Logo
আজঃ সোমবার ২৪ জুন 20২৪
শিরোনাম

মাগুরায় মাদক কারবারিকে ধরতে গিয়ে দুই র‌্যাব সদস্যসহ নিহত ৩

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ২৮১জন দেখেছেন

Image

মাগুরা প্রতিনিধি; মাগুরায় মাদক কারবারিকে ধরতে গিয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) দুই সদস্যসহ তিনজন নিহত হয়েছেন। আজ শুক্রবার ভোর ৪টার দিকে সদর উপজেলার শাইত্রিশ বাজার এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, র‌্যাব সদস্য আনিসুর রহমান ও মহিদুল। নিহত অন্যজনের নাম জানা যায়নি। তিনি মাদকবাহী পিকআপ ভ্যানের চালক।

এ ঘটনায় র‌্যাবের এক সদস্য গুরুতর আহত হয়েছেন। গুরুতর আহতাবস্থায় রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) নেওয়া হয়েছে।

মাগুরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজরি রহমান জানান, ঝিনাইদহ র‌্যাব-৬-এর টহল দল একটি পিকআপভ্যানকে চেকপোস্টে সিগন্যাল দেয়। কিন্তু ওই পিকআপ ভ্যানের চালক সিগন্যাল অমান্য করে মাগুরার দিকে দ্রুত চালাতে থাকে। এ সময় র‌্যাবের ওই টহল দল পিকআপ ভ্যানটিকে ধাওয়া করে মাগুরা সদরের শাইত্রিশ বাজার এলাকায় পৌঁছলে দুটি গাড়ির সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই একজন র‌্যাব সদস্য ও পিকআপ ভ্যানের চালক নিহত হন। আহতাবস্থায় হাসপাতালে নেওয়ার পর র‌্যাবের আরেক সদস্যের মৃত্যু হয়।

গুরুতর আহতাবস্থায় র‌্যাবের আরেক সদস্যকে রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) নেওয়া হয়েছে। ওই পিকআপ ভ্যানে ফেনসিডিল পাওয়া গেছে।


আরও খবর



অন্যায়ভাবে জমি দখল, মিথ্যা মামলা ও হয়রানি করার প্রতিবাদে বোদায় মানববন্ধন

প্রকাশিত:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১৭জন দেখেছেন

Image

কুয়েল ইসলাম সিহাত,বোদা (পঞ্চগড়) প্রতিনিধিঃপঞ্চগড়ের বোদায় অন্যায়ভাবে জমি দখল, মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি প্রতিবাদে এবং ভূমিদস্যু তোয়ায়েল আহম্মেদ ও বোদা থানার ওসি মোজাম্মেল হকের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়েছে। শনিবার (২২ জুন) দুপুরে উপজেলার ময়দানদিঘী বাজারে ভূক্তভোগী পরিবার ও স্থানীয়দের ব্যানারে পঞ্চগড়-ঢাকা মহাসড়কের একপাশে দাড়িয়ে ঘন্টাব্যাপী এই মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়। মানববন্ধনে ভূক্তভোগী পরিবারের সদস্য আনসারুল ইসলাম, পারুল বেগম, শাপলা আক্তার, আর্ণিকা বেগম, শাহজাহান আলী প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। মানববন্ধনে বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, উপজেলার ময়দানদিঘী ইউনিয়নের জমকুড়াপাড়া এলাকার আনসারুল ইসলাম ও তার পরিবার দীর্ঘ ৭৫ বছর ধরে ক্রয়সূত্রে ২৪ বিঘা জমির মালিকানা লাভ করেন। তবে ওই জমি গত কয়েক বছর আগে স্থানীয় আনিসুর সহ তার পরিবারের সদস্যরা গাজীপুর জেলার তোফায়েল আহম্মেদ নামে এক ব্যক্তির কাছে বিক্রি করেন। পরে এনিয়ে আদালতে মামলা গড়ায়। সম্প্রতি সেই জমি দখলে নিতে বোদা থানার অফিসার ইনচার্জ মোজাম্মেল হককে ঘুষ দিয়ে তার উপস্থিতিতে কাটা তারের বেড়া দিয়ে জমি দখলে নেয় ভূমিদস্যু তোফায়েল। তবে রাতের আধাঁরে জমির কে বা কারা জমিতে দেয়া বেড়া ক্ষতিগ্রস্থ করেছে তার দায় চাপিয়ে দেয়া হয়েছে ভূক্তভোগী পরিবারের উপর। পরে এনিয়ে তোফায়েল বোদা থানায় সীমানা বেড়া ক্ষতিগ্রস্থ ও মালামার চুরির একটি মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ মামলার আসামী ধরতে রাতের আধারে ভূক্তভোগীদের হয়রানী করছে। অবিলম্বে এই মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, হয়রানী বন্ধ সহ ভূমিদস্যু তোফায়েল ও বোদা থানার ওসি মোজাম্মেল হকের বিচার দাবী করেন বক্তারা। মানববন্ধনে ভূক্তভোগী পরিবারের সদস্য আনসারুল ইসলাম বলেন, আমাদের জমি অন্যায়ভাবে দখলে নিয়ে আমাদের উপরই মালামাল চুরির একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। পুলিশ রাতে আমাদের ধাওয়া করছে। আমাদের পরিবারের কয়েকজন ছাত্রছাত্রীকেও আসামী করা হয়েছে তাদের কারো এইচএসসি কারো অর্নাস পরীক্ষা চলছে। তারাও বাসায় থাকতে পারছেনা। আমরা আমাদের জমি ফিরিয়ে চাই। সেই সাথে অবৈধ মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, ভূমিদস্যু তোফায়েল ও বোদা থানার ওসি মোজাম্মেল হকের বিচার চাই। পরে মানববন্ধন শেষে একই দাবীতে ময়দানদিঘী বাজারে ভূক্তভোগী পরিবার ও স্থানীয়রা পঞ্চগড়-ঢাকা মহাসড়ক ঘন্টাব্যাপী অবরোধ করেন। এসময় মহাসড়কের দুই পাশে অর্ধশতাধিক যানবাহন আটকে পড়ে। পরে উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) এস এম ফুয়াদ ও বোদা হাইওয়ে থানার ওসি শরিফুল ইসলাম ঘটনাস্থলে পৌঁছে ভূক্তভোগীদের সাথে কথা বলে মামলার বিষয়ে তদন্ত ও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের আশ্বাস দিলে সড়ক অবরোধ প্রত্যাহার করেন ভূক্তভোগী পরিবারের সদস্য ও স্থানীয়রা। সব অভিযোগ অস্বীকার করে তোফায়েল আহম্মেদ বলেন, আমার কাছে কোর্টের আদেশ আছে। আমি সেই আদেশের বলে জমিতে গেছি। কোর্ট আমাকে জমি দখল করে দিয়েছে। আপনারা চাইলে সব কাগজপত্র দেখতে পারেন। আর আমি কোন মিথ্যা মামলা করিনি। কাউকে হয়রানীও করা হচ্ছে না। আমার মালামাল চুরি হয়েছে আমি মামলা করবো না। এখানে কোন মিথ্যার আশ্রয় নেয়া হয়নি। এ ব্যাপারে বোদা থানার অফিসার ইনচার্জ মোজাম্মেল হক সব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ওই ঘটনায় সকল কর্মকান্ড আইন অনুযায়ী করা হয়েছে। 


আরও খবর



আত্রাইয়ের প্রতিটি বাজারে পাওয়া যাচ্ছে সুস্বাদু লিচু, দাম চড়া

প্রকাশিত:সোমবার ২৭ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১১৫জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হক নাহিদ, আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি:উত্তর জনপদের খাদ্যশষ্য ভান্ডার হিসেবে খ্যাত নওগাঁর আত্রাই উপজেলায় এখন প্রতিটি হাট-বাজারে পাওয়া যাচ্ছে সুস্বাদু রসালো ফল লিচু। তীব্র গরমে কদর বেড়েছে রসালো এই ফলের। এবার ফলন ভালো হওয়ার পাশাপাশি চড়া দাম পেয়ে খুশি চাষিরা। তবে দাম চড়া হওয়ায় ক্রেতারা অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বাড়ির আঙিনা, রাস্তার পাশে ও বাগানে সবুজ পাতার আড়ালে ঝুলছে থোকায় থোকায় লিচু। অনেক জায়গায় দেখা যায় লিচু যাতে পাখিতে নষ্ট করতে না পারে, সে জন্য গাছের সঙ্গে টিন, জাল টাঙিয়ে রক্ষা করার চেষ্টা করছেন বাগান মালিকেরা।

ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তাঁরা এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন। তবে অনেক মালিক লিচুবাগান আগেই বিক্রি করে দিয়েছেন।

ভবানীপুর বাজারে লিচু কিনতে আসা উপজেলার কাশিমপুর গ্রামে রানা বলেন, ‘বাড়িতে ছেলেমেয়ে আছে, তাই কিছু লিচু কিনলাম। দাম এখন অনেক বেশি। ১শত টি লিচুর দাম নিয়েছে ৩০০ টাকা।’

উপজেলা সদর সাহেবগঞ্জ মোড়ের লিচু ব্যবসায়ী রবিন বলেন, এখন লিচুর অনেক দাম। ১শতটি লিচু ৩০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। লিচু বেশি দামে কিনতে হচ্ছে, তাই বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে।’

আরেক লিচু ব্যবসায়ী মুনিরুল ইসলাম বলেন, গরমে লিচুর আলাদা কদর রয়েছে। তা ছাড়া মৌসুমি ফল হিসেবে দাম বেশি হলেও ক্রেতারা কিনছেন।

তিনি আরও বলেন, লিচুবাগান পাহারা দিতে হয়। পাখি অনেক লিচু নষ্ট করে ফেলে। 

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ প্রসেনজিৎ তালুকদার বলেন, আত্রাই উপজেলায় তেমন একটা লিচু উৎপাদিত হয়না। তবে দিন দিন এ উপজেলায় লিচুর গাছ বাড়ছে। ছোট-বড় সবার কাছে অন্যান্য সুস্বাদু মৌসুমি ফলের মতো লিচুরও কদর রয়েছে। লিচুর ভালো দাম পাওয়ায় অনেকে লিচু চাষে ঝুঁকছেন। বাজারে এখন পরিপক্ব লিচু পাওয়া যাচ্ছে। কৃষি অফিস থেকে লিচুচাষিদের বিভিন্ন পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। লিচুর ভালো দাম পেয়ে খুশি চাষিরা।


আরও খবর



ইসলামপুর ভূমিসেবা সপ্তাহ উপলক্ষে জনসচেতনতা মূলক সভা

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ১০৯জন দেখেছেন

Image
লিয়াকত হোসাইন লায়ন,ইসলামপুর(জামালপুর)প্রতিনিধি:স্মার্ট ভূমি সেবা, স্মার্ট নাগরিক এই আলোকে সারা দেশের ন্যায় ইসলামপুর ভূমিসেবা সপ্তাহ উপলক্ষে জামালপুরের ইসলামপুরে জনসচেতনতা মূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) উপজেলা পরিষদ বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আব্দুল বারী মন্ডল মিলনায়তনে ভূমি অফিস কর্তৃক আয়োজিত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এস এম জামাল আব্দুন নাসের বাবুল।

এতে উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি সাঈদ মোহাম্মদ ইব্রাহিম, সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা কামরুল হাসান,উপজেলা প্রকৌশলী আমিনুল হক, অফিসার ইনচার্জ সুমন তালুকদার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ জামাল আবু নাসের চৌধুরী চার্লেস, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মানিকুল ইসলাম, গোয়ালেরচর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম বাদশা প্রমূখ বক্তব্য রাখেন।

বক্তারা,জনসচেতনামূলক সভায় বক্তারা স্মার্ট ভূমি সেবা বাস্তবায়ন করতে হলে স্মার্ট ভূমি উন্নয়ন কর, স্মার্ট নামজারি, ভূমি বিষয়ক পরামর্শ, স্মার্ট খতিয়ান, স্মার্ট জমির ম্যাপ, ভূমি সংক্রান্ত অভিযোগ, সরকারের পাশাপাশি জন সাধারণের সহযোগিতাসহ স্মার্ট ভূমি সেবা বাস্তবায়ন করতে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

আরও খবর



উন্নয়নের গতি থামিয়ে রাখার সুযোগ নেই: তাজুল ইসলাম

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৯৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:বায়ু দূষণ শুধু আমাদের নিজস্ব ভৌগলিক সীমানার মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই। আমরা যদি আমাদের নিজ ভৌগলিক সীমানা দূষণ মুক্ত করি তবুও আমাদের বায়ু দূষণমুক্ত হবে না। কারণ সারাবিশ্বে যেভাবে যুদ্ধ হচ্ছে, প্রতিনিয়ত দূষণ হচ্ছে সেগুলো বিভিন্ন উপায়ে আমাদের পরিবেশে নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে,বলেছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। 

তিনি আরও বলেন, আমাদের অনেক ঘনবসতিপূর্ণ দেশ। প্রারম্ভে আমাদের আর্থিক অবস্থা দুর্বল ছিল। উন্নয়নের মূল স্রোতে নিয়ে আসতে আমাদের শিল্পায়ন করতে হয়েছে, গড়ে তোলা হয়েছে শিল্প কারখানা। উন্নয়নের এই গতি থামিয়ে রাখার সুযোগ নেই।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে গ্রান্ড বলরুমে বায়ু দূষণ নিয়ন্ত্রণে বহু অংশীজনের পরামর্শ শীর্ষক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, শিল্পোন্নত দেশগুলো কোনরকম জবাবদিহিতা ছাড়াই অতিমাত্রায় শিল্পায়ন করে পরিবেশে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। পুরো বিশ্বকেই উন্নত দেশগুলো দূষিত করে তাদের উন্নত অবস্থা সৃষ্টি করেছে। এখন তারা উপলব্ধি করছে তাদের শিল্পায়নের ফলে পরিবেশের ওপর যে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে তা মোকাবিলা করতে হবে।

তাজুল ইসলাম বলেন, ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত ও স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তোলার যে স্বপ্ন আমরা দেখছি তার জন্য আমরা সবাই কাজ করছি। কৃষিক্ষেত্রে নিত্যনতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে, শতভাগ বিদ্যুতায়ন অর্জিত হয়েছে, নিত্যনতুন প্রযুক্তি ও যোগাযোগ ব্যবস্থার প্রভূত উন্নতি হচ্ছে।

উন্নয়নের গতির সাথে পরিবেশ তথা বায়ু দূষণ রোধ জরুরি উল্লেখ করে মন্ত্রী আরও বলেন, এজন্য নানা রকম আইন, বিধিমালা আছে। এসব আইনের যথাযথ ব্যবহার ও বাস্তবায়ন খুবই জরুরি। আমাদের মনে রাখতে হবে বায়ু দূষণ রোধ করতে না পারলে আমরা সবাই ভুক্তভোগী হবো। এজন্য সচেতনতা গড়ে তুলতে হবে। ঠিকমতো আইন মেনে চলে রাষ্ট্রের প্রতিটি স্তরে সবার মধ্যে জনসচেতনতা সৃষ্টি করে আইনের যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিত করা হলে বায়ু দূষণ রোধে আমরা অনেকটাই এগিয়ে যাবো।

পরিশেষে বায়ু দূষণ নিয়ন্ত্রণে তিনি মন্ত্রণালয়ের পাশাপাশি উপস্থিত সুধীদের প্রতি ব্যক্তিগত পর্যায়ের উদ্যোগ গ্রহণের উদাত্ত আহ্বান জানান এবং কর্মশালার আয়োজক স্থানীয় সরকার বিভাগ এবং বিশ্বব্যাংককে আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

স্থানীয় সরকার বিভাগের ইম্প্রুভমেন্ট অব আরবান পাবলিক হেলথ্ প্রিভেন্টিভ সার্ভিসেস্ (আইইউপিএইচপিএস) প্রজেক্টের আয়োজনে উক্ত কর্মশালায় সভাপতিত্বে করেন স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব মুহাম্মদ ইবরাহিম।

এতে আরও উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. রেজাউল করিম, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী, গাজীপুর সিটি করপোরেশন মেয়র জায়েদা খাতুন।


আরও খবর



ভোলায় ফের দেখা মিলল রাসেল ভাইপার, জনমনে আতঙ্ক

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | ৪৯জন দেখেছেন

Image

শরীফ হোসাইন, ভোলা বিশেষ প্রতিনিধি:ভোলায় ফের দেখা মিলল রাসেল ভাইপারের। বৃহস্পতিবার (২০ জুন) সকালে ভোলা সদর এবং তজুমদ্দিন উপজেলায় দেখা মেলে রাসেল ভাইপারের। পরবর্তীতে স্থানীয় লোকজন লাঠি দিয়ে পিটিয়ে মেরে ফেলে রাসেল ভাইপার গুলো। প্রতিনিয়ত ভোলার বিভিন্ন এলাকায় বিষধর রাসেল ভাইপার দেখা মেলায় স্থানীয় লোকজনের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

জানা গেছে, ভোলা সদর উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের শান্তির হা নামক এলাকার চায়না ইপিজেড সংলগ্ন এলাকায় দেখা মেলে একটি রাসেল ভাইপার। পরবর্তীতে স্থানীয় লোকজন ওই সাপটিকে পিটিয়ে মেরে মাটিতে পুতে ফেলে।

স্থানীয় বাসিন্দা আরিফুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার সকালের দিকে শান্তির হাট এলাকার চায়না ইপিজেড সংলগ্ন নদীর তীরবর্তী এলাকায় রাসেল ভাইপারটিকে স্থানীয় লোকজন দেখতে পায়। ওই সময় স্থানীয় লোকজন সাপটিকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে মেরে মাটিতে পুঁতে ফেলে।

অন্যদিকে তজুমদ্দিন উপজেলায় দেখা গেছে ভয়ঙ্কর বিষধর রাসেল ভাইপার। বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার সোনাপুর ইউনিয়নের কাচারী বাড়ির দরজায় এলাকাবাসী দেখতে পায় রাসেল ভাইপারটি। এ সময় সাপটিকে পিটিয়ে মেরে মাটিচাপা দেন স্থানীয়রা। এতে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন এলাকাবাসী।

এর আগে, বুধবার (১৯ জুন) বিকেলে চাঁদপুর ইউনিয়নের চৌমুহনী ঘাট সংলগ্ন একটি ফসলি জমির খেলার মাঠে বল খেলতে দেখা মেলে সাপটির। স্থানীয় খেলোয়াড়দের সাপটি আক্রমণ করতে আসলে নিজেদের রক্ষা করতে সাপটিকে মেরে ফেলেন। পরে পলিথিন পেঁচিয়ে সাপটিকে মাটির নিচে পুঁতে রাখেন।

রায়হান নামে এক খেলোয়াড় বলেন, বিভিন্ন সময় ফেসবুকে রাসেল ভাইপার সাপ দেখেছি। এবার বাস্তবে ফসলি জমিতে ফুটবল খেলতে গিয়ে সাপটিকে নিজ চোখে দেখলাম। পরে সাপটির ছবি তুলে ইন্টারনেটের মাধ্যমে শনাক্ত করি যে সাপটি বিষাক্ত রাসেল ভাইপার। সাপটি দেখে আমি আতঙ্কিত হয়ে পড়ি।আরো জানা গেছে, বাংলাদেশে বর্তমানে যেসব সাপ দেখা যায় সেগুলোর মধ্যে রাসেল ভাইপার সবচেয়ে বিষাক্ত। এই সাপের কামড়ে শরীরের দংশিত অংশে বিষ ছড়িয়ে অঙ্গহানি, ক্রমাগত রক্তপাত, রক্ত জমাট বাঁধা, স্নায়ু বৈকল্য, চোখ নষ্ট হয়ে যাওয়া, পক্ষাঘাত ও কিডনির ক্ষতিসহ বিভিন্ন ধরনের শারীরিক উপসর্গ দেখা দেয়।

তজুমদ্দিন উপজেলার শশীগঞ্জ বনবিভাগের বিট অফিসার গাজী মোহাম্মদ আবুল বাশার বলেন, রাসেল ভাইপার সাপ লোকালয়ে সাধারণত খুব কমই দেখা যায়। বাচ্চা দেওয়ার কারণে হয়তো ওই সাপটি লোকালয়ে চলে এসেছে। তবে সবাইকে এ বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।


আরও খবর