Logo
আজঃ শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪
শিরোনাম

খালেদা জিয়াকে দুর্নীতি মামলায় শেষবারের মতো সময় দিলেন আদালত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ ডিসেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ২৫৭জন দেখেছেন

Image

আদালত প্রতিবেদক; বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে নাইকো দুর্নীতির মামলায় অব্যাহতির আবেদনের শুনানির জন্য শেষবারের মতো সময় দিয়েছেন আদালত।

আজ মঙ্গলবার খালেদা জিয়ার আইনজীবী সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী অসুস্থ থাকায় শুনানি পেছানোর জন্য সময় আবেদন করা হয়। শুনানি শেষে ঢাকার ৯ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক শেখ হাফিজুর রহমান শেষবারের মত আগামী ১৭ জানুয়ারি পরবর্তী দিন ঠিক করেন। এ ছাড়া ওই দিনে শুনানি না করলে আদালত চার্জশুনানি সমাপ্ত ঘোষণা করে চার্জগঠনের বিষয়ে আদেশ দেবেন বলে জানিয়েছেন।

কেরানীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগারের ২ নম্বর ভবনে স্থাপিত আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে এ শুনানির কথা ছিল। এ সময় আইনজীবী জয়নুল আবেদীন মেজবাহ সময় আবেদন করেন।

উল্লেখ্য, ২০০৭ সালের ৯ ডিসেম্বর তেজগাঁও থানায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। মামলা তদন্তের পর ২০০৮ সালের ৫ মে খালেদা জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করা হয়।

মামলার অন্য আসামিদের মধ্যে রয়েছেন- তৎকালীন মুখ্য সচিব কামাল উদ্দীন সিদ্দিকী, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব খন্দকার শহীদুল ইসলাম, সাবেক সিনিয়র সহকারী সচিব সিএম ইউসুফ হোসাইন, বাপেক্সের সাবেক মহাব্যবস্থাপক মীর ময়নুল হক, বাপেক্সের সাবেক সচিব মো. শফিউর রহমান, ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুন, বাগেরহাটের সাবেক সংসদ সদস্য এমএএইচ সেলিম, নাইকোর দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট কাশেম শরীফ। এ মামলার অপর দুই আসামি মওদুদ আহমদ ও এ কে এম মোশাররফ হোসেন মারা গেছেন।


আরও খবর



ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জব্দ কংগ্রেসের

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৮৫জন দেখেছেন

Image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:কংগ্রেসের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জব্দের দাবি করা হয়েছে ভারতের প্রধান বিরোধী ও পুরোনো দল। দলটির দাবি, আয়কর দপ্তর (আইটি) তাদের অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ করে দিয়েছে। ভারতের লোকসভা নির্বাচনের কয়েক মাস আগে এমনটি হলো। খবর বিবিসির।

জব্দ করার খবর জানানোর পরে ফের কংগ্রেস থেকে বলা হয়, আদালতের শুনানি পর্যন্ত আয়কর কর্মকর্তারা তাদের অ্যাকাউন্টের তহবিল ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে।

রাজনৈতিক দলের অ্যাকাউন্টের লেনদেন বন্ধের বিষয়টিকে গণতন্ত্রের ওপর আক্রমণ বলে আখ্যা দিয়েছেন কংগ্রেসনেতা মল্লিকার্জুন খাগড়ে। এ বিষয়ে মন্তব্য চাইলেও কোনো বক্তব্য দিতে রাজি হয়নি সরকার ও আয়কর দপ্তর।

শুক্রবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) সকালে কংগ্রেসনেতা অজয় মাকেন বলেন, দলের চেকের বিপরীতে অর্থ দেওয়া হচ্ছে না এমনটি দুদিন আগে ঊর্ধ্বতনদের জানানো হয়। তদন্তের জন্য দলটির সমস্ত অ্যাকাউন্টের লেনদেন স্থগিত করা হয়েছে বলে তাদের জানানো হয়েছে।

অজয় মাকেন বলেন, দলের অ্যাকাউন্টগুলোতে যে অর্থ রয়েছে তা আসে জনসাধারণের অনুদানের মাধ্যমে। এ ছাড়া ইয়ুথ উয়ংয়ের অ্যাকাউন্টে অর্থ আসে সদস্যদের কাছ থেকে। কংগ্রেসের ইয়ুথ উয়ংয়ের অ্যাকাউন্টও ফ্রিজ করে দেওয়া হয়েছে বলেও জানান এই কংগ্রেসনেতা।

আয়কর দপ্তরের এই কাজে তাদের দলের সমস্ত রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড প্রভাবিত হবে দাবি করে অজয় মাকেন বলেন, ‘আমাদের কাছে খরচের মতো কোনো অর্থ নেই। এমনকি, বিদ্যুৎ বিল ও কার্যালয়ের কর্মীদের বেমন দেওয়ার মতো অর্থও নেই।’ কি কারণে এমনটি করা হয়েছে তা জানিয়ে এই কংগ্রেস নেতা বলেন, ২০১৮-১৯ সালের কর রিটার্ন জমা দেওয়ায় ৪৫ দিন দেরি হওয়ায় এমনটি করেছে তারা। আয়কর দপ্তর কংগ্রেসকে ২১০ কোটি রুপি দিতে নির্দেশ দিয়েছে।

কংগ্রেসনেতা ভিভেক তানখা বলেন, এ নিয়ে তারা আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন। অন্তর্র্বতীকালীন সময়ে অ্যাকাউন্টগুলোর অর্থ ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে আয়কর দপ্তর। আগামী বুধবার এ নিয়ে আদালতে শুনানি হবে।

সমালোচকদের দাবি, বিরোধীদের দমনে সরকারি দপ্তরগুলোকে ব্যবহার করছে নরেন্দ্র মোদির বিজেপি সরকার। নির্বাচনের আগে এই তৎপরতা বেড়েছে। তবে, এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছে বিজেপি ও মোদি।


আরও খবর

সোনার খনি ধসে ভেনেজুয়েলায় নিহত ২৩

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




মিরসরাইয়ে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে মাহবুব উর রহমান এমপি

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮৯জন দেখেছেন

Image

মিরসরাই প্রতিনিধি:সংসদ অধিবেশনে যোগ দেয়ার আগে সংবর্ধিত হলেন চট্টগ্রাম-১ মিরসরাই আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য মাহবুব উর রহমান রুহেল এমপি। শনিবার (২৭ জানুয়ারি) বিকাল সাড়ে ৪টায় অনুষ্ঠিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন।

সংবর্ধিত অতিথি মাহবুব উর রহমান রুহেল তাঁর বক্তব্যে বলেন, আমি নির্বাচনকালীন ১৮ দিনে ১৭০টি উঠান বৈঠকে যোগ দিয়েছি, সেখানে আমি শুধুমাত্র বক্তব্য দেইনি। আমি সেখানে সাধারণ মানুষের কথা শুনেছি। তাদের চোখে চোখ রেখে বোঝার চেষ্টা করেছি তাদের আবেদন। সামনে এলাকায় আসলে আমি ওই সকল সাধারণ মানুষের সাথে একা একা গিয়ে কথা বলবো এবং তাদের মনের কথা শুনবো। সাথে কোন নেতা-কর্মী নিয়ে যাবো না। নেতা-কর্মী নিয়ে গেলে তাদের সামনে সাধারণ মানুষ আমার সাথে মন খুলে কথা বলতে পারবেনা।আমি ভোটের মাঠে ভোট পাওয়ার জন্য কোন মিথ্যা আশ্বাস দিইনি।আমি যা করতে পারবো, আমি যা চিন্তা করি শুধু সেটুকু বলেছি। আশা করছি আপনাদের সাপোর্ট থাকলে আগামী ৫ বছরে আমার উন্নয়ন পরিকল্পনাগুলো সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করতে পারবো।

নিজের বাবার দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনের উদ্বৃতি টেনে রুহেল বলেন,আপনাদের প্রিয় নেতা আমার বাবা ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এখনো বটের ছায়ার মতো আমাদের আগলে রেখেছেন। এখনো তিনি মিরসরাইয়ের মানুষের জন্য ভাবেন। এটা আমাদের পরম সৌভাগ্য। মিরসরাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক একেএম জাহাঙ্গীর ভূঁইয়ার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সংবর্ধিত অতিথির বক্তব্যে রুহেল গত ৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিজের জয়লাভের জন্য দলের নেতাকর্মী ও মিরসরাইয়ের সাধারণ ভোটারদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

ওইদিন অনুষ্ঠানের শুরুতে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ দলটির বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা নবাগত সংসদ সদস্য ও সংবর্ধিত অতিথি মাহবুব উর রহমান রুহেলকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। এরপর একে একে বক্তব্য রাখেন, চট্টগ্রাম উত্তরজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ আতাউর রহমান, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি এরাদুল হক নিজামী ভূট্টু, চট্টগ্রাম উত্তরজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তানভীর হোসেন চৌধুরী তপুসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা। এসময় উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের সদস্য প্রদীপ রঞ্জন চক্রবর্তী, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ফেরদৌস হোসেন আরিফ, জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক এনায়েত হোসেন নয়ন, জোরারগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রেজাউল করিম মাষ্টার, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক এসএম আবুল হোসেন, এম সাইফুল্লাহ দিদার, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক কামরুল হোসেন, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মাইনুর ইসলাম রানা, সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম খলিল ভূঁইয়া, উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মাসুদ করিম রানা, মিরসরাই উপজেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি বিবি কুলছুমা চম্পাসহ নেতৃবৃন্দ।


আরও খবর



মামুনুল হকের জামিন বহাল দুই মামলায়

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:হেফাজতে ইসলামের সাবেক কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হকের জামিন বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ,নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও থানায় আওয়ামী লীগের অফিস ভাংচুরের অভিযোগে দায়ের করা দুই মামলায় ।

সোমবার (৫ জানুয়ার) প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে ৬ বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আজ আদালতে মামুনুল হকের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন। সঙ্গে ছিলেন অ্যাডভোকেট এ আর রায়হান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল সাইফুল আলম।

এর আগে, গত বছরের ১৬ অক্টোবর নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও থানায় দায়ের করা দুই মামলায় হেফাজতে ইসলামের সাবেক কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হককে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন স্ট্যান্ডওভার রাখেন আপিল বিভাগ। প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ এ আদেশ দেন।

গত বছরের ১০ জুলাই নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও থানায় দায়ের করা দুই মামলায় হেফাজতে ইসলামের সাবেক কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হককে হাইকোর্টের দেওয়া জামিনের বিরুদ্ধে আবেদনের শুনানি তিন মাসের জন্য স্ট্যান্ডওভার (মুলতবি) করেন আপিল বিভাগ।

প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন। এছাড়া গত বছরের ৯ মে বিচারপতি মো. হাবিবুল গনি ও বিচারপতি আহমেদ সোহেলের হাইকোর্ট বেঞ্চ দুই মামলায় মামুনুল হককে জামিন দেন। এরপর রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের প্রেক্ষিতে বছরের ১০ মে এই দুই মামলায় জামিন স্থগিত করেন আপিল বিভাগের চেম্বার আদালত।

২০২১ সালের ৩০ এপ্রিল বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে হেফাজতে ইসলামের আলোচিত নেতা মাওলানা মামুনুল হকের বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন তার দাবি করা দ্বিতীয় স্ত্রী জান্নাত আরা ঝর্ণা। ২০২১ সালের ৩ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ থানাধীন রয়েল রিসোর্টে জান্নাত আরা ঝর্ণাসহ মামুনুল হককে আটক করে স্থানীয়রা। পরে খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে উপস্থিত হলে ঝর্ণাকে নিজের দ্বিতীয় স্ত্রী হিসেবে দাবি করেন মামুনুল।


আরও খবর



রাজধানী ঢাকার বাতাসে ভয়াবহ স্বাস্থ্যঝুঁকি

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১০৬জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:দিন দিন বেড়েই চলছে বায়ুদূষণের মাত্রা। অন্যান্য দেশের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মেগাসিটি রাজধানী ঢাকার বায়ুদূষণও।

সোমবার (৫ ফেব্রুয়ারি) সকালে শহরটির বাতাস গুরুতর স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরির পর্যায়ে রয়েছে।

এদিন সকাল ৮টার দিকে আন্তর্জাতিক বায়ুমান প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান আইকিউএয়ারের মানদণ্ড অনুযায়ী, ৪৮৯ স্কোর নিয়ে দূষিত শহরের তালিকায় শীর্ষে রয়েছে রাজধানী ঢাকা, যা জনস্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ হিসেবে বিবেচিত। তালিকায় ৩৩০ স্কোর নিয়ে বিশ্বের দূষিত শহরের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে ঘানার আক্রা শহর।

এছাড়া ১৭৬ স্কোর নিয়ে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে ভারতের মুম্বাই শহর। আর চতুর্থ স্থানে থাকা চীনের বেইজিং শহরের স্কোর ১৭৩ এবং পঞ্চম স্থানে থাকা নেপালের কাঠমান্ডু শহরের স্কোর ১৭২।

একিউআই স্কোর শূন্য থেকে ৫০ ভালো হিসেবে বিবেচিত হয়। ৫১ থেকে ১০০ মাঝারি হিসেবে গণ্য করা হয়; আর সংবেদনশীল গোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর বিবেচিত হয় ১০১ থেকে ১৫০ স্কোর। স্কোর ১৫১ থেকে ২০০ হলে তাকে অস্বাস্থ্যকর বায়ু বলে মনে করা হয়।

২০১ থেকে ৩০০-এর মধ্যে থাকা একিউআই স্কোরকে খুব অস্বাস্থ্যকর বলা হয়। ৩০১ থেকে ৪০০-এর মধ্যে থাকা একিউআই ঝুঁকিপূর্ণ বলে বিবেচিত হয়, যা নগরের বাসিন্দাদের জন্য গুরুতর স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি করে।


আরও খবর



নওগাঁ-২ আসনে নৌকার শহীদুজ্জামান সরকার জয়ী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১০৮জন দেখেছেন

Image
পত্নীতলা (নওগাঁ) প্রতিনিধি:দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ৪৭, নওগাঁ-২ (পত্নীতলা-ধামইরহাট) আসনের বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী শহীদুজ্জামান সরকার (নৌকা প্রতীক) বেসরকারি ভাবে জয়ী হয়েছেন তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী এইচ এম আখতারুল আলম (ট্রাক প্রতীক)।

সোমবার ভোট গণনা শেষে বেসরকারি ঘোষিত ফলাফল থেকে জানা যায়, এতে ৪৭, নওগাঁ-২ (পত্নীতলা-ধামইরহাট) আসনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী শহীদুজ্জামান সরকার নৌকা প্রতীক নিয়ে জয়ী হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ১ লক্ষ ১৮ হাজার ৯৪০ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী এইচ এম আখতারুল আলম ট্রাক প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৭৪ হাজার ৩৬৩ ভোট এবং গড়ে প্রায় ৫৭ শতাংশ ভোট পড়েছে বলে রিটার্নিং র্কমর্কতা জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য পত্নীতলা ও ধামইরহাট উপজেলা নিয়ে গঠিত নওগাঁ-২ আসনের পত্নীতলা উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৯৯ হাজার ১১৭ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ৯৯ হাজার ২৭১ এবং নারী ভোটার ৯৯ হাজার ৮৪৬ জন এবং ধামইরহাট উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৫৭ হাজার ১৫ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ৭৮ হাজার ৩ শত ১ জন, মহিলা ৭৮ হাজার ৭ শত ১৪ জন। মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লক্ষ ৫৬ হাজার ১৩২ জন। মোট ভোটকেন্দ্র ছিলো ১২৪টি এবং এ আসনে নির্বাচনে ৪জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন।

এর আগে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা আমিনুল হক মারা গেলে নওগাঁ-২ আসনের ভোট স্থগিত হয়। গত ৮ জানুয়ারি পুনরায় এ আসনের তফসিল ঘোষণার পর আজ ১২ই ফেব্রুয়ারি সোমবার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

আরও খবর