Logo
আজঃ সোমবার ২৪ জুন 20২৪
শিরোনাম

মধুপুর প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাল্য বিবাহ বন্ধ ১৫হাজার টাকা জরিমানা 

প্রকাশিত:শনিবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ২৮৪জন দেখেছেন

Image
বাবুল রানা মধুপুর প্রতিনিধি: আসুন সবাই ঐক্য গড়ি, বাল্য বিবাহ বন্ধ করি এই স্লোগানকে সামনে রেখে মধুপুর উপজেলা প্রশাসন জিরো টলারেন্স বাস্তবায়নের কাজ করে যাচ্ছেন।
এরই ধারাবাহিকতায় মধুপুর উপজেলা প্রশাসন শুক্রবার (২ডিসেম্বর ) রাতে আলোকদিয়া ইউনিয়নের লাউফুলা গ্রামে একটি বাল্য বিবাহ বন্ধ করেন।

ঘটনার সূত্রে জানা যায়, মধুপুর থানাধীন আলোকদিয়া ইউনিয়নের লাউফুলা এলাকার মো.হাসমত আলীর ১৩ বছরের মেয়ের সাথে আউশনারা ইউনিয়নের সাহাপাড়া নজরুল ইসলামের ছেলে মনিরুজ্জামান(২০) এর সাথে বিয়ের আয়োজন করা হয়েছে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে তাৎক্ষণিক উপজেলা কমিশনার(ভুমি)ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাকির হোসেন, লাউফুলা পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ সদস্যদের সাথে নিয়ে ঘটনা স্থলে গিয়ে বাল্য বিবাহের সত্যতা খুঁজে পান।

পরবর্তীতে বর কনের পিতামাতাকে ভ্রাম্যমান আদালতে হাজির করে ২০১৭ সালের বাল্য বিবাহ আইনের ৮ধারা মতে উভয় পক্ষকে পনের হাজার টাকা জরিমানা করা হয় এবং উভয় পক্ষের ছেলে মেয়ের প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত তাদের বিবাহ দিবেন না এই মর্মে মচলিকা প্রদান করেন। 
এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় ইউপি সদস্য নাজিম উদ্দিন সহ অন্যান্য স্থানীয় ব্যক্তিবর্গ ও প্রেসক্লাব মধুপুর এর সাধারণ সম্পাদক বাবুল রানা।


আরও খবর



সৈয়দপুরে ভ্যাপসা গরমে কদর বেড়েছে তাল শাসের

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১১৪জন দেখেছেন

Image

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি:ভ্যাপসা গরমে সৈয়দপুরের জনজীবন অতিষ্ট হয়ে পড়েছে। একারনে গ্রীষ্মের গরমে অতিষ্ঠ মানুষের কাছে তাল শাঁসের কদর ক্রমেই বাড়ছে। এ তাল শাসের কদর শুধু শহরেই নয়, গ্রামগন্জের হাটবাজারেও ব্যাপক কদর বাড়ার চিত্র চোখে পড়ে।

উপজেলা শহরের জিআরপি মোড়,রেলওয়ে স্টেশন, পোষ্ট অফিসের সামনে ১ নং রেলগেট,সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে এ তালের শাঁস বিক্রি হতে দেখা যায় । এছাড়া উপজেলার গ্রামগন্জে সহ বিভিন্ন স্থানে এ তালের শাঁস বিক্রি হচ্ছে।

সৈয়দপুর শহরে তালের শাঁস বিক্রি করতে আশা পার্বতীপুরের আলী হোসেন জানান, ৩/৪ দিন ধরে আবারো প্রচন্ড গরমের প্রভাব পড়েছে। শহর ও গ্রামগন্জের সব শ্রেনীর মানুষ  গরমে অতিষ্ট হয়ে পড়েছে।তারা ভ্যাপসা গরম নিবারণে তালের শাঁস ও বিভিন্ন রকমের শরবতসহ ঠান্ডা জাতীয় খাদ্য সামগ্রীর খাচ্ছেন ।  ক্লান্ত শরীরে তালের শাঁসসহ ঠান্ডা জাতীয় খাদ্য সামগ্রী পান করছে পথচারীরাও। বিশেষ করে তালের শাঁসের কদর বাড়ছে অনেক বেশি।

তিনি বলেন জয়পুরহাট ও যশোর সহ বিভিন্ন অঞ্চল থেকে পাইকারি দরে কচি তাল কিনে আনছি এবং সেগুলি শহর ও গ্রামঞ্চলের বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করছি। গাছিদের কাছ থেকে নিয়ে আসা প্রতিটি তালের দাম পড়ে ১৬ টাকা। একেকটি তালের  শাস হয় ৪ টি। ৪ টি শাস বিক্রি করছি ৩০ থেকে ৪০ টাকায় ।তাল শাঁস বিক্রয়ের লাভ বেশি হলেও ২ মাসের বেশি এ ব্যবসা চলে না। তাছাড়া গরম না পড়লে এ তাল শাঁস কেউই খেতে চায় না। 

এ বিষয়ে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ ডাক্তার ওয়াসিম বারি জয় বলেন তালের শাঁস শুধু সুস্বাদুই নয়, তাল শাসে অবিশ্বাস্য পুষ্টিগুণ রয়েছে। উপকারীতাও রয়েছে পর্যাপ্ত । তালশাঁস মানবদেহকে শিথিল রাখে। একই সাথে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় বলে জানান তিনি। 


আরও খবর



আফগানিস্তানের শুভসূচনা রেকর্ড গড়া জয় দিয়ে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১৩৫জন দেখেছেন

Image

স্পোর্টস ডেস্ক:আফগানিস্তানের লক্ষ্যটা উগান্ডার বিপক্ষে কেবল জয় না। রশিদ খানের দল চেয়েছিল রানরেটের ব্যবধানটাও এগিয়ে রাখতে। সেই লক্ষ্যে অনেকটাই সফল হয়েছে তারা। ১২৫ রানের বিশাল জয় দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করেছে দলটি।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ইতিহাসে যা চতুর্থ বৃহত্তম জয়। রহমানউল্লাহ গুরবাজ আর ইব্রাহিম জাদরানের ফিফটির পর ফজল হক ফারুকির ফাইফার নিশ্চিত করেছে আফগানদের বড় জয়।

মঙ্গলবার (৪ মে) গায়ানায় উগান্ডার বিপক্ষে ১২৫ রানে জয় পেয়েছে রশিদ খানের দল। টস হেরে প্রথমে ব্যাট করে ৫ উইকেটে ১৮৩ রানের বড় সংগ্রহ পায় আফগানিস্তান। জবাবে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৫৮ রানেই গুটিয়ে যায় প্রথমবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলতে আসা দল উগান্ডা। আফগানিস্তানের হয়ে ৫ উইকেট নিয়েছেন ফজলহক ফারুকী। ম্যাচ সেরাও হয়েছেন বাঁহাতি এই পেসার।

১৮৪ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই উইকেট হারাতে থাকে উগান্ডা। ফজলহক ফারুকীর প্রথম ওভারেই দুই উইকেট হারায় তারা। এরপর দ্বিতীয় ওভারেও উইকেট হারায় উগান্ডা। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে তারা। শেষ পর্যন্ত মাত্র ৫৮ রানে থামে উগান্ডার ইনিংস। উগান্ডার হয়ে মাত্র দুইজন ব্যাটসম্যান দুই অঙ্কের রান করতে পেরেছেন। তাতে ১২৫ রানে বিশাল জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে আফগানিস্তান।

আফগানদের হয়ে ফারুকী ৪ ওভার বোলিং করে ৯ রানে ৫ উইকেট নেন। এছাড়াও নবীন-উল-হক ২ ওভারে ৪ রানে দুইটি এবং অধিনায়ক রশিদ খান ৪ ওভারে ১২ রানে ২টি উইকেট পেয়েছেন। বাকি উইকেটটি পেয়েছেন মুজিব উর রহমান।

এর আগে দুই আফগান ওপেনার ইব্রাহিম জাদরান এবং রহমানুল্লাহ গুরবাজের ব্যাটিং তাণ্ডবে উগান্ডার বিপক্ষে বিশাল সংগ্রহ পায় রশিদ খানের দল। আফগানিস্তানের ওপেনিং জুটি থেকে আসে ১৫৪ রান। গুরবাজ ৪৫ বলে ৪ চার এবং সমান সংখ্যক ছক্কার মারে ৭৬ রানের ইনিংস খেলেন। অপরদিকে আরেক ওপেনার ইব্রাহিম জাদরান করেন ৪৬ বলে ৭০ রান। এই জুটি ভাঙার পরই রানের চাকা ধীরগতির হয়ে যায়। উগান্ডার নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে দুই ওপেনার ছাড়া কোন ব্যাটসম্যান বাউন্ডারি হাঁকাতে পারেননি।

এদিকে মাত্র ৫৮ রানে অলআউট হয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে লজ্জার রেকর্ডে নাম লিখিয়েছে উগান্ডা। বিশ্বকাপে চতুর্থ দলীয় সর্বনিম্ন রান এটি। বিশ্বকাপে সর্বনিম্ন দলীয় রানের রেকর্ডটি অবশ্য নেদারল্যান্ডসের দখলে। ২০১৪ বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মাত্র ৩৯ রানে অলআউট হয়েছিল ডাচরা।


আরও খবর



ঢাকায় ফিরছেন কর্মজীবী মানুষ

প্রকাশিত:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৮৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:পবিত্র ঈদুল আজহার ছুটি উদযাপন শেষে ঢাকায় ফিরতে শুরু করেছেন কর্মজীবী মানুষ।

বুধবার (১৯ জুন) ঈদের তৃতীয় দিন সকাল থেকেই রাজধানীর কমলাপুরের ঢাকা রেলওয়ে স্টেশনে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে মানুষজনকে ফিরতে দেখা যায়। আবার ঢাকা ছেড়ে বিভিন্ন এলাকায় যাওয়ার জন্যও মানুষজনকে প্ল্যাটফর্মে অপেক্ষা করতে দেখা গেছে।

মূলত, ঈদ উপলক্ষে ১৬, ১৭ ও ১৮ জুন (রোব, সোম ও মঙ্গলবার) তিনদিন ছিল সরকারি ছুটি। এর আগে ১৪ ও ১৫ জুন (শুক্র ও শনিবার) সাপ্তাহিক ছুটি ছিল। এ কার‌ণে এবারের ঈদের ছুটি পড়েছে পাঁচদিন। ফ‌লে টানা পাঁচদিন ঈদের ছুটি শেষে আজ অফিসপাড়ায় যোগ দিচ্ছেন কর্মজীবীরা। তবে, এখনো ট্রেনে তেমন ভিড় দেখা যায়নি। বিশেষত চাকরিজীবী অনেকেই পরিবার পরিজনদের গ্রামের বাড়িতে রেখে একাই ঢাকা ফিরে এসেছেন।


আরও খবর



৩ নম্বর সংকেত জারি সমুদ্র বন্দরে

প্রকাশিত:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৬১জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আবহাওয়া অধিদপ্তর দেশের চারটি সমুদ্র বন্দরে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলেছে।বুধবার (১৯ জুন) আবহাওয়ার এক সতর্কবার্তায় সংস্থাটি এ সতর্কবার্তা জারি করে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের সতর্কবার্তায় জানানো হয়, সক্রিয় মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর এলাকায় গভীর সঞ্চালনশীল মেঘমালা সৃষ্টি হচ্ছে। উত্তর বঙ্গোপসাগর, বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা এবং সমুদ্র বন্দরগুলোর ওপর দিয়ে ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

এ কারণে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। এছাড়া উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি এসে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।

এদিকে সক্রিয় মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে দেশের চারটি বিভাগে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হতে পারে বলে আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। সেইসঙ্গে দুই বিভাগে ভারী বৃষ্টির কারণে ভূমিধসের শঙ্কার কথাও জানানো হয়েছে।


আরও খবর



তাহিরপুর সীমান্তের কোটিপতি সোর্স ও গডফাদার অধরা: বেড়েছে চোরাচালান

প্রকাশিত:শনিবার ২২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৫২জন দেখেছেন

Image

মোজাম্মেল আলম ভূঁইয়া,সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা সীমান্তে সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে সোর্স ও তাদের গডফাদার সিন্ডিকেডের মাধ্যমে প্রতিদিন ভারত থেকে ওপেন মাদকদ্রব্য, কয়লা, চুনাপাথর, চিনি, পেয়াজ, গরু, ঘোড়া, বাঁশ, কাঠ ও বিড়িসহ বিভিন্ন মালামাল পাচাঁরের পর সাংবাদিক, পুলিশ ও বিজিবির নাম ভাংগিয়ে চাঁদাবাজি করছে বলে খবর পাওয়া গেছে। সম্প্রতি পুলিশ অভিযান চালিয়ে পাচাঁরকৃত অবৈধ কয়লা বোঝাই ৫টি নৌকা আটককের পর ছেড়ে দিয়েছে বলে জানা গেছে। তাই সীমান্ত চোরাকারবারীদের গডফাদার ও সোর্স বাহিনীকে গ্রেফতারের জন্য প্রশাসনের উপরস্থ কর্মকর্তাদের সহযোগীতা জরুরী প্রয়োজন।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে- গতকাল শনিবার (২২ জুন) ভোরে উপজেলার বীরেন্দ্রনগর সীমান্তের সুন্দরবন ও লামাকাটা এলাকা দিয়ে সোর্স মস্তোফা ও লেংড়া জামালগং ও চারাগাঁও সীমান্তের লামাকাটা এলাকা দিয়ে সোর্স লেংড়া জামাল, জঙ্গলবাড়ি এলাকা দিয়ে সোর্স আইনাল মিয়া, রিপন মিয়া, সাইফুল মিয়া, কলাগাঁও এলাকা দিয়ে সোর্স রফ মিয়া,দীপক মিয়া, চারাগাঁও এলসি পয়েন্ট ও বাঁশতলা এলাকা দিয়ে সোর্স আনোয়ার হোসেন বাবলু, সোহেল মিয়া, বাবুল মিয়া ও লালঘাট এলাকা দিয়ে রুবেল মিয়াগং পৃথক ভাবে ১৫টি ইঞ্জিনের নৌকা বোঝাই করে প্রায় ৪শ মেঃটন কয়লা ও মাদকদ্রব্য পাচাঁর করে নেত্রকোনা জেলার কলমাকান্দা উপজেলার ব্রিজের কাছে নিয়ে। এরআগে গত শুক্রবার (২১ জুন) রাত ২টায় একই ভাবে ওই গডফাদার ও তার সোর্স বাহিনী ১৮টি ইঞ্জিনের নৌকা বোঝাই করে প্রায় ৫শ মেঃটন কয়লা, গত বৃহস্পতিবার (২০ জুন) ভোরে ২০টি নৌকা বোঝাই করে পাচাঁরকৃত ৬শ মেঃটন কয়লা ও চুনাপাথরসহ চিনি, পেয়াজ পাচাঁর করে নিয়ে যায়। তবে গত বুধবার (১৯ জুন) ভোরে একই ভাবে ওই গডফাদার ও তার সোর্স বাহিনী ৩০টি ইঞ্জিনের নৌকা বোঝাই করে পাচাঁরকৃত প্রায় ১হাজার মেঃটন কয়লা ও মাদকদ্রব্য নিয়ে যাওয়ার সময় পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৫টি নৌকা আটক করে। এরপরে গডফাদার তোতলা আজাদের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে আটককৃত কয়লা বোঝাই ইঞ্জিনের নৌকাগুলো ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে খবর পাওয়া যায়। তার আগে গত মঙ্গলবার (১৮ জুন) রাত ১টায় ২৫টি ইঞ্জিনের নৌকা বোঝাই করে প্রায় ৭শ মেঃটন কয়লা ও মাদকদ্রব্য পাচাঁর করে গডফাদার ও তার সোর্সরা। একই ভাবে গত ৫দিনে পাশের বালিয়াঘাট সীমান্ত দিয়ে সোর্স জিয়াউর রহমান জিয়া, মনির মিয়া, ইয়াবা কালাম মিয়া, হোসেন আলী, রতন মহলদার, কামারুল মিয়াগং প্রায় ৫হাজার মেঃটন ও টেকেরঘাট সীমান্তের চুনাপাথর খনি প্রকল্প, নিলাদ্রী লেক, বুরুঙ্গাছড়া, রজনী লাইন ও বড়ছড়া এলাকা দিয়ে সোর্স আক্কল আলী, রুবেল মিয়া, মহিবুর মিয়া, সাইদুল মিয়া প্রায় ৭ হাজার মেঃটন কয়লা ও মাদকদ্রব্য পাচাঁর করাসহ পাশের চাঁনপুর সীমান্তের নয়াছড়া, রাজাই, কড়ইগড়া ও বারেকটিলা এলাকা দিয়ে সোর্স জামাল মিয়া, নজরুল মিয়া, বুটকুন মিয়া, সাহিবুর মিয়াগং ১২হাজার মেঃটন কয়লা, চুনাপাথর, শতাধিক গরু, ঘোড়া ও মাদকদ্রব্য পাচাঁর করাসহ লাউড়গড় সীমান্তের যাদুকাটা নদী, সাহিদাবাদ, পুরান লাউড়, দশঘর এলাকা দিয়ে সোর্স বায়েজিদ মিয়া, জসিম মিয়া, রফিক মিয়া ও নুরু মিয়াগং বিপুল পরিমান কয়লা, পাথর, গরু, ঘোড়া, পেয়াজসহ বিভিন্ন মালামাল পাচাঁর করেছে বলে জানাগেছে। কিন্তু পাচাঁরকৃত অবৈধ মালামাল আটক করা কিংবা সোর্স ও তাদের গডফাদারকে গ্রেফতারের কোন খবর পাওয়া যায়নি। অথচ সুনামগঞ্জে পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান ও তাহিরপুর থানায় ওসি আব্দুল লতিফ তরফদার কর্মরত থাকাকালীন সময় সীমান্তে অভিযান চালিয়ে গডফাদার তোতলা আজাদের ছেলে কিশোর গ্যাংলিডার সিহাব সারোয়ার শিপুসহ তার অর্ধশতাধিক সোর্সকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠানোসহ জব্দ করা হয়েছিল কয়েক কোটি টাকার অবৈধ কয়লা, চুনাপাথর, মোটর সাইকেল ও বালি বোঝাই ইঞ্জিনের নৌকা। এছাড়াও তোতলা আজাদের বাড়ি কামড়াবন্দসহ লাউড়গড়, শিমুলতলা, বিন্নাকুলি, বালিজুরী, তাহিরপুর সদর ও ফকির নগর গ্রামে অভিযান চালিয়ে ইয়াবা, মদ, গাঁজা ও নাসির উদ্দিন বিড়িসহ জুয়ার বোর্ড থেকে তোতলা আজাদের শতাধিক লোকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। কিন্তু ওই দুই কর্মকর্তা অন্যত্র বদলি হয়ে যাওয়ার পর সবকিছু উন্মুক্ত হয়ে যায়। গডফাদার তোতলা আজাদ ও তার সোর্স বাহিনীর দাপট বেড়ে যায় এবং ভারত থেকে অবৈধ ভাবে বিভিন্ন মালামাল পাচাঁরের পর সাংবাদিক, পুলিশ ও বিজিবির নাম ভাংগিয়ে সোর্স দিয়ে ওপেন চাঁদাবাজি করে বর্তমানে গডফাদার তোতলা আজাদ প্রায় ১৫ কোটি, তার সোর্স আক্কল আলী ৫কোটি, রতন মহলদার ২কোটি, কামরুল মিয়া ১কোটি, ইয়াবা কালাম ৭কোটি, জিয়াউর রহমান জিয়া ৬কোটি, বাবুল মিয়া  ২কোটি, রফ মিয়া ৮ কোটি, আইনাল মিয়া ১১কোটি টাকার মালিক হয়েছে। তাদের নেতৃত্বে চোরাচালান করতে গিয়ে এপর্যন্ত চারাগাঁও সীমান্তে ১২জন,বালিয়াঘাট সীমান্তে ৩৩জন,টেকেরঘাট সীমান্তে ১৫জন,চাঁনপুর সীমান্তে ৮জন ও লাউড়গড় সীমান্তে ৪৮জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানাগেছে। তারপরও গডফাদার ও তার সোর্সরা রয়েগেছে অধরা।

এব্যাপারে তাহিরপুর কয়লা ও চুনাপাথর আমদানী কারক সমিতির আর্ন্তজাতিক বিষয়ক সম্পাদক আবুল খায়ের বলেন- সীমান্ত চোরাচালানের কারণে একদিকে কোটিকোটি টাকার সরকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে,অন্যদিকে বৈধ ব্যবসায়ীরা সীমাহীন ক্ষতিগ্রস্থ্য হচ্ছে। এব্যাপারে প্রশাসনের স্থানীয় কর্মকর্তাদেরকে বারবার অবগত করার পরও তারা কোন পদক্ষেপ নেয়না। এউপজেলার উত্তর বড়দল ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার ও আওয়ামীলীগ নেতা কফিল উদ্দিন বলেন-রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে প্রতিদিন ভারত থেকে ওপেন গরু, কয়লা ও চুনাপাথরসহ বিভিন্ন প্রকার মাদকদ্রব্য পাচাঁর করা হচ্ছে। কিন্তু বিজিবি ও পুলিশ এব্যাপারে কোন পদক্ষেপ নেয়না। সুনামগঞ্জ জেলার সিনিয়র সাংবাদিক মোজাম্মেল আলম ভূঁইয়া বলেন- সীমান্ত চোরাচালানের বিষয়ে বিজিবি ক্যাম্প গুলোতে ফোন করে বারবার জানানোর পরও তারা কোন পদক্ষেপ নেয়না। তাই গডফাদার ও তার সোর্স বাহিনীকে গ্রেফতারের জন্য প্রশাসনের উপরস্থ কর্মকর্তাদের সহযোগীতা জরুরী প্রয়োজন।

তাহিরপুর থানার ওসি কাজী নাজিম উদ্দিন বলেন- সীমান্ত চোরাচালান বন্ধের দায়িত্ব বিজিবির, তাদের সাথে যোগাযোগ করুন। এব্যাপারে চারাগাঁও বিজিবি ক্যাম্প কমান্ডার শফিকুল ও চাঁনপুর বিজিবি ক্যাম্প কমান্ডার আব্বাস বলেন- তাদের সীমান্ত দিয়ে কোন কিছু পাচাঁর হলে, জানালে তারা ব্যবস্থা নেবে। সুনামগঞ্জে টেকেরঘাট কোম্পানী কমান্ডার নায়েব সুবেদার দিলীপ বলেন- আমার সীমান্ত এলাকা দিয়ে কোন কিছু পাচাঁর হওয়ার খবর আমি পাইনা।


আরও খবর