Logo
আজঃ বুধবার ১৯ জুন ২০২৪
শিরোনাম

কদমতলীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ জুন ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ২৫৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:রাজধানীর কদমতলীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে শফিকুল (৪০) নামের এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। এ দুর্ঘটনায় আহত হন সুজন নামে আরও একজন। আজ বুধবার সকালে এ দুর্ঘটনা ঘটে। শফিকুলের গ্রামের বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জের চাকলায়।

শফিকুলের সহকর্মী সাগর বলেন, সকালে শফিকুল সাদ্দাম মার্কেটের পাশের একটি পাঁচ তলা নির্মাণাধীন ভবনের তৃতীয় তলায় সাটারিং খুলছিলেন। তখন একটি রড ভবনের পাশে বৈদুতিক তারের সঙ্গে লেগে শফিকুল ও সুজন বিদুৎস্পৃষ্ট হন। পরে তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক বেলা ১২টার দিকে শফিকুলকে মৃত ঘোষণা করেন।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক মো. বাচ্চু মিয়া বলেন, মরদেহটি হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে। বিষয়টি কদমতলী থানায় জানানো হয়েছে।


আরও খবর



১৯ উপজেলার ভোট স্থগিত

প্রকাশিত:সোমবার ২৭ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ১৩৫জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:তৃতীয় ধাপের ষষ্ট উপজেলা পরিষদের ১০৯টি উপজেলার মধ্যে ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবের কারণে মোট ১৯টি উপজেলার ভোট স্থগিত করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

সোমবার (২৭ মে) মো. জাহাংগীর আলম এক সংবাদ সম্মেলনে ইসি সচিব এই তথ্য জানান।

তিনি বলেন, আগামী ২৯ মে ষষ্ট উপজেলা পরিষদের তৃতীয় ধাপের ১০৯ উপজেলায় ভোটগ্রহণের কথা ছিল। এ উপলেক্ষে নির্বাচন কমিশনসহ সংশ্লিষ্ট সবাই নির্বাচনের প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। কিন্তু গতকাল সন্ধ্যা থেকে ঘূর্ণিঝড় রিমাল উপকূলীয় অঞ্চলগুলোতে আঘাত হেনেছে।

ইসি সচিব বলেন, কোনো কোনো নির্বাচনি এলাকায় জলোচ্ছ্বাসের পানি প্রবেশ করেছে, কোথাও বেড়িবাঁধ ভেঙে পানি প্রবেশ করেছে, কোথাও গাছ উপড়ে পড়েছে, কোথাও বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। এসব বিবেচনায় নিয়ে নির্বাচন কমিশন মোট ১৯টি উপজেলার ভোটগ্রহণ আপাতত স্থগিত করেছে।

নির্বাচন স্থগিত করা ১৯ উপজেলা হলো- শরণখোলা, মোড়েলগঞ্জ, মোংলা, কয়রা, পাইকগাছা, ডুমুরিয়া, গৌরনদী, আগৈলঝাড়া, পটুয়াখালী সদর, মির্জাগঞ্জ, দুমকী, মঠবাড়িয়া, তজুমদ্দিন, লালমোহন, রাজাপুর, কাঠালিয়া, বামনা, পাথরঘাটা ও বাঘাইছড়ি।

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট প্রবল ঘূর্ণিঝড়ের অগ্রভাগ রোববার (২৬ মে) সন্ধ্যা নাগাদ উপকূল অতিক্রম শুরু করে। পরে রাতভর উপকূলীয় জেলায় তাণ্ডব চালিয়ে আজ সকালে স্থল গভীর নিম্নরাপে রূপ নেয়।


আরও খবর



এনার্জিপ্যাকের ‘গ্লোবাল ইকোনোমিক্স অ্যাওয়ার্ড ২০২৪’ অর্জন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | ১১১জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:গ্লোবাল ইকোনোমিক্স অ্যাওয়ার্ড ২০২৪ অর্জন করেছে বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় পাওয়ার ইঞ্জিনিয়ারিং প্রতিষ্ঠান এনার্জিপ্যাক পাওয়ার জেনারেশন পিএলসি। ‘মোস্ট ইনোভেটিভ পাওয়ার ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি বাংলাদেশ’-এর স্বীকৃতি পেয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এর মাধ্যমে দেশের জন্য আরেকটি গৌরব বয়ে নিয়ে এলো এনার্জিপ্যাক।

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের উদ্ভাবনী কাজগুলো পরিচালনা করার লক্ষ্যে ১৯৮২ সাল থেকে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে এনার্জিপ্যাক। জ্বালানির শক্তিকে পুরোপুরি কাজে লাগাতে দেশকে সহায়তা করার ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানটি এর সমস্ত কার্যক্রমে উদ্ভাবন নিশ্চিত করার ওপর গুরুত্বারোপ করছে। প্রতিষ্ঠানের সম্মিলিত প্রচেষ্টা ও শ্রেষ্ঠত্বের স্বীকৃতিস্বরূপ এই পুরস্কার অর্জন করলো এনার্জিপ্যাক।

এ বিষয়ে এনার্জিপ্যাক পাওয়ার জেনারেশন পিএলসি’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও হুমায়ুন রশিদ বলেন, “আমাদের প্রতিষ্ঠানের দলগত কাজের মানসিকতা ও গুণমান ধরে রাখার নিরন্তর প্রচেষ্টার স্বীকৃতি হিসেবে এই পুরস্কার পেয়ে আমরা সত্যিই আনন্দিত। আমাদের প্রতি অব্যাহত সমর্থন ও আস্থা রাখায় আমাদের সহকর্মী ও অংশীদার সহ সবার প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। ভবিষ্যতেও দেশে সাশ্রয়ী ও ক্লিন এনার্জি উৎপাদনে সক্ষমতা অর্জনে সহায়তা করার লক্ষ্য নিয়ে আমরা আমাদের উদ্ভাবন অব্যাহত রাখবো।”

উল্লেখ্য, স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক অর্থনীতিতে উন্নত কর্মসংস্কৃতি নিশ্চিতে অবদান রাখছে এমন সেরা প্রতিষ্ঠানগুলোকে স্বীকৃতি দেয় ‘গ্লোবাল ইকোনোমিক্স অ্যাওয়ার্ড’। ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের আস্থা বাড়ানোর লক্ষ্যে এই পুরস্কার প্রদান করা হয়।


আরও খবর



সৌদি পৌঁছেছেন ৮২ হাজার ৭৭২ জন হজযাত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ১২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | ৬৯জন দেখেছেন

Image

খবর প্রতিদিন ২৪ডেস্ক :পবিত্র হজ পালনের উদ্দেশে চলতি বছর সৌদি আরবে পৌঁছেছেন ৮২ হাজার ৭৭২ জন বাংলাদেশি হজযাত্রী। মোট ২০৯টি ফ্লাইটে মধ্যপ্রাচ্যের দেশটিতে পাড়ি জমিয়েছেন তারা।

বুধবার (১২ জুন) হজ পোর্টালে আইটি হেল্প ডেস্কের প্রতিদিনের বুলেটিন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

হেল্প ডেস্কের তথ্যমতে, মোট ২০৯টি ফ্লাইটে মঙ্গলবার পর্যন্ত সৌদি আরবে পৌঁছেছেন ৮২ হাজার ৭৭২ জন বাংলাদেশি। এরমধ্যে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস ১০৫টি, সৌদি এয়ারলাইনস ৭২টি এবং ফ্লাইনাস এয়ারলাইনস ৩২টি ফ্লাইট পরিচালনা করেছে।

এদিকে, পবিত্র হজ পালন করতে গিয়ে গোলাম কুদ্দুস (৫৪) নামে আরও এক বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে চলতি বছর হজ পালনে গিয়ে এখন পর্যন্ত ১৫ জনের মৃত্যু হলো। তাদের মধ্যে ১৪ জন পুরুষ ও ১ জন নারী। এর মধ্যে মক্কায় ১১ জন এবং মদিনায় ৪ জনের মৃত্যু হয়।

বাংলাদেশ থেকে গত ৯ মে হজযাত্রীদের বহনকারী প্রথম ফ্লাইট সৌদি আরবের উদ্দেশে ছেড়ে যায়। আজ বুধবার শেষদিনের মতো হজযাত্রীদের ফ্লাইট সৌদি আরবের উদ্দেশে ছেড়ে যাবে। এ বছর হজযাত্রীদের প্রথম ফিরতি ফ্লাইট শুরু হবে আগামী ২০ জুন। এ ছাড়া আগামী ২২ জুলাই হজযাত্রীদের শেষ ফিরতি ফ্লাইট দেশের উদ্দেশে রওনা হবে।

প্রসঙ্গ, গত ৬ জুন সৌদি আরবে জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা গেছে। দেশটিতে পরদিন ৭ জুন থেকে আরবি বর্ষপঞ্জিকার ১২তম এ মাস শুরু হয়েছে। এই হিসেবে আগামী ১৫ জুন মধ্যপ্রাচ্যের দেশটিতে পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হবে। এ ছাড়া পরদিন ১৬ জুন দেশটিতে পবিত্র ঈদুল আজহা অনুষ্ঠিত হবে।


আরও খবর



মীরপুর ১০ ব্যাস্ততম এলাকায় রাস্তা দখল করে হকার বসিয়ে চাঁদাবাজী

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | ১৪০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিনিধী:- রাজধানীর ব্যস্ততম মিরপুর১০ নম্বর গোলচত্বরসহ এলাকার  ফুটপাতসহ সড়কের অর্ধেকটা দখল করে চলছে পাচ হাজার হকারদের রমরমা ব্যবসা। এই ব্যবসার দোকান গুলোতে আলো জ্বালাতে অবৈধ ভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে মাসে অর্ধকোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে একটি চক্র। এদিকে সরকার বিদ্যুৎ সাশ্রয় করার জন্য লোডসিটিং চালু করেছে। অন্য অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে মোটা অস্কের টাকার হাতিয়ে নিচ্ছে।


এর পাশাপাশি কোটি টাকার চাঁদাবাজিও হচ্ছে ফুটপাত থেকে। মিরপুর মডেল থানার কর্মরত কনস্টেবল মোহাম্মদ হেলাল প্রায় এক যুগ ধরে পুলিশের নামে ফুটপাত ব্যবসায়ী ও বিভিন্ন জায়গা থেকে টাকা তোলেন। ব্যবসায়ীদের অভিযোগ পুলিশের পিআই মোহাম্মদ জিয়া সহ পুলিশের বড় কর্মকর্তাদের নামে এই সব টাকাগুলো ওঠানো হয়। প্রায় চার লেনের চওড়া রাস্তার দুই লেনই দখল করে ব্যবসা করছেন হকারা।এখান থেকে মাসে কোটি টাকার লেনদেন করছেন হকার নেতারা।


 ফুটপাতের একাধিক ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করে বলেন, প্রসাশনসহ সরকার দলীয় নেতা -কর্মীরা এসব টাকা ভাগ করে খাচ্ছেন। ফুটপাতের পজিশন নিতে প্রথমে দিতে ৪০-৫০ হাজার টাকা। আবার প্রতিদিন দিতে হয় ৩-৪ শ টাকা। এ ছাড়া, আরও অনেককে ম্যানেজ করতে হয়।তারা শীর্ষ সন্ত্রাসী শাহাদাতের নামে টাকা উঠায়। এতে করে শুধু পথচারীই নয়, চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে যানবাহনগুলোকেও। বিশেষ করে মিরপুর-২ নম্বর থেকে১০  গোলচত্বরসহ আশ পাশের পুরো এলাকা জুড়ে ও শাহ আলী মার্কেটের রাস্তার অর্ধেকের বেশি দখলে থাকে হকারদের। ক্রেতা-বিক্রেতা একাকার হয়ে যায় প্রধান সড়কে। 


এসব এলাকার রাস্তা দখল এবং ফুটপাতের অবস্থা বেগতিক। অভিযোগ রয়েছে, প্রশাাসনকে ম্যানেজ করে মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে রাস্তাকে পজিশন বিক্রি করা হয়েছে। ফলে যেখানে বসে নিশ্চিন্তে ব্যবসা করছেন হকাররা। এসব হকারদের কারণে চরম ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন মার্কেটের ব্যবসায়ীরাও।ব্যবসায়ীদের অভিযোগ ফুটপাত, রাস্তা দখল করে হকার বসিয়ে স্থানীয় নেতারা প্রতিদিন কয়েক লাখ টাকা চাঁদাবাজি করছে। এমন কি সরকারকে ফাকি দিয়ে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে মাসে অর্ধকোটি টাকা হর্কারদের কাছ থেকে আদায় করছে চক্রটি। যার ভাগ প্রশাসনের বিভিন্ন মহলেও পৌঁছে যাচ্ছে। এমনকি সরকার দলীয় নেতা-কর্মীরাও বাদ নেই। কিন্তু এ কারণে মূল মার্কেটের ব্যবসা কমে যাচ্ছে। ব্যবসায়ীরা আরও অভিযোগ করে বলেন, শাহ আলী মার্কেটের আশপাশের চাঁদাবাজির নিয়ন্ত্রণ করছে রুবেল, জাহাঙ্গীর, হিরু মিয়া, রাড্ডার সামনে টিংকুর নিয়ন্ত্রণে সাদ্দাম,  আকবর, হাবিব ও নুরু মিয়াসহ কয়েকজন। এবং ১০ নম্বর গোলচত্বরসহ তার আশপাশের ফুটপাতে থেকে মো. আখের মিয়া, রুবেল, নেতা জাকির, সাদ্দাম, ফেলান ও মোরসালিন। তারা নিজেরাও দোকান বসিয়েছে। ব্যবসায়ীদের আরো অভিযোগ মোরসালিন এমপি এসএম জাহিদের নাম ভাঙ্গিয়ে ফুটপাত দখল করে ও বিভিন্ন জায়গা থেকে চাঁদাবাজি করে আসছে। নিয়ন্ত্রণকারীরা  বলেন, সবাই এসে আমাদেরকে ধরেন হকারেরা।


 আমরা বাধ্য হয়ে মোটা অংকের  টাকা নিয়ে হকারদেরকে বসতে দেই। তাদের নিয়ন্ত্রিত বাহিনীর সদস্যরা শুধু ফুটপাতই নয়, রাস্তা দখল করে পজিশন বিক্রি করছে হকারদের কাছে। সকাল থেকেই রাস্তা ও ফুটপাত দখল হয়ে যায়। রাস্তায় দেখা দেয় তীব্র যানজট। বাস চালক আবুল কালাম বলেন, ঢাকায় এত চওড়া রাস্তা খুবই কম এলাকাতেই আছে। কিন্তু চওড়া হলে কী হবে। হকারদের কারণে আমরা তার সুফল ভোগ করতে পারি না। সব যায়গায় ফুটপাত দখল করলেও এখানে রাস্তাই দখল করে বসে আছে। থানা পুলিশ, ট্রাফিক পুলিশ সব দেখছে। 


কিন্তু কেউ কিছুই বলছে না। মার্কেটের কয়েক জন ব্যবসায়ী নাম প্রকাশ না করে বলেন, হকারদের এ উৎপাতে আশপাশের মার্কেটগুলোর ব্যবসায়ীরা সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। রাস্তা, ফুটপাথ বন্ধ থাকার কারণে ক্রেতারা মার্কেটে আসতে পারেন না। যার কারণে তাদের বিক্রিও তেমন হয় না। এসব বিষয়ে কোনো কথা বলতে গেলে দখলদার সন্ত্রাসীরা নানা ধরনের হুমকি দিতে শুরু করে।


শুধু তাই নয়, মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর হুমকি দিয়ে থাকে।রাস্তায় পজিশন নেওয়া ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী আলমগীর  হোসেন ও শামসুল আলম বলেন, মোটা অঙ্কের টাকা চাঁদা দিয়ে বসার জায়গাটুকু পেয়েছি। তার পরও প্রতিদিন তাকে ৩০০ টাকা করে চাঁদা দিতে হয়। এর পর আবার বিদ্যুৎ জ্বালানোর জন্য প্রতি লাইটে ৩০ টাকা করে দিতে হয়। বিক্রি হোক বা না হোক এই চাঁদা তাদেরকে দিতেই হবে।


এটা এখন নিয়মে পরিণত হয়েছে। কিন্তু এর বাইরে যখন চাঁদা দিতে হয় তখন ব্যবসায়ীদের পুঁজি ভেঙে খাওয়া ছাড়া কোনো পথ থাকে না।তিনি বলেন, ফুটপাতে খুবই কম লাভে পণ্য বিক্রি করতে হয়। এখন প্রচুর দোকান থাকায় খুব বেশি লাভও হয় না। তার মধ্যে থানা পুলিশ, লাইনম্যান, ঝাড়ুদার, পুলিশ সোর্স এবং এলাকার বিভিন্ন সংগঠনের নেতাদের আলাদা আলাদা করে টাকা দিতে হয়। কেউ দিন হিসেবে আবার কেউ সপ্তাহ হিসেবে এসব টাকা নিয়ে থাকে।


আর যাদের কাছ থেকে জায়গা বা পজিশন নিয়েছি তাদের তো আলাদাভাবে চাঁদা দিয়ে জায়গা রক্ষা করতে হয়।এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা নাম না প্রকাশে শর্তে তিনি বলেন, মাঝে মধ্যেই সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়। কিন্তু তাতে লাভ হয় না।তিনি আক্ষেপ করে বলেন, আমাদের কিছু অসাধু কর্মচারী ও কর্মকর্তারা এবং  প্রসাশনের লোকজন এসব অনৈতিক কাজে জড়িত থাকেন।তা হলে তো আর উচ্ছেদ করেও কোনো লাভ হচ্ছে না।


একদিকে উচ্ছেদ হচ্ছে আবার কিছুক্ষণ পরে হকাররা আবার দোকান বসাচ্ছে। তাই পুলিশের পক্ষ থেকে কার্যকরি পদক্ষেপ নেওয়া হলে উচ্ছেদের পর নতুন করে হকার বসতে পারবে না। ডেসকোর একজন প্রকৌশলী এ ব্যাপারে বলেন, এই সব অভিযোগ শুনতে শুনতে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছি। আমরা ওই সব এলাকায় বারবার অভিযান চালিয়ে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ বিছিন্ন করা হয়। কিন্তু আমাদের অফিসের কিছু অসাধু কর্মচারী ও কর্মকর্তারা অর্থের বিনিময়ে ওই সব অবৈধ চক্রের সাথে হাত মিলিয়ে অবৈধ বিদ্যুৎতের লাইন সংযোগ দিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়।


তিনি দুঃখকরে আরও বলেন, যেখানে সরকার বিদ্যুৎ সাশ্রয় করার জন্য লোডসিটিংয়ে পদক্ষেপ নিয়েছেন। এর মধ্যে তারা গ্রাহকে ঠকিয়ে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগদিয়ে টাকা নিচ্ছেন। মিরপুর জোনের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন মোল্লাহ জানান, অতি তাড়াতাড়ি সবার সহযোগিতায় মিরপুর এলাকার ফুটপাথ ও রাস্তা দখল থেকে হকারদের উচ্ছেদ করে দখলমুক্ত করা হবে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব

আরও খবর



বিরামপুরে ধান-চাল সংগ্রহের শুভ উদ্বোধন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২১ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | ১৩৬জন দেখেছেন

Image

মিজান, বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃদিনাজপুর জেলার বিরামপুর সরকারি খাদ্য গুদামে চলতি মৌসুমের বোরো ধান, চাল ও গম সংগ্রহ অভিযানের শুভ বভউদ্বোধন করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২১ মে) সকালে চলতি মৌসুমের বোরো ধান, চাল ও গম সংগ্রহ অভিযানের শুভ উদ্বোধন করেন, দিনাজপুর-৬ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য শিবলী সাদিক এমপি ।

সরকারি খাদ্য গুদামে ধান, চাল ও গম সংগ্রহের সময় উপস্থিত ছিলেন, বিরামপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সুব্রত কুমার সরকার, উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা মঈন উদ্দিন, বিরামপুর (চরকাই) খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা লুৎফর রহমান খন্দকার, বিরামপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ও দৈনিক জনকণ্ঠ পত্রিকার নিজস্ব প্রতিনিধি আকরাম হোসেন, বিরামপুর  প্রেসক্লাবের আহবায়ক সহকারী অধ্যাপক মশিহুর রহমান, যুগ্ম-আহবায়ক হাফিজ উদ্দিন সরকার, চাউল কল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক হবিবর রহমান, সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ অদৈত কুমার অপু, মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ মেজবাউল হক প্রমূখ।

বিরামপুর (চরকাই) খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা লুৎফর রহমান খন্দকার জানান, চলতি মৌসুমের বিরামপুর (চরকাই) খাদ্য গুদামে ৩২ টাকা কেজি দরে ১ হাজার ৫৮১ মেট্রিক টন ধান, ৪৫ টাকা কেজি দরে ৪ হাজার ৭৪০ মেট্রিক টন চাল ও ৩৪ টাকা কেজি দরে ২০ মেট্রিক টন গম ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে।


আরও খবর

ভোলায় "রাসেল ভাইপার" আতঙ্ক

বুধবার ১৯ জুন ২০২৪