Logo
আজঃ মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪
শিরোনাম

মেট্রোরেলে কোনো হাফ ভাড়া নেই : ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৭ ডিসেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪ | ২৯৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: মেট্রোরেলে কোনো হাফ ভাড়া নেই বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তবে মেট্রোরেল পাস নিলে ১০ শতাংশ ডিসকাউন্ট পাওয়া যাবে বলে জানান তিনি।

আজ মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে মেট্রোরেলের আগারগাঁও স্টেশনে এক সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী এ তথ্য জানান।

যে ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে তা যৌক্তিক বলে দাবি করে সেতুমন্ত্রী বলেন, আগারগাঁও থেকে উত্তরা পর্যন্ত ৬০ টাকা ভাড়া। বৃহস্পতিবার থেকে সাধারণ যাত্রীরা যেতে পারবেন। মেট্টোরেলে কোনো হাফ পাস (ভাড়া) নেই। তবে মেট্রোরেল পাস নিলে ১০ শতাংশ ডিসকাউন্ট পাবে।

আগামীকাল বুধবার বেলা ১১টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বহুল প্রতীক্ষিত মেট্রোরেলের এমআরটি লাইন-৬ এর প্রথম অংশ উদ্বোধন করবেন বলেও জানান ওবায়দুল কাদের। 

এ সময় তিনি আরও বলেন, ২০২৩ সালের ডিসেম্বর মাসে এমআরটি লাইন-৬ উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত এবং ২০২৫ সালে মতিঝিল থেকে কমলাপুর পর্যন্ত চলবে।

এদিকে ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষ দেশের প্রথম এ মেট্রোরেলের প্রতি কিলোমিটারের ভাড়া ঠিক করেছে ৫ টাকা। গত ৮ সেপ্টেম্বর ভাড়ার পূর্ণাঙ্গ তালিকাও প্রকাশ করা হয়। তবে সর্বনিম্ন ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে ২০ টাকা।

উত্তরা দিয়াবাড়ি (উত্তরা নর্থ স্টেশন) থেকে আগারগাঁও স্টেশন পর্যন্ত ভাড়া ঠিক করা হয়েছে ৬০ টাকা। উত্তরা নর্থ স্টেশন থেকে উত্তরা সেন্টার ও উত্তরা সাউথ স্টেশনে যেতে সর্বনিম্ন ভাড়া ২০ টাকা দিতে হবে।

সিঙ্গেল জার্নি টিকিট স্টেশনের কাউন্টার থেকে কাটা যায়, চাইলে ‘টিকিট বিক্রয় মেশিন’ থেকে নিজে নিজেও কাজটি সেরে ফেলা যায়। উত্তরা নর্থ থেকে পল্লবী ও মিরপুর-১১ স্টেশনের ভাড়া ৩০ টাকা, মিরপুর-১০ ও কাজীপাড়া স্টেশনের ভাড়া ৪০ টাকা এবং শেওড়াপাড়া স্টেশনের ভাড়া ৫০ টাকা।

আর পল্লবী থেকে মিরপুর-১১, মিরপুর-১০ ও কাজীপাড়া স্টেশনের ভাড়া একই, ২০ টাকা। পল্লবী থেকে শেওড়াপাড়া ও আগারগাঁও স্টেশনের ভাড়া ৩০ টাকা।

মেট্রোরেলের দ্বিতীয় ধাপ চালু হলে মিরপুর-১০ নম্বর থেকে ফার্মগেট যেতে গুনতে হবে ৩০ টাকা; আর কারওয়ান বাজার যেতে লাগবে ৪০ টাকা। মিরপুর–১০ স্টেশন থেকে শাহবাগ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাড়া ৫০ টাকা, সচিবালয় ও মতিঝিল স্টেশনে যেতে লাগবে ৬০ টাকা। তবে মিরপুর-১০ থেকে কমলাপুর স্টেশনে যেতে লাগবে ৭০ টাকা ভাড়া।

তবে দীর্ঘমেয়াদি পাস নিলে ভাড়ায় ১০ শতাংশ ছাড়ের ব্যবস্থা নিতে মেট্রোরেল প্রকল্প বাস্তবায়নকারী কোম্পানি ডিএমটিসিএলকে নির্দেশনা দিয়েছে ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষ। পাশাপাশি যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বিনা ভাড়া এবং বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন মানুষের জন্য ছাড়ের ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।


