Logo
আজঃ বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম
নিলয় কোটা আন্দোলনকারীদের পক্ষ নিয়ে কী বললেন স্থগিত ১৮ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা তিতাসের অভিযানে নারায়ণগঞ্জের ২ শিল্প কারখানার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন হিলি দিয়ে কাঁচা মরিচ আমদানি বাড়ায় বন্দরের পাইকারী বাজারে কেজিতে দাম কমেছে ৩০ টাকা জয়পুরহাটে ডাকাতির পর প্রতুল হত্যা মামলায় ৬ জনের যাবজ্জীবন রিয়েলমি সার্ভিস ডে: ফোন রিপেয়ারে খরচ বাঁচান ৬০% পর্যন্ত, উপভোগ করুন ফ্রি সার্ভিস সুনামগঞ্জে ইয়াবাসহ ২জন গ্রেফতার: কোটিপতি সোর্স ও গডফাদার অধরা কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ৩ দিনে ৩ খুন, আইনশৃংখলার অবনতি জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

খাগড়াছড়িতে 'সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ নিরসনে সচেতনতা' শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:বুধবার ১০ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৭৫জন দেখেছেন

Image

জসীম উদ্দিন জয়নাল,পার্বত্যাঞ্চল প্রতিনিধি:খাগড়াছড়িতে জেলা ইসলামিক ফাউন্ডেশনের আয়োজনে সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ নিরসনে সচেতনতা শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।মঙ্গলবার (০৯জুলাই) সকাল ১১টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ নিরসনে সচেতনতা শীর্ষক আলোচনা সভায় খাগড়াছড়ি  অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক মোঃ সহিদুজ্জামান, প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন। 


বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন  খাগড়াছড়ি জেলার পুলিশ সুপার  মুক্তা ধর পিপিএম (বার)।

বিশেষ অতিথি,র বক্তব্যে খাগড়াছড়ি  পুলিশ সুপার মুক্তা ধর পিপিএম (বার) বলেন, প্রধানমন্ত্রীর স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের ক্ষেত্রে যেভাবে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে সেটা অর্থনৈতিক ও কৃষি হোক অথবা অন্যান্য যে কোন সেক্টরের হোক আমাদের সুনাগরিক হিসেবে সে দায়িত্ব পালন করতে হবে। যার যার অবস্থান থেকে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও অন্যান্য নেতিবাচক যে সমস্ত কর্মকাণ্ড আছে প্রতিহত করার জন্য আমাদের রুখে দাঁড়াতে হবে। আইন-শৃঙ্খলার একজন সদস্য হিসেবে বলতে পারি যে আমি ব্যক্তিগতভাবে কাজ করলে হবে না আমরা সবাই মিলে কিন্তু এই দেশকে সোনার বাংলা ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলবো।তিনি আরো বলেন, আমি একটি বার্তা সবার কাছে পৌঁছে দিতে চাই আমরা যে সম্প্রীতির মধ্যে খাগড়াছড়ি জেলার সবাই একত্রে বসবাস করছি সে সম্প্রীতির মিলবন্ধন বজায় থাকবে।

জেলা ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ খলিলুর রহমানের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো.  দিদারুল আলম দিদার, সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) নাঈমা ইসলাম, জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি চৌধুরী আতাউর রহমান প্রমুখ।

আলোচনায় সভায় জেলার বিভিন্ন মসজিদ, মাদ্রাসা এবং এতিমখানা'র ইমাম ও মুয়াজ্জিনরা অংশ নেন।

-খবর প্রতিদিন/ সি.

আরও খবর



স্থগিত ১৮ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৪২জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:চলমান এইচএসসি ও সমমানের আগামী ১৮ জুলাইয়ের (বৃহস্পতিবার) পরীক্ষা স্থগিত করেছে বাংলাদেশ আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটি। তবে আগামী ২১ জুলাই থেকে পূর্বঘোষিত সময়সূচি অনুযায়ী পরীক্ষা যথারীতি চলবে।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) রাতে আন্তঃশিক্ষাবোর্ড সমন্বয় কমিটির এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এদিকে, সারাদেশে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শ্রেণি কার্যক্রম অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে একটি বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

এতে বলা হয়, অনিবার্য কারণবশত আগামী ১৮ জুলাই (বৃহস্পতিবার) অনুষ্ঠেয় সব শিক্ষাবোর্ডের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা স্থগিত করা হলো। স্থগিত হওয়া পরীক্ষার পরবর্তিত সময়সূচি পরবর্তীতে জানিয়ে দেয়া হবে। ২১ জুলাই থেকে পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী পরীক্ষা যথারীতি চলবে।


আরও খবর

দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা

মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪




নির্বাচনি সমাবেশে ট্রাম্পের ওপর গুলি, স্নাইপারসহ নিহত ২

প্রকাশিত:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ৮১জন দেখেছেন

Image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ও রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প পেনসিলভানিয়ায় নির্বাচনি সমাবেশ করতে গিয়ে প্রাণঘাতী হামলার শিকার হয়েছেন। সমাবেশে বক্তৃতা দেওয়ার সময় দূরবর্তী একটি ভবনের ছাদ থেকে তার ওপর স্নাইপার হামলা হয়েছে বলে জানা গেছে।

সৌভাগ্যক্রমে হামলায় অল্পের জন্য বেঁচে গেছেন ট্রাম্প। তবে, প্রাণ হারিয়েছেন সমাবেশে উপস্থিত এক সাধারণ নাগরিক। আর মঞ্চ থেকে নামিয়ে নেওয়ার সময় ট্রাম্পের ডান গাল ও কান থেকে রক্ত পড়তে দেখা গেছে। এদিকে ঘটনার কিছুক্ষণ বাদেই হামলাকারী স্নাইপারও নিহত হয়েছেন সিক্রেট সার্ভিস অ্যাসল্ট টিমের হাতে।

যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় শনিবার (১৩ জুলাই) সন্ধ্যায় চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি ঘটে। সিএনএন, নিউইয়র্ক পোস্ট, বিবিসি, রয়টার্সসহ বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম থেকে রোববার (১৪ জুলাই) নিশ্চিত হওয়া গেছে ঘটনার ব্যাপারে। পাওয়া গেছে ঘটনার বিভিন্ন ফুটেজও।

সিক্রেট সার্ভিস টিম জানিয়েছে, ট্রাম্প নিরাপদ আছেন। প্রচারণার একজন মুখপাত্রও বলেছেন, সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্টকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে, তিনি সুস্থ আছেন।

নিউইয়র্ক পোস্টের প্রতিবেদন অনুযায়ী, পিটসবার্গ থেকে প্রায় ৩৫ মাইল উত্তরে বাটলারে আয়োজিত ট্রাম্পের নির্বাচনী সমাবেশে অন্তত ৯টি গুলির শব্দ শোনা গেছে। গুলির শব্দ শোনার সঙ্গে সঙ্গেই সিক্রেট সার্ভিস এজেন্টরা তাকে ঘিরে রেখে দ্রুত মঞ্চ থেকে নামিয়ে নেন। তবে সমাবেশে দর্শকের ভিড়ে থাকা এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। এছাড়া হামলাকারীকেও গুলি করে হত্যা করেছেন নিরাপত্তারক্ষীরা।

আইন প্রয়োগকারী সূত্র, প্রত্যক্ষদর্শী এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করা ভিডিও অনুসারে, প্রাথমিক প্রতিবেদনগুলি থেকে জানা যায় যে সমাবেশের বাইরে একটি বিল্ডিংয়ের ছাদে একজন স্নাইপার ট্রাম্পকে টার্গেট করেছিলেন।

একজন ট্রাম্প সমর্থক বিবিসিকে জানিয়েছেন, সমাবেশের নিরাপত্তা ঘেরের বাইরে একটি ভবনের ছাদে রাইফেল সজ্জিত একজন স্নাইপারকে দেখেছেন তিনি। লোকটিকে গুলি চালাতে দেখেছিলেন আরও কয়েকজন ব্যক্তি। সমাবেশের বাইরে একটি ভবনে পার্টি করছিলেন তারা। পরবর্তীতে ঘটনাস্থল থেকে পাওয়া এক ভিডিও ফুটেজেও দেখা গেছে, বন্দুকধারী একটি গুদামের ছাদে মৃত অবস্থায় পড়ে আছেন।

ঘটনার পর সিক্রেট সার্ভিসের একজন মুখপাত্র এক এক্স পোস্টে বলেন, ‘সিক্রেট সার্ভিস প্রতিরক্ষামূলক ব্যবস্থা বাস্তবায়ন করেছে এবং সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এখন নিরাপদে আছেন। সিক্রেট সার্ভিস এ ঘটনার তদন্ত করবে এবং আরও তথ্য পাওয়া গেলে প্রকাশ করা হবে।

এদিকে ডোনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়র এক্সে তার বাবার আহত মুষ্টিবদ্ধ একটি ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, ‘আমেরিকাকে রক্ষার লড়াইয়ে তিনি কখনো থামবেন না।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর



জয়পুরহাটে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দ্বিতীয় দিনেও কর্মবিরতি পালন করছে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ জুলাই 2০২4 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ৯১জন দেখেছেন

Image

এস এম শফিকুল ইসলাম,জয়পুরহাট প্রতিনিধিঃবাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (বিআরইবি) ও পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির (পবিস) মধ্যকার বৈষম্য দূরীকরণসহ অভিন্ন চাকরি স্থায়ী করণের দাবিতে অনির্দিষ্ট কালের কর্মবিরতির দ্বিতীয় দিনেও জয়পুরহাট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তা- কর্মচারীরা পালন করছে।

সোমবার (১লা জুলাই) থেকে শুরু হওয়া আজ  মঙ্গলবার (২জুলাই) ও জয়পুরহাট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির  কার্যালয়ের সামনে কর্মসূচিতে ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার, সহকারী জেনারেল ম্যানেজার, জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার, হিসাব রক্ষক, লাইনম্যান, মিটার রিডারসহ কর্মকর্তা কর্মচারীরা অংশ নেয়। কর্মসুচী চলাকালে দাপ্তরিক কার্যক্রম বন্ধ আছে।

কর্মবিরতী চলাকালে বক্তারা বলেন,পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের দুই রকম নীতির কারণে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা হতে বঞ্চিত হচ্ছে দেশের ৮০টি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তা- কর্মচারী। দেশের প্রত্যৗল্প এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহের কাজে নিয়োজিত কর্মীরা একই প্রতিষ্ঠানে চাকরি করলেও পদ-পদবি, বেতন-ভাতা, বোনাসসহ পদোন্নতির ক্ষেত্রে বৈষম্যের শিকার, শোষণ,  নির্যাতণ, নিপীড়ন অব্যাহত রাখা, গুণগত মানহীন মালামাল ক্রয় করে গ্রাহক ভোগান্তি করে আসছে। সমিতির কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বিভিন্ন সময় গণ স্বাক্ষও সংগ্রহ, বোর্ডের চেয়ারম্যানের কাছে স্মারকলিপি প্রদানসহ নিয়মতান্ত্রিক ভাবেই তাদের দাবি দাওয়া বাস্তবায়নে চেষ্টা করে আসছে। কিন্তু সমিতির নিয়ন্ত্রকের

ভূমিকায় থাকা পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (বিআরইবি) তাদের দাবি না মেনে বরং উল্টো প্রক্রিয়ার সাথে যুক্ত ভোলা পবিসের ২ জন এজিএমকে সাময়িক বরখাস্ত ২ জন এজিএমকে স্ট্যান্ড রিলিজ করে অন্য পিবিএসে বদলী এবং সিরাজগঞ্জ পবিস-২ এর ১ জন ডিজিএম এবং ১ জন এজিএমকে বোর্ডে সংযুক্ত করে। এতে ৮০টি পবিসের কর্মকর্তা ও কর্মচারী ক্ষুব্ধ হয়। তবে  আন্দোলনে থাকাকালীন জরুরি বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে প্রতিটি উপকেন্দ্রে একজন করে জনবল কাজ করছে বলে জানান আন্দোলনকারীরা। সেই সাথে  সকল ধরনের গ্রাহক সেবা চালু থাকবে।

সংশ্লিষ্টরা জানায় পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি দেশের প্রায় ১২ কোটি মানুষকে সার্বক্ষণিক নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সেবা দিয়ে যাচ্ছে।  বিআরইবি দ্বারা নিয়মতান্ত্রিত এসব সমিতির কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা প্রতিনিয়ত নানান বৈষম্যেও শিকার হচ্ছেন।

পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির লাইন টেকনিশিয়ানরা বলেন, লাইনম্যান গ্রেড-১ ও লাইন টেকনিশিয়ান পদে দীর্ঘ অনেকে ১৫ থেকে ১৭ বছর পর্যন্ত একই পদে কর্মরত থাকার পরও পদোন্নতি হয়না। পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিতে ওই পদ ফাঁকা থাকা সত্বেও পদোন্নতি না পাওয়াতে আন্দোলনে নামতে বাধ্য হয়েছি। তাদের দাবী গুলো না মেনে নেওয়া পর্যন্ত কর্মবিরতি চলবে।


আরও খবর



সৈয়দপুরে সামান্য বৃষ্টিতেই জলাবদ্ধতা,দুর্ভোগ

প্রকাশিত:রবিবার ২৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ৮৬জন দেখেছেন

Image

জহুরুল ইসলাম খোকন সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি:সৈয়দপুর শহরে বর্ষা মানেই জলাবদ্ধতা। আষাঢ় মাসের গোড়ার দিকে এক দফা জলাবদ্ধতার শিকার হয়েছেন শহরবাসী। গত ১৫ জুন ২ ঘণ্টার বৃষ্টিপাতে শহরের মুন্সীপাড়া, নতুনবাবুপাড়া, পুরাতন বাবুপাড়া, বাঁশবাড়ী, মিস্ত্রিপাড়া, বাংগালিপুর নীজপাড়াসহ নিচু এলাকার মানুষ জলাবদ্ধতার কবলে পড়েছেন। এসব এলাকার প্রায় ৮০ ভাগ মানুষের ঘরবাড়ি ছিল ৩ ফুট পানির নিচে। প্রতিবছরই সামন্য বৃষ্টিপাতেই শহরজুড়ে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে।

শহরবাসীর অভিযোগ, সৈয়দপুর পৌরসভার মেয়র পৌরবাসীর সমস্যা সমাধানের জন্য কোন উদ্যোগই নেন না। কাউন্সিল ও পৌর মেয়রের পক্ষ থেকে বান ভাসিরা কোনো সহযোগিতাও পান না বলে অভিযোগ দীর্ঘদিনের

সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগে আছেন ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের শহীদ নূর মোহাম্মদ স্ট্রিটের উভয় পাশের মানুষ, মুন্সীপাড়া, বাঁশবাড়ির সাদরা লেন এলাকাসহ ৮ নম্বর ওয়ার্ডের শত শত পরিবার। এছাড়া শহরের শহীদ ডাক্তার জিকরুল হক সড়কে জলাবদ্ধতার কারনে ব্যবসায়িরা বিপাকে পড়ে যান। মাত্র ১ ঘণ্টার বৃষ্টিতে তলিয়ে যায় পুরো এলাকা। বৃষ্টির পানি নালা-নর্দমা দিয়ে বেরিয়ে যাওয়ার আউটলেট সুবিধা না থাকায় সামান্য বৃষ্টিতে ড্রেনের পানি উপচে ঢুকে যায় ব্যবসায়ির ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ও শহর ও গ্রামে বসবাস কারী মানুষের ঘরে ঘরে।

শহরের বাংগালীপুর নিজ পাড়ার (৮ নম্বর ওয়ার্ডের) কৃষি অধিদপ্তরের সাবেক কর্মকর্তা আলতাব হোসেন ও পান দোকানদার মনসুর আলী বলেন, পুরো বর্ষাকাল এখানকার হাজারো পরিবারকে জলাবদ্ধতার কারণে পানিবন্দি হয়ে থাকতে হয়। জলাবদ্ধতা যেন আমাদের বিধিলিপিতে পরিণত হয়েছে। বর্তমান মেয়র ও কাউন্সিলের কাছে আমরা একটি মাস্টার ড্রেনের জন্য বহুবার ধরনা দিয়েছি।প্রতিবারই তিনি সমস্যা সমাধানে শুধু আশ্বাসই দিয়েছেন কিন্তু কোনো পদক্ষেপ নেননি। যার কারণে সামান্য বৃষ্টিতেই ড্রেনের পানি উপচে তলিয়ে যাচ্ছে রাস্তাঘাট ও ঘরবাড়ি।

একই অবস্থা বিরাজ করছে ১ নম্বর রেলগেট থেকে হাতিখানা কবরস্থান যাওয়ার রাস্তাটি। ওই এলাকার ফল ব্যবসায়ী ও বাসিন্দারা ওই রাস্তাটি একাধিকবার উঁচু করার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। ফল ব্যবসায়ী বাদশা বলেন, আমাদের সমস্যার কথা পৌর কর্তৃপক্ষকে বলে-বলে বিরক্ত হয়ে গেছি। তাই নিজেরাই সমস্যা সমাধানের জন্য মাটি দিয়ে উচু করার চেষ্টা করেছি। তিনি বলেন, নির্বাচনের সময় মেয়র  ফল মার্কের সড়ক সহ সৈয়দপুর শহরকে মডেল শহরে রুপান্তরিত করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, কিন্তু মেয়র নির্বাচিত হয়ে তিনি প্রায় ৪ বছর ক্ষমতায় আছেন, এই ৪ বছরে তিনি শুধু নিজের কথা ভেবেছেন, শহর উন্নয়নে তার কোন মাথা ব্যথাই লক্ষ্য করা যায় নি। অথচ প্রতিবছরই শহর উন্নয়নে ১০০ কোটি টাকারও বেশি বাজেট ঘোষণা করা  হয়েছে সৈয়দপুর পৌরসভায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন পৌর কাউন্সিলর বলেন, সৈয়দপুর পৌর শহরের দুষিত পনি নিস্কাশনের নালাগুলোতে পলিথিনসহ নানা কিছু আটকে থাকে। পরিস্কারও করা হয় না মাসের পর মাস, ফলে পানি তাৎক্ষণিক নামে না। এ ছাড়া পৌর এলাকার রেলওয়ে আবাসিক ও বাণিজ্যিক এলাকার নালা-নর্দমা দখল করে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করায় সেগুলো নিয়মিত পরিষ্কার করতে ব্যর্থ হয় পৌরকর্তৃপক্ষ। যার ফলে মাত্র ১ ঘন্টা বৃষ্টিতেই সৈয়দপুর শহর তলিয়ে যায় ২/৩ ফুট পানির নিচে।

পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী সহিদুল ইসলাম বলেন, জলাবদ্ধতা নিরসনে আমাদের নিজস্ব টিম আছে, কিন্তু মাস্টার ড্রেন নির্মাণ বা সংস্কার করতে বাজেট ঘাটতি থাকায় ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও অনেক কিছুই সম্ভব হয়নি।

সৈয়দপুর পৌর আওয়ামী লীগ নেতা রফিকুল ইসলাম বলেন, পৌর মেয়র দায়িত্বে আছেন প্রায় ৪ বছর। এই ৪ বছরে সময় তিনি সৈয়দপুরের উন্নয়নে কোন কাজই করেননি। তিনি যদি শহরের প্রধান ৩টি সড়কও সংস্কারও করতেন, তাহলে শহরবাসীর কাছে মাথা উঁচু করে কথা বলতে পারতেন।

পৌর মেয়রের সঙ্গে বারবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি প্রথম দিকে সাংবাদিকে সাথে কথা বলতে চাননি পরে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে জলাবদ্ধতা নিয়ে কোন কথাই বলবেন না বলে জানান।


আরও খবর



বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডাঃ সামন্ত লাল সেন

প্রকাশিত:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ৬৮জন দেখেছেন

Image

নাজমুল ইসলাম (মিলন)দিনাজপুর প্রতিনিধি:গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী অধ্যাপক ডা. সামন্ত লাল সেন দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার ৫০ শষ্যা বিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করেছেন।

মন্ত্রী ১৩ জুলাই শনিবার দুপুরে বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ উপস্থিত হয়ে দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ-কাহারোল) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব জাকারিয়া জাকা, বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ফজলে এলাহী, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মো: মহসিন আলী হাসপাতালের বিভিন্ন ইউনিট ঘুরে রোগী, চিকিৎসক-নার্স, কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ সার্বিক খোঁজ-খবর নেন। তিনি প্রায় ৪০ মিনিট যাবত হাসপাতলে অবস্থান নেন।

এসময় তার সফর সঙ্গী হিসেবে স্বাস্থ্য সচিব মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম, রংপুর বিভাগ (স্বাস্থ্য) পরিচালক ডাঃ এ.বি.এম আবু হানিফ, দিনাজপুর সিভিল সার্জন ডাঃ এ.এইচ.এম বোরহন-উল-ইসলাম সিদ্দিকী সঙ্গে ছিলেন।

মন্ত্রীর আগমনকে ঘিরে সমগ্র বীরগঞ্জে গত ৩ দিন ধরে চলছিল সাজ সাজ রব, ব্যপক উৎসাহ উদ্দিপনা, পুলিশ এবং উপজেলা প্রশাসন ছিল সজাগ, গ্রহন করেছিল কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা ছিল দৃষ্টান্ত।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে কার্ডিয়াক সেন্টার, ইমার্জেন্সি ওয়ার্ড, অ্যাডমিশন ওয়ার্ড, মাইক্রো বায়োলজি ল্যাব, বায়োকেমিস্ট্রি ল্যাব, প্যাথলজি ল্যাব ও নিরপদ ডেলিভারি ইউনিট পরিদর্শন করেন। সেখানে জরুরি বিভাগ, আইসিইউ, এইচডিইউ, সিসিইউ পরিদর্শন করেন, রোগী, রোগীর স্বজন এবং চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলেন। কাগজপত্র দেখেন, পরিদর্শন বহিতে স্বাক্ষর করেন, সব সময় পর্যাপ্ত বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের ডিউটিতে রাখার নির্দেশনা দেন।

এ সময় উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ মো: মহসিন আলী হাসপাতালটি ৫০ শয্যা থেকে ১০০ শয্যা উন্নীতকরণ, গাইনী সার্জন সহ হাসপাতালের ১০ টি প্রয়োজনীয় চাহিদার আবেদন করেন।

এর পুর্ব তিনি খানসামা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরিদর্শন করে বীরগঞ্জ উপজেলার ঝাড়বাড়িতে তার এক আত্মীয়ের বাড়িতে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন।

বীরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শনের সময় আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ আফরোজা সুলতানা লুনা, বীরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মজিবুর রহমান, ইউপি চেয়ারম্যান রাজিউর রহমান রাজু, মোঃ আতাহারুল ইসলাম চৌধুরী হেলাল, শাহিনুর রহমান চৌধুরী, জেলা পরিষদ সদস্য রোকনুজ্জামান বিপ্লব, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ নুরিয়াস সাঈদ সরকার, যুব লীগের সাধারণ সম্পাদক মোসাদ্দেক হোসেন সহ কর্মরত সকল ডাক্তার কর্মচারী ছাড়াও স্বাস্থ্য বিভাগের বিভাগীয়, জেলা এবং উপজেলার প্রসাশনিক অফিসারগন এবং স্থানীয় সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর