Logo
আজঃ বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম
নিলয় কোটা আন্দোলনকারীদের পক্ষ নিয়ে কী বললেন স্থগিত ১৮ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা তিতাসের অভিযানে নারায়ণগঞ্জের ২ শিল্প কারখানার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন হিলি দিয়ে কাঁচা মরিচ আমদানি বাড়ায় বন্দরের পাইকারী বাজারে কেজিতে দাম কমেছে ৩০ টাকা জয়পুরহাটে ডাকাতির পর প্রতুল হত্যা মামলায় ৬ জনের যাবজ্জীবন রিয়েলমি সার্ভিস ডে: ফোন রিপেয়ারে খরচ বাঁচান ৬০% পর্যন্ত, উপভোগ করুন ফ্রি সার্ভিস সুনামগঞ্জে ইয়াবাসহ ২জন গ্রেফতার: কোটিপতি সোর্স ও গডফাদার অধরা কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ৩ দিনে ৩ খুন, আইনশৃংখলার অবনতি জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

কোটার বিষয়ে আদালতের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:বুধবার ১০ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৩২জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আমরা কোটামুক্ত সিদ্ধান্তই নিয়েছিলাম। এখন আমাদের অবস্থান আদালতের ওপর নির্ভরশীল। আদালতের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত হবে। আশা করি, আদালত বাস্তবসম্মত সিদ্ধান্ত নেবেন,বলেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বুধবার (১০ জুলাই) দুপুরে আপিল বিভাগের আদেশের পর এ কথা বলেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আদালত চূড়ান্ত রায়ের মাধ্যমে এ বিষয়ের নিষ্পত্তি করবেন। আদালত শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফিরে যেতে বলেছেন। শিক্ষার্থীদের অসন্তোষ বিবেচনা করে আদালত বাস্তবসম্মত রায় প্রকাশ করবেন বলে আশা করি। পুরো রায় না আসা পর্যন্ত ধৈর্য ধারণ করতে বলছি। মানুষের দুর্ভোগ যাতে না হয়, সেদিকে শিক্ষার্থীদের খেয়াল রাখতে হবে। ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, শিক্ষার্থীরা কি ভাবছে তা এখনই বলা সম্ভব না। এক ঘণ্টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের প্রতিক্রিয়া বলা যাবে না। আজ ও কাল দেখি। তারপর বুঝা যাবে, আপনারা ধৈর্য ধরুন।

তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের আন্দোলনের বিষয়ে আমাদের যোগাযোগ আছে। আমরা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি। অচিরেই সমস্যার সমাধান হবে।

এসময় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, এস এম কামাল হোসেন, আফজাল হোসেন, দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান, কার্যনির্বাহী সদস্য সাহাবুদ্দিন ফরাজী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর



২০২৪ সালের প্রথম প্রান্তিকে বৈশ্বিক মার্কেট শেয়ারে ইনফিনিক্সের উল্লেখযোগ্য প্রবৃদ্ধি অর্জন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ১৭৬জন দেখেছেন

Image

প্রযুক্তি ডেস্ক:তরুণদের প্রিয় ট্রেন্ডি প্রযুক্তি ব্র্যান্ড ইনফিনিক্স ২০২৪ সালের প্রথম প্রান্তিকে বৈশ্বিক মার্কেট শেয়ারে উল্লেখযোগ্য প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে।

ইন্টারন্যাশনাল ডেটা কর্পোরেশনের (আইডিসি) বৈশ্বিক ত্রৈমাসিক মোবাইল ফোন ট্র্যাকারের তথ্য  অনুযায়ী, বিশ্বের প্রধান স্মার্টফোন ব্র্যান্ডগুলোর মধ্যে বছরে সর্বোচ্চ বৈশ্বিক মার্কেট শেয়ারে প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে কোম্পানিটি।

২০২৪ সালের প্রথম প্রান্তিকে তাদের বার্ষিক মার্কেট শেয়ার ১.৭% থেকে ৩.৭% পর্যন্ত বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া বিশ্বজুড়ে কোম্পানিটির স্মার্টফোন চালান ১৫০.৬% পর্যন্ত বৃদ্ধি পেয়েছে। এর মাধ্যমে টানা চার প্রান্তিকে দ্রুত ও টেকসই প্রবৃদ্ধি বজায় রেখেছে এই ব্র্যান্ড।

ইনফিনিক্সের জেনারেল ম্যানেজার টনি ঝাও বলেন, “২০২৪ সালের প্রথম প্রান্তিকে এমন অসাধারণ পারফরম্যান্স দেখাতে পেরে আমরা খুবই আনন্দিত। প্রযুক্তিপ্রিয় গ্রাহকদের হাতে সাশ্রয়ী মূল্যে সেরা মানের ফোন পৌঁছে দিতে আমাদের টিম নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। এই সাফল্যে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছে আমাদের প্রশংসিত ইনফিনিক্স নোট ৪০ সিরিজ এবং ইনফিনিক্স জিটি ২০ প্রো। এই ফোনগুলো ভোক্তাদের চার্জিং ও গেমিং পারফরম্যান্স সংক্রান্ত প্রয়োজনীয়তা মিটিয়েছে। পাশাপাশি বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজারে প্রথম সারির উদ্ভাবক হিসেবে আমাদের অবস্থানও দৃঢ় করেছে।”

আফ্রিকা ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মতো গুরুত্বপূর্ণ বাজারে ইনফিনিক্সের পারফরম্যান্স ছিল লক্ষণীয়। ২০টির বেশি দেশে স্মার্টফোন মার্কেট শেয়ারের ক্ষেত্রে সেরা পাঁচের মধ্যে স্থান করে নিয়েছে ব্র্যান্ডটি। বিশ্বের বৃহত্তর ভোক্তাগোষ্ঠীর কাছে আধুনিক প্রযুক্তি সহজলভ্য করে তুলতে ইনফিনিক্স দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। অসাধারণ এই অর্জনের মধ্য দিয়ে সেই প্রতিজ্ঞার কথাই ফুটে ওঠে।

তাছাড়া, ইনফিনিক্সকে ২০২৪ সালের এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলের ষষ্ঠ সেরা উদ্ভাবনী ব্র্যান্ড হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে ফাস্ট কোম্পানি। সম্মানজনক এই তালিকায় একমাত্র স্মার্টফোন ব্র্যান্ড হিসেবে স্থান পেয়েছে ইনফিনিক্স।

ইনফিনিক্সের জোরালো বৈশ্বিক মার্কেট শেয়ার অর্জনের পেছনে আছে তরুণদের পছন্দের সাথে মিল রেখে পণ্য বাজারে নিয়ে আসা, উদ্ভাবনী পণ্য ও সৃজনশীল মার্কেটিং। ইনফিনিক্স নোট ৪০ সিরিজ  এবং জিটি ২০ প্রো বাজারে এনে গেমারদের মনোযোগ আকর্ষণ করতে সক্ষম হয়েছে কোম্পানিটি। 

এসব ফোনে যুক্ত করা হয়েছে নতুন অল-রাউন্ড ফাস্টচার্জ ২.০, যার লক্ষ্য ছিল চার্জিং নিয়ে গ্রাহকদের দাবি পূরণ করা। এই ফিচারগুলোর মধ্যে আছে ১০০ ওয়াট মাল্টি-স্পিড ফাস্টচার্জ, ওয়্যারলেস ম্যাগচার্জ এবং মাল্টি-ফাংশনিং চার্জিং মোড সাপোর্টকারী চিতা এক্স১ চিপ। ইনফিনিক্স জিটি ২০ প্রো এই দামের মধ্যে একমাত্র ফোন যাতে একটি গেমিং ডিসপ্লে চিপ যুক্ত আছে। ব্যবহারকারীদের গেমিং অভিজ্ঞতা উন্নত করাই এর লক্ষ্য।

২০২৪ সালের প্রথম প্রান্তিকে ইনফিনিক্সের এসব অর্জনের মাধ্যমে উদ্ভাবনী এবং সাশ্রয়ী মূল্যের পণ্য সরবরাহ, বহুমুখী মার্কেটিং পদ্ধতির ব্যবহার এবং প্রযুক্তিগত অগ্রগতির প্রতি কোম্পানিটির প্রতিশ্রুতি প্রতিফলিত হয়। এই ব্র্যান্ডের বৈচিত্র্যময় এবং তরুণকেন্দ্রিক মার্কেটিং কৌশল এর অসাধারণ বৈশ্বিক পারফরম্যান্স ও খ্যাতির পেছনে অবদান রেখেছে। ভবিষ্যতে ব্যবহারকারীদের উন্নত পণ্য ও সেবা প্রদান, নতুন মানদণ্ড স্থাপন ও আরও বেশি সাফল্য অর্জনের চেষ্টা করাই ইনফিনিক্সের লক্ষ্য।


আরও খবর



রাণীশংকৈলে ৫২ জন ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর মাঝে ২ লাক্ষ ৫৬ হাজার টাকার শিক্ষাবৃত্তি প্রদান

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ | ১০৩জন দেখেছেন

Image
মাহাবুব আলম,রাণীশংকৈল (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি:ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলায় বুধবার ( ৩ জুলাই) দুপুরে উপজেলা হলরুমে ইউএনও রকিবুল হাসানের সভাপতিত্বে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের বরাদ্দকৃত তহবিল থেকে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান করা হয়। 

