Logo
আজঃ বুধবার ১৯ জুন ২০২৪
শিরোনাম

কক্সবাজারে ১২ই জুন পৌরসভা নির্বাচনে আচরণ বিধি লংঘন করলে প্রার্থিতা বাতিল হবে-নির্বাচন কমিশনার

প্রকাশিত:শনিবার ০৩ জুন ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ৩৪৬জন দেখেছেন

Image

আমান উল্লাহ, কক্সবাজার:আসন্ন ১২ জুন অনুষ্ঠিতব্য কক্সবাজার পৌরসভা নির্বাচনে কোন প্রকার ম্যাকানিজম, ইঞ্জিনিয়ারিং এর কোন সুযোগ নাই। নির্বাচন সুষ্ঠু ও সুন্দর করতে কমিশনের সদিচ্ছার  কোন অভাব নেই, নির্বাচনে কমিশন কোন পক্ষপাতিত্ব করবেনা। ইলেকশন কাকে বলে, কত প্রকার ও কি কি, তা কক্সবাজার পৌরসভা নির্বাচনে দেখিয়ে দেয়া হবে। সর্বোপুরি আগামী প্রজন্মের জন্য কক্সবাজার পৌরসভায় একটি দৃষ্টান্তমূলক সুন্দর নির্বাচন উপহার দেয়া হবে।নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল(অবঃ) মোঃ আহসান হাবিব খাঁন গতকাল শনিবার (৩ জুন) কক্সবাজার পাবলিক লাইব্রেরী ও ইনস্টিটিউটের শহীদ সুভাষ হলে কক্সবাজার পৌরসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের সাথে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে দৃঢ়তার সাথে এ আশ্বাস দেন।তিনি বলেন, কক্সবাজার পৌরসভায় পক্ষপাতহীন, অবাধ, শান্তিপূর্ণ, নিরপেক্ষ, স্বচ্ছ, সুষ্ঠু, কালোটাকা ও পেশীশক্তিমুক্ত নির্বাচন হবে। তিনি আরো বলেন, নির্বাচন সুন্দর ও সুষ্ঠু করা নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসনের একার দায়িত্ব নয়। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদেরও এ বিষয়ে সহযোগিতা করতে হবে। কোন অভিযোগ থাকলে তা সরাসরি রিটার্নিং অফিসারের নজরে আনতে হবে।কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ আহসান হাবিব খাঁন (অব:) প্রার্থীদের উদ্দেশ্যে আরো বলেন, সর্বোচ্চ সতর্কতা ও সচেতনার সাথে সকলকে আচরণ বিধি মানতে হবে। মাঠে সাদা পোশাকধারী গোয়েন্দা, এমনকি প্রাইভেট গোয়েন্দা দিয়ে বিদেশীরাও নির্বাচন পর্যবেক্ষন করছে। আচরণ বিধি লংঘন করায় গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোট গ্রহণের আগের দিন একজন প্রভাবশালী কাউন্সিলর প্রার্থীর প্রার্থীতা বাতিল করা হয়েছে। আচরণ বিধি লংঘন করলে কক্সবাজারেও প্রার্থীতা বাতিল করতে দ্বিধা করা হবেনা। এ বিষয়ে কমিশন কঠোর পদক্ষেপ ও “জিরো টলারেন্স” নীতি অবলম্বন করবে। এজন্য তিনি কক্সবাজার পৌরসভা নির্বাচনের সকল আপডেট রিপোর্ট নির্বাচন কমিশনের সদরদপ্তরে পাঠানোর জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেন।কমিশনার মোঃ আহসান হাবিব খাঁন বলেন, বিগত ৩৫/৪০ বছর রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালনকালে কোন উপরে আল্লাহ, নীচে আমার বিবেকের কাছে দায়বদ্ধ থেকে পেশাদারিত্বের সাথে কর্তব্য পালন করেছি। কক্সবাজার পৌরসভা নির্বাচনের ক্ষেত্রেও তার কোন ব্যত্যয় হবেনা।তিনি বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন মানেই কমিশন, প্রশাসন সহ সবার সাফল্য। যেহেতু কক্সবাজার পৌরসভা নির্বাচনে ভোট কেন্দ্রের প্রত্যেক বুথে সিসি ক্যামেরা থাকবে, সুতরাং সিসি ক্যামেরা ফুটেজ, গণমাধ্যম, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের রিপোর্ট পর্যালোচনা করে তাৎক্ষণিক প্রয়োজনীয় ও কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।কক্সবাজার জেলা প্রশাসন ও জেলা নির্বাচন অফিসের উদ্যোগে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মুহম্মদ শাহীন ইমরানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন, পুলিশ সুপার মোঃ মাহফুজুল ইসলাম পিপিএম (বার), জেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং অফিসার এস.এম শাহাদাত হোসেন।কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার শিমুল শর্মার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় নৌকার মেয়র প্রার্থী মাহবুবুর রহমান চৌধুরী, নারিকেল গাছ প্রতীকের নাগরিক কমিটি মনোনীত স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মাসেদুল হক রাশেদ, হেলামেট প্রতীকের জগদীশ বড়ুয়া পার্থ, হাতপাখা প্রতীকের জাহেদুর রহমান, কাউন্সিলর ও মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থীরা নানা অভিযোগ ও প্রশ্ন তুলে ধরেন।কমিশনার মোঃ আহসান হাবিব খাঁঁন, জেলা প্রশাসক মুহম্মদ শাহীন ইমরান, পুলিশ সুপার মোঃ মাহফুজুল ইসলাম পিপিএম (বার) প্রার্থীদের অভিযোগ ও প্রশ্নের জবাব দেন। পরে কমিশনার মোঃ আহসান হাবিব খাঁন দর্শক গ্যালারীতে গিয়ে ৫ জন মেয়র প্রার্থীর সকলের হাতের উপর হাত রেখে নির্বাচনে আচরণ বিধি মেনে চলতে, পরিবেশ সুষ্ঠু রাখার জন্য ওয়াদা করান।কমিশনার মোঃ আহসান হাবিব খাঁন শনিবার দুপুর সাড়ে ১২ টায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের শহীদ এটিএম জাফর আলম সম্মেলন কক্ষে কক্সবাজার পৌরসভা নির্বাচনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তাদের সাথে পৃথক আরেকটি মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে যোগ দেন।কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ আহসান হাবিব খাঁন (অব:) ২ দিনের কক্সবাজার সফর শেষে আজ শনিবার সন্ধ্যা ৬ টা ২৫ মিনিটে বিমানযোগে কক্সবাজার ত্যাগ করবেন বলে কমিশনারের একান্ত সচিব আসমা দিলারা জান্নাত প্রেরিত এক সফরসূচিতে জানা গেছে।প্রসঙ্গত, আগামী ১২ জুন সোমবার ইভিএম পদ্ধতিতে সকাল ৮ টা থেকে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ করা হবে। কক্সবাজার পৌরসভায় মোট ৪৩ টি ভোট কেন্দ্রে ২৪৪ টি বুথ রয়েছে। এছাড়া অস্থায়ী আরো ১৪ টি বুথ রয়েছে। ২০২৩ সালের ১৭ এপ্রিল পর্যন্ত হালনাগাদ করা ভোটার তালিকায় কক্সবাজার পৌরসভায় মোট ৯৫ হাজার ৩৮৬ জন ভোটার রয়েছে। তারমধ্যে, ৫০ হাজার ১৮৪ জন পুরুষ ভোটার এবং ৪৫ হাজার ২০২ জন মহিলা ভোটার।কক্সবাজার পৌরসভা নির্বাচনে ৪৩ ভোট কেন্দ্রের ২৪৪ টি বুথে সিসি ক্যামেরা বসানো হবে। ইতিমধ্যে নির্বাচন কমিশন সে উদ্যোগ নিয়েছে। সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে নির্বাচন কমিশনের সদর দপ্তর থেকে নির্বাচনের সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষন ও প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া হবে বলে জানান-রিটার্নিং অফিসার এস.এম শাহাদাত হোসেন।


আরও খবর



মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুবার্ষিকী আজ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | ৮০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আজ বৃহস্পতিবার বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ মোহাম্মদ নাসিমের চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী। সাবেক মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম এই সদস্য ২০২০ সালের ১৩ জুন ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন।

মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠন বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে প্রয়াতের কবরে শ্রদ্ধা নিবেদন, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল, আলোচনা সভা, গরিবদের মাঝে খাবার বিতরণ।

মোহাম্মদ নাসিমের ছেলে সিরাজগঞ্জ-২ আসনের এমপি তানভীর শাকিল জয় বলেন, আজ সকালে পরিবার এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের পক্ষ থেকে ঢাকার বনানীতে মোহাম্মদ নাসিমের কবরে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হবে। তার জন্মস্থান সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে থানা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে। এতে আওয়ামী লীগের একাধিক কেন্দ্রীয় নেতা উপস্থিত থাকবেন।

উল্লেখ্য, মোহাম্মদ নাসিম ১৯৪৮ সালের ২ এপ্রিল সিরাজগঞ্জের কাজীপুর উপজেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা শহীদ এম মনসুর আলী বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর ছিলেন।

মোহাম্মদ নাসিম ১৯৮৬, ১৯৯১, ১৯৯৬ ও ২০০১, ২০১৪ ও ২০১৮ সালে এমপি নির্বাচিত হন। তিনি বিভিন্ন সময় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ, স্বরাষ্ট্র, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত এবং ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ছিলেন। তিনি ১৪ দলীয় জোটের মুখপাত্র ছিলেন।


আরও খবর



গাংনীতে শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রি উত্যক্তর অভিযোগ

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ৯৭জন দেখেছেন

Image

মজনুর রহমান আকাশ, মেহেরপুরঃমেহেরপুরের গাংনীর বাওট সোলাইমানি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ক্রীড়া শিক্ষক মিরাজুল ইসলামের বিরুদ্ধেসপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রিকে উত্যক্ত করার অভিযোগ উঠেছে । লজ্জ্বা ভয়ে ওই ছাত্রি বিদ্যালয়ে আসা বন্ধ করে দিয়েছে। এ ঘটনায় ফুঁসে উঠেছেন এলাকাবাসি। তোপের মুখে আত্মগোপন করেছেন ওই শিক্ষক । এদিকে অভিযুক্ত শিক্ষককে বাঁচাতে গোপনে সমঝোতার চেষ্টা ও ঘটনা আড়াল করতে ব্যর্থ হয়েছেন প্রধান শিক্ষক। 

জানা গেছে, বেশ কিছুদিন যাবত ওই ছাত্রিকে শিক্ষক মিরাজুল ইসলাম বিভিন্ন সময় নানা ধরনের কুরচিপূর্ণ কথা বলেন। দিন পাঁচেক আগে শিক্ষক মিরাজুল ওই ছাত্রিকে বিদ্যালয়ে একটি কক্ষে নিয়ে কু প্রস্তাব দেয়। লোক লজ্জ্বার ভয়ে ছাত্রিটি বিদ্যালয়ে আসা বন্ধ করে দেয় ও পরিবারের লোকজনকে জানায়। বিষয়টি জানানো হয় প্রধান শিক্ষকসহ অন্যান্য শিক্ষককে। সেই সাথে জেনে যান বিদ্যালয়ে পরিচালনা পর্ষদসহ এলাকার লোকজন।

এলাকার কয়েকজন জানান, একজন ছাত্রি একজন শিক্ষকের মেয়ে তুল্য। কীভাবে তাকে কুপ্রস্তাব দেয় ? তার বিচার হওয়া প্রয়োজন। এজন্য ছাতিয়ান ও বাওট গ্রামের লোকজন ফুঁসে উঠেছে। গত রোববার ও আজ সোমবার এলাকার লোকজন বিদ্যালয়ে আশে পাশে অবস্থান নেয়। অবস্থা বেগতিক দেখে ওই শিক্ষক আত্মগোপন করেন। শিক্ষক মিরাজুল দুশ্চরিত্রের মানুষ। তাকে বিদ্যালয়ে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না বলেও জানান তারা।

এলাকাবাসি আরো জানান, ওই শিক্ষককে বাঁচাতে ও ঘটনা আড়াল করতে প্রধান শিক্ষক সোহরাব হোসেন মিথ্যাচার করেন। ঘটনাটি আদৌ সত্য নয় বলে প্রচার করতে চাইলে ওই শিক্ষার্থী ও তার পরিবারের লোকজন পুরো ঘটনাটি এলাকার জনপ্রতিনিধিদেরকে অবহিত করেন। এর পরই প্রধান শিক্ষক দমে যান। তাছাড়া ঘটনার ৫দিন অতিবাহিত হলেও প্রধান শিক্ষক ওই ক্রিড়া শিক্ষকের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেন নি এবং উর্ধ¦তন কর্মকর্তাকে অবহিত করেন নি।

কয়েকজন শিক্ষক জানান, ২০১৮ সালে এনটিআরসি থেকে নিয়োগ পান শিক্ষক মিরাজুল। তখন থেকেই তার বিরুদ্ধে নারী কেলেঙ্কারীর অভিযোগ রয়েছে। এমতাবস্থায় প্রধান শিক্ষক ও বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ কারো কথায় কান না দিয়ে তাকে যোগদান করান। বিদ্যালয়ে যোগদানের পর থেকেই ছাত্রিদের সাথে অসদাচরণ এবং বাজে উক্তি করতেন। হাসির ছলে কথা বলায় তখন কেউ কিছু মনে করতেন না। কিন্তু উত্যক্ত করা ছাড়াও ছাত্রিদের সাথে খারাপ আচরণ করায় সকলেই বিরক্ত।

প্রধান শিক্ষক সোহরাব হোসেন জানান, ক্রিড়া শিক্ষক মিরাজুলের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠায় ওই শিক্ষক আর বিদ্যালয়ে আসেন নি। আবার তার ব্যবহৃত মুঠো ফোনটিও বন্ধ রেখেছেন। তাকে মৌখিকভাবে বিদ্যালয়ে না আসার জন্য বলা হয়েছে। সেই সাথে ওই শিক্ষার্থীকে ঘটনার বিবরন দিয়ে লিখিত অভিযোগ দেয়ার জন্য বলা হয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। শিক্ষককে বাঁচাতে গোপন আঁতাতের বিষয়টি অস্বীকার করেন এই প্রধান শিক্ষক।

বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি সাহাবুল ইসলাম জানান, তিনি দুদিন আগে ঘটনাটি শুনেছেন। প্রধান শিক্ষক তাকে ঘটনাটি জানান নি। লোকমুখে ঘটনাটি শুনে বিদ্যালয়ে আসেন এবং আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রধান শিক্ষককে বলেন।


আরও খবর

ভোলায় "রাসেল ভাইপার" আতঙ্ক

বুধবার ১৯ জুন ২০২৪




রূপগঞ্জে ভুল চিকিৎসায় প্রসুতির মৃত্যু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ৮৪জন দেখেছেন

Image

আবু কাওছার মিঠু রূপগঞ্জ নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধিঃনারায়ণগঞ্জে রূপগঞ্জে ভুলতা জেনারেল নামে এক বেসরকারী হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় লুবনা আক্তার(২৭) নামে এক প্রসুতির মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। এসময় ক্ষিপ্ত হয়ে নিহতের স্বজনরা হাসপাতাল ভাংচুর করে। ভয়ে লাশ রেখে হাসপাতাল থেকে চিকিৎসকসহ সকল কর্মকর্তা- কর্মচারীরা পালিয়ে যায়। 

নিহত লুবনা আক্তার আড়াইহাজার থানাধীন গিরদা এলাকার কাপড় ব্যবসায়ী তপন মিয়া স্ত্রী।

নিহতের স্বজনরা জানান, ব্যবসায়ী তপন তার স্ত্রী লুবনাকে সন্তান প্রসবের জন্য ভুলতা জেনারেল হাসপাতালে গাইনী চিকিৎসক ডাঃ সোনিয়া রহমানের পরামর্শে সোমবার বিকালে হাসপাতালে ভর্তি করান। রাত ৮ টার সময় অপারেশনের সময় দিলেও রাত ১১ টার সময় লুবনাকে অপারেশর থিয়েটারে নিয়ে যায় ডাঃ সোনিয়া রহমান।   চেতনানাশক এনেসথেশিয়া ইনজেকশন পুশ করার পর তার আর জ্ঞান ফিরেনি। ২ ঘন্টা পর পরিবারের কাউকে কিছু না বলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ অপারেশন থিয়েটার থেকে  লু্বনাকে তড়িগড়ি করে পার্শ্ববর্তি একটি হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানকার ডাক্তার তাকে মৃত বলে ঘোষনা দেন।


তখন সেই হাসপাতালে লাশ রেখেই পলায়ন করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। পরে লাশ নিয়ে নিহতের স্বজন ভুলতা জেনারেল হাসপাতালে আসলে হাসপাতালে কাউকে পাওয়া যায়নি। সবাই  পালিয়ে গেছে। এসময় ক্ষিপ্ত হয়ে নিহতের স্বজনা উত্তেজিত হয়ে হাসপাতালে ভাংচুর করে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে। এব্যাপারে কথা বলার জন্য হাসপাতালে কাউকে পাওয়া যায়নি।

ভুলতা পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ জিল্লুর রহমান বলেন,  অপারেশনের সময় এক প্রসুতির মৃত্যুর খবরে হাসপাতালে ভাংচুরের খবর পেয়ে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এঘটনা এখনো কোন লিখি

 -খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



দুর্যোগের মধ্যে আছি, এই বয়সেও হাজিরা দিতে হচ্ছে: ড. ইউনূস

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | ১৭৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আমরা একটা দুর্যোগের মধ্যে আছি। নিজের মতো করে কাজকর্ম করতে পারছি না, এ বয়সেও মামলায় প্রতিনিয়ত হাজিরা দিতে হচ্ছে,বলেছেন ড. মুহাম্মদ ইউনূস ।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) বেলা ১১টার পর ড. মুহাম্মদ ইউনূস জামিন নিতে শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনাল থেকে বের হয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

