Logo
আজঃ বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম
নিলয় কোটা আন্দোলনকারীদের পক্ষ নিয়ে কী বললেন স্থগিত ১৮ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা তিতাসের অভিযানে নারায়ণগঞ্জের ২ শিল্প কারখানার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন হিলি দিয়ে কাঁচা মরিচ আমদানি বাড়ায় বন্দরের পাইকারী বাজারে কেজিতে দাম কমেছে ৩০ টাকা জয়পুরহাটে ডাকাতির পর প্রতুল হত্যা মামলায় ৬ জনের যাবজ্জীবন রিয়েলমি সার্ভিস ডে: ফোন রিপেয়ারে খরচ বাঁচান ৬০% পর্যন্ত, উপভোগ করুন ফ্রি সার্ভিস সুনামগঞ্জে ইয়াবাসহ ২জন গ্রেফতার: কোটিপতি সোর্স ও গডফাদার অধরা কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ৩ দিনে ৩ খুন, আইনশৃংখলার অবনতি জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুস্হতার জন্য দোয়া

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৯ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১২৮জন দেখেছেন

Image

ষ্টাফ রিপোর্টারঃআজ (৮ জুলাই, ২০২৪) বিকেলে বিএনপি চেয়ারপার্সন সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া'র আশু রোগমুক্তি কামনায় বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটি'র অন্যতম সদস্য ও জাসাস কেন্দ্রীয় কমিটি'র আহবায়ক  চিত্রনায়ক  হেলাল   খান 

সিলেট জেলার গোলাপগঞ্জ উপজেলায় তার বাস ভবনে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত করেন।


আরও খবর



বগুড়ায় জোড়া খুনের ঘটনায় মোটর শ্রমিক নেতা মিঠু সহ গ্রেফতার ৪

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ | ১৬৭জন দেখেছেন

Image
লতিফ বগুড়া বিশেষ প্রতিনিধি:মঙ্গলবার শহরের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়।মঙ্গলবার দিবাগত রাতে হত্যাকান্ডের ঘটনায় মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ কবির আহমেদ মিঠু তার ছোট ভাই জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা সৈয়দ সার্জিল আহমেদ টিপু ও পৌরসভার ১নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর শাহ মো. মেহেদী হাসান হিমুসহ ১৩ জনের নাম উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। এছাড়া মামলায় আরো ১৪/১৫ জনকে অজ্ঞাত আসামী করা হয়েছে।

মঙ্গলবার রাতে নিহত শরিফের মা বাদী হয়ে সদর থানায় মামলাটি দায়ের করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. শাহীনুজ্জামান। 
অন্য গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, সদরের সুলতানগঞ্জ পাড়া এলাকার ইসমাইল হোসেনের ছেলে ছাত্রলীগ আজবিন রিফাত (১৯), নিশিন্দারা খাঁপাড়া এলাকার আব্দুল গফুর এর ছেলে শেখ সৌরভ ও নিশিন্দারা পূর্বপাড়ার মৃত আব্দুল কুদ্দুস এর ছেলে নাঈম হোসেন (২৮)।এর আগে সোমবার (১৭ জুন) রাত দেড়টায় নিশিন্দারা চকপাড়া এলাকার জাহিদ মিয়ার ইউক্যালিপ্টাস বাগানের গলিতে একই এলাকার শফিকুল ইসলামের ছেলে রুমন (১৭) ও দুদু মিয়ার ছেলে শরিফ (১৮)কে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ সময় তারা গোলাগুলির ঘটনাও ঘটায় সেখানে। এ ঘটনায় নিহতদের বন্ধু একই এলাকার মোঃ বাদলের ছেলে হোসাইন পায়ে গুলিবিদ্ধ হন। পরে খবর পেয়ে পুলিশ লাশ দুটো উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায় এবং হোসাইনকে চিকিৎসার জন্য ওই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ঈদের দিন বিকেলে নামাজগড় থেকে হাকিরমোড়গামী নির্মাণাধীন রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় নিহত রুমনের মোটর সাইকেল জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান সৈয়দ সার্জিল আহম্মেদ টিপুর গাড়িতে ধাক্কা লাগে। ওই গাড়িতে টিপুর মেয়ে ছিলেন। এ নিয়ে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এরই জের ধরে আসামীরা ওই দিন রাত ১২টায় শরিফ শেখ, রুমন, হোসাইনকে ঘটনাস্থল চকরপাড়ার জাহিদ মিয়ার ইউক্যালিপ্টাস বাগানে মীমাংসার কথা বলে ডেকে নিয়ে হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটায়।মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বগুড়া সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত), মো. শাহিনুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ১৮ জুন দিবাগত রাত ১২টায় মামলাটি দায়ের করা হয়। ইতোমধ্যে মামলার আসামী হিসেবে ছাত্রলীগ নেতা রিফাতসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। বাকীদের গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে।