আরও খবর



ময়মনসিংহে সড়ক দুর্ঘটনায় ৮ জন নিহত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৯ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪ | ৪৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় ময়মনসিংহে একই পরিবারের তিন জনসহ ৮ জন নিহত হয়েছেন। এদের মধ্যে স্বামী-স্ত্রী ও সন্তানসহ ৬ জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। দুইজনের পরিচয় পাওয়া যায়নি। মঙ্গলবার সকালে ও দুপুরে দুর্ঘটনাগুলো ঘটে।

হতাহতরা সকলেই পিকআপভ্যান ও সিএনজি অটোরিকশার যাত্রী বলে পুলিশ জানিয়েছে। নিহতরা ঈদের ছটিতে বাড়ি ফিরছিলেন বলে জানা গেছে।

ময়মনসিংহ কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি মাঈন উদ্দিন জানান, ময়মনসিংহ-মুক্তাগাছা সড়কের ল্যাংড়াবাজার এলাকায় মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে বাস ও মাহেন্দ্রর মুখোমুখি সংঘর্ষে ঘটনাস্থলে শিশুপুত্র মাহিত এবং গুরুত্বর আহত অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তির পর স্বামী-স্ত্রী মারা যান। তাদের অপর পুত্র মোজাহিদকে (৬) আহত অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নিহতরা হলেন- শেরপুর জেলার ঝিনাইগাতী উপজেলার দিঘীরপাড় এলাকার লুৎফর রহমান (৩০), তার স্ত্রী শাহনাজ (২৫) ও ছেলে মাহিত (৪)। নিহত স্বামী-স্ত্রী দুজনেই ভালুকার মাস্টারবাড়ী এলাকার একটি গার্মেন্টসে চাকরি করতেন। ঈদের ছুটিতে বাড়ি ফিরছিলেন তারা।

এদিকে ত্রিশাল সদর ও বালিপাড়া এলাকায় পৃথক দুই সড়ক দুর্ঘটনায় ৪ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে বেশ কয়েকজন।

ওসি কামাল হোসেন ত্রিশাল থানার জানান, বেলা ১২টার দিকে ত্রিশাল-বালিপাড়া সড়কে শালবন পরিবহনের একটি বাসের সঙ্গে অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই দুইজন পুরুষ মারা গেছেন। এদের পরিচয় পাওয়া যায়নি। অপরদিকে ত্রিশাল সদরে মঙ্গলবার ভোরে বাস ও পিকআপের সংঘর্ষে আপেল মিয়া (৩০) ও মারুফ (১৮) নামে দুইজন মারা গেছে। এদের বাড়ি নান্দাইল উপজেলায়।

এছাড়া তারাকান্দায় সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছে আবুল বাশার (৬০) নামে এক পথচারী বৃদ্ধ।


আরও খবর



বঙ্গবন্ধু শিল্পনগর সড়কে আজ থেকে পরীক্ষামূলক বিআরটিসি বাস চালু

প্রকাশিত:সোমবার ১৮ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪ | ৮৪জন দেখেছেন

Image

মিরসরাই প্রতিনিধি:মিরসরাইয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগর সড়কে পরীক্ষামূলকভাবে বিআরটিসি বাস চলাচল শুরু হয়েছে। শিল্প অঞ্চলের জিরো পয়েন্ট থেকে ৩৪ কিলোমিটার সড়কে সীতাকুণ্ড এবং বারইয়ারহাট পর্যন্ত সাধারণ যাত্রী ও শিল্প অঞ্চলের শ্রমিকদের জন্য এই সার্ভিস চালু হয়। রবিবার বিকেলে অফিস ছুটির পর জিরো পয়েন্ট থেকে শ্রমিকদের নিয়ে সাজানো দুইটি দ্বিতল বিআরটিসি বাস বারইয়ারহাট এবং সীতাকুণ্ডের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করে। এসময় উপস্থিত ছিলেন বিআরটিসি বাস ডিপো সোনাপুর-নোয়াখালীর ম্যানেজার অপারেশন ওমর ফারুক মেহেদী, বাংলাদেশ রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ এলাকা কর্তৃপক্ষ (বেপজা) পরিচালক (কমার্শিয়াল) মাসুদ পারভেজসহ কর্মকর্তারা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শিল্প অঞ্চলের জিরো পয়েন্ট থেকে ৩৪ কিলোমিটার সড়কে এই প্রথম বাস সার্ভিস পেয়ে উচ্ছ্বসিত যাত্রীরাও। শিল্প অঞ্চলের জিরো পয়েন্ট থেকে দুইটি দ্বিতল বিআরটিসি বাস সীতাকুণ্ড এবং বারইয়ারহাট রুটে যাতায়াত করবে।বিআরটিসি পরিবহনের ম্যানেজার অপারেশন (বিআরটিসি বাস ডিপো সোনাপুর-নোয়াখালী) ওমর ফারুক মেহেদী বলেন, শিল্প অঞ্চলের অনেকগুলো প্রতিষ্ঠান চালু হয়েছে। এখানে শত শত শ্রমিক চাকুরি করেন। তাঁদের যাতায়াত সুবিধা নিশ্চিত করতে বিআরটিসি কর্তৃপক্ষ বাস সার্ভিস চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
রবিবার বিকেল থেকে শিল্প অঞ্চলের জিরো পয়েন্ট থেকে সীতাকুণ্ড এবং বারইয়ারহাট ৩৪ কিলোমিটার সড়কে প্রথম বিআরটিসি বাস সার্ভিস পরীক্ষামূলক সার্ভিস শুরু হয়। পরবর্তীতে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) এবং বেপজা আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করবেন। বিআরটিসি বাস নির্ধারিত রুটে চলাচলের সময় সরকার নির্ধারিত ভাড়া পরিশোধ করে যে কোনো যাত্রী উঠতে পারবেন।