এসময় ড. ইউনূস বলেন, এর ফলে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্চে। সারাবিশ্ব তা দেখছে।এদিন শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনালে আসেন তিনি। এসময় তার সঙ্গে ছিলেন আইনজীবীসহ সংশ্লিষ্ট আসামিরা।

গত ১৬ এপ্রিল শ্রম আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় ৬ মাসের সাজাপ্রাপ্ত নোবেলজয়ী ড. ইউনূসকে ২৩ মে পর্যন্ত জামিন দিয়েছিলেন শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনাল। আজ পর্যন্ত তাদের জামিনের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছিল।

এর আগে নতুন করে জামিন নিতে শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনালে যান ড. ইউনূস।

শ্রম আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের করা মামলায় ৬ মাসের সাজাপ্রাপ্ত নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে স্থায়ী জামিন দেননি শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনাল। তবে ওই মামলায় ইউনূসসহ চারজনের জামিনের মেয়াদ বাড়িয়েছেন আদালত। আজ ২৩ মে এ বিষয়ে শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। তারই ধারাবাহিকতায় আজ তিনি আবারও আদালতে উপস্থিত হন।

গত ১৬ এপ্রিল শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ এম এ আউয়াল এ আদেশ দেন।

আদালতে সেদিন ড. ইউনূসসহ চারজনের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন ব্যারিস্টার মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন। তার সঙ্গে ছিলেন ব্যারিস্টার খাজা তানভীর আহমেদ ও এস এম মিজানুর রহমান। কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদপ্তরের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন সিনিয়র অ্যাডভোকেট মো. খুরশীদ আলম খান ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের দায়িত্বরত চিফ প্রসিকিউটর সৈয়দ হায়দার আলী। এসময় ড. ইউনূসসহ অন্য তিন বিবাদী গ্রামীণ টেলিকমের এমডি মো. আশরাফুল হাসান, পরিচালক নুরজাহান বেগম ও মো. শাহজাহান আদালতে উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



‘প্লাটিনাম’ গ্রেডে লিড সার্টিফিকেট পেলো নিপা গ্রুপের ২ সহ প্রতিষ্ঠান

প্রকাশিত:সোমবার ২০ মে ২০24 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | ৯৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:ঢাকা-১৮ আসনের সংসদ সদস্য মো. খসরু চৌধুরী সিআইপি প্রতিষ্ঠিত নিপা গ্রুপের সহ প্রতিষ্ঠান কেসি জ্যাকেট ওয়্যার কোম্পানি ও কে সি বটম এন্ড শার্ট ওয়্যার কোম্পানিকে যুক্তরাষ্ট্রের গ্রিন বিল্ডিং কাউন্সিল (ইউএসজিবিসি) থেকে ‘প্লাটিনাম’ গ্রেডে লিড (লিডারশিপ ইন এনার্জি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট ডিজাইন) সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়েছে।  

রবিবার দুপুরে ইউএসজিবিসি প্রতিনিধি দলের সমন্বয়ক শান্তনু কুমার দত্ত নিপা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক খসরু চৌধুরী সিআইপির হাতে এ সার্টিফিকেট তুলে দেন।

লিড সার্টিফাইড পোশাক কারখানা বলতে বোঝায়, ওই কারখানায় নিরাপদ কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করা হয়েছে এবং উৎপাদন কার্যক্রমে তুলনামূলক কম কার্বন নিঃসরণ করছে। এ দুটি প্রতিষ্ঠান রাজধানীর দক্ষিণখান ও উত্তরখানে অবস্থিত।

‘প্লাটিনাম’ গ্রেডে লিড সার্টিফিকেট অর্জনের পর নিজের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে নিপা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও ঢাকা-১৮ আসনের সংসদ সদস্য মো. খসরু চৌধুরী বলেন, ‘এটি আমার জন্য এক বিশাল অর্জন ও একই সঙ্গে গর্বেরও বিষয়। আমার প্রতিষ্ঠিত কোম্পানীগুলো পোশাকের গুণগত মান প্রতিনিয়ত উন্নয়ন করতে কাজ করে যাচ্ছে। আশাকরি নিপা গ্রুপের সহ প্রতিষ্ঠান কেসি জ্যাকেট ওয়্যার কোম্পানি ও কে সি বটম এন্ড শার্ট ওয়্যার কোম্পানি দেশের সম্মান বৃদ্ধিতে আরও যত্নশীল হবে। সেই সঙ্গে বাংলাদেশের পোশাক রপ্তানিখাতে আরও অবদান রাখবে।


আরও খবর