র‍্যাব-১২ বগুড়ার কোম্পানী কমান্ডার মীর মনির হোসেন বলেন, গতকাল সৈয়দ কবির আহম্মেদ মিঠুকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কার্যালয়ে ডাকা হয়। এরপর তদন্ত শেষে রাত ৩টায় তাকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে ডিবি পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

আরও খবর



কুষ্টিয়ায় দু’টি ব্রিজের কাজ শেষ নিয়ে শঙ্খায় জনসাধারণ

প্রকাশিত:বুধবার ১০ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৯৫জন দেখেছেন

Image
হাবিবুর রহমান, কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধিঃকুষ্টিয়ায় ‘পল্লী অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প’ এর অধীন সদর উপজেলার বিত্তিপাড়া হাট-জামজামী ভায়া ঝাউদিয়া সড়কের কুমার নদীর উপর প্রি-ষ্ট্রেজড গার্ডার ব্রিজটি ৪ বছরেও নির্মান শেষ হয়নি। ৭ কোটি ২৫ লাখ টাকা প্রাক্কলন ব্যায়ে ৮১ মিটার দৈর্ঘের ব্রিজটি দুই বছর বা ২৪ মাস সময় ধরে নির্মান বাস্তবায়ন শুরু হয় মার্চ ২০২১সালে। নির্ধারিত সময়কাল ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারীতে শেষ হলেও স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এলজিইডি কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পটির ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান কাজ ফেলে পালিয়ে যাওয়ায় ঝুলে গেছে প্রকল্পটি। এতে গত ৪বছর ধরে সীমাহিন ভোগান্তির শিকার হয়েছে এই ব্রিজের সুবিধাভোগী কৃষি প্রধান অঞ্চলের কয়েক লক্ষ মানুষ। এছাড়াও হরিনাকুন্ডু ও আলমডাঙ্গা উপজেলার সাথে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার একমাত্র সংযোগ সড়কটিতে যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ এলজিইডি ও ঠিকাদাদের গাফিলতি ও যোগাসাজসী অবহেলায় এমন পরিস্থিতি। দ্রুত ব্রিজটির নির্মান সম্পন্নের দাবি স্থানীয়দের। তবে অভিযোগ নাকচ করে এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী জানালেন খুব শীঘ্রই ব্রিজটির নির্মানকাজ শেষ করে জনগণ চলাচলের জন্য খুলে দেয়া হবে। কুষ্টিয়া সদর উপজেলা প্রকৌশলীর কার্যালয় সুত্রে জানা গেছে, ২০২০ সালের নভেম্বরে কুষ্টিয়া আলমডাঙ্গা সড়কের বিত্তিপাড়া হতে ঝাউদিয়া বাজার যেতে উজানগ্রাম এলাকার গঙ্গা কপোতাক্ষ সেচ প্রকল্পের (জিকে) খালের উপর ২৫ কিঃমিঃ দৈর্ঘ্য সেতু নির্মানের আদেশ দেয়া হয়। এই ব্রীজের ব্যয় ধরা হয়েছে ৯২ লাখ ৩৮ হাজার টাকা। একই বছরের ৩ নভেম্বর কার্যাদেশ পাওয়া সেতু নির্মাণ কাজ ২০২১ সালের ৪ নভেম্বর শেষ করার কথা। নির্ধারিত সময় পার হলেও কাজ হয়েছে মাত্র ২৫ থেকে ৩০% । ওই সেতু থেকে মাত্র এক কিঃমিঃ দুরে একই সড়কের কুমার নদীর উপর ৮১ মিটার দৈর্ঘের আরেকটি সেতু নির্মানের কার্যাদেশ দেয়া হয়। এই সেতুটিতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৭ কোটি ২৫ লাখ টাকা। কিন্তু কাজ হয়েছে আনুমানিক মাত্র ৩০%। শুধু মাত্র কয়েকটি পিলার দেখা যাচ্ছে। সেতু দু’টি নির্মাণের কাজ পান পাবনা জেলার এমএনএম এ্্যান্ড এসই (জেভি) নামের যৌথ ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান। এই ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের মালিক পাবনার বেড়া উপজেলার কাশিনাথপুর এলাকার নুরুজ্জামান মিয়া। ঠিকাদারের আবেদনের প্রেক্ষিতে এলজিইডি কাজের মেয়াদও বাড়িয়েছে। তার পরেও কাজ হয়নি। পরবর্তীতে অন্য এক ঠিকাদরকে ব্রীজ নির্মানের কাজ দেয়া হলে সেও কাজ না করে পালিয়ে যায় বলে অভিযোগ উঠেছে। বাস্তবায়নাধীণ প্রকল্পটি দীর্ঘদিন ধরে ঝুলে থাকায় সীমাহিন দুর্ভোগ ও কৃষি পন্য বহন করা দু:সাধ্য হয়ে পড়েছে বলে দাবি স্থানীয়দের। দ্রুততম সময়ের মধ্যে ব্রিজটির নির্মান শেষ করে স্বাভাবিক চলাচলের রাস্তাটিও মেরামতের দাবি তাদের। ব্রিজ সংলগ্ন স্থানীয় বাসিন্দা জরিনা খাতুন (৫৫)র অভিযোগ সেই ৪বছর আগে শুরু হয়ছে এই কাম এতোদিন সহ্য কইরি ছিলাম যে কাজ শ্যাষ হলিই তো আবার সব ঠিক হয়ে যাবিনি। কিন্তু একন দেখতিচি, এডি আমারে গলার গাড় হয়ে গেছে। সরকার যিন কামডা তাড়াতারি শ্যাষ কইরি দেয় এই আমার আবেদন। উজানগ্রাম এলাকার বাসিন্দারা তাদের প্রতিক্রিয়ায় বলেন, গা গ্রামের মানুষের কষ্ট দ্যাকার কেউ নেই গো। এই যে গাংয়ের উপর ব্রিজটা আইজ ৪বছর ধরি শেষ করতি পারতেছে না। কি এর সমস্যা আর কিইবা তার সুমাধান হবি কিডা দেকপি কও, আমরা মাঠ ঘাটের ফসল আনতি কত কষ্ট কত্তি হচ্ছে, কষ্টডা তো আমরাই পাচ্ছি। একই ভাবে চলাচলরত ড্রাইভাররা বলেন, কাম কত্তি কত্তি অদ্দেক কইরি ফ্যালা থুয়ে চইলি গেছে। এতোদিন ধইরি আমারে ভুগান্তিই যাচ্ছেনা। ব্রিজটা হয়ে গেলি আমরা বাঁচি। কুষ্টিয়া জেলা সচেতন মহলের প্রতিনিধি শেখ মোঃ সুভীন আক্তার বলেন, কুষ্টিয়ায় নির্মানাধীন রাস্তাঘাট ব্রিজ কালভার্ট ও অবকাঠামো নির্মান প্রকল্পগুলি নানা অনিয়ম অবহেলায় অসম্পন্ন ভাবে ঝুলে আছে দীর্ঘদিন ধরে। প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ সাপেক্ষে সকল প্রস্ততি ও সক্ষমতাসহ প্রকল্প বাস্তবায়নের যাত্রা শুরু হলেও ঝুলে থাকা এসব প্রকল্পে একদিকে বাড়ছে ব্যয় অন্যদিকে স্বভাবিক চলাচল ব্যহতের পাশাপাশি দীর্ঘ হচ্ছে ভোগান্তি। এই যদি হয় বাস্তব চিত্র তাহলে মাসে মাসে এসব মিটিং করে আদৌ কি পরিস্থিতির পরিবর্তন হচ্ছে। সচেতন নাগরিক কমিটি সনাক এর সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল আলম টুকু প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেন, এই পরিস্থিতি সৃষ্টি জন্য প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার দায়িত্বহীণতার প্রমান থাকলে অবশ্যই তার জবাবদিহিতাসহ শাস্তি হওয়া উচিত। টেকসই উন্নয়ন অভিযাত্রা বাস্তবায়নে সরকারের অর্থ বরাদ্দ দেয়ার পরও কেনো এমন জনভোগান্তি হবে, এতে হয় তাদের অনিয়ম অবহেলা আছে নচেৎ তারা অযোগ্য। তিনি এমন প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন উন্নয়ন সমন্বয় সভাতে। তিনি আরও বলেন, গত উন্নয়ন সমন্বয় সভাতে যোগ দিয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য মাহবুব উল আলম হানিফ চরম অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। এবিষয়ে স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদপ্তর এলজিইডি কুষ্টিয়ার নির্বাহী প্রকৌশলী মো: আব্দুর রাজ্জাক বলেন, উজানগ্রাম-ঝাউদিয়া সড়কের কুমার নদীর উপর নির্মানাধীণ ৮১ মিটার দৈর্ঘের ব্রিজটির নির্মান কাজ কিছু দিন বন্ধ ছিলো তবে খুব দ্রুততম সময়ের মধ্যে শেষ করা হবে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.

আরও খবর



এবার শিক্ষার্থীদের অবরোধ বাড্ডায়

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৪৬জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে এবার বাড্ডায় সড়ক অবরোধ করে আন্দোলন শুরু করেছেন বেসরকারি ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রাস্তার এক পাশ অবরোধ করে রাখেন তারা।

অবরোধের ফলে সড়কে সৃষ্টি হয়েছে তীব্র যানজট।

পুলিশ জানায়, শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে কেন্দ্র করে মেরুল বাড্ডা এলাকায় পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। সড়ক স্বাভাবিক করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করছে পুলিশ।

বাড্ডা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ ইয়াসীন গাজী জানান, অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি মোকাবিলায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের অনুরোধ করা হচ্ছে তারা যেন সড়ক অবরোধ ছেড়ে দেন।

এদিকে, শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদ এবং প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য প্রত্যাহার ও এক দফা দাবিতে দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয়ে মঙ্গলবার বিকেল ৩টায় বিক্ষোভ মিছিল করবে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন।

অন্যদিকে মহান স্বাধীনতাকে কটাক্ষ, রাজাকারদের পক্ষে সাফাই এবং সাধারণ শিক্ষার্থী ও নেতাকর্মীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে দুপুরে বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দিয়েছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে দুপুর দেড়টায় এ বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর



বাকেরগঞ্জে প্রবাসী যুবকের আত্মহত্যা

প্রকাশিত:বুধবার ১০ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ৬৬জন দেখেছেন

Image
রবিউল ইসলাম বাকেরগঞ্জ প্রতিনিধি:বরিশালের বাকেরগঞ্জে মোঃ শাহিন হাওলাদার(৪০) নামে এক প্রবাসী যুবক গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যার খবর পাওয়া গেছে।মঙ্গলবার (৯ জুলাই) সকালে বাকেরগঞ্জ পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডে শাহিনের নিজ বাড়ীর সামনের বাগানে এ আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে।

স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, বাকেরগঞ্জ পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের ভরপাশা গ্রামের মোঃ হাবিব হাওলাদারের পুত্র প্রবাসী শাহীন হাওলাদার জীবিকার তাগিদে বিদেশে ছিলেন। গত কিছুদিন পূর্বে তিনি বিদেশ থেকে নিজ বাড়িতে ফেরেন। এলাকার কতিপয় দুষ্টচক্র তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে এনজিওর এক কর্মীর সাথে পরকীয়া প্রেমের সম্পর্কে জড়ানোর অভিযোগ তুলেন। 

গত এক সপ্তাহ আগে তিনি বিদেশ থেকে  দেশে এসে স্ত্রীকে অভিযোগের বিষয় জানতে চেয়ে সব ভূলে ঘর সংসার করতে অনুরোধ করেন। গতকাল ৮ জুলাই তিন সম্তানের জননী শাহিনের স্ত্রীকে পার্শ্ববর্তী পলাশ হাওলাদারসহ তিনজন মিলে পরকীয়ার দোহাই দিয়ে এনজিও কর্মী জাহিদের সাথে জোরপূর্বক বিবাহ দেয়। চোখের সামনে নিজের স্ত্রীকে জোরপূর্বক অন্য যুবকের সাথে বিয়ে দেয়ার কারণে বিয়ের বিষয়টি সহ্য করতে না পেরে তিনি গলায় ফাঁস দিয়ে প্রবাসী যুবক শাহিন আত্মহত্যা করে।

বাকেরগঞ্জ থানা পুলিশ পরিদর্শক ( ওসি তদন্ত) মো. মোস্তফা আত্নহত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। রিপোর্ট এলেই আসল মৃত্যুর কারন জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় মৃত শাহিনের ভাই একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করেছেন।

-খবর প্রতিদিন/ সি.

আরও খবর

আমতলীতে ৩দিন ব্যাপী কৃষি মেলা শুরু

বৃহস্পতিবার ১১ জুলাই ২০২৪




আমতলীতে ৩জন চিকিৎসক দিয়ে চলছে আড়াই লাখ মানুষের স্বাস্থ্য সেবা, বেহাল দশা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৮১জন দেখেছেন

Image

আব্দুল্লাহ আল নোমান,আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি:আমতলী উপজেলায় চিকিৎসক সংকট মারাত্মক আকার ধারন করেছে। ৫০ শয্যার হাসপাতালে স্বাস্থ্য কর্মকর্তাসহ  ৩১টি পদের মধ্যে ৩জন চিকিৎসক রয়েছে। ২৮টি চিকিৎসকের পদ শুন্য থাকায়  উপজেলায় আড়াই লাখ মানুষের স্বাস্থ্য সেবায় ৩জন চিকিৎসক কোনই কাজে আসছে না ফলে আমতলীতে স্বাস্থ্য সেবা একে বারেই ভেঙ্গে পড়েছে।

আমতলী উপজেলা হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, আমতলী উপজেলা সদরে ৫০ শয্যায় হাসপাতাল ১টি, কুকুয়া ইউনিয়নের আজিমপুর বাজারে ১০ শয্যার হাসপাতাল ১টি, এবং আঠারগাছিয়া ইউনিয়নের গাজীপুর বাজারে ও গুলিশাখালী ইউনিয়নের গুলিশাখালী বাজারে ১টি করে উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র রয়েছে। এসকল হাসপাতালে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকসহ মোট ৩১ জন ডাক্তারের পদ রয়েছে। এর মধ্যে ১জন উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা, ১জন জুনিয়র কনসালটেন্ট সার্জন, ১জন জুনিয়র মেডিসিন কনসালটেন্ট, ১জন গাইনি কনসালটেন্ট, ১জন ডেন্টাল সার্জন, ১জন অঞ্জানবিদ,  জুনিয়র কনসালটেন্ট নাক, কান, গলা, চোখ ও চর্ম রোগের প্রতিটি পদের জন্য মোট ৬জন, ১জন আরএমও ও ২জন মেডিকেল অফিসার থাকার কথা। বর্তমানে ৩১ জন চিকিৎসকের মধ্যে  ২জন মেডিকেল অফিসার ও উপজেলা সাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আছেন আর বাকী ২৮টি চিকিৎসকের পদ দীর্ঘ দিন খালি রয়েছে। ২জন মেডিকেল অফিসার তাও আবার গুলিশাখালী উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র ও হলদিয়া ইউনিয়ন পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের ২জন চিকিৎসক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জরুরী ভিত্তিতে আনা হয়েছে প্রেষনে। আমতলী হাসপাতালে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২৯ ফেব্রুয়ারি সকালে ডা. ফায়জুর রহমান নামে একজন আবাসিক মেডিকেল অফিসার যোগদান করেন। যোগদানের পর ওই দিন বিকেল থেকেই এখন পর্যন্ত কর্মস্থলে তিনি অনুপস্থিত রয়েছেন। কর্মস্থলে অনুপস্থিতির কারন জানতে চেয়ে তাকে দু’দফা কারন দর্শাও নোটিশ দেওয়াসহ তার বেতন ভাতা বন্ধ রাখা হয়েছে। এ বিষয়য়ে তার নিকট মুঠো ফোনে জানতে চাইলে তিনি কোন সদোত্তর দিতে পারেননি। 