বেপজার পরিচালক (কমার্শিয়াল) মাসুদ পারভেজ জানান, রবিবার থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শিল্প অঞ্চলের শ্রমিক কর্মকর্তা কর্মচারীদের বহু কাঙ্ক্ষিত বিআরটিসি বাস সার্ভিস জিরো পয়েন্ট থেকে দুইটি রুটে যাতায়াত শুরু করবে। অফিস টাইম অনুযায়ী সকাল ও বিকেল দুই বার সার্ভিস দেবে। চাহিদা বিবেচনা করে পরবর্তীতে বিআরটিসি কর্তৃপক্ষ বাস সংখ্যা এবং যাতায়াতের সময় ঠিক করবেন। এখন থেকে শিল্প অঞ্চলের যাতায়াত সমস্যা থাকবে না।

বেপজার প্রকল্প পরিচালক এনামুল হক বলেন, ‘আমরা বেপজা এবং বেজা কর্তৃপক্ষ যৌথ সমন্বয়ে বঙ্গবন্ধু শিল্প অঞ্চলের শ্রমিকদের নিরাপদ যাতায়াত নিশ্চিত করতে বিআরটিসি চেয়ারম্যান তাজুল ইসলামের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে সহযোগিতা চাই। সঙ্গে সঙ্গে তিনি বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে গ্রহণে দ্রুত ব্যবস্থা নেন। ওনার আন্তরিক প্রচেষ্টায় অল্প সময়ের মধ্যে শিল্প অঞ্চলে আজ বাস সার্ভিস চালু হয়েছে। এখন থেকে শিল্প অঞ্চলের শ্রমিকদের যাতায়াত সুবিধা পাবে। ভবিষ্যতে চাহিদা বিবেচনা করে বাস সংখ্যা এবং ট্রিপ সংখ্যা বাড়ানো হবে।’মিরসরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহফুজা জেরিন বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শিল্পনগর এলাকায় ১০ হাজারের বেশি কর্মকর্তা-কর্মচারী কর্মরত। তাদের যাতায়াতে পরিবহন সংকট দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে। তাই শিল্পনগর থেকে সীতাকুণ্ড এবং বারইয়ারহাট পর্যন্ত বাস সার্ভিস চালুর উদ্যোগ সময়োপযোগী।’মিরসরাই এক্সপ্রেসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ সেলিম জানান, চট্টগ্রাম সদরের কদমতলী থেকে বারইয়ারহাট পর্যন্ত তাদের বাস সার্ভিস চালু রয়েছে। শিল্পনগরের শ্রমিকদের সুবিধার্থে জোন এক্সপ্রেস নামে বাস সার্ভিস চালুর কথা ভাবছেন তাঁরা।


আরও খবর



পদ্মা সেতুতে ঈদ-নববর্ষে সাড়ে ২১ কোটি টাকা টোল আদায়

প্রকাশিত:সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪ | ৩৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: (৮ থেকে ১৪ এপ্রিল) এবার ঈদের ছুটিতে পদ্মাসেতু হয়ে ২ লাখ ১৩ হাজার ২৭৯টি যানবাহন পারাপার হয়েছে। সেতুর মাওয়া ও জাজিরা প্রান্তে টোল আদায় হয়েছে ২১ কোটি ৪৭ লাখ ৭৪ হাজার ৫৫০ টাকা।

সেতু বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, গত বছর ঈদুল ফিতরের সময় ২০ এপ্রিল থেকে ২৪ এপ্রিল পর্যন্ত ১ লাখ ৬৩ হাজার ৭৭৮টি যানবাহন পারাপার হয়। টোল আদায় হয়েছিল ১৪ কোটি ৬১ লাখ ৬৬ হাজার ৫৫০ টাকা।

বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, মাওয়া প্রান্ত দিয়ে ৮ এপ্রিল ২০ হাজার ৮৫১ টি, ৯ এপ্রিল ৩০ হাজার ৩৩০টি, ১০ এপ্রিল ১৭ হাজার ৭০৫টি, ১১ এপ্রিল ১১ হাজার ১৯৪টি, ১২ এপ্রিল ১৫ হাজার ৮৮৩টি এবং ১৩ এপ্রিল ১২ হাজার ৮৯৬টি ও ১৪ এপ্রিল ১১ হাজার ৬২৫টি যানবাহন পদ্মা সেতু পার হয়েছে। এতে এ প্রান্ত দিয়ে এ সাতদিনে টোল আদায় হয়েছে ১১ কোটি ২৬ লাখ ৭৯ হাজার ৯৫০ টাকা।

জাজিরা প্রান্ত দিয়ে সাতদিনে যথাক্রমে ১০ হাজার ৯৪৯টি, ১৪ হাজার ৮৭৪টি, ৮ হাজার ৫১০টি, ৭ হাজার ৪৬৫টি, ১২ হাজার ১০০টি এবং ১৫ হাজার ৫৯৬টি ও ২৩ হাজার ৩০১ টি যানবাহন পদ্মা সেতু পার হয়েছে। এতে এ প্রান্তে টোল আদায় হয়েছে মোট ১০ কোটি ২০ লাখ ৯৪ হাজার ৬০০ টাকা। এবার ঈদের আগে সর্বোচ্চ ৪ কোটি ৮৯ লাখ ৯৪ হাজার ৭০০ টাকা টোল আদায়ের রেকর্ড হয়।

এসব তথ্য দিয়ে সেতু কর্তৃপক্ষের অতিরিক্ত পরিচালক আমিরুল হায়দার চৌধুরী বলেন, পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর থেকে এক মিনিটের জন্য সেতুতে যান পারাপার বন্ধ হয়নি। নির্বিঘ্নে পদ্মাসেতু হয়ে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষ যাতায়াত করতে পারছে।


আরও খবর



সরাইলে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী রোকেয়া বেগমের সমর্থনে নির্বাচনী সভা

প্রকাশিত:সোমবার ১৮ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১২ এপ্রিল ২০২৪ | ৭০জন দেখেছেন

Image

মো. রুবেল মিয়াঃ-

আসন্ন সরাইল উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মোছা. রোকেয়া বেগমের সমর্থনে এক নির্বাচনী সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।শনিবার (১৬ মার্চ) সকালে স্থানীদের উদ্যোগে সরাইল উপজেলার সদর ইউনিয়নের বড্ডপাড়া এলাকায় এ নির্বাচনী সভা অনুষ্ঠিত হয়।স্থানীয় ২ নং ওয়ার্ডের মেম্বার হাবু মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত নির্বাচনী সভায় প্রধান অতিথি বক্তব্য দেন উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী মোছা. রোকেয়া বেগম।এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন বিশিষ্ট সমাজকর্মী জুয়েল ঠাকুর।


সরাইল সদর ইউনিয়ন সেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক চয়ন ঠাকুর প্রমুখ।সভায় স্থানীয় এলাকার নারী ভোটারা উপস্থিত ছিলেন। উক্ত সভাটি সঞ্চালনা করেন মো. হোসাইন শাওন।এ সময় উপস্থিত নারী ভোটারা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী মোছা.রোকেয়া বেগম কে সমর্থন জানান।উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মোছা. রোকেয়া বেগম বলেন, আমি জনসমর্থন নিয়ে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছি। ৷আমি আপনাদের ভোটে পুনরায় ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে গরীব দুঃখী ও অসহায় মানুষের সেবায় কাজ করব। সমাজে শান্তি ও ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা করব।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



উন্নয়নে ঢাকা-থিম্পু একযোগে কাজের তাগিদ রাষ্ট্রপতির

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৬ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪ | ৬৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:বাংলাদেশ ও ভুটানের আঞ্চলিক সমৃদ্ধি ও উন্নয়নে যৌথ সমন্বয় ও উদ্যোগের ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন। মঙ্গলবার (২৬ মার্চ) বিকেলে বঙ্গভবনে ঢাকা সফররত ভুটানের রাজা জিগমে খেসার নামগেল ওয়াংচুক সৌজন্য সাক্ষাৎ করার জন্য এলে এ কথা বলেন তিনি।

