Logo
আজঃ মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪
শিরোনাম
নাসিরনগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান,ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা পদে ১৭ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল নাসিরনগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান,ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা পদে ১৭ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল ঈদ পর ফের বাড়লো হিলিতে আলু,পেঁয়াজ, রসুন ও আদার দাম পানি নিষ্কাশনের মুখে নন্দন পার্কের বাঁধ, উৎসবেও জলবদ্ধতায় দুর্ভোগ বাড়তি ফি টেস্ট পরীক্ষার নামে নেওয়া যাবে না: শিক্ষামন্ত্রী বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে কারিকুলাম যুগোপযোগী করার তাগিদ রাষ্ট্রপতির সয়াবিন তেলের দাম বাড়ল, আজ থেকেই কার্যকর ফরিদপুরে নিহতদের পরিবার পাচ্ছে ৫ লাখ টাকা, আহতরা ৩ জামিন পেলেন ড. ইউনূস ঢাকাসহ দেশের চার বিভাগে বজ্রবৃষ্টির আভাস

মাগুরার মহম্মদপুর সমবায় সমিতির নির্বাচন পরিদর্শন করলেন ড, তরুন কান্তি শিকদার

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৪ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪ | ২৪৬জন দেখেছেন

Image
স্টাফ রিপোর্টার মাগুরা থেকে: মাগুরার মহম্মদপুর ইউনিয়ন বহুমুখী সমবায় সমিতির লিমিটেড এর ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন  শুক্রবার দুপুরে পরিদর্শন করলেন সমবায় অধিদপ্তরের মহাপরিচালক  ড.তরুন কান্তি শিকদার।

মহম্মদপুর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এ নির্বাচন পরিদর্শন কালে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার  রামানন্দ পাল,সহকারি কমিশনার (ভূমি)  বাসুদেব কুমার মালো,অফিসার ইনচার্জ (ওসি)  অসিত কুমার রায়,কৃষি অফিসার কৃষিবিদ  আব্দুস সোবাহান,প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা  মোঃ মোমিনুল ইসলাম,মাগুরা জেলা সমবায় অফিসার  মৃনাল কান্তি

আরও খবর



নিম্ন মানের খেজুর ও চেরি ফলে ভরে গেছে সৈয়দপুর

প্রকাশিত:সোমবার ১৮ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪ | ৮৫জন দেখেছেন

Image

সৈয়দপুর( নীলফামারী) প্রতিনিধি:নীলফামারীর সৈয়দপুরে  রমজানকে  ঘিরে বরাবরের মতো এবারও নিম্ন মানের খেজুর ও দুর্গন্ধ যুক্ত চেরি ফল বিক্রি করছেন ক'জন ব্যবসায়ি। গত বছরের বিক্রি না হওয়া খেজুর বিক্রির জন্য গোডাউন থেকে বের করে বাজারজাত করা হচ্ছে। একই সাথে ভারতে ফেলে দেয়া দুর্গন্ধ যুক্ত চেরি ফল এনে ক'জন ব্যবসায়ি প্রায় প্রকাশ্যেই বিক্রি করছেন খুচরা পাইকারি ভাবে। এ নিয়ে কয়েক দপ্তরে অভিযোগ দেওয়ায় ১৬ মার্চ শহরের বিসমিল্লাহ ফল ভান্ডারে অভিযান চালিয়ে রংপুর বিভাগের ভোক্তা অধিদপ্তর ১ লাখ টাকা জরিমানা করলেও শহরে কমেনি নিম্ন মানের খেজুর বিক্রি। এছাড়া সরকার দামের ঘোষণা দেয়ার পরেও দ্বিগুণ দামে বিক্রি করা হচ্ছে খেজুর। আর ইফতারের জন্য সবচেয়ে  আকর্ষনীয় এ  খাদ্য উপকরনটি বাড়তি দামে কিনতে বাধ্য হচ্ছেন সকলেই।

সরবজমিনে গিয়ে দেখা যায়, প্রায় সব দোকানেই নিম্নমানের খেজুর  বস্তায় ভরে সাজিয়ে রাখা হয়েছে। বস্তায়  নেই কোনো মেয়াদোত্তীর্ণ তারিখ। অভিযান থেকে বাচতে ২/৩ জন ব্যবসায়ি বস্তায় মেয়াদের তারিখ লিখে দিচ্ছেন নিজ হাতে।আর খুচরা ব্যাবসায়ীরা নিম্নমানের খেজুরগুলোর স্বাদ ও চকচক করতে মিষ্টির সিরা ও সরিষার তেল মেশাচ্ছেন বলেও জানা যায় ।

খুচরা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সরকার যেসব খেজুরের দাম নির্ধারণ করে দিয়েছেন,সেসব খেজুর দ্বিগুণ দামে মহাজনের কাছে ক্রয় করতে হচ্ছে, মরিয়ম খেজুর  ৮৫০ টাকা,  আজুয়া ৭০০ টাকা,  সাফওয়ী ৪০০, মোবারম ৫০০, দাবাজ ২৪০ নাগাল ও বড়ই ২২০,ফরিদা ২৮০, বারাবি ও জাবিল ৪০০  টাকা কেজি দরে খেজুর কিনতে হচ্ছে। মহাজনের কাছে বেশি দামে কিনতে হচ্ছে বলেই খুচরা বাজারে দাম একটু বেশি। 

খেজুর ক্রয় করতে আসা আমিরুল ইসলাম আরমান বলেন, রমজান মাস চলছে, তাই খেজুর কিনতে এসেছি। আড়তে কিনতে গিয়েছিলাম। সেখানে দাম কম হলেও খুচরা বিক্রি করতে রাজি নন তারা। কিন্তু খুচরা বাজারে প্রায় দ্বিগুন দাম চাইছে। বাধ্য হয়ে তাই বেশি দামেই কিনে নিয়ে যাচ্ছি।

সৈয়দপুর বিসমিল্লাহ ফল ভান্ডারের স্বত্বাধিকারী মো: বদশা বলেন, তার আড়তে প্রচুর পরিমানে ভাল মানের খেজুর আমদানি করা হয়েছে।গত বছরের তুলনায় ভ্যাট,ট্যাক্স বেশি বলেই দাম বেশি। তিনি বলেন, অভিযানে জরিমানা করতে হয় বলেই জরিমানা করা হয়েছে। তার আড়তে কোন নিম্ন মানের খেজুর ছিল না বা নেই বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, চেরি ফল বিক্রি একেবারেই অবৈধ। কারন সেই ফলে মেডিসিন দিয়ে রাখা হয় বছরের পর বছর। এই ফল খেলে পেটের অসুখ হবেই হবে কিন্তু সেদিকে কোন খেয়াল নেই ভোক্তা অধিদপ্তর কর্মকর্তাদের।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর রংপুরের সহকারী পরিচালক আজহারুল ইসলাম  জানান, রমজান উপলক্ষে নিত্যপণ্যের বাজার থেকে শুরু করে ফলের আড়তে অভিযান পরিচালনা অব্যাহত থাকবে।


আরও খবর



ভূমিহীন হতদরিদ্র পরিবারের বাড়িঘর অধিগ্রহণ না করে পার্শ্ববর্তী নালজমি অধিগ্রহণ করার দাবিতে মানববন্ধন

প্রকাশিত:রবিবার ৩১ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪ | ৯৮জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ পিরোজপুর জেলার নাজিরপুর উপজেলায় ছোট বুইছাকাঠি মৌজায় সাড়ে ৪২ শতাংশ ভূমি নাজিরপুর টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইনস্টিটিউট স্থাপনের জন্য অধিক গ্রহণের আওতায় পড়ে। ওই জমিতে বসবাসকারী হতদরিদ্র পরিবারগুলো তাদের বাড়িঘর অধিগ্রহণ না করে পাশের নাল জমি অধিগ্রহণের দাবি জানিয়েছেন। এই দাবিতে বস্ত্র অধিদপ্তর বরাবর লিখিত আবেদনও করেছেন ভুক্তভোগী পরিবারগুলো। ভুক্তভোগী পরিবারগুলোর দাবি এসব জমি ছাড়া তাদের মাথা গোজার অন্য কোথাও কোন ঠাঁই নেই। এসব অসহায় খেটে খাওয়া মানুষগুলো দিশেহারা হয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, বস্ত্র অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, বাংলাদেশ সচিবালয়ে লিখিত আবেদনের পাশাপাশি হাইকোর্টেও আবেদন করেন। উচ্চ আদালত থেকে দুই মাসের মধ্যে এসব ভুক্তভোগীদের ঘরবাড়ি অধিগ্রহণ থেকে অব্যাহতি প্রদান করে পাশের নাল জমি অধিগ্রহণ করে আদালতকে অবহিত করার নির্দেশ প্রদান করে। কিন্তু স্থানীয় জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা আদালতের নির্দেশ আমলে না নিয়ে পূর্ব অবস্থা বজায় রেখেছেন। এই কারণে ভুক্তভোগী পরিবার গুলোর পক্ষে পরিচ্ছন্ন কর্মী মোসাম্মৎ বিউটি বেগম, একই এলাকার রফিক খান, আব্দুল জলিল, আলেয়া বেগম এই লিখিত আবেদন বস্ত্র অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবর দাখিল করেন। ভুক্তভোগী পরিবার গুলোর দাবি এই জমি থেকে তাদেরকে অধিগ্রহণের মাধ্যমে উচ্ছেদ করা হলে তাদের মাথা বোঝার কোন থাই থাকবে না। তাই বিষয়টি মানবিক বিবেচনার অনুরোধ জানান ভুক্তভোগী পরিবারগুলো। স্থানীয় জেলা প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে ঘুরে ঘুরে ও কুল কিনারা না হওয়ায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে এই বিষয়ে হস্তক্ষেপের আবেদন জানিয়েছেন ভুক্তভোগী পরিবারগুলো। জাতীয় প্রেসক্লাবে এই বিষয়ে একটি মানববন্ধনেরও আয়োজন করেন তারা।


আরও খবর



ইসরায়েলে অস্ত্র বিক্রি বন্ধের প্রস্তাব পাস, পক্ষে বাংলাদেশ

প্রকাশিত:শনিবার ০৬ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪ | ৯৪জন দেখেছেন

Image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদে একটি প্রস্তাব পাস হয়েছে ইসরায়েলের কাছে অস্ত্র বিক্রি বন্ধের আহ্বান জানিয়ে।

শুক্রবার (৫ এপ্রিল) পাস হওয়া এই প্রস্তাবে সম্ভাব্য যুদ্ধাপরাধ ও মানবতাবিরোধী অপরাধের জন্য ইসরায়েলকে বিচারের আওতায় নিয়ে আসার আহ্বান জানানো হয়েছে। খবর-এএফপির।

ইসলামি সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) পক্ষে জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদে প্রস্তাবটি উত্থাপন করে পাকিস্তান। পরিষদের ৪৭ সদস্যদেশের মধ্যে বাংলাদেশসহ ২৮টি দেশ প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেয়। যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানিসহ ৬টি দেশ বিপক্ষে ভোট দেয়। তবে ভোটদানে বিরত ছিল ভারত, ফ্রান্সসহ ১৩টি দেশ।

প্রস্তাবটির বিষয় ছিল ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় করা যুদ্ধাপরাধ ও মানবতা বিরোধী অপরাধে ইসরায়েলকে জবাবদিহিতার আওতায় আনা। এই প্রস্তাবে ইসরায়েলে সব ধরনের অস্ত্র সরবরাহ বন্ধের দাবি জানানো হয়েছে। কারণ গাজায় গণহত্যা চালাচ্ছে ইসরায়েলি সেনারা।

ইসরায়েলে বাহিনী প্রায় ছয় মাস ধরে ফিলিস্তিনের গাজায় নির্বিচারে হামলা চালাচ্ছে। এতে অবরুদ্ধ উপত্যকাটির ৩৩ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি নাগরিক নিহত হয়েছেন। প্রস্তাব পাসের মধ্য দিয়ে গাজায় ইসরায়েলি হামলা নিয়ে এবারই প্রথম কোনো আনুষ্ঠানিক অবস্থান নিল মানবাধিকারবিষয়ক জাতিসংঘের সর্বোচ্চ পর্ষদ।

যুদ্ধপরাধের দায়ে অভিযুক্ত ইসরাইলকে জবাবদিহিতার মধ্যে আনা এ প্রস্তাবটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ বলে জানিয়েছেন কাতারের হামাদ বিন খলিফা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক সহকারী অধ্রাপক মার্ক ওয়েন জোনস। তবে তিনি সঙ্গে এও জানিয়েছেন, বাস্তবে এটির খুব বেশি কার্যকারিতা নেই।

এই অধ্যাপক সংবাদমাধ্যম বলেছেন, প্রতীকি অর্থে প্রস্তাবটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এবারই প্রথমবার জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশন এই অবস্থান নিয়েছে।

এদিকে গাজায় ত্রাণকর্মী ও বেসামরিক নাগরিকদের সুরক্ষা নিয়ে সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ নিতে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুকে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। গাজায় ইসরায়েলের হামলায় ওয়ার্ল্ড সেন্ট্রাল কিচেনের সাত ত্রাণকর্মী নিহতের ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার (৪ এপ্রিল) নেতানিয়াহুর সঙ্গে টেলিফোনে আলাপকালে তিনি এই হুঁশিয়ারি দেন।

ইসরায়েলকে বরাবরই সমর্থন দিয়ে এসেছে বাইডেন প্রশাসন। তবে এই প্রথম সহায়তা ও অস্ত্র বন্ধের হুঁশিয়ারি দিলেন বাইডেন। এতে ছয় মাস ধরে চলা যুদ্ধে পরিবর্তন আসতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

ইসরায়েলের সবচেয়ে বড় অস্ত্র সরবরাহকারী দেশ হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। জাতিসংঘে বেশির ভাগ সময় ইসরায়েলের কূটনৈতিক ঢাল হিসেবে ভূমিকা রাখে ওয়াশিংটন।

তবে ইসরায়েল ও গাজায় যুক্তরাষ্ট্র বিশেষ নীতিগত কোনো পরিবর্তন আনবে কি না, সে ব্যাপারে বিস্তারিত কিছু জানাননি হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র জন কিরবি। তিনি বলেন, শিগগিরই ইসরায়েল তাদের গৃহীত পদক্ষেপের ঘোষণা দেবে বলে ওয়াশিংটন আশা করছে।


আরও খবর



থানার ভিতরেই নষ্ট হচ্ছে ৩ কোটি টাকা মুল্যের মোটরসাইকেল, কারও মাইক্রোবাস

প্রকাশিত:সোমবার ০১ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪ | ৬২জন দেখেছেন

Image

জহুরুল ইসলাম খোকন সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি:বিভিন্ন ব্র্যান্ডের প্রায় শতাধিক দামি মোটরসাইকেল পড়ে আছে সৈয়দপুর থানার খোলা আকাশের নিচে। শুধু মোটরসাইকেল নয়, পাশেই রয়েছে জরাজীর্ণ মাইক্রোবাস প্রাইভেট কার, সহ অন্যান্য যানবাহন। নিত্যদিনের রোদ, বৃষ্টি,আর ধুলায় এসব গাড়ির যন্ত্রাংশে মরিচা ধরে গেছে। একই স্থানে দীর্ঘদিন ধরে অযত্ন, অবহেলায় পড়ে থাকায় অধিকাংশ যানবাহন অকেজো হয়ে গেছে।এ যানবাহনগুলোর অধিকাংশই বিভিন্ন অপরাধে জব্দ করা মামলার আলামত। যথাযথ রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে নষ্ট হচ্ছে এগুলো। আইনি জটিলতার কারণে অনেক মালিকই ছাড়িয়ে নিতে পারেন না এসব।  অন্যদিকে আইনি জটিলতার কারণে নিলাম না হওয়ার কারনে রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার।

গতকাল ১ এপ্রিল সোমবার থানায় গিয়ে দেখা যায়, থানা প্রাঙ্গণে খোলা আকাশের নিচে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে জব্দ করা প্রায় শতাধিক যানবাহন। সংরক্ষণের কোনো ব্যবস্থা না থাকায় যানবাহন খোলা স্থানে পরিত্যক্ত অবস্থায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে রাখা হয়েছে। 

থানার কর্মকর্তাদের দাবি, জব্দ করা যানবাহন রাখার জন্য আলাদা  নির্দিষ্ট কোন গ্যারেজ নেই। গ্যারেজ থাকলে জব্দ করা যানবাহন গুলো নষ্ট হতো না। সরকারের কোষাগারে জমা হতো পর্যাপ্ত রাজস্ব।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সৈয়দপুর থানায় জব্দকরা যানবাহনগুলো একই স্থানে পড়ে আছে বছরের পর বছর। ১০/১২ বছর আগে আটক করা গাড়িও আছে সেখানে। যার অধিকাংশই ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। অনেক গাড়ি রয়েছে যেগুলোর ভেতরে, বাইরে ধুলা, ময়লা জমে যন্ত্রাংশ ক্ষয়ে খসে পড়ছে।

থানা সূত্রে জানা যায়, জব্দ করা মোটরসাইকেলের সংখ্যা  প্রায় শতাধিক। এ ছাড়া ৩ টি প্রাইভেটকার ১ টি মাক্রোবাস সহ অন্যান্য যানবাহন খোলা আকাশের নিচে পড়ে আছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহ আলম বলেন, বিভিন্ন অপরাধে এসব যানবাহন জব্দ করা হয়েছে। কাগজপত্র না থাকায় সঠিক মালিকের কাছেও হস্তান্তর করা যাচ্ছে না। সঠিক রক্ষণাবেক্ষণ প্রয়োজন বলে তিনিও মনে করেন। কিন্তু গ্যারেজের মত সেড না থাকায় সেগুলো রক্ষণাবেক্ষণ করা সম্ভব হচ্ছে না।

তিনি বলেন, ‘দৈনিক অথবা মাসে যে পরিমাণ গাড়ি আমাদের এখানে জমা হচ্ছে, সে অনুসারে মামলার নিষ্পত্তি হচ্ছে না। আইনি জটিলতার ফলে জব্দ হওয়া বাহনের সংখ্যা বাড়ছে। অল্প জায়গায় অধিক যানবাহন রাখার কারণে নষ্ট হচ্ছে যন্ত্রাংশ। জায়গা না থাকায় এগুলোকে খোলা আকাশের নিচে রাখতে হয়।

ট্রাফিক ইন্সপেক্টর জাকির হোসেন বলেন গাড়ি রাখার ভালো কোন জায়গা না থাকায় অনেক সময় অনলাইনের মাধ্যমে জরিমানা করে গাড়ি ছেড়ে দেয়া হয়। ভালো জায়গা থাকলে ও কাগজ পত্র বিহীন গাড়ির দ্রুত মামলা নিষ্পত্তি হলে, খোলা আকাশের নিচে যানবাহন নষ্ট হতো না এবং সরকারও পেতো রাজস্ব। 


আরও খবর



পাঁচপীর ডিগ্রি কলেজে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:বুধবার ২৭ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪ | ৮৪জন দেখেছেন

Image
বাবুল, কুড়িগ্রাম ব্যুরো চিফ:কুড়িগ্রামের উলিপুরে ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠান পাঁচপীর ডিগ্রি কলেজে ইফতার ও দো"আ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।আজ ২৬ শে মার্চ মঙ্গলবার ইফতার ও দো'আ  মাহফিলের পূর্বাহ্নে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসের গুরুত্ব নিয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি ডা মোঃ জাহেদুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অংশগ্রহণ করেন, উলিপুর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা, উলিপুর এমএস স্কুল এন্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জাহাঙ্গীর আলম সরদার, পাঁচপীর ডিগ্রী কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ অজয় কুমার সরকার সামু, উলিপুর বণিক সমিতির প্রতিনিধি নুরে আলম সিদ্দিকী, দুর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম সাঈদ। অনুষ্ঠানে প্রিয় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কুড়িগ্রাম-৩ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য সৌমেন্দ্র প্রসাদ পান্ডে গবা'র সহধর্মিনী কাবেরী পান্ডে । এর আগে প্রিয় অতিথি কলেজ চত্বরে একটি গাছের চারা রোপন করেন। 

অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথিদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানগণ, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, সাংবাদিক,  কলেজ এর গভর্নিং বডির সদস্যবৃন্দ ও শিক্ষক কর্মচারীবৃন্দ।

আরও খবর