Logo
আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

মাদক মামলায় জয়পুরহাটে নারীর যাবজ্জীবন

প্রকাশিত:বুধবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৩২২জন দেখেছেন

Image

এস এম শফিকুল ইসলাম ,জয়পুরহাট : জয়পুরহাটে মাদক মামলায় মঞ্জুয়ারা বেগম (৪৮) নামে এক নারীর  যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। বুধবার (১ ফেব্রুয়ারী) দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালত-২ বিচারক আব্বাছ উদ্দিন এই রায় ঘোষণা করেন। দন্ডপ্রাপ্ত মঞ্জুয়ারা বেগম দিনাজপুর জেলার বিরামপুর উপজেলার ডিওর  গ্রামের মজিবর রহমানের স্ত্রী। 

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ২০১৩ সালের ১০ অক্টোবর বিকাল সড়ে ৪টায় জয়পুরহাট  সদর উপজেলার বনখুর এলাকায় ইজি বাইকে তল্লাশী  চালায় জয়পুরহাট মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপ- পরিদর্শক  মুনছুর রহমান। এ সময় ওই ইজিবাইকে থাকা মুঞ্জুয়ারা নামক এক নারীর হাত ব্যাগের ভিতর  থেকে ৩৮ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়। এরপর তাকে গ্রেফতার করে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর । দীর্ঘ সাক্ষ্যপ্রমাণ শেষে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আব্বাছ উদ্দিন মঞ্জুয়ারা বেগমের যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন।

এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট নৃপেন্দ্রনাথ মন্ডল, অ্যাডভোকেট উদয় কুমার সিং। আসামিপক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট রায়হান নবী ।



আরও খবর



বিচারকদের প্রতি রাষ্ট্রপতি

"ক্ষমতা প্রয়োগে দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেওয়ার আহ্বান"

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৫১জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন বিচারকদের উদ্দেশে বলেছেন, ক্ষমতা প্রয়োগের ক্ষেত্রে দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে হবে।

শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীতে সুপ্রিম কোর্টের ইনার কোর্ট ইয়ার্ডে দুই দিনব্যাপী ‘একবিংশ শতাব্দীতে দক্ষিণ এশিয়ার সাংবিধানিক আদালত: বাংলাদেশ ও ভারত থেকে শিক্ষা’ শীর্ষক কনফারেন্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

রাষ্ট্রপতি বলেন, ক্ষমতার সঙ্গে দায়িত্ব ওতপ্রোতভাবে জড়িত। দায়িত্ব পালনের জন্য ক্ষমতা প্রয়োগ করতে হবে। আবার ক্ষমতা প্রয়োগের ক্ষেত্রে দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে হবে এবং ক্ষমতার যেন অপব্যবহার না হয় সেদিকে কঠোরভাবে খেয়াল রাখতে হবে।

বিচারকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, দেশ, জনগণ ও সংবিধানের প্রতি দায়বদ্ধ থেকে আইনের শাসন ও ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে হবে। বিচার প্রার্থীরা অত্যন্ত কম খরচে স্বল্পতম সময়ের মধ্যে ন্যায়বিচার পাবে ও বিচারকরা তাদের মেধা এবং মননশীলতার মাধ্যমে ন্যায়বিচার নিশ্চিত করবেন।

দেশের সামগ্রিক উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় বিচার বিভাগকে সামিল হতে হবে উল্লেখ করে রাষ্ট্রপ্রধান বলেন, সরকার বিচার বিভাগের স্বচ্ছতা, দক্ষতা এবং জবাবদিহি নিশ্চিতের জন্য দৃঢ় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

তিনি বলেন, ১৯৭২ সালের ১৮ ডিসেম্বর বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট তার যাত্রা শুরু করেছে এবং প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই এটা মানুষের মৌলিক মানবাধিকার রক্ষা, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা এবং স্বল্প সময়ে বিচার প্রার্থীদের ন্যায়বিচার দিতে কাজ করে যাচ্ছে।

মো. সাহাবুদ্দিন বলেন, জাতির ক্রান্তিকালে যখনই প্রয়োজন হয়েছে, সুপ্রিম কোর্ট তার ওপরে অর্পিত দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে মানুষের মৌলিক মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা এবং সংবিধানকে রক্ষা করেছে। শান্তি ও সংকটে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট সংবিধানের অভিভাবক ও রক্ষক হিসেবে মর্যাদাপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

রাষ্ট্রপতি আরও বলেন, ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্ট স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি সোনার বাংলার স্বপ্নদ্রষ্টা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করে রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করে। কিন্তু সুপ্রিম কোর্ট ষড়যন্ত্রকারীদের সেই নীল নকশা বাস্তবায়িত হতে দেয়নি। বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট সংবিধানের ৫ম ও ৭ম সংশোধনীকে অবৈধ ঘোষণা করে দেশের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকারকে প্রতিষ্ঠা করেছে।

রাষ্ট্রপ্রধান সুপ্রিম কোর্টের সে সময়ের অকুতোভয় বিচারপতি ও আইনজীবীদের যারা বন্দুকের নলের কাছে নতি স্বীকার করেননি ও বিবেককে কখনো বিকিয়ে দেননি, তাদের ভূমিকাকে গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ ও ভারত দক্ষিণ এশিয়ার দুটি বন্ধুপ্রতিম দেশ হিসেবে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা, গণতন্ত্রের উন্নয়ন ও সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা রক্ষায় তাদের নিজ নিজ যাত্রায় অনন্য পথ অতিক্রম করেছে। বাংলাদেশ ও ভারত উভয় দেশই এমন দৃষ্টান্ত প্রত্যক্ষ করেছে যেখানে বিচার বিভাগ প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর অধিকার রক্ষায়, পরিবেশগত টেকসই উন্নয়ন এবং সুশাসনের নীতিগুলোকে সমুন্নত রাখতে হস্তক্ষেপ করেছে।

ভারত আমাদের নিকটতম প্রতিবেশী ও বন্ধুপ্রতিম দেশ উল্লেখ করে সাহাবুদ্দিন ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে ভারতের সহযোগিতা ও সহমর্মিতার জন্য বাংলাদেশের জনগণের পক্ষ থেকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।

তিনি বলেন, স্বাধীনতার পর থেকেই বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক এবং কূটনৈতিক সম্পর্ক ক্রমান্বয়ে বাণিজ্য-বিনিয়োগসহ বিভিন্ন খাতে সম্প্রসারিত হচ্ছে। দু’দেশের বিচার বিভাগ, বিচারক ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের মধ্যে অভিজ্ঞতা ও প্রশিক্ষণ কার্যক্রম বিনিময়ের মাধ্যমে উভয় দেশের বিচার বিভাগ, বিচারক ও জনগণ উপকৃত হতে পারে বলে মনে করেন রাষ্ট্রপতি।

বাংলাদেশ ও ভারতের সাংবিধানিক আদালতগুলোকে মামলা জট নিরসন, ন্যায়বিচারে প্রবেশাধিকার এবং বিচারিক জবাবদিহিতার মতো বিষয়গুলোতে মনোযোগ দেওয়ার পাশাপাশি বিচার বিভাগের উন্নয়নে সমন্বিত পদক্ষেপ নেওয়ার কথাও বলেন রাষ্ট্রপ্রধান।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান, ভারতের প্রধান বিচারপতি ড. ধনঞ্জয় যশবন্ত চন্দ্রচূড়, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, বাংলাদেশের অ্যাটর্নি জেনারেল আবু মোহাম্মদ আমিন উদ্দিন, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি মো. মোমতাজ উদ্দিন ফকির এবং আপিল বিভাগের বিচারপতি বোরহান উদ্দিন।


আরও খবর



কুড়িগ্রামের রৌমারীর চালককে হত্যা করে অটোবাইক ছিতাই গ্রেফতারের দাবীতে মানববন্ধন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৫২জন দেখেছেন

Image

মাজহারুল ইসলাম,রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি:ইজিবাইক চালককে হত্যা ঘটনার অপরাধিদের গ্রেফতারের দাবীতে মানববন্ধন করেছেন ইজিবাইক সংগঠনের চালকরা। বাংলাদেশ অটোবাইক শ্রমিক কল্যান সোসাইটি রৌমারীর ডাকে বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে উপজেলা চত্তরে ঘন্টা ব্যাপী এই মানববন্ধন করেন শ্রমীকরা।

বানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, ইয়াকুব আলী সভাপতি দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়ন অটোবাইক শ্রমীক সংগঠন, জাহাঙ্গীর আলম সভাপতি যাদুরচর ইউনিয়ন অটোবাইক শ্রমীক সংগঠন, রুস্তম আলী সহ-সভাপতি রিক্সা-ভ্যান শ্রমীক ইউনিয়ন, নুরুজ্জামান সভাপতি উপজেলা রিক্সা-ভ্যান শ্রমীক ইউনিয়ন, নুরুল ইসলাম সাধারণ সম্পাদক ট্রাক লড়ি শ্রমীক সংগঠন, এনামুলের বন্ধু এসএমএ মোমেন, মহির উদ্দিন শ্রমীক নেতা ও প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি বাংলাদেশ অটোবাইক শ্রমিক কল্যান সোসাইটি রৌমারী, হারুন অর রশিদ উপদেষ্টা বাংলাদেশ অটোবাইক শ্রমিক কল্যান সোসাইটি রৌমারী, ওমর ফারুক ইছা কার্যকরি পরিচালনা কমিটি সভাপতি বাংলাদেশ অটোবাইক শ্রমিক কল্যান সোসাইটি রৌমারী ও নুরুল আজম বাবু সভাপতি বাংলাদেশ অটোবাইক শ্রমিক কল্যান সোসাইটি রৌমারী, স্ত্রী আয়শা খাতুনসহ অন্যান শ্রমীকবৃন্দ।

বক্তাগণ বলেন, ইজিবাইক চালকের হত্যার এবং থানায় মামলার ১১ দিন পার হলেও আজ পর্যন্ত একটি আসামীকে সনাক্তসহ গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। বক্তাগন আরো বলেন, পুলিশ পারে না, এমন কিছু কাজ নাই পারে না। পানির নিচে থেকে হলেও আসামী গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। তবে একজন গরীব সাধারণ মানুষ হেতু তার কোন গুরুত্ব নাই। একজন ধনী ব্যাক্তি হলে দ্রুত আসামীকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হতো। তবে আমরা আসা করি দ্রুত আসামীকে সনাক্ত ও গ্রেফতার করে আইনের আওতায় দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির ব্যবস্থা করা হউক। ৭ দিনের আল্টিম্যাটাম দিয়ে তারা আরো বলেন, ৭ দিনের মধ্যে আসামীদেরকে গ্রেফতারের আওতায় আনতে না পারলে শ্রমীক সংগঠন বাধ্য হবে দুর্বার আন্দোলন ও পরিবহন বন্ধ রাখা।

উল্লেখ্য যে, কুড়িগ্রামের রাজিবপুরে ছিনতাইকারিরা চালককে হত্যা করে ব্যাটারি চালিত অটো রিকশা ছিনতাই করেছে। হত্যার শিকার এনামুল হক (৫০) রৌমারী সদরের মধ্য ইছাকুড়ি গ্রামের মিছির আলীর ছেলে। ২৯ জানুয়ারী মঙ্গলবার রাজিবপুর সদর ইউনিয়নের স্লুইজগেট এলাকার ধানক্ষেত থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলবার সকালে সাড়ে ৭টার দিকে কয়েকজন কৃষক ধান রোপন করতে এসে ক্ষেতে এনামুলকে পড়ে থাকতে দেখে। পরে অজ্ঞান অবস্থায় তাকে তুলে আগুন জালিয়ে শরীর গরম করার চেষ্টা করতে থাকে। এমন অবস্থায় সাথে সাথে রাজিবপুর ফায়ার সার্ভিসে খবর দেয়। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এসে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন। মৃত এনামূলের কাছে থাকা ইজিবাইকটিও হত্যাকারীরা ছিনতাই করে নিয়ে যায়। এ হত্যাকান্ডে রাজিবপুর থানায় একটি হত্যা মামলা হয়েছে। 


আরও খবর



মাগুরা জেলা বর্তমানে ঝরেপড়া শিশু শুন্য

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৮৮জন দেখেছেন

Image
স্টাফ রিপোর্টার মাগুরা থেকে:মাগুরা জেলায় শিক্ষার্থীদের ঝরেপড়ার হার শূন্যের কোটায় নিয়ে আসতে ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ঝরেপড়া শিক্ষার্থীদেরকে পুনরায় বিদ্যালয়ে ফিরিয়ে আনতে মাগুরার জেলা প্রশাসক এর প্রচেষ্টায় জেলার সকল উপজেলায় বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। 

এ উদ্যোগের আওতায় মাগুরার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবু নাসের বেগ এর উপস্থিতিতে ও প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে এবং প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগের সহায়তায় গত ৯ নভেম্বর ২০২৩ তারিখে মাগুরা সদর উপজেলার ৭টি বিদ্যলয়ের মোট ১১  জন ঝরেপড়া শিক্ষার্থীকে; ১৩ নভেম্বর ২০২৩ তারিখে মহম্মদপুর উপজেলার ২১ টি বিদ্যালয়ের ৩০  জন শিক্ষার্থীকে এবং ১৫ নভেম্বর ২০২৩ তারিখে শালিখা ও শ্রীপুর উপজেলার ১৯ টি বিদ্যালয়ের ২৩  জন অর্থ্যাৎ, সর্বমোট ৬৪ জন ঝরেপড়া শিক্ষার্থীকে পুনরায় বিদ্যালয়ে ভর্তি করানোর মাধ্যমে তাদেরকে শিক্ষা জীবনে ফিরিয়ে আনা হয়েছে।  বর্তমানে এসব শিক্ষার্থীদেরকে নিবিড়ভাবে মনিটরিং করা হচ্ছে। উল্লেখ্য যে, ২০২৩ শিক্ষাবর্ষের  সমাপনী পরীক্ষায় এসব শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করেছে এবং প্রত্যেকেই সফলতার সাথে পরবর্তী শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হয়েছে।

ঝরেপড়া শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে প্রত্যাবর্তন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও অভিভাবকগণের উপস্থিতিতে শিক্ষার্থীদেরকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান মাগুরার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবু নাসের বেগ। তিনি বিদ্যালয়ে প্রত্যাবর্তনকারী এসব শিক্ষার্থীদের হাতে স্কুল ব্যাগ, খাতা, কলম, টিফিন বক্সসহ অন্যান্য শিক্ষা উপকরণ তুলে দেন। এছাড়া, শিক্ষার্থীদেরকে উৎসাহিত করতে তিনি আর্থিক প্রণোদনাও প্রদান করেন।  অধিকন্তু, শিক্ষার্থীদের  অভিভাবকগণকে বিভিন্ন সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে। বিদ্যালয়ে প্রত্যাবর্তনকারী এসব শিক্ষার্থীরা যেন পুনরায় ঝরে না পড়ে এবং ভবিষ্যতে অন্য কোন শিক্ষার্থীও যেন বিদ্যালয় থেকে ঝরে না পড়ে সে বিষয়টি জেলা প্রশাসন নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে এবং এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক সবার সহযোগিতা কামনা করেছেন।

জেলা প্রশাসন, মাগুরা ও প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগ, মাগুরা বিশ্বাস করে যে, মাগুরা জেলায় এই মুহূর্তে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কোন ঝরেপড়া শিক্ষার্থী নেই।

আরও খবর



মাটিরাঙ্গায় কমিউনিটি ক্লিনিকে গর্ভবতী মায়েদের জন্য স্বাস্থ্য সামগ্রী বিতরন

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৭০জন দেখেছেন

Image
জসীম উদ্দিন জয়নাল,পার্বত্যাঞ্চল প্রতিনিধি:সুস্থ মাতৃত্ব গঠনে স্থানীয় সরকার ও জাইকার অর্থায়নে খাগড়াছড়ি জেলার মাটিরাঙ্গায় ৪টি কমিউনিটি ক্লিনিকে  গর্ভবতী মায়েদের স্বাস্থ্য সেবায় সহায়ক চিকিৎসা সামগ্রী  বিতরন করা হয়েছে। 

বৃহস্পতিবার (৮ফেব্রুয়ারি)দুপুরের দিকে মাটিরাঙ্গা উপজেলা সেমিনার কক্ষে উপজেলা পরিচালন ও উন্নয়ন প্রকল্প (ইউজিডিপি) স্থানীয় সরকার বিভাগ ও জাইকার অর্থায়নে  মাটিরাঙ্গা উপজেলা পরিষদের বাস্তবায়নে গর্ভবতী মায়েদের  স্বাস্থ্য সেবার জন্য চিকিৎসা সামগ্রী বিতরণ কার্যত্রুম উদ্বোধন করেন মাটিরাঙ্গা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো.রফিকুল ইসলাম ও মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ডেজী চত্রুবর্তী।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন,মাটিরাঙ্গা উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের মা ও শিশু স্বাস্থ্য বিষয়ক ডা:কে এম আমজাদ হোসেন, 

মাটিরাঙ্গা উপজেলা  মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মো.ওবায়দুল হক এর সঞ্চালনায় এসময় বক্তব্য রাখেন, মাটিরাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা.মো.আবুল হাসনাত   মাটিরাঙ্গা উপজেলা প্রকৌশলী মো.শাহ জাহান, মাটিরাঙ্গা উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান মো.আনিছুজ্জামান ডালিম, মাটিরাঙ্গা উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা লাভনী চাকমা, মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক সুবাস চাকমা,গোমতি ইউপি চেয়ারম্যান মো.তোফাজ্জল হোসেন,বড়নাল ইউপি চেয়ারম্যান মো.ইলিয়াছ,উপজেলা পরিচালন ও উন্নয়ন প্রকল্প (ইউজিডিপি)  জাইকার উপজেলা সন্বময়কারী রুনি চাকমা। 

মাটিরাঙ্গা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো.রফিকুল ইসলাম জানান, পাহাড়ে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্টিদের চিকিৎসা সেবার কথা চিন্তা করে বর্তমান সরকার প্রধান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তরিকতায় দূর্গম এলাকার মানুষের চিকিৎসা সেবার জন্য কমিউনিটি ক্লিনিক স্থাপন করেছে মাকে সুস্থ রাখতে নিরাপদ মাতৃত্ব তৈরি করতে হবে। মা সুস্থ হলেই শিশু সুস্থ হবে আর তখনই আমরা সুষ্ঠু জাতি তৈরি করতে পারবো। সুষ্ঠু জাতি গঠনে আমাদের সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।

ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে নরমাল ডেলিভারী সামগ্রী বিতরণ কালে 
মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ডেজী চত্রুবর্তী বলেন উপজেলার প্রত্যান্ত অঞ্চলের পিছিয়ে মানুষের চিকিৎসা সেবা পৌঁছে দিতে সরকার প্রতিটি ইউনিয়নে কমিউনিটি ক্লিনিক স্থাপন করেছেন সুস্থ মাতৃত্ব গঠনে স্থানীয় সরকার ও জাইকার অর্থায়নে যেসব সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে তা ভালো উদ্যোগ।গর্ভবতী মায়েদেরকে নরমাল ডেলিভারী করার জন্য এসব সামগ্রী কমিউনিটি ক্লিনিকে প্রদান করা হয়েছে।

অনুষ্টানে জনপ্রতিনিধি, মেডিকেল অফিসার পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকাগণ, পরিকল্পনা কল্যাণ সহকারীগণসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরের অন্য সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী উপস্থিত ছিলেন।

আরও খবর



ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে এমপি মঈনউদ্দিন মঈন কে গণ সংবর্ধনা প্রদান

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৩৩১জন দেখেছেন

Image

মো. রুবেল মিয়া:- দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গণ মানুষের নেতা আলহাজ্ব  মঈন উদ্দিন মঈন ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ায় সরাইল উপজেলার পাকশিমুল ইউনিয়ন আ'লীগের পক্ষ থেকে গণ সংবর্ধান প্রদান করা হয়েছে।অনুষ্ঠানের শুরুতে  কোরআন থেকে তেলওয়াত করেন মাওঃ আবুল কাশেম। 

 

এ উপলক্ষ্যে শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) বিকালে পাকশিমুল ইউনিয়ন আ'লীগ উদ্যোগে পাকশিমুল হাজী শিশু মিয়া উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে এক  আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

এ সময় পাকশিমুল ইউনিয়ন আ'লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও বিভিন্ন সামাজিক সাংগঠনের পক্ষ  থেকে নবনির্বাচিত এমপি আলহাজ্ব মঈনউদ্দীন মঈন ফুলেল শুভেচ্ছা দেওয়া হয়। 

পাকশিমুল ইউনিয়ন আ'লীগের সভাপতি ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান  মো. সাইফুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২ আসনের নবনির্বাচিত এমপি আলহাজ্ব মঈনউদ্দীন মঈন।  


উক্ত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সদস্য মো. নাজিম উদ্দিন ভাষানী, জেলা পরিষদের সদস্য ও যুবলীগ নেতা পায়েল হোসেন মৃধা, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আবু হানিফ, অরুয়াইল ইউনিয়ন আ'লীগের সভাপতি হাজি আবু তালেব ও সাধারন সম্পাদক এড. গাজী শফিকুল ইসলাম, চুন্টা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হবিবুর রহমান, শাহবাজপুর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান রাজিব আহমেদ (রাজ্জি), উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক মো. আমিন খান, যুগ্ম-আহ্বায়ক মো. হোসেন মিয়া, সাদ্দাম হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা গাজী কাপ্তান, যুবলীগ নেতা গাজী বোরহান উদ্দিন প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন পাকশিমুল ইউনিয়ন আ'লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি সভাপতি আতাউর রহমান পাঠান।  

এছাড়াও সভায়  স্থানীয় এলাকার পাকশিমুল ইউনিয়ন আ'লীগ ও সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব 


আরও খবর