রাষ্ট্রপতি বলেন, দুই দেশ নিজ নিজ দেশের শক্তি ও অগ্রাধিকারকে কাজে লাগিয়ে আঞ্চলিক সহযোগিতা বাড়াতে পারে। পরে রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব মো. জয়নাল আবেদীন সাংবাদিকদের এ বিষয়ে ব্রিফ করেন।

দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ইতিবাচক হয় উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, বর্তমানে ব্যবসা-বাণিজ্য, বিদ্যুৎ, সংযোগ, কৃষি, শিক্ষা, সাংস্কৃতিক আদান-প্রদান, জনগণের মধ্যে যোগাযোগ এবং পর্যটনের ক্ষেত্রে দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতার ক্ষেত্র চমৎকারভাবে এগিয়ে যাচ্ছে।

রাষ্ট্রপ্রধান সার্ক, বিমসটেক, এসএসইসি এবং বিবিআইএন-এর মতো আঞ্চলিক প্ল্যাটফর্মের মধ্যে সহযোগিতার জন্য ভুটান ও বাংলাদেশের সম্ভাবনার কথাও তুলে ধরেন।

৫৪তম স্বাধীনতা দিবস উদযাপনে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিনের বিশেষ আমন্ত্রণে ভুটানের রাজা ও রানী জেটসুন পেমার এখন চারদিনের সরকারি সফরে ঢাকায় রয়েছেন। আমন্ত্রণ গ্রহণ করে মার্চের এই ঐতিহাসিক মাসে ভুটানের রাজার বাংলাদেশ সফরের জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন রাষ্ট্রপতি।

বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যে বন্ধুত্বের বন্ধন গভীর ও ঐতিহাসিক উল্লেখ করে রাষ্ট্রপ্রধান দু’দেশের অভিন্ন ইতিহাস, ভৌগোলিক নৈকট্য, সমৃদ্ধি ও উন্নয়নের জন্য, জনগণের আকাঙ্খা পূরণে দুই সরকারই যৌথভাবে কাজ করবে বলে আশা প্রকাশ করেন।

রাষ্ট্রপতি সাহাবুদ্দিন ১৯৭১ সালের ৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি প্রদানকারী প্রথম দেশ হিসেবে ভুটানের ভূমিকার কথা স্মরণ করেন এবং কৃতজ্ঞ চিত্তে বলেন, ‘বাংলাদেশের জনগণ ভুটানের প্রতি কৃতজ্ঞ।’

ভুটানের রাজা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ক্যারিশম্যাটিক নেতৃত্বে আর্থ-সামাজিক সংস্কৃতিসহ বিভিন্ন খাতে অভূতপূর্ব উন্নয়নের প্রশংসা করেন। তিনি তার দেশে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত নির্বাচনের প্রসঙ্গ উল্লেখ করেন এবং গণতন্ত্রের চর্চা ও বিকাশের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন।

ভুটানের রাজা বাংলাদেশে উৎপাদিত তৈরি পোশাক, সিরামিক ও ঔষধসহ বিভিন্ন পণ্যের গুণগত মানের প্রশংসা করেন। তিনি শিক্ষা, সংস্কৃতি, যোগাযোগ ও জ্বালানীসহ বিভিন্ন খাতে দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতা বৃদ্ধির ব্যাপারেও আগ্রহ ব্যক্ত করেন।

বৈঠকে ভুটানের পক্ষে সে দেশের শিল্প, বাণিজ্য ও কর্মসংস্থান মন্ত্রী নামগিয়াল দরজি, পররাষ্ট্র ও বৈদেশিক বাণিজ্য মন্ত্রী ডিএন ধুংগেল এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রী তান্ডিন ওয়াংচুক উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত এবং সংশ্লিষ্ট সচিবগণ সেখানে উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে, বিকেল ৪টা ২৫ মিনিটে ভুটানের রাজা ও রানী বঙ্গভবনে পৌঁছালে রাষ্ট্রপতি সাহাবুদ্দিন তাকে ফুলের তোড়া উপহার দেন এবং রাষ্ট্রপতির স্ত্রী ড. রেবেকা সুলতানা ভুটানের রানী জেটসুন পেমাকে আরেকটি ফুলের তোড়া দিয়ে স্বাগত জানান।

রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বৈঠক শেষে ভুটানের রাজা দর্শনার্থী বইয়ে স্বাক্ষর করেন। পরে বঙ্গভবনের মাঠে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসের অনুষ্ঠানে যোগ দেন।


আরও খবর