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা অফিসিয়াল ও প্রশাসনিক কাজের জন্য সব সময় ব্যস্ত থাকেন। এ অবস্থায় ২জন মেডিকেল অফিসার দিয়ে ৫০ শয্যায় হাসপাতালের বহি:বিভাগ, আন্ত:বিভাগ ও জরুরী বিভাগ চালানো মোটেই সম্ভব নয়। এ অবস্থায় অনেক রোগী চিকিসা সেবা না পেয়ে আমতলী হাসপাতালে এসে পেরৎ যাচ্ছে। সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে  রাব্বি বৃহস্পতিবার দুপুরে এসেছিলেন আমতলী হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে। কিন্ত চিকিৎসক সংকটের কারনে চিকিৎসা সেবা না পেয়ে চলে যান পটুয়াখালী জেলারেল হাসপাতালে। বৃস্পতিবার সকালে আমতলী হাসপাতা সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, আগের মত হাসপাতালে এখন আর তেমন রোগী নেই। বহি:বিভাগের অধিকাংশ চিকিৎসকের রুম তালাবদ্ধ। রোগীরা এসে ঘুরে ফিরে আবার চলে যাচ্ছে। এসময় কথা হয় হলদিয়া থেকে আসা রুশিয়া নামের ষাটোর্ধ এক রোগীর সাথে তিনি জানালেন, শরীর খাউজায় (চুলকায়) এইর লইগ্যা আইছিলাম ডাক্তার দেহাইতে। হুনলাম এহানে কোন ডাক্তার নাই। মোরা গরীব মানুষ মোগো হগল জায়গায় মরন দশা। টাহা নাই এহন কই যামু ডাক্তার দেহাইতে। 

এদিকে কুকুয়ার আজিমপুর বাজারে ১০ শয্যার হাসপাতাল, গাজীপুর ও গুলিশাখালী উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রে কোন চিকিৎসক না থাকায় মাষাধিকাল ধরে চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। 

অন্যদিকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরিসংখ্যানবিদ, ক্যাশিয়ার, মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট, কার্ডিও গ্রাফার, ষ্টোর কিপার, উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার, কম্পাউন্ডারসহ দ্বিতীয় শ্রেণির ৯০টি পদের মধ্যে ৬০টি পদ  এবং তৃতীয় শ্রেণির ওয়ার্ডবয়, আয়া, মালী, বাবুর্চি নিরাপত্তা প্রহরী এবং পরিচ্ছন্নতাকার্মীসহ ৩৩ পদের  মধ্যে ১৯টি পদ প্রায় ৩বছর ধরে খালি রয়েছে। ধীর্ঘদিন ধরে এসকল পদ খালি থাকায় হাসপাতালের পরিচ্ছন্নতা এবং  নিরাত্তায় মারাত্মতক ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। অন্যান্য পদের কর্মচারী না থাকায় হাসপাতালের প্রশাসনিক কাজেও মারাত্মক বিঘœ ঘটছে।

আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: চিন্ময় হাওলাদার জানান, চিকিৎসক সংকটের কথা জানিয়ে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট চাহিদাপত্র দেওয়া হয়েছে এবং জরুরী ভিত্তিতে চিকিৎসক চাওয়া হয়েছে। চিকিৎসক পাওয়া গেলে আশা করি এ সংকট থাকবে না। 

বরগুনার সিভিল সার্জন ডা. প্রদীপ চন্দ্র মন্ডল বলেন, আমতলী হাসপাতালে চিকিৎসক সংকটের কথা স্বাস্থ্য মহাপরিচালককে  জানানো হয়েছে এবং জরুরী ভিত্তিতে চিকিৎসক চাওয়া হয়েছে।  তিনি আরো বলেন, দুরের চিকিৎসকদের এ অঞ্চলে পদায়ন করা হলে তারা এখানে এসে থাকতে চায় না তাই নিজ উপজেলার চিকিৎসকদের পদায়ন করলে এ অবস্থার পরিবর্তন হতে পারে।


আরও খবর

আমতলীতে ৩দিন ব্যাপী কৃষি মেলা শুরু

বৃহস্পতিবার ১১ জুলাই ২০২৪