৩ প্রকল্প হতে দক্ষতা ভিত্তিক বরাদ্দ পেয়েছে। এছাড়া ৪৩ শতাংশ (১০৯টি) প্রকল্পভুক্ত ইউনিয়ন পরিষদ জলবায়ু ও এসডিজিবান্ধব পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা প্রকাশ করেছে। প্রকল্পের মধ্যবর্তীকালীন মূল্যায়ন প্রতিবেদন অনুযায়ী প্রকল্পভুক্ত উপজেলা ও ইউনিয়নের পরিসেবার প্রতি জনগণের সন্তুষ্টি যথাক্রমে ৭০ শতাংশ ও ৮০ দশমিক ৩ শতাংশ।

এ প্রকল্পের সহায়তায় স্থানীয় সরকার বিভাগের উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদ বিষয়ক দুটি সংশোধিত, পাঁচটি নতুন গাইডলাইন ও ছয়টি পরিপত্র জারি করা হয়। মোজাম্মেল হক তার বক্তব্যে উপজেলা পরিষদ আর্থিক ব্যবস্থাপনা ম্যানুয়ারের প্রয়োজনীয়তার উপর গুরুত্বারোপ করেন। একই সঙ্গে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানসমূহের দায়-দায়িত্বের পরিসীমা পর্যালোচনার আগে সংশোধনের সুপারিশ, স্থানীয় সরকার দিবস নির্ধারণ ও উদযাপন, বর্তমান কর তফসিল, কর বিধি পর্যালোচনাপূর্বক সংশোধনের সুপারিশ, স্থানীয় সরকার কার্যক্রমের পূর্ণ অনলাইন মনিটরিং সিস্টেম প্রণয়নের সুপারিশ করেন।

স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব মোহাম্মেদ মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সম্মেলনে সুইজারল্যান্ড দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত নাটালী শুয়ার্ড, জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচীর আবাসিক প্রতিনিধি সুদীপ্ত মুখার্জি বক্তব্য রাখেন।

এছাড়া সম্মেলনে নয়টি জেলার ডিডিএলজি, উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, বিভিন্ন মন্ত্রণালয় বিভাগ ও স্থানীয় সরকার বিভাগের কর্মকর্তা, উন্নয়ন সহযোগী, স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ, উন্নয়ন সংস্থার প্রতিনিধি, স্থানীয় সরকার বিভাগের অন্যান্য প্রকল্পের স্টেকহোল্ডার, ডিসট্রিক্ট ফ্যাসিলিটেটর, মিডিয়া প্রতিনিধি এবং অন্যান্য অতিথিসহ ইএএলজি প্রকল্পের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর