Logo
আজঃ বুধবার ১৯ জুন ২০২৪
শিরোনাম

কৃষিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছি বাজেটে: কৃষিমন্ত্রী

প্রকাশিত:শুক্রবার ০২ জুন 2০২3 | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ৪৪৫জন দেখেছেন

Image

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি:কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, এ বছরের বাজেটে কৃষিকে আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছি। বিনামূল্যে না হলেও কৃষি যন্ত্রপাতি দিচ্ছি। মানুষের জীবন যাত্রার মান উন্নয়ন করার জন্য এই বাজেটকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

আজ শুক্রবার দুপুরে টাঙ্গাইলের মধুপুর রাণী ভবানী মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, ‘বাজেট নিয়ে বিএনপি নেতারা গত ১৪ বছর ধরে বলে আসছেন- এটা উচ্চ বিলাসী বাজেট, অবাস্তব বাজেট, কল্পনাভিত্তিক বাজেট। কল্পনাভিত্তিক বাজেট হলে প্রতি বছর বিপুল পরিমাণ জাতীয় আয় হতো না। প্রতি বছর আমরা স্মার্ট ও আধুনিক বাংলাদেশ করার লক্ষ্য নিয়ে বাজেট দিচ্ছি। সেই লক্ষ্যে অদম্য গতিতে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। বিদেশি বিভিন্ন পত্রিকা বলে অদম্য বাংলাদেশ। আমরা এখন উন্নয়নের মহাসড়কে। এই গতিকে আমরা আরও বেগবান করব। এই বাজেটের মাধ্যমে উন্নয়নকে আর গতিময় করব।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, কেউ স্যাংশন দিয়ে এ উন্নয়ন ব্যাহত করতে পারবে না। বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে ব্যাহত করতে পারবে না। আপনারা যত ধরনের স্যাংশনই দেন, তা মোকাবিলা করার যোগ্যতা বাংলাদেশের আছে।

মধুপুর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা শামীমা ইয়াসমিনের সভাপতিত্বে এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন পৌর মেয়র সিদ্দিক হোসেন খান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি খন্দকার শফি উদ্দিন মনি, সাবেক পৌর মেয়র মাসুদ পারভেজ প্রমুখ।


আরও খবর



ঐতিহাসিক মুজিবনগর আম্রকানন রক্ষায় মেহেরপুরে আঞ্চলিক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ৮৮জন দেখেছেন

Image

মজনুর রহমান আকাশ,মেহেরপুর প্রতিনিধিঃরপ্তানিযোগ্য ফলের চাষ ছড়িয়ে দেওয়া ও ঐতিহাসিক মুজিবনগর আম্রকাননের আম গাছের পরিচর্যার বিষয়ে মেহেরপুরের মুজিবনগর অডিটরিয়ামে আঞ্চলিক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।  আজ সকাল সাড়ে দশটার সময় অনুষ্ঠিত এই কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন ঢাকার খামারবাড়ি হর্টিকালচার উইংয়ের পরিচালক কে.জে. এম. আব্দুল আউয়াল।। 

মুজিবনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খাইরুল ইসলামের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন, ঢাকা খামারবাড়ির বছর ব্যাপী ফল উৎপাদনের মাধ্যমে পুষ্টি উন্নয়ন প্রকল্পের পরিচালক ডঃ মোঃ মেহেদী মাসুদ, যশোর অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক দীপক কুমার রায়। কর্মশালায় প্রকল্পের লক্ষ্য উদ্দেশ্য নিয়ে স্বাগত বক্তব্য রাখেন মেহেরপুর বারাদি হর্টিকালচার উপপরিচালক কৃষিবিদ হাবিবুল ইসলাম খান।

কর্মশালায় বক্তারা বলেন, মুজিবনগর আম্রকাননে ১১৭০ টি আমগাছ রয়েছে। শতবর্ষে এই গাছগুলো তিনটি পরগাছা দ্বারা আক্রান্ত। যে পরগাছাগুলো আম গাছগুলোকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় গাছগুলোকে কিভাবে পুনঃ যৌবন দান করা যায় সে প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। আগামী এক বছরের মধ্যে গাছগুলো আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনা হবে। বক্তারা আরো বলেন, বিদেশি ও দেশি যে ফলগুলো রয়েছে সেগুলো কিভাবে রপ্তানি যোগ্য করা যায় সেই চেষ্টায় করছেন বিজ্ঞানীরা।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বছরব্যাপী ফল উৎপাদনের মাধ্যমে পুষ্টি উন্নয়ন প্রকল্পের পরামর্শক (অব: অতিরিক্ত সচিব) রেজাউল করীম, পরামশর্ক হিল হর্টিকালচার্স ও সাবেক প্রকল্প পরিচালক কৃষিবিদ এসএম কামরুজ্জামান। এছাড়াও বিভিন্ন জেলার কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর ও হর্টিকালচারের উপপরিচালক, কৃষি কর্মকর্তা, ইলেকট্রনিক এবং প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর

ভোলায় "রাসেল ভাইপার" আতঙ্ক

বুধবার ১৯ জুন ২০২৪




কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়ায় মুসল্লিদের নামে মসজিদ কমিটির সভাপতির অপপ্রচার

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ২০৭জন দেখেছেন

Image

কুমিল্লা প্রতিনিধি :

কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়ার চান্দলা হুড়ারপার পশ্চিম জামে মসজিদের মুসল্লিদের নামে অপপ্রচার চালানোর অভিযোগ উঠেছে মসজিদ কমিটির সভাপতির বিরোেদ্ধে । ঐ মসজিদের মুসল্লিরা জানায় মসজিদ কমিটির সভাপতি মো. হারুনর রশীদ ও তার চাচাতো ভাইরা মিলে মসজিদকে ব্যাক্তিগত‘করণের পায়তারা চালাচ্ছে । 

এ বিষয়ে স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে  জানাযায় , ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার চান্দলা ইউনিয়নের  হুড়ারপাড় এলাকার ‘হুড়ারপাড় পশ্চিম জামে মসজিদ । এটি হাজীবাড়ি সংলগ্নে হওয়ায় অনেকে হাজী বাড়ি মসজিদ নামে চিনতো , তবে মসজিদটির কাগজপত্রে হুড়ারপার পশ্চিম জামে মসজিদ নামে উল্লেখ করা রয়েছে । মসজিদটি প্রতিষ্ঠার পর থেকেই হুড়ারপার এলাকাবাসীর অর্থায়ন ও  সহযোগীতায় পরিচালনা হয়ে আসলেও মসজিদ কমিটির সভাপতি মো. হারুনর রশীদ ও তার চাচাতো ভাইরা তাদের পারবিারিক মসজিদ হিসেবে এটির প্রচারনা চালায় ।  এ নিয়ে বরাবরই মুসল্লি ও এলাবাসিরা অভিযোগ করে আসছিলো । 

 ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার চান্দলা ইউনিয়নের হুড়ারপাড় এলাকার ‘হুড়ারপাড় পশ্চিম জামে মসজিদ’ পুরনো একটি মসজিদ। তবে মসজিদে পর্যাপ্ত লোক জায়গা হয় না বলে মসজিদটি প্রশস্ত করার লক্ষ্যে মসজিদ কমিটির সভাপতি মো. হারুনর রশীদ ও তার চাচাতো ভাই মিলে ‘হুড়ারপাড় পশ্চিম জামে মসজিদের নামে ৯ শতক জায়গা দান করেন। এর পর এলাকাবাসী মিলে মসজিদটির পূনরনির্মান করেন । এরপরই ফুটে উঠে আসল চিত্র, এলাকাবসীর অর্থায়নে মসজিদ নির্মান হলেও মসজিদ কমিটির সভাপতি মো. হারুনর রশীদ ও তার চাচাতো ভাইরা এটিকে পারিবারকি মসজিদ দাবীকরে এরই অংশ হিসেবে মসজিদে  ‘ হাজী বাড়ি জামে মসজিদ’ নামে  একটি নেমপ্লেট বসায় এবং মসজিদে তাদের আধিপত্য দেখাতে থাকে । 

এ নিয়ে  মুসল্লি ও  এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভের স্মৃষ্টির হলে বিষয়টি মিমাংসার জন্য এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিরা দায়িত্ব নিয়ে মিমাংসা করতে না পারায়, কয়েকজন মুসল্লি নেমপ্লেট মুছে দিতে গেলে মসজিদ কমিটির সঙ্গে বাক বিতন্ডতা হয় স্মষ্টি হয় এর পর  মসজিদ কমিটির সভাপতি কয়েকজন মুসল্লির নামে মসজিদের নেমপ্লেট ভাঙ্গার অভিযোগ এনে ব্রাহ্মণপাড়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন ।



আরও খবর



দুমকিতে দু'চেয়ারম্যান প্রার্থীর ৮ কর্মীর কারাদণ্ড

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | ৯৮জন দেখেছেন

Image

(পটুয়াখালী) প্রতিনিধিঃ রাসেল হোসেন "নিরব"

 পটুয়াখালীর দুমকিতে নির্বাচনী প্রচারণায় বাঁধা দেয়া, উত্তেজনা ও গোলযোগ সৃষ্টির দায়ে  চেয়ারম্যান প্রার্থী  হারুন রশিদ হাওলাদার ও কাওসার আমিন হাওলাদারের ৮ কর্মী-সমর্থকের প্রত্যেককে ৭দিনের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। 

নির্বাচনী দায়িত্বরত নির্বাহি ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ জিয়াউল হাসান গত রবিবার রাত সাড়ে ১১টায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচার বসিয়ে আটককৃত ৮ কর্মী-সমর্থকের প্রত্যেককে ৭দিনের কারাদন্ডাদেশ প্রদান করেন।

দন্ডপ্রাপ্তরা হলেন, সাতানী গ্রামের মৃত- আনোয়ার হোসেনের ছেলে মোঃ শহীদুল ইসলাম (২০), বাহেরচর গ্রামের বজলুর রহমান মাঝির ছেলে সোহাগ (২৪), একই গ্রামের ইউসুব সিকদারের ছেলে রাকিব শিকদার (২২), আইয়ুব আলী মোল্লার ছেলে রিয়াজ মোল্লা (২২), দুমকি গ্রামের আবুল কালামের ছেলে সাইদুল হক (২৫), সাতানী গ্রামের হাবিব হাং এর ছেলে ইমরান হাওলাদার (২৫), দুমকি গ্রামের আঃ লতিফ মৃধার ছেলে হাবিবুর রহমান (খোকন) (৪৩), ঝাটরা গ্রামের মান্নান খানের (কন্ট্রাক্টর) ছেলে সায়েম খান (৩৪)। দন্ডিতদেরকে দুমকি থানা হাজত থেকে আজ সোমবার সকালে জেলা কারাগারে প্রেরণ করা হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত রবিবার (২ জুন) রাত সাড়ে ন'টার দিকে আঙ্গারিয়া ইউনিয়নের রূপাশিয়া গ্রামের তালুকদার পাড়ায় জনৈক এসএম ফজলুল হকের অসুস্থ শশুরকে দেখতে যান কাপ পিরিচ মার্কার চেয়াম্যান প্রার্থী কাওসার আমীন হাওলাদার।

খবরপেয়ে মোটর সাইকেল মার্কার শতাধিক কর্মী-সমর্থক ওই বাড়ির সামনে অবস্থান নিয়ে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে নানা উস্কানী মূলক শ্লোগান দেয়। এতে দু'প্রার্থীর কর্মী সমর্থকের মধ্যে তীব্র উত্তেজনা দেখা দেয়। অবস্থা বেগতিক দেখে চেয়ারম্যান প্রার্থী কাওসার আমীন হাওলাদার ওই বাড়ি থেকে বেড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে দু'পক্ষের উত্তেজিত কর্মী সমর্থকদের সাথে হাতাহাতি, ধাক্কাধাক্কি হয়। 

এসময় নির্বাচনী দায়িত্বরত নির্বাহী মেজিষ্ট্রেট জিয়াউল হাসান ঘটনাস্থলে পৌছে দু'পক্ষের অন্ততঃ ১১জনকে আটক করেন। পরে রাত সাড়ে ১১টায় ইউএনও কার্যালয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচার বসিয়ে নির্বাচনী প্রচারণায় বাঁধা প্রদান, গোলযোগ ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির দায়ে ৮জনের প্রত্যেককে ৭দিনের কারাদন্ডাদেশ দেন।

অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ায় ৩ কিশোর নয়ন গাজী (১৪), শাহাদত মৃধা (১৫) ও জায়েদ মৃধা (১৪)কে মুচলেকায় ছেড়ে দেয়া হয়েছে। দন্ডপ্রাপ্তদের ৩জন কাপ পিরিচ ও ৫জন মোটর সাইকেল প্রতীকের কর্মী সমর্থক বলে জানা গেছে।

দুমকি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) মোঃ সফিউর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিৎ করে দন্ডপ্রাপ্ত আসামীদের জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে বলে জানান।


আরও খবর



দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | ৮০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নয়াদিল্লীতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির তৃতীয় মেয়াদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানসহ ও বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যোগদান শেষে ঢাকায় ফিরেছেন।সোমবার (১০ জুন) সোয়া ৭টার দিকে প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী বিমান শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

এসময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিমানবন্দরে স্বাগত জানান সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী ফারুক খানসহ সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা।এর আগে স্থানীয় সময় বিকেল ৪টা ৪৫ মিনিটে নয়াদিল্লির ভিভিআইপি বিমানবন্দর পালাম এয়ার ফোর্স স্টেশন থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হয় ফ্লাইটটি।

ভারতের টানা তৃতীয়বারের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন নরেন্দ্র মোদি। রোববার তার এই শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে বিভিন্ন দেশের অতিথিদের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও যোগ দেন।

শপথ অনুষ্ঠান ছাড়াও রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদি একান্তে বৈঠক করেন। বৈঠকে দুই নেতা বিদ্যমান দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে আগামী দিনগুলোতে আরও দৃঢ় করার ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। সংক্ষিপ্ত বৈঠকে দুই নেতা একে অপরের খোঁজখবর নেন। এরপর মোদি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সঙ্গে নিয়ে রাষ্ট্রপতি ভবনের ব্যাঙ্কোয়েট হলে যান এবং রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মুর নৈশভোজে যোগ দেন।

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার মেয়ে সায়মা ওয়াজেদকে নিয়ে রাষ্ট্রপতি ভবনে শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে যোগ দেন। শ্রীলঙ্কা, মালদ্বীপ, ভুটান, নেপাল, মরিশাস ও সিসিলির শীর্ষ নেতারাও মোদির শপথ-গ্রহণ অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন।


আরও খবর



শীঘ্রই সুফল পেতে যাচ্ছে তিতাস গ্যাসের গ্রাহকরা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ২৪০জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হাসানঃসরকারের সদিচ্ছা এবং তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হারুনুর রশিদ মোল্লাহ নানামুখী সংস্কার মূলক কাজ হাতে নেওয়ায় তিতাস গ্যাসের গ্রাহকদের সুদিন ফিরছে শীঘ্রই। গ্রাহকদের জন্য নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস সরবরাহ নিশ্চিত করতে ইতোমধ্যেই বেশ কিছু ছোট বড় মাঝারি প্রকল্প হাতে নিয়েছে তিতাস গ্যাস। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিকনির্দেশনায় এবং জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু, পেট্রো বাংলার চেয়ারম্যান জনেন্দ্র নাথ সরকারসহ তিতাস গ্যাসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জ্বালানি খাতকে আরো জনবান্ধব হিসেবে গড়ে তুলতে নানামুখী পদক্ষেপ নিয়েছেন। যার মধ্যে রয়েছে পুরাতন বিতরণ লাইন গুলো অপসারণ করে আধুনিক বিতরণ লাইন স্থাপন, আবাসিক বাড়িতে এবং শিল্প বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে সম্পূর্ণ ডিজিটাল পদ্ধতিতে গ্যাস বিতরণ ব্যবস্থা এবং সেবা নিশ্চিত করে তিতাসকে একটি স্মার্ট কোম্পানিতে রূপান্তর করা। তিতাস গ্যাসের উৎসে মিটার বসিয়ে গ্যাসের খরচ নিরূপণ করা, এবং বাসা বাড়ি কলকারখানায় মিটার বসিয়ে গ্যাসে প্রকৃত রাজস্ব আদায় করে লোকসান কমিয়ে আনা, অনিয়ম দুর্নীতি রোধকল্পে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শাস্তি মূলক ব্যবস্থা গ্রহণ, কোম্পানির বাইরে প্রভাবশালী ব্যক্তিদের গ্যাস লাইনে অবৈধ হস্তক্ষেপ বন্ধ করা সব মিলিয়ে আগামী কয়েক বছরের মধ্যে তিতাস গ্যাসকে একটি উন্নয়ন বান্ধব প্রতিষ্ঠান হিসেবে দাঁড় করানোই এখন প্রধান চ্যালেঞ্জ। এই চ্যালেঞ্জ বাস্তবায়নে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছেন তিতাস গ্যাসের এমডি হারুনুর রশিদ মোল্লাহ। গত তিন মেয়াদে ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে ধারাবাহিক সাফল্যের পরিচয় দিয়ে তিতাসকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের রোড ম্যাপ তৈরি করেছেন তিতাস গ্যাসের এমডি হারুনুর রশিদ মোল্লা । তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের বর্তমান ব্যাবস্থাপনা পরিচালক হারুনুর রশিদ মোল্লাহ 

জানান,ঢাকা সহ নারায়ণগঞ্জে ১২ হাজার কোটি টাকার একটি প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে যে প্রকল্পে আমরা সহযোগিতা পাচ্ছি এনডিবি ব্যাংক থেকে তারা ৫০০ মিলিয়ন ডলার সহযোগিতা করতে রাজি হয়েছে বাকি টাকা আমরা নিজেরা ইনভেস্ট করব, এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে ঢাকা সহ আশেপাশের এলাকায় নিরবিচ্ছিন্ন গ্যাস সরবরাহ নিশ্চিত হবে, ইন্ডাস্ট্রি যাতে নিরবিচ্ছিন্ন করা যায় সেখানে কিভাবে দ্রুত অটোমোশন আনতে পারি মিটারের আওতায় আনতে পারি সেজন্য তিতাস ইতিমধ্যে ৩০ লক্ষ প্রিপেইড মিটার ইনস্টলেশন করার জন্য এডিবি ওয়ার্ল্ড ব্যাংক এবং জাপান ব্যাংকের সাথে যোগাযোগ করেছে, তারা আমাদের আর্থিকভাবে সহযোগিতা করার জন্য রাজি হয়েছে, এখন কনসালটেন্ট নিয়োগ করে এই বছরের মধ্যে টেন্ডারে চলে যাবে তিতাস।

এ ধরনের আরো বেশ কিছু প্রকল্প হাতে নিয়েছে তিতাস। যে প্রকল্প গুলো বাস্তবায়িত হলে তিতাস গ্যাস একটি স্মার্ট প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরিত হবে। এবং তিতাস গ্যাসের নিরবচ্ছিন্ন সেবা পাবে আবাসিক বাণিজ্যিক শিল্প কলকারখানা গুলো। গ্যাসের চাপ সব জায়গায় একই রাখা নিয়ে কাজ শুরু হয়েছে। দেশব্যাপী শিল্প কল-কারখানাগুলোতে নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস সংযোগ দিতে তিতাস গ্যাস এখন অনেক তৎপর।


আরও খবর