এ সময় উপজেলা চেয়ারম্যান আহাম্মদ হোসেন বিপ্লব, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা স্যামিয়েল মার্ডি, আদিবাসী সমাজ উন্নয়ন সমিতির সভাপতি নিকেল বর্মনসহ কমিটির বিভিন্ন সদস্যরা প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন। 

উল্লেখ, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী প্রাইমারী স্কুলের ২৫ জন ছাত্র ছাত্রী মাঝে প্রত্যেককে ২৫০০ টাকা, হাইস্কুলের ছাত্র ছাত্রী ১৮ জনের মাঝে ৬ হাজার টাকা,  এবং কলেজ লেভেলের ৯ জন ছাত্র ছাত্রী মাঝে ৯ হাজার ৫ শত টাকা করে। মোট ৫২ জন ছাত্র ছাত্রীর মাঝে ২ লাক্ষ ৫৬ হাজার টাকা প্রদান করা হয়। 

আরও খবর



মিরসরাইয়ে লোকালয়ে অজগর, পরে বনে অবমুক্ত

প্রকাশিত:বুধবার ১০ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ৮৭জন দেখেছেন

Image

মিরসরাই প্রতিনিধি:মিরসরাইয়ে লোকালয় থেকে একটি অজগর সাপ উদ্ধার করার পর বনে অবমুক্ত করা হয়েছে। মঙ্গলবার (৯ জুলাই) বিকেলে মিরসরাই সদর ইউনিয়নের সুফিয়া রোড এলাকায় একটি বাগানের নিরাপত্তা জালে আটকে পড়ে একটি অজগর। পরে খবর দিলে উদ্ধার করেন বাংলাদেশ বন্যপ্রাণি ও সাপ উদ্ধারকারী দলের সদস্য নাইমুল ইসলাম নিলয়। পরে সাপটি উদ্ধার শেষে বন বিভাগের মাধ্যমে বনে অবমুক্ত করা হয়।নাইমুল ইসলাম নিলয় জানান, সুফিয়া রোড় এলাকায় একটি বাগানের নিরাপত্তা জালে অজগর আটকা পড়লে স্থানীয়রা আমাকে খবর দিলে সাপটি উদ্ধার করে স্থানীয় বন কর্মকর্তার পরামর্শে মহামায়া বনে অবমুক্ত করেছি। তিনি আরো জানান, কেউ সাপ দেখলে না মেরে আমাদের খবর দিলে আমরা গিয়ে উদ্ধার করব।বন বিভাগের মিরসরাই রেঞ্জের শাহান শাহ নওশাদ জানান, অজগর সাপটি অক্ষত অবস্থায় সাপটি উদ্ধার করে নিয়ে আসা হয়। পরবর্তীতে চট্টগ্রাম উত্তর বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা নির্দেশনানুযায়ী এই নির্বিষ অজগর সাপটি মহামায়া ইকোপার্কের বনে অবমুক্ত হয়েছে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর



মিরসরাইয়ে প্রবাসীদের মিলনমেলা

প্রকাশিত:সোমবার ০১ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ১১১জন দেখেছেন

Image

এম আনোয়ার হোসেন, মিরসরাই (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি:মিরসরাইয়ে দিনব্যাপী প্রবাসীদের মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (২৯ জুন) হান্ডি মহামায়া রেস্টুরেন্টে মিরসরাই উপজেলার সর্বপ্রথম ও সর্বাধিক প্রচারিত অনলাইন পত্রিকা মিরসরাই নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম পত্রিকার উদ্যোগে এই আয়োজন করা হয়। এসময় মিরসরাই নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম পাঠক ফোরাম কুয়েতের প্রতিষ্ঠাতা নুরুল আজিমের সঞ্চালনায় এবং পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক এম আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে আলোচনা পর্বে বক্তব্য রাখেন জমজম সুইটস এন্ড বেকস্’র চেয়ারম্যান আবুল খায়ের সেলিম, পাঠক ফোরামের উপদেষ্টা রহিম উদ্দিন ভূঁইয়া, দুর্গাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দিন রুবেল, মিরসরাই নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম পাঠক ফোরাম কুয়েতের সভাপতি মোর্শেদ আলম, সাবেক সভাপতি মনজুরুল ইসলাম মনজু, মানবাধিকারকর্মী আহসান উল্ল্যাহ ভূঁইয়া মিলন, মোহাম্মদ হানিফ, আবুল হোসেন, শামীম হোসেন, আব্দুর রহিম, মেজবা উদ্দিন ও জুয়েল রানা। এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক আকতার হোসেন, রেদোয়ান হোসেন জনি, আলিম উল্ল্যাহ রিপন, সরোয়ার উদ্দিন প্রমুখ।

