Logo
আজঃ শনিবার ১০ জুন ২০২৩
শিরোনাম

জামায়াত-শিবিরের ২৩ নেতাকর্মী ককটেল সহ আটক

প্রকাশিত:রবিবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ১০ জুন ২০২৩ | ১৬৪জন দেখেছেন

Image

ইয়ানূর রহমান : শার্শার পল্লী থেকে ককটেল সহ জামায়াত-শিবিরের ২৩ নেতা কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার (১৮ই ফেব্রুয়ারি ২০২৩) গভীর রাতে শার্শার পুটখালী এলাকায় অভিযান চালিয়ে বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশ তাদেরকে আটক করেন।

বেনাপোল পোর্ট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কামাল হোসেন ভূইয়া বলেন, শনিবার রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি বেনাপোল পুটখালী ইউনিয়নের বারোপোতা গ্রামে জামায়াত- শিবিরের নেতা-কর্মীরা গোপন বৈঠক করছে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে সেখানে অভিযান চালিয়ে তাদের কে আটক করা হয়। এ সময়ে তাদের হেফাজত থেকে ৫টি ককটেলও  উদ্ধার করা হয়েছে। আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে দুপুর আজ দুপুরে আদালতে শোপর্দ করা হয়েছে ৷


আরও খবর



জিএমপির নতুন পুলিশ কমিশনার মাহবুব আলম

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ জুন ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ১০ জুন ২০২৩ | ৬৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) নতুন পুলিশ কমিশনার হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন ডিআইজি মো. মাহবুব আলম। জিএমপি কমিশনার মোল্যা নজরুল ইসলামের স্থলাভিষিক্ত হবেন তিনি।

আজ বুধবার এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ।

প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়, জননিরাপত্তা বিভাগের ২৫ এপ্রিল স্মারকের আলোকে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের ৮ মে স্মারকের পরিপ্রেক্ষিতে বিসিএস পুলিশ ক্যাডারের নিম্নবর্ণিত কর্মকর্তাদের বর্ণিত পদে বদলি ও পদায়ন করা হলো। এতে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) বর্তমান কমিশনার মোল্যা নজরুল ইসলামকে আর্মড পুলিশ ব্যাটেলিনের (এপিবিএন) ডিআইজি এবং এপিবিএনের ডিআইজি মো. মাহবুব আলমকে জিএমপির কমিশনারের দায়িত্ব দেওয়া হলো। এ আদেশ ৩১ মে থেকে কার্যকর হবে বলেও প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়।

বিসিএস পুলিশ ক্যাডারের ১৮তম ব্যাচের কর্মকর্তা মাহবুব আলমের বাড়ি কুমিল্লার হোমনার খোদেদাউদপুর গ্রামে। তিনি ১৯৯৯ সালের ২৫ জানুয়ারি পুলিশে যোগদেন। এপিবিএনের ডিআইজি পদে দায়িত্ব পালনের আগে তিনি ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার ছিলেন।

গত বছরের মে মাসে তিনি ডিআইজি পদে পদোন্নতি পান। এরপর তাকে এপিবিএনের ডিআইজি করা হয়। চাকরিজীবনে তিনি ডিএমপির যুগ্ম-পুলিশ কমিশনার (ডিবি), টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার এবং বিদেশ মিশনসহ গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। পুলিশে ভালো কাজের স্বীকৃতি হিসেবে দুইবার রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক-পিপিএম এবং একবার বাংলাদেশ পুলিশ পদক-বিপিএম পান।


আরও খবর



বিশ্বকাপ একাদশে কারা থাকছেন, জানালেন পাপন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৮ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ১০ জুন ২০২৩ | ৮৭জন দেখেছেন

Image

স্পোর্টস ডেস্ক:চলতি বছর ভারতের মাটিতে অনুষ্ঠেয় ওয়ানডে বিশ্বকাপ নিয়ে প্রতিটি দল এখনই পরিকল্পনা শুরু করেছে। পিছিয়ে নেই বাংলাদেশও। ইতোমধ্যে টাইগাররা বিশ্বকাপ সুপার লিগে নিজেদের শেষ সিরিজও খেলছে। যেখানে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ২-০ ব্যবধানে সিরিজ জিতে নেন তামিম-লিটনরা। বৃষ্টির কারণে প্রথম ম্যাচটি পরিত্যক্ত হয়।

বিশ্বকাপ সুপার লিগে বর্তমানে পয়েন্ট টেবিলের তৃতীয়স্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। ২৪ ম্যাচে ১৫ জয়ে ১৫৫ পয়েন্ট দলটির। শীর্ষে নিউজিল্যান্ড ও দ্বিতীয়স্থানে ইংল্যান্ড।

এদিকে সদ্য আইরিশ সিরিজ খেলে এখন ছুটিতে রয়েছে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। বাংলাদেশের পরের সিরিজ আফগানিস্তানের বিপক্ষে। তার আগেই অবশ্য বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপন ওয়ানডে বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলের একাদশের কেমন হতে পার তার ইঙ্গিত দিয়ে রাখলেন।

সংবাদমাধ্যমকে পাপন জানান, বিশ্বকাপ একাদশে তামিম ইকবাল, লিটন দাস, নাজমুল হোসেন শান্ত, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম ও তাওহীদ হৃদয়ের জায়গা পাকা। তবে ৭ নম্বর ব্যাটিং অর্ডারের বিবেচনায় রয়েছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, আফিফ হোসেন, মোসাদ্দেক হোসেন, ইয়াসির আলী রাব্বি ও মেহেদী হাসান মিরাজ।

গণমাধ্যমকে পাপন বলেন, ‘অলরাউন্ডার চাইলে আফিফ আছে, মোসাদ্দেক আছে ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও আছে। সেও বল করে দিতে পারব। রিয়াদ ভালো বল করে, আমি দেখেছি, ঘরোয়া ক্রিকেটেও ও ভালো। পার্থক্যটা হচ্ছে শুধু ফিল্ডিংয়ে। ভালো ফিল্ডিং চাইলে এই তিনজনের মধ্যে আফিফ সবার উপরে। মোসাদ্দেকও রিয়াদের চেয়ে ভালো হতে পারে।

ফিল্ডিংয়ের বেলায় আফিফ-মোসাদ্দেককে এগিয়ে থাকলেও অভিজ্ঞতায় এগিয়ে রিয়াদ। এ সম্পর্কে পাপন বলেন, ‘অভিজ্ঞতা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এখন আমরা যাদের সঙ্গে খেলছি আর বিশ্বকাপে যাদের সঙ্গে খেলব, দুটোর পরিস্থিতি কিন্তু এক না। তাই ব্যাপারটা (খেলোয়াড় বাছাই) কঠিন।

৫০ ওভারের এই টুর্নামেন্টের ১৩তম সংস্করণটি আগামী অক্টোবরে শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। যা ৫ অক্টোবর শুরু হয়ে ১৯ নভেম্বর শেষ হতে পারে।

বিশ্বকাপকে কেন্দ্র করে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই) অন্তত ১২টি স্টেডিয়ামের সংক্ষিপ্ত তালিকা করেছে। যেখানে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ক্রিকেট স্টেডিয়াম নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচ।

মোট ৪৮টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে ৪৬ দিনের এই টুর্নামেন্টে। এছাড়া ভেন্যু হিসেবে আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামসহ ব্যাঙ্গালুরু, চেন্নাই, দিল্লি, ধর্মশালা, গুয়াহাটি, হায়দ্রাবাদ, কলকাতা, লক্ষ্মৌ, ইন্দোর, রাজকোট ও মুম্বাই রয়েছে সংক্ষিপ্ত তালিকায়। যদিও ফাইনাল ছাড়া আর কোনো ম্যাচের ভেন্যু এখনো চূড়ান্ত হয়নি।


আরও খবর



দুর্নীতি মামলায় আসলামের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ গঠন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৮ জুন ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ১০ জুন ২০২৩ | ১০৮জন দেখেছেন

Image

আদালত প্রতিবেদক:নোটিশ পেয়ে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সম্পদের বিবরণী দাখিল না করায় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেছেন আদালত।

আজ বৃহস্পতিবার ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪ এর বিচারক আরাফাত হোসেন অভিযোগ গঠন করেন।

অভিযোগ গঠনের সময় আসলাম চৌধুরীকে কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা হয়। তিনি দোষী না নির্দোষ আদালতের এমন প্রশ্নের জবাবে নিজেকে নির্দোষ দাবি করেন। পরে আদালত আগামী ১০ জুলাই সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য দিন ধার্য করেন।

এর আগে গত ১ জুন এ বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষ আবেদন করলে আসলাম চৌধুরীকে মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়।আসামি পক্ষের আইনজীবী তাহেরুল ইসলাম তৌহিদ অব্যাহতির আবেদন করে শুনানি করেন। তিনি জানান, অভিযোগ গঠনের আদেশের বিরুদ্ধে আমরা উচ্চ আদালতে যাব।

তিনি আরও জানান, মামলাটিতে হাইকোর্ট আসলাম চৌধুরীকে রুল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত জামিন দিয়েছেন। সে অনুযায়ী বৃহস্পতিবার আমরা জামিন চাইলে আদালত জামিন মঞ্জুর করেন। তারা এ আসামির বিরুদ্ধে মোট ৬৮টি মামলা আছে বলে জানান। যার মধ্যে ৩টি মামলায় তিনি জামিন না পাওয়ায় এখনো কারাগারে রয়েছেন। গত ৭ বছর ধরে তিনি কারাগারেই আছেন।

২০১৯ সালের ২৫ ডিসেম্বর দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এর উপপরিচালক মো. নাসির উদ্দিন দুদকের ঢাকা-১ সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে এই মামলা করেন।

মামলার এজাহারে বলা হয়, চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার দক্ষিণ ভাটিয়ারির বাসিন্দা আসলাম চৌধুরী ও তার স্ত্রী নাজনীল চৌধুরীর বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগের অনুসন্ধান শুরু হয়। অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে দুদকের উপপরিচালক ঋত্বিক সাহা চলতি বছরের ১৩ মে আসলাম চৌধুরী ও তার ওপর নির্ভরশীল ব্যক্তিবর্গের নামে-বেনামে থাকা সম্পদ অর্জনের তথ্য দুদকে দাখিলের জন্য নোটিশ দেন। তিনি কারাবন্দি থাকায় কারাগারেও নোটিশ পাঠানো হয়। নোটিশ পেয়ে তিন মাস সময় চেয়ে আবেদন করেন। সেই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে প্রথমে ২১ কর্মদিবস, এরপর আরও ১৫ কর্মদিবস সময় দেয় দুদক। কিন্তু তিনি ওই সময়ের মধ্যে সম্পদ বিবরণী দাখিল না করে কারা কর্তৃপক্ষের কাছে তিন মাস সময় চেয়ে ফের আবেদন করেন। কিন্তু সময় বৃদ্ধির সুযোগ নেই জানিয়ে তাকে নোটিশ দেয়ার পরও তিনি সম্পদ বিবরণী দুদকে দাখিল করেননি। দুর্নীতি দমন কমিশনের আদেশ মোতাবেক সম্পদ বিবরণী দাখিল না করায় মামলাটি দায়ের করা হয়।

মামলাটি তদন্তের পর ২০২২ সালের ২৯ ডিসেম্বর দুদকের উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।
২০১৬ সালের ১৫ মে রাজধানীর খিলক্ষেত এলাকা থেকে আসলামকে গ্রেপ্তার করে ডিবি। পরদিন ফৌজদারি কার্যবিধির (সন্দেহজনক) ৫৪ ধারার মামলায় ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত। এরপর এ আসামির বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা হয়। ওই মামলায় সে বছর ৩১ মে ৭ দিন এবং ৬ জুন ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। ওই রিমান্ড শেষে সে বছর ১৩ জুন তাকে কারাগারে পাঠান আদালত। পরবর্তীতে আরও বিভিন্ন মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

উল্লেখ্য, তৎকালীন গোয়েন্দা সংস্থার দাবি, আসলাম চৌধুরী দীর্ঘদিন ধরেই মোসাদের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ার চেষ্টা করে আসছিলেন। ওই চেষ্টা সফল হয় ২০১৫ সালের জুন মাসে। সে সময় দেশটির ক্ষমতাসীন দলের নেতা ও সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের এজেন্ট মেন্দি এন সাফাদির সঙ্গে পশ্চিমা একটি দেশে আসলাম চৌধুরীর প্রথম দফায় বৈঠক হয়। এরপর মোসাদ এজেন্টদের সঙ্গে আরও দুটি বৈঠক হয়েছে ভারতে। সর্বশেষ বৈঠকটি হয় ২০১৬ সালের মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহে।

মোসাদের সঙ্গে ‘সরকার উৎখাতের’ গোপন আলোচনার অভিযোগে ২০১৬ সালের ১৫ মে রাজধানীর কুড়িল বিশ্বরোড এলাকা থেকে আসলাম চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। ওই বছরের ২৫ মে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে মামলা করে পুলিশ। পরে তাকে রাষ্ট্রদ্রোহের দুই মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়।


আরও খবর



তানোরে ইউপি আওয়ামী মহিলালীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন, জামেলা সভাপতি চামেলী সম্পাদক

প্রকাশিত:রবিবার ২১ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ১০ জুন ২০২৩ | ৭৬জন দেখেছেন

Image
তানোর প্রতিনিধি: রাজশাহীর তানোর উপজেলার কামারগাঁ ইউনিয়ন( ইউপির) আওয়ামী মহিলা লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে জামেলা বেগমকে সভাপতি ও সাগরী রানীকে সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়েছে। শনিবার বিকেলের দিকে ছাঐড় বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত হয় সম্মেলন। ইউপি আওয়ামী মহিলা লীগের  সভাপতি মাফিয়া বেগমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা আ"লীগের সভাপতি মাইনুল ইসলাম স্বপন। ইউপি মহিলা লীগের সাধারন সম্পাদক জামেলা বেগমের সঞ্চালনায় সম্মেলনের শুভ উদ্বোধন করেন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান উপজেলা মহিলা লীগের সভাপতি সোনিয়া সরদার।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সাংসদ প্রতিনিধি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান লুৎফর হায়দার রশিদ ময়না, উপজেলা আ"লীগের সম্পাদক প্রভাষক আবুল কালাম আজাদ প্রদীপ সরকার, ইউপি চেয়ারম্যান ইউপি সভাপতি ফজলে রাব্বি ফরহাদ,উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি রাম কমল সাহা, আওয়ামীলীগ নেতা বিশিষ্ট শিল্পপতি সাংসদ প্রতিনিধি আবুল বাসার সুজন, ইউপি সম্পাদক সুফি কামাল মিন্টু, প্যানেল চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন প্রামানিক, ইউপি যুবলীগ সম্পাদক নির্মল, ইউপি সদস্য লুৎফর রহমান, সেচ্ছাসেবল লীগের ইউপি সভাপতি লিটন, যুবলীগ নেতা মামুন প্রমুখ। এসময় ইউপির ৯ ওয়ার্ডের আওয়ামীলীগ, মহিলালীগ ও সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মী রা উপস্থিত ছিলেন।

আরও খবর



গোপন কক্ষে প্রবেশ, ইসির নির্দেশনায় আটক ২

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৫ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ১০ জুন ২০২৩ | ৯৯জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে গোপন কক্ষে প্রবেশ ও ভোটদানে প্রভাবিত করার অভিযোগে দুইজনকে আটক করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে  সিটি করপোরেশনের ১০৩ নম্বর ও ১০১ নম্বর কেন্দ্র থেকে তাদের আটক করা হয়।

আজ রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে সিসিটিভি মনিটরিং করে দুইজনকে গ্রেপ্তারের নির্দেশনা দিয়েছে ইসি। এক কমিশনার এ তথ্য জানিয়েছে।

ইসি জানায়, গাজীপুর সিটির ১০৩ নম্বর কেন্দ্রে একজনকে তিন দিন আটক রাখার আদেশ দিয়েছে ম্যাজিস্ট্রেট। ইসি ঢাকা থেকে সিসিটিভি দেখা ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন।

এছাড়া, ১০১ নম্বর কেন্দ্রে আব্দুর রহিম নামে একজন আটক করা হয়েছে। গোপন কক্ষে প্রবেশ ও ভোটদানে প্রভাবিত করায় তাদের আটক করা হয়েছে বলে জানায় ইসি।

উৎসবমুখর পরিবেশে গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শেষ হয়েছে। এবার ভোট গণনার পালা। ভোট হওয়ায় কয়েক ঘণ্টার মধ্যে জানা যাবে, কে হচ্ছেন গাজীপুরের পরবর্তী মেয়র।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে। প্রতিটি কেন্দ্রে ভোটারদের উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে। সব কটি কেন্দ্রেই ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএমে) মাধ্যমে ভোট নেওয়া হচ্ছে। দুই একটি কেন্দ্রে আঙুলের ছাপ না মেলায় ভোট গ্রহণে দেরি হয়।


আরও খবর