সর্বশেষ

আজঃ বৃহস্পতিবার ২৯ জুলাই ২০২১

জাজিরা উপজেলায় থেমে নেই পদ্মা সেতুর লোহা চোরদের তৎপরতা

মিরাজ মাহমুদঃ

চোর চক্রের সদস্যরা দীর্ঘদিন যাবৎ শরীয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলার নাওডোবা প্রান্তে  পদ্মা সেতু প্রকল্পের নির্মাণ কাজকে ব্যাহত করার উদ্দেশ্যে লোহা চুরি করে আসছে। পদ্মা সেতু প্রকল্পের দুইজন কর্মচারী এর সঙ্গে সম্পৃক্ত বলে জানা গেছে।এসব মালামালগুলো নাওডোবা গ্রামের বাজারসংলগ্ন আহমদ চোকদার কান্দির ঠান্ডু তালুকদারের বাড়িতে এনে জড়ো করে।ঠান্ডু তালুকদারঐ গ্রামের মন্নাফ তালুকদারের পুত্র,তার সঙ্গে এই লোহা চোর সিন্ডিকেটে আরও জড়িত আছে একই গ্রামের ফজল মৃধা পিতাঃ-ইব্রাহীম মৃধা।পদ্মাসেতুর নির্মান কাজের ফোরম্যান আজিজুল এবং মিস্ত্রী আক্কাছ আলী মিলে সারারাত ধরে এসব লোহা লোহার যন্ত্রাংশ চুরি করে আহমদ চোকদার কান্দির ঠান্ডু তালুকদারের বাড়িতে জড়ো করে এরপর সেইসব চোরাই লোহা ফজল মৃধাকে দিয়ে তার ট্রলিতে করে এসব চোরাই লোহা পরিবহন করে কাজীর হাটে একটি ভাঙ্গারী দোকানে বিক্রি করে।পদ্মাসেতুর কর্মচারী ফোরম্যান আজিজুল এবং মিস্ত্রি আক্কাছ আলী  ঠান্ডু তালুকদারের বোনের ছেলে।মামা ভাগ্নের এই অপকর্মের কারনে সরকারের কোটি টাকার লোহা ভাঙ্গারী দোকানে নামমাত্রমুল্যে বিক্রয় করায় পদ্মা সেতুর প্রকল্পে ব্যায় অনেকটা বৃদ্ধি পাবে।ইতোপুর্বেও নাওডোবা থেকে সেনাবাহিনী বিপুল পরিমান লোহাসহ দুজন কে আটক করেছিল।তার পরেও থামেনি পদ্মাসেতুর লোহা  চোরদের তৎপরতা।