বক্তব্যে প্রবাসীরা বলেন, বিভিন্নভাবে প্রবাসীরা হয়রানীর শিকার হন। সেসব বন্ধে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এছাড়া মিরসরাইয়ের হতদরিদ্র মানুষের কল্যাণে কাজ করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। 

আলোচনা পর্বের পূর্বে মধ্যাহ্নভোজে অংশ নেন প্রবাসীরা। সব শেষে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম কৃত্রিম লেক মহামায়া লেকে নৌকা ভ্রমণের মধ্যদিয়ে দিনব্যাপী আয়োজনের সমাপ্তি ঘটে।


আরও খবর



মধুপুরের আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় অতন্দ্র প্রহরী ফারহানা আফরোজ জেমি

প্রকাশিত:বুধবার ২৬ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | ১৩১জন দেখেছেন

Image

বাবুল রানা মধুপুর টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃটাঙ্গাইল জেলায় সার্কেল পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে ১৩ মাসে ১১বার শ্রেষ্ঠত্বের গৌরব অর্জনকারী সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (আইজিপি পদক প্রাপ্ত) নারী পুলিশ কর্মকর্তা ফারহানা আফরোজ জেমি। তিনি টাঙ্গাইলের মধুপুর সার্কেলাধীন মধুপুর ও ধনবাড়ী থানায় বিগত ১৩ মাস যাবত দায়িত্ব পালন কালে এমন অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জনের অধিকারী হয়েছেন। পুলিশ প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কর্ম বিশ্লেষণে তিনি এমন গৌরবের কৃতিত্ব ও সাফল্য অর্জন করেছেন।

তার এই অর্জনের পিছনে রয়েছে অক্লান্ত পরিশ্রম, মেধা ও বিচারিক বুদ্ধিমত্তা। তিনি প্রতিনিয়ত থানা ও বিভিন্ন পুলিশ ফাঁড়ি আকস্মিক পরিদর্শন করার মাধ্যমে পুলিশ  অফিসার ও ফোর্সদের নিষ্ঠার সাথে  দায়িত্ব পালনে বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে থাকেন।তিনি সকল অফিসার ও ফোর্সদের রোলকল গ্রহণের মাধ্যমে ফাঁড়ি এলাকায় রাত্রিকালীন টহল ডিউটি, ওয়ারেন্ট তামিল,গান চেকিং এবং ফাঁড়ি এলাকার আইন-শৃংখলা ও নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে গুরুত্বপূর্ণ দিক নির্দেশনা দিয়ে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন। 

তার এই দিকনির্দেশনার কারণে মধুপুর ও ধনবাড়ি উপজেলার আইন শৃঙ্খলার ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। উপজেলার যেকোনো প্রান্ত থেকে  কোনো অভিযোগ এলে তিনি  কালক্ষেপণ না করে তার সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে সাথে সাথে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হওয়ার অনেক নজির তিনি সৃষ্টি করেছেন। যে কারণে অতি অল্প সময়ের মধ্যে মানুষের মনে একজন আস্থাভাজন পুলিশ অফিসার হিসেবে তিনি জায়গা করে নিয়েছেন । সব শ্রেণী পেশার মানুষ তার কাছে গিয়ে সরাসরি সমস্যার কথা বলতে পারেন এবং সুষ্ঠু সমাধানও পেয়ে থাকেন।

তার সততা, নিষ্ঠা ও ভালোবাসার কারণে অনেক অসহায় হতদরিদ্র পরিবার ন্যায় বিচার পাওয়ার আশায় তার শরণাপন্ন হন। তিনি নিজ উদ্যোগে অনেক অসহায় বাদি-বিবাদি পরিবারকে মামলার হয়রানি থেকে ফিরিয়ে এনে সুষ্ঠু সমাধানের মাধ্যমে আপোষ মিমাংসা করে দিয়ে মামলার জটলা অনেকাংশে কমিয়ে এনেছেন। বর্তমানে সময়ে আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় বীরদর্পে এগিয়ে যাওয়া  জেলায় সার্কেল পুলিশ অফিসার হিসেবে ১৩ মাসে ১১বার শ্রেষ্ঠত্বের গৌরব অর্জনকারী সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (আইজিপি পদক প্রাপ্ত) নারী পুলিশ কর্মকর্তা ফারহানা আফরোজ জেমি মধুপুর ও ধনবাড়ি মানুষের অন্তরে স্থান পাওয়া একজন অতন্দ্র প্রহরীর নাম। 

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর